চাঁপাইনবাবগঞ্জে গোমস্তাপুরে ট্রেনে কাটা পড়ে যুবক নিহত

Kanaighat News on Wednesday, May 31, 2017 | 10:28 PM

চাঁপাইনবাবগঞ্জে গোমস্তাপুরে ট্রেনে কাটা পড়ে যুবক নিহত
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুরে বুধবার সকালে ট্রেনে কাটা পড়ে সাহেব (৩৮) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। রহনপুর স্টেশন থেকে দুই কিলোমিটার দূরে হিরুপাড়া এলাকায় দুর্ঘটনাটি ঘটে।

নিহত সাহেব রহনপুর পৌর এলাকার ধুলাউড়ি গ্রামের মৃত পেসকার আলীর ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বৃধবার সকালে সাড়ে ৮টার দিকে রহনপুর পৌর এলাকার হিরুপাড়া এলাকায় ট্রেন লাইনের উপর দাঁড়িয়ে মোবাইল ফোনে কথা বলছিল সাহেব। এ সময় রহনপুর স্টেশন থেকে ছেড়ে আসা ট্রেনের ধাক্কায় লাইনের উপর পড়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায় সাহেব।

ঘূর্ণিঝড় 'মোরা'; বিড়ালের কোলে হাঁসের বাচ্চা

ঘূর্ণিঝড় 'মোরা'; বিড়ালের কোলে হাঁসের বাচ্চা

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: আজ দেশে আঘাত হেনেছে ঘূর্ণঝড় 'মোরা'। এর ভয়বহতার আভাস পেয়ে আগেই নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া হয়েছিলো অধিবাসীদের। মানুষ যখন আশ্রয়কেন্দ্রগুলোর দিকে যাচ্ছিলো তখন একটি বিস্ময়কর ঘটনা চোখে পড়লো।

সে সময় দেখা যায়, একটি গাছের গোড়ায় দেয়ালে আড়ালে দেখা গেলো বিড়ালের কোলে হাঁসের বাচ্চা আশ্রয় নিয়েছে। আর বিড়ালটিও মায়ের মতই পরম মমতায় তাকে বুকে আগলে রেখেছে।

এ ঘটনাটি ঘটেছে কক্সবাজার জেলার মহেশখালী উপজেলার একটি গ্রামে।

ছবি: ইত্তেফাক

অল্পের জন্য দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেলেন শাহরুখ

অল্পের জন্য দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেলেন শাহরুখ
বিনোদন ডেস্ক: শুটিং সেটে আঘাতের বিষয়টি নতুন কিছু নয়। এর আগে অনেকবারই শুটিং করতে গিয়ে গুরুতর আঘাত পেয়েছে অনেকেই। কিছুদিন আগে আহত হলেন রনবীর সিং। এবার অল্পের জন্য বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে গেলেন শাহরুখ খান।

বর্তমানে আনন্দ এল রাইয়ের সিনেমার শুটিং করছেন শাহরুখ। সেই শুটিং সেটেই ঘটেছে দুর্ঘটনা। শুটিং সেটে শাহরুখ যেখানে বসে ছিলেন ঠিক তার অপর পাশের ছাদের একটি বড় অংশ ধসে পড়ে। শাহরুখ রক্ষা পেলেও আহত হয়েছে শুটিংয়ের দুজন সদস্য। প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যম।

এ প্রসঙ্গে একটি সূত্র সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘অস্থায়ীভাবে তৈরি একটি ছাদ মইয়ের ওপর ভর দেয়া অবস্থায় ছিল। যা হঠাৎ ভেঙে পড়ে। দুর্ঘটনায় আহত সদস্যদের সঙ্গে সঙ্গেই হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে কারণ আঘাত গুরুতর ছিল না। সবাই অনেকটা হাফ ছেড়ে বেঁচেছেন কারণ শাহরুখ অপর প্রান্তেই বসে ছিলেন। দুই দিনের জন্য শুটিং বন্ধ করা হয়েছে। এই সপ্তাহের শেষে আবার শুটিং শুরু হবে।’

সিনেমাটি শাহরুখ ছাড়া আরো অভিনয় করছেন আনুশকা শর্মা এবং ক্যাটরিনা কাইফ। এতে বামন চরিত্রে অভিনয় করছেন শাহরুখ। অন্যদিকে আনুশকাকে দেখা যাবে মানসিক ভারসাম্যহীন এক মেয়ের চরিত্রে। সিনেমাটিতে নিজের ভূমিকাতেই অভিনয় করবেন ক্যাটরিনা। 'জাব তাক হ্যায় জান' সিনেমার পর আবারো একসঙ্গে পর্দায় হাজির হচ্ছেন এ তিনজন।

ট্রাম্পের টুইট নিয়ে তোলপাড়

ট্রাম্পের টুইট নিয়ে তোলপাড়

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের টুইট আসক্তি সবারই জানা। এ যাত্রায় এবার আরো খানিকটা এগিয়ে গেলেন তিনি। গভীর রাতে এক টুইট করে রীতিমতো ঝড় তুলেছেন ভার্চুয়াল দুনিয়ায়।

টুইটার পোস্টে টাইপের ভুলের কারণে উপহাসের পাত্র হয়েছেন ট্রাম্প। আজ বুধবার বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ কথা জানানো হয়।

মঙ্গলবার গভীর রাতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প টুইট করেছেন, 'ডেসপাইট দা কনস্ট্যান্ট নেগেটিভ প্রেস কভফেফে (covfefe)'।’ এই ‘কভফেফে’ শব্দ নিয়েই বেঁধেছে গোল। তিনি coverage লিখতে গিয়ে ভুল করে covfefe লিখেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আবার অনেকেই ধারণা করছেন, ট্রাম্প বক্তব্য শেষ না করেই ঘুমিয়ে পড়েছিলেন। এ ধরনের ভুল ট্রাম্পের কোনো সহযোগী কেন ঠিক করে দিলেন না—এ ব্যাপারেও প্রশ্ন তুলেছেন কেউ কেউ।

গুগল ট্রান্সলেট covfefe শব্দটিকে সামাওন ভাষার শব্দ হিসেবে শনাক্ত করেছে। তবে এই শব্দের কোনো ইংরেজি অনুবাদ করেনি।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কেউ কেউ covfefe. us নামে ডোমেইন কেনার আগ্রহ প্রকাশ করেছে। এই শব্দটি অনলাইনে বর্তমানে সবচেয়ে আলোচিত বিষয়ে পরিণত হয়েছে।

উল্লেখ্য, টুইটটি প্রায় দুঘণ্টা ট্রাম্পের ওয়ালেই ছিল। আর এতেই ৬১ হাজার বার রিটুইট হয়েছে। টুইটার ট্রেন্ডিংয়ের শীর্ষে অবস্থান করছে।

রমজান শুরু হলেই খুলে যায় জান্নাতের দরজাগুলো


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: মহান আল্লাহ রব্বুল আলামিনের অফুরন্ত রহমত, মাগফিরাত ও নাজাতের অমিয় বারতা নিয়ে শুভাগমন করল হিজরি ১৪৩৮ সালের মাহে রমজানুল মোবারক। আজ পবিত্র রমজানের প্রথম দিন। খাতামুন নাবিয়্যিন রহমাতুল্লিল আলামিন মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের উম্মতের জন্য প্রতি বছর এই পবিত্র মাস এক শুভ উপলক্ষ। আখেরি নবীর মদিনায় হিজরত করে যাওয়ার দ্বিতীয় বছরে রমজানের সিয়াম পালনের বিধান নিয়ে নাজিল হয় কুরআন মজিদের সূরা বাকারার ১৮৩ নম্বর আয়াতটি। ঘোষণা করা হয়, হে মুমিনরা, তোমাদের প্রতি সিয়াম পালন আবশ্যিক করা হলো যেমন তা আবশ্যিক করা হয়েছিল তোমাদের আগে যারা ছিল তাদের প্রতি, যাতে তোমরা মুত্তাকি হতে পারো। বায়হাকি শরিফে সঙ্কলিত এক হাদিসে হজরত সালমান ফারসি রাজিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, শাবান মাসের শেষ ভাগে একদিন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাদের উদ্দেশে ভাষণ দিলেন। বললেন, লোকেরা, তোমাদের ওপর এসে পড়েছে এক মহান মাস, বরকতময় মাস। এ মাসে একটি রাত রয়েছে যা এক হাজার মাসের চেয়ে শ্রেষ্ঠ। আল্লাহ তায়ালা এ মাসের সিয়াম ফরজ ও (ইবাদতের উদ্দেশ্যে) রাতে জেগে থাকা ঐচ্ছিক করেছেন। এতে যে ব্যক্তি কোনো নেক কাজের মাধ্যমে আল্লাহর নৈকট্য লাভের চেষ্টা করবে, তার জন্য থাকবে অন্য মাসে একটি ফরজ আদায়ের সমান প্রতিদান। আর যে ব্যক্তি এতে একটি ফরজ আদায় করবে, তার জন্য থাকবে অন্য মাসের সত্তরটি ফরজ আদায়ের সমান প্রতিদান। যে ব্যক্তি কোনো রোজাদারকে ইফতার করাবে, তার জন্য রয়েছে পাপ মোচন ও জাহান্নাম থেকে মুক্তি এবং রোজাদারের মতোই তাকে প্রতিদান দেয়া হবে; কিন্তু রোজাদারের প্রতিদান কমানো হবে না। প্রশ্ন করা হলো- হে আল্লাহর রাসূল, রোজাদারকে ইফতার করানোর মতো সামর্থ্য আমাদের প্রত্যেকের নেই। তিনি বললেন, যে কেউ কোনো রোজাদারকে একটু দুধ, একটি খেজুর কিংবা একটু পানীয় দিয়ে ইফতার করাবে, তাকেই আল্লাহ তায়ালা এ প্রতিদান দেবেন। আর যে ব্যক্তি কোনো রোজাদারকে তৃপ্ত করে আহার করাবে, আল্লাহ তায়ালা তাকে হাউজে কাউছার থেকে পানি পান করাবেন। এ মাসের প্রথম ভাগে রহমত, মধ্য ভাগে মাগফিরাত ও শেষ ভাগে রয়েছে জাহান্নাম থেকে মুক্তি। এটা ধৈর্যের মাস। আর ধৈর্যের প্রতিদান জান্নাত। এটা সমবেদনার মাস। এ মাসে মুমিনের রিজিক বাড়িয়ে দেয়া হয়। যে ব্যক্তি তার অধীনস্থের কাজের ভার লাঘব করবে, আল্লাহ তাকে ক্ষমা করবেন এবং জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেবেন। তিরমিজি শরিফে বর্ণিত আছে, মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আরো ইরশাদ করেছেন, রমজান মাস শুরু হলে জান্নাতের দরজাগুলো খুলে দেয়া হয়; সারা মাস তা আর বন্ধ করা হয় না। জাহান্নামের দরজাগুলো বন্ধ করা হয়; সারা মাস তা আর খোলা হয় না। আল্লাহর পক্ষ থেকে ঘোষণা করা হয়, হে কল্যাণ অন্বেষণকারী, তুমি অগ্রসর হও। আর হে অকল্যাণ অন্বেষণকারী, তুমি নিবৃত্ত হও। মাহে রমজানের এসব কল্যাণ লাভ ও কর্তব্য পালনে অঙ্গীকারবদ্ধ হওয়া আজ সবার একান্ত কর্তব্য।

জেনে নিন কত নম্বর সতর্ক সংকেতে কি হয়?


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ১ নম্বর দূরবর্তী সতর্ক সংকেত : এর অর্থ বঙ্গোপসাগরের কোন একটা অঞ্চলে ঝড়ো হাওয়া বইছে এবং সেখানে ঝড় সৃষ্টি হতে পার। (একটি লাল পতাকা) ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত : সমুদ্রে ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি হয়েছে। ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত : এর অর্থ বন্দর দমকা হাওয়ার সম্মুখীন (দুইটি লাল পতাকা)। ৪ নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত : এর অর্থ বন্দর ঝড়ের সম্মুখীন হচ্ছে, তবে বিপদের আশঙ্কা এমন নয় যে চরম নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। ৫ নম্বর বিপদ সংকেত : এর অর্থ হচ্ছে অল্প বা মাঝারী ধরনের ঘূর্ণিঝড়ের কারণে বন্দরের আবহাওয়া দুর্যোগপূর্ণ থাকবে এবং ঝড়টি চট্টগ্রাম বন্দরের দক্ষিণ দিক দিয়ে উপকূল অতিক্রম করতে পারে (মংলা বন্দরের বেলায় পূর্ব দিক দিয়ে)। ৬ নম্বর বিপদ সংকেত : এর অর্থ হচ্ছে অল্প বা মাঝারী ধরনের ঝড় হবে এবং আবহাওয়া দুযোগপূর্ণ থাকবে। ঝড়টি চট্টগ্রাম বন্দরের উত্তর দিক দিয়ে উপকূল অতিক্রম করতে পারে। (মংলা বন্দরের বেলায় পশ্চিম দিক দিয়ে)। ৭নং বিপদ সংকেত : এর অর্থ অল্প অথবা মাঝারী ধরনের ঘূর্ণিঝড় হবে এবং এজন্য আবহাওয়া দুর্যোগপূর্ণ থাকবে। ঘূর্ণিঝড়টি সমুদ্রবন্দরের খুব কাছ দিয়ে অথবা উপর দিয়ে উপকূল অতিক্রম করতে পারে। (তিনটি লাল পতাকা) ৮ নং মহাবিপদ সংকেত : এর অর্থ প্রচণ্ড ঘূর্ণিঝড় হবে এবং বন্দরের আবহাওয়া খুবই দুর্যোগপূর্ণ থাকবে। ঝড়টি চট্টগ্রাম বন্দরের দক্ষিণ দিক দিয়ে উপকূল অতিক্রম করতে পারে (মংলা বন্দরের বেলায় পূর্ব দিক দিয়ে)। ৯ নম্বর মহাবিপদ সংকেত : এর অর্থ প্রচণ্ড ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বন্দরের আবহাওয়া দুর্যোগপূর্ণ থাকবে। ঘূর্ণিঝড়টি চট্টগ্রাম বন্দরের উত্তর দিক দিয়ে উপকূল অতিক্রম করার আশঙ্কা রয়েছে (মংলা বন্দরের বেলায় পশ্চিম দিক দিয়ে)। ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত : এর অর্থ প্রচণ্ড ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বন্দরের আবহাওয়া দুর্যোগপূর্ণ থাকবে এবং ঘূর্ণিঝড়টির বন্দরের খুব কাছ দিয়ে অথবা উপর দিয়ে উপকূল অতিক্রম করতে পারে। ১১ নম্বর যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হওয়ার সংকেত : এর অর্থ ঝড় সতর্কীকরণ কেন্দ্রের সাথে সমস্ত যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়েগিয়েছে এবং স্থানীয় অধিকর্তার বিবেচনায় চরম প্রতিকূল আবহাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

৩৮ বছরে একদিনও ছুটিই নেননি শিক্ষক বাহাজ

৩৮ বছরে একদিনও ছুটিই নেননি শিক্ষক বাহাজ

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: মানুষ গড়ার কারিগর শিক্ষক। একজন শিক্ষকের ধ্যান-জ্ঞান থাকে শিক্ষা, শিক্ষার্থী, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও দেশ। মানুষকে শিক্ষার আলোয় আলোকিত করে দেশকে এগিয়ে নেয়ার ব্রতই প্রকৃত শিক্ষকের কাজ।

এদিকে থেকে টাঙ্গাইলের সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মধুপুর শহীদ স্মৃতি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বাহাজ উদ্দিন ফকির (৬০) সফল। শিক্ষকতার ৩৮ বছরে তিনি একদিনের জন্যও প্রাপ্য ছুটি ভোগ করেননি।

অথচ এই মহান ব্যক্তির জীবনে এসেছে বুধবার, শেষ কর্মদিবস। এরপর থেকে বাহাজ উদ্দিনকে আর ছুটি নিয়ে ভাবতেই হবে না। ত্যাগী ও নিঃস্বার্থ এই মহান শিক্ষক ৩৮ বছরে নিজেকে উজাড় করে দায়িত্ব পালন করেছেন। শুক্রবার ও নির্দিষ্ট ছুটি বাদে প্রতিদিনই তিনি বিদ্যালয়ে উপস্থিত থেকেছেন।

এমনকি বাবার মৃত্যু, নিজের বিয়ে, স্ত্রীর অসুস্থতা, সন্তানের জন্ম, পারিবারিক সমস্যা বা প্রাকৃতিক দুর্যোগ- কোনো কিছুই বাহাজ উদ্দিনের বিদ্যালয়ে আসার পথে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি। এজন্য বাহাজ উদ্দিনকে তার বিদ্যালয় সম্মানিত করেছে, পুরস্কার দিয়েছে। এসব ঘটনা নিয়ে গণমাধ্যমেও প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

বাহাজ উদ্দিন ফকির এ প্রতিবেদকের কাছে ছুটিহীন ৩৮ বছরের স্মৃতিচারণ করেছেন। কথা বলার সময় তিনি বারবার ফিরে যাচ্ছিলেন পেছনের দিকে।

স্মৃতি রোমন্থনে বাহাজ ফকির জানান, মধুপুর উপজেলার গোপদ গ্রামে কৃষক পরিবারে ১৯৫৭ সালের ১ জুন তার জন্ম। টানাটানির সংসার বলে ষষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ার সময় টিউশনি শুরু করেন।

পরিবার ও নিজের খরচ যোগাড়ের মাধ্যমে খুব কষ্টে ১৯৭৩ সালে মধুপুর রাণী ভবানী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, ১৯৭৫ সালে মধুপুর কলেজ থেকে এইচএসসি ও ১৯৭৭ সালে ধনবাড়ী ডিগ্রি কলেজ থেকে বিএ পাস করেন তিনি।

১৯৭৯ সালে ২২ বছর বয়সে বাহাজ ফকির তৎকালীন শহীদ স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। এরপর ১৯৮৮ সালে বিএড করেন। পরে ইংরেজি শিক্ষক হিসেবে সিপিডি-১ ও সিপিডি-২ প্রশিক্ষণ নেন।

১৯৯০ সালের কথা, ঈদের ছুটিতে জামালপুরের মাদারগঞ্জ উপজেলার গুণারীতলা গ্রামের মরহুম কাদের চেয়ারম্যানের মেয়ে শামসুন্নাহারের সঙ্গে তার বিয়ের আয়োজন হয়। বিয়ে হওয়ার পর পারিবারিক আনুষ্ঠানিকতায় বিদ্যালয় চালুর পরের দিন শ্বশুর বাড়িতে অনুষ্ঠান। বিদ্যালয়ের চার ক্লাস পর ছুটি নিয়ে বাহাজ চললেন শ্বশুর বাড়ি। রাত ১২টায় পৌঁছে ভোরে আবার ফিরতি যাত্রা স্কুলের পথে।

বেলা ১১টায় এসে ক্লাস ধরেছেন। ১৯৯১ সালের জুলাইয়ের কোনো এক শুক্রবার, স্ত্রী শামসুন্নাহার সন্তানসম্ভবা। তাকে নিয়ে পরের দিন কাক ডাকা ভোরে বাহাজ মধুপুর ফিরবেন। উদ্দেশ্য, বিদ্যালয়ে ক্লাস ধরা।

হঠাৎ শুনলেন, হরতাল না কি যেন কারণে যান চলাচল বন্ধ। শ্বশুরালয় থেকে একটি সাইকেল নিয়ে তার পেছনে স্ত্রীকে বসিয়ে ছুটলেন বাহাজ। ছুটছেন তো ছুটছেন আর ঘড়ি দেখছেন। পথ যেন ফুরায় না। ততক্ষণে সকাল ১০টা বেজে গেজে। ১১টায় তার ক্লাস। সাইকেলের গতি বাড়ালেন বাহাজ, ১১টার কাছাকাছি সময়ে স্ত্রীকে রিকশায় বাড়ির পথে তুলে দিয়ে তিনি কয়েক মিনিট আগেই ক্লাসে পৌঁছান।

বাহাজ উদ্দিন জানান, প্রথম সন্তানের জন্ম হয়েছিল শ্বশুরালয়ে এবং সেটি বিদ্যালয় চালুর দিনে। শুক্রবারের অপেক্ষায় থেকে তিনি সন্তানের মুখ দেখেন।

বাবা আব্দুল হামিদ ফকির ২০০৩ সালের ২৭ জুন মারা যান, সেদিন ছিল শুক্রবার। কিন্তু কর্তব্যপরায়ণ এই শিক্ষক শোক মাথায় নিয়ে পরের দিনই ক্লাসে পড়িয়েছেন।

জীবনের এসব স্মৃতি আজ বাহাজ ফকিরকে বড্ড স্পর্শ করছে। তিনি জানান, শিক্ষকতা শুরুর বছর বিদ্যালয়ের অপর দুই শিক্ষক শেখ আব্দুল জলিল ও আব্দুর রশিদ সারা বছরে এক দিনও ছুটি না ভোগ করায় পুরস্কৃত ও সম্মানিত হন। তা থেকেই উদ্ধুদ্ধ হই।

তিনি বলেন, আজ তাকেই অনেকে অনুসরণ করছেন। তার তিন সন্তানও অনুপস্থিত না থাকার প্রতিযোগিতা করে এগিয়ে গেছে। সহকর্মী ও কর্মচারীরা অনুসরণ করে পুরস্কার গ্রহণ অব্যাহত রেখেছেন।

একটি ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে বাহাজ উদ্দিন বলেন, গণমাধ্যমে আমাকে নিয়ে খবর দেখে খুলনার শিক্ষানুরাগী (বর্তমানে রাজধানীর বাসিন্দা) ও ব্যবসায়ী কুতুব উদ্দিন দেখা করতে ছুটে আসেন। সেদিন তিনি শিক্ষার্থীদের জন্য খেলার সামগ্রী ও চকলেট আনেন।

পরে কুতুব উদ্দিন বাহাজ ফকিরের মাধ্যমে পাশের প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ শহীদ স্মৃতির সংস্কার কাজ করে দেন। দুই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় চার হাজার শিক্ষার্থীকে স্কুল ব্যাগ ও টিফিন বক্স উপহার দেন।

কানাডা প্রবাসী দেলোয়ার হোসেন শাবান ও যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী শর্মিলা আহমেদের কাছ থেকে কুতুব উদ্দিন ওই দুই বিদ্যালয়ে দু'টি কম্পিউটার ল্যাবরেটরি নির্মাণসহ আসবাব উপহার দেন। এভাবে কুতুব উদ্দিন প্রায় ২৫ লাখ টাকা শিক্ষাখাতে ব্যয় করেন মূলত বাহাজ ফকিরের কর্মকাণ্ডে মুগ্ধ হয়ে।

তবে এখানেই কুতুব উদ্দিন ক্ষ্যান্ত হননি। তিনি খুলনার কসবায় এক শিক্ষক সমাবেশে আমন্ত্রণ জানিয়ে বাহাজ উদ্দিনকে নিয়ে গিয়ে সম্মানিত করেন। বিশ্ব শিক্ষক দিবসে মাগুরার নোমানী ময়দানে বিশেষ আলোচক হয়েও যোগদান করেছেন এই শিক্ষক।

মাগুরার আমুরিয়ায় ডা. আবুল কাশেম শিক্ষা ফাউন্ডেশন বাহাজ ফকিরকে সংবর্ধনা এবং আজীবন সদস্য পদ দিয়েছে। এটি পেয়ে গর্বিত বাহাজ।

৩০ বছরের শিক্ষকতা জীবনের হিসাব থেকে প্রাপ্য ৬০০ দিনের ছুটি ভোগ না করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন বাহাজ উদ্দিন। ৭৬০ দিনের প্রাপ্য ছুটির একদিনও তিনি ভোগ করেননি।

এ বিষয়ে বাহাজ ফকিরের বক্তব্য, 'দেশকে এগিয়ে নিতে ওই ছুটির দিনগুলোকে আমি ব্যবহার করা প্রয়োজন মনে করেছি।' এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, 'মনে করতে চাই না, আজ আমার কর্মজীবনের শেষ দিন। শেষ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করতে পেরেছি, এজন্য আল্লাহর কাছে হাজার শুকরিয়া।'

বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ বজলুর রশিদ খান বলেন, 'বাহাজ উদ্দিন ফকিরের এ ত্যাগ সত্যি বিরল ও অনুসরণ যোগ্য। তার অবদান বিদ্যালয় সংশ্লিষ্টরা আজীবন কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করবে।'

সূত্র: যুগান্তর

দিনাজপুর বোর্ডে ৩৯১ পরীক্ষার্থীর ফল পরিবর্তন

দিনাজপুর বোর্ডে ৩৯১ পরীক্ষার্থীর ফল পরিবর্তন

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: দিনাজপুর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের অধীনে চলতি ২০১৭ সালের এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল পুনঃনিরীক্ষণের ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। এতে পরিবর্তন হয়েছে ৩৯১ পরীক্ষার্থীর ফলাফল।

এর মধ্যে ৫৮ জন নতুন করে জিপিএ-৫ পেয়েছে এবং ফেল থেকে পাস করেছে ৭২ জন।

গতকাল মঙ্গলবার রাতে এ ফলাফল প্রকাশ করা হলেও পাওয়া গেছে আজ বুধবার।

দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক তোফাজ্জুর রহমান জানান, এই শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ২০১৭ সালে মোট ১ লাখ ৬৩ হাজার ৫৭২ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে পাস করে ১ লাখ ৩৭ হাজার ৩৬২ জন। এবার জিপিএ-৫ পায় মোট ৬ হাজার ৯২৯ জন পরীক্ষার্থী।

গত ৪ মে এই ফলাফল প্রকাশের পর মোট ৩৭ হাজার ৩৯৮ জন পরীক্ষার্থী ফলাফল চ্যালেঞ্জ করে দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডে আবেদন করে। এর মধ্যে ৩৯১ জন পরীক্ষার্থীর ফল পরিবর্তন হয়েছে। পরিবর্তিত ফল অনুযায়ী জিপিএ-৫ পেয়েছে আরো ৫৮ জন এবং ফেল থেকে পাস করেছে মোট ৭২ জন।

এর ফলে দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডে ২০১৭ সালের এসএসসি পরীক্ষায় মোট পাসের সংখ্যা দাঁড়ালো ১ লাখ ৩৭ হাজার ৪৩৪ জন। আর মোট জিপিএ-৫ প্রাপ্ত পরীক্ষার্থীর সংখ্যা দাঁড়ালো ৬ হাজার ৯৮৭ জন।
সূত্র: বিডি লাইভ্।

হাজার গুণ শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিক তৈরি

হাজার গুণ শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিক তৈরি

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: অাগের দিনের চেয়ে রোগের পরিমাণ বেড়ে গেছে অনেক। আবার রোগজীবাণুরা হয়েছে আগের চেয়ে অনেক শক্তিশালী। আর এসব জীবাণুদের ধ্বংস করতে সাধারণ ওষুধের পাশাপাশি অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করেন চিকিৎসকরা।

এবার হাজার গুণ শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিক তৈরি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের একদল চিকিৎসা বিজ্ঞানী। একটি গুরুত্বপূর্ণ অ্যান্টিবায়োটিকের নকশা অদলবদল করে সেটিকে অনেক বেশি শক্তিশালী রূপ দিয়েছেন।

তারা দাবি করছেন, এটি পুরোনো ওষুধটির চেয়ে এক হাজার গুণ বেশি কার্যকারিতা দেখাবে। ফলে বিশ্বের সবচেয়ে বিপজ্জনক রোগজীবাণু দমন করতে পারবে সহজেই।

পুরোনো ওষুধটির নাম ভ্যানকোমাইসিন। এটির নতুন রূপ অতি-কঠিন বা খুব শক্ত। এটির প্রস্তুতির বিস্তারিত বিবরণ প্রসিডিংস অব দ্য ন্যাশনাল একাডেমি অব সায়েন্সেস সাময়িকীতে প্রকাশিত হয়েছে। এতে বলা হয়, নতুন অ্যান্টিবায়োটিকটি তিনটি ভিন্ন উপায়ে রোগজীবাণুর বিরুদ্ধে লড়াই করে। ফলে এটির বিরুদ্ধে ব্যাকটেরিয়ার টিকে থাকা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে। অবশ্য জীবজন্তু ও মানুষের ওপর ওষুধটি প্রয়োগ করে দেখার কাজটা এখনো বাকি।

প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে বছর পাঁচেকের মধ্যে ওষুধটি প্রয়োগের জন্য তারা পুরোপুরি প্রস্তুত করতে পারবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন অ্যান্টিবায়োটিকটির গবেষণায় যুক্ত স্ক্রিপস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের গবেষক দল।

সূত্র: বিবিসি

ওজনের সাথে মিলিয়ে পানি পান করুন

ওজনের সাথে মিলিয়ে পানি পান করুন

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সুস্থ থাকার জন্য যে পর্যাপ্ত পানি খাওয়া প্রয়োজন সে কথা কারও অজানা নয়। তবুও অনেক সময়ই আমরা নিজেদের হাইড্রেটেড রাখার জন্য প্রয়োজনীয় পানি পান করি না। ফলে কিডনির সমস্যা, ডিহাইড্রেশনের মতো নানা রকম সমস্যা হতে থাকে।

সাধারণভাবে বলা হয়, সুস্থ থাকতে সঠিক ওজন বজায় রাখতে দিনে ৩ লিটার পানি পান প্রয়োজন। তবে এই হিসাবটা গড় মাত্র। এই হিসাব কিন্তু মোটেই সকলের জন্য নয়। তাই সুস্থ থাকার জন্য দিনে ৩ লিটার পানি খেতেই হবে নিজেকে এমন চাপ দেওয়ারও কোনো প্রয়োজন নেই।

সাধারণভাবে ৩ লিটার পানি শরীরের জন্য বেশিই। আপনার শরীরের ওজনই বলে দেবে কতটা পানি পান যথেষ্ট।

নিজের সঠিক ওজন জেনে নিন। প্রতিদিন আপনার কতটা পানি পান প্রয়োজন তা জানতে হলে আগে নিজের প্রকৃত ওজন জানা দরকার।

আপনার ওজনের উপরই নির্ভর করবে কতটা জল খেতে হবে। অর্থাৎ যদি আপনার ওজন ৪৫ কেজি হয়, তা হলে যতটা জল খাওয়া প্রয়োজন, ওজন ৯০ কেজি হলে বদলে যাবে সেই পরিমাণ।

ওজনের সাথে মিলিয়ে পানি পানের পরিমাণ জানার উপায়:

আপনার ওজন যা হবে তা দুই দিয়ে ভাগ করুন। যেমন আপনার ওজন যদি হয় ১৭০ পাউন্ড (৭৭ কিলোগ্রাম) হয়, তা হলে আপনাকে ১৭০/২=৮৫ আউন্স (২.৫ লিটার) পানি খেতে হবে প্রতিদিন।

এ ছাড়াও আপনার অ্যাক্টিভিটি লেভেল, অর্থাৎ আপনি সারা দিন কতটা সক্রিয়া থাকছেন, কতটা পরিশ্রম করছেন তার উপরও নির্ভর করবে আপনার পানি পানের পরিমাণ। কারণ কায়িক পরিশ্রম যত বেশি হবে, তত বেশি ঘাম হবে ও শরীর থেকে পানি বেরিয়ে যাবে।

প্রতি ৩০ মিনিট কাজের জন্য ১৬ আউন্স (৪৭৩ মিলি) পানি খাওয়া উচিত। অর্থাৎ ওজন অনুযায়ী যতটা পানি পান প্রয়োজন তার সঙ্গে যোগ হবে শরীরচর্চার জন্য প্রয়োজনীয় পানি।

চীনেও আয়ের রেকর্ড গড়ল 'দঙ্গল'

চীনেও আয়ের রেকর্ড গড়ল 'দঙ্গল'

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: আমির খানের 'দঙ্গল' প্রতিবেশী দেশ চীনেও আয়ের রেকর্ড গড়েছে। চীনের সিনেমার ইতিহাসে ৩৩ তম ছবি হিসেবে ১০০ কোটি আরএমবি অর্থাৎ ভারতীয় মুদ্রায় ১০০০ কোটি টাকার ব্যবসা করে ফেলেছে।

গত ৫ মে চীনে মুক্তি পায় দঙ্গল। চীনের একটি জনপ্রিয় টিকেটিং ওয়েবসাইট মাওয়ান-এর তথ্য মতে, এ পর্যন্ত দেশটিতে ১ বিলিয়ন ইউয়ান অর্থাৎ ১ হাজার কোটি রুপি আয় করেছে এ সিনেমা। এখনও চীনের ৯০০০ পর্দায় চলছে ‘দঙ্গল’। চীনে আমিরের এই সিনেমার সাফল্য ভারতীয় সিনেমার জন্য অনন্য মাইলফলক বলে জানান ভারতের চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা।

বক্স অফিসের পাশাপাশি দঙ্গল সিনেমার মাধ্যমে চীনে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন আমির খান। বর্তমানে চীনের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সবচেয়ে জনপ্রিয় ভারতীয় তারকা তিনি।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ২৩ ডিসেম্বর ভারতে মুক্তি পায় নিতেশ তিওয়ারির স্পোর্টস ড্রামা দঙ্গল। ভারতীয় কুস্তিগীর মহাবীর ফোগাট এবং তার মেয়ে গীতা ও ববিতার ২০১০ সালে অনুষ্ঠিত কমনওয়েলথ গেমসের পদক জয়ের ঘটনা নিয়ে তৈরি হয়েছে দঙ্গল সিনেমাটি। এখন পর্যন্ত ১৭০০ কোটির রুপি উপরে আয় করেছে সিনেমাটি।

শুরুর ঝড় ঠেকানো দায়

শুরুর ঝড় ঠেকানো দায়

শুভ শুভ্র: নতুন বলে শুরুতে ব্যাটিং অর্ডারে বিপর্যয় নামতে পারে। ইংল্যান্ডের কন্ডিশন সেই আভাস দিচ্ছে। জুন মাস হলেও এই সময় পেসাররা নতুন বলে অহরহ সুইং পান। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির উদ্বোধনী দিনে বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড ম্যাচে টপঅর্ডার ব্যাটসম্যানদের তাই চিন্তায় থাকতে হবে বলে মনে করছে এএফপি।

ম্যাচের আগের দিন এএফপি তাদের এক সংবাদে বলছে, প্রস্তুতি ম্যাচের চিত্র দেখেই বোঝা যায় শুরুতে বোলাররা কতটা ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে। প্রস্তুতি ম্যাচের বাইরে আন্তর্জাতিক ম্যাচের অবস্থাও একই রকম। সিরিজের শেষ ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ইংল্যান্ড পাঁচ ওভারে ২০ রান তুলতে ছয় উইকেট হারায়। ওয়ানডের ইতিহাসে সবচেয়ে বাজে শুরু এটি। এরপর বাংলাদেশ-ভারতের প্রস্তুতি ম্যাচেও একই কাণ্ড ঘটে। বাংলাদেশ ৪৬ রান তুলতে ৭ উইকেট হারায়।

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে উইকেট অতটা পেস সহায়ক না হলেও নতুন বলে ব্যাটসম্যানদের বিপাকে পড়তে হবে।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে তিনটায় মুখোমুখি হবে দুই দল। ইংল্যান্ডে তখন সকাল। এই সময়ে উইকেটে পেসাররা সুবিধা পাবেন। 
সূত্র: বিডি লাইভ।

'১৫ ফেব্রুয়ারি ও ৫ জানুয়ারির মতো নির্বাচন আর নয়'

'১৫ ফেব্রুয়ারি ও ৫ জানুয়ারির মতো নির্বাচন আর নয়'
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: আওয়ামী লীগের বর্জনের মুখে ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি আর বিএনপির বর্জনের মুখে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মত একতরফা নির্বাচন দেখতে চান না প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা। ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মার্শা স্টিফেনস ব্লুম বার্নিকাটের সঙ্গে সাক্ষাতে তিনি এ কথা বলেন।

বুধবার নির্বাচন কমিশনে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন বার্নিকাট। এরপর তাদের বৈঠকের বিষয়বস্তু সম্পর্কে সাংবাদিকদের জানান নির্বাচন কমিশনের সচিব মো. আবদুল্লাহ।

তিনি বলেন, ‘আমরা দুই পক্ষই একমত হয়েছি যে ১৫ ফেব্রুয়ারি ও ৫ জানুয়ারি মতো নির্বাচন আর নয়। আর যেন এ রকম না হয়, সে জন্যই সবার চেষ্টা থাকবে।’

তিনি আরো বলেন, সবাইকে মাঠে আনাই সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। আলোচনায় ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের প্রসঙ্গ এসেছে। বড় দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করার ফলে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

মার্শা বার্নিকাট ও ইউএসএআইডির একটি প্রতিনিধিদল বুধবার দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটে নির্বাচন কমিশনে আসেন। প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে প্রায় দেড় ঘণ্টা আলোচনার পর সোয়া দুইটার দিকে বের হন মার্শা।

এ সময় তিনি জানান, একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য সব ধরনের সহযোগিতা করতে প্রস্তুত যুক্তরাষ্ট্র।

মার্শা বার্নিকাট বলেন, 'সবার অংশগ্রহণ শুধু নির্বাচনের দিন হলে হবে না'। প্রার্থীরা যেন সুষ্ঠুভাবে নিবন্ধন করতে পারেন, প্রচারণা চালাতে পারেন এবং ভোটের দিন সাধারণ মানুষ যেন এই আত্মবিশ্বাস নিয়ে ভোটকেন্দ্রে যেতে পারেন যে তাঁর ভোটটি গণনা হবে।

বাংলাদেশের অনেক ভালো ও কম ভালো নির্বাচনের ইতিহাস রয়েছে। আমি সম্মানিত প্রধানমন্ত্রীকে উদ্ধৃত করে বলতে চাই, তিনি বলেছেন, আগামী নির্বাচন যেন সব ধরনের প্রশ্নের ঊর্ধ্বে হয়, সেটাই তিনি চান।

উল্লেখ্য, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির ষষ্ঠ সংসদ নির্বাচন বর্জন করে আওয়ামী লীগ। আর এক তরফা নির্বাচন করে ক্ষমতায় আসা বিএনপি টিকতে পারেনি দুই সপ্তাহও। আর ওই বছরের ১২ জুনের নির্বাচনে জিতে ২১ বছর পর ক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগ।

১৮ বছরের মধ্যে উল্টোচিত্র দেখা যায় বাংলাদেশে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বিএনপি বর্জন করে তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাতিলের দাবিতে। আর একতরফা নির্বাচন করে জিতে এসে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় গত প্রায় সাড়ে তিন বছর ধরে। 
সূত্র : বিডি লাইভ।

মোরায় নিখোঁজদের উদ্ধারে ভারতীয় নৌবাহিনী

মোরায় নিখোঁজদের উদ্ধারে ভারতীয় নৌবাহিনী

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ঘূর্ণিঝড় মোরার আঘাতে বঙ্গোপসাগরে নিখোঁজ হওয়া ব্যক্তিদের উদ্ধারে মানবিক তৎপরতা চালাচ্ছে ভারতের নৌবাহিনী। ঢাকায় ভারতীয় হাইকমিশনের একটি সূত্রে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় মোরা কক্সবাজার উপকূল পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশ ত্যাগের একদিন পর এ অভিযানের খবর আসলো।

ঢাকায় ভারতীয় হাই কমিশনের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে দেয়া তথ্য অনুযায়ী ভারতীয় নৌ-বাহিনীর জাহাজ আইএনএস সুমিত্রা এ অভিযান চালাচ্ছে মহেশখালী উপকূলে। ওই পোস্টে জাহাজটিকে ত্রাণবাহী হিসেবেও উল্লেখ করা হয়েছে।

সূত্রে জানানো হয়, অভিযানে ইতিমধ্যে ১০ ব্যক্তি উদ্ধার হয়েছেন। জাহাজটিতে ত্রাণসামগ্রী আছে। উদ্ধার তৎপরতা শেষ হলে ত্রাণ নিয়ে চট্টগ্রামে আসবে আইএনএস সুমিত্রা। 
সূত্র: বিডি লাইভ।

মোরায় ক্ষতিগ্রস্ত ১৬ জেলার ২ লক্ষাধিক মানুষ

মোরায় ক্ষতিগ্রস্ত ১৬ জেলার ২ লক্ষাধিক মানুষ

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ঘূর্ণিঝড় মোরায় দেশের উপকূলীয় ১৬ জেলার ২ লাখ ৮৬ হাজার মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়।

কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, ফেনী, লক্ষ্মীপুর, চাঁদপুর, বরিশাল, পিরোজপুর, পটুয়াখালী, ভোলা, ঝালকাঠি, বরগুনা, খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট ও রাঙামাটির ৩১ উপজেলার ১০৬টি ইউনিয়ন ঘূর্ণিঝড় মোরায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এসব এলাকার ৫৪ হাজার ৪৮৯টি পরিবারের ২ লাখ ৮৬ হাজার ২৪৫ জন মানুষ ক্ষতির শিকার হয়েছেন। ১৯ হাজার ৯২৯টি ঘরবাড়ি সম্পূর্ণ এবং ৩৯ হাজার ৫৯৯টি ঘরবাড়ি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতি হয়েছে এক হাজার ৫৯২ একর জমির পানের বরজের।

বুধবার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে ক্ষয়ক্ষতির এই চিত্র তুলে ধরেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিবের দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত সচিব গোলাম মোস্তফা।

ঘণ্টায় একশ কিলোমিটারের বেশি গতির বাতাস নিয়ে মঙ্গলবার ভোরে কক্সবাজার-চট্টগ্রাম উপকূলে আঘাত হানে প্রবল ঘূর্ণিঝড় মোরা। এরপর প্রায় ছয় ঘণ্টা উপকূলীয় এলাকায় তাণ্ডব চালিয়ে দুর্বল হয়ে সেটি স্থল নিম্নচাপে পরিণত হয়।

গোলাম মোস্তফা জানান, ঘূর্ণিঝড়ে মোট ছয়জনের মৃত্যুর খবর তারা পেয়েছেন। এর মধ্যে কক্সবাজারে চারজন এবং রাঙামাটিতে দুই জন। নিহত সবার পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা করে দেওয়া হয়েছে, প্রয়োজনে আরও সহায়তা দেওয়া হবে বলে আশ্বাস দেন অতিরিক্ত সচিব।

বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলা: অভিযুক্ত ৩ শীর্ষ বিজেপি নেতা

বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলা: অভিযুক্ত ৩ শীর্ষ বিজেপি নেতা

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ভারতের এক বিশেষ আদালত বাবরি মসজিদ ধ্বংসের অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের দায়ে ক্ষমতাসীন দল বিজেপির কয়েকজন শীর্ষস্থানীয় নেতাকে অভিযুক্ত করেছে।

অভিযুক্তদের মধ্যে রয়েছেন বিজেপির সাবেক প্রধান লাল কৃষ্ণ আদভানি এবং অন্য দু’জন নেতা মুরলী মনোহর যোশি ও উমা ভারতী।

তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৯২ সালে বাবরি মসজিদ ধ্বংসের জন্য এরা উগ্রপন্থী হিন্দুদের প্রতি উস্কানিমূলক বক্তব্য দিয়েছিলেন। এরা সবাই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। ওই ঘটনার পর ভারত জুড়ে যে দাঙ্গা বাঁধে তাতে প্রায় দুই হাজার মানুষ মারা যায়।

হিন্দুরা দাবি করে বাবরি মসজিদ যে জায়গাটিতে অবস্থিত সেখানে হিন্দুদের অন্যতম দেবতা রামের জন্ম হয়েছিল।
কিন্তু ১৬শ’ শতকে ঐ এলাকায় মুসলিম আগ্রাসনের পরে হিন্দু মন্দিরটি ভেঙ্গে সেই জায়গায় মসজিদ নির্মাণ করা হয়।

ভারতের কেন্দ্রীয় তদন্ত ব্যুরো সিবিআই বরাবরই বলে আসছে যে রীতিমত পরিকল্পনা করেই মসজিদটি ভাঙা হয়েছিল। গত এপ্রিল মাসে সুপ্রিম কোর্টের এক আদেশের পর এই বিশেষ আদালত গঠন করা হয়।

আদালত তার রায়ে বলেছে, এই মসজিদটি ধ্বংসের দায়দায়িত্ব বিজেপির এই তিনজন শীর্ষ নেতাকে গ্রহণ করতেই হবে।

ব্রাজিলের প্রেসিডেন্টকে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দিলো আদালত

ব্রাজিলের প্রেসিডেন্টকে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দিলো আদালত

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ব্রাজিলের সুপ্রিম কোর্ট মঙ্গলবার প্রেসিডেন্ট মিশেল তিমারকে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দিয়েছে। আদালতের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্টকে ২৪ ঘন্টার মধ্যে একটি মামলার ব্যাপারে ফেডারেল পুলিশের প্রশ্নের জবাব দিতে হবে। এই মামলায় ব্রাজিলের বৃহত্তম মাংস প্যাকেটজাতকারি কোম্পানি জেবিএস জড়িত।

আদালত জানিয়েছে, পুলিশ এ ব্যাপারে তদন্ত চালাচ্ছে। তাই তেমেরের সাক্ষ্য জরুরি।

স্থানীয় পত্রিকা ও গ্লোবো’র প্রতিবেদনে বলা হয়, একজন জ্যেষ্ঠ ব্যবসায়ীর সাথে তেমারের কথোপকথনের রেকর্ড রয়েছে তাদের কাছে। প্রেসিডেন্ট দুর্নীতি মামলার সাক্ষী রাজনীতিবিদ এদুয়ার্দো চুনহার মুখ বন্ধ করতে অর্থ দেয়ার জন্য ওই ব্যবসায়ীকে বলেছিলেন। দুর্নীতি, অর্থপাচার এবং কর ফাঁকি দেয়ার দায়ে গত মার্চে কারাগারে পাঠানো হয় চুনহাকে।

ও গ্লেবোর প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, ব্রাজিলের বৃহত্তম মাংস প্যাকেটজাতকারী কোম্পানি জেবিএসের চেয়ারম্যান জয়েসলি বাতিস্তা ও প্রধান নির্বাহী ওয়েসলি বাতিস্তা একটি গোপন কথোপকথনের রেকর্ডিং উপস্থাপন করেছেন, যেখানে দেশটির সবচেয়ে বড় দুর্নীতির তদন্তে ব্রাজিল কংগ্রেসের নিম্নকক্ষের সাবেক স্পিকার কুনহাকে ঘুষ দেয়ার প্রস্তাবে তেমের সমর্থন করেছেন বলে প্রমাণ আছে।

দণ্ড হ্রাসের আবেদনে কৌঁসুলিদের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়ার সময় তারা রেকর্ডিংটি উপস্থাপন করেন বলে জানিয়েছে ও গ্লোবো।

এদিকে গোপন কথোপকথনের রেকর্ডিংয়ের খবর প্রকাশের পর প্রেসিডেন্ট মিশেল তিমারকে পদত্যাগের আহ্বান জানিয়ে রাস্তায় বিক্ষোভ করছে হাজার হাজার লোক। প্রেসিডেন্ট তার পদত্যাগের বিষয়টি নাকচ করে দিয়েছেন।

এসে গেলো ব্লুটুথের নতুন ভার্সন

এসে গেলো ব্লুটুথের নতুন ভার্সন
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: এখন পর্যন্ত ব্লুটুথই হচ্ছে, সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং বহুল ব্যবহৃত ডাটা ট্রান্সফার প্রযুক্তি। তাছাড়া আমাদের মোবাইল ফোনের সঙ্গে অন্য কোনো ডিভাইস যুক্ত করতেও আমরা ব্লুটুথের ওপর নির্ভরশীল। সম্প্রতি ব্লুটুথ তার ভার্সন ৫ বের করেছে। যেটা স্যামসাং তার গ্যালাক্সি ৮ এ ব্যবহার করেছে।

এর আগে ব্লুটুথের ভার্সন ছিলো ৪-৪.২। ব্লুটুথের আপডেট ভার্সনগুলো অনেক নতুন নতুন ফিচার নিয়ে আসে।

নতুন এই ভার্সনের ব্লুটুথ রেঞ্জ অনেক বাড়াচ্ছে। অর্থাৎ আগে ব্লুটুথের সঙ্গে যুক্ত ডিভাইসটি আপনি যতটা দূরে রেখে ব্যবহার করতে পারতেন, এখন তার চেয়েও দূর রেখে ব্যবহার করতে পারবেন। তাছাড়া ডাটা লেনদেনও আগের চেয়ে দ্রুত সময়ে হবে।

একটা সময় ছিল, যখন মানুষ ডাটা লেনদেনের জন্য ইনফ্রারেডের ওপর নির্ভর করতো। সেটা ছিল আরো বিরক্তিকর প্রযুক্তি। একটি ডিভাইসের ইনফ্রারেডের সঙ্গে আরেকটির ইনফ্রারেডের সঙ্গে যুক্ত করতে হতো। আবার তা কোনোভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেলে ডাটা ট্রান্সফারও বিচ্ছিন্ন হয়ে যেত। এরপরই মূলত ব্লুটুথ প্রযুক্তির আবির্ভাব। যেটা মানুষকে অনেক ঝামেলা থেকে মুক্তি দিয়েছিল। মানুষ দূর থেকেই ছবি কিংবা গান শেয়ার করতে পারতো। এরপর ধীরে ধীরে তারহীন প্রযুক্তির উন্নয়নে ব্লুটুথ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

স্যামসাং গ্যালাক্সি ৮ এর ব্লুটুথ ২৬০ ফুট দূরের স্পিকারও বাজাতে সক্ষম। অথচ আগের ভার্সনে মাত্র ৬৬ ফুট দূর থেকে কাজ করা যেত।

তবে এখনই সকল ব্লুটুথ ডিভাইস ব্লুটুথ-৫ সাপোর্ট করছে না। বেশকিছু ব্লুটুথ ডিভাইস ভার্সন ৫ সাপোর্ট করবে ২০১৮ থেকে। তখন আপনি আপনার ফোন তিন তলায় রেখে ব্লুটুথ হেডসেটের সাহায্যে নিচে বসেই কথা বলতে পারবেন।

যুক্তরাজ্যে বাঘের আক্রমণে জু'কর্মী নিহত

যুক্তরাজ্যে বাঘের আক্রমণে জু'কর্মী নিহত
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: যুক্তরাজ্যের ক্যামব্রিজশায়ারে হানটিংডনের কাছে হ্যামারটন জু পার্কে স্থানীয় সময় সোমবার বেলা ১১টা ১৫ মিনিটে রোসা কিং (৩৩) নামে এক নারী কর্মী বাঘের খাঁচার ভেতরে প্রিয় বাঘের আক্রমণের শিকার হয়ে নিহত হয়েছেন।

নিহত রোসা কিংসের মা আন্দ্রেয়া কিং বলেছেন, তার মেয়ে সব সময় তার কাজকে ভালোবাসতো। বাঘের যত্নেই নিবেদিত থাকতো সে।

পুলিশ জানিয়েছে, রোসা কিংয়ের প্রাণ নেয়া বাঘটিকে হত্যা করা হয়নি এবং সেটি অক্ষতই আছে। বাঘের আক্রমণে রোসা কিংয়ের প্রাণ যাওয়ার ঘটনাকে নৈমিত্তিক দুর্ঘটনা হিসেবে বর্ণনা করেছে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ।

পুলিশও জানিয়েছে, তার মৃত্যু নিয়ে কোনো রহস্য নেই। রোসা কিংয়ের পোর্স্ট-মোর্টেম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

সূত্র : বিবিসি অনলাইন

কাশেম চৌধুরীকে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মিশকাতের অভিনন্দন


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: আবুল কাশেম চৌধুরী বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের নতুন সদস্য মনোনিত হওয়ায় তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন কানাইঘাট উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য ও কানাইঘাট ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কুয়েত প্রবাসী মোঃ হাবিব উল্লাহ (মিশকাত)। এক অভিনন্দন বার্তায় হাবিব উল্লাহ মিশকাত ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের নতুন সদস্য সহপাঠী আবুল কাশেম চৌধুরী'র দীর্ঘায়ু কামনাসহ তার রাজনৈতিক জীবনের সফলতা কামনা করেছেন।

ঝটপট নিজেকে সাজাবেন যেভাবে


ঝটপট নিজেকে সাজাবেন যেভাবে
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: দিনের বেলা বাইরে বের হলে প্রথমে চাই সানস্ক্রিনের সুরক্ষা বর্ম। তেলতেলে ভাব কাটানোর জন্য এর উপর লাগান মিনারেল পাউডার। সানকিস্ড লুক চাইলে, মিনারেল পাউডারের উপর লাগাতে হবে ব্রনজার (কপালে, চিকবোনে, নাকের ঠিক উপরের অংশে লম্বালম্বিভাবে ও চিনে)। এরপর লাগান অয়েল ফ্রি আইলাইনার ও মাসকারা।

বর্তমান সিজনে পোশাকে সাদা, বেজ, পিঙ্ক বা সবুজের স্নিগ্ধতাই বেশি়। তাই ঠোঁটে গাঢ় রঙা লিপস্টিক কিংবা উজ্জ্বল সবুজ-নীল রঙের আইলাইনার সেই রঙের ঘাটতি পূরণ করতে কার্যকর।

# মেকআপ করতে বসার আগে ঠান্ডা হয়ে বসাটা খুব দরকার। সন্ধেবেলার জন্য থাকবে অয়েল ফ্রি ময়শ্চরাইজারের টাচ। তার উপর প্রাইমার, যা ঢেকে দেবে স্কিনটোনের খুঁত। এর উপর মিনারেল পাউডার দেবে মেকআপ ফিনিশ। ঘামও হবে কম। এর উপর থাকুক ব্রনজারের ছোঁয়া। মাঝের দুটো আঙুল দিয়ে ব্লাশার লাগাতে পারেন। টান হবে নীচ থেকে উপরে। তবে শিমার ও ফাউন্ডেশন নো-নো।
Make up
# সবশেষে ওয়াটারপ্রুফ আইলাইনার ও মাসকারা এবং ঠোঁটে থাকবে মানানসই লিপস্টিক।

# এবার পোশাকের সঙ্গে মানানসই হ্যান্ডব্যাগ ও জুতা পরে নিন। ব্যাস এখন তৈরি যেকোনো জায়গায় বের হওয়ার জন্য।

কাতারে সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশি তরুণ নিহত


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: কাতারে সড়ক দুর্ঘটনায় মো. আকরাম হোসেন (২৭) নামে এক বাংলাদেশি তরুণ নিহত হয়েছেন। সোমবার (২৯ মে) রাতে কাতারের আল খোর হাইওয়ে রোডে একটি প্রাইভেটকারের ধাক্কায় ঘটনাস্থলেই তিনি নিহত হন। নিহত মো. আকরাম হোসেন চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ উপজেলার মাইটভাঙ্গা ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের মোক্তাদের জামানের ছেলে। নিহতের মরদেহ স্থানীয় দোহা হামাদ হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে। তিনি কাতারে বিন শুক গ্রুপ কোম্পানিতে কর্মরত ছিলেন। চার বছর আগে তিনি এই কোম্পানিতে চাকরি নিয়ে কাতারে আসেন। নিহতের বড় ভাই কাতার প্রবাসী ইকবাল হোসেন বলেন, ‘সোমবার ইফতার করে রাতে বাসা থেকে আল খোরে ঘুরতে বের হয় তার ভাই। রাতে বাসায় না ফেরায় ও মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়ার কারণে মঙ্গলবার সকালে কাতারের বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করি তাকে। এরপর কাতার পুলিশের সাহায্য নিলে আল খোর হামাদ হাসপাতালে তার মরদেহ পাওয়া যায়।’ তিনি বলেন, এরপর জানা যায়, ওই হাইওয়ে রোডে প্রাইভেটকারের ধাক্কায় ঘটনাস্থলেই আমার ভাইর মৃত্যু হয়। কাতার বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রথম শ্রম সচিব রবিউল ইসলাম জানান, নিহতের মরদেহ দ্রুত দেশে তাদের পরিবারের কাছে পাঠানো হবে। ধাক্কা দেয়া প্রাইভেটকারের মালিকের কাছ থেকে ক্ষতিপূরণ আদায়ের ব্যবস্থা করা হবে বলেও জানান তিনি।

কানাইঘাটে থানায় এসে ইউপি সদস্যের মাতলামি : অতঃপর শ্রীঘরে

Kanaighat News on Tuesday, May 30, 2017 | 10:44 PM


নিজস্ব প্রতিবেদক: পবিত্র রমজান মাসে মদ খেয়ে মাতাল অবস্থায় কানাইঘাট থানার ডিউটি অফিসারের কক্ষে মাতলামি করার সময় মঙ্গলবার বিকেল ২টায় কানাইঘাট রাজাগঞ্জ ইউপির ৯নং ওয়ার্ডের বর্তমান ইউপি সদস্য ফখর উদ্দিনকে আটক করে শ্রীঘরে পাঠিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়- মঙ্গলবার বিকেল ২টায় মাতাল অবস্থায় ইউপি সদস্য ফখর উদ্দিন থানার ডিউটিরত এএসআই সোলায়মান কবিরের কক্ষে এসে মাতলামি শুরু করেন। এ সময় তার মুখ থেকে মাদকের দুর্গন্ধ বের হলে ডিউটি অফিসার সোলায়মান কবির ইউপি সদস্য ফখর উদ্দিনকে আটক করে রাখেন। পরে থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আহাদের নির্দেশে ইউপি সদস্য ফখর উদ্দিনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা করা হলে মদ পান করেছে মর্মে চিকিৎসকরা ছাড়পত্র দেন। চিকিৎসা শেষে এ ইউপি সদস্যদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা করে থানা হাজতে রাখে পুলিশ। জানা গেছে- মাদক সেবনের দায়ে গ্রেফতার ইউপি সদস্য ফখর উদ্দিন একই ইউনিয়ন পরিষদের ৬নং ওয়ার্ডের সদস্য মিনহাজ উদ্দিন কর্তৃক কর্মসৃজন প্রকল্পের কাজ এস্ক্রেভেটর দিয়ে করে ভূয়া শ্রমিকের তালিকা তৈরি করে ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলনের চেষ্টা এবং কর্মসৃজন প্রকল্পের কাজে অনিয়ম দুর্নীতি করেন। এ বিষয়টি ওয়ার্ডের লোকজন থানা পুলিশকে অবহিত করেন। ইউপি সদস্য মিনহাজ উদ্দিনের অনিয়ম দুর্নীতির বিষয়ে থানায় এসে মাতাল অবস্থায় তদবির করার সময় ইউপি সদস্য ফখর উদ্দিনকে আটক করা হয়। স্থানীয় এলাকাবাসী জানিয়েছেন- ফখর উদ্দিন সব সময় নেশাগ্রস্ত থাকে এবং নানা অসামাজিক কার্যকলাপের সাথে সে জড়িত। ইউপি সদস্য মিনহাজ উদ্দিন কর্তৃক কর্মসৃজন প্রকল্পের মাটি ভরাটের কাজে অনিয়মের দায়ে ওয়ার্ডের লোকজন বাদী হয়ে মঙ্গলবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবরে অভিযোগ দায়ের করেছেন। অপরদিকে গত সোমবার গভীর রাতে কানাইঘাট থানার এস.আই অজিত কুমার তালুকদারের নেতৃত্বে একদল পুলিশ অভিযান চালিয়ে সাতবাঁক ইউপির ভবানীগঞ্জ বাজারের পার্শ্ববর্তী এলাকা থেকে মদ পান করে মাতাল অবস্থায় ৪ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলো- দাবাধরনির মাটি গ্রামের আব্দুল মালিকের পুত্র এলাকার চিহ্নিত অপরাধী বাবুল আহমদ @ মিকির বাবুল, জুলাই মাঝরচটি গ্রামের মৃত মালিকের পুত্র হোসাইন আহমদ, দর্পনগর পশ্চিম গ্রামের তজম্মুল আলীর পুত্র শফিকুর রহমান, ধনমাইরমাটি গ্রামের আলা উদ্দিনের পুত্র পারবুল আহমদ।

কানাইঘাট বাণীগ্রাম ইউপির বাজেট ঘোষণা


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশিক উদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, তৃণমূল পর্যায়ে সরকারের উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ড ও ইউনিয়ন পরিষদ থেকে প্রদত্ত সেবা দ্রুত জনগণের দৌড় গোড়ায় পৌঁছে দিতে ইউপি চেয়ারম্যান, সদস্য সহ সবাইকে সততা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করতে হবে। সেই সাথে চলমান উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ড সুষ্ঠু ভাবে বাস্তবায়ন করতে এবং কানাইঘাট উপজেলাকে একটি মডেল উপজেলায় পরিণত করতে জনপ্রতিনিধিদের ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। আশিক উদ্দিন চৌধুরী মঙ্গলবার বিকেল ৩টায় কানাইঘাট ৭নং দক্ষিণ বানীগ্রাম ইউপির ২০১৭-১৮ অর্থ বছরের ১ কোটি ৭৯ লক্ষ টাকার বাজেট ঘোষণা উপলক্ষ্যে আয়োজিত ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে এক সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। বাণীগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদ আহমদের সভাপতিত্বে ও ছাত্রনেতা ডালিম আজাদের পরিচালনায় উক্ত বাজেট সভায় বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম রানা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মরিয়ম বেগম, ইউপি আ’লীগের সভাপতি মাষ্টার সিরাজ উদ্দিন, বড়দেশ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ নুর উদ্দিন, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা শরিফ আহমদ, ইউপি স্বাস্থ্য পরিদর্শক হোসেইন আহমদ, স্বাস্থ্য পরিদর্শিকা নাজমিন বেগম। বাজেট বাস্তবায়নে বিভিন্ন মতামত তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন, ছাত্রনেতা আবু জহর, এনজিও কর্মী শাহীন আহমদ, স্বাগত বক্তব্য রাখেন, ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মোঃ আব্দুল্লাহ, ৯নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য এবাদুর রহমান। বাজেট পেশকালে ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদ আহমদ উক্ত বাজেট বাস্তবায়নে ইউনিয়ন পরিষদের সকল নাগরিকদের সহযোগিতা কামনা করে কর আরোপের উপর গুরুত্বারোপ এবং যোগাযোগ অবকাঠামো উন্নয়ন সহ বিভিন্ন খাতে বড় ধরনের অর্থ বরাদ্ধ রাখা হয়েছে।

দেশে গণতন্ত্রের সংকট চলছে: ফখরুল

দেশে গণতন্ত্রের সংকট চলছে: ফখরুল

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: দেশে গণতন্ত্রের সংকট চলছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, জাতির এই দুর্দিনে শহীদ জিয়ার কর্মময় জীবন বুকে ধারণ করে আমাদেরকে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে।

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ জিয়াউর রহমানের ৩৬তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোকচিত্র প্রদর্শনী উদ্বোধনকালে এসব কথা বলেন তিনি। জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

এদিন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কর্মময় জীবনের উপর ২২৭টি আলোকচিত্র প্রদর্শন করা হয়।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানী, ছাত্রদলের সভাপতি রাজীব আহসান, সহ-সভাপতি নাজমুল হাসান প্রমুখ। 
সূত্র: বিডি লাইভ।

সিলেট-৫ আসন ! সেলিম উদ্দিন আবার প্রার্থী হতে চান


মাহবুবুর রশিদ/নিজাম উদ্দিন: 
জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় হুইপ ও সিলেট-৫ (কানাইঘাট-জকিগঞ্জ) আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য সেলিম উদ্দিন আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একই আসন থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ইঙ্গিত দিয়েছেন। কানাইঘাট ও জকিগঞ্জে বিভিন্ন জনসভায় তিনি এ আসন থেকেই জাতীয় পার্টির হয়ে নির্বাচনে অংশ নেবেন বলে আগাম বার্তা দিচ্ছেন। সেলিম উদ্দিনের এমন ঘোষণায় স্থানীয় জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত হয়ে উঠেছেন। বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়ন দেয়া হয় বিয়ানীবাজার উপজেলার বাসিন্দা সেলিম উদ্দিনকে। বিএনপি ও জামায়াত জোটসহ বেশির ভাগ রাজনৈতিক দল সে নির্বাচন বর্জন করলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। গত রবিবার (২১ মে) কানাইঘাটে সেলিম উদ্দিন এমপিকে দেওয়া সংবর্ধনা এবং পৃথক পৃথক কয়েকটি অনুষ্ঠানে এবং স¤প্রতি এলাকার বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের উদ্ধোধন পরবর্তী জনসভায় তিনি কানাইঘাট-জকিগঞ্জ আসন থেকে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করবেন বলে বার্তা দিয়েছেন। তার আগাম বার্তা জাতীয় পার্টির স্থানীয় নেতাদের মধ্যে রাজনৈতিক নানা সমীকরণের সৃষ্টি করেছে। সেলিম উদ্দিন কানাইঘাট-জকিগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর রাজনৈতিক অঙ্গন ও নির্বাচনী এলাকার মানুষের মধ্যে নানা ধরনের মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছিল। অনেকে এলাকার উন্নয়ন হবেনা বলেও তখন মন্তব্য করেছিলেন। কিন্তু সকলের ধারণা ভুল প্রমাণিত করে সেলিম উদ্দিন এমপি তার নির্বাচনী এলাকায় ব্যাপক তৎপর থাকায় সকলের ইতোমধ্যে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন। পূর্বে যারা সিলেট-৫ আসন থেকে এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন তাদেরকে ছাড়িয়ে সেলিম উদ্দিন এমপি তার নির্বাচনী এলাকায় তৎপর থেকে উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড এগিয়ে নেওয়ায় স্থানীয় রাজনৈতিক অঙ্গনের পাশাপাশি এলাকার সকল স্তরের ভোটারদের কাছে তার গ্রহণযোগ্যতা বেড়েছে। সময় পেলেই সেলিম উদ্দিন এমপি কানাইঘাট ও জকিগঞ্জ উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল পায়ে হেটে ঘোরে বেড়াচ্ছেন। দল মতের বাইরে সবাইকে নিয়ে তিনি উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণের পাশাপাশি তৃণমূল পর্যায়ে জাতীয় পর্টিকে শক্তিশালী করার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। সেলিম উদ্দিন প্রতিনিয়ত তার সংসদীয় আসনের নানা দাবি-দাওয়া সংসদে উত্থাপন করছেন। সিলেটের অনেক সংসদ সদস্য এলাকাবিমূখ হলেও এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম সেলিম উদ্দিন এমপি। সুযোগ পেলেই কানাইঘাট-জকিগঞ্জে ছুটে যান তিনি। সব ধরণের সামাজিক অনুষ্ঠানে তার সক্রিয় উপস্থিতি রয়েছে। দলমত নির্বিশেষে সকলের সাথে আন্তরিক সুসম্পর্ক ও উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে কোন ধরনের বৈষম্য না করায় রাজনৈতিক অঙ্গনে ক্লিন ইমেজধারী নেতা হিসেবে সকলের কাছে তিনি দ্রæত পরিচিত হয়ে উঠেন। বিশেষ করে সাধারণ মানুষের সমস্যার কথা তিনি গুরুত্ব সহকারে শুনেন এবং তা নিরসনে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করায় সর্বস্থরের মানুষের কাছে তার জনপ্রিয়তা দিন দিন আরো বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেলিম উদ্দিন এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর তার নির্বাচনী এলাকার রাস্তাঘাট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিদ্যুতায়নের উন্নয়নে বড় ধরনের ভূমিকা রেখে যাচ্ছেন। কানাইঘাটবাসীর বহু প্রত্যাশিত শাহবাগ-কানাইঘাট-দরবস্ত সড়ক এবং কানাইঘাট গাজী বুরহান উদ্দিন সড়কের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড সেলিম উদ্দিন এমপির প্রচেষ্টায় বাস্তবায়ন হওয়ায় রাজনৈতিক অঙ্গন ও জনসাধারণের কাছে তার জনপ্রিয়তা বেড়েছে। সেই সাথে কানাইঘাট-জকিগঞ্জের মানুষের দীর্ঘদিনের বহু প্রত্যাশিত দাবী-ধাওয়া বাস্তবায়নের পাশাপাশি এলাকার গ্রামীণ রাস্তাঘাটের উন্নয়ন বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভবন নির্মাণ এবং ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌছে দেওয়ার লক্ষ্যে সেলিম উদ্দিন এমপি নিরলসভাবে কাজ করে যাওয়ায় রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের লোকজন পর্যন্ত তার কর্মকান্ডের প্রশংসা করেছেন।

কানাইঘাটের কাশেম কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য মনোনিত


নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের নতুন সদস্য মনোনিত হয়েছেন কানাইঘাটের আবুল কাশেম চৌধুরী। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে তথ্য জানানো হয়। রবিবার কেন্দ্রীয় সংসদের সদস্য মনোনিত হওয়ার চিঠি তিনি হাতে পান। তিনি দীর্ঘ দিন ধরে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত রয়েছেন। আবুল কাশেম চৌধুরী'র বাড়ি সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার ৭নং দক্ষিণ বানীগ্রাম ইউ'পির বাউরবাগে।

চট্টগ্রাম-ও-কক্সবাজারে-১০-নম্বর-মহাবিপদ-সংকেত

Kanaighat News on Monday, May 29, 2017 | 11:55 PM

চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত
বিডিলাইভ রিপোর্ট: ঘূর্ণিঝড় 'মোরা' কক্সবাজার উপকূলের ৩০৫ কিলোমিটারের মধ্যে চলে আসায় চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার সমুদ্র বন্দরকে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট গভীর নিম্নচাপটি গত মধ্যরাতে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিয়েছে। ঘূর্ণিঝড়টির নামকরণ করা হয়েছে ‘মোরা’।

আগামীকাল মঙ্গলবার সকালে এটি চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার উপকূল অতিক্রম করতে পারে। এই পরিস্থিতিতে অাজ সোমবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দর ও কক্সবাজার উপকূলকে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’ পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগরে ও তৎসংলগ্ন এলাকা থেকে কিছুটা উত্তর দিকে অগ্রসর হচ্ছে। চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার ছাড়াও উপকূলীয় জেলা নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর এবং জেলাগুলোর অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরগুলো ৭ নম্বর বিপদ সংকেতের আওতায় থাকবে।

এ ছাড়া মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে ৮ নম্বর বিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং জেলাগুলোর অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরগুলো ৮ নম্বর বিপদ সংকেতের আওতায় থাকবে। ঘূর্ণিঝড় মোরার প্রভাবে উপকূলীয় জেলা কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং জেলাগুলোর অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরগুলোর নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে চার থেকে পাঁচ ফুট অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে।

ঘূর্ণিঝড় মোরা উপকূল অতিক্রমের সময় কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর এবং জেলাগুলোর অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরগুলোতে অতি ভারী বর্ষণসহ ঘণ্টায় ৬২ থেকে ৮৮ কিলোমিটার বেগে দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আজ সোমবার সন্ধ্যা ৬টায় ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’ চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ৩৮৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্র বন্দর থেকে ৩০৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে, মোংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ৪৫০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণ-পূর্ব ও পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ৩৭০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণ-পূর্ব দিকে অবস্থান করছিল। ঘূর্ণিঝড়টি আরও উত্তর দিকে অগ্রসর হয়ে কাল মঙ্গলবার সকালে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার উপকূল অতিক্রম করতে পারে। এর প্রভাবে আজ বিকেল থেকেই উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্র বন্দরগুলোর ওপর দিয়ে ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টি হতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৬২ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৮৯ কিলোমিটার। এটি দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়ার আকারে ১১৭ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়ের নিকটবর্তী এলাকায় সাগর বিক্ষুব্ধ রয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত নৌযানগুলোকে অতিসত্বর নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে বলা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নৌযানগুলোকে নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।

এদিকে আজ সকাল থেকে বরিশালসহ গোটা দক্ষিণাঞ্চলে মেঘলা ও থমথমে আবহাওয়া বিরাজ করছে। রোববার দুপুরে ও রাতে বিভাগের কয়েকটি জেলায় সামান্য বৃষ্টিপাত হলেও বরিশালে হয়নি।

ইউরোপ সফরে নরেন্দ্র মোদি

ইউরোপ সফরে নরেন্দ্র মোদি

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ছয় দিনের ইউরোপ সফরে জার্মান গেলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সোমবার সকালে জার্মানির উদ্দেশ্যে ভারত ত্যাগ করেন তিনি।

জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা ম্যার্কেলের সঙ্গে বৈঠকের মধ্য দিয়ে নরেন্দ্র মোদির ইউরোপ সফর শুরু হবে। সোমবার সন্ধ্যায় মেসেবার্গে জার্মান চ্যান্সেলরের সরকারি বাস ভবনে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।
 
ধারণা করা হচ্ছে, বৈঠকে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যিক ইস্যু গুরুত্ব পাবে। এর মধ্যে রয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে ভারতের মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি। এছাড়া বিনিয়োগ, তথ্য-প্রযুক্তি ও সন্ত্রাসবাদ নিয়ে আলোচনা হতে পারে।

এই সফরেই রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নের চেষ্টা চালাবেন মোদি। বৃহস্পতিবার রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে বৈঠক করবেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী। বৃহস্পতিবার এ দুই নেতার বৈঠকে ভারত ও রাশিয়ার মধ্যে বাণিজ্যিক সম্পর্ক জোরদারের অালোচনা হবে।

উল্লেখ্য, ছয়দিনের ইউরোপ সফরে চারটি দেশে যাবেন ভারতের সরকার প্রধান। দেশগুলো হচ্ছে- জার্মানি, রাশিয়া, স্পেন ও ফ্রান্স। ক্ষমতা গ্রহণের পর ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) নেতাদের সঙ্গে প্রথম রাষ্ট্রীয় বৈঠক করবেন তিনি।

সূত্র: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।

ছাত্রলীগ সেক্রেটারী এস এম জাকির হোসাইনের আহবানে কানাইঘাটে বৃক্ষরোপণ

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক:
বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইনের আহবানে কানাইঘাট উপজেলা ছাত্রলীগের সোমবার বৃক্ষরোপণ ও গাছের চারা বিতরন করা হয়েছে বৃক্ষরোপণ ও চারা বিতরণকালে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ও সিলেট সিটি করপোরেশনের ২০নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদ বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- বানীগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদ আহমেদ, সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি হারুন রশিদ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কানাইঘাট উপজেলা শাখার আহবায়ক এনামুল হক, সদস্য হামজা হেলাল, কানাইঘাট উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আখতার হুসেন অনুষ্ঠানে ফলজ ও ঔষধি শতাধিক চারা বিতরন করা হয়
সূত্র: সিলেটভিউ২৪ডটকম

কানাইঘাটে রমজান উপলক্ষে বাজার মনিটরিং শুরু


নিজস্ব প্রতিবেদক: পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের বাজার মনিটরিং শুরু হয়েছে। সোমবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুমন আচার্য কানাইঘাট বাজারের নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের বাজার মনিটরিং করেন। তিনি বেশ কয়েকটি ভূষিমালের দোকান, সবজির দোকান, ফলের দোকান, মাংস হাটি, মাছ হাটি এবং কয়েকটি মিষ্টির দোকান ঘুরে জিনিসপত্রের দাম যাচাই- বাছাই করেন। সহকারী কমিশনার ভূমি সুমন আচার্য জানিয়েছেন, দ্রব্য মূল্যের দাম স্থিতিশীল রয়েছে। পবিত্র রমজান উপলক্ষ্য যাতে করে কোন ব্যবসায়ী কোন জিনিসপত্রের দাম অযথা না বাড়াতে পারে এবং ভেজাল ও বাসী খাদ্য দ্রব্য বিক্রি করতে না পারে এজন্য ব্যবসায়ীদের প্রাথমিক ভাবে আমরা বুঝিয়েছি। সব জিনিসপত্রের দাম গ্রাহকদের নাগালের মধ্যে রয়েছে। উপজেলার হাট বাজারগুলি পর্যায়ক্রমে আমরা মনিটরিং করব। কানাইঘাট কামারপট্টি ব্যবসায়ীরা সহকারী কমিশনার ভূমি সুমন আচার্যের অভিযোগ করে বলেন, বাজারের মাংস ব্যবসায়ীরা অপরিচ্ছন্ন ভাবে গরু জবাই করার কারনে এলাকার পরিবেশ দূষনের সৃষ্টি হয়েছে। মলমূত্র ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকায় সেখানে তারা বসবাস করতে পারছেন না। এব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি কামারপট্টি ব্যবসায়ীদের আশ্বাস প্রদান করেন। পরিদর্শনকালে তার সাথে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা ফুড ইন্সপেক্টর আবুল কালাম আজাদ সহ স্থানীয় সাংবাদিকবৃন্দ।

স্বাস্থ্যকর ইফতারির তালিকায় নাশপাতি

স্বাস্থ্যকর ইফতারির তালিকায় নাশপাতি

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ইফতারে ভাজাপোড়া কমিয়ে বেশি বেশি ফল রাখাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তাই ইফতারের সময় ফলের তালিকায় রাখতে পারেন নাশপাতি। প্রথম পানীয় হিসেবে খেয়ে নিতে পারেন এক গ্লাস নাশপাতির জুস।

নাশপাতি স্বাস্থ্যের জন্য অনেকটাই উপকারী।

অল্প ক্যালোরি: স্বাস্থ্যসচেতন মানুষের বড় এক ভয় ক্যালোরি। কিন্তু ফলের ক্যালোরি প্রাকৃতিক চিনি থেকেই আসে। তবু ভয় কাটে না মানুষের। এদিক থেকে পুরোপুরি নিরাপদ নাশপাতি। এটা সর্বনিম্ন ক্যালোরির ফল। রসাল একটি নাশপাতি থেকে গড়ে ১০০ ক্যালোরি মিলতে পারে, এর বেশি নয়। স্বাস্থ্যকর খাবার থেকে যে পরিমাণ ক্যালোরি আপনার দেহে দরকার হয়, তার ৫ শতাংশ দিতে সক্ষম একটি নাশপাতি। পানিতে পূর্ণ হলেও একটা খেলে পেট ভরে গেছে বলে মনে হবে। কারণ এতে ফাইবারের অভাব নেই।

অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের কার্যক্রম: অন্যান্য ফলের মতো নাশপাতিও অ্যান্টি-অক্সিডেন্টে ভরপুর। এই উপাদানের উপকারিতার কথা নতুন করে বলার কিছু নেই। বিভিন্ন রোগের আক্রমণ ঠেকাতে দেহকে শক্তিশালী করে তোলে। দেহে ঘুরে বেড়ানো বিষাক্ত পদার্থগুলোকে বিতাড়নের দায়িত্ব নেয় অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। কোষের সুষ্ঠু বিপাকক্রিয়াও নিশ্চিত করে। ভিটামিন ‘সি’, ‘এ’, বিটা ক্যারোটিন, লুটেইন এবং জিয়া-জানথিনের সবই আছে নাশপাতিতে।

রোগ প্রতিরোধী: অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট আর ভিটামিন ‘সি’-এর কারসাজিতে কিন্তু দেহের রোগ প্রতিরোধী ক্ষমতা বেড়ে যায়। এরা রক্তের শ্বেতকণিকার সংখ্যা ও কার্যক্রম বাড়ায়। এমনিতেই ঠাণ্ডা-সর্দি, ফ্লু ছাড়াও সাধারণ কিছু রোগ নাশপাতিই সামলে নিতে পারে।

রক্তের জন্য: যাদের দেহে প্রয়োজনীয় খনিজের ঘাটতি রয়েছে তারা নাশপাতির শরণাপন্ন হতে পারেন। কপার ও আয়রনের জন্য এই ফল আপনার দেহের জন্য দারুণ উপকারী। কপারের উপস্থিতি আপনার দেহকে আরো সুষ্ঠুভাবে খনিজ শুষে নিতে সক্ষম করে তুলবে। আর আয়রন তো হিমোগ্লোবিনের অন্যতম অংশ। এই দুই খনিজের অভাবে রক্তস্বল্পতা, অবসাদ, পেশিতে দুর্বলতাসহ দেহের নানা কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখে।

জন্মগত ত্রুটি দূর করতে: নাশপাতির আরেকটি শক্তিশালী উপাদান হলো ফোলেট। শিশু জন্মের সময় তার স্নায়বিক অবস্থা সুষ্ঠু রাখার ক্ষেত্রে বেশ প্রভাবশালী ভূমিকা রাখে ফলিক এসিড। গর্ভবতী নারীদের দেহে ফলিক এসিডের মাত্রা প্রায়ই পরীক্ষা করেন বিশেষজ্ঞরা। জন্মগত ত্রুটি থেকে শিশুকে বাঁচাতে তাই বেশি বেশি নাশপাতি খাওয়া দরকার।

হাড়ের স্বাস্থ্য: এর উচ্চমাত্রার খনিজের তালিকায় রয়েছে ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, ক্যালসিয়াম আর কপার। এসব উপাদান হাড়ের খনিজ হারানো রোধ করে। হাড়ের স্বাস্থ্যের যত্ন নেয়।

ত্বক, চুল ও চোখ: এক বহুমুখী কার্যগুণসম্পন্ন উপাদান হলো ভিটামিন ‘এ’, যা রয়েছে এই ফলে। সঙ্গে লুটেইন বা জিয়া-জানথিন একযোগে অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের কাজ করে। পাশাপাশি এগুলো বিভিন্ন এনজাইমের প্রতিক্রিয়া ও প্রত্যঙ্গের কার্যক্রমকে প্রভাবিত করে। নাশপাতি চেহারায় বলিরেখা পড়া রোধ করে। চুলের স্বাস্থ্য ঠিক রাখে আর চোখের দৃষ্টিতেও শক্তি জোগায়।

ফের ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালালো উ. কোরিয়া

ফের ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালালো উ. কোরিয়া

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: আবারো ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে উত্তর কোরিয়া। এটি ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র বলে ধারণা করা হচ্ছে। দক্ষিণ কোরিয়ার বার্তা সংস্থা ইয়োনহাপ এ তথ্য জানিয়েছে।

ক্ষেপণাস্ত্রটি সোমবার উনসান নগরীর পূর্বদিক থেকে উৎক্ষেপণ করা হয় বলে দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক সূত্র জানায়।

উত্তর কোরিয়ার এ ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের পর দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট জায়ে-ইন জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক ডেকেছেন।

দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক সূত্র জানায়, ক্ষেপণাস্ত্রটি প্রায় সাড়ে ৪শ’ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে জাপান সাগরে পড়ে।

এদিকে সোমবার জাপানের চীফ কেবিনেট সেক্রেটারি ইয়োশিহিদা জানান, টোকিও উত্তর কোরিয়ার নতুন ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের প্রতিবাদ জানিয়েছে।

তিনি বলেন, 'ক্ষেপণাস্ত্রটি আমাদের দেশের গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক অঞ্চলে আঘাত হানে'। তবে এতে কোনো ক্ষতি হয়েছে কিনা তা তাৎক্ষণিকভাবে আমরা জানতে পারিনি।

তিনি আরো বলেন, 'এটি জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাবের সরাসরি লঙ্ঘন'। সুতরাং আমরা উত্তর কোরিয়ার এমন কর্মকান্ডের কঠোর নিন্দা জানাই।

উন্মুক্ত হলো চার ক্যামেরার 'জিওনি এস১০'

উন্মুক্ত হলো চার ক্যামেরার 'জিওনি এস১০'

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: চীনা স্মার্টফোন প্রস্তুতকারক জিওনি তাদের ফ্ল্যাগশিপ ফোন 'জিওনি এস১০' উন্মুক্ত করেছে। পাশাপাশি এর দুটি সংস্করণ এস১০ বি এবং এস১০ সি উন্মুক্ত করেছে। ফোন তিনটির দাম যথাক্রমে ২ হাজার ৫৯৯ ইয়েন এবং অন্য দুটি সংস্করণ ২ হাজার ১৯৯ ইয়েন এবং ১ হাজার ৫৯৯ ইয়েন।

'জিওনি এস১০' চলবে অ্যান্ড্রয়েড ৭.০ ন্যুগাট ভিত্তিক অ্যামিগো ইউআই ৪.০ অপারেটিং সিস্টেমে। ৫.৫ ইঞ্চি ফুল এইচডি আইপিএস ডিসপ্লের সাথে আছে ২.৫ গিগাহার্টজ মিডিয়াটেক হেলিও পি২৫ প্রসেসর। ৬ জিবি র‍্যামের এই ফোনে মেমোরি ৬৪ জিবি যা ১২৮ জিবি পর্যন্ত বাড়ানো যাবে।

এর বিশেষ ফিচার হিসেবে এতে চারটি ক্যামেরা যুক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে সামনে দুটি এবং পেছনে দুটি। রিয়ার ক্যামেরায় ১৬ মেগাপিক্সেল এবং ৮ মেগাপিক্সেল মডিউল, আর ফ্রন্ট এ ২০ মেগাপিক্সেল এবং ৮ মেগাপিক্সেল মডিউল। ফোনটিতে রয়েছে ৩৪৫০ এমএএইচ ব্যাটারি।

ফোনটি চীনে উন্মুক্ত করা হয়েছে এবং বিশ্বব্যাপী অন্যান্য বাজারে কবে নাগাদ আসবে- সে বিষয়ে কিছু জানায়নি প্রতিষ্ঠানটি। সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

বাড়িতে চিকেন তান্দুরি

বাড়িতে চিকেন তান্দুরি
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: চিকেন তন্দুরী খেতে ভালবাসেন না এমন লোক হয়তো হাতে গোনা। তন্দুরি চিকেন নামটা কিন্তু আসলে রান্নার পদ্ধতির জন্য হয়েছে। তন্দুরে রান্না করা হয় বলেই একে তন্দুরি চিকেন বলে। বাড়িতে তো তন্দুর থাকে না সবার সেক্ষেত্রে মাইক্রো ওভেনে বানানো যায় এই জিভে জল আনা খাবারটি।

উপকরন :
মুরগি – ১ টা, তান্দুরি মশলা – ১/২ প্যাকেট
টক দই- ১/২ কাপ (পানি ঝরানো)
মরিচের গুঁড়া – ১ চা চামচ,
আদা,রসুন বাটা- ১ চা চামচ করে,
সয়াসস – ১ টেবিল চামচ,
অয়েস্টার সস – ১ টেবিল চামচ,
টমেটো সস – ১ টেবিল চামচ,
সাদা গোলমরিচের গুঁড়া এবং লবন – পরিমান মতো
সরিষার তেল – ২ টেবিল চামচ
রেড ফুডকালার – সামান্য।

প্রনালি :
প্রথমে মুরগির পিসগুলো খুব ভালো করে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে এর গায়ে কিছু আচর কেটে নিন। এবার একে একে সব উপকরণ নিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। ৪-৫ ঘণ্টা মেরিনেট করে রাখুন রেফ্রিজারেটরে।

এবার ফ্রাই পেন এ তেল ব্রাশ করে মাংস দিয়ে অল্প আঁচে ভাজুন ১৫-২০ মিনিট। পরে মাইক্রোওয়েভ এ বেকিং ট্রেতে তেল ব্রাশ করে আরো ১২-১৫ মিনিট বেক করুন।

ওভেন না থাকলে চুলাতেই ভাজার কাজ শেষ করতে পারেন। নামানোর আগে একটু ঘি ব্রাশ করে নিন। ভাজা হয়ে গেলে নামিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।

ঈদের আগের তিনদিন বন্ধ ট্রাক, লরি, কাভার্ড ভ্যান

ঈদের আগের তিনদিন বন্ধ ট্রাক, লরি, কাভার্ড ভ্যান

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: দুর্ঘটনা রোধ এবং সড়ক যোগাযোগে চাপ কমাতে ঈদের আগের ৩ দিন মহাসড়কে ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান ও লরি চলাচল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

আজ সোমবার ২৯ মে রাজধানীর তেজগাঁওয়ে বিআরটিএ’র কার্যালয়ে এক মত বিনিময় সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এ কথা জানান।

আসন্ন ঈদে ঘরমুখী মানুষের যাতায়াত নির্বিঘ্নে করতে বিআরটিএর কর্মকর্তাদের সঙ্গে এই মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, এবার ঈদে ঘরমুখো মানুষের যাত্রা নির্বিঘ্নে করতে রোজার শুরুতেই বেশ কিছু সিদ্ধান্ত এবং সুপারিশ নেওয়া হয়েছে। যানযট কমাতে ঈদের আগে তিনদিন মহাসড়কে ট্রাক, লড়ি, কাভার্ডভ্যান চলাচল বন্ধ থাকবে।

তিনি বলেন, পরিবহনগুলো যাতে যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করতে না পারে সে জন্য মহাখালি, গাবতলী ও সায়েদাবাদ টার্মিনালে সক্রিয় থাকবে ভিজিল্যান্স টিম। মহাসড়কে যাত্রী চাপ কমাতে গার্মেন্টসগুলো ভিন্ন ভিন্ন দিনে ছুটি ঘোষণা করতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, এফবিসিসিআিই, বিজিএমইএ ও বিকেএমই-কে অনুরোধ জানান মন্ত্রী।

২২টি গুরুত্বপূর্ণ জাতীয় মহাসড়কে সিএনজি চালিত অটোরিক্সা এবং সব ধরণের অযান্ত্রিক যানবাহন চলাচল কঠোরহাতে দমন করা হবে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ঈদের সময় যানবাহনের সুবিধার্থে ঈদের আগে ৭ দিন এবং ঈদের পরে ৭ দিন সিএনজি স্টেশনগুলো ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার জন্য জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগকে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

সেতুমন্ত্রী বলেন, ঢাকা থেকে বের হওয়ার এবং প্রবেশের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে যানবাহন ব্যবস্থাপনায় পুলিশকে সহায়তা করতে আনসার সদস্য নিয়োগ করা হবে। শহর এলাকায় শপিং মলের সামনে যানজট এবং যত্রতত্র পার্কি বন্ধে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে।

তিনি জানান, যানবাহন চলাচলের সুবিধার্থে মহানগরী এবং মহাসড়কের উপর ও উভয় পাশে অস্থায়ী/ ভাসমান বাজার অপসারণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সব মহাসড়কে মোটরযান চলাচল নির্বিঘ্ন করতে ঈদের ৭ দিন আগেই প্রয়োজনীয় মেরামত কাজ শেষ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু সেতু, মেঘনা সেতু, গোমতি সেতুসহ সকল গুরুত্বপূর্ণ সেতুতে টোল প্লাজার সকল বুথ ২৪ ঘণ্টা চালু রাখা হবে। মহাসড়কে ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচল নিয়ন্ত্রণে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে।
সূত্র: বিডি লাইভ।

মিরসরাইয়ে যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে পাঁচজন নিহত

মিরসরাইয়ে যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে পাঁচজন নিহত

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে অন্ততপক্ষে ৫ জন নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন কমপক্ষে ২৫ জন।  সোমবার বিকাল সোয়া ৩টার দিকে উপজেলার করেরহাটের রামগড় এলাকার ভাঙ্গা টাওয়ার নামক স্থানে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

জোরারাগঞ্জ থানার ওসি জাহিদুল কবির জানান, চালক বাসটির উপর নিয়ন্ত্রণ হারালে ১০০ ফুট নিচের খাদে পড়ে ঘটনাস্থলেই পাঁচ জন মারা যায়। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতদের পরিচয় জানাতে পারেননি তিনি। ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ ও স্থানীয় জনতা উদ্ধারকাজে রয়েছেন বলে বলেও তিনি জানান।

ডিএমপির ৭ কর্মকর্তাকে বদলি

ডিএমপির ৭ কর্মকর্তাকে বদলি

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপির) সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) পদে সাতজন কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়েছে। পুলিশ কমিশনারের নির্দেশে এ বদলি করা হয়।

ডিএমপির উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি-সদরদফতর ও প্রশাসন) মো. আশরাফুজ্জামান স্বাক্ষরিত দুটি অফিস আদেশে এ তথ্য জানানো হয়।

যাদের বদলি করা হয়েছে তারা হলেন, উত্তরা জোনের এসি আতিকুল ইসলামকে গোয়েন্দা পূর্ব বিভাগে, ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইমের এসি তাপস কুমার দাসকে ডিএমপির উত্তরা জোনে, ডিএমপি হেড কোয়ার্টার্সের অর্থ ও বাজেট বিভাগের এসি মো. রওশানুল হক সৈকতকে ট্রাফিক-দারুসসালাম জোনে, ডিএমপির এসি (প্রশাসন লালবাগ) মো. সিরাজুল ইসলামকে চকবাজার জোনে, সবুজবাগ ট্রাফিক জোনের এসি এ. এস. এম. মুক্তারুজ্জামানকে রামপুরা জোনের ট্রাফিক বিভাগে, ডিএমপির এসি ফাতেমা ইসলামকে সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইমে এবং ধানমন্ডি জোনের পেট্রল এসি মো. আহসান খানকে সবুজবাগ ট্রাফিক জোনে বদলি করা হয়েছে।
সূত্র: বিডি লাইভ।

ক্রিকেটে শেষের আগে শেষ বলে কিছু নেই: মাশরাফি

ক্রিকেটে শেষের আগে শেষ বলে কিছু নেই: মাশরাফি
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ক্রিকেটীয় অনিশ্চয়তাকে মাথায় রাখলেও প্রস্তুতি ম্যাচে পাকিস্তানের কাছে বাংলাদেশের হারটি অনেককেই অবাক করেছে। নবম উইকেটে ঝড়ো গতিতে ৯৩ রান তুলে জয়ের ঘটনা নেই বললেই চলে।

যদিও প্রস্তুতি ম্যাচ। তারপরও এমন ঘটনা তো সত্যিই বিরল। পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে হারের পর হোটেলে ফিরে দক্ষিণ আফ্রিকা-ইংল্যান্ড ম্যাচের খবরও নিয়েছেন অনেকে।

৫ উইকেট হাতে নিয়েও শেষ ওভারে ৭ রান করতে পারেনি দক্ষিণ আফ্রিকা। অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা মনে করিয়ে দিলেন, 'ক্রিকেট খেলাটায় আসলেই যে কোনো কিছুই হতে পারে'। ক্রিকেটে শেষের আগে শেষ বলে কিছু নেই।

প্রস্তুতি ম্যাচ মানেই শেখার সুযোগ। পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটিও বাংলাদেশকে দিয়েছে কঠিন এক শিক্ষা।

ম্যাচ শেষে সংবদ সম্মেলনে ইমরুল কায়েস বলেছিলেন, তারা ধরেই নিয়েছিলেন ম্যাচ প্রায় জিতে গেছেন। অধিনায়কও বললেন একই কথা। শোনালেন নিজের ও দলের অন্যদের উপলব্ধির কথাও।

'ম্যাচটা যে অবস্থায় ছিল, বেশিরভাগ সময়ই হয়ত আমরা বা যে কেনো দল এখান থেকে সহজেই জিতবে'। তবে মাঝে মঝে যে ব্যতিক্রমও হতে পারে, সেটি এই ম্যাচে বুঝতে পেরেছি আমরা। এরকম কিছু হয় বলেই ক্রিকেট অনিশ্চয়তার খেলা। আমরা হয়ত সেটি সবসময় বলি, কিন্তু মাঠে মনেও রাখা উচিত সবসময়।

পাকিস্তান ম্যাচ থেকে সবচেয়ে বড় শিক্ষা এটিই। হারের মাঝে এই জিনিষটিই ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন টাইগাররা।

'হার তো কখনোই ভালো কিছু নয়, সেটি প্রস্তুতি ম্যাচ হলেও। আবার এটাও সত্যি, প্রস্তুতি ম্যাচে জয়-হারের চেয়ে নিজেদের চেনা, বোঝাই বেশি গুরুত্বপূর্ণ। সেদিক থেকে এভাবে হারাটা আমাদের জন্য বড় শিক্ষা। মূল টুর্নামেন্ট শুরুর আগেই এটা হওয়ায় আমাদের জন্য ভালো হলো।
সূত্র: বিডি লা্ইভ।

বিহারে বৃষ্টি ও বজ্রপাতে নিহত ২৩

বিহারে বৃষ্টি ও বজ্রপাতে নিহত ২৩

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য বিহারে বৃষ্টি ও বজ্রপাতে অন্ততপক্ষে ২৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। রোববার বৃষ্টি ও বজ্রপাতে এ হতাহতের ঘটনা ঘটলেও ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে চলছে তীব্র তাপদাহ।

ভারতের আবহাওয়া দপ্তর বলছে, বঙ্গোপসাগরে মৌসুমি বায়ুর গভীর চাপ থেকে এই বৃষ্টিপাতের সৃষ্টি। ৩০-৩১ মে কেরেলাতেও বৃষ্টি হবে। অপরদিকে দিল্লির তাপমাত্রারও ৪০ ডিগ্রির নিচে মেনে এসেছে। বিহার ছাড়াও বৃষ্টি হবে কর্নাটক, তামিলনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশ এবং তেলেঙ্গানায়।

আজ সোমবার বিহারের কর্মকর্তারা জানান, নিহত ২৩ জনের মধ্যে আটজন নারী। আটটি জেলায় বজ্রপাতে ১৮ জন প্রাণ হারিয়েছে। অন্যরা রাজ্যের ওয়েস্ট চাম্পারান জেলায় ঝড়ের কারণে দেয়াল ধসে মারা গেছে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা মনোজ কুমার গণমাধ্যমকে বলেন, বিহারের ওয়েস্ট চাম্পারান জেলায় ঝড়ে দেয়াল ধসে আরো পাঁচ জন প্রাণ হারিয়েছে।

রাজ্য সরকার এই ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর প্রত্যেককে চার লাখ রুপী করে ক্ষতিপূরণ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে।

সাধক কবি 'হাসন রাজা'র চরিত্রে মিঠুন চক্রবর্তী

 সাধক কবি 'হাসন রাজা'র চরিত্রে মিঠুন চক্রবর্তী

কানাইঘাট নিউজ  ডেস্ক: লালন ফকিরের জীবন কাহিনি নিয়ে টলিউডে তৈরি হয়েছিল ‘মনের মানুষ’। পরিচালক গৌতম ঘোষের সেই ছবিতে লালনের ভূমিকায় অভিনয় করে প্রশংসা কুড়িয়েছিলেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। জাতীয় পুরস্কার জিতে নিয়েছিল সেই ছবিটি। বাংলা ছবিতে খানিকটা সেই ধাঁচের ছবিই ফিরছে পরিচালক রাহুল আমিনের হাত ধরে। সোমবার মুক্তি পেল 'হাসন রাজা' ছবির টিজার।

বাংলাদেশের সিলেটের মরমী সাধক হাসন রাজার জীবনের অজানা কাহিনিই এবার বড়পর্দায় তুলে ধরবেন রাহুল আমিন। দোর্দণ্ডপ্রতাপ, স্বৈরাচারী জমিদার ছিলেন হাসন রাজা। দিলারামের প্রেম তার জীবনকে পাল্টে দিয়েছিল। ধীরে ধীরে তার চালচলন, স্বভাব, জীবনযাপনের ধারায় এসেছিল পরিবর্তন।

পরবর্তীকালে বড়মাপের দার্শনিক, কবি এবং গীতিকার হয়ে উঠেছিলেন তিনি। সেই হাসন রাজার চরিত্রে অভিনয় করেছেন মিঠুন চক্রবর্তী। হাসন রাজার স্ত্রীর ভূমিকায় দেখা যাবে রাইমা সেনকে।

দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ থাকার কারণে ইন্ডাস্ট্রি থেকে লম্বা বিরতি নিয়েছিলেন বাংলা চলচ্চিত্র জগতের মহাগুরু মিঠুন চক্রবর্তী। ২০১৫ সালে বলিউড ছবি ‘হাওয়াইজাদা’য় সর্বশেষ দেখা গিয়েছিল মিঠুনকে। ছবিটি প্রথমে ৩১ মার্চ মুক্তি পাওয়ার কথা থাকলেও পরে তা পিছিয়ে যায়৷ দেখে নিন সদ্য মুক্তি পাওয়া সেই ছবির টিজার৷

রমজানে বিচ্ছেদ নিষিদ্ধ করলেন ফিলিস্তিনি বিচারক

রমজানে বিচ্ছেদ নিষিদ্ধ করলেন ফিলিস্তিনি বিচারক

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: রমজান মাসে ফিলিস্তিনে বিচ্ছেদ নিষিদ্ধ করলেন দেশটির শরিয়া আদালতের প্রধান মাহমুদ হাবাশ। গত রোববার এ আদেশ জারি করা হয়।

ওই বিচারক বলেন, বিগত বছরগুলো থেকে প্রাপ্ত অভিজ্ঞতা থেকেই তিনি এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

শরিয়া আদালতের প্রধান মাহমুদ হাবাশের মতে, রমজান মাসে সারা দিন রোজা রাখতে হয়। এসময় ধূমপানেও রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। এ থেকে হতাশ হয়ে কিংবা মেজাজ হারিয়ে, রাগের বসে অনেকে বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নেন। পরে অনুতপ্ত হন। কিন্তু তখন আর করার কিছু থাকে না।

ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষের মতে, ২০১৫ সালে দেশটির পশ্চিম তীর ও গাজায় ৫০ হাজার বিয়ে উদযাপন করা হয়। কিন্তু একই বছর আট হাজারেরও বেশি বিচ্ছেদের আবেদন করা হয়।

মেয়ে আমার বড় অভিমানী: রেলমন্ত্রী

মেয়ে আমার বড় অভিমানী: রেলমন্ত্রী

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: একদিন আগে জান্নাতুল মাওয়া রিমুর বয়স এক বছর। এখনও মুখে কথা ফোঁটেনি পুরোপুরি। গুঁটিগুঁটি পায়ে ঘরময় ঘুরে বেড়ায়। আর শুধু ‘বাবা, বা-বা, বা-বা-বা’ ডাকে। মায়ের চেয়ে বাবার প্রতিই টান বেশি মেয়ের। বাবা বাইরে থেকে ঘরে ফিরলে দরজায় ছুঁটে আসে। কোলে চড়ার জন্য পাগল হয়ে যায়। কাপড় বদলে নেয়ার সুযোগও দেয় না। তাকে কোলে নিয়েই বাকি কাজ করতে হয়।

মেয়েকে নিয়ে গল্পের ছলে সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক। ‘মেয়ে আমার চাঁদের টুকরা। বাবা-মা ছাড়া কিছু বোঝে না। তবে বাবার প্রতি টানটা একটু বেশিই।’ বলেই একগাল হাসলেন একদিন বাদে সত্তুরে পা দিতে যাওয়া মানুষটি।

গেল বছরের ২৮ মে স্ত্রী হনুফা আক্তার রিক্তার কোলজুড়ে আসে রিমু। ‘মেয়েকে কোলে নিয়ে কেঁদেছিলাম সেদিন। রক্তের মায়া কী সেদিনই প্রথম বুঝতে পারি। ফুটফুটে ফুলটাকে কোলে নেয়ার পর মনে হয়েছে আমার শূন্যবুক যেন ভরে গেল।’ গলা ধরে এল বাবার।

একদিন আগে ঘরোয়া আয়োজনে মেয়ের জন্মদিন উদযাপন করলেন মুজিবুল-হনুফা দম্পতি। রাজ্যের ব্যস্ততার মাঝেও মেয়েকে সময় দিয়েছেন বাবা। কোলে পিঠে রেখেছেন। কাঁধে তুলে ছবি তুলেছেন। অনেকটা সময় বাবাকে কাছে পেয়েও মেয়ের সেকি আহ্লাদ। ‘মেয়েটা বড় অভিমানী বুঝলেন। খুব অভিমানী। বাবার মতো।’ এভাবে বললেন মুজিবুল হক।

‘তবে আর কী বলছি। একদিন অফিস থেকে ফিরে কোলে নিতে দেরি হলে ঠোঁট উল্টে দেয়। কোলে নিলেও এ কান্না থামে না। মুখ ঘুরিয়ে রাখে। থেমে থেমে কাঁদে। ওইটুকুন মেয়ে তার কি-না এত অভিমান!’
  
জন্মদিনে মেয়ের সঙ্গে কাটানো মুহূর্তে কয়েকটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। বললেন, কোন আত্মীয় তুলে দিয়ে দিয়েছে ফেসবুকে। অনেকে শুভকামনা করেছেন। কেউ ফুটফুটে শিশুটাকে দেখে কমেন্টে লিখেছেন ‘বাবার মতো মেয়ে।’ রেলমন্ত্রী নিজেই হেসে জবাব দিলেন, ‘হবে না? বাবার মেয়ে তো।’

রাজনীতিতে ব্যস্ত ছিলেন জীবনের সিংহভাগ সময়। কোথা দিয়ে ৬৭টি বসন্ত জীবন থেকে কেটে গেছে বুঝতে পারেননি কুমিল্লার ছেলে মুজিবুল হক। বুঝলেন কিনা শেষান্তে এসে! আফসোসও করেন এখন। আগে জানলে এতটা বসন্ত অগোচরে চলে যেতে পারতো না। গত ২০১৪ সালের ৩১ অক্টোবর বেশ ঘটা করেই বিয়ে করেন হনুফা আক্তার রিক্তাকে। মন্ত্রীর বিয়ে বলে কথা। অনেকে মন্তব্য করেছেন, রাজকীয় আয়োজন এমনই হয়। হনুফার বাড়ি একই জেলার চান্দিনা উপজেলার মিরাখলা গ্রামে।

এই তো একদিন পরেই রেলমন্ত্রীর ৭০ তম জন্মদিন। ৩১ মে। বিশেষ এইদিনটি কীভাবে কাটাবেন? বললেন, ‘মায়ের সঙ্গে কাটাবো।’
‘আপনার মা বেঁচে আছেন?’
‘মেয়ে কি আমার মা নয়?’

সূত্র: ঢাকাটাইমস

ছোলা ভিজাতে ভুলে গেলেও ৩০মিনিটে নরম ছোলা ভুনা

ছোলা ভিজাতে ভুলে গেলেও ৩০মিনিটে নরম ছোলা ভুনা

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ইফতারিতে যত কিছুই থাক না কেন ছোলা বা বুট ছাড়া যেন সব অপূর্ণ থেকে যায়। তবে নরম ছোলা ভুনা খেতে চাইলে ছোলাটা ভিজিয়ে রাখতে হয় আগের রাতে, কমপক্ষে সেহেরির সময় বা সকাল বেলা। ৬/৭ ঘণ্টা না ভিজিয়ে রাখলে ছোলা ফোলে না, ফলে সিদ্ধ করার সময় নরমও হতে চায় না। তাই কোনো কারণে ছোলা ভিজিয়ে রাখতে মনে না থাকলে অনেকে বাজারে গিয়ে কিনেন। কিন্তু এখন ভিজিয়ে রাখা ছাড়াই নরম ও সুস্বাদু ছোলা ভুনা করতে পারবেন। তাও আবার মাত্র ৩০ মিনিটে। তবে চলুন জেনে নিই একটি জাদুকরী উপায়।

যা লাগবে :–
ছোলা ২৫০ গ্রাম, ফুটন্ত গরম পানি দেড় থেকে ২ লিটার, সেদ্ধ করার জন্য প্রেসার কুকার।

প্রণালি :
ছোলা ভালো করে ধুয়ে একটি বড় পাত্রে নিন। তারপর ফুটন্ত গরম পানি ছোলার মাঝে দিয়ে দিন। পাত্র ঢাকনা দিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট রেখে দিন।

# এবার প্রেসার কুকারে ছোলাগুলো পানি সহ দিয়ে দিন। এমনভাবে পানি দেবেন যেন ছোলা ভালো মত ডুবে থাকে পানিতে।

# প্রেসার কুকার চুলায় বসিয়ে দিন বেশী আঁচে। সিটি বাজা পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। ৩ থেকে ৫ টি সিটি বাজলেই চুলা নিভিয়ে দিন।

– প্রেসার কুকার থেকে সমস্ত বাষ্প নিজে নিজে বের হয়ে যেতে দিন। তারপর খুলে দেখুন, আপনার ছোলা সিদ্ধ তৈরি। এবার এই ছোলাকে পছন্দমত রান্না করে নিন।

জরুরি টিপস –
অনেক ছোলা প্রেসার কুকারেও ফুলতে বা সিদ্ধ হতে সময় লাগে। যদি দেখেন যে ছোলা ফোলেনি বা সিদ্ধ হয়নি, সেক্ষেত্রে প্রেসার কুকারের ঢাকনা আটকে আরো কয়েকটি সিটি দিন।

# ছোলা ২০ মিনিটের জায়গায় ১ ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখলে সবচাইতে ভালো। তবে ২০ মিনিটেও কাজ চলবে।

কানাইঘাট ব্র্যাক অফিসের শাখা ব্যবস্থাপকের বিরুদ্ধে গ্রাহক হয়রানির তদন্ত অনুষ্ঠিত


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট ব্র্যাক অফিসের শাখা ব্যবস্থাপক ওয়াহিদুজ্জামানের বিরুদ্ধে ক্ষুদ্র ঋণ গ্রাহকদের হয়রানি এবং ঋণ দেওয়ার নামে সঞ্চয় আদায় এবং অধিকাংশ গ্রাহকদের পাস বই তার কাছে রাখার ঘটনায় তদন্ত অনুষ্ঠিত হয়েছে। ব্র্যাক অফিসের ক্ষুদ্র ঋণ গ্রাহক কানাইঘাট পৌরসভার নন্দিরাই গ্রামের ফাতেমা বেগম এবং সদর ইউপির নিজ চাউরা উত্তর গ্রামের শামীমা বেগম উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে শাখা ব্যবস্থাপক ওয়াহিদুজ্জামানের বিরুদ্ধে হয়রানির অভিযোগ আনেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত রবিবার ব্র্যাক সিলেট পীরের বাজার অফিসের আর.এম জহিরুল এবং জৈন্তা-কানাইঘাট এরিয়া ব্যবস্থাপক সুরঞ্জন চন্দ্র দে এর উপস্থিতিতে তদন্তকালে ফাতেমা বেগম ও তার স্বামী মামুন রশিদ এবং শামীমা বেগম ও তার স্বামী আবু বক্কর সহ আরো কয়েকজন শাখা ব্যবস্থাপক ওয়াহিদুজ্জামানের সীমাহীন অনিয়ম দুর্নীতি, স্বেচ্ছাচারিতা, গ্রাহকদের সাথে দূর্ব্যবহার, ঋণ দেওয়ার নামে সঞ্চয় আদায় করে হয়রানি, গ্রাহকদের পাস বই বিনা কারণে তার কাছে রেখে দেন। উক্ত ক্ষুদ্র ঋণ গ্রাহকগণ যথা সময়ে কিস্তি পরিশোধ করিলে ওয়াহিদুজ্জামান পাস বইয়ের মধ্যে নির্দিষ্ট সময়ে লিপিবদ্ধ না করিয়া তার মনগড়া ভাবে লিপিবদ্ধ করা সহ মাঠপর্যায়ে ব্র্যাকের কোন কর্মীকে না পাঠিয়ে তিনি নিজে কিস্তি নিজেই গ্রহণ করেন। এছাড়া অনেক ক্ষুদ্র ঋণ গ্রাহক যথা সময়ে ঋণের কিস্তি পরিশোধ করিতে না পারিলে ওয়াহিদুজ্জামান ক্ষুদ্র ঋণ প্রদানের আশ্বাস দিয়ে অনেক লোকদের নিকট হইতে সঞ্চয় গ্রহণ করেন, পরবর্তীতে তাদের হয়রানি করে ঋণ প্রদান না করিয়া টাকা ফেরত দেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তদন্তকালে ওয়াহিদুজ্জামানের বিরুদ্ধে ঋণ দেওয়ার নামে সঞ্চয় আদায় গ্রাহকদের হয়রানী এবং পাস বই তার কাছে রাখার অভিযোগ প্রমাণিত হলে তিনি কোন ধরনের সদোত্তর দিতে পারেন নি। এ ব্যাপারে শাখা ব্যবস্থাপক ওয়াহিদুজ্জামানের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তদন্তকারী কর্মকর্তা ব্র্যাক পীরের বাজার প্রধান অফিসের আরএম জহিরুল ও জৈন্তা-কানাইঘাটের এরিয়া ব্যবস্থাপক সুরঞ্জন চন্দ্র দে স্থানীয় সাংবাদিক ও তার হাতে হয়রানির স্বীকার উপস্থিত ক্ষুদ্র গ্রাহকদের আশ্বাস প্রদান করেন। ওয়াহিদুজ্জামানের কাছে হয়রানির স্বীকার গ্রাহক ফাতেমা বেগম ও শামীমা বেগম জানিয়েছেন এব্যাপারে ব্র্যাকের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে তারা ব্র্যাকের উচ্চ পর্যায়ে ওয়াহিদুজ্জামানের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করবেন।
 
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো:মহিউদ্দিন,সম্পাদক : মাহবুবুর রশিদ,নির্বাহী সম্পাদক : নিজাম উদ্দিন। সম্পাদকীয় যোগাযোগ : শাপলা পয়েন্ট,কানাইঘাট পশ্চিম বাজার,কানাইঘাট,সিলেট।+৮৮ ০১৭২৭৬৬৭৭২০,+৮৮ ০১৯১২৭৬৪৭১৬ ই-মেইল :mahbuburrashid68@yahoo.com: সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত কানাইঘাট নিউজ ২০১৩