Previous
Next

সর্বশেষ


Thursday, August 22

কানাইঘাটে ভারতীয় গরুর চালান আটক

কানাইঘাটে ভারতীয় গরুর চালান আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কানাইঘাট লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী বিভিন্ন এলাকা দিয়ে ভারত থেকে অবৈধভাবে গরু-মহিষের চালান আসা কোন অবস্থাতে বন্ধ হচ্ছে না। ঈদ-উল-আযহার পর কয়েক দিন গরু-মহিষ আসা বন্ধ থাকলেও পুণরায় চোরাকারবারীরা প্রকাশ্যে আবারো ভারত থেকে গরু-মহিষের চালান নিয়ে আসছে। এ নিয়ে স্থানীয় সাংবাদিকদের বরাত দিয়ে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে মানব দেহের জন্য অত্যন্তক ক্ষতিকর বিষাক্ত ইনজেকশন পুশকৃত ভারতীয় গরু-মহিষ ব্যবসার সাথে জড়িত চোরাকারবারীদের বিরুদ্ধে ধারাবাহিক সংবাদ প্রকাশ অব্যাহত থাকলেও সরকারের উর্ধ্বতন মহলের টনক নড়ে উঠেছে। 

বিভিন্ন গোয়েন্দা বাহিনী ও সিলেটের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন এব্যাপারে কঠোর রয়েছেন বলে জানা গেছে।

গরু-মহিষ ভারত থেকে কোন ধরনের কাগজপত্র ছাড়াই অবৈধভাবে নিয়ে আসা চোরাকারবারীদের বিরুদ্ধে তদন্তে নেমেছেন সিলেটের পুলিশ প্রশসানের গোয়েন্দা বাহিনী ও বিভিন্ন সংস্থার লোকজন বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে। 

কানাইঘাট থানার নবাগত অফিসার ইনচার্জ শামসুদ্দোহা পিপিএম থানায় যোগদান করার পর থেকে ভারতীয় গরু অবৈধভাবে কানাইঘাটে নিয়ে আসা বন্ধ করার জন্য তৎপর হয়ে উঠেছেন। ওসি শামসুদ্দোহা পিপিএমের তত্বাবধানে যে সব এলাকা দিয়ে ভারত থেকে কানাইঘাটের গরু মহিষের চালান প্রবেশ করে সেই সব এলাকায় পুলিশি টহল জোরদার করেছেন।

গত বুধবার রাত ও বৃহস্পতিবার ভোর পর্যন্ত থানা পুলিশের এসআই মাইনুল ইসলাম ও এএসআই ওদুদ এবং এএসআই সুফিয়ানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ সীমান্তবর্তী মমতাজগঞ্জ বাজার সহ আশপাশ এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১৯ গরু ভারতীয় ছোট ও মাঝারী সাইজের গরু চালান আটক করেন। অভিযানের সময় পুলিশের অবস্থান টের পেয়ে চোরাকারবারীরা পালিয়ে যায় বলে জানা গেছে। 

থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার বলেন, ১৯ টি ভাতরীয় গরু আটক করা হয়েছে। আইনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে গরুগুলো নিলামের মাধ্যমে বিক্রি করে সরকারি কোষাগারে টাকাগুলো জমা দেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত যে, গত ৭/৮ মাস ধরে কানাইঘাটে সীমান্তবর্তী এলাকা দিয়ে ভারত থেকে প্রতিদিন হাজার হাজার গরু মহিষ আসছে। এ সব গরু-মহিষ কে বিষাক্ত ইনজেকশন পুশ করে বাংলাদেশে ঢুকানো হয়। যাহা মানব দেহের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিক্ষর। সীমান্তবর্তী এলাকার লোকজন জানিয়েছেন দূর্ঘটনায় মাঝে মধ্যে এ সব গরু-মহিষ মারা গেলে কুকুর, শিয়াল ও শকুন পর্যন্ত বক্কন করে না। 

ভারতীয় গরু-মহিষের বেচা কে না সড়কের বাজার ও সীমান্ত এলাকায় প্রতিদিন সিলেটের উর্ধ্বতন প্রশাসন ও বিভিন্ন আইনশৃংখলা বাহিনী এবং ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী কয়েকজন নেতার নাম ভাংগিয়ে জালিয়াতির আশ্রয় নিয়ে একটি চক্র ভারতীয় গরু-মহিষ ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে কয়েক লক্ষ টাকা উৎকোচ আদায় করে থাকে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে। 

কানাইঘাট নিউজ ডটকম/২২ আগস্ট ২০১৯
ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী চিদাম্বরম গ্রেফতার

ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী চিদাম্বরম গ্রেফতার

আইএনএক্স মিডিয়া দুর্নীতি মামলায় ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী ও প্রবীণ কংগ্রেস নেতা পি চিদাম্বরমকে গ্রেফতার করেছে দেশটির কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা (সিবিআই)। 

বুধবার রাত ১০টার দিকে দক্ষিণ দিল্লির নিজ বাসা থেকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সিবিআই অফিসে নিয়ে যাওয়া হয়।
ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানায়, এর আগে চিদাম্বরমের বাড়ির প্রধান ফটক বন্ধ থাকায় দেয়াল টপকে ভেতরে প্রবেশ করেন সিবিআই কর্মকর্তারা। দলে ১৫-২০ জন সদস্য ছিলেন।
খবরে বলা হয়, আইএনএক্স মিডিয়া মামলায় আগাম জামিনের আবেদন খারিজ হয়ে যাওয়ার পরে তা চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিমকোর্টে শুনানির আবেদন করেছিলেন চিদাম্বরম। কিন্তু সুপ্রিমকোর্ট এই আবেদন খারিজ করে শুক্রবার মামলার শুনানির দিন ধার্য্য করে। পরে সিবিআই তার বাড়ির প্রধান গেটে একটি আইনি নোটিশও ঝুলিয়ে আসে।
বর্তমানে ভারতের পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভার সদস্য চিদাম্বরম অতীতে বিভিন্ন সময় অর্থমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও পেনশনবিষয়ক মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
এবার মোবাইল অ্যাপে বিমানের টিকিট

এবার মোবাইল অ্যাপে বিমানের টিকিট

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের টিকিট পাওয়া যাবে মোবাইল অ্যাপে। যা শুরু হবে আগামী অক্টোবর থেকে। এ অ্যাপ ব্যবহার করে বিশ্বের যে কোনো প্রান্ত থেকে কেনা যাবে বিমানের টিকিট। এতে করে টিকিট কাটা নিয়ে আর ভোগান্তিতে পড়তে হবে না গ্রাহকদের।

বৃহস্পতিবার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নতুন উড়োজাহাজ ড্রিমলাইনার ‘গাঙচিল’ উদ্বোধনের সময় এ তথ্য জানান বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মহিবুল হক।
বিমান সচিব বলেন, এক সময় বিমানের টিকিট চাইলেই নেই, অথচ সিট খালি যায় এমন অভিযোগ থাকলেও এখন সে অভিযোগ পাওয়া যায় না। আধুনিকায়নের মাধ্যমে বিমানের অনিয়ম ও দুর্নীতি দূর করা হচ্ছে। ফলে ক্রমেই জনপ্রিয় হচ্ছে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী এ প্রতিষ্ঠান। 
তিনি বলেন, চলতি বছর কোনো প্রকার ফ্লাইট বাতিল ছাড়া নির্বিঘ্নে হজ ফ্লাইট পরিচালিত হয়েছে। হজযাত্রী প্রতি ১০ হাজার টাকা ভাড়া কমানোর ফলে ৬৫ কোটি টাকা ক্ষতি নিয়ে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করেও সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে এ ক্ষতি পুষিয়ে ওঠা সম্ভব হয়েছে।

সূত্র: ডেইলি বাংলাদেশ
বিয়ে করছেন আদিত্য রায়, পাত্রী দীর্ঘদিনের প্রেমিকা

বিয়ে করছেন আদিত্য রায়, পাত্রী দীর্ঘদিনের প্রেমিকা

বিনোদন ডেস্ক 

বিটাউনে ফের বিয়ের ধুম। সোনম, দীপিকা, প্রিয়াঙ্কাদের পর এবার লাইনে রয়েছেন বরুণ ধাওয়া, আদিত রায় কাপুরেরা।

২০১৮ সাল থেকে যেন মুম্বইয়ের এই সেলেব মহলে বিয়ের মরসুম শুরু হয়েছে। এই মরসুম আপাতত ২০২০ সাল পর্যন্ত চলবে বলে মনে করা হচ্ছে। বিটাউনে ২০২০ সালেই নাকি বিয়ে করতে চলেছেন আশিকী ২ এর নায়ক। সেই রকমই গুঞ্জন শোনা যাছে মুম্বাই জুড়ে।
শোনা যাছে আগামী বছরই দীর্ঘ দিনের বান্ধবী তথা মডেল দিভা ধাওয়ানকে বিয়ে করতে চলেছে আদিত্য রায় কাপুর।
অনুশকা শর্মা থেকে শুরু করে দিপিকা-রনবীর, সোনম কাপুর সবাই ২০১৮ এবং ২০১৯ সালে সেরে নিয়েছে বিয়ের পর্ব। তাহলে এই আরেকটি হাই প্রোফাইল বিয়ে দেখতে দর্শককে এখনো ২০২০ সাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতেই হবে।
শোনা যাছে মিডিয়ার সামনে নিজেদের সম্পর্কের কথা দুজনে কখনই স্বীকার না করলেও তাদের মধ্যে যে বেশ ভালোরকমই সম্পর্ক রয়েছে তার আভাস আগে থেকেই পাওয়া যাচ্ছিলো। এখন শুধু বিয়ে করার পালা।
স্যামসাং-আইফোন স্বাস্থ্যের জন্য ‘বিপজ্জনক’: গবেষণা

স্যামসাং-আইফোন স্বাস্থ্যের জন্য ‘বিপজ্জনক’: গবেষণা

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক  ::

গত তিন বছর ধরে অ্যাপল, স্যামসাংসহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান যেসব ফোন বিক্রি করেছে সেগুলো মানুষের জন্য ‘বিপজ্জনক’ রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি রেডিয়েশন উৎপন্ন করেছে বলে জানিয়েছে শিকাগো ট্রিবিউন।

যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম প্রধান এই সংবাদমাধ্যমটি নিজেদের উদ্যোগে কয়েকটি জনপ্রিয় প্রতিষ্ঠানের স্মার্টফোন পরীক্ষা করে। ক্যালিফোর্নিয়ার ফেডারেল কমিউনিকেশনস কমিশন (এফসিসি) অনুমোদিত আরএফ এক্সপোজার ল্যাবে গত এক বছর ধরে এ গবেষণা করার পর তারা দাবি করছে, এফসিসি যে মাত্রার রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি রেডিয়েশন সমর্থন করে তার চেয়ে বেশি উৎপন্ন করেছে এসব ফোন। 
এফসিসির নীতিমালা অনুযায়ী বর্তমানের নিরাপদ মাত্রাকে স্পেসিফিক অ্যাবজরপশন রেট বা ‘এসএআর’ বলা হয়। প্রতি কিলোগ্রামে এই মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১.৬ ওয়াট করে।
ট্রিবিউন তাদের দীর্ঘ তদন্তে ১১টি আলাদা মডেল পরীক্ষা করেছে: চারটি আইফোন (৭, ৮, ৮ প্লাস এবং এক্স), স্যামসাং গ্যালাক্সির তিনটি (এস৮, এস৯ এবং জে৩), মটোরোলার তিনটি (ই৫, ই৫ প্লে এবং জি৬ প্লে) এবং একটি ব্লু ভিভো ৫ মিনি।
পরীক্ষকেরা ‘কৃত্রিম শরীরের’ ২, ৫, ১০ অথবা ১৫ মিলিমিটারের আশপাশে ফোনগুলো রাখেন। সঙ্গে চিনি, পানি এবং লবণের মিশ্রণ যোগ করা হয়।
ফলাফলে দেখা যায় আইফোন ৭’র রেডিও ফ্রিকোয়েন্সির শোষণমাত্রা সবচেয়ে বেশি। একই সঙ্গে শরীর থেকে ২ মিলিমিটার দূরের পরীক্ষায় এই ফোনটি নিরাপদ মাত্রার থেকে ২ অথবা ৪ গুণ বেশি রেডিয়েশন উৎপন্ন করেছে। একই দূরত্বে অন্য ফোনগুলোর অবস্থাও প্রায় একই।
তবে মার্কিন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান অ্যাপল তাদের আইফোন নিয়ে কোনো মন্তব্য করেনি। সাড়া পাওয়া যায়নি দক্ষিণ কোরীয় প্রতিষ্ঠান স্যামসাংয়েরও।
তিন বছর বয়সেই কোরআন মুখস্থ! বিশ্বজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি

তিন বছর বয়সেই কোরআন মুখস্থ! বিশ্বজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি

ধর্ম ডেস্ক ::
মাত্র তিন বছর বয়সেই জাহরা নামে এক শিশু পবিত্র কোরআন শরীফ মুখস্থ করে বিশ্বজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন। এতো অল্প বয়সে পবিত্র কোরআন মুখস্থ করায় জাহরাই এখন আজারবাইজানের কনিষ্ঠ হাফেজ।
আজারবাইজানের রাজধানী বাকুতে বসবাস করে জাহরার পরিবার।  
জাহরার মা জানান, জাহরা যখন তার গর্ভে তখন তিনি বেশি বেশি কোরআন তেলাওয়াত করতেন। উচ্চস্বরের কুরআনের তেলাওয়াত মনোযোগ সহকারে শুনতাম।
জাহরার জন্মের পর তাকে ঘুম পাড়াতে কুরআনের ছোট ছোট সুরাগুলো তেলাওয়াত করতাম। 
জাহরার মা আরো বলেন, জাহরার বয়স যখন এক বছর তখন থেকেই তার তেলাওয়াত করা ছোট ছোট সুরাগুলো তার সঙ্গে তেলাওয়াতের চেষ্টা করছে। মেয়ের এ আগ্রহ দেখে সে কুরআন তেলাওয়াত বাড়িয়ে দেই। আর এভাবেই ৩ বছর বয়সে কোনো শিক্ষক ছাড়াই আমার কাছ থেকে শুনে শুনে জাহরা পবিত্র কুরআনের ৩৭টি সুরা মুখস্থ করে ফেলে।
জাহরার কুরআন মুখস্থ করার পেছনে তার মায়ের অবদানই সবচেয়ে বেশি। কারণ তার জন্মের আগে থেকে মায়ের নিয়মিত কোরআন তেলাওয়াত এবং জন্মের পর ঘুম লাগানোর সময় কোরআনের অবিরাম তেলাওয়াতই জাহরাকে কুরআনের প্রতি
‘অ্যাম্বুলেন্স’ শব্দটি উল্টো করে লেখার কারণ জানেন কি?

‘অ্যাম্বুলেন্স’ শব্দটি উল্টো করে লেখার কারণ জানেন কি?

ফিচার ডেস্ক

মানুষের অসুস্থতায় জরুরি চিকিৎসাসেবা দিতে অ্যাম্বুলেন্স খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আর এই বাহনটি যেকোনো রাস্তাতেই চলাচলের জন্য অনুমতি প্রাপ্ত। একটু খেয়াল করলে দেখবেন, অ্যাম্বুলেন্সের সামনের অংশে ‘অ্যাম্বুলেন্স’ শব্দের ইংরেজি বর্ণগুলো উল্টো করে লেখা থাকে। কেন এমন ভাবে লেখা হয়, এটা কি কোন ভুল নাকি এর পেছনে কোন কারণ রয়েছে? এই নিয়ে অনেকেরই প্রশ্ন থাকে। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক এর কারণটি-

আপনারা নিশ্চয়ই জানেন, আমরা আয়নায় যখন কোন জিনিসের প্রতিবিম্ব দেখি, তখন তা আনুভূমিকভাবে উল্টো দেখি। যেমন- আয়নায় আমাদের ডানহাতকে বামহাত দেখায়। ঠিক তেমনি আয়নায় কোন শব্দ দেখলে তা উল্টো দেখা যায়। যা বাস্তবে ডান থেকে শুরু হয়, তা আয়নায় বাম থেকে।
গাড়ির সামনে যে লুকিং গ্লাস থাকে তাতে ড্রাইভার পেছনে থাকা গাড়ির অবস্থান দেখতে পারেন। অ্যাম্বুলেন্সের সামনে কোন গাড়ি থাকলে সে গাড়ির ড্রাইভার লুকিং গ্লাসে উল্টো অ্যাম্বুলেন্সের সঠিক প্রতিবিম্ব দেখতে পাবেন এবং সহজে অ্যাম্বুলেন্সের জন্য পথ ছেড়ে দিতে পারবেন।
মূলত এ ভাবনা থেকেই অ্যাম্বুলেন্সের সামনে শব্দটি উল্টো করে লেখা থাকে। এখন অনেকের প্রশ্ন থাকতে পারে যে, অ্যাম্বুলেন্সের জন্য তো নির্ধারিত সাইরেন রয়েছে। যার মাধ্যমে সহজে বোঝা যায়। তাহলে এ লেখার কী দরকার? এক্ষেত্রে অ্যাম্বুলেন্সের জরুরি অবস্থান বোঝাতে শ্রবণ ও দৃষ্টি শক্তি উভয়কে কাজে লাগানোর জন্য এ ব্যবস্থা করা হয়েছে।