২০২১ সালের মধ্যে সকলের জন্য ইন্টারনেট : পলক

Kanaighat News on Wednesday, January 18, 2017 | 11:27 PM


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ‘দেশের সকল মানুষকে নেটওয়ার্কের আওতায় নিয়ে আসতে এবং ডিজিটাল বাংলাদেশের সুফল জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে ইতোমধ্যেই বাংলাগভনেট ও ইনফো সরকার-২ প্রকল্পের মাধ্যমে উপজেলাগুলোকে উচ্চগতির ফাইবার অপটিক কেবলের আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। দেশের সকল ইউনিয়নকে সংযুক্ত করতে ইনফো-৩ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে, গৃহীত হয়েছে এস্টাবলিশিং ডিজিটাল কানেকটিভি প্রকল্প। দুর্গম এলাকাগুলোকে সংযুক্ত করতে কানেক্ট বাংলাদেশ প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। এ ধরনের উল্লেখযোগ্য নানা ধরনের প্রকল্পের মাধ্যমে ২০২১ সালের মধ্যে দেশের সকল জনগণকে ইন্টারনেটের আওতায় নিয়ে আসা হবে।’ মঙ্গলবার রাতে (সুইজারল্যান্ডের স্থানীয় সময় বিকাল ৪.০০ টা-৬.০০টা) সুইজারল্যান্ডের দাভোসে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম এর ৪৭তম বার্ষিক সভার ‘ইনোভেশনস টু কানেক্ট দ্য আনকানেক্টেড’ শীর্ষক এক ফোকাস গ্রুপ ডিসকাসনে অংশ নিয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এ কথা বলেন। প্রতিমন্ত্রী এ সময় বলেন, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ কার্যক্রম ঘোষণার পর থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে এবং প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের সার্বিক তত্ত্বাবধানে অত্যন্ত সময়োপযোগী ও বাস্তবমুখী পদক্ষেপের মাধ্যমে দেশের মানুষকে সাশ্রয়ী মূল্যে ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ সহজলভ্য করার প্রয়াস অব্যাহত রয়েছে বলেই ইতোমধ্যে ৪০ শতাংশ মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করছে। এ সংখ্যা উত্তরোত্তর বাড়ছে। আগামী ৫ বছরে এ সংখ্যা শতভাগে নিয়ে যেতে আমরা নতুন নতুন উদ্ভাবন নিয়ে কাজ করছি। ইনোভেশন ফান্ডের মাধ্যমে এখন এই উদ্ভাবনগুলোকে সার্বিক সহযোগিতা করছি। স্টার্ট-আপদের প্রয়োজনীয় সহযোগিতাসহ মেন্টরিং করা, তাদেরকে বৈশ্বিক পরিমন্ডলে পৌঁছে দেয়াও আমাদের উদ্দেশ্য। এজন্য ইনোভেশন ডিজাউন অ্যান্ড এন্ট্রাপ্রেনিওরশিপ একাডেমি প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’ এ ফোকাস গ্রুপ ডিসকাশনে আরো অংশ নেন রুয়ান্ডার প্রেসিডেন্ট পল কাগামে, জাপানের ইকোনমি, ট্রেড অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি মন্ত্রী হিরোশি সেকো, ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব এর জনক স্যার টিম বার্নস লি, ইন্টারন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়ন এর মহাসচিব হাওলিন ঝাও, ইউনেস্কোর মহাসচিব ইরিনা জর্জিয়েভা বোকাভা, বোস্টন কনসাল্টিং গ্রুপ এর সিনিয়র পার্টনার ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক ওল্ফগ্যাং বক, জাপানের ইন্টারনাল অ্যাফেয়ার্স অ্যান্ড কমিউনিকেশন মন্ত্রী সানায়ি টাকাছি, রুয়ান্ডার ইয়ুথ অ্যান্ড ইনফরমেশন কমিউনিকেশন মন্ত্রী জিন ফিলবার্ট সেনজিমানা, আলীবাবার প্রতিষ্ঠাতা জ্যাক মা, ভিম্পেলকম গ্রুপের সিইও জিন ইভস চার্লিয়ার, ২৪এম টেকনোলজিসের প্রধান বিজ্ঞানী ও কো-ফাউন্ডার ইয়েট মিং চেইং সহ আরো অনেকে। প্রসঙ্গত, গত বছরের ১২ মার্চ ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম জুনাইদ আহমেদ পলককে ইয়ং গ্লোবাল লিডার মনোনীত করে।

সহজ কিস্তিতে পাওয়া যাবে হুয়াওয়ে স্মার্টফোন

সহজ কিস্তিতে পাওয়া যাবে হুয়াওয়ে স্মার্টফোন

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: বর্তমান সময়ে সবার হাতে হাতে স্মার্টফোন। তবে বেশিরভাগই নিম্নমানের এবং কমমূূল্যের। তাই সবার হাতেই ভালো ব্রান্ডের স্মার্টফোন তুলে দেয়ার জন্য কিস্তিতে স্মার্টফোন কেনার সুযোগ দিবে চীনা হ্যান্ডসেট প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান  হুয়াওয়ে।

এ কোম্পানির নির্দিষ্ট মডেলের স্মার্টফোন সর্বনিন্ম ৩ ও সর্বোচ্চ ২৪ মাসের কিস্তিতে কোনো সুদ ছাড়াই কিনতে পারবেন স্মার্টফোনপ্রেমীরা।

নতুন এই অফারে 'হুয়াওয়ে পি৯', 'হুয়াওয়ে জিআর৫ (২০১৭)', 'হুয়াওয়ে জিআর৫ মিনি' এবং 'ওয়াইসিক্স২' মডেল পাওয়া যাবে।

ব্র্যাক ব্যাংক, সিটি ব্যাংক, ইস্টার্ন ব্যাংক, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক, লংকা বাংলা ফাইন্যান্স এবং সাউথইস্ট ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ডধারীরা হুয়াওয়ের ওই সব স্মার্টফোন ইএমআইতে কিনতে পারবেন বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে হুয়াওয়ে বাংলাদেশ।

এ ব্যাপারে হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিঃ-এর ডিভাইস বিজনেসের ডিরেক্টর ইংমার ওয়্যাং বলেন, 'ক্রেতারা হুয়াওয়ের স্মার্টফোনগুলো যাতে বাজেট সংক্রান্ত চিন্তা ছাড়া সহজেই কিনতে পারে সে জন্য আমরা ইএমআই সুবিধা চালু করেছি।'

যমুনা ফিউচার পার্ক এবং বসুন্ধরা সিটি শপিং মলের হুয়াওয়ে এক্সপিরিয়েন্স সেন্টারসহ দেশের ৬৪টি জেলার হুয়াওয়ের ব্র্যান্ড শপগুলো থেকে এই ইএমআই সুবিধা নিতে পারবেন গ্রাহকরা।

ছেলেকে নিয়ে হজে যাচ্ছেন অনন্ত ও বর্ষা

ছেলেকে নিয়ে হজে যাচ্ছেন অনন্ত ও বর্ষা
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: পবিত্র ওমরা হজ পালনের উদ্দেশ্যে সৌদি আরব যাচ্ছেন চিত্রনায়ক-প্রযোজক অনন্ত জলিল ও চিত্রনায়িকা বর্ষা। বুধবার মক্কার উদ্দেশে তাদের দেশ ছাড়ার কথা রয়েছে।

এ দম্পতির প্রথম সন্তান জন্মের আগে থেকে সন্তান জন্মের পর হজে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল। ২০১৪ সালের ২৩ নভেম্বর অনন্ত-বর্ষার কোলজুড়ে আসে পুত্র সন্তান আরিজ। ছেলের বয়স দুই বছর হওয়ার পর এবার তারা হজে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

হজের আনুষ্ঠানিকতা সেরে আগামী ২৪ জানুয়ারি দেশে ফিরবেন এ তারকা দম্পতি।

এ প্রসঙ্গে অনন্ত জলিল বলেন, ''এর আগেও হজে গিয়েছি। তবে এবার আরিজের জন্য নিয়ত ছিল। সেটা পূরণের উদ্দেশ্যে যাচ্ছি। সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন।''

যাওয়ার আগে সম্প্রতি চুক্তিকৃত প্রাণ গ্রুপের পণ্য ম্যাক্স কোলার বিজ্ঞাপনের শুটিং শেষ করেছেন।

নাশতায় তৈরি পাস্তা উইথ চেরি টমেটো

নাশতায় তৈরি পাস্তা উইথ চেরি টমেটো

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: যেকোনো আড্ডা-মাস্তিতে পাস্তা সবারই বেশ পছন্দ। আর সুস্বাদু এই খাবারটি যদি চেরি টমেটো দিয়ে রান্না করা হয় তাহলে তো আর কথাই নেই। আর যদি বাড়িতেই তৈরি করা যায় তবে বিকেলের নাশতা হিসেবে এর কোনো বিকল্পই নাই। বাসায় বসে খুব সহজে তৈরি করতে জেনে নিন কী কী উপকরণ লাগবে এবং কীভাবে তৈরি করবেন এই পাস্তা।

উপকরণ :
সেদ্ধ পাস্তা এক কাপ, চেরি টমেটো এক কাপ, অলিভ অয়েল দুই টেবিল চামচ, শুকনো মরিচের গুঁড়া দুই চা চামচ, পেঁয়াজ কুচি দুটি, রসুন কুচি তিন কোয়া, চিজ কুচি আধা কাপ, গোলমরিচের গুঁড়া সামান্য ও লবণ।  

প্রস্তুত প্রণালি :
প্রথমে একটি প্যানে অলিভ অয়েল দিয়ে পেঁয়াজ কুচি ও রসুন কুচি দিয়ে ভাজতে থাকুন। এখন এর মধ্যে চেরি টমেটোগুলো দিয়ে নাড়তে থাকুন। ৫ থেকে ১০ মিনিট রান্না করুন। এবার এতে সেদ্ধ পাস্তা, শুকনো মরিচের গুঁড়া, গোলমরিচের গুঁড়া ও লবণ দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন।

সবশেষে চিজ কুচি দিয়ে ৫ মিনিট রান্না করুন। ওপরে সামান্য অলিভ অয়েল ছড়িয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন পাস্তা উইথ চেরি টমেটো।

নাইজেরিয়ায় ভুলবশত বিমান হামলায় নিহত ৫২

নাইজেরিয়ায় ভুলবশত বিমান হামলায় নিহত ৫২

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: নাইজেরিয়ার উত্তর-পূর্বে একটি উদ্বাস্তু শিবিরে বিমান হামলায় কমপক্ষে ৫২ জন নিহত ও দুই শতাধিক লোক আহত হয়েছে। দেশটির সামরিক বাহিনীর একটি যুদ্ধবিমান থেকে মঙ্গলবার ভুলবশত: এ হামলা চালানো হয়।

এ হামলায় নিহতদের মধ্যে অনেক ত্রাণ কর্মী রয়েছে। এদিকে রেডক্রস জানিয়েছে বিমান হামলায় নিহতদের মধ্যে তাদের ছয় কর্মী রয়েছে।

এমএসএফ ত্রাণ সংস্থা জানায়, এ বিমান হামলায় ৫০ জনের বেশী লোক নিহত ও দুই শতাধিক লোক আহত হয়েছে। আহতদের চিকিৎসা সেবাদানের আহবান জানানো হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট মুহাম্মাদু বুহারি এ ঘটনায় দু:খ প্রকাশ করেন এবং সকলকে শান্ত থাকার আহবান জানান। উল্লেখ্য, বুহারির সামরিক বাহিনী বোকো হারাম জঙ্গিদের বিরুদ্ধে লড়াই করে যাচ্ছে।

ক্যামেরুন সীমান্তের কাছে এ বিমান হামলা চালানো হয়। সেখানে সামরিক বাহিনী বোকো হারামের বিরুদ্ধে তাদের চূড়ান্ত অভিযানের ঘোষণা দিয়েছে।

উল্লেখ্য, নাইজেরিয়ার সামরিক বাহিনী এই প্রথমবারের মতো এ ধরনের ভুল বিমান হামলা চালানোর কথা স্বীকার করলো।

এখনো অক্ষত নূর হোসেনের সেই 'জলসাঘর'

এখনো অক্ষত নূর হোসেনের সেই 'জলসাঘর'

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সাত খুন মামলায় ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত নূর হোসেনের ‘জলসাঘর’ এখনও অক্ষত। জলাশয়ের ওপর বাঁশ আর টিন দিয়ে তৈরি জলসাঘরটিতে ‘সুরের মূর্চ্ছনা’ নেই অবশ্য। বরং এখন বিরাজ করছে সুনসান নীরবতা। পাশেই বালুর মাঠের এক কোণে অযত্নে পড়ে আছে ‘এবিএস’ পরিবহনের অনেকগুলো বাস। দেখভালের কেউ নেই।

অথচ বছর তিনেক আগেও এই মাঠ ছিল জমজমাট। জলাশয়ের ওপরে নির্মিত বাড়িটি সারাক্ষণ পাহারা দিতো নূর হোসেনের লোকজন।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কাঁচপুর সেতুর পশ্চিম দিকে শিমরাইল মোড় থেকে একটি সড়ক উত্তর দিকে ডেমরার দিকে গেছে। ওই রাস্তা ঘরে কয়েক মিনিট এগোলে পূর্ব দিকে চোখে পড়ে খেজুর গাছ দিয়ে ঘেরা নূর হোসেনের বাড়ি। বাড়িটির শ’খানেক গজ দূরে একটি বিশাল জলাশয়ে এক সময়ে মাছ চাষ করা হতো। ওই জলাশয়ের ওপরে  একটা বেশ বড় ঘরকে স্থানীয়রা বলতো ‘জলসাঘর’।

গতকাল মঙ্গলবার বিকালে সরেজমিনে দেখা গেছে, ঘরটি এখনও অক্ষত। টিনের নীল রঙয়ের ঔজ্জ্বল্য তেমন কমেনি। ঘরের ছবি তুলতে গেলে এগিয়ে আসেন এক যুবক। নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনি বলেন, ‘জলসাঘরে যাওয়ার জন্য কয়েকটি নৌকা রাখা থাকতো। সন্ধ্যার পরেই নৌকায় চড়ে নূর হোসেন ও তার সহযোগীরা যেতো ঘরটিতে। রাতভর চলতো উল্লাস আর আমোদ-প্রমোদ। মদ-জুয়ার আসরও বসতো সেখানে। কোনও  বিশেষ  অতিথির সঙ্গে এ ঘরে বসেই কথা বলতো নূর হোসেন।’

৩০/৩৫ বছর বয়সী যুবকটি আরও বলেন, ‘যখন ঘরটিতে আসর বসতো, তখন আমরা এলাকার অনেকে প্রায়ই দিনের বেলায় পুকুরে গোসল করার নামে কাছে যেতাম। উপরে না উঠলেও ঘরের চারদিক থেকে, পানির নিচ থেকে দেশি-বিদেশি অনেক বোতল কুড়াতাম। পরে সেগুলো বিক্রি করে দিতাম। বোতলগুলো অনেক দামী, বোধহয় মদ কিংবা এ জাতীয় কিছু থাকতো।’

নূর হোসেনের মালিকানাধীন বাসগুলোর বেহাল অবস্থা
২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল সাত খুনের পর পালিয়ে যায় নূর হোসেন। এরপর ঘরটি পরিত্যক্ত হয়ে পড়ে। ঘরে থাকা আসবাবপত্র সরিয়ে নেওয়া হয়। সাংবাদিক আর প্রশাসনের লোকজন নিয়মিত আসতেন অবশ্য। নূর হোসেনের সহযোগীরা সরে পড়ার পর ধীরে-ধীরে স্থানীয় মানুষজন আসতে শুরু করে।

ওই যুবকের সঙ্গে কথা বলার সময়ে এগিয়ে আসেন আরো কয়েকজন। তাদের মধ্যে একজনের নাম সালাউদ্দিন। সিদ্ধিরগঞ্জের আটি এলাকায় থাকলেও শিমরাইল টেকপাড়ায় নূর হোসেনের বাড়ির পাশেই একটি টঙ দোকানে সিগারেট আর পান বিক্রি করেন তিনি।

সালাউদ্দিন জানান, যখন জলসাঘরটি ছিলো, তখন তাদের বিক্রিও ভালো হতো। কারণ তখন প্রচুর গাড়ি আসতো এ সড়কে। দামী গাড়িতে থাকা লোকজন কিনতো সিগারেট। নানা ধরনের লোকজন দেখা করতে আসতো নূর হোসেনের সঙ্গে। জমজমাট থাকতো এলাকা। কিন্তু সাত খুনের পর পুরো এলাকা এখন থমথমে।

জলসাঘরের পাশেই দত্ত বাবুর মালিকানাধীন বিশাল বালুর মাঠের পশ্চিম-দক্ষিণ কোণে দেখা গেছে, নূর হোসেনের এবিএস পরিবহনের অন্তত ২০-২২টি বাস খোলা আকাশের নিচে পড়ে আছে। বেহাল বাসগুলোর কোনওটার সিট নেই, নেই অনেক যন্ত্রাংশও।

২০১৪ সালের শুরুর দিকে শিমরাইল রোড থেকে নারায়ণগঞ্জ রুটে এবিএস পরিবহন নামে একটি বাস সার্ভিস চালু করেছিলো নূর হোসেন। রুটটি দখলের জন্য প্রভাব খাটিয়ে কমল ও নসিব পরিবহন নামে দুটি বাস সার্ভিসকে কোণঠাসাও করে সে। নূর হোসেনের ক্যাডার বাহিনী নসিব পরিবহনের ১ নম্বর কাউন্টার দখল করে নেয়। তখন বন্ধ হয়ে যায় নসিব পরিবহন। তবে সাত খুনের পর ২০১৪ সালের ২ মে থেকে এবিএস পরিবহনও বন্ধ। আর নসিব পরিবহন নাম পরিবর্তন করে হয়েছে বন্ধু পরিবহন।  নূর হোসেনের অনুপস্থিতিতে এবিএস পরিবহনের বাসগুলো কেউ আর চালানোর উদ্যোগ নেয়নি। সাত খুনের পর এসব বাস থেকে উদ্ধার করা হয়েছিলো অস্ত্র ও মাদক। সে কারণে নূর হোসেনের সহযোগী ও পরিবারের লোকজন এসব বাসের দিকে আর নজর দেয়নি।

সূত্র: বাংলা ট্রিবিউন

রপ্তানি আয় ২০২১ সালে ৬০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ছাড়াবে

রপ্তানি আয় ২০২১ সালে ৬০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ছাড়াবে

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, চলমান রপ্তানি বৃদ্ধির হার অব্যাহত থাকলে ২০২১ সালে রপ্তানি ৬০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ছাড়িয়ে যাবে।

তিনি বলেন, ‘১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার যখন দেশ পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ করেছিল তখন দেশের রপ্তানি ছিল ৩ দশমিক ০৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং দায়িত্ব ছেড়ে দেয়ার সময় ছিল ৬ দশমিক ৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এবারে দায়িত্ব গ্রহণের সময় রপ্তানি আয় ছিল ১৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, গত অর্থ বছরে রপ্তানি আয় হয়েছে ৩৪ দশমিক ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।’

মন্ত্রী আজ বুধবার বসুন্ধরা ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে চারদিনব্যাপী বাংলাদেশ গার্মেন্টস্ এক্সেসরিজ এন্ড প্যাকেজিং ম্যানুফ্যাকচারার্স এন্ড এক্সেপোর্টাস এসোসিয়েশন (বিজিএপিএমইএ) আয়োজিত ‘গার্মেন্টেক-২০১৭’-এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের প্রধান রপ্তানি খাত তৈরী পোশাক। এ খাত থেকে মোট রপ্তানির প্রায় ৮২ ভাগ আসে। অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে বাংলাদেশের তৈরী পোশাক রপ্তানি এ অবস্থানে এসেছে।

তিনি বলেন, সামনে বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে। গার্মেন্টস এক্সেসরিজ এন্ড প্যাকেজিং-এর প্রায় ৩০টি পণ্যের প্রয়োজন হয়। তৈরী পোশাক সেক্টরের জন্য এগুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ। একসময় এগুলো আমদানি করতে হতো। দেশের শিল্পের চাহিদা মিটিয়ে এগুলো বিদেশে রপ্তানি করা হচ্ছে। বর্তমানে এসেক্টরে রপ্তানীর পরিমান প্রায় ৬ দশমিক ১২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, ২০২১ সালে রপ্তানির পরিমান দাঁড়াবে ১৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, ২০০৫ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তৈরী পোশাক রপ্তানিতে কোটা প্রথা বাতিল করা হয়। সে সময় অনেকেই মনে করেছিলেন বাংলাদেশের তৈরী পোশাক শিল্প আর এগুতে পারবে না। এ শিল্পে শিশু শ্রম বন্ধের চ্যালেঞ্জ এসেছিল। সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে বাংলাদেশের তৈরী পোশাক শিল্প দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশ ডিউটি ও কোটা ফ্রি সুবিধা পায় না, ১৬ শতাংশ শুল্ক দিয়ে রপ্তানি করে। এখন একক দেশ হিসেবে বাংলাদেশের তৈরী পোশাকের সবচেয়ে বড় বাজার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। গত বছর সেখানে রপ্তানি হয়েছে ৬ দশমিক ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের তৈরী পোশাক।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা মোতাবেক রপ্তানি পণ্যের সংখ্যা বৃদ্ধি এবং বাজার সম্প্রসারণে সরকার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। সরকার আইটি, ঔষধ, ফার্নিচার, জাহাজ নির্মাণ, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য এবং কৃষিজাত পণ্য রপ্তানিতে অধিক গুরুত্ব দিচ্ছে। বর্তমানে কৃষিপণ্য রপ্তানিতে ২০ শতাংশ, চামড়াজাত পণ্যে ১৫ শতাংশ, জাহাজ রপ্তানিতে ১০ শতাংশ, ফার্নিচার রপ্তানিতে ১৫ শতাংশ নগদ আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। ফলে রপ্তানি দ্রুত বাড়ছে। মন্ত্রী বলেন, পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা সফল ভাবে বাস্তবায়িত হলে দেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৮ ভাগ হবে। চলতি বছর শেষে প্রবৃদ্ধি হবে ৭ দশমিক ৫ ভাগ। ২০০৬ সালে দেশে অতিদরিদ্র মানুষ ছিল ২৪ দশমিক ২ শতাংশ, ২০১৬ সালে তা কমে এসেছে ১২ দশমিক ৯ শতাংশে। ২০৩০ সালে তা ৩ শতাংশের নীচে নেমে আসবে।

অষ্টমবারের মতো আয়োজিত এ মেলায় ২৪টি দেশের ৪০০টি প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৮শ’ স্টল রয়েছে। প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে সন্ধা ৭টা পর্যন্ত এ মেলা দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

বিজিএপিএমইএ-এর প্রেসিডেন্ট মো. আব্দুল কাদের খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক, এফবিসিসিআই-এর প্রথম সহ-সভাপতি মো. শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, বিজিএমই-এর প্রেসিডেন্ট মো. সিদ্দিকুর রহমান, বিইডিএস-এর সিনিয়র রিসার্স ফেলো ড. নাজনিন আহমেদ ও ভারতের এ.এস.কে ট্রেড এন্ড এক্সিবিশনস প্রা. লি.-এর পরিচালক নন্দ গোপাল কে।
সূত্র: বিডিলাইভ ।
 
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো:মহিউদ্দিন,সম্পাদক : মাহবুবুর রশিদ,নির্বাহী সম্পাদক : নিজাম উদ্দিন। সম্পাদকীয় যোগাযোগ : শাপলা পয়েন্ট,কানাইঘাট পশ্চিম বাজার,কানাইঘাট,সিলেট।+৮৮ ০১৭২৭৬৬৭৭২০,+৮৮ ০১৯১২৭৬৪৭১৬ ই-মেইল :mahbuburrashid68@yahoo.com: সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত কানাইঘাট নিউজ ২০১৩