Thursday, October 25

সৌদি কনস্যুলেটের কুয়ার ভিতর কি আছে?

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক:
তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটে খুন হওয়া সাংবাদিক জামাল খাশোগির মৃতদেহের সন্ধান পাওয়াটা এখন তদন্তের অন্যতম প্রধান লক্ষ্যে পরিণত হয়েছে।
তুরস্কের সংবাদ মাধ্যম বলছে, সৌদি কর্মকর্তারা এখন পর্যন্ত কনস্যুলেটের ভেতরে একটি কুয়ায় তল্লাশি চালানোর অনুমতি দেননি তদন্তকারীদের ।
ইতোমধ্যে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে জামাল খাশোগির মৃতদেহের খণ্ডিত অংশ পাওয়া গেছে বলে খবর বেরুচ্ছে। তুরস্কের বিরোধীদলের একজন নেতাকে উদ্ধৃত করে কিছু সংবাদপত্র সৌদি কনসাল জেনারেলের বাড়ির বাগানে এবং কুয়াতে মৃতদেহ পাবার কথা বলছে।
কিন্তু তুরস্কের পুলিশ সূত্রগুলো এসব খবর সরাসরি প্রত্যাখ্যান করেছে। সূত্রগুলো বলছে, তারা এখনো মৃতদেহের সন্ধান করছে। এর আগে পুলিশ মৃতদেহের খোঁজে সৌদি কনস্যুলেটের নিকটবর্তী একটি বনভূমিতে অনুসন্ধান চালায়। সৌদি আরব বলেছে, খাশোগির মৃতদেহ কোথায় তা তারা জানে না।
ইতিমধ্যে মার্কিন গুপ্তচর সংস্থা সিআইএর প্রধান জিনা হ্যাসপেল তুরস্কে সফরে গিয়েছেন। সেদেশের গোয়েন্দা কর্তৃপক্ষ তাকে এই হত্যাকাণ্ডের অডিও-ভিডিও রেকর্ডিং দেখিয়েছেন বলে তুরস্কের দুটি সংবাদপত্র রিপোর্ট করেছে।
দৈনিক সাবাহ সংবাদপত্র বলছে, গোয়েন্দা কর্মকর্তারা তার সাথে সৌদি কনস্যুলেটের ভেতর থেকে করা রেকর্ডিং শেয়ার করেছেন - যাতে ওই হত্যাকাণ্ডের বীভৎস খুঁটিনাটি আছে।
একজন সৌদি কর্মকর্তা নাম উল্লেখ না করে বার্তা সংস্থা রয়টারকে বলেছেন, ধস্তাধস্তির সময় খাশোগির গলা পেঁচিয়ে ধরায় তিনি শ্বাসরুদ্ধ হয়ে মারা যান। তারপর তার মৃতদেহ একটি কার্পেটে জড়িয়ে ফেলে দেবার জন্য একজন স্থানীয় সহযোগীর হাতে তুলে দেয়া হয়।
গত ২ অক্টোবর তালাক সংক্রান্ত নথিপত্র সংগ্রহের জন্য ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে গিয়েছিলেন ৫৯ বছর বয়সী খাশোগি। এরপর তাকে আর দেখা যায়নি।
তিনি নিখোঁজ হওয়ার পর থেকেই এ ঘটনায় সৌদি কর্মকর্তারা জড়িত রয়েছেন বলে দাবি করে আসছিল তুরস্ক। তারা আরো বলেছিল, সৌদি কনস্যুলেটের অভ্যন্তরেই তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে। তুর্কি তদন্তকারীদের বরাত দিয়ে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমগুলো বলেছে, সৌদি আরব থেকে আসা ১৫ জনের একটি দল তাকে কনস্যুলেটের ভেতরেই হত্যা করে এবং তার লাশ টুকরো টুকরো করে।
প্রথম দিকে এই হত্যাকাণ্ড ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করলেও পরে খাশোগিকে হত্যা করার কথা স্বীকার করে নেয় সৌদি সরকার। তারা বলছে, কিছু গোয়েন্দা এজেন্ট তাদের ক্ষমতার সীমার বাইরে গিয়ে এ কাজ করেছে।
প্রেসিডেন্ট রেসেপ তায়েপ এরদোয়ান বলেছেন, সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগজির হত্যাকান্ডকে তিনি কোনোভাবেই ধামাচাপা পড়তে দেবেন না।
তিনি একে একটি পরিকল্পিত রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড হিসেবে উল্লেখ করে বলেছেন সৌদি গোয়েন্দা এবং অন্য কর্মকর্তারা এ ঘটনায় জড়িত। খাশোগি হত্যায় সৌদি আরবে আটক সন্দেহভাজন ১৮ ব্যক্তির সবার বিচার তুরস্কের মাটিতে হতে হবে বলেও দাবি জানিয়েছেন এরদোয়ান।
এদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, খাশোগির হত্যাকাণ্ড ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা ছিল ইতিহাসের সবচেয়ে জঘন্য চেষ্টা।
সূত্র: বিবিসি বাংলা

শেয়ার করুন

0 comments:

পাঠকের মতামতের জন্য কানাইঘাট নিউজ কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়

নোটিশ :   কানাইঘাট নিউজ ডটকমে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক