Previous
Next

সর্বশেষ


Friday, April 19

কানাইঘাট পৌরসভায় ই-জিপি পদ্ধতিতে ২৪টি কাজের লটারি ড্র

কানাইঘাট পৌরসভায় ই-জিপি পদ্ধতিতে ২৪টি কাজের লটারি ড্র

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কানাইঘাট পৌরসভায় ই-টেন্ডার কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়েছে। শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) বিকেল ৩টায় পৌরসভার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, স্থানীয় সাংবাদিক ও সকল কাউন্সিলরদের উপস্থিতিতে কানাইঘাট পৌর মেয়র নিজাম উদ্দিন এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।
ই-টেন্ডারের মাধ্যমে আইইউআইডিপি-২ এর অর্থায়নে কানাইঘাট পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে জনগুরুত্বপূর্ণ ২৪টি রাস্তা পাকাকরণ কাজের প্রায় ৫ কোটি টাকার ইজিপি অনলাইন লটারির ড্র অনুষ্ঠিত হয়। মোট মোট ৬টি প্যাকেজের ই-টেন্ডার লটারিতে অংশ নেয় ৮টি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে তাহমিদ এন্টারপ্রাইজ ৩টি, চৌধুরী এন্টারপ্রাইজ ২টি ও জাহি এন্টারপ্রাইজ ১টি প্যাকেজের কাজ পেয়েছেন।
এ সময় আইইউআইডিপি ই-টেন্ডারের ইঞ্জিনিয়ার নুরুল আলম রাজু, পৌরসভার ইঞ্জিনিয়ার মো. মনির উদ্দিন আহমদ, সাবেক প্যানেল মেয়র হাজী আব্দুল মালিক, পৌর কাউন্সিলর যথাক্রমে মাসুক আহমদ, বিলাল আহমদ, ইসলাম উদ্দিন, আবিদুর রহমান, ফখর উদ্দিন, জাহাঙ্গীর আলম জাহান, কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এখলাছুর রহমান, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন, সহ সম্পাদক মো. আব্দুন নূর, ক্রীড়া সংস্কৃতি ও সাহিত্য প্রকাশনা সম্পাদক মাহবুবুর রশিদ, কানাইঘাট বাজার লেসি করামত আলী, সাংবাদিক আমিনুল ইসলাম, শাহিন আহমদ, সুজন চন্দ অনুপ, মুমিন রশিদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
ই-টেন্ডার ড্র পরবর্তীতে পৌর মেয়র নিজাম উদ্দিন বলেন, অত্যন্ত সততা, দক্ষতা ও স্বচ্ছতার সাথে তিনি পৌরসভার প্রতিটি কাজ সম্পন্ন করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যে তার পৌরসভার প্রায় দেড় শতাধিক রাস্তা পাকা করণের কাজ সম্পন্ন হয়েছে এবং পানি শোধনাগার, ব্রজ্য ব্যবস্থাপনা সহ বেশ কয়েকটি বৃহৎ প্রকল্প প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। তার আমলে স্থানীয় সরকারের সকল বিধি বিধান ও শর্ত পূরণ করায় অত্র পৌরসভা সি-গ্রেড থেকে বি-গ্রেডে উন্নীত হয়েছে।
তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, প্রক্রিয়াধীন প্রকল্পগুলো বাস্তবায়িত হলে উন্নয়নের দিক দিয়ে কানাইঘাট পৌরসভা একটি মাইলফলক হয়ে থাকবে এবং পৌরবাসীর মৌলিক চাহিদাগুলো পূরণ হবে বলে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।
কানাইঘাট নিউজ ডটকম/১৯ এপ্রিল ২০১৯ ইং
কানাইঘাটে সরকারি জায়গা থেকে গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগ

কানাইঘাটে সরকারি জায়গা থেকে গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কানাইঘাট লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউনিয়নের লোহাজুরি নয়াবাজারে সরকারি রাস্তার উপর অবস্থিত ২টি ছায়াঘেরা রেন্টি গাছ গত শনিবার রাত ১২টার দিকে কেটে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

স্থানীয় কেউটি হাওর গ্রামের মৃত তবারক আলী উরফে লাল মিয়ার পুত্র তোতা মিয়া (৪৫)এর নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত নামা ৬/৭ জন কে আসামী করে সরকারি রাস্তার উপর এ ২টি গাছ কেটে নিয়ে সেখানে দোকান কোটা নির্মাণের চেষ্টার ঘটনায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

কেউটি হাওর গ্রামের মৃত মুফিদ রাজার পুত্র সিরাজ উদ্দিন (৬০) বাদী হয়ে সরকারের পক্ষে গত বৃহস্পতিবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানিয়া সুলতানার বরাবরে এ অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, তোতা মিয়ার নেতৃত্বে সরকারি রাস্তার উপর অবস্থিত প্রায় ৫ ফুট গোল এবং ৩৫/৪০ ফুট উচু ২টি রেন্টি গাছ কেটে নেওয়া হয়েছে। এছাড়া তোতা মিয়া গংরা গাছগুলো কেটে সেখানে ইট-পাথর ও বালু মওজুদ করে দোকান ঘর নির্মাণের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। 

স্থানীয় এলাকাবাসী এ ব্যাপারে দ্রুত দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে  পদক্ষেপ গ্রহণের দাবী জানিয়েছেন।

কানাইঘাট নিউজ ডটকম/১৯ এপ্রিল ২০১৯ ইং

Thursday, April 18

কানাইঘাটে "আন্-নূর টাওয়ারের" যাত্রা শুরু

কানাইঘাটে "আন্-নূর টাওয়ারের" যাত্রা শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক:
অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে পৌর শহরের প্রাণকেন্দ্র কানাইঘাট উত্তর বাজারে অবস্থিত ৭তলা বিশিষ্ট সর্ববৃহৎ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আন্-নূর টাওয়ারের যাত্রা শুরু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৩টায় এ উপলক্ষ্যে মার্কেট প্রাঙ্গণে এক সুধী সমাবেশ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে আন্-নূর টাওয়ারের শুভ সূচনা করেন কানাইঘাট উপজেলা পরিষদের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান বাংলাদেশ-কাতার চেম্বার্স অব কমার্সের ভাইস প্রেসিডেন্ট আলহাজ্ব আব্দুল মুমিন চৌধুরী।

আন-নূর প্রোপ্রাটিজ লিমিটেডের চেয়ারম্যান সাবেক সাংসদ শিল্প উদ্যোক্তা ব্যক্তিত্ব অধ্যক্ষ মাওলানা ফরিদ উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও মাষ্টার ফয়ছল আহমদের উপস্থাপনায় শুভ সূচনা অনুষ্ঠানে কানাইঘাটের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, রাজনৈতিক মহল, কোম্পানীর পরিচালকবৃন্দ, ব্যবসায়ী, জনপ্রতিনিধি ও সুধীজনদের ব্যাপক উপস্থিতিতে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কানাইঘাট পৌরসভার মেয়র নিজাম উদ্দিন, কোম্পানীর ভাইস চেয়ারম্যান বিশিষ্ট চিকিৎসক ডাঃ মুফাজ্জিল হোসাইন, কানাইঘাট সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মামুনুর রশিদ, কানাইঘাট বাজার বণিক সমিতির সাবেক সভাপতি সিরাজুল ইসলাম খোকন, বীর মুক্তিযোদ্ধা সুবেদার আফতাব উদ্দিন, এ্যাডঃ মামুন রশিদ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এ্যাডঃ কেএম ওলি উল্লাহ, কোম্পানীর ডাইরেক্টর যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী নছিরুল হক।

বক্তব্য রাখেন, কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এখলাছুর রহমান, বাজার বণিক সমিতির সহ-সভাপতি পৌর কাউন্সিলর ইসলাম উদ্দিন, কাউন্সিলর তাজ উদ্দিন, সাহাব উদ্দিন চৌধুরী, মাওঃ হুদুর রহমান, মাওঃ আব্দুল মালিক, মাওঃ সাইফুল্লাহ, মাওঃ মুহিবুর রহমান, ইউপি সদস্য আব্দুল গফুর, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শারওয়ার ফারুকী, মাওঃ জাকির হোসেন, স্বাগত বক্তব্য রাখেন কোম্পানীর পরিচালক আবু জহর জামাল উদ্দিন সহ আরো অনেকে।


কানাইঘাট নিউজ ডটকম/১৮ এপ্রিল ২০১৯ ইং
কানাইঘাটে চলছে জাতীয় ‍"স্বাস্থ্য সেবা সপ্তাহ"

কানাইঘাটে চলছে জাতীয় ‍"স্বাস্থ্য সেবা সপ্তাহ"

নিজস্ব প্রতিবেদক:
দেশের মানুষের কাছে গুণগত স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) থেকে শুরু হওয়া জাতীয় "স্বাস্থ্য সেবা সপ্তাহ" কানাইঘাটে নানা আয়োজনে পালন করা হচ্ছে।

এবারের সেবা সপ্তাহের প্রতিপাদ্য হচ্ছে ‘স্বাস্থ্যসেবা অধিকার, শেখ হাসিনার অঙ্গীকার।’ স্বাস্থ্যসেবা সপ্তাহ শেষ হবে আগামী ২০ এপ্রিল। গত মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এ সেবা সপ্তাহের উদ্বোধন করেন।

কানাইঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উদ্যোগে সেবা সপ্তাহের প্রথম দিন উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সহ হাসপাতাল পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন অভিযান,বর্তমান সরকারের স্বাস্থ্য সেক্টরের অগ্রগতির প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

দ্বিতীয় দিন বুধবার দিনব্যাপী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দ্বারা হাসপাতালের বর্হিবিভাগে বিশেষ চিকিৎসা সেবা প্রদান ও সেবা সপ্তাহের বর্ণাঢ্য র‌্যালি, স্বাস্থ্য সচেতনতা পুষ্টি ও খাদ্য বিষয়ক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

তৃতীয় দিন বৃহস্পতিবার বিশেষ চিকিৎসক দ্বারা বর্হিবিভাগে চিকিৎসা সেবা প্রদান, পরিস্কার-পরিচন্নতা অভিযান পরিচালনা করা হয়, এবং স্বাস্থ্য সেবার মানোন্নয়নে সেবা দাতা ও সেবা গ্রহিতাদের মধ্যে মতবিনিময় ও স্বাস্থ্য সেবায় কমিউনিটি ক্লিনিকের অবদান শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সেবা সপ্তাহ উপলক্ষ্যে আজ বৃহস্পতিবার বিকেল ২টায় কানাইঘাট প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় করেন উপজেলা স্বাস্থ্য পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ শেখ শরফুদ্দিন নাহিদ।

এ সময় তিনি সাংবাদিকদের সেবা সপ্তাহ উপলক্ষ্যে কানাইঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও উপজেলার সকল কমিউনিটি ক্লিনিকের সেবার কার্যক্রম তোলে ধরে বলেন, কানাইঘাটের মানুষের দোরগোড়ায় সরকারিভাবে স্বাস্থ্য সেবা পৌঁছে দিতে হাসপাতাল ও যারা কমিউনিটি ক্লিনিকে দায়িত্ব পালন করে থাকেন তারা নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাচ্ছেন।

সেবা প্রাপ্তিরা যাতে সব সময় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সহ কমিউনিটি ক্লিনিক এবং পরিবার পরিকল্পনা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে গিয়ে সার্বক্ষণিক চিকিৎসা সেবা পান এজন্য আমরা নানা ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করছি। তারপরও সেবার পরিধি কিভাবে আরো ভালো করা যায় এ জন্য সকল মহলের পরামর্শ আমরা নিচ্ছি।

ডাঃ শেখ শরফুদ্দিন নাহিদ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে সব ধরনের সেবা দ্রুত নেওয়ার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান। 

মতবিনিময়কালে হাসপাতালের পরিসংখ্যাবিদ সুবোধ চন্দ্র দাস সহ প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য নিজাম উদ্দিন, সহ-সম্পাদক আব্দুন নূর, সদস্য শাহিন আহমদ, সুজন চন্দ অনুপ, মুমিন রশিদ প্রমুখ।

প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ ডাঃ শরফুদ্দিন নাহিদের কর্মতৎপরতার প্রশংসা করে বলেন, তিনি কানাইঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যোগদান করার পর থেকে চিকিৎসা সেবার মানোন্নয়ন বেড়েছে। 

সার্বক্ষণিক কর্মস্থলে উপস্থিত থেকে কানাইঘাটের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে আগত রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদান করায় তার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ক্লাব নেতৃবৃন্দ।

কানাইঘাট নিউজ ডটকম/১৮ এপ্রিল ২০১৯ ইং

Wednesday, April 17

‘চলতি মাসেই পাঁচ হাজার ডাক্তার নিয়োগ’

‘চলতি মাসেই পাঁচ হাজার ডাক্তার নিয়োগ’

কানাইঘাট  নিউজ ডেস্ক:

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপন বলেছেন, চলতি এপ্রিল মাসেই পাঁচ হাজার ডাক্তার নিয়োগ দেয়া হবে। পরবর্তী সময়ে নিয়োগ দেয়া হবে আরো পাঁচ হাজার।

বুধবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এসব কথা জানান। জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা সপ্তাহ ২০১৯ উপলক্ষে এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। 
প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, দেড় বছর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দশ হাজার ডাক্তার নিয়োগের অনুমতি দেন। কিন্তু নানা জটিলতায় এতদিন এই নিয়োগ দেয়া সম্ভব হয়নি। 
স্বাস্থ্যমন্ত্রী সরকারের স্বাস্থ্য খাতের বিভিন্ন উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে বলেন, এখন গড় আয়ু ৭২ বছর। এটা সরকারের একটি সাফল্য। এই সরকারের আমলে ১৯টি সরকারি ও ৪৩টি বেসরকারি হাসপাতাল অনুমোদন দেয়া হয়েছে বলেও জানান মন্ত্রী।
বিশেষ অতিথি স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান বলেন, ডাক্তারদের সবার সঙ্গে তুলনা করলে হবে না। তাদের ধৈর্য সহকারে পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে হবে। ডাক্তারদের রোগীকে আপনজন মনে করতে হবে। সেই দৃষ্টিতে সেবা দিতে হবে।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া। এতে মুখ্য আলোচকের বক্তব্য দেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মাহমুদ। বক্তব্য দেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব (স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ)  জি. এম. সালেহ উদ্দিন, স্বাস্থ্য অধিপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ, বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি  মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন প্রমুখ।
 সূত্র: ডেইলি বাংলাদেশ
ছোট ঘরকে বড় দেখানোর কৌশল

ছোট ঘরকে বড় দেখানোর কৌশল

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক:

সারাদিনের ক্লান্তিকে ভোলার জন্য সবাই একমাত্র শান্তির স্থান ঘরে ফিরে আসে। ঘর মানেই সবার কাছে শান্তির নীড়। তাই সকলেই চায় বড় বা ছোট হোক এই শান্তির নীড়টাকে সুন্দর করে সাজিয়ে গুছিয়ে রাখতে। এখনকার ফ্ল্যাটগুলো এত ছোট হয় যে সেখানে নিজের মতো করে ঘর সাজানো মুশকিল ব্যাপার হয়ে দাড়ায়। এই ছোট ছোট ঘরগুলোকে তো আর বড় করা যাবেনা। তবে আপনি চাইলে কিছু কৌশল খাটিয়ে এই ছোট ঘরকেই কিছুটা বড় দেখাতে পারবেন। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক ছোট ঘরকে বড় দেখানোর কিছু কৌশল–  

১. ঘর বড় দেখাতে প্রথমেই আসি দেয়ালের রঙে। ছোট ঘরের দেয়ালের জন্য অবশ্যই কোনো হালকা অথচ উজ্জ্বল রঙ বাছাই করুন। সাদা, অফ হোয়াইট, হালকা হলুদ ইত্যাদি রংগুলো ছোট ঘরে ভালো মানাবে।
২. ঘরের পর্দা অবশ্যই বিপরীত রঙের না নিয়ে দেয়ালের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে নিবেন। দেয়ালের রঙের এক বা দুই শেড গাঢ় পর্দা ব্যবহার করুন। এতে ঘর বড় দেখাবে।  
৩. ঘরের চাদর, পর্দা, সোফার কভার আর কুশন কভার বাছাই করার সময় ছোট প্রিন্ট ব্যবহার করুন অথবা স্ট্রাইপও ব্যবহার করে দেখতে পারেন।
৪. ঘরের আয়তন বড় দেখাতে ঘর সাজাতে আয়না ব্যবহার করুন।  
৫. ফার্নিচারের ক্ষেত্রে হালকা এবং নিচু ফার্নিচার ব্যবহার করুন। তাছাড়া ফ্লোরিং সিস্টেম করে আপনার ছোট ঘরকে বড় দেখাতে এবং অতিরিক্ত খরচ বাঁচাতে পারেন। 
৬. ছোট খাটো হালকা কিছু ফার্নিচার একটু অ্যাঙ্গেল করে রাখুন। সব ফার্নিচার দেয়ালের সাথে লাগাবেননা। এতে ঘর সাজানোতে ভিন্নতা আসবে সেই সাথে ঘর একটু বড়ও দেখাবে। 
৭. ঘরে প্রচুর আলো ঢোকানোর ব্যবস্থা করুন। জানালায় গ্লাস ডোর লাগান। আর চেষ্টা করুন দিনের বেশিরভাগ সময় জানালা খোলা রাখার। সূর্যের নরম আলোয় আপনার ঘর এমনিতেই বড় দেখাবে।
৮. একটি দেয়ালে দুই থেকে তিনটি ছবিই যথেষ্ট। দেয়ালে খুব বেশি ছবি বা ফ্রেম রাখবেননা। এতে ঘর ছোট দেখায়।
৯. মাল্টিফাংশনাল ফার্নিচার ব্যবহার করুন। এগুলো যেমন জায়গা বাঁচায়, তেমনি খরচও বাঁচিয়ে দেয়। সাধারণ সময়ে এগুলো সোফা হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন। আবার বাসায় মেহমান আসলে খুলে খাট হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন।
১০. অপ্রয়োজনীয় জিনিস ঘরে রাখা থেকে বিরত থাকুন। হতে পারে সেটি কোন পুরোনো ঘড়ি কিংবা বারান্দার এক কোণে অযত্নে পড়ে থাকা কোন বেতের টুল। যদি ব্যবহার না করেন তবে সেইগুলো ঘরে রাখবেননা। দেখবেন ঘরের জায়গা বেড়ে গেছে। 
কানাইঘাটে ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবস পালিত

কানাইঘাটে ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবস পালিত

নিজস্ব প্রতিবেদক:
ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবস উপলক্ষ্যে বুধবার সকাল সাড়ে ১১টায় কানাইঘাট উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মুজিব নগর দিবসের তাৎপর্য তোলে ধরে উপজেলা হলরুমে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

নির্বাহী কর্মকর্তা তানিয়া সুলতানার সভাপতিত্বে ও উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি লুসিকান্ত হাজংয়ের উপস্থাপনায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক সাবেক মেয়র লুৎফুর রহমান।

বক্তব্য রাখেন পৌর আওয়ামী লীগের আহবায়ক জামাল উদ্দিন, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ফারহানা আক্তার, সমাজসেবা কর্মকর্তা মোঃ জিলানী, পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএম শাহিন রেজা ফরাজী, থানার সাব-ইন্সপেক্টর দেলোয়ার হোসেন, কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন, পৌর কাউন্সিলর মাসুক আহমদ, তাজ উদ্দিন, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক এনামুল হক, উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি রেজওয়ান এইচ মিনু প্রমুখ।

আলোচনা সভায় বক্তারা ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবসের তাৎপর্য তোলে ধরে বলেন, ১৯৭১ সালের ২৫ শে মার্চ কালরাতে পাকিস্তানী হানাদারবাহিনী বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামকে স্তব্ধ করে দেওয়ার জন্য নিরস্ত্র মানুষের উপর যখন গণহত্যায় মেতে উঠে ঠিক সেই মূর্হুতে বাঙ্গালী জাতির স্বপ্নদ্রষ্টা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে যুদ্ধকালীন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের রাষ্ট্রপতি করে ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল মেহেরপুর জেলার ঐতিহাসিক স্মৃতি বিজড়িত বৈদ্যনাথতলার আম্রকাননে প্রথম বাংলাদেশ সরকারের শপথ গ্রহণ করা হয়েছিল। যা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এক স্মরণীয় দিন ছিল।

নতুন প্রজন্মের সামনে মুজিব নগরের ঐতিহাসিক ঘটনা প্রবাহ তোলে ধরে দেশ কে সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে নিতে বক্তারা সকলের প্রতি আহবান জানান।

কানাইঘাট নিউজ ডটকম/১৭  এপ্রিল ২০১৯ ইং
নোটিশ :   কানাইঘাট নিউজ ডটকমে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক