Saturday, February 24

সিলেটের ১৯ আসনে নির্বাচন করবে জমিয়ত: বিভাগীয় কর্মী সমাবেশে প্রার্থীদের নাম ঘোষণা

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সিলেটের ১৯ আসনে প্রার্থী দেবে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ। শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সিলেট সরকারি আলিয়া মাদরাসা ময়দানে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম সিলেট বিভাগের কর্মী সম্মেলনে এ ঘোষণা দিয়ে ১৯ আসনের প্রার্থীদেরও পরিচয় করিয়ে দেন নেতৃবৃন্দ। তবে সংবাদ মাধ্যমে প্রার্থীদের নাম আগামীকাল রবিবার পাঠানো হবে বলে জানান প্রচার বিভাগের দায়িত্বে থাকা মাওলানা সালেহ আহমদ শাহবাগী। সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সভাপতি আল্লামা শায়খ আব্দুল মুমিন বলেন- দেশে এখন আইনের শাসন নেই। সরকার গায়ের জোরে ক্ষমতায় ঠিকে থাকতে চাইছে। বিরোধী মতকে স্তব্ধ করে দেয়ার জন্য এমন কোনো পন্থা নেই যা সরকার করছে না। সরকারের এসব অগণতান্ত্রিক কার্যকলাপ দেশের জন্য শুভ নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন- প্রতিহিংসার রাজনীতি বন্ধ করে দেশে গণতান্ত্রিক পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে। আর এটা সরকারকেই করতে হবে। সকল দলের উপস্থিতিতে সুষ্ঠু নির্বাচন না হলে বাংলাদেশে গণতন্ত্রের দাফন হয়ে যাবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। সিলেট বিভাগীয় সমন্বয় কমিটির আহবায়ক মাওলানা শায়খ জিয়া উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মী সম্মেলনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন- সিলেট বিভাগীয় সমন্বয় কমিটির সদস্য সচিব ও সুনামগঞ্জ জেলার সভাপতি প্রিন্সিপাল মাওলানা আব্দুল বসীর। সিলেট জেলার সহ-সম্পাদক মাওলাা আব্দুল মালিক কাসেমি, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা নজরুল ইসলাম, সুনামগঞ্জ জেলার সহ সাধারণ সম্পাদক মাওলানা তৈয়্যিবুর রহমান চৌধুরী, হবিগঞ্জ জেলা জমিয়তের ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা তাফহিমুল হক’র যৌথ পরিচালনায় সম্মেলনে উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সিনিয়র সহ সভাপতি আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জি। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- কেন্দ্রীয় মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আল্লামা কাসেমী বলেন- দেশ এক নজিরবিহীন সংকটের ভেতর দিয়ে চলছে। সরকারি দলের দমন নীতির ফলে দেশের মানুষ চরম উদ্বিগ্ন। সরকার ভালো আছে, তবে দেশের মানুষ ভালো নেই। দমন নীতি পরিহার করে দেশের উন্নয়নে মনোযোগ দিতে সরকারের প্রতি আহবান জানান তিনি। মাওলানা কাসেমী আরও বলেন- দেশের প্রতিটি সেক্টরে অনিয়ম আর দুর্নীতির মহৌৎসব চলছে। শিক্ষাখাতে চলছে নকল আর প্রশ্নফাঁসের মহড়া। যোগাযোগ ব্যবস্থা একেবারেই ভেঙ্গে পড়েছে। জনগণের জানমালের নিরাপত্তা দিতে সরকার ব্যর্থ হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন- জাতির এই দুর্দিনে জাতীয় ঐক্যের কোনো বিকল্প নেই। আগামী নির্বাচন হবে জাতীয় মুক্তির সোপান। নির্বাচনে সিলেটের ১৯ টি আসনে জমিয়তের প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ঘোষণা দেন তিনি। উদ্বোধনী বক্তব্যে আল্লামা হবিগঞ্জি বলেন- জমিয়ত শত বছরের ঐতিহ্যবাহী একটি আদর্শবাহী দল। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই জমিয়ত দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ কওে যাচ্ছে। দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে জমিয়তের নেতৃত্বে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান তিনি। জমিয়তের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও সাবেক সাংসদ এডভোকেট শাহীনুর পাশা চৌধুরী বলেন, সম্প্রতি পাবলিক পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁসের যে হিড়িক পড়েছে তা জাতির জন্য খুবই লজ্জাজনক। প্রশ্নফাঁসের মাধ্যমে ভবিষ্যত প্রজন্মকে ঘোর অন্ধকারের দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। ভবিষ্যত প্রজন্মকে ধ্বংসের পথ থেকে বাঁচাতে জমিয়তের বিকল্প নেই। জমিয়ত ক্ষমতায় গিয়ে প্রথমেই প্রশ্ন ফাঁস বন্ধের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। সম্মেলনে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- জমিয়তের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মাওলানা জহিরুল হক ভূঁইয়া, মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফি, মাওলানা জুনায়েদ আল হাবিব, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মনজুরুল ইসলাম আফেন্দেী, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা তাফাজ্জুল হক আজিজ, মাওলানা মুহাম্মদ উল্লাহ জামি, মাওলানা ফজজুল করিম কাসেমী, সহকারি মহাসচিব মাওলানা আতাউর রহমান, সাহিত্য সম্পাদক মাওলানা ফয়যুল হাসান খাদিমানী, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক প্রিন্সিপাল মাওলানা শুয়াইব আহমদ, সমাজসেবা সম্পাদক আলহাজ্ব আতিকুজ্জামান, সহকারি সাংগঠনিক সম্পাদক ও ঢাকা মহানগর সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মতিউর রহমান গাজীপুরী, ইউরোপ জমিয়তের সহ সভাপতি মাওলানা আব্দুল হাফিজ, মাওলানা আব্দুল আজিজ সিদ্দীকি, ইউকে জমিয়তের সিনিয়র সহ সভাপতি মুফতি আব্দুল মুন্তাকিম, ইউকে জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক মামনুন মুহি উদ্দীন, ইউকে জমিয়ত নেতা মাওলানা নূরে আলম হামিদী, মাওলানা আবুল হাসান, মাওলানা মুদ্দাসির, মাওলানা সৈয়দ জুবায়ের আহমদ, মাওলানা আব্দুর রব, চট্রগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক শিব্বীর আহমদ সন্দিপী, হাটহাজারী উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নাছির উদ্দীন মনির, যুব জমিয়তের সাবেক সভাপতি মাওলানা জিয়উল হক কাসেমী, কেন্দ্রীয় অফিস সম্পাদক মাওলানা আব্দুল গফফার ছয়ঘরী, প্রচার সম্পাদক মাওলানা জয়নুল আবেদীন, কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস, মুফতি জাকির হোসাইন, মুফতি মনির হাসোইন। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন- সিলেট জেলার উপদেষ্টা মাওলানা শায়খ আব্দুস গলমকাপনী, মাওলানা শায়খ মুকাদ্দাস আলী, মৌলভীবাজার জেলা জমিয়তের সভাপতি শায়খ মাওলানা আব্দুল মালিক, সহ সভাপতি মাওলানা বদরুল ইসলাম, মাওলানা জামিল আহমদ আনসারি, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আব্দুল আজিজ, হবিগঞ্জ জেলা সাধারণ সম্পাদক মুফতি সিদ্দিকুর রহমান চৌধুরী, সুনামগঞ্জ জেলার সহ সভাপতি মাওলানা আফসর উদ্দীন, সহ সম্পাদক মাওলানা হাম্মাদ গাজীনগরী, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা মুশতাক গাজীনগরী, সিলেট জেলার সহ সভাপতি মাওলানা মুশাহিদ আলী, মুফতি মুজিবুর রহমান, শামছুদ্দীন বানীগ্রামী, মহানগর জমিয়তের সভাপতি মাওলানা খলিলুর রহমান, সিনিয়র সহ সভাপতি অধ্যক্ষ হাফেজ আব্দুর রহমান সিদ্দীকি, সহ সভাপতি মাওলানা খয়রুল হোসেন, ইকরামুল আজিজ, সাধারণ সম্পাদক ফখরুয যামান, যুগ্ম সম্পাদক মাওলানা সিরাজুল ইসলাম, যুব জমিয়ত কেন্দ্রীয় সভাপতি শারফুদ্দীন ইয়াহইয়া, সাধারণ সম্পাদক মুফতি গোলাম মওলা, ছাত্র জমিয়তের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুফতি নাসির উদ্দীন খাঁন, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সাইফুর রহমান, জেলার যুগ্ম সম্পাদক মাওলানা আসরারুল হক, সহ সম্পাদক নূর আহমদ কাসেমী, চট্টগ্রাম মহানগর সহ-সাধারণ সম্পাদক শিব্বির আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ ছালিম কাসেমী, সহ সাধারণ সম্পাদক হাফেজ আব্দুস সামাদ, মাওলানা সদরুল আমিন, মাওলানা মুখতার আহমদ, ছাত্র জমিয়ত সুনামগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক হাফেজ ত্বাহা হোসাইন, মৌলভীবাজার জেলার সভাপতি মাওলানা তৈয়্যিবুর রহমান, প্রবাসি জমিয়ত নেতা মাওলানা বিলাল উদ্দীন, বিয়ানীবাজার উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান শিব্বীর আহমদ, ইউসুফ খাদিমানী, সিলেট সদর উপজেলার সভাপতি মাওলানা খলিলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা নাজিম উদ্দীন, কানাইঘাট জমিয়তের সভাপতি মাওলানা শফিকুল হক, সাধারণ সম্পাদক মুফতি এবাদুর রহমান, বিয়ানীবাজার উপজেলার সভাপতি মাওলানা আব্দুস শহিদ, সাধারণ সম্পাদক হাফেজ আব্দুল খালিক, জৈন্তাপুর উপজেলার সভাপতি মাওলানা হাবিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা কবির আহমদ, গোয়াইনঘাট উপজেলার সভাপতি মাওলানা আব্দুল আজিজ, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আব্দুল মতিন, গোলাপগঞ্জ উপজেলার সহ সভাপতি মাওলানা আব্দুল মতিন নাদিয়া, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মাহফুয আহমদ, জকিগঞ্জ উপজেলার সহ সভাপতি মাওলানা জাওয়াদুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা বিলাল আহমদ ইমরান, দক্ষিণ সুরমার সভাপতি মাওলানা শরিফ আহমদ শাহান, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আজির উদ্দীন, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার সভাপতি মাওলানা ফিরোজ আহমদ, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সাইফুল ইসলাম, ওসমানীনগর উপজেলার সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মুখতার হোসাইন, বিশ্বনাথ উপজেলার সভাপতি মাওলানা জহির উদ্দীন, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা শিব্বীর আহমদ, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার সভাপতি মুফতি আব্দুল মুছব্বির, সাধারণ সম্পাদক হাফেজ ফজল উদ্দীন, জেলা যুব জমিয়তের সভাপতি মাওলানা ওলিউর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মুহাম্মদ আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা ফয়সল আহমদ, মহানগর ছাত্র জমিয়তের সভাপতি মুহাম্মদ লুৎফুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মো. ইমরান আহমদ, জেলা ছাত্র জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক ফয়েজ উদ্দীন প্রমুখ।

শেয়ার করুন

0 comments:

পাঠকের মতামতের জন্য কানাইঘাট নিউজ কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়

নোটিশ :   কানাইঘাট নিউজ ডটকমে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক