Saturday, July 28

কানাইঘাটে বালু উত্তোলনকারীদের ধাওয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট উপজেলার রাজাগঞ্জ ইউনিয়নের সুরমা নদীর ভয়াবহ নদী ভাঙ্গন কবলিত তালবাড়ী খালপার এলাকা থেকে অবৈধভাবে একাধিক শক্তিশালী ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলণের চেষ্টা প্রতিহত করে দিয়েছেন স্থানীয় জনতা। নদীর দু’পারের লোকজনের ধাওয়া খেয়ে বালু উত্তোলণকারী লাঠিয়াল বাহিনীর লোকজন পালিয়ে যায়। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,  শনিবার বিকেল ৩টার দিকে একদল অস্ত্রধারী, লাঠিয়াল বাহিনীর মাধ্যমে সুরমা নদীর মারাত্মক ভাঙ্গন কবলিত কানাইঘাটের তালবাড়ী খালপার এবং বিয়ানীবাজার উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নের উত্তর ভাগ নয়াপাড়া সুরমা নদীর ভাঙ্গন কবলিত এলাকা থেকে একাধিক ড্রেজারের সাহায্যে বালু উত্তোলণের চেষ্টা করেন সিলেটের আলোচিত বালু ব্যবসায়ী আফতাব উদ্দিনের লোকজন। এ সময় নদীর তীরবর্তী তালবাড়ী এলাকার বিভিন্ন গ্রাম ও বিয়ানীবাজার উত্তর ভাগ নয়াপাড়া গ্রামের লোকজন বালু উত্তোলন বন্ধ করার চেষ্টা করলে বালু ব্যবসায়ী আফতাব উদ্দিনের লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। একপর্যায়ে বিয়ানীবাজার উপজেলার পূর্ব আলীনগর গ্রামের বাজিত আলীর পুত্র সাদ উদ্দিন বন্দুক উচিয়ে প্রতিবাদকারী লোকজনদের উপর গুলি করার চেষ্টা করলে নদীর দু’পারের লোকজনদের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।এক পর্যায়ে স্থানীয় জনতার ধাওয়া খেয়ে আফতাব উদ্দিনের লোকজন বালু উত্তোলনের ড্রেজার নিয়ে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। ২/৩ জন কে ধরে স্থানীয় জনতা পিটুনি দেয়। খবর পেয়ে কানাইঘাট থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন। নদী ভাঙ্গন কবলিত খালপার, তালবাড়ী সহ কয়েকটি গ্রামের লোকজন জানিয়েছেন, রাজাগঞ্জ তালবাড়ী বালু মহাল বলে কোন অস্থিত নেই। গত ৩/৪ বছর ধরে সুরমা নদীর খালপার এলাকা থেকে বালু উত্তোলন করার ফলে এলাকার অসংখ্য বাড়ী ঘর, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সুরমা ডাইক ইতোমধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এখান থেকে জীবন দিয়ে হলেও আমরা বালু উত্তোলন করতে দেবনা। জানা গেছে কয়েক দিন পূর্বে বালু ব্যবসায়ী আফতাব উদ্দিনকে রাজাগঞ্জ বালু মহাল জেলা প্রশাসক কর্তৃক লীজ দেওয়া দেওয়া হয়েছে বলে সুরমা নদীর খালপার এলাকা থেকে একাধিক ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনের চেষ্টা করেন। কিন্তু এলাকার ছাত্র-ছাত্রী ও স্থানীয় লোকজনের বাধার মুখে তিনি বালু উত্তোলন করতে পারেননি। বালু উত্তোলন বন্ধে কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীরা নদীর তীরে বিশাল মানববন্ধনও করেন। এ নিয়ে স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানা পুলিশ বরাবরে রাজাগঞ্জ বালু মহালের কর্তৃত্ব নিয়ে কয়েকটি অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। খালপার তালবাড়ী, রাজাগঞ্জ এলাকার লোকজন জানান,মহামান্য হাইকোর্টের একটি রীটের প্রেক্ষিতে খালপার এলাকা থেকে বালু ব্যবসায়ী আফতাব উদ্দিন কর্তৃক বালু উত্তোলনে বাধা নিষেধ রয়েছে। তারপরও তিনি জোরপূর্বক অবৈধভাবে নদী ভাঙ্গন কবলিত কানাইঘাটের খালপার তালবাড়ী এলাকা থেকে পেশী শক্তির মাধ্যমে ড্রেজারের সাহায্যে বালু উত্তোলনের পায়তারায় লিপ্ত রয়েছেন। অপর দিকে বালু ব্যবসায়ী আফতাব উদ্দিনের দাবী তিনি সিলেটের জেলা প্রশাসক থেকে রাজাগঞ্জ বালু মহাল মহাল ইজারা নিয়েছেন বৈধভাবে। তাই মহাল থেকে বালু উত্তোলনে তার অধিকার রয়েছে। এব্যাপারে স্থানীয় তহশীলদার জাহেদ আহমদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বালু উত্তোলন নিয়ে সৃষ্ট ঘটনার বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানান। অপর দিকে স্থানীয়দের অভিযোগ অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের সাথে তহশীলদারের যোগ সূত্র রয়েছে। 

 কানাইঘাট নিউজ ডটকম/২৮জুলাই ২০১৮ ইং্

শেয়ার করুন

0 comments:

পাঠকের মতামতের জন্য কানাইঘাট নিউজ কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়

নোটিশ :   কানাইঘাট নিউজ ডটকমে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক