মামুনুর রশীদ মামুনের নেতৃত্বে কানাইঘাটে বিরোধী জোটের ব্যাপক শোডাউন

Kanaighat News on Saturday, November 30, 2013 | 10:55 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক:
 কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের উপর দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহার গ্রেফতার নির্যাতন ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে আসন্ন জাতীয় নির্বাচনের দাবিতে ১৮ দলীয় জোটের টানা ৭২ ঘণ্টার অবরোধের সমর্থনে কানাইঘাট পৌরশহরে শোডাউন করেছে ১৮ দলীয় ঐক্যজোট। অবরোধের সমর্থনে আজ শনিবার বিকেল ২টায় ডাক বাংলা মাঠে সমাবেশ করে বাদ আসর শহরে হাজারো জোটের নেতাকর্মীরা মিছিল বের করে। মিছিল পূর্ব প্রতিবাদ সমাবেশে পৌর বিএনপির সভাপতি হাজী ইফজালুর রহমানের সভাপতিত্বে ও উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক কাউন্সিলর শরিফুল হকের পরিচালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জোটের উপজেলা শাখার আহ্বায়ক কানাইঘাট ও জকিগঞ্জ বিএনপির সমন্বয়কারী মামুনুর রশীদ মামুন। বক্তব্য রাখেন জোটের সচীব জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা এবাদুর রহমান, থানা বিএনপির সহ সভাপতি ডাক্তার আবু শহিদ, সাবেক চেয়ারম্যান হাজী হামিদুল হক, সাবেক চেয়ারম্যান শমশের আলম, মুখলিসুর রহমান, পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ফরিদ আহমদ, জমিয়তের সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা হেলাল আহমদ, জমিয়ত নেতা মুফতি এহসান উল্লাহ, খেলাফত মজলিসের সভাপতি মাওলানা এবাদুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক শহিদুর রহমান, খেলাফত নেতা শিব্বির আহমদ, ইসলামী ঐক্যজোটের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা খলিল আহমদ, মাওলানা আজির উদ্দিন, বিএনপি নেতা ডাক্তার আবু শহিদ, মুহাম্মাদ আলী, আব্দুন নূর, আব্দুল খালিক মোস্তফা, কাউন্সিলর রহিম উদ্দিন ভরসা, নজরুল ইসলাম, রফিক আহমদ মেম্বার, কুতুব উদ্দিন মেম্বার, রাজ্জাক মেম্বার, ইসলাম উদ্দিন মেম্বার, আব্দুল মালিক চৌধুরী মেম্বার, আব্দুর রহমান, মুখলিসুর রহমান, আলমাস উদ্দিন চৌধুরী মেম্বার, উপজেলা যুব দলের আহ্বায়ক আব্দুল মান্নান, যুগ্ম আ‎হ্বায়ক মামুন রশিদ, স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা মিজানুর রহমান, ফারুক আহমদ, মুহাম্মাদ আলী, মিসবাউর রহমান, ছাত্রদলের সভাপতি নজরুল ইসলাম, সহ সভাপতি রাশিদুল হাসান টিটু, খসরুজ্জামান পারভেজ, রুহুল আমিন, আমিনুল ইসলাম, দেলোয়ার, আব্দুল বাসিত, কবির আহমদ, শ্রমিকদলের আহ্বায়ক জাকারিয়া, উলামা দলের সভাপতি মাওলানা কুদরত উল্লাহ, ছাত্র জমিয়তের সভাপতি হাফিয রিয়াজ উদ্দিন প্রমূখ। সভায় বক্তারা বলেন, শেখ হাসিনা দেশকে বাকশালে পরিণত করার জন্য বিরোধী দলের শীর্ষস্থানীয় নেতাকর্মীদের গ্রেফতার ও মামলা হামলা করে এক তরফা নির্বাচনের পাঁয়তারা করছে। কিন্তু বাংলার জনগণ যেকোন মূল্যে ভোটার বিহীন সাজানো পাতানো নির্বাচন প্রতিহত করবে। 

মাসুক উদ্দিন আহমদ আ’লীগের মনোনয়ন পাওয়ায় নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা

নিজস্ব প্রতিবেদক:
 সিলেট ৫ কানাইঘাট-জকিগঞ্জ আসন থেকে বহু প্রতিক্ষিত ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের চূড়ান্ত মনোনয়নপত্র পেয়েছেন জকিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা জননেতা মাসুক উদ্দিন আহমদ। এ আসন থেকে আ.লীগের মনোনয়ন পেতে দীর্ঘ দিন ধরে মাঠ পর্যায়ে চষে বেড়ানো কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য, বিশিষ্ট সমাজসেবী আলহাজ্ব আব্দুল মুমিন চৌধুরী ও রূপালী ব্যাংকের চেয়ারম্যান বিশিষ্ট অর্থনীতিবীদ যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আহমদ আল কবির মনোনয়ন না পাওয়ায় তাঁদের দলীয় সমর্থক ও শুভাকাঙ্খিদের মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে। বর্তমান সংসদ সদস্য আলহাজ্ব হাফিজ আহমদ মজুমদার সরকারের শেষ সময় কানাইঘাট জকিগঞ্জের প্রত্যান্ত অঞ্চলে চষে বেড়ালেও তিনিও মনোনয়ন পাননি। মজুমদার নির্বাচন করবেন না এমন ঘোষণা সভা-সমাবেশে দিয়ে আসছিলেন। আওয়ামীলীগের চূড়ান্ত ৩০০ আসনের প্রার্থী তালিকায় প্রথমে তার নাম ছিল। বিভিন্ন মিডিয়ায় তাও প্রচারিত হয়। কিন্তু তিনি শেষ মূহুর্তে মনোনয়ন না পাওয়ায় তার অনুসারী ও সমর্থকরা হতাশা ব্যক্ত করেছেন। কানাইঘাট উপজেলা আ.লীগ এবং সহযোগী সংগঠন যুবলীগ ও ছাত্রলীগের মধ্যে অভ্যন্তরিন বিরোধ থাকায় এক পক্ষ বর্তমান সাংসদ হাফিয আহমদ মজুমদার এবং দলের বড় অংশ ড. আহমদ আল কবির ও আব্দুল মুমিন চৌধুরীর পক্ষে নির্বাচনী মাঠে তৎপর ছিল। কিন্তু শেষ মুহুর্তে নাটকীয় ভাবে আওয়ামীলীগের সভানেত্রী ও নির্বাচনী পার্লামেন্টারিয়ান ভোট দলের দুর্দিনের কান্ডারী ত্যাগী ও পরিক্ষিত নেতা মাসুক উদ্দিন আহমদকে মনোনয়ন দেয়ায় দীর্ঘদিন পর এ আসনে একজন রাজনৈতিক নেতাকে মনোনয়ন দেওয়ায় দলের তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যপক উৎসাহ উদ্দিপনা পরিলক্ষিত হচ্ছে। রাজনৈতিক বিতর্কের উর্ধ্বে মাসুক উদ্দিন আহমদকে মনোনয়ন দেয়ায় দলের মধ্যে অভ্যন্তরিন বিরোধ নিরসনের পাশাপাশি সবাই একজোট হয়ে তার পক্ষে নির্বাচনী মাঠে নামবেন বলে অধিকাংশ আ.লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ জানিয়েছে। তবে শেষ পর্যন্ত মাসুক উদ্দিন আহমদকে গত উপজেলা নির্বাচনে তার চির প্রতিদ্বন্ধি জকিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাপা থেকে সিলেট ৫ আসনে মনোনয়ন লাভকারী আলহাজ্জ শাব্বির আহমদের সাথে লড়তে হবে। শেষ মুহুর্তে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি নির্বাচনে না আসলে মাঠ পর্যায়ে কঠিন এ নির্বাচনে বিজয়ের মালা মাসুক আহমদ নাকি শাব্বির আহমদের গলায় উঠবে এ নিয়ে অপেক্ষায় আছেন ভোটাররা। এদিকে ত্যাগী রাজনীতিবিদ মাসুক উদ্দিন আহমদ সিলেট-৫ আসন থেকে মনোনয়ন পাওয়া দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে মাসুক আহমদকে অভিনন্দন জানিয়েছেন কানাইঘাট পৌর আ’লীগের আহ্বায়ক জামাল উদ্দিন, উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক রফিক আহমদ, মাসুদ আহমদ, ফখর উদ্দিন শামীম, ওলিউর রহমান, আ’লীগ নেতা রফিক আহমদ প্রমুখ।

সিলেট-৫ আসনে নৌকার টিকিট পেলেন মাসুক উদ্দিন আহমেদ

Kanaighat News on Friday, November 29, 2013 | 10:49 PM

দশম সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করেছে দলটি। শুক্রবার সন্ধ্যায় দলটির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম দলের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ধানমন্ডিস্থ রাজনৈতিক কার্যালয়ে এ তালিকা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ঘোষিত তালিকা আওয়ামী লীগের একক প্রার্থীদের। পরবর্তীতে এ তালিকায় মহাজোট ও ১৪ দলের শরিকদের অন্তর্ভুক্ত করা হবে। প্রকাশিত তালিকা অনুযায়ী সিলেট-৫মনোনয়ন পেয়েছেন মাসুক উদ্দিন আহমদ

কানাইঘাটে সংঘর্ষের ঘটনায় বিএনপির ২৫০ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে পুলিশ এ্যাসল্ট মামলা ॥ গ্রেফতার ৭

নিজস্ব প্রতিবেদক:
 কানাইঘাটের সড়কের বাজারে গত বৃহস্পতিবার  আওয়ামীলীগ ও বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের ৩০ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে আরো অজ্ঞাত নামা ২০০/২৫০ জনের নামে পুলিশ এ্যাসল্ট মামলা দায়ের করেছে। বৃহস্পতিবার রাতের সংঘর্ষের সাথে জড়িত থাকার দায়ে সড়কের বাজারের অদুরে বাংলা বাজার ও ঈদগাহ এলাকা থেকে এক ইউপি সদস্যসহ ৭ জনকে আটক করে পুলিশ। আটককৃতদের এ্যাসল্ট মামলার এজাহারভূক্ত আসামি করে আজ পুলিশ আদালতে সোপর্দ করেছে। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬ টার দিকে অবরোধের সমর্থনে স্থানীয় বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতা কর্মীরা সড়কের বাজারে মিছিল করে প্রতিবাদ সভা করছিল। সভায় ঢিল ছোড়াকে কেন্দ্র করে বিএনপি ও আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। এ সময় জকিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাপার কেন্দ্রীয় নেতা আলহাজ্ব সাব্বির আহমদের সরকারি গাড়ি সহ ৪টি যানবাহন ভাংচুর, ৩টি মোটর সাইকেলে অগ্নিসংযোগ এবং বেশ কয়েকটি ব্যবসা প্রতিষ্টানে হামলার ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ২৫ জন আহত হন। এ ঘটনায় কানাইঘাট থানা পুলিশ সরকারি কাজে বাধা প্রদান ও পুলিশের উপর হামলার অভিযোগ এনে বিএনপির আড়াই শতাধিক নেতা কর্মীর উপর আজ পুলিশ এ্যাসল্ট মামলা দায়ের করে। 

সড়কের বাজারে আওয়ামীলীগ-বিএনপি সংঘর্ষ!২৫ জন আহত

Kanaighat News on Thursday, November 28, 2013 | 11:57 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক:
 কানাইঘাটের সড়কের বাজারে আওয়ামীলীগ ও বিএনপির নেতাকর্মীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় ২৫ জনের মত আহত, ৩ টি মটর সাইকেলে অগ্নিসংযোগ বেশ কয়েকটি যানবাহন ভাংচুর ও দোকানপাটে হামলার খবর পাওয়া গেছে। জানা যায়, আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬ টার দিকে অবরোধের সমর্থনে স্থানীয় বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতা কর্মীরা সড়কের বাজারে মিছিল করে প্রতিবাদ সভা করছিল। এসময় কে বা কারা সভা লক্ষ করে বেশ কয়েকটি ঢিল নিক্ষেপ করলে বিএনপি নেতাকর্মীরা এজন্য যুবলীগ ও ছাত্রলীগকে দায়ী করে বাজারে মিছিল বের করে দু’টি বাস একটি লেগুনা একটি সিএনজি (ফোর স্ট্রোক) ভাংচুর ৩ টি মটর সাইকেলে অগ্নিসংযোগ করলে আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের সাথে তাদের সংঘর্ষ বেধে যায়। সংঘর্ষে উভয় পরে অন্ততঃ ২৫ নেতাকর্মী আহত হন। ৪/৫ টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করা হয়। এ ঘটনায় সড়কের বাজারে দু পক্ষের মধ্যে চরম উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আউয়্যাল চৌধুরীর নেতৃত্বে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে যান। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৪/৫ রাউন্ড টিয়ারশেল ও কাদানো গ্যাস নিক্ষেপ করে বলে স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশ বাজারে অবস্থান করছে। অপরদিকে বিএনপি নেতাকর্মীরা দক্ষিণ বাজারে এবং আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীরা পূর্ব বাজারে অবস্থান করে পাল্টাপাল্টি শ্লোগান দিচ্ছে। এ ব্যাপারে থানার ওসি আব্দুল আউয়্যাল চৌধুরীর  সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি কানাইঘাট নিউজকে জানান, আমি ঘটনাস্থলে আছি, পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। উল্লেখ্য যে, সম্প্রতি সড়কের বাজারে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে সরকারী ও বিরুধী দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে বেশ কয়েক দফা সংঘর্ষ হয়েছে। এতে থানায় বেশ কয়েকটি মামলাও হয়। 

কানাইঘাটে সৎ পিতার লাঠির আঘাতে পুত্রের মর্মান্তিক মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক:
 কানাইঘাটে অসম বিয়ের বলীর পাঠা হয়ে পারিবারিক বিরোধের জের ধরে সৎ পিতার হাতে স্ত্রীর পূর্বের ঔরষজাত পুত্রের মৃত্যু হয়েছে। এ মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে গত বুধবার রাত ৯টায় উপজেলার ১নং লক্ষ্মীপ্রসাদ পূর্ব ইউপির সীমান্তবর্তী ভালুকমারা গ্রামে। পুলিশ ঘাতক সৎ পিতাকে গ্রেফতার করেছে। জানা যায়, গাইবান্ধা জেলার গাইবান্ধা থানার দক্ষিণ খানা গ্রামের মৃত আব্দুস সাত্তারের পুত্র শাহ আলম (৩০) কানাইঘাটে দীর্ঘদিন ধরে লোভাছড়া পাথর কোয়ারী এলাকায় বারকি শ্রমিক এর কাজ করে আসছিল। এই সুবাধে ভালুকমারা গ্রামের মৃত আব্দুল মালিকের পুত্র আব্দুর রহিম (২২) এর সাথে তার সু-সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এক পর্যায়ে আব্দুর রহিম সে তার বিধবা মা ৫ সন্তানের জননী সফাতুন নেছা (৪৫) কে শাহ আলমের সাথে বিয়ের প্রস্তাব দিলে সে রাজি হয়। পরবর্তীতে সকলের সম্মতিতে এ বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়। বিয়ের পর থেকে সফাতুন নেছার পূর্বের বিয়ের পূত্র এক সন্তানের জনক আব্দুর রহিম তার মা ও সৎ পিতা শাহ আলমের সাথে প্রায়ই পারিবারিক ঝগড়া ঝাটিতে লিপ্ত হত। গত বুধবার সন্ধ্যার দিকে ভালুক মারা গ্রামের শামসুল হকের পুত্র গিয়াস উদ্দিন (৩০) লোভা নদীতে শাহ আলমকে মাছ শিকারের কথা বলে বাংলাদেশের সীমান্ত মেইন পিলারের দেড়শ গজ ভিতরে ভালুক মারা নামক স্থানে নিয়ে যায়। সেখানে আব্দুর রহিম ও তার কয়েকজন সহযোগীরা কথা কাটাকাটি নিয়ে শাহ আলমের সাথে মারামারিতে লিপ্ত হলে শাহ আলম একটি বাসের লাঠি দিয়ে আব্দুর রহিমের মাথার পিছন দিকে আঘাত করলে সে রক্তাক্ত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। সীমান্তবর্তী এলাকায় ঘটনাটি হওয়ায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসার পথে গভীর রাতে পথিমধ্যে আব্দুর রহিম মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। খবর পেয়ে কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আউয়াল চৌধুরী ও ওসি (তদন্ত) বজলার রহমান ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘাতক সৎ পিতা শাহ আলমকে গ্রেফতার করেন। নিহতের লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্ট তৈরীর পর আজ সকালে সিলেট ওমেক হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের মা সফাতুন নেছা বাদী হয়ে স্বামী শাহ আলমকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। থানার মামলা নং- (১৭)২৮/১১/১৩। সৎ পিতার হাতে এ মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। 

কানাইঘাটে বিকাশের মাধ্যমে লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারকচক্র

নিজস্ব প্রতিবেদক:
 ম্যাডাম! আপনি বড় ভাগ্যবান গ্রামীনফোন কোম্পানির লটারীতে ১২ লক্ষ টাকা পেয়েছেন। ব্যাংকের আপনার একাউন্ট নাম্বার দেন। লটারীর টাকা পেতে হলে তাড়াতাড়ী ১ লক্ষ টাকা বিকাশ করুন। এমন প্রতারণার ফাঁদে ফেলে কানাইঘাটের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারের দুই মহিলার কাছ থেকে বিকাশের মাধ্যমে ১ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্র। জানা যায়, উপজেলার বানীগ্রাম ইউ/পির উজানীপাড়া গ্রামের চল্লিশোর্ধ এক মহিলাকে প্রতারক চক্র গ্রামীণফোন কোম্পানীর নাম ব্যবহার করে ফোন করে বলে, আপনি লটারীতে ১২ লক্ষ টাকা পেয়েছেন। ১ লক্ষ টাকা বিকাশ করুন। সহজ সরল গ্রামের এই মহিলা তার মেয়েকে সাথে নিয়ে আজ বুধবার বিকেল ৩ টায় কানাইঘাট উত্তর বাজারের জাকি ট্রেডার্সের বিকাশ এজেন্টে এসে ছেলের কাছে ১লক্ষ টাকা পাঠানোর নামে ০১৭৮০২৫৫৭৩৭, ০১৭৮৫৯৩৪৬৬১, ০১৭৬৬৮৪০২০, ০১৭২২০০০৭০০ নাম্বারে ১ লক্ষ টাকা বিকাশ করেন। টাকা পাঠানোর পর বিকাশ এজেন্ট টাকা চাইলে প্রতারিত মহিলা বলেন, পুবালী ব্যাংক কানাইঘাট শাখায় তার একাউন্টে গ্রামীণফোন কোম্পানী লটারীর ১২ লক্ষ টাকা এখনি আসবে। অপেক্ষা করুন আমার ছেলে টাকা তুলতে গেছে। এক পর্যায়ে প্রতারণার মাধ্যমে এই মহিলার কাছ থেকে ১ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়া হয়েছে বিষয়টি সকলের কাছে ধরা পড়ে।  একাউন্ট নাম্বারে টাকা তুলতে গিয়ে টাকা না পেয়ে বিকাশ এজেন্ট মা মেয়েকে তাদের প্রতিষ্ঠানে আটকে রাখেন। এমন সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে বাজারের উৎসুক জনতা সেখানে প্রচন্ড ভিড় জমান। এক পর্যায়ে মহিলার আত্মীয় স্বজনরা খবর পেয়ে এসে বিকাশ এজেন্টের ১ লক্ষ টাকা পরিশোধ করে তাদের সন্ধা ৭ টার দিকে ছাড়িয়ে নেন। সামাজিক লাজ লজ্জার ভয়ে প্রতারিত সম্ভ্রান্ত পরিবারের মা মেয়ে তাদের পরিচয় গোপন রাখেন। ১ লক্ষ টাকার বিনিময়ে ১২ লক্ষ টাকা লটারী পেয়েছেন এমন বিষয়টি তারা পরিবারের কাউকে জানায়নি। যার ফলে অধিক লাভের আশায় ১ লক্ষ টাকা হারান তারা। স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন দীর্ঘ দিন ধরে একটি প্রতারক চক্র গ্রামীণফোন কোম্পানীর লটারীর নামে সহজ সরল নারী পুরুষদের কাছ থেকে প্রতারণার মাধ্যমে এভাবে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। সম্প্রতি কানাইঘাটে এ ধরণের বেশ কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে। 

সোনারগাঁয়ে হেফাজতের মামলায় বিএনপির ১০ নেতা কারাগারে

Kanaighat News on Wednesday, November 20, 2013 | 7:22 PM


সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ): সোনারগাঁ উপজেলা বিএনপির ১০ নেতাকে বুধবার বেলা ১২ টার দিকে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে আদালত। গতকাল নারায়ণগঞ্জ জেলা জজ আদালতে বিএনপির ওই ১০ নেতা গত ৬ মে কাঁচপুরে হেফাজতের সহিংসতার মামলায় হাজিরা দিতে গেলে আদালত তাদের জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠিয়ে দেয়।
যাদের কারাগারে পাঠিয়েছেন তারা হলেন কাঁচপুর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি হাজী সেলিম হক, পিরোজপুর ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন মেম্বার, সোনারগাঁও থানা শ্রমিক দলের সভাপতি মজিবুর রহমান, থানা জাসাসের সভাপতি বিএম ডালিম, সহ সভাপতি ফজল হোসেন, গোলজার হোসেন, সাদিপুর ইউনিয়ন বিএনপি নেতা মোঃ শহীদুল্লাহ, যুবদল নেতা আমানউল্লাহ, শ্রমিকদল নেতা মোঃ হযরত, ওলামাদল নেতা মোঃ তানভীর।---ডিনিউজ

নরসিংদীর ডিসি, ম্যাজিষ্ট্রেট ও তিতাসের কর্মকর্তারা অবরুদ্ধ

নরসিংদী: ৪ জন আনসার সমন্বয়ে অবৈধ গ্যাস লাইন বিচ্ছিন্ন করতে গিয়ে অবৈধ গ্রাহক-শ্রমিক-জনতার অবরোধের শিকার হয়েছে নরসিংদীর ডিসি ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মাহবুবুল করিমের নেতৃত্বাধীন তিতাস গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্নকারী দল। বুধবার সকালে নরসিংদী সদর উপজেলার চৈতাব ও কবিরাজপুর এলাকায় এই ঘটনাটি ঘটেছে। সহস্রাধিক নারী-পুরুষ রাস্তায় টায়ার ও কাঠে আগুন ধরিয়ে অবরোধ সৃষ্টি করেছে। এর ফলে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে ৩ ঘন্টা যানবাহন চলাচল বন্ধ থেকেছে। তিতাস গ্যাস অফিসের একটি ওয়েল্ডার মেশিন ভাংচুর করে। এ অবস্থায় নরসিংদীর ডিসি মোঃওবায়দুল আজম অবৈধ গ্রাহক-জনতার কাছে নতি স্বীকার করতে বাধ্য হয়ে পরে তিনি পূনরায় সংযোগ পূনঃস্থাপন করলে অবরোধকারীরা অবরোধ প্রত্যাহার করে নেয়। 
জানা গেছে, নরসিংদীর মাধবদী, পাইকারচর, শেখেরচর, পাঁচদোনা, ঘোড়াশাল ইত্যাদি এলাকায় এক শ্রেণীর তিতাস গ্যাসের ঠিকাদার ও অসাধু কর্মকর্তা কর্মচারীর যোগসাজসে এলাকার কিছু অসাধু শিল্পপতি ও প্রভাবশালী ব্যক্তি ১৬টি সার্ভিস লাইন থেকে অবৈধ গ্যাস সংযোগ লাইন নির্মাণ করে দীর্ঘ দিন ধরে অবৈধভাবে গ্যাস ব্যবহার করতে থাকে। ব্যাপারটি জানাজানি হয়ে গেলে সদ্য নিযুক্ত নরসিংদী তিতাস গ্যাসের ডিজিএম ও ম্যানেজারের নেতৃত্বে এলাকাসমূহে একটি জরীপ চালানো হয়। গত ৪ নভেম্বর নরসিংদী জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সভায় নরসিংদীর ডিজিএম জানান, এসব এলাকা সমূহে ২৬ হাজার ৬শ মিটার অবৈধ গ্যাস লাইন রয়েছে। যা থেকে শত শত অবৈধ গ্রাহক দিনের পর দিন অবৈধ গ্যাস ব্যবহার করছে। এতে সরকারের কোটি কোটি টাকার রাজস্ব ঘাটতি হচ্ছে। এ অবস্থায় নরসিংদী জেলা প্রশাসক মোঃ ওবায়দুল আজম এ সব অবৈধ গ্যাস লাইন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার সিদ্ধান্ত প্রদান করেন। সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী  বুধবার নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মাহবুবুল করিম, তিতাস গ্যাসের ম্যানেজার তৌহিদুল ইসলাম, ডেপুটি ম্যানেজার আনোয়ার পারভেজ, উপ-সহকারী প্রকৌশলী অকিল উদ্দিন ও খালেদ হোসেন ৪জন সশস্ত্র আনসারকে নিয়ে সকাল সাড়ে ১০ টায় চৈতাব এলাকায় গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে যায়। সেখানে ড্রীম হলিডে পার্কের সন্নিকটে একটি গ্যাস লাইন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার পর এলাকায় হৈ চৈ পড়ে যায়। অবৈধ গ্রাহকরা সংঘবদ্ধভাবে মিছিল নিয়ে রাস্তায় উঠে আসে। তাদের সাথে শরিক হয় অবৈধ গ্যাস ব্যবহারকারী এক শ্রেণীর শ্রমিক-জনতা। মূহূর্তের মধ্যে সহস্রাধিক লোক রাস্তায় নেমে এসে বিভিন্ন শ্লোগান দিতে থাকে। তারা টায়ার ও কাঠে আগুন লাগিয়ে রাস্তায় অবরোধ সৃষ্টি করে। এসময় কিছু সংখ্যক উশৃংখল জনতা তিতাসের টে নেশিয়ান আরিফ চৌধুরী, শরিফুল ইসলাম, শের মোহাম্মদ ও রকিব উদ্দিনকে মারধর করে এবং তাদের নিয়ন্ত্রনাধীন ওয়েল্ডিং মেশিনটি ভাংচুর করে পার্শ্ববতী রাস্তার খাদে ফেলে দেয়। এসময় রাস্তার দুপাশে শত শত বাস-ট্রাকসহ বিভিন্ন যানবাহন আটকা পড়ে। সকাল সাড়ে ১০ টা থেকে বেলা দেড়টা পর্যন্ত দীর্ঘ ৩ ঘন্টা ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। খবর পেয়ে নরসিংদী জেলা প্রশাসক মোঃ ওবায়দুল আজম ঘটনাস্থলে গেলে শত শত জনতা তাকে ঘিরে ফেলে বিভিন্ন শ্লোগান দেয়। অবরোধকারীদের দাবীর মুখে বাধ্য হয়ে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে নরসিংদী থেকে রাইজারহেড নিয়ে গিয়ে পূনরায় সংযোগ স্থাপন করলে পরিস্থিতি শান্ত হয়। পরে গ্রাহক-জনতা অবরোধ ছেড়ে চলে যায়। এব্যাপারে তিতাস গ্যাসের ম্যানেজার তৌহিদুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিচ্ছিন্নকৃত অবৈধ লাইনটিতে কমবেশী ৪০টি অবৈধ আবাসিক সংযোগ ছিল। সরকারী কাজে বাঁধাদানের অপরাধে অবৈধ গ্রাহক ও বাঁধাদানকারীদের বিরুদ্ধে ফৌজদারী মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।----ডিনিউজ

আগুনে পুড়ে গৃহবধূর মৃত্যু


চুয়াডাঙ্গা:  জেলার আলমডাঙ্গা উপজেলার নতিডাঙ্গা গ্রামে বুলবুলি খাতুন (২৮) নামে এক গৃহবধূর আগুনে পুড়ে মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। বুধবার বেলা ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহত বুলবুলি ওই গ্রামের তানভীর আহমেদ তানসেনের স্ত্রী।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, এই মৃত্যু নিয়ে পরষ্পরবিরোধী বক্তব্যের কারণে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে।
নিহতের শ্বশুরবাড়ির লোকজন এটাকে কেরোসিন কুপি থেকে মোটরসাইকেলে আগুন ধরার কারণে দুর্ঘটনায় ওই বুলবুলির মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি করছেন।
অপরদিকে, পুলিশের পক্ষ থেকে আত্মহত্যা এবং প্রতিবেশীদের অনেকেই হত্যা করা হয়েছে মর্মে সন্দেহ করায় প্রশ্ন দানা বেধেছে।---ডিনিউজ

মালদ্বীপের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হলেন দুনিয়া মামুন

ঢাকা : মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট মামুন আবদুল গাইয়ুমের মেয়ে দুনিয়া মামুনকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন দেশটির নতুন প্রেসিডেন্ট আব্দুল্লাহ ইয়ামিন।

এদিকে, মালদ্বীপের এক সরকারি কর্মকর্তা জানিয়েছেন, দ্বীপ দেশটিতে গাইয়ুম পরিবারের গভীর প্রভাবের কথা বিবেচনা করে এ নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কর্মকর্তা বলেছেন, প্রায় দু’বছর রাজনৈতিক অস্থিরতার জন্য আন্তর্জাতিক পর্যায়ে মালদ্বীপের ভাবমর্যাদা বিনষ্ট হয়েছে এবং তা পুনরুদ্ধার করার ক্ষেত্রে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

উল্লেখ্য, টানা ৩০ বছর মালদ্বীপ শাসন করেছেন মামুন আবদুল গাইয়ুম। নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে গাইয়ুমের সৎ ভাই প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিন ৪৩ বছর বয়সী দুনিয়াকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিয়োগ দেন। দুনিয়া মামুন এর আগে মুহাম্মদ ওয়াহিদের সরকারে উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন।

অস্ট্রেলিয়ার দুঃখ প্রকাশ

ঢাকা : অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী টনি অ্যাবট ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট সুসিলো ব্যামবাং ইয়োধইয়নোকে যেকোন ধরনের বিব্রত করার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন। তবে তিনি ক্ষমা চাইতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন।
অস্ট্রেলিয়া ইয়োধইয়নের ফোনে আড়ি পেতেছে এ ধরনের খবর সংবাদমাধ্যমে প্রকাশের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি দুঃখ প্রকাশ করলেন।
মঙ্গলবার পার্লামেন্টে তিনি বলেন, ইন্দোনেশিয়া এবং তার সরকার ও জনগণের প্রতি অস্ট্রেলিয়ার গভীর শ্রদ্ধা রয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার ভালো বন্ধু হিসেবে প্রেসিডেন্ট ইয়োধইয়নের প্রতিও আমার শ্রদ্ধা রয়েছে। মূলত বিশ্বের মধ্যে তিনি সবচেয়ে ভালো বন্ধুদের অন্যতম।
তিনি বলেন, এ কারণে তাকে বিব্রত করার জন্য আমি আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি। তবে তিনি স্পষ্ট বলেছেন, এ জন্যে অস্ট্রেলিয়ার কাছে ক্ষমা প্রত্যাশা করা উচিত হবে না।
অস্ট্রেলিয়ার গোয়েন্দা সংস্থা ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেস্টসহ তার আশপাশের আরো ৯ ব্যক্তির ফোনে আড়ি পেতেছে বলে সংবাদ মাধ্যমে খবর প্রকাশের পর জাকার্তা ক্যানবেরার কাছে এর ব্যাখ্যা দাবি করেছে।
একইসঙ্গে ইয়োধইয়নো বলেছেন, অস্ট্রেলিয়াকে সহযোগিতার বিষয়ে নতুন করে ভাবতে হবে। এ ছাড়া ইন্দোনেশিয়া ক্যানবেরা থেকে তাদের দূতকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে।

ইরানি দূতাবাসে বোমা হামলায় নিহত ২৩

ঢাকা : লেবাননের রাজধানী বৈরুতে ইরানি দূতাবাস লক্ষ্য করে চালানো বোমা হামলায় কমপক্ষে ২৩ জন নিহত হয়েছে।
মঙ্গলবার এ হামলা হয়। নিহতদের মধ্যে লেবাননে নিযুক্ত ইরানি কালচারাল কাউন্সেলর ইব্রাহিম আনসারি রয়েছেন।এতে মৃতের সংখ্যা আরো বাড়বে বলে আশঙ্কা করছেন কর্মকর্তারা।
‘আবদুল্লাহ আজ্জাম ব্রিগেডস’ নামে পরিচিত লেবানন ভিত্তিক আল-কায়েদা সংশ্লিষ্ট একটি গ্রুপ হামলার দায় স্বীকার করেছে। দক্ষিণ বৈরুতের ইরানি মিশনে দুদফা আত্মঘাতী হামলা চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছে তারা।
বৈরুতের দক্ষিণাংশে ইরানি দূতাবাসটি অবস্থিত। নিরাপত্তা নজরদারি ক্যামেরায় এক ব্যক্তিকে বিস্ফোরক বেল্ট পরে দূতাবাসের বাইরের দেয়ালের দিকে দৌড়ে যেতে দেখা যায়। এরপরই সে বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। আর দ্বিতীয়টি গাড়ি বোমা বিস্ফোরণ ছিল বলে জানান লেবাননের কর্মকর্তারা। বিস্ফোরণ দুটি ঘটে কয়েক মিনিটের ব্যবধানে।
টুইটারে এক বার্তায় ‘আবদুল্লাহ আজ্জাম ব্রিগেডস’ এর ধর্মীয় গাইড শেখ শিরাজেদ্দিন জুরাইকাত লেখেন, “এ দলটিই হামলা চালিয়েছে। লেবাননের দুই সুন্নি বীর এই আত্মত্যাগী অভিযান চালায়”।
লেবাননের শিয়া রাজনৈতিক দল ও বেসামরিক বাহিনী হিজবুল্লাহর প্রধান মদতদাতা ইরান। লেবাননের প্রতিবেশী সিরিয়ার গৃহযুদ্ধে দেশটির শিয়া প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের পক্ষ নিয়ে বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করছে হিজবুল্লাহর গেরিলারা।
সিরিয়ার প্রধানত শিয়া-সুন্নি গৃহযুদ্ধের কারণে লেবাননের শিয়া-সুন্নি সাম্প্রদায়িক উত্তেজনাও তীব্র আকার ধারণ করেছে। দক্ষিণ বৈরুতের যে অংশে ইরানি দূতাবাসের অবস্থান তা হিজবুল্লাহ নিয়ন্ত্রিত এলাকায় অবস্থিত।

বন্যায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে সৌদি আরবের জনজীবন


আন্তর্জাতিক ডেস্ক: বর্ষণজনিত বন্যায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে সৌদি আরবের জনজীবন। এখন পর্যন্ত ১৫ জনের প্রাণহানির খবর পাওয়া গেছে। এদের অধিকাংশ সৌদি নাগরিক বলে জানা গেছে।

সৌদী আরবের বিভিন্ন নিচু এলাকা ভারি বর্ষণে তলিয়ে গেছে। বেশ কিছু এলাকায় পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা খারাপ হওয়ায় বৃষ্টির পানি সরছে না। ফলে ডুবে গেছে রাস্তাঘাট, আন্ডার গ্রাউন্ডের বিভিন্ন স্থাপনা।

এদিকে বন্যা কবলিত এলাকা থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে ৮ শতাধিক মানুষকে। সৌদি আবহাওয়া অফিস আগামী ৩ দিনের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করেছে। বন্যার কারণে দুর্ভোগে পড়েছেন প্রবাসীরাও। যারা মারা গেছেন তাদের মধ্যে কোনো বাংলাদেশী আছেন কিনা তা জানা যায়নি।

তিনটি আসনে মনোনয়ন কিনলেন এরশাদ

ঢাকা : আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রংপুর ১ ও ৩ এবং ঢাকা-১৭ আসনে মনোনয়নপত্র কিনেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ। 

বুধবার দুপুরে রাজধানীর বনানীতে দলের চেয়ারম্যানের কার্যালয় থেকে তিনি এ মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন।

পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মনোনয়নপত্র কেনার মধ্য দিয়ে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়। তিনি নিজে ৩টি আসনে মনোনয়নপত্র কিনেছেন।

পার্টির চেয়ারম্যান আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধনের কথা থাকলেও এরশাদ আসার আগেই মনোনয়নপত্র বিক্রি শুরু করেন অন্য নেতারা। ইতোমধ্যে ২০০টি মনোনয়নপত্র বিক্রি হয়েছে বলে জানা গেছে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য তাজুল ইসলাম চৌধুরী, যুগ্ম-বার্তা সম্পাদক আবুল হাসান আহমেদ জুয়েল প্রমুখ।---ডিনিউজ

৪ দিনের রিমান্ডে ছাত্রদল সাধারণ সম্পাদক

ঢাকা : ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশীদ হাবিবকে ফের ৪ দিনের পুলিশ হেফাজতে পাঠিয়েছে আদালত। পুলিশের কর্তব্য কাজে বাধা ও গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগে রমনা থানায় দায়ের করা দুটি মামলায় এছাড়া রমনা ও শাহবাগ থানায় দায়ের করা অন্য দুটি মামলায় আগামী তিনদিনের মধ্যে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেয়া হয়েছে। বুধবার দুপুরে ঢাকা মহানগর হাকিম কেশব রায় চৌধুরী এ আদেশ দেন।
এর আগে গত ১৮ই নভেম্বর রমনা থানায় দায়ের করা একটি মামলায় হাবিবকে ১ দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ। ---ডিনিউজ

বিএনপিকে ভাঙতে বিএনএফকে টাকা দিচ্ছেন পাঁচ শিল্পপতি!

ঢাকা : সদ্য নিবন্ধন পাওয়া রাজনৈতিক দল ‘বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট’কে (বিএনএফ) দল পরিচালনার জন্য টাকা দিচ্ছেন দেশের পাঁচ বিশিষ্ট শিল্পপতি। আওয়ামী লীগ সমর্থক ওই পাঁচ শিল্পপতি মিলে কয়েকশ কোটি টাকা দিচ্ছেন। প্রধান বিরোধী দল বিএনপির সাবেক, বর্তমান সংসদ সদস্য, মন্ত্রী মিলিয়ে প্রায় পঞ্চাশ জনকে বিএনএফে ‘কিনে’ আনার জন্যই শিল্পপতিরা ওই টাকা দিচ্ছেন। শিল্পপতিদের টাকা দেয়া, বিএনপির নেতাদের সঙ্গে আলোচনার কাজটি সরকারি গোয়েন্দা সংস্থার শীর্ষ কয়েক কর্মকর্তা করছেন বলে একাধিক সূত্র জানায়।

জানা যায়, এর আগে গত চার দলের জোট সরকারের আমলে বিএনপিকে ভাঙতে শত কোটি টাকার প্রস্তাব দেয়ার অভিযোগ উঠেছিল শিল্পপতি, যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাবুলের বিরুদ্ধে। বিএনপির পঞ্চাশ সংসদ সদস্যকে শত কোটি টাকা দিয়ে ডা. বদরোদ্দাজা চৌধুরীর বিকল্পধারায় নেয়ার অভিযোগ উঠে তখন। শিল্পপতিদের সহায়তায় বিএনপিকে ভাঙার ওই পদ্ধতিকে ক্ষমতাসীনরা এখন কাজে লাগাতে চাচ্ছেন। চার দলের জোট সরকারের আমলে ওই অভিযোগের ভিত্তিতে নুরুল ইসলাম বাবুলকে গ্রেফতারও করে জোট সরকার। তবে বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালে দল ভাঙেনি। তত্বাবধায়কারের কাছে ক্ষমতা গেলে ভাঙনের কবলে পড়ে দলটি।

সূত্রমতে, আগামী দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির অংশ নেয়ার কোনো সম্ভাবনা দেখছেন না ক্ষমতাসীনরা। বিএনপির প্রভাবশালী অর্ধশত নেতা বিএনএফে যোগ দিয়ে নির্বাচনে অংশ নিলে নির্বাচনটিকে বিদেশিদের কাছে ‘গ্রহণযোগ্য’ করা সহজ হবে বলে মনে করছেন ক্ষমতাসীনরা। এ লক্ষ্যেই বিএনএফকে তারা দাঁড় করিয়েছেন।

বিএনএফকে নিবন্ধন না দিতে গত ১১ জুলাই বিএনপির পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনকে অনুরোধ জানানো হলেও তা শোনেননি ক্ষমতাসীনরা। দলটিকে নিবন্ধন দিতে তিন দফায় সুযোগ দেয়া হয়, যা আইনেও নেই। এমনকি প্রাথমিক তদন্তে আবেদনকারী একাধিক দলের সাংগঠনিক অবস্থান বিএনএফের চেয়ে ভালো থাকা সত্ত্বেও কমিশন তাদের কোনো সুযোগ দেয়নি বলে কমিশন সচিবালয় সূত্রে জানায়।

বিএনপি যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভি আহমেদ বলেন, ‘বিএনপির বিরুদ্ধে সর্বনাশা এজেন্ডা বাস্তবায়নে বিএনএফ নামক ভূঁইফোড় সংগঠনকে নিবন্ধন দিয়ে নির্বাচন কমিশন লজ্জাজনক ঘটনা ঘটিয়েছে। জালিয়াতির মাধ্যমে অবৈধকে বৈধতার সার্টিফিকেট দেয়ার জন্য নির্বাচন কমিশনকে একদিন আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে।’ তিনি বিএনএফের নিবন্ধন বাতিলের দাবি জানান।

যোগাযোগ করলে বিএনএফের প্রধান সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ দাবি করেন, ‘বিএনএফ কোনো গোয়েন্দা সংস্থার সৃষ্ট রাজনৈতিক দল নয়। বিএনএফের নেতাকর্মীরাই দলটিকে সৃষ্টি করেছেন। দেশের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো যদি বিএনএফের প্রতি ভালোবাসা দেখায়, তাতে আমাদের কোনো আপত্তি নেই।’

তবে আবুল কালাম আজাদ স্বীকার করেন, ‘আগামী সংসদ নির্বাচনে বিএনএফ ৩০০ আসনে প্রার্থী দেবে। বিএনএফের কাছে চমক আছে। আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির অনেকে দলটির সঙ্গে আছেন। সময় হলে নাম প্রকাশ করব।’

গত সোমবার নির্বাচন কমিশনের নিবন্ধন পেয়েছে বিতর্কিত রাজনৈতিক দল বিএনএফ। নিবন্ধিত ৪২তম দল হিসেবে সোমবার দুপুরে আবুল কালাম আজাদ নির্বাচন কমিশন থেকে সনদ নেন।

উৎস: প্রিয়দেশ

গাড়ি ভাঙলে আন্দোলন হবে না, রাস্তায় নামতে হবে


ঢাকা: কেবল কেক কেটে জন্মদিন পালন করলে বা দুয়েকটি ‘গাড়ি ভাঙলে’ আন্দোলন হবে না মন্তব্য করে ছাত্রদলের কর্মীদের রাস্তায় নেমে আসার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৪৯তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বুধবার ছাত্রদল আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

ফখরুল তার বক্তব্যের মধ্যে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবি জানানোর সময় ছাত্রদল কর্মীরা কেবল তাদের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিবের ক্ষেত্রে হাততালি দিলে দৃশ্যত বিরক্ত হন ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব। গ্রেপ্তার অন্য সবার মুক্তির দাবিতেও ছাত্রদলকর্মীদের প্রতিক্রিয়া একই ধরনের হওয়া উচিৎ মন্তব্য  করে ফখরুল বিরোধী দলের আন্দোলনে ছাত্রদল কর্মীদের সেভাবে পাওয়া যায় না বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে উপস্থিত ছাত্রদল নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, “শুধুমাত্র কেক কেটে কিংবা স্তুতি-বন্দনা করে  তারেক সাহেবের জন্মদিন পালন করলে চলবে না। দেশের সংকট উত্তরণে চলমান আন্দোলনকে বেগবান করতে হবে। “দুয়েকটা গাড়ি ভাঙলে আন্দোলন হবে না। ছাত্রদলের হাজার-হাজার নেতা-কর্মীকে রাস্তায় নেমে আসতে হবে।”

আলোচনা সভার পর মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ছাত্রদলের সভাপতি আবদুল কাদের ভুঁইয়া জুয়েলসহ নেতাদের নিয়ে ৪৯ পাউন্ডের একটি কেক কাটেন। তারেক রহমানের দীর্ঘায়ু কামনা করে তিনি বলেন, “আমরা যদি আন্দোলনের মাধ্যমে অবরুদ্ধ গণতন্ত্র মুক্ত করতে পারি, তাই হবে তারেক রহমানের জন্মদিনে আমাদের বড় উপহার।”

খালেদা জিয়ার বড় ছেলে তারেক রহমান ১৯৬৫ সালে বগুড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। জরুরি অবস্থা জারির পর ২০০৭ সালের ৭ মার্চ তারেককে গ্রেপ্তার করা হয়। সুপ্রিম কোর্ট থেকে জামিন নিয়ে পরের বছরের সেপ্টেম্বর মাসে তিনি চিকিৎসার জন্য যুক্তরাজ্য যান। তখন থেকে তিনি সেখানেই আছেন। ‘পাতানো নির্বাচনে বিএনপি নেই’

নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভা নিয়ে বিএনপির পুরনো অবস্থানে অনড় থাকার কথা জানিয়ে ফখরুল তার বক্তৃতায় বলেন, “সারাদেশের মানুষ দেশে একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন চায়। আমাদের বক্তব্য স্পষ্ট, ‘নির্দলীয় সরকার’ ছাড়া পুনর্গঠিত মন্ত্রিসভার অধীনে কোনো নির্বাচনে বিরোধী দল অংশ নেবে না।  দেশের মানুষ তা মেনে নেবে না।” বিদেশিদের কাছেও  সরকারের ওই পাতানো নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হবে না বলে তিনি মন্তব্য করেন।

পটুয়াখালীর জনসভায় প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করে মির্জা ফখরুল বলেন, “গতকাল প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বিরোধী দল নাকি দেশে অশান্তি করছেন। তাকে বলতে চাই, বিরোধী দল নয়, আপনিই দেশে অশান্তি ও নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করছেন।” সরকার রাষ্ট্রীয় শক্তি ব্যভহার করে ‘গণতন্ত্রের সব প্রতিষ্ঠান’ ভেঙে দিয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন,  গত পাঁচ বছরে সহিংসতায় যতো মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে, তার দায় সরকারকেই নিতে হবে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ, এম কে আনোয়ার, রফিকুল ইসলাম মিয়া, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল আউয়াল মিন্টু, বিরোধী দলীয় নেতার বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, ছাত্র বিষয়ক সহ সম্পাদক সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, ছাত্র দলের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশীদ হাবিবসহ নেতা-কর্মীদের নিৎশর্ত মুক্তি দাবি করেন ফখরুল।

ছাত্রদলের সিনিয়র সহ সভাপতি বজলুল করীম চৌধুরী আবেদের সভাপতিত্বে এ আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আ ফ ম ইউসুফ হায়দার, ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রুহুল আমিন গাজী, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি কামাল উদ্দিন সবুজ, বিএনপির সহ স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক এ বি এম মোশাররফ হোসেন বক্তব্য দেন।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন ছাত্র দলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ওবায়েদুল হক নাসির। এদিকে তারেক রহমানের জন্মদিন উপলক্ষে জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে যুবদলের সিনিয়র সহসভাপতি আবদুস সালাম আজাদসহ নেতৃবৃন্দকে নিয়ে কেক কাটেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস ও বরকত উল্লাহ বুলু। এছাড়া জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থা জাসাসের পক্ষ থেকে আলাদাভাবে তারেকের জন্মদিনের কেক কাটা হয়।---ডিনিউজ

কানাইঘাটে ছাত্রলীগ-শিবির রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ! আহত৭

নিজস্ব প্রতিবেদক:
তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে কানাইঘাট ডিগ্রী কলেজে ছাত্রলীগ ও ছাত্রশিবিরের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয়পক্ষের ৭ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আহতরা হলেন, ছাত্রলীগ কর্মী জয়, দেলোয়ার হোসেন দুলাল ও সুমন আহমদ এবং শিবিরকমী শিব্বির, সোয়েব আহমদ, মাহফুজ , সিএনজি চালক জাবের আহমদ ও ট্রলি ড্রাইভার ফারুক আহমদ। এদের মধ্যে ছাত্রলীগ কর্মী দুলাল ও শিবির কর্মী মাহফুজের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা যায়। আহতদের মধ্যে দুলাল ও ফারুককে কানাইঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে এবং অন্যান্যদেরকে সিলেটের বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে। এ দিকে উত্তেজিত ছাত্রলীগ কর্মীরা শিবির কর্মীদের একটি মোটর সাইকেল আগুনে পুড়িয়ে দেয়। একই সময়ে শিবির কর্মীদের হামলার শিকার হন সিএনজি চালক জাবের আহমদ ও ট্রলি ড্রাইভার ফারুক আহমদ । আজ বুধবার দুপুর ১২ টায় এ ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, জয় নামে এক ছাত্রকে বিনা বই খাতায় কাসে উপস্থিত দেখে শিক্ষক ভৎসনা করেন। এতে জয় কিছুটা লজ্জ্বা পেয়ে ক্লাস থেকে বেরিয়ে আসে। এ বিষয়টি নিয়ে জয়ের কয়েকজন সহপাঠী হাসাহাসি করলে সে তাদের সাথে বাক বিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ে। একপর্যায়ে বিষয়টি দলীয় ভাবে রূপ নিলে ছাত্রলীগ কর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় কানাইঘাট বাজারে উত্তেজিত ছাত্রলীগ কর্মীরা শিব্বির আহমদ ও সোয়েব আহমদ নামে দুই শিবির কর্মীকে পেয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। এ খবর শিবিরের নেতাকর্মীদের মধ্যে পৌঁছলে তারা মনসুরিয়া পয়েন্টে ছাত্রলীগ কর্মী দুলাল আহমদকে একটি সিএনজির মধ্যে দেখতে পেয়ে তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে গুরুতর জখম করে একটি দোকানের মধ্যে আটকিয়ে রাখে। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে। এসময় ছাত্রলীগের কর্মীরা বাইপাস পয়েন্টে অবস্থান নিয়ে পাল্টা হামলার প্রস্তুতি নিলে শিবিরের চার কর্মী দু’টি মোটর সাইকেলযোগে কানাইঘাট বাজারে যাচ্ছিল। ছাত্রলীগ কর্মীরা তাদেরকে ধাওয়া করলে শিবিরের কর্মীরা একটি মোটর সাইকেল ফেলে পালিয়ে যায়।  ছাত্রলীগ কর্মীরা ফেলে যাওয়া মোটর সাইকেলটি তখন আগুনে পুড়িয়ে দেয়। এদিকে সিএনজি ও ট্রলি ড্রাইভারকে মারধরের ঘটনায় পরিবহন শ্রমিকরা গাজী বুরহান উদ্দিন সড়কের পৌরসভা কার্যালয়ের সামনে বেলা আড়াইটা থেকে বিকাল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত সড়ক অবরোধ করে রাখে। খবর পেয়ে পৌর মেয়র লুৎফুর রহমান, সদর ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম, কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আউয়াল চৌধুরী ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে হামলার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আশ্বাস দিলে চালকরা তাদের অবরোধ তুলে নেয়। এ ব্যাপারে কানাইঘাট ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ শামছুল আলম মামুন জানান, ছাত্রদের মধ্যে কথা কাটাকাটির জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে। তবে কাসের মধ্যে কোন ঘটনা ঘটেনি। কানাইঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল আউয়াল চৌধুরী জানান, ছাত্রলীগ-ছাত্রশিবিরের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। তবে পরিস্থিতি এখন অনেকটা শান্ত রয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ছাত্রলীগকর্মীরা পৌর শহরের কানাইঘাট বাজারে এবং শিবির কর্মীরা মনসুরা পয়েন্টে সশস্ত্র অবস্থানে রয়েছে। এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। 

প্রস্তাব পেয়েছিলাম, প্রত্যাখ্যান করেছি : পার্থ

ঢাকা : নির্বাচনকালীন সরকারে অংশ নেয়ার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে প্রস্তাব পাওয়ার কথা স্বীকার করে বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির (বিজেপি) চেয়ারম্যান আন্দালিব রহমান পার্থ জানিয়েছেন, ওই প্রস্তাব তিনি প্রত্যাখ্যান করেছেন। একই ধরনের প্রস্তাব দেয়া হয়েছিল এলডিপির সভাপতি কর্নেল অব. অলি আহমেদকেও। তিনিও একইভাবে সরকারের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন। তরুণ এ নেতা দাবি করেন, সরকার নির্বাচনকালীন সরকারকে ‘সর্বদলীয়’ নামকরণ করতে কিছু দলকে টানার চেষ্টা করে। কিন্তু তারা সফল হয়নি। এটি তাদের সর্বশেষ রাজনৈতিক পরাজয়। এক প্রতিক্রিয়ায় পার্থ বলেন, এরশাদ সাহেবকে অনেকে আনপ্রেডিক্ট্যাবল বলে থাকেন, কিন্তু আমার কাছে তাকে প্রেডিক্ট্যাবলই মনে হয়। উনি যে এমন একটা কিছু করবেন তা আমরা আগেই ধারণা করেছিলাম। ওনার খেলা এখানেই শেষ নয়। উনি যতদিন রাজনীতিতে আছেন ততদিন আমাদেরকে আরও এমন খেলা দেখতে হতে পারে। তিনি বলেন, রাজনীতিতে শেষ কথা বলে কিছু নেই-এই কথাটার একটা ইতি টানা দরকার। আওয়ামী লীগ বা বিএনপির এখন একটা বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত, এরশাদ সাহেব যেন কারও সহযোগী না হন। তাহলে বাংলাদেশের রাজনীতি থেকে এই ধরনের চরিত্র বিতাড়িত হবে।
সর্বদলীয় সরকার প্রসঙ্গে বিরোধী দলের এই নেতা বলেন, এটা মহাজোটের একটা রাজনৈতিক বিপর্যয়। তারা অনেক চেষ্টা করেও সর্বদলীয় সরকার বানাতে পারেনি। তাদের নেতৃত্বে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ নিশ্চিত করাটা অসম্ভব। সর্বদলীয় সরকারে যাওয়ার বিষয়ে আপনার দলের আগ্রহ ছিল বলে গুঞ্জন আছে এমন প্রশ্নে পার্থ বলেন, মহাজোটের পক্ষ থেকে আমাকে এবং কর্নেল অলি আহমেদসহ বেশ কয়েকজনকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সর্বদলীয় সরকারে আহ্বান করা হয়েছে। কিন্তু তারা সফল হয়নি। আমরা প্রত্যাখ্যান করেছি। আগ্রহের তো প্রশ্নই আসে না। আমরা সুষ্ঠু নির্বাচন চাই। সর্বদলীয় সরকার দিয়ে তা হবে না।
প্রেসিডেন্টের সঙ্গে গতকালকের সাক্ষাতের প্রসঙ্গে প্রতিনিধি দলের এ সদস্য জানান, সংবিধানের ৪৮(৫) ধারা অনুসারে যে কোন ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীকে বলার এখতিয়ার আছে প্রেসিডেন্টের। তিনি যখন তার ক্ষমতার সীমাবদ্ধতার কথা বলেছেন তখন আমরা বলেছি, আপনি সংবিধানের গার্ডিয়ান। বর্তমান অবস্থায় যে একতরফা নির্বাচন অনুষ্ঠানের চেষ্টা চলছে তা জনগণের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটাবে না। সংকট নিরসনের বিষয়ে উদ্যোগ গ্রহণের দায়িত্ব আপনার। আমরা বিশ্বাস করি, তিনি একজন অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ। তিনি এ বিষয়ে কার্যকর উদ্যোগ নেবেন।---ডিনিউজ

আফগানিস্তানে বোমা বিস্ফোরণে নিহত ২

Kanaighat News on Monday, November 18, 2013 | 10:14 PM

ঢাকা : আফগানিস্তানের দক্ষিণাঞ্চলে জাবুল প্রদেশে রাস্তার পাশে একটি বোমা বিস্ফোরণে দুই শিশু নিহত হয়েছে।

সংবাদ সংস্থা এপির বরাত দিয়ে এবিসি নিউজ জানিয়েছে, সোমবার একটি পরিবার গাড়িতে করে যাওয়ার সময় রাস্তার পাশে বোমা বিস্ফোরণে ওই পরিবারের দুই শিশু নিহত হয়। কেনাকাটার জন্য ওই পরিবার জাবুলের রাজধানী কালাতে এসেছিলেন। বিস্ফোরণে ওই শিশুদের বাবাসহ আরেক শিশু আহত হয়।

এ ঘটনার একদিন আগে রোববার দেশটির কান্দাহার প্রদেশ থেকে ছয় ব্যক্তির গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে স্থানীয় বাসিন্দারা।

প্রথমে ওই ছয় ব্যক্তিকে সরকারি ঠিকাদার বলে সন্দেহ করা হলেও পরে তাদের পুলিশ সদস্য বলে শনাক্ত করা হয়।

জাবুল প্রদেশের সহকারী গভর্নর মোহাম্মদ জান রাসুলিয়ার বলেন, নিহতদের ঠিকাদার বলে সন্দেহ করা হয়েছিল কারণ তাদের শরীরে সাধারণ পোশাক ছিল। ওই পুলিশ সদস্যরা জাবুল থেকে কয়েকদিন আগে নিখোঁজ হন।
জঙ্গি সংগঠিন তালেবানের সদস্যরা ওই পুলিশ সদস্যদের জাবুল থেকে অপহরণ করে কান্দাহার নিয়ে যায় । সেখানেই তাদের লাশ পাওয়া যায়।

এদিকে, জাবুলের মুখপাত্র জানান, সোমবার তালেবানের জন্মস্থল কান্দাহার থেকে বিস্ফোরকদ্রব্য বহনকারী একটি ট্রাক্টর আটক করে পুলিশ।

পুলিশ পাকিস্তান সীমান্তের কাছে ট্রাক্টরটি আটক করার সময় তালেবানের সাথে একটি বন্দুকযুদ্ধ হয় বলেও জানান তিনি।

রাশিয়ায় বিমান বিধ্বস্ত, নিহত ৫০


আন্তর্জাতিক ডেস্ক: রাশিয়ার কাজান শহরের একটি বিমানবন্দরে অবতরণের সময় বোয়িং ৭৩৭ বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। রাশিয়ার কাজান শহরে একটি বিমানবন্দরে যাত্রিবাহী একটি উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হয়ে পাইলট ও ক্রুসহ ৫০ জন নিহত হয়েছে।রাশিয়ায় বিমান বিধ্বস্ত, নিহত ৫০ সোমবার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে বিবিসি অনলাইন।
 
কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বোয়িং ৭৩৭ উড়োজাহাজটি মস্কো থেকে কাজান আসে এবং স্থানীয় সময় রোববার সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে বিমানবন্দরে অবতরণের সময় উড়োজাহাজটি বিস্ফোরিত হয়। রাশিয়ার সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, টাটারস্তান এয়াইলাইন্সের উড়োজাহাজটিতে ৪৪ জন যাত্রী ও ছয়জন ক্রু ছিল। নিহতদের মধ্যে দু’জন শিশু ছিল বলেও জানিয়েছে তারা।
 
তবে উড়োজাহাজটি ঠিক কি কারণে বিস্ফোরিত হয়েছে তা এখনও নিশ্চিত করে জানাতে পারেন নি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। কারিগরি কোনো সমস্যা না কি ক্রুদের কোনো ভুলের জন্য এটি বিস্ফোরিত হয়েছে তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। তদন্ত দলের কর্মকর্তা ভ্লাদিমির মারকিন রাশিয়ার গণমাধ্যম রশিয়া ২৪ টিভিকে বলেন, উড়োজাহাজটি নিম্নমানের জ্বালানি তেল বা খারাপ আবহাওয়ার কারণে দুর্ঘটনা কবলিত হয়েছে কি না তা বিশেষজ্ঞরা খতিয়ে দেখছেন। বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার সময় কাজান শহরে বৃষ্টি হচ্ছিল।

মিসরে ট্রেন-মিনি বাস সংঘর্ষে নিহত ৩০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মিসরে কার্গো ট্রেন ও মিনি বাসের সংঘর্ষে কমপক্ষে ৩০ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরো ২৮ জন। আজ সোমবার ভোরে রাজধানী কায়রো থেকে ৩৫ কি.মি দূরে দাচোর এলাকার কাছের রেল ক্রসিংয়ে এ ঘটনা ঘটে। দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রাণালয়ের বরাত দিয়ে স্থানীয় আল আহরাম পত্রিকা এ খবর জানিয়েছে। দেশটির রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের প্রধান বলেন, গাড়িগুলো সিগনাল বাতি উপেক্ষা করে রেললাইনে প্রবেশ করে। এ সময় রেল ক্রসিংয়ের গেট শিকল দিয়ে বন্ধ ছিল।

মালদ্বীপের নতুন প্রেসিডেন্ট আব্দুল্লাহ ইয়েমিন


আন্তর্জাতিক ডেস্ক: প্রায় দুই বছর রাজনৈতিক অচলাবস্থার পর মালদ্বীপের নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিলেন প্রোগ্রেসিভ পার্টি-- পিপিএম'-এর নেতা আব্দুল্লাহ ইয়েমিন।

রোববার সংসদের বিশেষ অধিবেশনে দেশটির ষষ্ঠ প্রেসিডেন্ট হিসেবে তাকে শপথ পাঠ করান প্রধান বিচারপতি আহমদ ফায়েজ। একই সময় ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে শপথ নেন পিপিএম নেতা মোহাম্মদ জামিল।

এর আগে গত শনিবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে অল্প ব্যাবধানে জয় পান সাবেক শাসক মামুন আব্দুল গাইয়ুমের সৎ ভাই ইয়েমিন।---ডিনিউজ

খোলা আকাশের নিচে পাঠদান

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল): কনকনে শীতে খোলা আকাশের নিচে মাটিতে বসে কোমলমতি শিশু-কিশোররা পাঠদান নিচ্ছে। বিদ্যালয়ের বার্ষিক ও সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল উপজেলার মধ্যে ভাল হলেও বিদ্যালয়টি নানাবিদ সমস্যায় জর্জরিত। শ্রেণীকক্ষ ও আসবাবপত্রের অভাবে ভাল ফলাফল অর্জনকারী টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার সরিষাদাইর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠদান চলে খোলা আকাশের নিচে। 
তথ্য সূত্রে জানা যায়, ১৯১৮ সালে সরিষাদাইর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। উপমহাদেশের প্রখ্যাত দানবীর রনদা প্রসাদ সাহাও এই বিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন। 
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মুক্তি সাহা বলেন, বিদ্যালয়ের উত্তর পাশে একটি পাকা ভবন করা খুবই জরুরি হয়ে পড়েছে। বিদ্যালয়ের প্রধান সমস্যা পাকা ভবন, শ্রেণীকক্ষ এবং শিক্ষক স্বল্পতা। শিশু শ্রেণী থেকে ৫ম শ্রেণী পর্যন্ত ৫৫০ জন ছাত্র-ছাত্রীর জন্য শ্রেণীকক্ষের প্রয়োজন ১৪টি। সেখানে কক্ষ রয়েছে মাত্র ৭টি। শিক্ষক প্রয়োজন ১৪ জন রয়েছে ৭ জন। বিপুল সংখ্যক শিশু-কিশোরদের পাঠদান করাতে শিক্ষকদের কঠোর শ্রম দিতে হচ্ছে এবং অতিরিক্ত সময় দিতে হচ্ছে। ফলে অধিকাংশ সময় শিক্ষকরা অসুস্থ হয়ে পড়েন বলে তিনি জানান।
এ ব্যাপারে টাঙ্গাইল জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সৈয়দা মাহফুজা বেগমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তার সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি। তবে অফিস সূত্র জানান, সরিষাদাইর স্কুলে পাকা ভবন নির্মাণের জন্য প্রকল্প তৈরি করে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।---ডিনিউজ

সংসদে ট্রাভেল এজেন্সি বিল পাস

ঢাকা : ট্রাভেল এজেন্সির অধিকতর স্বচ্ছ ও দক্ষ ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে সুনির্দিষ্ট বিধান করে বাংলাদেশ ট্রাভেল এজেন্সি (নিবন্ধন ও নিয়ন্ত্রণ) বিল-২০১৩ পাস করা হয়েছে।
 
সোমবার জাতীয় সংসদে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী মুহাম্মদ ফারুক খান বিলটি পাসের প্রস্তাব করেন।
 
বিলে নিবন্ধন কর্তৃপক্ষ প্রতিষ্ঠার বিধান করা হয়েছে। এছাড়া বিলে নিবন্ধন সনদ ব্যতীত ট্রাভেল এজেন্সি প্রতিষ্ঠার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিধান করা হয়েছে।
 
বিলে নিবন্ধন সনদ ইস্যু, নিবন্ধন সনদের মেয়াদ ও নবায়ন, সনদ হস্তান্তর, ঠিকানা পরিবর্তনের ওপর বিধি-নিষেধ, সনদ স্থগিত বা বাতিল, নিবন্ধন কর্তৃপক্ষের আদেশের বিরুদ্ধে আপিলসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সুনির্দিষ্ট বিধান করা হয়েছে।
 
এছাড়া বিলে উল্লেখিত বিধান লংঘনের অপরাধে অনধিক ছয় মাস কারাদণ্ড এবং অনধিক ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডের দণ্ডিত করার বিধান করা হয়েছে।
 
বিলে বিদ্যমান বাংলাদেশ ট্রাভেল এজেন্সি (নিবন্ধন ও নিয়ন্ত্রণ) অধ্যাদেশ রহিত করা হয়েছে।---ডিনিউজ

এশিয়ার অঞ্চলের সবচেয়ে বড় শত্রু দারিদ্র: প্রধানমন্ত্রী


ঢাকা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এশিয়ার অঞ্চলের সবচেয়ে বড় শত্রু  দারিদ্র। এ থেকে মুক্তি পেতে আঞ্চলিক সহযেগিতার একান্ত প্রয়োজন বলেও মনে করেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, জনগণের সেবা করার জন্যই গাজীপুরে এই হাসপাতাল নির্মাণ করা হলো। এই হাসপাতালে সব ধরনের চিকিত্সার ব্যবস্থা থাকবে। অবৈধ বাংলাদেশি অভিবাসীদের বৈধ করার জন্য মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান শেখ হাসিনা।

মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক বলেন, হাসপাতালটিতে যত রকমের সহযোগিতা দরকার, সরকার তা করবে। এ ছাড়া বাংলাদেশের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে মালয়েশিয়ার সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।

মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী তিন দিনের সফরে গতকাল রোববার বাংলাদেশে এসেছেন। সোমবার সকালে গাজীপুরে শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হাসপাতাল ও নার্সিং কলেজ উদ্বোধন শেষে সভাপতির বক্তৃতায় তিনি এ মন্তব্য করেন। ---ডিনিউজ

সংঘাত নিরসনে আলোচনা জরুরি : নিশা দেশাই

ঢাকা : দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়া বিষয়ক মার্কিন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিশা দেশাই বিসওয়াল বলেছেন, রাজনৈতিক সংঘাত নিরসনে আলোচনা জরুরি।বাংলাদেশের জনগণের কাছে বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন করার জন্য সংলাপ হতে হবে।

সোমবার বিকেলে গুলশানে আমেরিকান ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।
 
নিশা দেশাই বলেন, সংলাপ শুরুর ব্যাপারে প্রধান দুই রাজনৈতিক দলের নেত্রীর উচিত তাঁদের মহাসচিবদের দায়িত্ব দেওয়া। তিনি বলেন, বাংলাদেশে একটি সুষ্ঠু, অবাধ ও বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন দেখতে চায় যুক্তরাষ্ট্র। তবে এই নির্বাচন বাংলাদেশের জনগণের কাছে বিশ্বাসযোগ্য হতে হবে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে নিশা দেশাই বলেন, বাংলাদেশের নির্বাচন ও গণতন্ত্রের ব্যাপারে ভারতসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের আলোচনা চলছে।

গত শনিবার নিশা দেশাই বিসওয়াল বাংলাদেশ সফরে আসেন। নতুন দায়িত্ব গ্রহণের পর এটিই হচ্ছে নিশার প্রথম বাংলাদেশ সফর। আজ রাতে তিনি বাংলাদেশ ছেড়ে যাবেন।----ডিনিউজ

নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভার শপথ নিলেন ৮ জন

ঢাকা :দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকালীন 'সর্বদলীয়' সরকারের নতুন ৮ জন মন্ত্রী শপথ নিয়েছেন। সোমবার বিকেলে আমীর হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, রাশেদ খান মেনন, রওশন এরশাদ, ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহুমুদ ও রুহুল আমীন হাওলাদার মন্ত্রী হিসেবে এবং মুজিবুল হক চুন্নু ও সালমা ইসলাম প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন। বঙ্গভবনের দরবার হলে এই অনুষ্ঠানে নতুন মন্ত্রীদের শপথ পড়ান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। আগামী মধ্য জানুয়ারিতে নির্বাচনের সময় এ সরকারই ক্ষমতায় থাকবে।

সরকার এ মন্ত্রিসভাকে বলছে সর্বদলীয় মন্ত্রীসভা। মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন ভূইঞা সকালেই সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, এ মন্ত্রিসভার সম্ভাব্য নতুন সদস্যদের সবাইকে আমন্ত্রণ পৌঁছে দেয়া হয়েছে। বঙ্গভবনের দরবার হলে মূল মঞ্চের সামনে আমন্ত্রিত, মন্ত্রিপরিষদের সদস্য ও সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য বসার ব্যবস্থা করা হয়। 

এসময় সামনের সারিতে সবার মাঝের চেয়ারটিতে বসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার আর রওশন এরশাদের মাঝে চেয়ারটি রাখা হয় জাপা চেয়ারম্যান এরশাদের জন্য। আর মঞ্চের সামনে নতুন মন্ত্রীদের শপথের জন্য রাখা হয়েছে পাঁচটি মাইক। রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রীসহ চেয়ারে যাদের নাম রয়েছে, তারা সবাই বঙ্গভবনে পৌঁছে গেছেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন ভূইঞা এই শপথ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন। সচিব জানান, আগের মন্ত্রিসভার যারা থাকবেন না, তাদের পদত্যাগপত্র শপথের পরে রাষ্ট্রপতির হাতে তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী। তারপর মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ গেজেট প্রকাশ করবে এবং প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রিদের মধ্যে দপ্তর পুনর্বণ্টন করবেন।---ডিনিউজ

বাগান বন খাদিমনগর

   মাসুম সায়ীদ
রাতে থেকে থেকে বৃষ্টি হয়েছে। সে রকম ভারি নয় অবশ্য। মেঘের তর্জন-গর্জন বা বাতাসের মাতামাতিও ছিল না। সেতারের তারে আঙুলের নাচন যেমন। ভোরবেলায় ঘাসে, গাছের পাতায় হীরক কুচি বৃষ্টিকণা আর ভেজা মাটির সোঁদা গন্ধ মনে করিয়ে দিল রাতের বৃষ্টিকে। সিলেট-তামাবিল রোড ধরে ছুটে চলেছে আমাদের গাড়ি। সিলেট বাইপাস মোড় পেরিয়ে উত্তরমুখো একটা কাঁচা রাস্তায় নামল খানিক বাদে। মিনিট পনেরো যাওয়ার পর শুরু হলো বন। সামনে বসার সুবাদে বনের দুই পাশটা চোখে পড়ছিল। খাদিমনগর দেশের কনিষ্ঠ জাতীয় উদ্যান। ২০০৬ সালে একে গোত্রভুক্ত করা হয়। মোট আয়তন ৬৭৯ হেক্টর। দুই ঘণ্টার ও আধা ঘণ্টার দুটো ট্রেইল আছে। দুই ঘণ্টার ট্রেইল শুরু হয়েছে বিট অফিসের সামনে থেকে। বিট অফিসের বেঞ্চিতে বসে দলনেতা শাহিন ভাই লেবু পানি বিতরণ করলেন। বুঝলাম ট্র্যাকিংয়ের প্রস্তুতি এটা।
অফিস ভবনের পর থেকে শুরু হয়েছে বাঁশবন। মহীরুহের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে নানা ধরনের বাঁশ আকাশ ধরার প্রতিযোগিতায় মেতেছে। টিলায় টিলায় বাঁশবন আর পাহাড়ের গায়ে ও চূড়ায় চূড়ায় নানা ধরনের গাছগাছালি। প্রত্যেকে আপন মহিমায় উজ্জ্বল। এক সময় বাঁশেরই বন ছিল এলাকাটা। ১৯৬০ সালে বাঁশবন পরিষ্কার করে বনায়ন করা হয়। প্রায় পাতা ঝরা ক্রান্তীয় এই বনে অন্য গাছগাছালির পাশাপাশি প্রায় সর্বত্রই নানা রকম বাঁশ চোখে পড়ে। ট্রেইলে ট্র্যাকিংয়ের সুবিধার্থে নম্বরযুক্ত পিলার পোঁতা হয়েছে। তিন নম্বর পিলারের পর বন ক্রমেই ঘন আর নিবিড়। বনে বসবাসকারীদের মধ্যে আছে ২৬ প্রজাতির স্তন্যপায়ী, ৯ প্রজাতির উভচর, ২০ প্রজাতির সরীসৃপ এবং ২৫ প্রজাতির পাখি।
পথের মুখে যে ছড়াটি রেখে এসে ছিলাম দুই নম্বর পিলারের পর আবার তার দেখা মিলল। এখানে ঢাল বেশ খাড়া। তাই পানিতে লুটোপুটির শব্দ। নিস্তব্ধ বন পথে মৃদু এই শব্দ কানে বাজে স্পস্ট। ছড়ার ওপর দুটো মাত্র বাঁশ ফেলে রাখা হয়েছে। বেশ পুরনো। যথেষ্ট সতর্ক থাকার পরও একটি ভেঙেই গেল। কিন্তু দুর্ঘটনা ঘটল না। তৃতীয় পিলারের পর বন আরো গভীর। অজানা এক পাখি মিষ্টি সুরে ডেকে গেল। কয়েকটা প্রজাপতি বারকয়েক ঘুরে গেল গা ঘেঁষে। বন আর পাহাড়ের একটা রহস্য আছে, তা হলো এগিয়ে চলার আকর্ষণ। চারপাশের দৃশ্যই পুনরাবৃত্তি হচ্ছে বারবার। তবু মন ফিরতে চায় না। গ্রিক পুরাণের নির্জন দ্বীপের সাইরেনদের গানের মতোই আত্মমগ্ন সে টান। ভাবের ভোলা আমাদের পেয়ে বসলেও দলনেতা ছিলেন সজাগ। তাই বন থেকে বেরোতেই হলো।
খাদিমনগর থেকে জাফলংয়ের পথে খানিকটা এগিয়ে গেলে ঠাকুরের মাটি গ্রামের পাশেই চিকনাগুল চা-বাগান। এটা খাদিমনগরের আর একটি আকর্ষণ। এবারের গাইড আমাদের লেগুনার চালক রমজান ভাই। তার বাড়ি চা বাগানের কাছেই টিলার ওপর গড়ে ওঠা একটা পাড়ায়। চা বাগান থেকে ফেরার পথে পাড়াটা আমরা দেখেছি। টিলাটার পা ছুঁয়ে বয়ে যাচ্ছে স্বচ্ছ পানির ছড়া। আর ঢালে ঢালে এক একটি বাড়ি।
ঠাকুরের মাটি গ্রামের শেষ প্রান্তে একটি ঝিরি। ঝিরির ওপাশ থেকে চা বাগান শুরু। সার সার টিলা আর টিলার মাঝে উপত্যকাতে চা গাছ। টিলার কোল ঘেঁষে শাড়ির পাড়ের মতো আঁকাবাঁকা পথ। পায়ে চলার সরু রেখা ছেড়ে আমরা উঠে আসি সেই পথে। সব চা বাগানের মতো এখানেও বড় বড় শেড ট্রি আছে, তবে ব্যতিক্রম হলো বাঁশবন। হাতের লাঠির মতো চিকন বিশেষ এক ধরনের বাঁশ এখানে ওখানে ছড়িয়ে আছে। পাতাগুলো যেমন বড় তেমন প্রশস্ত আর ঘন। বাঁশবনে বনমোরগ পাওয়া যায়। রাতের বেলায় টর্চলাইট হাতে শিকারিরা বাঁশবনে পিছু নেয় বনমোরগের।
এই চা বাগানের যে রূপ তা ভাষায় প্রকাশ দূরে থাক, কোনো চিত্রশিল্পীর ক্যানভাসে ফুটিয়ে তোলাও অসম্ভব। সদ্য বর্ষাস্নাত সবুজের এমন দীপ্তি! এক সবুজের মধ্যে এত ভিন্নতা আবার সতেজ ঐক্যের এমন তান! বিস্ময়ে আর মুগ্ধতায় বাক্যহীন হয়ে যাই। ক্যামেরা হাতে শিকড় গজায় আমাদের পায়। সময় এখানে কেবলই থমকে যেতে থাকে বারবার। ছবি : লেখক

এরশাদ একজন দ্বিমুখী নেতা, কখন কি বলেন ঠিক নেই : রিজভী

ঢাকা: বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেছেন, এরশাদ একজন দ্বিমুখী নেতা। তিনি কখন কি বলেন তার ঠিক নেই।  আমরা সর্বদলীয় সরকার না, নির্দলীয় সরকার চাই।
‘মহাজোটে জাতীয় পার্টি নেই’ জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের এমন ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে বিএনপির দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ আজ সোমবার সকালে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ মন্তব্য করেন। রিজভী বলেন, কুচবিহার থেকে আসা একটি লোক যার কোনো দেশপ্রেম নেই, নৈতিকতা নেই; যে সকালে একটা বলেন, বিকেলে আবার সেটা পাল্টে দেন। তার মতো এমন বিচারিতা নেতার কথা কিছু যায় আসে না।
নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকারের সাথে বিএনপির কোনো সম্পর্ক নেই উল্লেখ করে রিজভী বলেন, ১৮ দলীয় জোটের দাবি নির্বাচনকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থার অধীনে একটি সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও অবাধ নির্বাচন। ফলে নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকার গঠনে বিএনপিকে আমন্ত্রণ জানানো হলো কি না, সেটা আমাদের কাছে বড় বিষয় নয়।
সরকার বিরোধী দলের প্রতি দমননীতি গ্রহণ করছে অভিযোগ করে রিজভী বলেন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক সরাফত আলী সপুকে পুলিশ নির্যাতন করেছে। সে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছে। অসুস্থ স্বেচ্ছাসেব দলের নেতা সপুকে উন্নত চিকিৎসার জন্য পিজি হাসপাতালে স্থানান্তরের দাবি জানান তিনি।
এ সময় ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশিদ হাবিবকে পুলিশ আটক করে কোথায় নিয়ে গেছে তা জানতে চান রিজভী। সরকার বিএনপির নেতা-কর্মীদের হত্যার হুমকিতে রেখেছেন অভিযোগ করে বিএনপির এই নেতা বলেন, সরকার বিএনপির শীর্ষ স্থানীয় নেতা-কর্মী গ্রেফতার ও হত্যার হুমকি দিয়ে তাদের নিজেদের নীলনকশা বাস্তবায়ন করতে চাচ্ছে।
সরকারের অবৈধ মন্ত্রীদের নির্দেশে আদালত বিএনপির নেতাদের রিমান্ড দিয়েছে মন্তব্য করে রিজভী অবিলম্বে নেতাদের মুক্তির দাবি জানান। গণমাধ্যমকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আপনার সরকারের কাজ বাদ দিয়ে দেশের জনগণের জন্য কাজ করুন। সত্য ও ন্যায়ের জন্য গণমাধ্যমের যে ভূমিকা সেটা তুলে ধরুন। তাহলেই দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হবে, অন্যথায় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়।---ডিনিউজ

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাষ্ট্রপতির সঙ্গে খালেদা জিয়ার বৈঠক

ঢাকা : রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সাক্ষাৎ করতে যাচ্ছেন বিরোধীদলীয় নেতা ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।তারই প্রেক্ষিতে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ এডভোকেট আগামীকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় সময় দিয়েছেন।

সোমবার সন্ধ্যা পৌনে ৬ টার  দিকে খালেদা জিয়ার একান্ত সচিব সালেহ আহমেদ বঙ্গভবনে এ চিঠি নিয়ে যান। তথ্যটি নিশ্চিত করেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শমসের মবিন চৌধুরী।

জানা গেছে,বিএনপি মনে করছে বর্তমান রাজনৈতিক সংকট নিরসনে রাষ্ট্রপতি একটি গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখতে পারেন। নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের পর রাষ্ট্রপতির সাথে সাক্ষাতের ব্যাপারে আগ্রহ দেখালেন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। রাষ্ট্রপতির সাথে সাক্ষাতে দেশের বিদ্যমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হবে বলে জানা গেছে। বিশেষ করে নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য দুদলের মধ্যে সংলাপ এই সাক্ষাতে প্রধান ইস্যু। বিএনপি চেয়ারপার্সনের সাথে বিএনপির উচ্চ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধিদল সাক্ষাতে অংশ নেবেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রটি জানিয়েছে। উল্লেখ্য জাতীয় সংসদের স্পিকার হিসেবে রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ বরাবরই বিএনপির কাছে একজন গ্রহণযোগ্য হিসেবে বিবেচিত।---ডিনিউজ

বরিশাল অঞ্চল পেল চার মন্ত্রী

ঢাকা : জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানে ‘নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভা’য় ছয়জন নতুন মন্ত্রী ও দুজন প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন।
ছয়জন মন্ত্রীর চারজনের বাড়িই বরিশাল অঞ্চলে। এ কারণে বরিশালের মানুষ দারুণ খুশি। এখানকার সুধীজনেরা আশা করছেন, নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যরা সব দলকে নিয়ে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করতে পারবেন।
সোমবার বিকেলে নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভার ছয়জন মন্ত্রী ও দুজন প্রতিমন্ত্রী শপথ নেন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আমীর হোসেন আমুর বাড়ি বরিশাল বিভাগের ঝালকাঠিতে। তিনি ঝালকাঠি-২ আসনের সাংসদ। উপদেষ্টামণ্ডলীর অপর সদস্য তোফায়েল আহমেদের বাড়ি ভোলায়। তিনি ভোলা-২ আসনের সাংসদ।
জাতীয় পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদারের বাড়ি বরিশালের বাকেরগঞ্জে। তিনি বরিশাল-৬ (বাকেরগঞ্জ) আসনের সাংসদ।
বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেননের বাড়িও বরিশালের বাবুগঞ্জে। তিনি এখান থেকে একবার সাংসদ নির্বাচিত হলেও বর্তমানে ঢাকা থেকে নির্বাচিত সাংসদ।
বরিশালের বজ্রমোহন কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ এবং বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য মোহাম্মদ হানিফও নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভার চারজনের বাড়ি বরিশাল অঞ্চলে হওয়ায় উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘তোফায়েল, আমু ও মেনন তিনজনই আমার ছাত্র ছিল। আমি খুবই আশান্বিত যে বরিশাল অঞ্চলের চারজন কৃতী সন্তান নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভার মন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছে। আমি চাই তারা দেশবাসীকে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন উপহার দেবেন।’
একই কারণে উচ্ছ্বসিত সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) বরিশালের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আক্কাস খোরশেদ। তিনি বলেন, ‘বরিশাল অঞ্চলের লোক হিসেবে আমরা আনন্দিত। আমরা মনে করি, নতুন মন্ত্রীরা সবাইকে নিয়ে জাতিকে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন দিতে পারবেন।’
এই চারজন ছাড়াও জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য রওশন এরশাদ ও আনিসুল ইসলাম মাহমুদ মন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন। এ ছাড়া জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মুজিবুল হক ও সালমা ইসলাম প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন।--ডিনিউজ
 
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো:মহিউদ্দিন,সম্পাদক : মাহবুবুর রশিদ,নির্বাহী সম্পাদক : নিজাম উদ্দিন। সম্পাদকীয় যোগাযোগ : শাপলা পয়েন্ট,কানাইঘাট পশ্চিম বাজার,কানাইঘাট,সিলেট।+৮৮ ০১৭২৭৬৬৭৭২০,+৮৮ ০১৯১২৭৬৪৭১৬ ই-মেইল :mahbuburrashid68@yahoo.com: সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত কানাইঘাট নিউজ ২০১৩