Tuesday, July 9

পুলিশে চাকরি দেওয়ার নামে চাঁদা দাবি! কানাইঘাটে গ্রেফতারকৃত আলীকে নিয়ে চলছে তোলপাড়

নিজাম উদ্দিন:
পুলিশের ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি) নিয়োগ পরীক্ষায় চূড়ান্ত উত্তীর্ণ এক প্রার্থীকে পুুলিশে চাকুরি দেওয়ার কথা বলে ৫ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবির ঘটনায় গ্রেফতারকৃত আলী আহমদ কে নিয়ে কানাইঘাটে তোলপাড় চলছে।

সে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়ার পর বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলী আহমদ কে নিয়ে তীব্র সমালোচনা চলছে এবং অনেকে পুলিশের পক্ষ থেকে এ ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করায় সাধুবাদ জান্নাচ্ছেন পুলিশ প্রশাসনকে। 

জানা যায়, গ্রেফতারকৃত আলী এলাকায় আওয়ামী লীগের নেতা ও কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহন শ্রমিকলীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক পরিচয় দিয়ে চাকুরী দেওয়ার নাম করে নানা ধরনের প্রতারণা করত। স্থানীয়রা জানিয়েছেন আলী আহমদ এক সময় সিলেট শহরের ছিনতাই সহ নানা অপকর্ম করত। কয়েক বছর পূর্বে লেবাস পাল্টিয়ে ধর্মীয় পোষাক পরে এলাকায় অতি বড় আওয়ামী লীগ নেতা সেজে নানা ধরনের তদবীর বানিজ্য, চাকুরী দেওয়ার নামে বানিজ্য, সরকারের উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ডের বিভিন্ন প্রকল্পের কাজে জড়িতদের ভয়ভীতি প্রদর্শন করে চাঁদা দাবী ও চাঁদা আদায় করত সে। মাঝে মধ্যে ঢাকায় গিয়ে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের অনেক নেতার সাথে ছবি তোলে সেটা বিভিন্ন মহলের প্রচার করত আলী আহমদ। এমপির ডিও লেটারের চাকুরী আবেদনকারীদের কে চাকুরী দেওয়ার নামে ধান্দা করত সে। 

কানাইঘাটের সাতবাঁক ইউপির জুলাইগ্রামের দরিদ্র জমির উদ্দিনের পুত্র পুলিশের কনস্টবল পদে সদ্য উত্তীর্ণ ইমরান হোসেনের পরিবারের কাছে ৫ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে নানা ধরনের ভয়ভীতি প্রদর্শন এবং চাকুরী হারানোর ভয় দেখানোর অভিযোগে সিলেটের নবাগত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিনের নির্দেশে বহুরুপী প্রতারক আলী আহমদ কে গত শনিবার রাতে গ্রেফতার করেন কানাইঘাট থানার ওসি আব্দুল আহাদ। পুলিশের কনস্টেবল পদে চাকুরী দেওয়ার নাম করে গ্রেফতারকৃত কানাইঘাট সাতবাক ইউপির জয়পুর (পূর্ণাখলা) গ্রামের মৃত মকবুল আলীর পুত্র আলী আহমদ ও তার সহযোগী জকিগঞ্জ উপজেলার সুলতানপুর ইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুস সাত্তারের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজীর মামলা করেন পুলিশের কনস্টবল পদে উত্তীর্ণ ইমরান হোসেনের মা আনোয়ারা বেগম।

এদিকে গ্রেফতারকৃত আলী আহমদ কে মামলার তদন্তের স্বার্থে সিলেটের বিজ্ঞ আদালতে গতকা্ল রবিবার ৭ দিনের পুলিশ রিমান্ড চেয়েছেন মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আবু কাউছার। রিমান্ড শুনানী পরবর্তীতে অনুষ্টিত হবে বলে তিনি জানিয়েছে। 

অনুসন্ধান ও বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, গ্রেফতারকৃত আলী আহমদ আওয়ামী লীগের নেতা পরিচয় দিয়ে সাতবাঁক ইউনিয়নে সব সময় ধাপট দেখালেও ইউপি আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের কোন সদস্য সে নেই বলে ইউ/পি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাতবাঁক ইউপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আব্দুন নূর জানিয়েছেন। তার নানা ধরনের নেতিবাচক কর্মকান্ডের কারণে এলাকায় আওয়ামী লীগের বদনাম হচ্ছিল।

পুলিশ কনস্টবল পদে চাকুরী দেওয়ার নাম করে আমার ইউনিয়নের দরিদ্র পরিবারের সন্তান ইমরান হোসেনের পরিবারের কাছে ৫ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবীর ঘটনায় তিনি আলী আহমদের কঠোর শাস্তির দাবী করছেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে চাঁদাবাজী মামলার অপর আসামী জকিগঞ্জ সুলতানপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুস সাত্তার ও আলী আহমদ দীর্ঘদিন ধরে পুলিশে নিয়োগ দেওয়া সহ বিভিন্ন চাকুরীর ক্ষেত্রে চাকুরী প্রার্থীদের কাছ থেকে উৎকোচ আদায়ে নানা ধরনের প্রতারনায় লিপ্ত ছিল। জকিগঞ্জের অনেকে জানিয়েছেন আব্দুস সাত্তার মারাত্মক প্রতারক প্রকৃতির লোক। আওয়ামী লীগের নাম ভাংগিয়ে নানা ধরনের প্রতারনা চালিয়ে যাচ্ছে সে। তাকে গ্রেফতার করলে নানা অপকর্মের তথ্য পাওয়া যাবে। কানাইঘাট সহ সাতবাঁক এলাকার সাধারণ মানুষ ও পুলিশ কনস্টেবল পদে নিয়োগ পাওয়া ইমরান হোসেনের পরিবার প্রতারক আলী আহমদ ও তার সহযোগি আব্দুস সাত্তারের বিরুদ্ধে সিলেটের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন কঠোর প্রদক্ষেপ গ্রহণ করায় পুলিশের ভাবমুর্তি উজ্জল হয়েছে বলে জানিয়েছেন। ভবিষ্যতে পুলিশে চাকুরী দেওয়ার নামে যাতে করে এ ধরনের অপকর্মের সাথে কেউ জড়িত না হয় এ জন্য আলী আহমদের বিরুদ্ধে মামলা দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে বলে অনেকে জানান।

কানাইঘাট নিউজ ডটকম/৯জুলাই ২০১৯

শেয়ার করুন

0 comments:

পাঠকের মতামতের জন্য কানাইঘাট নিউজ কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়

নোটিশ :   কানাইঘাট নিউজ ডটকমে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক