কানাইঘাটে তরুণীকে ধর্ষণ করে হত্যার ঘটনাস্থল পরিদর্শনে পুলিশ সুপার

Kanaighat News on Friday, July 31, 2015 | 8:07 PM


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট উপজেলার সীমান্তবর্তী লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউপির নারাইনপুর গ্রামে দরিদ্র রিয়াজ আলীর মেয়ে ১৭ বছরের এক তরুণী ফরিদা বেগমকে গত ২৪ জুলাই ভিট বাড়ী থেকে অপহরণ করে দুই দিন আটকিয়ে রেখে উপর্যুপরি গণধর্ষণ করে ক্ষতবিক্ষত রক্তাক্ত লাশ টয়লেটে ভ্যান্টিলেটারে ঝুলিয়ে রাখার ঘটনায় ধর্ষণকারী খুনী চক্রকে অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবীতে এলাকার মানুষ ফুঁসে উঠেছেন। পৈশাচিক এ নারকীয় হত্যাকান্ডের পর কানাইঘাট থানা পুলিশের নীরব ভূমিকায় জনমনে সর্বত্র দীক্ষার তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। ফরিদা বেগমকে গণধর্ষণের পর নির্মম ভাবে হত্যা করে লাশ টয়লেটে ঝুলিয়ে রাখার ঘটনা নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর শুক্রবার সিলেটের পুলিশ সুপার নূরে আলম মিনা, উত্তর সার্কেলের এএসপি ধীরেন্দ্র মুখপাত্র, জেলা আ’লীগ নেতা মস্তাক আহমদ পলাশ, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ডাঃ ফয়াজ আহমদ, পৌর আ’লীগের আহ্বায়ক জামাল উদ্দিন সহ পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তারা নিহত ফরিদা বেগমের বাড়ী এবং হত্যাকান্ডের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, এলাকার হাজারো মানুষের উপস্থিতিতে পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা দ্রুত সময়ের মধ্যে এ নির্মম হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত ঘাতকদের চিহ্নিত করে গ্রেফতার করার জন্য কানাইঘাট থানার ওসি আব্দুল আউয়াল চৌধুরীকে নির্দেশ প্রদান করেন। পুলিশ সুপার শোকাহত পরিবারের সদস্যদের শান্তনা দিয়ে বলেন, শিশু রাজন হত্যাকারীদের চিহ্নিত করে যেভাবে জনগণের সহায়তায় খুনীদের গ্রেফতার করা হয়েছে ফরিদা বেগমের হত্যাকারীদের সেভাবে গ্রেফতার করা হবে। এ জন্য খুনীদের দেখামাত্র স্থানীয় জনসাধারণকে আটক করে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে তুলে দেওয়ার আহ্বান জানান। এ ব্যাপারে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না উল্লেখ করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষণা দেন তিনি। এছাড়া পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা নিহত ফরিদা বেগমের বাবা মা ও পরিবারের সদস্যদের সাথে একান্ত ভাবে কথা বলেন। প্রসজ্ঞত যে, গত ২৪ জুলাই শুক্রবার গভীর রাতে নারাইনপুর গ্রামের মৎস্যজীবি মোঃ রিয়াজ আলীর মেয়ে ফরিদা বেগম (১৭) কে বসত ঘর থেকে অপহরণ করে দুর্বৃত্তরা নিয়ে যায়। এরপর নিখোঁজের দুই দিন পর গত রবিবার ফরিদা বেগমের রক্তাক্ত ক্ষত বিক্ষত অর্ধ ঝুলন্ত লাশ পার্শ্ববর্তী বাড়ীর আনিছুল হক চৌধুরীর পরিত্যক্ত টয়লেটে পাওয়া যায়। এ ব্যাপারে কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আউয়াল চৌধুরীর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, অর্ধ ঝুলন্ত অবস্থায় ফরিদা বেগমের লাশ গত রবিবার উদ্ধার করে মর্গে প্রেরন করি। কিন্তু এ নিয়ে এলাকায় অনেকে নানা ধরনের কথাবার্তা বলছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পাশাপাশি এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার প্রস্তুতি চলছে। পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা স্যার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন, পুলিশ সেভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

কানাইঘাটে তরুণীকে ধর্ষণ করে হত্যার অভিযোগ

Kanaighat News on Thursday, July 30, 2015 | 9:01 PM


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট উপজেলার সীমান্তবর্তী লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউপির নারাইনপুর গ্রামে দরিদ্র পরিবারের (১৭) বছরের এক তরুণীকে ভিট বাড়ী থেকে অপহরণ করে আটকিয়ে রেখে উপর্যুপরি গণধর্ষণ করে ক্ষতবিক্ষত রক্তাক্ত লাশ টয়লেটে ভ্যান্টিলেটারে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনার পর নিহত তরুণী ফরিদা বেগমের কথিত প্রেমিক একই ইউপির পানিছড়া বড়খেওড় গ্রামের মন্তাজ আলী মন্তাইর পুত্র আজির উদ্দিন (২৭) তার বাবা মা ও পরিবারের সদস্যরা বাড়ী ছেড়ে পালিয়ে গেছে। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, গত শুক্রবার গভীর রাতে নারাইনপুর গ্রামের মৎস্যজীবি সম্প্রদায়ের মোঃ রিয়াজ আলীর মেয়ে ফরিদা বেগম (১৭) কে বসত ঘর থেকে অপহরণ করে দুর্বৃত্তরা নিয়ে যায়। ঘটনার দিন রাতে ফরিদা বেগমের পিতা রিয়াজ আলী ও মা রেনু বেগম বাড়ীতে ছিলেন না। ফরিদা বেগম নিখোঁজের পর তার আত্মীয় স্বজন ও এলাকার লোকজন সম্ভাব্য সকল স্থানে খোঁজাখুজি করে তার কোন সন্ধান পান নি। নিখোঁজের দুই দিন পর গত রবিবার ফরিদা বেগমের রক্তাক্ত ক্ষত বিক্ষত অর্ধ ঝুলন্ত লাশ পার্শ্ববর্তী বাড়ীর আনিছুল হক চৌধুরীর পরিত্যক্ত টয়লেটে পাওয়া যায়। ফরিদা বেগমের রক্তাক্ত লাশ উদ্ধারের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ডাঃ ফয়াজ আহমদ, স্থানীয় ইউপি সদস্য মস্তাক আহমদ সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ হাজারো মানুষ জড়ো হন। কানাইঘাট থানা পুলিশকে খবর দেওয়া হলে থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আউয়াল চৌধুরী ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্ট তৈরির পর সিলেট ওমেক হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেন। গত সোমবার নিহতের লাশ জানাজা শেষে গ্রামের গুরুস্তানে দাফন করা হয়। আজ বৃহস্পতিবার স্থানীয় সাংবাদিকরা গণধর্ষণের শিকার নিহত ফরিদা বেগমের বাড়ীতে গেলে সেখানে এলাকার নারী ও পুরুষ জড়ো হয়ে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে ব্যাপক ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তারা বলেন, ফরিদা বেগমকে অপহরণ করে গণধর্ষণের পর চোখ গলিত, গোপন স্থান ক্ষত বিক্ষত করে এবং শরীরের অসংখ্য জায়গায় কুঁছিয়ে, কামড়িয়ে অত্যন্ত নির্মম ভাবে পৈচাশিক কায়দায় হত্যাকান্ড সংঘটিত করে লাশ কোনমতে টয়লেটে ঝুলিয়ে রাখে ধর্ষণকারী খুনী চক্র। কিন্তু পুলিশ এ হত্যাকান্ডের কোন গুরুত্ব না দিয়ে পোস্ট মডেম পরবর্তীতে এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থার সিন্ধাত নেওয়ায় ফরিদা বেগমের সন্দেভাজন খুনী কথিত প্রেমিক আজির উদ্দিন তার পিতা মন্তাজ আলী মন্তাই ও দোলাভাই শরিফ উদ্দিন সহ পরিবারের লোকজন বাড়ী ছেড়ে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছে। এ পৈশাচিক হত্যাকান্ডের সাথে এলাকার আরো অনেকে জড়িত রয়েছে বলে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ডাঃ ফয়াজ আহমদ, ইউপি সদস্য মস্তাক আহমদ সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও নিহত ফরিদা বেগমের স্বজনরা জানিয়েছেন। চেয়ারম্যান ফয়াজ আহমদ স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, যেভাবে দরিদ্র ঘরের মেয়ে তরুণী ফরিদা বেগমকে গণধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে তা ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব নয়। এ ধরনের বর্বরোচিত ঘটনার খুনীদের চিহ্নিত করে দ্রুত গ্রেফতার এবং আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তিনি গত বুধবার উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় উপস্থাপন করেন। আদরের সন্তান ফরিদা বেগমকে হারিয়ে মা রেনু বেগম, পিতা রিয়াজ আলী ও ছোট ছোট ভাইবোনেরা সহ আত্মীয় স্বজনরা বার বার কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের ফাঁসির দাবী করেন। মৃতের গোসল সম্পন্নকারী মহিলা আমিনা বেগম, হাজিরা বেগম, আলছু বেগম জানিয়েছেন, নরপশুরা ফরিদা বেগমকে ধর্ষণ করে যেভাবে হত্যা করেছে তা অত্যন্ত লোমহর্ষক ও বিভৎস। তার গোপন স্থান ও শরীরের অসংখ্য জায়গায় পৈশাচিকতার ক্ষত বিক্ষত চিহ্ন রয়েছে। তাদের একটাই দাবী এ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের যেন পুলিশ গ্রেফতার করে। এলাকাবাসী সিলেটের উর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের সরেজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শনের দাবী জানিয়েছেন। এই ব্যাপারে কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আউয়াল চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ফরিদা বেগমের মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে গত রবিবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে নিহতের লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে সিলেট ওমেক হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছেন। কিন্তু নিহতের পরিবারের কেউ অদ্যবধি পর্যন্ত থানায় অভিযোগ দায়ের করতে আসেনি। ফরিদা বেগমকে ধর্ষণ করে লাশ ঝুলিয়ে রাখা হতে পারে। পোস্ট মডাম রিপোর্ট পাওয়ার পর এব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। পাশাপাশি তদন্ত চলছে। পরিকল্পিত হত্যাকান্ড হলে খুনীদের গ্রেফতার করা হবে বলে তিনি জানান। নিহতের পিতা রিয়াজ আলী জানিয়েছেন তিনি আজকের মধ্যে থানায় মামলা দায়ের করবেন।

কানাইঘাটে প্রতিপক্ষের হামলায় আনসার বিডিপি কমান্ডার গুরুতর আহত


নিজস্ব প্রতিবেদক: জমি সংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে বুধবার প্রতিপক্ষের অতর্কিত হামলায় গুরুতর আহত হয়েছেন কানাইঘাট লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউপির আনসার বিডিপি কমান্ডার স্থানীয় পূর্ব লক্ষীপুর গ্রামের মোঃ জালাল উদ্দিন (৬০) ও তার পূত্র নজরুল ইসলাম (২০), রুহুল ইসলাম (২৪)। এ ঘটনায় আহত আনসার বিডিপি কমান্ডার জালাল উদ্দিন বাদী হয়ে কানাইঘাট থানায় প্রতিবেশি একই গ্রামের তফজ্জুল আলীর পুত্র আব্দুল মতিন সহ ৪ জন কে আসামী করে অভিযোগ দায়ের করেছেন। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। অভিযোগে জানা যায়, জমি সংক্রান্ত পূর্ব বিরোধের জের ধরে গত বুধবার সকাল অনুমান ৬টার দিকে আনসার বিডিপি কমান্ডার মোঃ জালাল উদ্দিন বাড়ীর পাশে সুরমা নদীর চরে ধানক্ষেতের মাঠে গেলে একই গ্রামের আব্দুল মতিন, মস্তাক আহমদ, রিয়াজ আহমদ গংরা দেশীয় অশসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে জালাল উদ্দিনের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে তাঁকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর জখম করে মাথা ফাটিয়ে দেয় এবং শরীরের একাধিক স্থানে রক্তাক্ত জখম করে। জালাল উদ্দিনকে হামলাকারীদের কবল থেকে রক্ষা করতে এগিয়ে আসলে তার পুত্র নজরুল ইসলাম ও নুরুল ইসলামও আহত হন। গুরুতর আহত অবস্থায় জালাল উদ্দিনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এদিকে আহত আনসার বিডিপির কমান্ডার জালাল উদ্দিনকে হাসপাতালে দেখতে যান উপজেলা আনসার বিডিপির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খালেদ আহমদ, উপজেলা আনসার বিডিপির কমান্ডার ইসলাম উদ্দিন, বঙ্গবন্ধু জাতীয় যুব পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আলী আহমদ, যুবলীগ নেতা হারিছ আহমদ সহ বিভিন্ন ইউনিয়নের আনসার বিডিপির কমান্ডারগণ ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। তারা এ ঘটনায় অবিলম্বে এলাকার চিহ্নিত অপরাধী হামলার নেতৃত্বদানকারীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন।

না ফেরার দেশে সিলেটভিউ’র রাশেদীন ফয়সাল

Kanaighat News on Saturday, July 25, 2015 | 9:20 PM


সিলেট, শনিবার, ২৫ জুলাই ২০১৫ :: সকল চেষ্টা ব্যর্থ করে দিয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছে সিলেটভিউ২৪ডটকম’র নিজস্ব প্রতিবেদক রাশেদীন ফয়সাল। ১৩ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে শনিবার বিকেল ৬টার দিকে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে তিনি শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। ইন্নালিল্লাহি...রাজিউন। ফয়সালের নামাজের জানাযা রবিবার সকাল ১১টায় মোগলাবাজারস্থ কোনারচর গ্রামে তার নিজ বাড়ীতে অনুষ্ঠিত হবে। গত ১৩ জুলাই সিলেটের দক্ষিণ সুরমার মোগলাবাজারস্থ কোনাপাড়ার গ্রামের বাড়ি থেকে সিলেট শহরে আসার পথে লালমাটিয়া এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় প্রথমে তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউ বিভাগে ভর্তি করা হয়। দুর্ঘটনায় ফয়সলের পুরো মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হয়। উন্নত চিকিৎসার জন্য ১৩ জুলাই রাতেই তাকে ঢাকা মহানগর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনদিন চিকিৎসা শেষে তাকে স্থানান্তর করা হয় সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে। মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তিনি ওই হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন। সিলেটভিউ২৪ডটকম

কানাইঘাট থেকে ৪৬ কোটি টাকার সাপের বিষসহ আটক ৭

Kanaighat News on Friday, July 24, 2015 | 9:00 PM


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: কানাইঘাট উপজেলার রাউতগ্রাম থেকে ৪৬ কোটি টাকা মূল্যেও ১২ পাউন্ড (সিল্ড বাক্স) কোবরা সাপের বিষ উদ্ধার করেছে র‌্যাব-৯ এর সদস্যরা। উদ্ধার করা হয়েছে একটি রিভলবার, চার রাউন্ড গুলি ও একটি প্রাইভেট কার। আর এ সাথে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে আটক করা হয়েছে ৭ জনকে। ওই ঘটন মৃত হাবিবুর রহমানের পুত্র সিফাতুর রহমান (৫৬) ছাড়াও আটক অন্য আসামীরা হচ্ছে-ব্রাক্ষণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার কসবা শাহাপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল মতিনের পুত্র নজরুল আলম নান্নু (৫০), সিলেট নগরীর খাসদবীর বন্ধন সি/৩০ নম্বর বাসার মৃত আরজুমান আলীর পুত্র মোঃ আবু হাছান (৬২), মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার রামপাশা গ্রামের মৃত সিরাজুর ইসলামের পুত্র, প্রাইভেট কার চালক শহীদুল ইসলাম অনুজ (৩৪), সিলেট নগরীর ফাজিলচিশত প্রান্তিক ৯ নম্বর বাসার মৃত সোলাইমান খানের পুত্র মো: আব্দুল মালিক (৬০), মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার মাদেকপুর গ্রামের মৃত খন্দকার কলিম উল্লাহর পুত্র খন্দকার আব্দুল ওয়াহিদ (৬০) এবং বালাগঞ্জ উপজেলার মোবারকপুর গ্রামের মৃত ওমেশ চন্দ্র আচার্য্যের পুত্র মতিলাল আচার্য্য (৬০)। র‌্যাবের মিডিয়া অফিসার পংকজ কুমার দে জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৯(স্পেশাল কোম্পানী) এর একটি আভিযানিক দল অভিযান চালিয়ে সাপের বিষ উদ্ধার করে। উদ্ধার করা বিষের আনুমানিক মূল্য ৪৬ কোটি টাকা বলে জানানো হয়েছে। শুক্রবার দুপুর পৌনে ১২টার দিকে রাউতগ্রামের সিফাতুর রহমানের বাড়ি থেকে সাপের এ বিষ উদ্ধার করা হয়। আটক আসামীদের র‌্যাব হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

কানাইঘাট উপজেলা যুবলীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের কার্যনির্বাহী কমিটির এক সভা শুক্রবার বিকেল ৪টায় কানাইঘাট দক্ষিণ বাজারস্থ দলের অস্থায়ী কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মাসুক আহমদের সভাপতিত্বে ও সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক মোঃ নাজিম উদ্দিনের পরিচালনায় সভায় যুবলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম শক্তিশালী এবং আগামী ১৫ই আগষ্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের লক্ষে সভায় বিভিন্ন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক মীর মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, মোঃ ইয়াহিয়া, শফিউল আলম শামীম, শাহাব উদ্দিন, ওলিউর রহমান, আবুল হারিছ, সুহেল চৌধুরী, জিয়া উদ্দিন, মজির উদ্দিন, ইউসুফ, মখলিছ, রইছ উদ্দিন, জাকারিয়া, ইমরান, বুরহান, কামিল হায়দার প্রমুখ। এছাড়া আগামীকাল শনিবার বিকেল ৩টায় কানাইঘাট উপজেলা যুবলীগের এক বর্ধিত সভায় স্থানীয় ডাক বাংলায় অনুষ্ঠিত হবে। উক্ত সভায় দলের সকল পর্যায়ের নেতৃবৃন্দকে উপস্থিত থাকার জন্য উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মাসুক আহমদ আহবান জানিয়েছেন।

কানাইঘাট ডিগ্রি কলেজের প্রদর্শক ফয়সল উদ্দিনের বাড়িতে চুরি সংগঠিত


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট ডিগ্রি কলেজের জীববিজ্ঞান বিভাগের প্রদর্শক ও সিলেট বেতারের সংবাদ পাঠক ফয়সল উদ্দিনের বাড়িতে দুধর্ষ চুরি সংগঠিত হয়েছে। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গত বুধবার দিবাগত রাতে ফয়সল উদ্দিনের বীরদল পুরানফৌদ গ্রামের নিজ বাড়িতে পাকা বসত ঘরের দরজা ভেঙ্গে চোরেরা ভিতরে প্রবেশ করে ৪ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, নগদ ২৫ হাজার টাকা ও ব্যবহৃত ৩টি মোবাইল সেট আনুমানিক ২ ল টাকার মালামাল নিয়ে যায়। ফয়সল উদ্দিন জানিয়েছেন, রাত আনুমানিক ৩টার সময় এ চুরির ঘটনা ঘটে। এসময় তিনিসহ পরিবারের সবাই ঘুমে ছিলেন।

add

 
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো:মহিউদ্দিন,সম্পাদক : মাহবুবুর রশিদ,নির্বাহী সম্পাদক : নিজাম উদ্দিন। সম্পাদকীয় যোগাযোগ : সাউদিয়া মার্কেট,দোকান নং-২,কানাইঘাট উত্তর বাজার,সিলেট। +৮৮ ০১৭২৭৬৬৭৭২০,+৮৮ ০১৯১২৭৬৪৭১৬ ই-মেইল :mahbuburrashid68@yahoo.com: সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত কানাইঘাট নিউজ ২০১৩