সিলেটে আস্তানায় ২ জঙ্গি নিহত, অভিযান চলবে: সেনাবাহিনী

Kanaighat News on Sunday, March 26, 2017 | 8:52 PM

সিলেটে আস্তানায় ২ জঙ্গি নিহত, অভিযান চলবে: সেনাবাহিনী
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সিলেটের দক্ষিণ সুরমা এলাকার শিববাড়ীর আতিয়া মহলে অপারেশন টোয়াইলাইটে ২ জঙ্গি নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফখরুল আহসান।

তিনি বলেন, 'আমরা রকেট লাঞ্চার দিয়ে ছিদ্র করে তারপর সেখান দিয়ে টিয়ারসেল ছোড়ার পর তাদের জন্য ভেতরে থাকা কঠিন হয়েছিল'। এখন পর্যন্ত ২ জন জঙ্গি নিহত হয়েছে। দু’জনই পুরুষ সদস্য। অভিযান সার্বক্ষণিক চলতে থাকবে। রোববার বিকেল সাড়ে ৫টার পর দ্বিতীয় দফা সংবাদ সম্মলনে এ তথ্য জানান তিনি।

ফখরুল আহসান আরো বলেন, 'এখনও এক বা একাধিক জঙ্গি ভেতরে আছে'। আমাদের কেউ আহত হননি।
'আশা করেছিলাম অভিযান আজ শেষ হবে, কিন্তু আজ শেষ হচ্ছে না'। অভিযান সার্বক্ষণিক চলবে।

তিনি বলেন, 'এলাকাটা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে গেছে'। তারা কোন গোষ্ঠীর জানা গেছে কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, 'সেটা আমাদের বিষয় না, পরবর্তী সময়ে তদন্ত যারা করবেন, তারা বিষয়টি দেখবেন'। ভেতরে কোনও নারী জঙ্গি আছে কিনা, জানতে চাইলে তিনি বলেন, 'সেটা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।'
সূত্র: বিডিলাইভ।
+

কানাইঘাটে প্রবাসীর বা‌ড়ি‌তে ডাকা‌তি,৭ ভ‌রি স্বর্ণ লুট

Kanaighat News on Saturday, March 25, 2017 | 10:01 PM


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট ৭নং বাণীগ্রাম ইউপির লামাদলইকান্দি গ্রামের মৃত ইব্রাহিমের বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি খবর পাওয়া গেছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদ আহমদ সহ বাড়ির লোকজন জানিয়েছেন, শনিবার ভোররাত অনুমান ৪টার দিকে মুখোশধারী বেশ কয়েকজন দেশীয় অস্ত্রধারী ডাকাত দল মৃত ইব্রাহিম আলীর পাকা বসত ঘরের লোহার কলাপসেবল গেইট ভেঙ্গে ঘরের ভেতরে প্রবেশ করে। ডাকাতরা ইব্রাহিম আলীর ভাই গৃহকর্তা আফতাব উদ্দিনসহ ঘরের অন্যান্য সদস্য ও মহিলাদের অস্ত্রের মাধ্যমে জিম্মি করে তিনটি রুমের মালামাল তছনছ করে অনুমানিক ৭ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, নগদ অর্ধলক্ষাধিক টাকা, কয়েকটি মোবাইল সেটসহ দামি জিনিসপত্র লুট করে নিয়ে যায়। ডাকাতরা বাড়ির মহিলা সদস্যদের মারধর করে তাদের কান থেকে স্বর্ণের দুল পর্যন্ত ছিড়িয়ে নিয়ে যায়। এক পর্যায়ে ডাকাতরা চলে যাওয়ার পর বাড়ির লোকজনের আর্তচিৎকারে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এসে তাদেরকে উদ্ধার করেন। ডাকাতির খবর পেয়ে শনিবার সকালে কানাইঘাট থানার ওসি মোঃ আব্দুল আহাদ, বাণীগ্রাম ইউপির চেয়ারম্যান মাসুদ আহমদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ ব্যাপারে ওসি আব্দুল আহাদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। এ ব্যাপারে তদন্ত পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এবং এ ঘটনার সাথে জড়িতদের চিহ্নিত করে গ্রেফতার করা হবে। প্রসঙ্গত যে, মৃত ইব্রাহিম আলীর পুত্র ওলিউর রহমান তার স্ত্রীকে নিয়ে সৌদি আরবে ওমরাহ হজে রয়েছেন। তার আরো এক ভাই প্রবাসী বলে জানা গেছে।

গণহত্যা দিবস উপলক্ষে কানাইঘাটে আ'লীগের আলোচনা সভা


নিজস্ব প্রতিবেদক: ২৫শে মার্চ জাতীয় গণহত্যা দিবস উপলক্ষে কানাইঘাট উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে শনিবার বিকেল ৩টায় কানাইঘাট উত্তর বাজারস্থ কার্যালয়ে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক সাবেক মেয়র লুৎফুর রহমানের সভাপতিত্বে ও সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক রফিক আহমদের পরিচালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক উপাধ্যক্ষ লুকমান হোসেন, মাসুদ আহমদ চেয়ারম্যান, ফখর উদ্দিন শামীম, রিংকু চক্রবর্তী, উপজেলা আ’লীগ নেতা ফারুক আহমদ, কাউন্সিলার মাসুক আহমদ, কাউন্সিলার ইসলাম উদ্দিন, জেলা যুবলীগ নেতা আব্দুল হেকিম শামীম, পৌর যুবলীগের আহবায়ক এনামুল হক, উপজেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি জসিম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ আহমদ, যুবলীগ নেতা এসএম মাহবুবুল আম্বিয়া, ইফতেখার আলম মাহবুব প্রমুখ। সভায় বক্তারা ১৯৭১ সালের ২৫ শে মার্চ রাতে মুক্তিকামী এদেশের মানুষের স্বাধীনতাকে হরণ করার জন্য পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী নির্বিচারে হত্যাযজ্ঞ সংগঠিত করে। এ গণহত্যার সাথে জড়িতদের বিচার এবং ২৫শে মার্চকে আন্তর্জাতিক ভাবে জাতীয় গণহত্যা দিবসের স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য বিশ্বনেতৃবৃন্দের প্রতি আহবান জানান।

নাক ডাকা বন্ধ করার উপায়


নাক ডাকা বন্ধ করার উপায়
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: নাক ডাকেন এমন কারও সঙ্গে একই বিছানায় ঘুমিয়েছেন! হায় হায় রাতের ঘুমের একেবারে দফারফা! রাজ্যের যন্তণা ভর করবে আপনাকে। পরের টুকু তো ইতিহাসই। রাতের নীরবতা ভেঙে একটানা বা থেমে থেমে বিচিত্র স্বরে সে নাক ডেকে যাচ্ছে। শব্দ কখনো বাড়ছে কখনো কমছে। পাশের ঘরে হলে না হয় দরজা-জানালা বন্ধ করে, হালকা শব্দে গান ছেড়ে কোনো না-কোনোভাবে বাঁচলেন। তবে পাশে থাকলে কী করণীয় সেটির সমাধানই খুঁজেন অনেকে।

স্বাস্থ্যবিষয়ক ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানানো হয়, ৪৫ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের মধ্যে নাক ডাকার সমস্যা দেখা যায়। যখন গলার শিথিল পেশীতে কম্পন সৃষ্টি হয় তখন নাক দিয়ে শব্দ বের হয় অর্থাৎ নাক ডাকার শব্দ শোনা যায়। এটি মাঝে মাঝে শোয়ার ঝামেলার জন্য হতে পারে।

সমাধানের জন্য যা করতে পারেন-

১. যোগব্যায়াম:
'প্রাণায়াম' একটি যোগব্যায়াম যা শ্বাসপ্রশ্বাস নিয়ন্ত্রণ করে। এই ব্যায়ামের মাধ্যমে দীর্ঘ ও ছোট শ্বাস নেওয়া শেখা যায়, যা ফুসফুসে পর্যাপ্ত অক্সিজেনের প্রবেশ নিশ্চিত করার পাশাপাশি সারা শরীরের রক্ত চলাচল নিশ্চিত করে।

২. জিহবা ও গলার ব্যায়াম
গলা ও জিহবার পেশী গঠনের মাধ্যমে নাক ডাকার সমস্যা দূর করা যায়। চর্চার মাধ্যমে এটি শক্তিশালী হয় এবং বিশ্রামের সময় এসব অঙ্গের শিথিল হওয়ার সম্ভাবনাও কমে। তাছাড়া বয়স বাড়ার সঙ্গে কোষের স্থিতিস্থাপকতা ও শক্তি হারায়। ফলে বাতাস চলাচলের পথ বন্ধ হয়ে যায়।

তাছাড়া নাক ডাকাসহ অন্যান্য ঘুমের সমস্যাও দূর করতে সাহায্য করে এই ব্যায়াম। 'প্রাণায়াম' চর্চার মাধ্যমে শরীর উজ্জীবিত হয় ও শক্তি বৃদ্ধি পায়।

৩. কক্ষের আর্দ্রতা:
নাক ডাকার সম্ভাব্য কারণ হতে পারে ঘরের শুষ্ক বাতাস। এর ফলে অনুনাসিক ঝিল্লি বা ‘নেইজল মেমব্রেইন’ এবং কণ্ঠনালীতে বাতাস চলাচলে বাধা তৈরি করে। তখন এসব জায়গার কোষে কম্পন তৈরি হয় এবং নাক ডাকার শব্দ শোনা যায়।

৪. ওজন কমান:
অতিরিক্ত ওজন নাক ডাকার অন্যতম কারণ। ওজন বেশি হলে গলায় অতিরিক্ত কোষ থাকার সম্ভাবনাও বাড়ে, যা নাক ডাকার সম্ভাবনা সৃষ্টি করে। গলায় যত বেশি প্রতিবন্ধকতা থাকবে বাতাস চলাচল ততবেশি বাধা পাবে। এটি কম্পনের সৃষ্টি অর্থাৎ নাক ডাকার কারণ।

বাকি যে কাজগুলো অবশ্যই করবেন....

১. ধূমপান এড়িয়ে চলুন
আমরা সবাই জানি ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। ধূমপান হতে পারে নাক ডাকার জন্য দায়ী। কেননা এটি বাতাস চলাচলের পথে বাধার সৃষ্টি করে।

২. মাথা উঁচু রেখে ঘুমান
ঘুমানোর সময় মাঝে মাঝে জিহবার কারণে গলা বাধা প্রাপ্ত হতে পারে অর্থাৎ বাতাস চলাচলে বাধা পায়। এই সমস্যা এড়াতে ঘুমানোর সময় মাথার নিচে বালিশ ব্যবহার করুন, এটি বাতাস চলাচলের পথ উন্মুক্ত করে।

৩. অ্যালকোহল পরিহার করুন
নাক ডাকার সমস্যা এড়াতে ঘুমানোর আগে অ্যালকোহল থেকে বিরত থাকুন। অ্যালকোহল গলার কোষ শিথিল করে ফলে জিহবা পিছনে পড়ে বাতাস চলাচলে বাধা দেয়। যা নাক ডাকার সৃষ্টি করে।

৪. বালিসের ভারসাম্য রক্ষা:
বালিশ খুব বেশি উঁচু বা নিচু হওয়া ঠিক নয়। ঘুমানোর সময় মাথা উঁচু থাকলে তা বাতাস চলাচলে সহায়তা করে। কিন্তু এই উচ্চতা যদি অনেক বেশি হয় তাহলে বাতাস চলাচলে বাধা দেয়। ফলে নাক ডাকার সৃষ্টি হয়। তাই খুব বেশিও উঁচু বা নিচু বালিশ ব্যবহার না করে মাঝারি ধরনের বালিশ ব্যবহার করা উচিত।

বন্ধ হয়ে যাচ্ছে ‘দ্য কপিল শর্মা শো’!

বন্ধ হয়ে যাচ্ছে ‘দ্য কপিল শর্মা শো’!

বিনোদন ডেস্ক: ভারতের জনপ্রিয় টিভি শো ‘দ্য কপিল শর্মা শো’। এ শোয়ের সঞ্চালক কপিল শর্মার সাথে সহকর্মী সুনীল গ্রোভারের তিক্ত অভিজ্ঞতার জন্য বন্ধ হয়ে যেতে বসেছে শো-টি।

সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়া থেকে শো করে ফেরার পথে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েন কপিল শর্মা ও সুনীল গ্রোভার। শোনা যায়, বিমানে সুনীলকে মারধর ও গালিগালাজ করেন কপিল। পরবর্তীতে শোয়ের শুটিং করেননি সুনীল।

সুনীল গ্রোভারের পর শোয়ের অন্য দুই সদস্য আলি আসগর ও চন্দন প্রভাকরও শোয়ে অংশ না নেয়ার সিদ্ধান্ত নেন। ফলে বন্ধ হয়ে যায় পরবর্তী পর্বের শুটিং। আর পুরো ঘটনায় বিরক্ত চ্যানেল কর্তৃপক্ষ। শেষ পর্যন্ত ‘দ্য কপিল শর্মা শো’ বন্ধ হওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

আগামী মাসে ‘দ্য কপিল শর্মা শো’র চুক্তি নবায়ন হওয়ার কথা রয়েছে। জানা গেছে, এ চুক্তির পরিমাণ ১০৬ কোটি রুপি। সহশিল্পীদের সঙ্গে কপিলের এমন ঘটনায় শোয়ের চুক্তি নবায়ন না করার চিন্তা করছে চ্যানেল কর্তৃপক্ষ। প্রকাশিত প্রতিবেদনে এমনটাই জানিয়েছে ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যম।

‘দ্য কপিল শর্মা শো’র প্রতি পর্বের জন্য সুনীল গ্রোভার পেতেন ৭ লাখ রুপি। অন্যদিকে ১ কোটি রুপি পেতেন কপিল।

এ শোয়ের সদস্য চন্দন জানিয়েছেন, তিনি কাজ করতে চান, কিন্তু শোয়ে ফেরার বিষয়টিতে স্বস্তি বোধ করছেন না। ‘জানি না কপিলের ওপর কার অভিশাপ লেগেছে, অক্টোবর থেকে শোয়ের টিআরপি শুধু নেমেই যাচ্ছিল।’ বলেন চন্দন।

দ্বন্দ্বের পর থেকে একে অন্যকে মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটারে আনফলো করে দিয়েছিলেন কপিল ও সুনীল। তবে আবারো সুনীলকে ফলো করা শুরু করেছেন কপিল। কিন্তু এতেও তাদের মধ্যে বরফ গলছে না বলে জানা গেছে।

সুনীলের ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘পারিশ্রমিক বাড়িয়ে দিলেও সুনীল এ শোয়ে ফিরবেন না। তিনি অন্য জায়গা থেকে কয়েকটি প্রস্তাব পেয়েছেন। তিনি বর্তমান অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে চাইছেন।’

একটি সূত্র ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছেন, ‘বড় কোনো তারকা অতিথি না পাওয়ায় কপিলকে শোয়ের শুটিং বাতিল করতে হয়েছে। এ কারণে তিনি ফিরাঙ্গি সিনেমার শুটিং করতে গিয়েছেন। আগামী ২৯ মার্চ মুম্বাইয়ে ফিরবেন তিনি।’

বিমানবন্দরে যাত্রীর সঙ্গে একজনের বেশি স্বজন নয়

বিমানবন্দরে যাত্রীর সঙ্গে একজনের বেশি স্বজন নয়

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিরাপত্তার স্বার্থে বিদেশগামী যাত্রীর সঙ্গে একজনের বেশি স্বজন না নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

এ প্রসঙ্গে বিমানবন্দরের পরিচালক কাজী ইকবাল করিম বলেন, ‘নিরাপত্তার স্বার্থে বিমানবন্দরে একজন যাত্রীর জন্য একজনের বেশি স্বজন না যাওয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে। পাশাপাশি বিমানবন্দরে নিরাপত্তায় বাড়তি সর্তকতাও নেওয়া হয়েছে।'

এছাড়া শুক্রবার ওই এলাকায় পুলিশ চেকপোস্টে আত্মঘাতী বিস্ফোরণের ঘটনায় বিমানবন্দরের কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হয়নি বলেও জানান তিনি।

নিরাপত্তা ব্যবস্থা প্রসঙ্গে বিমানবন্দরের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রাশেদা সুলতানা বলেন, ‘বিমানবন্দরের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। শুক্রবার যে ঘটনা ঘটেছে, তা বিমানবন্দর এলাকার ভেতরে নয়। তবু নিরাপত্তার স্বার্থে প্রতিটি পয়েন্টে সতর্ক নজরদারি ও তল্লাশি বাড়ানো হয়েছে। আমরা চেষ্টা করছি, বিমানবন্দরের ভেতরে যাত্রী ছাড়া দর্শনার্থীদের প্রবেশ নিয়ন্ত্রণ করতে। বিমানবন্দরের বাইরের এলাকায় চেক পোস্টগুলোতে বিমানবন্দর আর্মড পুলিশের সদস্য সংখ্যাসহ তল্লাশি বাড়াতে বলা হয়েছে। সিভিল এভিয়েশন, অ্যাভসেক, পুলিশের সমন্বয়ে টিম পুরো বিমানব্ন্দর এলাকা টহল দিয়ে নজরদারি করছে।’

বিমানবন্দরটির পরিচালক কাজী ইকবাল করিম বলেন, ‘জনমনে ভীতি সৃষ্টি হওয়ার কোনও কারণ নেই। বিমানবন্দর স্বাভাবিক নিয়মে চলছে। সর্তকতার জন্য তল্লাশি বাড়ানো হয়েছে। আমরা এখন পর্যন্ত দর্শনার্থী প্রবেশ বন্ধ না করলেও একজনের বেশি না আসতে অনুরোধ করছি।’

এয়ারপোর্ট আর্মড ব্যাটেলিয়নের পুলিশ সুপার রাশেদুল ইসলাম বলেন, ‘নিয়ম অনুযায়ীই বিমানবন্দরের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে। সতর্কতা হিসেবে বিমানবন্দর এলাকায় প্রবেশের ক্ষেত্রে তল্লাশি বাড়ানো হয়েছে।’

এদিকে গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে দু’টি ‘আত্মঘাতী’ বোমা বিস্ফোরণে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা। ধারাবাহিক অভিযানে জঙ্গিগোষ্ঠীকে কোণঠাসা করার কথা বলা হলেও জঙ্গিরা একের পর এক বিস্ফোরণ ঘটাচ্ছে।

গত ১৭ মার্চ রাজধানীর বিমানবন্দর বাসস্ট্যান্ড থেকে অদূরে আশকোনায় নির্মাণাধীন র‌্যাব সদর দফতরে ‘আত্মঘাতী’ বোমা বিস্ফোরণ ঘটায় এক জঙ্গি। এর এক সপ্তাহ পরই শুক্রবার রাত পৌনে ৮টার দিকে বিমানবন্দর বাসস্ট্যান্ডে আবার ‘আত্মঘাতী’ বিস্ফোরণ ঘটালো তারা। যদিও পুলিশ এ হামলাকে আত্মঘাতী না বলে বোমা বহনের সময় ‘বিস্ফোরণ’ বলে দাবি করছে। বিমানবন্দর গোল চত্বরের পাশে পুলিশ বক্সের সামনে আত্মঘাতী বিস্ফোরণের পর রাজধানীসহ সারাদেশে বিশেষ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ ভবন, বিদেশি নাগরিকদের অফিস ও বাসস্থান, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন কার্যালয়ে নিয়োজিতদের সতর্কতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হয়েছে।

এ ঘটনার পর ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, ‘পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রয়েছেন। কেপিআইসহ সব ধরনের স্থাপনা নিরাপদ রাখতে পুলিশ নজরদারি করছে।’ +

প্রথমবার সাকিব-তামিমের শতরানের জুটি

প্রথমবার সাকিব-তামিমের শতরানের জুটি

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: প্রথমবারের মত অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান ও ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবাল ওয়ানডে ক্রিকেটে শতরানের জুটি গড়লেন।

৭১ বলে ৪টি চার এবং একটি ছক্কাতে ৭২ রান করেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। এভাবেই ভাঙে চতুর্থ উইকেটে দুজনের ১৪৪ রানের দুর্দান্ত জুটি। ক্যারিয়ারে ৮ম সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে ৪৮তম ওভারের শেষ বলে আউট হন তামিম। ১৪২ বলে ১৫টি চার ও একটি ছক্কা মেরে ১২৭ রান করেন তিনি।

তামিম ইকবালের টেস্ট এবং ওয়ানডেতে সেঞ্চুরির সংখ্যা এখন সমান। একদিনের ক্রিকেটে ২৪ ইনিংস এক সঙ্গে ব্যাট করলেও সাকিব ও তামিমের প্রথম শতরানের জুটি এটিই। এর আগে অর্ধশত জুটি ছিল মাত্র ৪টি। সবশেষটি ২০১২ এশিয়া কাপে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৭৬। যেটি ছিল জুটিতে দুজনের সর্বোচ্চ।

আজ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমেছে মাশরাফি বাহিনী। দাম্বুলায় শুরুটা ভালো হয়নি বাংলাদেশের। তবে তামিমের ১২৭, সাকিবের ৭২, সাব্বিরের ৫৪ রান এবং মোসাদ্দেক ও মাহমুদউল্লাহর ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ৩২৪ রানের বিশাল স্কোর দাঁড় করায় বাংলাদেশ।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ১ উইকেট হারিয়ে ৩ ওভারে ৬ রান করেছে শ্রীলঙ্কা।
 
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো:মহিউদ্দিন,সম্পাদক : মাহবুবুর রশিদ,নির্বাহী সম্পাদক : নিজাম উদ্দিন। সম্পাদকীয় যোগাযোগ : শাপলা পয়েন্ট,কানাইঘাট পশ্চিম বাজার,কানাইঘাট,সিলেট।+৮৮ ০১৭২৭৬৬৭৭২০,+৮৮ ০১৯১২৭৬৪৭১৬ ই-মেইল :mahbuburrashid68@yahoo.com: সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত কানাইঘাট নিউজ ২০১৩