Saturday, November 11, 2017

কানাইঘাটে ৬ জনের মর্মান্তিক মৃত্যুর শোক কাটতে না কাটতেই লোভা নদীতে শ্যালো মেশিনের তাণ্ডব

নিজস্ব প্রতিবেদক: গত মঙ্গলবার কানাইঘাটের সীমান্তবর্তী লক্ষীপ্রসাদ পুর্ব ইউপির লোভাছড়া পাথর কোয়ারীর পাশে অবস্থিত সুলটুনি মহাল বাংলাটিলা থেকে পাথর উত্তোলন কালে মাটি চাপা পড়ে ৪ শিক্ষার্থী সহ ৬ জনের মর্মান্তিক মৃত্যুর শোক কাটতে না কাটতেই লোভা নদীর ভাঙ্গন কবলিত তেরহালি নামক স্থান থেকে অবৈধ যান্ত্রিক চালিত শ্যালো মেশিনের সাহায্যে বারকী নৌকা দিয়ে পাথর উত্তোলনের খবর পাওয়া গেছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে  শনিবার সকাল ৬ টা থেকে যান্ত্রিক চালিত বেশ কয়েকটি শ্যালো মেশিন দিয়ে লোভা নদীর ভাঙ্গন কবলিত তেরহালি নামক স্থান থেকে নৌকায় করে পাথর উত্তোলন শুরু করেন উপজেলার সাতবাঁক ইউপির সাতপারি গ্রামের পাথর ব্যবসায়ী ময়নুল হক (কালা ময়নুল) ও পৌরসভাস্থ বায়মপুর গ্রামের প্রভাবশালী পাথর ব্যবসায়ী নুরুল আমিন সহ তাদের কয়েক জন সহযোগী। কোয়ারী এলাকা থেকে অবৈধ ভাবে পাথর উত্তোলনের সংবাদ পেয়ে স্থানীয় সাংবাদিকরা দুপুর ১২ টার দিকে ঘটনাস্থলে রওয়ানা দিলে অবৈধ ভাবে পাথর উত্তোলনের সাথে জড়িত ব্যবসায়ীরা তাদের পাথর উত্তোলনের যান্ত্রিক চালিত শ্যালো মিশিন ও পাথর বহনের নৌকার ছবি ধারণ করার সময় সাংবাদিকদের অবস্থান টের পেয়ে সেখান থেকে ছিটকে পড়ে। জানা যায়, স্থানীয় সাউদ গ্রামের ইলাই মিয়ার লোভা নদীর ভাঙ্গন কবলিত একটি দখলীয় অংশ পাথর ব্যবসায়ী নুরুল আমীন গংরা ইজারা নিয়ে সেখান থেকে শনিবার বেশ কয়েকটি যান্ত্রিক চালিত নৌকার সাহায্যে পাথর ব্যবসায়ী ময়নুল হক, নুরুল আমিন গংরা পাথর শ্রমিকদের নিয়ে অবৈধভাবে শ্যালো মেশিনের সাহায্যে পাথর উত্তোলন শুরু করলে জায়গার মালিক ইলাই মিয়া স্থানীয় প্রশাসনের অনুমতি ব্যতি রেখে তার জায়গা থেকে পাথর উত্তোলনে তিনি তাদের বাধা প্রদান করেন। এ সময় পাথর উত্তোলনের সাথে জড়িতরা তার সাথে তর্কবিতর্কে জড়িয়ে পড়ে এবং বলে আমরা স্থানীয় থানা পুলিশ ও প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে পাথর উত্তোলন করছি। এক পর্যায়ে পাথর উত্তোলনকারীরা ব্যর্থ হয়ে সেখান থেকে চলে যায় বলে দাবী করেন তিনি। স্থানীয় সচেতন মহল জানিয়েছেন বাংলাটিলা থেকে পাথর উত্তোলন করতে গিয়ে গত মঙ্গলবার ৬ জনের মর্মান্তিক মৃত্যু হলেও পাথর খেকোরা থেমে নেই। শনিবার লোভা নদীর ভাঙ্গন কবলিত এলাকা থেকে পাথর উত্তোলনের মৌসুম শুরু হওয়ার আগেই সম্পুর্ণ অবৈধ পরিবেশ বিধ্বংশী যান্ত্রিক চালিত শ্যালো মেশিনের সাহায্যে কয়েক জন অতি মুনাফা লোভী পাথর ব্যবসায়ী পাথর উত্তোলনে পায়তারা লিপ্ত রয়েছে। স্থানীয় জন সাধারণ জানিয়েছেন ময়নুল হক(কালা ময়নুল) , প্রভাবশালী পাথর ব্যবসায়ী রুহুল আমিন ও তাদের সহযোগীরা শনিবারের পাথর উত্তোলনের সাথে জড়িত রয়েছেন। এমনকি তারা গত বছর শুকনো মৌসুমে কোয়ারী এলাকায় দিঘীর মত বিশাল গর্ত তৈরী করে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন করেছিল। জানা যায় ময়নুল হক ও নুরুল আমিনের নিজস্ব সেইভ মেশিনের অনেক নৌকা, ভলগেট, পাথর বহনের যানবাহন এবং কানাইঘাট বাসস্ট্যান্ড খেয়াঘাট এলাকায় বেশ কয়েকটি অবৈধ লাইসেন্স বিহীন পাথর ভাঙ্গার ক্রোন ক্রাশার মিশিন রয়েছে। শ্যালো মেশিনের সাহায্যে পাথর উত্তোলনে সরকারের কঠোর বাধা নিষেধ থাকলেও এরাই আবার কোয়ারী এলাকা থেকে শ্যালো মেশিনের সাহায্যে পাথর উত্তোলনে নেমে পড়েছে। এ ব্যাপারে পাথর ব্যবসায়ী ময়নুল হক(কালা ময়নুল) ও নুরুল আমিনের সাথে যোগাযোগ হলে তারা জানান শ্যালো মেশিনের সাহায্যে পাথর উত্তোলনের যে সব অভিযোগ আমাদের বিরুদ্ধে আনা হয়েছে তা সত্য নয়।

শেয়ার করুন

0 comments:

পাঠকের মতামতের জন্য কানাইঘাট নিউজ কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়

নোটিশ :   কানাইঘাট নিউজ ডটকমে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক