Previous
Next

সর্বশেষ


Thursday, April 26, 2018

 জমির বিরোধ,কানাইঘাটে এক ব্যক্তি খুন

জমির বিরোধ,কানাইঘাটে এক ব্যক্তি খুন

নিজস্ব প্রতিবেদক :: কানাইঘাটে জমি সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে মারামারি থামাতে গিয়ে এক পক্ষের হামলায় ফারুক আহমদ (৫০) নামে এক ব্যক্তি ধারালো চাকুর আঘাতে নির্মম ভাবে নিহত হয়েছেন।

কানাইঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল আহাদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, খুনের ঘটনায় মূল অভিযুক্ত ফখরুল ইসলামকে পুলিশ আটক করেছে।

কানাইঘাট থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে হত্যাকারী ফখরুল ইসলাম (৪৮)কে গ্রেপ্তার করেন।

এ ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার সকাল অনুমান সাড়ে ৮ টার দিকে কানাইঘাট লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপির কালীনগর আগফৌদ গ্রামে। স্থানীয় এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছ থেকে জানা যায় কালীনগর আগফৌদ গ্রামের মৃত জওয়াহির আলীর পুত্র ফখরুল ইসলাম গংদের সাথে একই গ্রামের হাজী মকবুল আলীর পুত্র জারুল্লাহ, জলাল আহমদ, সাহেদ আহমদ ও বাউরভাগ গ্রামের ফরিদ হাজী গংদের মধ্যে সুরইঘাট বিজিবি ক্যাম্প সংলগ্ন পূর্বপাশে অবস্থিত কয়েক বিঘা জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এনিয়ে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে  সাহেদ আহমদ ও ফরিদ হাজী গংরা বিরোধপূর্ণ জমির একটি অংশে মাপযোগ করতে গেলে সাহেদ ও ফরিদ হাজীর লোকজনের সাথে ফখরুল ইসলাম গংদের ঝগড়াঝাটি শুরু হয়। এ সময় সেখানে উপস্থিত হয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে মারামারি থামাতে যান এলাকার মুরব্বি কালীনগর আগফৌদ গ্রামের মৃত মাহমুদ আলীর পুত্র ফারুক আহমদ।

ঝগড়াঝাটির একপর্যায় ফখরুল ইসলাম ফরিদ হাজীর উপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে দাওয়া করলে তাকে হামলার হাত থেকে বাচাঁতে গিয়ে ফখরুল ইসলামের ছুরিঘাতে গুরুত্বর আহত হন ফারুক আহমদ। তাকে আশংকাজনক অবস্থায় সিলেট সিওমেক হাসপাতালে নিয়ে যাবার পর কর্তব্যরত চিকিৎসকগণ তাকে মৃত ঘোষনা করেন। লাশের ময়না তদন্ত হচ্ছে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

থানার এসআই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন জমি সংক্রান্ত বিরোধ থামাতে গিয়ে মধ্যস্থকারী কৃষক ফারুক আহমদ (৫০) গ্রেপ্তারকৃত ফখরুল ইসলামের ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত অবস্থায় সিওমেক হাসপাতালে মারা গেছেন। ফখরুল ইসলাম ও ফরিদ হাজী গংদের মধ্যে জমি-জমা নিয়ে এ ঘটনাটি ঘটেছে।

Wednesday, April 25, 2018

বিশ্ব ম্যালেরিয়া দিবস উপলক্ষে কানাইঘাটে  র‌্যালি ও আলোচনা সভা

বিশ্ব ম্যালেরিয়া দিবস উপলক্ষে কানাইঘাটে র‌্যালি ও আলোচনা সভা

নিজস্ব প্রতিবেদক: `ম্যালেরিয়া নির্মুলে প্রস্তুত আমরা' এ প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে কানাইঘাটে বিশ্ব ম্যালেরিয়া দিবস উপলক্ষ্যে আজ বুধবার সকাল ১০টায় উপজেলা সদরে বর্ণাঢ্য র‌্যালি পরবর্তী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের হলরুমে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের তত্বাবধানে ও ব্র্যাকের সহযোগিতায় ও সীমান্তিকের বাস্তবায়নে র‌্যালি ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডাঃ আবুল হারিছের সভাপতিত্বে ও সীমান্তিক ম্যালেরিয়া নির্মুল কর্মসূচীর উপজেলা ম্যানেজার আবুল কালামের পরিচালনায় ম্যালেরিয়া দিবসের সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা স্বাস্থ্য পরিদর্শক ইয়াজুল আমিন, কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন, সমাজসেবী মাস্টার আলী আহমদ, ব্র্যাকের মনিটরিং অফিসার মীর হোসেন, সীমান্তিক নতুন দিনের জেলাটিম লিডার আব্দুল হামিদ, সাবেক ছাত্রনেতা আসাদ উদ্দিন, সীমান্তিক সূর্যের হাঁসি ক্লিনিকের ম্যানেজার আব্বাস উদ্দিন, সীমান্তিকের স্বাস্থ্য কর্মী নাজমা বেগম প্রমুখ।


কানাইঘাট নিউজ ডট.কম/২৫ এপ্রিল।
কানাইঘাটে পুকুরে ডুবে শিশুর মৃত্যু

কানাইঘাটে পুকুরে ডুবে শিশুর মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাটে পুকরের পানিতে ডুবে ১৮মাসের এক শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। আজ বুধবার দুপুর ১টার দিকে কানাইঘাট সদর ইউ.পির বীরদল পূর্ব হাওর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। জানা যায়, বানীগ্রাম ইউপির ছত্রপুর গ্রামের সৌদি প্রবাসী রইছ উদ্দিনের স্ত্রী ফাতেহা বেগম পালক পুত্র ১৮ মাসের শিশু সন্তান রাফিকে নিয়ে তার পিত্রালয় কানাইঘাট সদর ইউ.পির বীরদল পূর্ব হাওর গ্রামে গত মঙ্গলবার বেড়াতে আসেন। শিশু রাফি বাড়ির সবার অগোচরে আজ নানার বাড়ির পুকুরে পড়ে ডুবে যায়। বাড়ির লোকজন একপর্যায়ে খোঁজাখুঁজি করে শিশু রাফির ভাসমান লাশ পুকুরে ভাসতে দেখে তাকে সাথে সাথে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। পুকুরে ডুবে মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনায় শিশুর স্বজনরা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। 

কানাইঘাট নিউজ ডট.কম/ ২৫ এপ্রিল।
কানাইঘাট থানার এসআই হারুনুুর রশিদের বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত

কানাইঘাট থানার এসআই হারুনুুর রশিদের বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট থানার কম্পিউটার অপারেটর এএসআই হারুনুর রশিদের অন্যত্র বদলি জনিত উপলক্ষ্যে বিদায়ী অনুষ্ঠান গত মঙ্গলবার রাত ১০টায় থানার সাব ইন্সপেক্টর কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুল আহাদের সভাপতিত্বে ও এসআই হুমায়ূন কবিরের পরিচালনায় বিদায়ী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, কানাইঘাট সার্কেলের এএসপি আমিনুল ইসলাম সরকার। বক্তব্য রাখেন থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ নুনুমিয়া, থানার সাব-ইন্সপেক্টর পান্নালাল দেব, কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন, সহ-সম্পাদক আব্দুন নূর, বিদায়ী সংবর্ধিত এএসআই হারুনুর রশিদ, এএসআই সামছুল আরেফিন, থানার ওয়ারলেস অপারেটর শাহ্ আব্দুল হান্নান, কম্পিউটার অপারেটর সাইফুল ইসলাম প্রমুখ। বিদায়ী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এএসপি আমিনুল ইসলাম সরকার বলেন, মানুষের যানমালের নিরাপত্তা বিধান ও সেবাই হচ্ছে পুলিশের কাজ। মাঠ পর্যায়ে পুলিশের যেসব অফিসার নিষ্ঠা ও সততার সাথে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন তাদের নানা ভাবে পুরস্কৃত করা হচ্ছে। বিদায়ী এএসআই কম্পিউটার অপারেটর হারুনুর রশিদ একজন নিষ্ঠাবান সদালাপী কর্তব্য পরায়ন পুলিশ ছিলেন বলেই আজ তাকে সম্মানিত করে বিদায় জানানো হচ্ছে। এটা যেন আমরা সবাই ধরে রাখি। থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আহাদ তার বক্তব্যে বলেন, এএসআই হারুন রশিদ কানাইঘাট থানায় দীর্ঘ ৯ বছর কর্মরত ছিলেন। এখানে কর্মরত থাকাবস্থায় হারুনুর রশিদ পদোন্নতি পেয়েছেন। এলাকার মানুষের সাথে তার নাড়ীর সম্পর্ক ছিল। সবাই তার ভালো কাজের প্রশংসা করেছেন। একজন দক্ষ কম্পিউটার অপারেটর সে ছিল। থানার গুরুত্বপূর্ণ কাজ সে করত এবং সৎ নিষ্ঠাবান ও দায়িত্ব পালনে সদা জাগ্রত থাকত হারুনুর রশিদ। পুলিশ ডির্পাটমেন্টের একজন আইকন অফিসার হিসাবে হারুনুর রশিদের উত্তরোত্তর সফলতা কামনা করেন তিনি। অনুষ্ঠান শেষে বিদায়ী এএসআই হারুনুর রশিদ কে থানা পুলিশের পক্ষ থেকে সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান ও উপহার সামগ্রি তোলে দেন এএসপি আমিনুল ইসলাম সরকার।  

কানাইঘাট নিউজ ডট.কম/ ২৫ এপ্রিল।

Tuesday, April 24, 2018

বিদেশি শক্তির হস্তক্ষেপ আশা করি না: কাদের

বিদেশি শক্তির হস্তক্ষেপ আশা করি না: কাদের

kader20171217195943.jpg


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক:
দেশের রাজনীতিতে বিদেশি শক্তির হস্তক্ষেপ আশা করেন না বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।
আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি দলের ভারত সফর শেষে মঙ্গলবার (২৪ এপ্রিল) বিকেলে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের চামেলী হলে প্রেস ব্রিফিংয়ে এ কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।
তিনি বলেন, পরিষ্কারভাবে একটা কথা বলতে চাই, আমাদের দেশের রাজনীতি নিয়ে আমাদের জনগণই সিদ্ধান্ত নেবে। কোনো বিদেশি শক্তি আমাদের রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করবে, এটা আশা করি না।
প্রতিনিধি দলের প্রধান ওবায়দুল কাদের বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীসহ উচ্চ পর্যায়ের রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করেছি। বিজেপির নতুন কেন্দ্রীয় কার্যালয় পরিদর্শন করেছি। তাদের সঙ্গে অত্যন্ত সুন্দর আলোচনা হয়েছে। মোদীকে আমরা বলেছি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আপনি দুজনে মিলে সীমান্তচুক্তি বাস্তবায়ন করেছেন। এতে আপনি ও আপনার সরকারের প্রতি ‘গুড উইল’ সৃষ্টি হয়েছে। তাই তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি বাস্তবায়ন করলে ‘ট্রিমেন্ডাস গুড উ্ইল’ সৃষ্টি হবে। এটি একটি বাস্তবতা, এটাকে পাশ কাটিয়ে যাওয়া যাবে না।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমরা আমন্ত্রণ পেয়েই ভারত সফরে গিয়েছি, আনন্দ-ফূর্তি করার জন্য নয়। বিজেপির সঙ্গে ভালো সম্পর্ক হলে অসুবিধা কোথায়? দুই দেশের উন্নয়নে আমরা যে কারো সঙ্গে ভালো সম্পর্ক করতে রাজি। তাদের আমন্ত্রণেই আমরা সিরিয়াসলি আলাপ-আলোচনা করতে গেছি।
কানাইঘাটে ইউএনও'র হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেলো ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী

কানাইঘাটে ইউএনও'র হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেলো ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানিয়া সুলতানার হস্তক্ষেপে কানাইঘাট থানা পুলিশ বীরদল এন.এম একাডেমির ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী কুলসুমা আক্তার জেসমিন (১৪) এর বাল্যবিয়ে পন্ড করে দিয়েছে। মঙ্গলবার কানাইঘাট সদর ইউ.পির বীরদল ভাড়ারীফৌদ গ্রামের খসরু মিয়ার মেয়ে ষষ্ঠ শ্রেণির একই উপজেলার ঢাকনাইল দক্ষিন রসুলপুর গ্রামের সুরুজ আলীর পুত্র রুহেল আহমদের সাথে মহা ধুমধামে বিবাহর আয়োজন ছিল। বিয়ে উপলক্ষ্যে যথারীতি দাওয়াতপত্র বিলি ও কানাইঘাট আল-রিয়াদ কমিউনিটি সেন্টারে বর কনের আগমন উপলক্ষ্যে দুপুরে প্রীতিভোজের আয়োজন করা হয়। সবকিছু যখন টিকটাক কনে ও বরের বাড়িতে আনন্দ উৎসব বিরাজ করছিল কিন্তু ঠিক সেই মূহুর্তে বিয়ের দিন আজ মঙ্গলবার সকাল বেলায় নির্বাহী কর্মকর্তা তানিয়া সুলতানা ষষ্ঠ শ্রেনির ছাত্রী কুলসুমা আক্তার জেসমিনের বাল্যবিবাহের সংবাদ পেয়ে বিয়েটি পন্ড করে দেওয়ার জন্য কানাইঘাট থানা পুলিশকে নির্দেশ দেন। তাৎক্ষনিক সকাল সাড়ে ৯টার দিকে থানার এসআই আবু কাওছার একদল পুলিশ নিয়ে প্রথমে এনএম একাডেমি স্কুলে যান। শিক্ষকদের কাছ থেকে নিশ্চিত হন কুলসুমা আক্তার তাদের প্রতিষ্ঠানে ষষ্ঠ শ্রেণির একজন নিয়মিত ছাত্রী। পরে পুলিশ অফিসার আবু কাওছার স্কুলের সহকারী শিক্ষক শাহাব উদ্দিনকে সাথে নিয়ে ছাত্রীটির বাড়িতে গিয়ে তার বাবা খসরু মিয়ার সাথে কথা বলে তার মেয়ের বাল্য বিবাহ বন্ধ করার নির্দেশ দেন। তা না হলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে জানালে খসরু মিয়া মেয়ের বাল্যবিবাহ দিবেন না বলে মুচলেকা প্রদান করেন বলে এসআই আবু কাওছার জানিয়েছেন। 

কানাইঘাট নিউজ ডট.কম/২৪ এপ্রিল।
কানাইঘাটে নাম্বারবিহীন ১৫টি সিএনজি অটোরিক্সা আটক

কানাইঘাটে নাম্বারবিহীন ১৫টি সিএনজি অটোরিক্সা আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাটে অভিযান চালিয়ে সিলেট জেলা ট্রাফিক পুলিশ বিভাগের ইন্সপেক্টর তপন তালুকদারের নেতৃত্বে বেশ কয়েকটি অনটেস্ট সিএনজি গাড়ী আটক করা হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে কানাইঘাট, জকিগঞ্জ ও বিয়ানীবাজার থানা ট্রাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর তপন তালুকদার ও কানাইঘাট থানার ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট উজ্জল রায় ট্রাফিক পুলিশের দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তাদের নিয়ে বোরহান উদ্দিন সড়কের বাইপাশ মোড়, রামিজা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে অভিযান চালিয়ে ১৫টির মতো বিআরটির রেজিস্ট্রেশন বিহীন (অনটেস্ট) অটোরিকশা আটক করে থানায় নিয়ে আসেন। এ অভিযান অব্যাহত রেখেছেন ট্রাফিক পুলিশের কর্মকর্তারা। নাম্বারবিহীন এসব সিএনজির বিরুদ্ধে ট্রাফিক আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ইন্সপেক্টর তপন তালুকদার "কানাইঘাট নিউজকে" জানিয়েছেন- সিলেটের পুলিশ সুপার মনিরুজ্জামান স্যারের নির্দেশে অবৈধ রোডপারমিট বিহীন সিএনজি গাড়ীসহ অন্যান্য যানবাহনের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হয়েছে। প্রথম দিনে অভিযান অব্যাহত রেখে নাম্বারবিহীন অটোরিক্সাসহ অন্যান্য যানবাহন আটক অব্যাহত রয়েছে। সিলেটের প্রতিটি থানায় এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে তিনি জানান। এদিকে কানাইঘাটের অনেক অটোরিক্সা চালকরা জানিয়েছেন, তারা কানাইঘাট, জকিগঞ্জ, গোলাপগঞ্জ, বিয়ানিবাজার, জৈন্তাপুর ও হাইওয়ে পুলিশকে ম্যানেজ করে মাসিক মোটা অংকের মাসোহারা দিয়ে টুকেনের মাধ্যমে অনটেস্ট সিএনজি গাড়ী চালান। হঠাৎ করে আজ মঙ্গলবার কানাইঘাট দক্ষিণ বাজার সিএনজি স্ট্যান্ড ও পৌর এলাকার কয়েকটি স্থানে ট্রাফিক পুলিশের কর্মকর্তারা অভিযান চালিয়ে ১৫টির মতো সিএনজি গাড়ী আটক করেন। গাড়ী আটকের পর শ্রমিক সংগঠনের নেতারা থানায় এসে নানা ধরনের কথাবার্তা বলেন। বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে- কানাইঘাট উপজেলায় অনন্ত ৪হাজারের মতো অনটেস্ট অটোরিক্সা সিএনজি গাড়ী দীর্ঘদিন ধরে সিলেটের বিভিন্ন থানার ট্রাফিক পুলিশকে মাসোহারা দিয়ে চালিয়ে আসছে অটোরিক্সার চালক, শ্রমিক সংগঠন ও ট্রাফিক পুলিশের মনোনীত দালালরা। তবে ট্রাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর তপন তালুকদার জানান তার জানামতে অনটেস্ট, অটোরিক্সা, সিএনজি গাড়ী থেকে ট্রাফিক পুলিশের কোন কর্মকর্তা বা পুলিশ সদস্য মাসোহারা পান না। এসব অভিযোগ সত্য নয়। সুনির্দিষ্ট কোন অভিযোগ এ ব্যাপারে পাওয়া গেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

কানাইঘাট নিউজ ডট.কম/ ২৪ এপ্রিল
নোটিশ :   কানাইঘাট নিউজ ডটকমে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক