Thursday, June 29

শাড়ি পরেও কেন সমালোচনার শিকার সোহা আলি?

শাড়ি পরেও কেন সমালোচনার শিকার সোহা আলি?

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: একেই বলে মুদ্রার এ পিঠ আর ও পিঠের গল্প! ব্যতিক্রম শব্দটাকে ভুলে না গিয়েই বলা যায়, মুদ্রার দু’পিঠই যেন সমান। গরুকে মা হিসেবে পুজো করা, গো হত্যা নিষিদ্ধ করা, রামমন্দির নিয়ে সুর চড়িয়ে একদিকে যেমন হিন্দুত্ববাদের ধ্বজা উড়ছে বীরবিক্রমে, ঠিক তেমনই মুসলিমদের ট্র্যাডিশনাল পোশাক ছেড়ে শাড়ি পরায় ট্রোলড হলেন সোহা আলি খান।

মনসুর আলি খান পতৌদি ও শর্মিলা ঠাকুরের কন্যা সোহা সন্তানসম্ভবা। দিন দুয়েক আগে বেবি শাওয়ারের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেন তিনি। গোলাপি শাড়ি, কপালে টিপ, খোঁপায় ফুলের মালায় সেজে স্বামী কুণাল খেমুর সঙ্গে ক্যামেরায় পোজ দেন। কিন্তু সেই সাজ নিয়ে যে সোশ্যাল ওয়ার্ল্ডে ট্রোলড হতে হবে- এমনটা ভাবেননি সোহা।

প্রথমত সোহা টুইট করে ইদের শুভেচ্ছা জানাননি। দ্বিতীয়ত, যেহেতু শাড়ি পড়েছেন, তাই তিনি আর মুসলিম নন! তিনি নাকি হিন্দু হয়ে গেছেন!

অন্তত এমনটাই বক্তব্য ওয়েব দুনিয়ায় কিছু মানুষের। একজন লিখেছেন, ‘সোহাকে ডিসলাইক করলাম। আমি নিশ্চিত উনি মুসলিম নন।’ অন্য এক ইউজার লিখেছেন, ‘সোহা আলি খান আপনার লজ্জা হওয়া উচিত। আপনি মুসলিম নন। ঈদ লিখতে আপনার লজ্জা লাগে?’ সোহার সমর্থনেও মন্তব্য করেছেন অনেকে। একজনের বক্তব্য, ‘শাড়ি ভারতের ঐতিহ্যশালী পোশাক। উনি পরতেই পারেন।’ আবার অন্য এক জনের ব্যাখ্যা, ‘বাঙালি মুসলিমরা তো এমন পোশাক পরেন।…’ গোটা বিষয়টি নিয়ে প্রকাশ্যে মুখ না খুললেও সোশ্যাল ওয়ার্ল্ডে সোহার ছোট্ট জবাব, ‘সাজগোজের জন্য পরিবার ও বন্ধুদের ভালবাসাই যথেষ্ট।’

তবে পোশাক বিতর্ক ওয়েব দুনিয়ায় নতুন নয়। দীপিকা পাড়ুকোন বা সানি লিওন তাদের সাহসী ফটোশুটের জন্য সম্প্রতি ট্রোলড হয়েছেন। দিন কয়েক আগে রমজান চলাকালীন ‘দঙ্গল’ খ্যাত ফতিমা সানা শেখ সুইমস্যুট পরা একটি ছবি শেয়ার করলে ট্রোলড হতে হয় তাকেও। সেটা মুসলিম সংস্কৃতির বিরোধী ছিল বলে মন্তব্য করেন অনেকে। তবে শাড়ি পরলেও যে ট্রোলড হতে হবে, সেলেবদের এ অভিজ্ঞতা সম্ভবত নতুন।

শেয়ার করুন

0 comments:

পাঠকের মতামতের জন্য কানাইঘাট নিউজ কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়

নোটিশ :   কানাইঘাট নিউজ ডটকমে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক