যুবদল নেতা জাহাঙ্গীর চৌধূরীর চাচার মৃত্যুতে কানাইঘাট উপজেলা বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদলের শোক

Kanaighat News on Friday, June 30, 2017 | 10:55 PM


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: কানাইঘাটের কৃতি সন্তান সাবেক ছাত্রনেতা ইতালি পাদোভা শাখা যুবদলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর চৌধূরীর চাচা ৭ নং দক্ষিণ বাণীগ্রাম ইউনিয়নের ঘড়াইগ্রাম নিবাসী অবসর প্রাপ্ত শিক্ষক রফিকুল হকের মৃত্যুতে গভীর শোক ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন কানাইঘাট পৌর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল হুসেন বুলবুল,উপজেলা যুবদলের সভাপতি নুরুল ইসলাম,সাধারণ সম্পাদক খছরুজ্জামান পারভেজ,পৌর যুবদলের সভাপতি জাকারিয়া হাবিব,সাধারণ সম্পাদক রোবেল আহমেদ,সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন রশীদ উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক রুহুল আমিন, সদস্য সচিব আবুল বাশার,পৌর ছাত্রদলের আহবায়ক আর এ বাবলু,পৌর ছাত্রদলের সদস্য সচিব দেলোওয়ার ইসমাইল সদস্য,ছাত্রদলের সদস্য দেলোওয়ার হুসেন প্রমূখ।(বিজ্ঞপ্তি)

কানাইঘাটে হবিবুর রহমান হত্যার প্রতিবাদে এলাকাবাসীর মানববন্ধন


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাটে প্রকাশ্যে দিবালোকে রাস্তায় হবিবুর রহমান নামের এক যুবককে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে নির্মম ভাবে হত্যার ঘটনায় ফুঁসে উঠেছে এলাকার সর্বস্থরের মানুষ। এই ন্যাক্কারজনক হত্যা কান্ডের প্রতিবাদে শুক্রবার সকাল ১০টায় উপজেলার ২নং লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপির দক্ষিণ লক্ষীপ্রসাদ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন রাস্তায় এলাকাবাসীর উদ্যোগে শত শত মানুষের উপস্থিতিতে চিহ্নিত খুনিদের
ফাসিঁর দাবীতে ঘন্টাব্যাপী বিশাল মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়। এলাকার বিশিষ্ট মুরব্বী হাজী আমির আলীর সভাপতিত্বে মানববন্ধন কর্মসূচীতে বক্তব্য রাখেন, বিশিষ্ট মুরব্বী ফারুক আহমদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল হক, মনজুর হোসেন, মাষ্টার নুরুল হোসেন, মুরব্বী আব্দুল হক, কামাল আহমদ, মাষ্টার আম্বিয়া, অবঃ পুলিশ কর্মকর্তা তমিজ উদ্দিন, কবির হোসেন, নুর মোহাম্মদ, আব্দুস ছালাম, সিদ্দেক হোসেন, সাবেক ইউপি সদস্য আজিজুল হক প্রমূখ।

জাহাঙ্গীর চৌধুরী’র চাচার মৃত্যুতে সিলেট জেলা বিএনপির শোক


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সাবেক ছাত্রনেতা বর্তমান ইতালি পাদোভা শাখা যুবদলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর চৌধুরী’র চাচা অবসর প্রাপ্ত শিক্ষক রফিকুল হক চৌধুরীর মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কাহের চৌধুরী শামীম ও সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ। এক শোক বার্তায় তারা মরহুমের আত্নার মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।(বিজ্ঞপ্তি)

ছোট্ট মেয়েকে নিয়ে কবরে শুয়ে বাবা চেনাচ্ছেন শেষ ঠিকানা!


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: বাবা-মায়ের কাছে সন্তানের মৃত্যুর থেকে মর্মান্তিক আর কী-ই বা হতে পারে! সন্তান একটু একটু করে মৃত্যুর মুখে ঢলে পড়ছে, এটা চাক্ষুস করার যন্ত্রণা বলে বোঝানো কঠিন। কৃষক এক বাবাও জেনেছেন এই কঠিন সত্যিটা। খবর ইন্ডিয়া টাইমসের। জেনেছেন, থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত তার ২ বছরের মেয়েটা আর বেশিদিন তাদের কাছে নেই। সন্তানকে বাঁচানোর আর কোনও আশা নেই বুঝতে পেরে, তিনি মেয়ের জন্য আরামে শেষনিদ্রার ব্যবস্থা করেছেন। মেয়ের জন্য আগাম কবর খুঁড়ে সেখানে তাকে নিয়ে গিয়ে খেলাধুলা করেন। যাতে মৃত্যুর পর এই জায়গাটা তার কাছে অপরিচিত না লাগে। মর্মান্তিক এই ঘটনা চিনের। শুনলে ডুকরে কেঁদে ওঠে মন। সিচুয়ান প্রদেশের বাসিন্দা পেশায় কৃষক ঝাং লিয়ং-এর ২ বছরের মেয়ে ঝাং জিনলেই ২ মাস বয়স থেকে দূরারোগ্য থ্যালাসেমিয়া রোগে আক্রান্ত। এখনও পর্যন্ত তার চিকিত্‍‌সায় খরচ হয়ে গিয়েছে ১০ লক্ষ টাকা। নিঃস্ব বাবার এখন মেয়ের মৃত্যুর অপেক্ষা করা ছাড়া আর উপায় নেই। ঝাং বলছেন, ‘আমরা অনেকের থেকে টাকা ধার করেছি। আর কেউ আমাদের টাকা ধার দিতে রাজি নয়। তাই মেয়েকে এখানে নিয়ে এসে খেলাধুলো করার ভাবনাটা আমার মাথায় আসে। এখানেই ও শান্তিতে নিদ্রা যাবে।’ ছোট্ট মেয়েটির বাবা-মা এক সময় ভেবেছিলেন, আর একটি বাচ্চা নেবেন। সদ্যোজাতের আম্বিলিকাল কর্ডের রক্ত দিয়ে সারিয়ে তুলবেন প্রথম সন্তানকে। কিছুদিনের মধ্যে অন্তঃসত্ত্বাও হয়ে পড়েন ঝাং-এর স্ত্রী। তবে কিছুদিনের মধ্যেই তারা বুঝতে পারেন, রক্ত প্রতিস্থাপনে যে পরিমাণ অর্থের প্রয়োজন তা জোগার করা তাদের পক্ষে অসম্ভব। এরপর আর কোনও আশা জোর করে মনের মধ্যে জিইয়ে রাখেননি এই দুঃস্থ বাবা-মা। মেয়ের পরকালটাকে সুরক্ষিত করার চেষ্টায় লেগে পড়েন তারা। মৃত্যুর পর ওই কবরে একা একা শুয়ে থাকতে যাতে ভয় না করে, সে জন্য আগেভাগেই ওই জায়গাটার সঙ্গে পরিচিত করাচ্ছেন ছোট্ট মেয়েকে। সেখানে এখন থেকে খেলাধুলো করলে ওই শিশু মৃত্যুর পরও বাড়িতেই আছে বলে মনে করবে, এই ভাবনাই ঝাং ও তার স্ত্রীর যন্ত্রণায় মলম দিচ্ছে।

এই চোখ ধাঁধানো সেন্টারে হবে মেসির বিয়ে


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: বিয়ের বাদ্যি বাজিয়েছেন বেশ আগে। এরপর থেকেই উৎসাহ নিয়ে ৩০ জুনের দিকে তাকিয়ে ফুটবল বিশ্ব ও রোসারিওবাসী। আগামীকাল আন্তোনেল্লা রোকুজ্জোকে বিয়ে করছেন লিওনেল মেসি। বিয়ের ভেন্যুর জন্য কোনো নয়নাভিরাম দ্বীপ নয়, নিজের জন্মস্থানে ফিরে গেছে এই জুটি। রোসারিওর পাঁচ তারকা সিটি সেন্টারে একদম কাছের লোকজনদের নিয়ে বিয়ের পিঁড়িতে (অবশ্য বিয়েটা দাঁড়িয়েই হওয়ার কথা) বসবেন দুজন। সবার তাই আগ্রহ, কোথায় এই সিটি সেন্টার, কেমন সে ভেন্যু যেখানে শুধু মেসি নন, নেইমার সুয়ারেজ থেকে পপ শিল্পী শাকিরাও হাজির হবেন? ডেইলি মেইল সে উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করেছে ছবিতে ছবিতে— ১। পাখির চোখে রোসারিওর হোটেল সিটি সেন্টার ক্যাসিনো। এখানেই রাত ১০টায় অতিথিরা জড়ো হবেন। বিয়ের অনুষ্ঠান ও এর পরের উৎসব এই হোটেলেই অনুষ্ঠিত হবে। ২। পাঁচ তারকা সিটি সেন্টারে অতিথিদের জন্য থাকছে সুইমিংপুল ও স্পা। তবে এ ঝরনা শুধু শোভাবর্ধনের জন্য। ৩। এই সেই বিশাল সুইমিংপুল, যেখানে অতিথিদের জন্য রাখা হয়েছে বিনোদনের নানা ব্যবস্থা। ৪। সময় কাটানোর জন্য চাইলে ক্যাসিনোতেও যেতে পারবেন। ৫। এ রকম বিলাসবহুল সব রুমেই ক্ষণিক আবাস করবেন মেসি ও তাঁর বন্ধুরা। ৬। মেসি শুধু রুম নয়, পুরো রিসোর্ট ভাড়া করেছেন। সেখানে আছে বেশ কিছু রেস্তোরাঁ ও বার, যা শুধু মেসিদের জন্য খোলা থাকবে। ৭। বিয়ের অনুষ্ঠানে গিয়ে কারও একটু টেনিস খেলার ইচ্ছা জাগলে তা পূরণের ব্যবস্থাও আছে সিটি সেন্টারে।

জিদানের সাথে নতুন চুক্তি করবে মাদ্রিদ

জিদানের সাথে নতুন চুক্তি করবে মাদ্রিদ

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: কোচ জিনেদিন জিদানের সাথে নতুনভাবে চুক্তি করাই এখন রিয়াল মাদ্রিদের প্রথম ও মূল লক্ষ্য বলে উল্লেখ করেছেন ক্লাব সভাপতি ফ্লোরেনতিনো পেরেজ।

চ্যাম্পিয়নস লীগে জুভেন্টাসকে হারিয়ে পরপর দুইবার শিরোপা জয়ের আনন্দেই পেরেজ এই মন্তব্য করেন।

মৌসুম শেষের বিরতির পরে ক্লাবের ফিরে আসার পওে ৪৫ বছর বয়সী ফ্রেঞ্চ তারকার সাথে চুক্তি নবায়ন করাই এখন মাদ্রিদের মূল কাজ বলে পেরেজ জানিয়েছেন।

স্থানীয় গণমাধ্যমে এ সম্পর্কে পেরেজ বলেছেন, অবশ্যই সে নিরাপদ। ছুটি কাটিয়ে ফিরে আসার পর আমাদের প্রথম কাজই হবে তার সাথে চুক্তি নবায়ন করা। তার থেকে ভাল করে কেউ এই ক্লাব ও ড্রেসিং রুমকে চেনেনা।

‘গত ১৭ মাস ধরে সে ক্লাবকে সাফল্য এনে দিয়েছে, আর এর মাধ্যমে নিজে সফল হয়েছে। প্রায়ই সে গণমাধ্যমের কারণে ক্লাবের ভবিষ্যত প্রসঙ্গে এড়িয়ে যাবার চেষ্টা করেছে। কিন্তু আমি নিশ্চিত করে বলতে চাই, আমি তার সাথেই সম্পর্ক রাখতে চাই, এমনকি ক্লাব যদি নাও জিতে।’

কতটা টেকসই নকিয়া ৩৩১০?

কতটা টেকসই নকিয়া ৩৩১০?

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: পুরনো মডেলের নকিয়া ৩৩১০ ফোনটি নতুন রূপে বাজারে ফিরেছে। সম্প্রতি এই ফোনটির শক্তিমত্ত্বা পরীক্ষা করা হয়েছে। এক্ষেত্রে ফোনটির স্ক্র্যাচ, বার্ন ও বেন্ড টেস্ট করা হয়েছে। এসব পরীক্ষায় ফোনটি উতরে গেছে।

জনপ্রিয় ইউটিউব চ্যানেল ভলোকিন প্রজেক্ট নকিয়া ৩৩১০ নিয়ে পরীক্ষা-নীরিক্ষা চালায়। এই পরীক্ষায় নকিয়া ৩৩১০ সর্বোচ্চ নম্বর পেয়েছে। তারা এ নিয়ে একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে। ভিডিওটি ৭ মিনিটের।



দীর্ঘ স্থায়িত্বের ফোন নকিয়া ৩৩১০। এই ফোনটিতে ডিসপ্লেতে ছুড়ি দিয়ে আঁচর কাটলেও এর ডিসপ্লে অক্ষত থাকবে। কেননা, এই ফোনটির ডিসপ্লেতে কর্নিং গরিলা গ্লাস প্রটেকশন রয়েছে। প্লাস্টিক ডিজাইনের তৈরি ফোনটি স্ক্র্যাচ প্রুফ।

শিশুর বুদ্ধি বিকাশে সহায়ক খাদ্য

শিশুর বুদ্ধি বিকাশে সহায়ক খাদ্য

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: শিশুরা একটু দুরন্তই হয়। সারা দিন ছুটোছুটি করে মাতিয়ে রাখে সবাইকে। এক জায়গায় তাকে বই নিয়ে বসিয়ে রাখা মুশকিল। কিছুতেই পড়তে চায় না। লেখা-পড়া করতে বললেই নানা বায়না জুড়ে দেয়।

কখনো কখনো শিশুর চঞ্চল আচরণ আপনাকে অস্থির করে তোলে, চিন্তায় ফেলে দেয়। আপনার মনে নানা প্রশ্ন আসে শিশুর সঠিক বুদ্ধির বিকাশ হচ্ছে তো?

ছোট শিশু একটু দুষ্টুমি করবে এটাই স্বাভাবিক। তবে তার বেড়ে ওঠার পাশাপাশি বুদ্ধির বিকাশও জরুরি। আর এর জন্য শিশুর খাবার-দাবারের প্রতি বিশেষ নজর দিতে হবে।

এমন কিছু খাবার আছে যা শিশুর মস্তিষ্ক সক্রিয় ও সতেজ রাখে। আর মস্তিষ্ক সক্রিয় এবং সতেজ থাকলে শিশুর মেধা ও বুদ্ধি বিকাশ হয়।

শিশুর মেধা বিকাশে সহায়ক এমন কিছু খাবার সম্পর্কে পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসক।

মায়ের দুধ:
শিশুকে অন্তত দুই বছর বুকের দুধ খাওয়ানো উচিত। কারণ মায়ের দুধ পান করলে শিশুর বুদ্ধিমত্তা বাড়ে।

ডিম:
ডিমে রয়েছে প্রচুর আয়রন। যা লোহিত কণিকা তৈরি করে রক্তের উপাদানে সঠিক মাত্রা বজায় রাখে। এতে মস্তিষ্কে অক্সিজেন সরবরাহ হয়। যা চিন্তাশক্তি ও বুদ্ধিমত্তা বাড়ায়। গবেষণায় দেখা যায়, যারা প্রতিদিন অন্তত একটি ডিম খায় তাদের স্মৃতিশক্তি অন্যদের তুলনায় অন্তত ৭০% বেশি ভালো থাকে।

আখরোট:
আখরোটে অনেক বেশি পরিমাণে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে। এটি শিশুসহ সব বয়সীদেরই মস্তিষ্কের যে কোনো রোগ থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে।

বাদাম:
শিশুকে প্রতিদিন বাদাম খেতে দিন। কাজুবাদাম, পেস্তা বাদাম, চীনাবাদামসহ যে কোনো ধরনের বাদামই শিশুর মানসিক বৃদ্ধিতে সহায়ক। কারণ বাদামে রয়েছে ভিটামিন ‘ই’ যা মস্তিষ্কের সমন্বয় সাধনের ক্ষমতা বাড়ায়।

ব্লু বেরি:
বুদ্ধি বিকাশে ব্লু বেরির জুড়ি নেই। এতে আছে ফ্ল্যাভোনয়েডস। তাই ব্লু বেরিকে ব্রেইনের জন্য সবচেয়ে কার্যকর খাবার বলে ধরা হয়।

ডার্ক চকলেট:
ডার্ক চকলেটে থাকে ৭৫% কোকো যা শিশুর মেধা ও বুদ্ধি বিকাশের জন্য উপকারী। ডার্ক চকলেট মস্তিষ্কে নিউরন তৈরি করে যা নতুন বিষয় মনে রাখতে সাহায্য করে।

শাকসবজি:
শাকসবজিও শিশুর মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা বাড়ায়। পাতা কপি ও পালং শাকে রয়েছে উচ্চ মাত্রায় ভিটামিন 'কে' এবং বিটা ক্যারোটিন। যা শিশুর স্মৃতিশক্তি বাড়ায়। পুষ্টিগুণে গুণান্বিত টমেটো। এটি মস্তিষ্কের শক্তি বৃদ্ধি ও স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

সামুদ্রিক মাছ:
মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বাড়াতে সামুদ্রিক মাছ বেশ উপকারী। মস্তিষ্কে থাকা ফ্যাটি এসিডের ৪০% হচ্ছে ডিএইচএ, যা সামুদ্রিক ও মাছের তেলে পাওয়া যায় ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড হিসেবে। তাই শিশুর বয়স এবং দেহের গঠন অনুযায়ী পর্যাপ্ত পরিমাণে সামুদ্রিক মাছ ও মাছের তেল সপ্তাহে অন্তত ৩ দিন খাওয়াতে হবে।

বিভিন্ন ফল:
শিশুর প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় রাখতে পারেন জাম, লিচু, স্ট্রবেরি বা আঙ্গুরের মতো ফলগুলো। কারণ এ ফলগুলোতে রয়েছে এন্টি-অক্সিডেন্ট যা ব্রেইনের কোষের অক্সিডেশন এবং ক্রমাগত ক্ষয়ে যাওয়া রোধ করে ব্রেইনের কার্যক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়।

এছাড়াও, গম, আমলকী, পেঁয়াজ, কালোজিরা, আপেল, কুমড়ো বীজ, মধু, খেঁজুর ও বীট শিশুর স্মৃতিশক্তি বাড়াতে সহায়তা করে।

ভারতে গরুর মাংস বহনের অভিযোগে পিটিয়ে হত্যা

ভারতে গরুর মাংস বহনের অভিযোগে পিটিয়ে হত্যা

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ভারতের ঝাড়খন্ড রাজ্যে গরুর মাংস বহনের সন্দেহে বৃহস্পতিবার এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে খুন করা হয়েছে। এ সময় ওই ব্যক্তির মাইক্রোবাসটিও পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

ঝাড়খন্ড রাজ্যের রামগড় জেলার বজরতন্ড গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ব্যক্তির নাম আসগর আনসারি ওরফে আলিমুদ্দিন (৫০)। তার বাড়ি  জেলার নয়াসরাই গ্রামে।

পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার আলিমুদ্দিন তার মাইক্রোবাসে করে বাড়িতে ফিরছিলেন। গাড়িতে গরুর মাংস বহন করা হচ্ছে সন্দেহে বজরতন্ড গ্রামে একদল লোক তাঁর গাড়ি থামায়। এ সময় লোকজন আলিমুদ্দিনকে বেধড়ক মারধর করে। এরপর গাড়িটিতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়।

রামগড় জেলার আর কে মালিক নামের এক জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে গিয়ে আলিমুদ্দিনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এটি একটি পূর্বপরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড বলে মন্তব্য করেন এই পুলিশ কর্মকর্তা।

আর কে মালিক জানান, আলিমুদ্দিন মাংসের ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তবে ঘটনার দিন তার গাড়িতে গরুর মাংস ছিল, এটা নিশ্চিত নয়। গাড়িতে মাংস আছে সন্দেহে তাকে মারধর করা হয়েছে। হামলাকারীদের চিহ্নিত করা সম্ভব হয়েছে বলে জানান তিনি।

ভারতের ঝাড়খন্ড রাজ্যে গরুর মাংস নিষিদ্ধ। হামলাকারীদের অভিযোগ, আলিমুদ্দিন বাজার থেকে গোপনে গো-মাংস কিনে গাড়িতে করে বাড়ি ফিরছিলেন।

এর তিন দিন আগে ঝাড়খন্ডের দেওরিতে উসমান আনসারি নামের এক ব্যক্তির বাড়ির বাইরে মরা গরু পড়ে থাকতে দেখে তাকে বেধড়ক মারধর করা হয়। পরে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় ওই ব্যক্তির বাড়িতে।

সারাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২১

সারাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২১

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় মোট ২১ জন নিহত হয়েছেন।

বুধবার দিনগত রাত ১টা থেকে বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত সিরাজগঞ্জ, গোপালগঞ্জ, টাঙ্গাইল, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, চুয়াডাঙ্গা, পাবনা, বগুড়া ও রাজধানীর গুলিস্তানে এসব দুর্ঘটনা ঘটে।

গোপালগঞ্জ

বৃহস্পতিবার সকাল পৌনে ১০টার দিকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের কাশিয়ানী উপজেলার মাঝিরগাতি এলাকায় বাসের ধাক্কায় মাইক্রোবাসের ছয় যাত্রী নিহত হয়েছে। এসময় আহত আরও হয়েছেন আটজন।

কাশিয়ানি থানার ওসি একেএম আলী নূর হোসেন জানান, কাশিয়ানি থেকে যাত্রী নিয়ে একটি মাইক্রোবাসটি ঢাকায় যাচ্ছিল। পথে একটি দ্রুতগতির বাস ওই মাইক্রোবাসটিকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই তিনজন নিহত হন। এসময় আহত হন কমপক্ষে ১০ জন। আহতদের কাশিয়ানী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে সেখানে চিকিৎধীন অবস্থায় আরও দুইজনের মৃত্যু হয়।

সিরাজগঞ্জ

বুধবার দিবাগত রাত ১টার দিকে ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কে সিরাজগঞ্জের রয়হাটিতে মাইক্রোবাস ও বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে চারজন নিহত হয়। এসময় আহত হয়েছেন কমপক্ষে ১৫ জন।

হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি আব্দুল কাদের জানান, রাত ১টার দিকে ধানসিরি পরিবহনের একটি বাস ঢাকা যাচ্ছিল। পথে মহাসড়কের রয়হাটি এলাকায় অপরদিক থেকে আসা একটি মাইক্রোবাসের সঙ্গে ওই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।

অপরদিকে জেলার হাটিকুমরুল-বোনপাড়া সড়কে পৃথক দুর্ঘটনায় এনজন নিহত হয়েছেন।

টাঙ্গাইল

বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে টাঙ্গাইলের ধনবাড়ি উপজেলা বাজারে মাইক্রোবাস চাপায় দুই নারী নিহত হয়েছেন। নিহত উভয়ের বাড়ি ধনবাড়ি উপজেলার নিজবর্নি গ্রামে।

বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে ঢাকা থেকে জামালপুরগামী একটি মাইক্রোবসা ধনবাড়ি উপজেলা বাজারে পথচারীদের ওপর উঠিয়ে দেন। এতে ওই দুই নারী গুরুতর আহত হন। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার দুজনকেই মৃত ঘোষণা করেন।

ধনবাড়ি থানার ওসি মজিবর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাস্থল থেকে মাইক্রোসটি আটক করা হয়েছে।

রাজশাহী

বৃহস্পতিবার পুঠিয়ার বানেশ্বরে ট্রাক ও মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে দুইজন নিহত হয়েছে। নিহতরা হলেন, রাজশাহী নগরের বোয়ালিয়া থানার রামচন্দ্রপুর এলাকায় আবদুল লতিফের ছেলে তুষার (২২) ও একই এলাকার নাজমুলের ছেলে শাহীন (২০)। এছাড়া গোদাগাড়ী উপজেলার খেতুর এলাকার রুবেল হোসেনের ছেলে জুনায়েদ (৪) সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যায় বলে পবা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির সার্জেন্ট মনিরুল ইসলাম ও রাজশাহীর গোদাগাড়ী থানার ওসি হিফজুর আলম মুন্সী জানান।

ঢাকা

রাজধানীর গুলিস্তানে বাসচাপায় জামাল হোসেন (৪০) নামে এক অটোচালক নিহত হয়েছে। এসময় আহত হয়েছে আরও চারজন।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে গুলিস্তানের জিরো পয়েন্টের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত জামাল হোসেনের বিস্তারিত পরিচয় পাওয়া যায়নি।

আহতরা হলেন- ওসমান আলী (৩৫), জাহাঙ্গীর হোসেন (৬০), মুক্তি হাবিবুল্লাহ (৪০) ও মো. জামাল (৬০)। তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (ঢামেক) ভর্তি করা হয়েছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই বাবুল মিয়া জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।

গৌরীপুর (ময়মনসিংহ)

বৃহস্পতিবার ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কের গঙ্গাশ্রম এলাকায়  যাত্রীবাহী বাস ও অটোরিকশার সংঘর্ষে আবুল বাশার (৪০) নামে একজন নিহত হয়েছেন। সংঘর্ষে আহত হয়েছেন আরও চারজন।

ঈশ্বরগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের ওয়্যারহাউজ ইন্সপেক্টর মো. রুকুনুজ্জামান বলেন, নেত্রকোনার পূর্বধলার শ্যামগঞ্জ গ্রামের আবুল বাশার তার পরিবার নিয়ে অটোরিকশায় করে ঈশ্বরগঞ্জ মেয়ে দেখতে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে গঙ্গাশ্রম এলাকায় কিশোরগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা একটি বাসের সঙ্গে অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে বাসার ঘটনাস্থলেই একজন নিহত হয়।

গৌরীপুর থানার ওসি দেলোয়ার আহাম্মদ বলেন, দুই গাড়ির চালক পলাতক রয়েছে।

দামুড়হুদা (চুয়াডাঙ্গা)

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার পারকৃষ্ণপুর-মদনা ইউনিয়নের বাড়াদি ব্রীজের কাছে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় আলমসাধু (শ্যালো ইঞ্জিন চালিত অবৈধ যানবাহন) যাত্রী আজিরন নেছা (৬০) নামে এক বৃদ্ধা নিহত হয়েছেন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টার দিকে উপজেলার কামারপাড়া গ্রামের রমজান আলীর স্ত্রী আজিরন নেছা দর্শনা শহর থেকে আলমসাধুযোগে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে বাড়াদি ব্রীজের কাছে একই দিক থেকে আসা একটি মোটরসাইকেল আলমসাধুর পিছনের দিক থেকে ধাক্কা দিলে আজিরন নেছা আহত হয়। বৃহস্পতিবার দুপুর ২টার দিকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতাল নেয়ার পথে তিনি মারা যান।

পাবনা ও ঈশ্বরদী

বৃহস্পতিবার দুপুর ২টার দিকে পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার মুলাডুলি ইক্ষু খামারের সামনে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ২ জন নিহত হয়েছেন।

নিহতরা হলেন- আটঘরিয়া উপজেলার আরজোপাড়া গ্রামের হাসিবুর রহমানের ছেলে আশরাফুল ইসলাম (২৫) ও একই উপজেলার দড়ি নাজিরপুর গ্রামের খলিলুর রহমানের ছেলে শিপন হোসেন (২৩)।

পাকশী হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই গনেশ চন্দ্র মণ্ডল জানান, ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে বাড়ি থেকে মোটরসাইকেল নিয়ে ঘুরতে বের হয়েছিলেন আশরাফুল ও শিপন। বেপরোয়াভাবে মোটরসাইকেল চালিয়ে যাওয়ার সময় দাশুড়িয়া-মুলাডুলি মহাসড়কের ইক্ষু খামারের সামনে হঠাৎ ব্রেক করতে গিয়ে মোটর সাইকেলসহ তারা ছিটকে মহাসড়কে পড়ে যায়। এতে মাথায় প্রচন্ড আঘাত লেগে ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়।

বগুড়া

বগুড়ার কাহালুর পোড়াপাড়া এলাকায় বৃহস্পতিবার দুপুরে মোটরসাইকেল উল্টে সিহান (২০) নামে চালক নিহত হয়েছেন। এ সময় তার দুই বন্ধু এবং বাইকের ধাক্কায় এক পথচারী আহত হয়েছেন। তাদের বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বগুড়ার ছিলিমপুর পুলিশ ফাঁড়ির টিএসআই আশুতোষ মিত্র জানান, আদমদীঘি উপজেলার নশরতপুর গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে সিহান একটি মোটরবাইকে বন্ধু সাদেকুল ও তাজকে নিয়ে বগুড়ার দিকে আসছিলেন। বেলা ১২টার দিকে তারা কাহালু উপজেলার পোড়াপাড়া এলাকায় পৌঁছেন। সামনে ও পিছনে থাকা দুটি বাস ট্রাক ওভারট্রেকিং করার চেষ্টা করলে সিহান নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পথচারী সিরাজুলকে ধাক্কা দিয়ে রাস্তায় ছিটকে পড়ে যান। এতে উল্লিখিত চারজন আহত হন। তাদের উদ্ধার করে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে নেবার চেষ্টা করলে পথিমধ্যে সিহানের মৃত্যু হয়। 
সূত্র: বিডি লাইভ।

টেনশন কমাতে ছবি আঁকুন

টেনশন কমাতে ছবি আঁকুন

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: অফিসে টেনশন। বাড়িতে টেনশন। টেনশন থেকে স্ট্রেস। নিটফল রোগ আর ভূরি ভূরি ওষুধ। টেনশন আর চাপ কাটাতে চান? উত্তর আপনার আঙুলের ডগায়। মন ভরে রং করুন।

বিশেষজ্ঞদের দাবি, আঁকাআঁকিতে কেবল মানসিক চাপকে আপনি বিদায় বলবেন না, আপনার সৃজনশীল ও কল্পনাপ্রবণ মনও চিন্তার খোরাক পাবে। যোগব্যায়ামের সঙ্গে রং করাকে তুলনা করছেন তারা। মানসিক শান্তি বজায় রাখতে এর তুলনা নেই। কারণ, রং করার সময় আপনার মনোযোগ দিতে হয় এমন একটা কিছুতে, যার সঙ্গে রোজকার কর্মব্যস্ত জীবনের কোনও সম্পর্ক নেই।  

মস্তিষ্ক ঠিক এভাবেই কাজ করে। গ্রে এরিয়া, কাজ করার ইচ্ছা, ভালবাসা, বিরক্ত হওয়ার ক্ষমতা, অন্ধকার দিকগুলো ঠিক এভাবেই ছড়িয়ে রয়েছে মস্তিষ্ক জুড়ে। আলস্য, গোধূলি এলাকা, কুঁকড়ে থাকা এলাকা।

ছবি আঁকলে, রং করলে মস্তিষ্ক উদ্দীপ্ত হয়। কল্পনাশক্তি বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে ক্রিয়েটিভিটি, কাজ করার ইচ্ছা ফের জেগে ওঠে। মন চাঙ্গা হয়।

বিশেষজ্ঞদের দাবি, ছবি আঁকলে, রং করলে সৃজনশীলতার উন্নতি হয়। স্মৃতিশক্তি বাড়ে, কমিউনিকেশন স্কিল আরও উন্নত হয়। চটজলদি কোনও সমস্যা সমাধানের রাস্তা খুঁজে পাওয়া যায়। স্ট্রেস কমায়, নেগেটিভ আবেগ দূর করে। আশাব্যাঞ্জক অনুভূতি ও আরও খুশি হওয়ার অনুভূতি বেড়ে ওঠে। বোঝার ক্ষমতা বাড়ে। দ্রুত যে কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা বাড়ে। পর্যবেক্ষণ ক্ষমতাও বেড়ে যায়। তাই ব্যস্ত রোজনামচায় একটু সময় বের করতেই হবে। টেনশন দূর করতে হাতে তুলে নিতেই হবে রং-তুলি-ক্যানভাস।

সুত্রঃ ২৪ ঘণ্টা

আওয়ামী-লীগের-সম্পাদকমণ্ডলীর-সভা-আজ

আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সভা আজ

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: আওয়ামী লীগ সম্পাদকমন্ডলীর এক জরুরি সভা আজ শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৪টায় দলের সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডিস্থ রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে।

আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানিয়ে বলা হয়, সভায় সভাপতিত্ব করবেন দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

ওই সভায় সংশ্লিষ্ট সকলকে যথাসময়ে উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে।

সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের আমানত ৫৫৬৬ কোটি টাকা

সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের আমানত ৫৫৬৬ কোটি টাকা

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: গত এক বছরে সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে (সুইস ব্যাংক) বাংলাদেশিদের জমানো টাকার পরিমাণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে পাঁচ হাজার ৫৬৬ কোটি টাকা। ২০১৫ সালে এর পরিমাণ ছিল প্রায় ৪ হাজার ৪১৭ কোটি টাকা।

গত বছরের চেয়ে জমানো টাকার পরিমাণ এক বছরে বেড়েছে এক হাজার ১৪৯ কোটি টাকা। অর্থাৎ ২০১৫ সালের তুলনায় বাংলাদেশিদের আমানতের পরিমাণ ১৯ শতাংশ বেড়েছে। এক্ষেত্রে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ভারত এবং পাকিস্তানের পরেই রয়েছে বাংলাদেশের অবস্থান।

বৃহস্পতিবার সুইস ন্যাশনাল ব্যাংকের প্রকাশিত এক প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।সুইজারল্যান্ডের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর কাছ থেকে তথ্য নিয়ে এ প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে। তবে কোনো বাংলাদেশি তার নাগরিকত্ব গোপন রেখে টাকা জমা করল তার তথ্য এই প্রতিবেদনে নেই।

অর্থনীতিবিদরা বলছেন, বিনিয়োগ না হওয়ায় পুঁজি পাচার হচ্ছে। আলোচ্য সময়ে বিশ্বের অন্যান্য দেশের আমানত কমেছে। তবে সামগ্রিকভাবে ২০১৬ সালে মোট আমানতের পরিমাণ কমেছে। আমানতের রাখার ক্ষেত্রে এ বছরও প্রথম অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাজ্য। 
সূত্র: বিডি লাইভ।

মাউস-ব্যবহারে-ধরা-পড়বে-মিথ্যুক

মাউস ব্যবহারে ধরা পড়বে মিথ্যুক

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: মিথ্যাবাদি ধরার জন্য নতুন পদ্ধতি নিয়ে কাজ করছেন গবেষকরা। তারা বলছেন, কম্পিউটারে মাউসের ব্যবহারের ধরণ দেখেই চেনা যাবে মিথ্যুক। হ্যাঁ মাউস ঘোরানোর ধরন দেখেই বুঝা যাবে কম্পিউটারে করা কোনো প্রশ্নের উত্তরে কেউ মিথ্যা নাকি সত্যি বলছে।

সংবাদ মাধ্যম সিএনএন জানিয়েছে, ইতালির পাভোদা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক সত্য-মিথ্যা যাচাইয়ের এ গবেষণায় ব্যবহার করেছেন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা( আর্টিফিসিয়াল ইন্টিলিজেন্স)। যেটা ভবিষ্যতে অনলাইনে ভুয়া রিভিউ ও জাল ইন্সুরেন্স শনাক্ত করতে সহায়তা করবে।

গবেষণাটি করতে গিয়ে অ্যালগোরিদম সিস্টেমে কিছু নমুনা উত্তর দেওয়া হয়। সেই নমুনার ভিত্তিতেই মাউস নাড়াচাড়ার ধরন বুঝেই কম্পিউটার সত্য-মিথ্যা যাচাইয়ের কাজটি করবে।

গবেষণার জন্য ৬০ শিক্ষার্থীকে কম্পিউটারে কিছু প্রশ্ন করতে বলা হয়। উত্তরে কোনও কোনও শিক্ষার্থীকে পরিচয় গোপন করতে বলা হয়।  

যেখানে দেখা গেছে, যারা নিজেদের সম্পর্কে সঠিক তথ্য দিয়েছে তারা মাউস নাড়িয়ে সরাসরি উত্তরে ক্লিক করেছেন। আর যাদেরকে নিজের সম্পর্কে ভুয়া তথ্য দিতে বলা হয়েছে তারা মাউস নাড়ানোর আগে অনেক্ষণ সময় নিয়েছেন। উত্তরও দিয়েছেন ঘুরিয়ে।

আহারে সবজি স্বাস্থ্যকর

আহারে সবজি স্বাস্থ্যকর

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: আমাদের এই অঞ্চলে সবজি খাওয়ার, নিরামিষ খাওয়ার চল ছিল, এখনও আছে। নিরামিষ আহার একটি স্বাস্থ্যকর জীবনরীতি।

আমেরিকাতেও এখন ৪০ লাখ লোক নিরামিষাশী। নিরামিষ আহারের স্বাস্থ্য সুবিধা অনেক, কোলেস্টেরল কম, মোটা চর্বি, স্যাচুরেটেড চর্বি ও কম; করোনারি হৃদরোগ ও টাইপ ২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমবে।

মাংসের আমিষে দেহের জন্য প্রয়োজনীয় সব রকমের এমিনো এসিডই আছে; কিন্তু সবজির আমিষে সব অত্যাবশ্যক এমিনো এসিড থাকে না। তাই নানা রকমের উদ্ভিজ্জ খাবার খেয়ে এমিনো এসিডগুলোর চাহিদা মিটাতে হয়।

নানারকমের এমিনো এসিড পেতে গেলে নিরামিষাশীদের খেতে হয় নানারকম বাদাম, বীজ, শুঁটি, ডাল, শস্য, সয়াবিন। ভাত ও মটরশুঁটি, শিম, ডাল এসব দিয়ে খিচুড়ি খেলে আমিষের চাহিদা পূরণ হল।

সবজি দিয়ে করা যায় নানা প্রিয় রেসিপি : নানারকম রান্না। ভাপে সিদ্ধ সবজি। সরষে, পোস্ত, হলুদ কাঁচা লঙ্কা, জিরা, তেজপাতা দিয়ে নিরামিষ, ধোঁকার ডালনা, সয়াবিনের তরকারি। উচ্ছে ভাজা, শাক ভাজা, থোড়ের চচ্চড়ি, কত যে রেসিপি। খেতে সুস্বাদুও বটে।

সোয়া দিয়ে পরিপূর্ণ করুন : সোয়া দ্রব্য হল প্রোটিনের বিশাল উৎস। মাংসের পরিপূরক বটে। করতে পারেন টফু কাবাব। এছাড়া সোয়া দিয়ে নানা খাবার তৈরি করা যায়।

যুদ্ধাপরাধের বিচারে আইসিসি চেয়ারম্যানের প্রশংসা

যুদ্ধাপরাধের বিচারে আইসিসি চেয়ারম্যানের প্রশংসা
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্তদের বিচার প্রক্রিয়ার বিষয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) চেয়ারম্যান বিচারপতি সিলভিয়া আলেজান্দ্রা ফার্নান্দেজ ডি গার্মেন্দি।

রোম সনদ বাস্তবায়নে বাংলাদেশের অঙ্গীকার এবং মানবতাবিরোধী অপরাধ ও যুদ্ধাপরাধ এর বিচারহীনতার বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থানের জন্য প্রশংসা করেছে।

নেদারল্যান্ডসের হেগে অবস্থিত আইসিসির কার্যালয়ে দেশটি সফররত বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার সঙ্গে বৈঠককালে বিচারপতি সিলভিয়া এ সন্তোষ প্রকাশ করেন।

বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্টের পক্ষ থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

আইসিসি চেয়ারম্যান বলেন, যুদ্ধাপরাধের বিচারে বাংলাদেশের অভিজ্ঞতা জাতীয় পর্যায়ে সামগ্রিক বিচার ব্যবস্থার উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। বৈঠককালে নেদারল্যান্ডসের ইন্টার গভর্নমেন্টাল অর্গানাইজেশনের ডেপুটি প্রসিকিউটর জেমস স্টুয়ার্ট উপস্থিত ছিলেন।

দি হেগ সফরে ছয় সদস্যের বাংলাদেশি প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বিচারপতি এসকে সিনহা। যুদ্ধাপরাধের বিচারে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে অর্থের বিনিময়ে আন্তর্জাতিক লবিস্ট নিয়োগের বিষয়টিও অবহিত করেন আইসিসিকে।

বিচারপতি এসকে সিনহা বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের জন্যে প্রথমে সুপ্রিম কোর্টের তিনজন বিচারককে নিয়ে  প্রথম আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল গঠন করে তাদের বিচারের সম্মুখীন করা হয়। পরবর্তীতে আরেকটি ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হয় এবং যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দ্রুততা আসে।

কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় যে যুদ্ধাপরাধীরা বিভিন্নভাবে মুক্তিযুদ্ধের সময় ঘটা অপরাধের প্রমাণাদি ও নথিপত্র নষ্ট করে ফেলে। এক্ষেত্রে ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের সময়ের পত্র-পত্রিকা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। যদিও এসব সংবাদপত্র পাকিস্তানিদের মালিকানা এবং তাদের পছন্দসই মানুষের নিয়ন্ত্রণে ছিল। এ ছাড়া যুদ্ধাপরাধের বিচারের জন্য কিছু যুগোপযোগী বইও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।`

বৈঠককালে তিনি বলেন, বাংলাদেশে একটা এমন গ্রামও ছিল যেখানে ওই গ্রামের সব পুরুষকে মেরে ফেলা হয়েছিল। পরবর্তীতে গ্রামটি বিধবাদের নামে অর্থাৎ বিধবা পল্লি হিসেবে পরিচিত হয়। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের সময় ওই বিধবাদের জবানি নেওয়া হয়।

এ সময় প্রধান বিচারপতি আইসিসি প্রেসিডেন্টকে জানান, আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনাল অ্যাক্ট ১৯৭৩ অনুসারে এবং আন্তর্জাতিক আইন রোম সনদ অনুযায়ী যুদ্ধাপরাধীদের বিচার সম্পন্ন হচ্ছে বাংলাদেশে। ২০০৮ সালে ক্ষমতা গ্রহণের পর বর্তমান সরকার এ বিচারপ্রক্রিয়া শুরু করে।

২০১৫ সালে দায়িত্ব নেওয়া আইসিসির প্রেসিডেন্ট ফার্নান্দেজ প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার বক্তব্য ও রোম সনদ বাস্তবায়নের অঙ্গীকারের প্রশংসা করেছেন। একই সঙ্গে বাংলাদেশকে সমর্থন দিয়েছেন তিনি।

কুয়েতে সড়ক দুর্ঘটনায় তিন বাংলাদেশি নিহত


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: কুয়েতে সড়ক দুর্ঘটনায় তিন বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। গত সোমবার বিকেল ৪টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। কর্মস্থল থেকে ফেরার পথে ৮০নং রোডে (আবদালী-জাহারা) একটি ভারী গাড়ির সঙ্গে সংঘর্ষে ঘটনাস্থলে একজন এবং এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে হাসপাতালে নেয়ার পথে আরও দু’জনের মৃত্যু হয়। দুর্ঘটনায় নিহত তিন বাংলাদেশি হলেন- চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের আলা উদ্দিন (৩০), কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের শ্রিপুর ইউনিয়ন সাতঘরিয়া গ্রামের আবু বক্কর সিদ্দিক (৫০) এবং কুমিল্লার মাহমুদুল আলম (৩৮)। দুর্ঘটনায় পতিত গাড়িতে ১৯ প্রবাসী ছিলেন যারা সবাই বাংলাদেশি মারাফি কুয়েতিয়া কোম্পানির শ্রমিক। আহতদের মধ্যে দু`জন আইসিইউতে এবং সাতজন জাহারা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

পুকুরে ভেসে উঠল ভাই-বোনের লাশ


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: কুমিল্লায় পুকুরের পানিতে ডুবে একই বাড়ির চাচাতো ভাই-বোনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার গুণবতী ইউনিয়নের ঝিকড্ডা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মৃতরা হলো- উপজেলার গুণবতী ইউনিয়নের ঝিকড্ডা গ্রামের মৃত মাহবুল হক খসরুর মেয়ে নওরীন আক্তার (৯) ও প্রতিবেশি মনিরুল হক নবীর ছেলে মোজাম্মেল হক নবীন (৭)। নিহতদের আত্মীয় মো. আজম প্রকাশ নসর জানান, বুধবার সন্ধ্যায় ওই দুই শিশু নিখোঁজ হয়। এরপর আত্মীয়-স্বজনসহ সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজাখুজি করেও তাদের সন্ধান পাওয়া যায়নি। বৃহস্পতিবার পার্শ্ববর্তী পুকুর থেকে নওরীন ও নবীনের মরদেহ ভাসমান অবস্থায় উদ্ধার করা

যে ৪ কারণে আদা শরীরের জন্য ক্ষতিকর

যে ৪ কারণে আদা শরীরের জন্য ক্ষতিকর

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: আদা উপকারি খাবার হিসেবেই বেশি পরিচিত। ঠান্ডা লাগা, ব্যথা কমানো, হজমের সমস্যা ছাড়াও আদার বিভিন্ন গুণের কথা চিকিতৎসক, ডায়টিশিয়ান, আয়ুর্বেদরা বার বার বলেছেন। তবে সেই সঙ্গে আরো একটি বিষয় চিকিৎসকরা বলে থাকেন। আদা খাওয়া উপকারি হলেও কিছু কিছু সময় অত্যন্ত উপকারি এই খাবারই হয়ে উঠতে পারে শরীরের পক্ষে ক্ষতিকারক। জেনে নিন কোন কোন ক্ষেত্রে আদা ক্ষতিকারক হতে পারে।

প্রেগন্যান্ট :
আদার মধ্যে এমন অনেক পদার্থ থাকে যা পেশীর স্বাস্থ্য ভালো রাখতে ও হজমে সাহায্য করে। প্রেগন্যান্সিতে বেশি আদা খেলে তা পেশীর সংকোচন ঘটিয়ে প্রিটার্ম লেবরের সম্ভাবনা বাড়ায়। বিশেষ করে শেষ ত্রৈমাসিকে আদা না খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন চিকিতৎসকেরা। প্রেগন্যান্সির শুরুর দিকে মর্নিং সিকনেস কাটাতে অল্প আদা খেতে পারেন। তবে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে।

রক্তের ডিজঅর্ডার :
আদা শরীরে রক্ত সঞ্চালন বাড়াতে সাহায্য করে। ওবেসিটি বা ডায়াবেটিসের সমস্যায় তাই আদা খুবই উপকারি। আবার হিমোফিলিয়ার সমস্যা থাকলে আদার এই গুণ নেগেটিভ প্রভাব ফেলতে পারে। হিমোফিলিয়া বংশগত ডিজঅর্ডার। ফ্যাক্টর এইট (ক্লটিং প্রোটিন)-এর অনুপস্থিতিতে রক্ত জমাট বাঁধতে পারে না। ছোটখাট কাটাছেঁড়া থেকে অনেক বেশি রক্তপাত, এমনকী মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। হিমোফিলিয়ার ওষুধের সঙ্গে আদা খেলে তা ওষুধের প্রভাবে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে।

কোনও বিশেষ ওষুধ :
হাইপারটেনসন বা ডায়াবেটিসের ওষুধ খেলে আদা খাওয়া এড়িয়ে চলাই ভালো। আদা রক্তকে পাতলা করে রক্তচাপ কমিয়ে দেয়। তাই সাধারণ ভাবে আদা খাওয়া উপকারি হলেও অ্যান্টি-কোয়াগুলান্ট, বিটা-ব্লকারস বা ইনসুলিনের মতো ওষুধের প্রভাব কমিয়ে দিতে পারে আদা।


আন্ডারওয়েট :
যদি আপনি ওজন বাড়ানোর চেষ্টা করে থাকেন তাহলে আদাযুক্ত খাবার বা আদা চা খাওয়া এড়িয়ে চলুন। আদার মধ্যে প্রচুর পরিমাণ ফাইবার থাকে। যা পাকস্থলীর পিএইচ মাত্রা বাড়িয়ে দিয়ে পৌষ্টিকতন্ত্রকে উত্তেজিত করে। খিদে কমিয়ে ফ্যাট ঝরাতে কার্যকরী আদা। প্রতি দিন আদা খেলে তা মেদ ঝরানোর পাশাপাশি চুল পড়া ও অনিয়মিত ঋতুস্রাবের সমস্যাও ডেকে আনতে পারে। তাই ওজন অতিরিক্ত কম হলে বা ওজন বাড়াতে চাইলে বেশি আদা না খাওয়াই ভালো।

সুস্বাদু চিলি চিকেন রান্নার সহজ রেসিপি

Kanaighat News on Thursday, June 29, 2017 | 11:34 PM

সুস্বাদু চিলি চিকেন রান্নার সহজ রেসিপি
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: চিলি চিকেন খাবারটি অন্যান্য দেশের মতো আমাদের দেশেও দারুন জনপ্রিয়। চাইনিজ খাবারের কথা মনে হলেই চিলি চিকেনের অসাধারণ স্বাদের কথা সবার আগে মনে পড়ে।

ফ্রাইড রাইসের পাশাপাশি পোলাও, পরোটা ও লুচির সাথেও চিলি চিকেন অনায়াসেই খাওয়া যায়। আর তৈরি করাও খুব সহজ। জেনে নিন চিলি চিকেন তৈরির রেসিপি।

উপকরণ:
মুরগির মাংস ২ কাপ (কিউব করে কাটা), পিয়াজ বড় মোটা করে কাটা ২ কাপ, লেবুর রস ১ টেবিল চামচ, ডিম ১ টা, ময়দা ৩ টেবিল-চামচ, কর্নফ্লাওয়ার ২ টেবিল চামচ, চিলি সস ১ কাপ, গুরো লংকা ২ চা চামচ, আদা ও রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, জিরা ও ধনে গুরো ১ টেবিল চামচ, সয়াসস ৪ টেবিল চামচ, ক্যাপ্সিকাম কিউব ১ টেবিল চামচ, টেস্টিং সল্ট হাফ চা চামচ, লবণ স্বাদমতো, তেল পরিমাণমতো।

প্রস্তুত প্রনালী:
মুরগির মাংস সয়াসস, আদা, রসুন, জিরা ও ধনে গুড়ো, লেবুর রস, ময়দা, ডিম ও লবণ দিয়ে মাখিয়ে ২০ মিনিট ফ্রিজে রেখে দিন।

প্যানে তেল গরম হলে মাংস দিয়ে ৫ মিনিট নাড়াচাড়া করে ভাজুন। ভাজা হয়ে গেলে পেয়াজ কুচি দিয়ে, মরিচের গুরো ও ১ কাপ জল দিয়ে ঢেকে দিন ৫ মিনিটের জন্য।

৫ মিনিট পর ১ কাপ নরমাল জলে সস ও কর্নফ্লাওয়ার গুলিয়ে চিকেনের সাথে ভাল করে নেড়েচেড়ে মিশিয়ে দিন । ঢেকে দিয়ে কিছুক্ষন রান্না করুন। ঘন হয়ে এলে নেড়ে নামিয়ে নিন।

ডিশে ঢেলে ক্যাপ্সিকাম কিউব ছিটিয়ে দিন। ফ্রাইড রাইসের সাথে অথবা লুচি দিয়ে পরিবেশন করুন ।

অনিশ্চিত গন্তব্যে সৌদি আরবের নতুন ক্রাউন প্রিন্স

অনিশ্চিত গন্তব্যে সৌদি আরবের নতুন ক্রাউন প্রিন্স

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সৌদি আরবের  ভবিষ্যৎ শাসক হিসেবে পুত্র মোহাম্মদ বিন সালমানের নাম ঘোষণা করেছেন বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ। সম্প্রতি বাদশাহর ভ্রাতুষ্পুত্র মোহাম্মদ বিন নায়েফকে সরিয়ে দিয়ে ক্রাউন প্রিন্স ঘোষণা করা হয় ৩১ বছর বয়সী মোহাম্মদ বিন সালমানকে।

তিনি যে সৌদি আরবের ভবিষ্যৎ বাদশাহ হতে যাচ্ছেন তার ইঙ্গিত আগেই পাওয়া গিয়েছিল যখন তাকে ডেপুটি ক্রাউন প্রিন্স ও প্রতিরক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়া হয়। এরপর থেকে রাষ্ট্র পরিচালনায় তিনি সামনের সারিতে চলে আসেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সৌদি আরব সফরে বিন সালমান ছিলেন আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে। তাকে এমন এক সময় ক্রাউন প্রিন্স ঘোষণা করা হলো যখন উপসাগরীয় অঞ্চলে বড় ধরনের অস্থিরতা চলছে এবং এর নেপথ্যে প্রধান ভূমিকা পালন করছেন বিন সালমান।

মোহাম্মদ বিন সালমান আরব বিশ্বে অনেকটা অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতির মধ্যে সৌদি আরবের হাল ধরেছেন। আরব বিশ্বে আঞ্চলিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে খুব দ্রুত নানামুখী মেরুকরণ ঘটছে। কাতারের ওপর অবরোধ আরোপকে কেন্দ্র করে জিসিসি দেশগুলোর মধ্যে ভাঙন ধরছে। দীর্ঘদিন থেকে ইরানবিরোধী দেশগুলোকে একত্র করে নেতৃত্ব দিয়ে আসছে সৌদি আরব। এ পরিস্থিতি এখন দ্রুত বদলে যাচ্ছে। ইরানের সাথে সম্পর্ক নতুন করে মূল্যায়ন করছে তুরস্ক, কুয়েত এবং ওমান। একই সাথে সিরিয়া প্রশ্নে হামাস ও হিজবুল্লাহ দূরত্ব কমিয়ে আনার চেষ্টা করছে। আবার ইসরাইলের সাথে ঘনিষ্ঠতা বাড়ছে সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন জিসিসিভুক্ত চার দেশের। অভ্যন্তরীণ জনমতের ওপর এর বিরূপ প্রভাব পড়ছে। ফলে সৌদি আরবের নতুন ক্রাউন প্রিন্সের জন্য সামনের দিনগুলো সুখকর তো নয়ই আরো সঙ্ঘাত ও রক্তপাতের মধ্য দিয়ে এগিয়ে যেতে হতে পারে।

এদিকে সৌদি আরবের ভবিষ্যৎ বাদশাহ নির্ধারণে ক্রাউন প্রিন্স নির্বাচনকে এক ধরনের অভ্যুত্থান হিসেবেও দেখা হচ্ছে। ক্রাউন প্রিন্সের পদ থেকে সরিয়ে দেয়া মোহাম্মদ বিন নায়েফ যথেষ্ট ক্ষমতাধর ব্যক্তি ছিলেন। তিনি সৌদি আরবের ডেপুটি প্রাইম মিনিস্টার ও দাপুটে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন। কাউন্টার টেরোরিজমের ক্ষেত্রে তার অভিজ্ঞতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচনা করা হতো। তিনি নিজেও একবার সন্ত্রাসী হামলায় আহত হয়েছিলেন। নায়েফ লেখাপড়া করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। ওয়াশিংটনের ঘনিষ্ঠ ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত ছিলেন তিনি। পশ্চিমা গণমাধ্যমগুলো বলছে কাতারের ওপর অবরোধ আরোপের ব্যাপারে বিন সালমানের সাথে তিনি একমত ছিলেন না। যদিও নতুন ক্রাউন প্রিন্স ঘোষণার অনুষ্ঠানে তিনি বলেছেন আমি অবসরে যাচ্ছি। অপর দিকে নতুন ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান বলেছেন, আমি তোমার পরামর্শ ছাড়া কিছুই করব না।

নতুন ক্রাউন প্রিন্স সৌদি আরবকে কোন পথে এগিয়ে নেবেন তা এখন আলোচনার প্রধান বিষয়। কারণ রাষ্ট্র পরিচালনায় তার ভূমিকা হবে মুখ্য। কারণ বর্তমান বাদশাহ কিছুটা স্মৃতি বিভ্রাট জনিত সমস্যায় ভুগছেন বলে গণমাধ্যমে খবর এসেছে। বিন সালমানকে আগামী দিনে দুটি চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে যুদ্ধ ও সঙ্ঘাতময় পরিস্থিতিতে সৌদি পররাষ্ট্রনীতির গন্তব্য নির্ধারণ এবং নিম্নমুখী অর্থনীতির গতি সঞ্চারে। অভিজ্ঞতাহীন এই তরুণ যে ঝুঁকি নিতে ভালোবাসেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে তিনি তার প্রমাণ রেখেছেন।

ইয়েমেন যুদ্ধের তিনি ছিলেন রূপকার। কিন্তু এই যুদ্ধ এখনো শেষ হয়নি। ইয়েমেন যুদ্ধে ইতোমধ্যে ১০ হাজার লোক মারা গেছে। হুথিরা রাজধানী সানা নিয়ন্ত্রণ করছে, অপর দিকে দক্ষিণ ইয়েমেনে সৌদি সমর্থিত মনসুর হাদি সরকার নিয়ন্ত্রণ করছে। এই যুদ্ধের শেষ কোথায় তা এখনো অনিশ্চিত। এরমধ্যে কাতারের সাথে বিরোধে জড়িয়ে পড়েছেন ক্রাউন প্রিন্স। সৌদি আরবের নেতৃত্বে চারটি উপসাগরীয় দেশের অবরোধ তুলে নেয়ার শর্ত হিসাবে ১৩ দফা দাবি দেয়া হয়েছে। এসব দাবি কাতার মানবে না বলে জানিয়েছে। কাতারের ওপর অবরোধ আরোপ তুরস্ক ও ইরানকে এ অঞ্চলে আরো বেশি প্রভাব বাড়ানোর সুযোগ করে দিয়েছে। বিন সালমান এই মুহূর্তে ইরান, ইয়েমেন, সিরিয়া ও কাতারে বড় ধরনের সঙ্ঘাতময় পরিস্থিতির মধ্যে আছেন। এ কারণে তাকে দ্য প্রিন্স অব ক্যাওয়াস নামে অভিহিত করা হচ্ছে।

বিন সালমান ক্রাউন প্রিন্স হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের আগে ওয়াশিংটনের সাথে সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ করেন। মনে করা হয় ট্রাম্পের জামাই জ্যারেড কুশনার ও ইহুদি লবির তিনি জোরালো সমর্থন পাবেন। সরিয়ে দেয়া ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন নায়েফও ওয়াশিংটনের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত ছিলেন। ফলে নতুন ক্রাউন প্রিন্সের ব্যাপারে ওয়াশিংটনের সাথে এক ধরনের বোঝাপড়া করতে হয়েছে বলে ধারণা করা হয়। নতুন ক্রাউন প্রিন্সের নাম ঘোষণার আগে প্রায় এক সপ্তাহ ওয়াশিংটনে কাটান সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল আল জুবাইর। নতুন ক্রাউন প্রিন্সের দায়িত্ব গ্রহণের পর ইসরাইলের তথ্যমন্ত্রী আইয়ুব কারা এক বিবৃতিতে এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানান। এর মাধ্যমে ওয়াশিংটনের সাথে ইসরাইলের সম্পর্কে পরিবর্তন আসতে পারে বলে আশা প্রকাশ করা হয়।

বিন সালমানের প্রধান পরামর্শদাতা হিসেবে বিশেষ আস্থা অর্জন করেছেন আবুধাবির ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন জায়েদ। ইসরাইলের সাথে আরব দেশগুলোর সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ করার অন্যতম উদ্যোক্তা তিনি। সৌদি ক্রাউন প্রিন্সকে সম্ভবত তিনি দুটি পরামর্শ দিয়েছেন। এক. ইসরাইলের সাথে সরাসরি সম্পর্ক সৃষ্টি করা এবং দেশটির আস্থা অর্জনে হামাসকে কালো তালিকাভুক্ত করা। দুই. অভ্যন্তরীণ ক্ষেত্রে শাসন পরিচালনায় উলেমাদের ক্ষমতা যতটা সম্ভব কমিয়ে আনা। এ ক্ষেত্রে ভিন্নমতাবলম্বীদের ব্রাদারহুডের সহযোগী হিসেবে চিহ্নিত করে চাপের মুখে রাখা। সৌদি নীতিতে ইতোমধ্যে এর প্রভাব লক্ষ করা যাচ্ছে।

নতুন ক্রাউন প্রিন্সের জন্য অর্থনীতিতে গতিসঞ্চার করা অন্যতম চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখা হচ্ছে। সৌদি আরবের অর্থনীতি এখন চাপের মধ্যে রয়েছে। দেশটির রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ২০১৪ সালে ৭৩০ বিলিয়ন ডলার, গত মাসে এর পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৪৯৩ বিলিয়ন ডলারে। দেশটিতে কর্মসংস্থানের সুযোগ কমে যাচ্ছে। যদিও বিন সালমান তেলনির্ভর অর্থনীতি থেকে দেশকে বের করে আনার নানামুখী পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন। সৌদি আরামকোর শেয়ার বিক্রির উদ্যোগ নিয়েছেন। কিন্তু যেভাবে তিনি অস্ত্র কেনার দিকে ঝুঁকে পড়ছেন তাতে এর প্রভাব দেশটির অর্থনীতিতে নতুন করে চাপ সৃষ্টি করবে। ইতোমধ্যে তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে নানা ধরনের অস্ত্র চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছেন। যার মধ্যে ৫০০ বিলিয়ন ডলারের ক্ষেপণাস্ত্র ও অত্যাধুনিক সমরাস্ত্র কেনা।

ট্রাম্পের সঙ্গে মোলাকাতটা মোদীর ট্রাম্প-কার্ড

ট্রাম্পের সঙ্গে মোলাকাতটা মোদীর ট্রাম্প-কার্ড

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ট্রাম্পের সঙ্গে মোলাকাতটা মোদীর ট্রাম্প-কার্ড হয়ে গেল বলেই মনে করছে চিন। যে আশা নিয়ে আমেরিকায় গিয়েছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী, তার চেয়ে অনেক বেশি আদায় করে নিতে পেরেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কাছ থেকে। প্রত্যাশার চেয়ে ভারতের প্রাপ্তি বেশি হয়েছে। তা সে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াইয়ের অঙ্গীকার আদায় করা থেকে শুরু করে বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক জোরদার করা এমনটাই বিশ্লেষণ করেছে চিনের সরকারি সংবাদ সংস্থা 'জিনহুয়া'।

জানুয়ারিতে ট্রাম্প মার্কিন প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর এই প্রথম ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদীর সঙ্গে তার মুখোমুখি বৈঠক। চিনা সংবাদ সংস্থার মতে, তার পরেও নিছক আলাপ-পরিচয়, সৌজন্য বিনিময়ের গণ্ডী ছাপিয়ে গেছে ওই বৈঠক। ‘জিনহুয়া’ লিখেছে, ‘আলাপ-পরিচয়ের গণ্ডী ছাড়িয়ে দু’টি দেশই (ভারত ও আমেরিকা) অনেক কিছু আদায় করে নিতে পেরেছে। বিষয়টা অবিশ্বাস্য লাগতে পারে, কারণ মাসখানেক আগেই প্যারিস জলবায়ু চুক্তি ছেড়ে বেরিয়ে আসার জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ভারতকে দায়ী করেছিলেন। ট্রাম্পের বক্তব্য ছিল, প্যারিস চুক্তি বাস্তবায়নের জন্য ভারত টাকা চেয়েছে।’

চিনা সংবাদ সংস্থার মতে, দু’দেশের মধ্যে মাসখানেক আগেকার সেই টানপড়েনের পর ট্রাম্পের সঙ্গে মোলাকাতে ভারতের জন্য বেশি কিছু আদায় করার আশা ছিল না মোদীর। প্রত্যাশা কমই ছিল ভারতের প্রধানমন্ত্রীর। কিন্তু প্রাপ্তিটা বেশিই হয়েছে ভারতের। কারণ, মোদী নতুন মার্কিন প্রশাসনের আস্থা অর্জন করতে পেরেছেন।

প্রাপ্তিটা কী ভাবে হয়েছে ভারতের, তাও সবিস্তারে জানিয়েছে ‘জিনহুয়া’। চিনের সরকারি সংবাদ সংস্থা লিখেছে, ‘ট্রাম্প স্পষ্টই পাকিস্তানকে বলেছেন, তার ভূখণ্ড থেকে সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ বন্ধ করতে হবে, ২৬/১১-র মুম্বই হামলা, পঠানকোট হামলার ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত বিচার করতে হবে। এটা ভারতের পক্ষে বড় জয় হয়েছে। তা ছাড়াও মোদীর সফরের আগেই ভারতকে প্রিডেটর ড্রোন বিক্রির সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে মার্কিন প্রশাসন বুঝিয়ে দিয়েছে, তারা ভারতের সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্পর্ককে আরো জোরদার করে তুলতে চায়।’

যুক্তরাষ্ট্রে প্রকাশিত গ্রন্থে বিশ্ব নেতাদের অন্যতম শেখ হাসিনা

যুক্তরাষ্ট্রে প্রকাশিত গ্রন্থে বিশ্ব নেতাদের অন্যতম শেখ হাসিনা

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বর্তমান বিশ্বের ১৮ জন জাতীয় নারী নেতাদের মধ্যে অন্যতম হিসেবে চিত্রিত হয়েছেন।

মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রে প্রকাশিত এক গ্রন্থে উল্লেখ করে ওয়াশিংটনে বাংলাদেশ দূতাবাসের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলা হয়।

নারী রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী শীর্ষক এ গ্রন্থের প্রচ্ছদে অপর ৬ জন বিশ্ব নেতার সঙ্গে শেখ হাসিনার ছবি মুদ্রিত হয়েছে। গ্রন্থটির লেখক হচ্ছেন যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম মানবাধিকার কর্মী ও শিক্ষাবিদ রিচার্ড ও’ব্রেইন।

ওয়াশিংটন ডিসির ওমেন্স ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ক্লাবে (ডব্লিউএনডিসি) বিদেশী কূটনীতিক, নারী নেত্রী ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে গ্রন্থটি প্রকাশ করা হয়।

লেখক গ্রন্থটিতে গণতন্ত্র ও ভোটাধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠায় একনিষ্ঠতা ও কঠোর পরিশ্রম, তাঁর জীবননাশের চেষ্টা এবং বাংলাদেশের ৩ বারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেখ হাসিনার ঐতিহাসিক অর্জন লিপিবদ্ধে ৩ পৃষ্ঠা উৎসর্গ করেন।

ও’ব্রেইন বাংলাদেশকে অধিকতর স্থিতিশীল ও অধিকতর গণতান্ত্রিক এবং অপেক্ষাকৃত কম হিংসাত্মক দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে শেখ হাসিনার আন্তরিক প্রয়াসের প্রশংসা করেন। এ প্রসঙ্গে লেখক শেখ হাসিনার এই উক্তি উদ্ধৃত করেন যে, ‘বাংলাদেশকে দারিদ্র্যমুক্ত ও ক্ষুধামুক্ত দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে পারলেই আমি গর্বিত হব।’

গ্রন্থে প্রধানমন্ত্রীর পারিবারিক পটভূমির উল্লেখ করে বলা হয়, তাঁর পিতা শেখ মুজিবুর রহমান আধুনিক বাংলাদেশ রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা এবং তিনি দেশটির প্রথম রাষ্ট্রপতি ছিলেন। লেখক ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ডের বর্ণনা দিয়ে উল্লেখ করেন যে, ওই সময়ে শেখ হাসিনা ও তার বোন (শেখ রেহেনা) দেশের বাইরে থাকায় বেঁচে যান।

ও’ব্রেইন ১৯৮১ সালে নির্বাসন থেকে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের উল্লেখ করে বলেন, আওয়ামী লীগকে পরিচালনার নেতৃত্বের পদে নির্বাচিত হয়ে তিনি নির্বাচনী কারচুপি ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান। সে সময় তাঁকে দমন ও নির্যাতনের শিকার হতে হয় এবং ৮০’র দশকে তিনি গৃহবন্দী হন।

লেখক এরশাদ শাসনামলের উল্লেখ করে বলেন, সরকারের নির্যাতন সত্ত্বেও শেখ হাসিনা এতই প্রভাবশালী ও জনপ্রিয় ছিলেন যে, তাঁর চাপে ১৯৯০ সালে একজন সামরিক জান্তাকে পদত্যাগ করতে হয়।

লেখক বলেন, অনেক প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও শেখ হাসিনা ও তাঁর সরকার ১৯৯৭ সালে যুগান্তকারী পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি, স্থলমাইনের ব্যবহার নিষিদ্ধকরণ ও ক্ষুদ্র ঋণ সম্মেলনে সভাপতিকে সহায়তা ও নারী কল্যাণ গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রাসহ অনেক কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করেছেন।

রিচার্ড তার গ্রন্থে শান্তি ও গণতন্ত্রের বিকাশে শেখ হাসিনার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির উল্লেখ করে বলেন, তিনি (শেখ হাসিনা) মাদার তেরেসা পদক ও গান্ধী পদক অর্জন করেছেন। 
সূত্র: বিডি লাইভ।

রাজশাহীর হয়ে খেলবেন সিমন্স

রাজশাহীর হয়ে খেলবেন সিমন্স

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) পঞ্চম আসরে রাজশাহী কিংসের হয়ে খেলবেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের মারকুটে ওপেনার লিন্ডল সিমন্স।

তার দলে যোগদানের বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিশ্চিত করেছে রাজশাহী কিংস কর্তৃপক্ষ।

টুয়েন্টি টুয়েন্টি সিমন্সের বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে। আইপিএলে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের খেলে থাকেন তিনি। শুধুমাত্র আইপিএলই নয় বিগ ব্যাশসহ বিভিন্ন দেশের ঘরোয়া টুর্নামেন্টে অংশ নিয়ে ১৯৪টি ম্যাচ খেলেছেন তিনি। ১টি সেঞ্চুরি ও ৪০টি হাফ-সেঞ্চুরিতে ৫০৮৪ রান করেন তিনি।

৪৫টি আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচে ৯০৭ রান করা সিমন্সের ব্যাপারে আশাবাদি রাজশাহী।

আগামী ৪ নভেম্বর থেকে শুরু হবে বিপিএলের পঞ্চম আসর।

কানাইঘাট পৌরসভার বাজেট ঘোষণা


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট পৌরসভার ২০১৭-১৮ অর্থ বছরের ১১ কোটি ৫৪ লক্ষ ৭০ হাজার ৪ শত ৪৯ টাকার বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টায় পৌরসভার অস্থায়ী কার্যালয়ে ২০১৭-১৮ অর্থ বছরের বাজেট পেশ করেন পৌর মেয়র নিজাম উদ্দিন আল-মিজান। বাজেটে ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে পৌরসভার নিজস্ব সম্ভাব্য রাজস্ব আয় দেখানো হয়েছে ১৩ কোটি ১ লক্ষ ৫০ হাজার ২৬ টাকা ও ব্যায় দেখানো হয়েছে ১ কোটি ২৮ লক্ষ ৭৬ হাজার ৪৯ টাকা। রাজস্ব উদ্বৃত্ত দেখানো হয়েছে ২ লক্ষ ৭৩ হাজার ৯ শত ৭৭ টাকা। উন্নয়ন খাতে মোট সম্ভাব্য আয় দেখানো হয়েছে ১০ কোটি ২৩ লক্ষ ২০ হাজার ৪ শত ২৩ টাকা । প্রকল্প খাতে সম্ভাব্য ব্যায় দেখানো হয়েছে ১০ কোটি ১৭ লক্ষ ৭২ হাজার ৪ শত ৬৯ টাকা এবং সার্বিক উদ্বৃত্ত ৯ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা দেখানো হয়েছে। ঘোষিত বাজেটে পৌরসভার রাজস্ব খাত, এডিপি সহ অন্যান্য সরকারী অনুদানের উপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। পৌর মেয়র নিজাম উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও পৌর সচিব মোঃ মনির উদ্দিনের পরিচালনায় বাজেট অধিবেশনে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, ব্যবসায়ী, পৌরসভার কাউন্সিলর ও কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ ও কানাইঘাট প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দ সহ বিভিন্ন পত্রিকার সাংবাদিকবৃন্দ ছাড়াও নানা শ্রেণি পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন। বাজেট পেশকালে পৌরসভার মেয়র নিজাম উদ্দিন তার বক্তব্যে বলেন, তিনি পৌরসভার মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণের পর পৌরবাসীর নাগরিক সেবার পরিধি বাড়ানো সহ কোটি কোটি টাকার উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ড পৌরসভায় চলছে। গত ১৯ ফেব্রুয়ারী মহামন্য রাষ্ট্রপতির আদেশক্রর্মে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় কানাইঘাট পৌরসভাকে তৃতীয় শ্রেণী থেকে দ্বিতীয় শ্রেণীতে উন্নিত করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, জাপান উন্নয়ন সংস্থা জাইকা কানাইঘাট পৌরসভায় সরকারের সহযোগিতায় ১৫০ কোটি টাকার প্রকল্প গ্রহণ করেছে। উক্ত প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন করা হলে পৌরবাসীর দুর্ভোগ লাঘব ও নাগরিক সেবার সার্বিক ধার উন্মোচিত হবে। কানাইঘাট পৌরসভা এই প্রথম রাজস্ব আয়ের ৪% মুক্তিযোদ্ধা ফান্ডে জমা করেছে যা একমাত্র কানাইঘাট পৌরসভার পক্ষে সম্ভব হয়েছে। কানাইঘাট পৌরসভাকে একটি মডেল আদর্শ পৌরসভায় পরিণত করতে তিনি পৌরবাসীর সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেছেন। মেয়র নিজাম উদ্দিন বলেন, জাতীয় সংসদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বাজেটের উপর যে সমাপনী বক্তব্য রেখেছেন তা ইতিহাসের অংশ হয়ে থাকবে। প্রধানমন্ত্রী আ’লীগ সরকারের প্রস্তাবিত বাজেটের আবগারি শুক্ল একেবারে কমিয়ে আনা এবং নতুন করে ভ্যাট আইন জনগণের কল্যাণের স্বার্থে স্থগিত করে দেশবাসীর মনিকোটায় পরিণত হয়েছেন। বর্তমান সরকারের চলমান বাজেটকে যুগান্তকারী বাজেট উল্লেখ করে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও অর্থমন্ত্রী সহ মন্ত্রী পরিষদকে কানাইঘাট পৌরসভার পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

শাড়ি পরেও কেন সমালোচনার শিকার সোহা আলি?

শাড়ি পরেও কেন সমালোচনার শিকার সোহা আলি?

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: একেই বলে মুদ্রার এ পিঠ আর ও পিঠের গল্প! ব্যতিক্রম শব্দটাকে ভুলে না গিয়েই বলা যায়, মুদ্রার দু’পিঠই যেন সমান। গরুকে মা হিসেবে পুজো করা, গো হত্যা নিষিদ্ধ করা, রামমন্দির নিয়ে সুর চড়িয়ে একদিকে যেমন হিন্দুত্ববাদের ধ্বজা উড়ছে বীরবিক্রমে, ঠিক তেমনই মুসলিমদের ট্র্যাডিশনাল পোশাক ছেড়ে শাড়ি পরায় ট্রোলড হলেন সোহা আলি খান।

মনসুর আলি খান পতৌদি ও শর্মিলা ঠাকুরের কন্যা সোহা সন্তানসম্ভবা। দিন দুয়েক আগে বেবি শাওয়ারের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেন তিনি। গোলাপি শাড়ি, কপালে টিপ, খোঁপায় ফুলের মালায় সেজে স্বামী কুণাল খেমুর সঙ্গে ক্যামেরায় পোজ দেন। কিন্তু সেই সাজ নিয়ে যে সোশ্যাল ওয়ার্ল্ডে ট্রোলড হতে হবে- এমনটা ভাবেননি সোহা।

প্রথমত সোহা টুইট করে ইদের শুভেচ্ছা জানাননি। দ্বিতীয়ত, যেহেতু শাড়ি পড়েছেন, তাই তিনি আর মুসলিম নন! তিনি নাকি হিন্দু হয়ে গেছেন!

অন্তত এমনটাই বক্তব্য ওয়েব দুনিয়ায় কিছু মানুষের। একজন লিখেছেন, ‘সোহাকে ডিসলাইক করলাম। আমি নিশ্চিত উনি মুসলিম নন।’ অন্য এক ইউজার লিখেছেন, ‘সোহা আলি খান আপনার লজ্জা হওয়া উচিত। আপনি মুসলিম নন। ঈদ লিখতে আপনার লজ্জা লাগে?’ সোহার সমর্থনেও মন্তব্য করেছেন অনেকে। একজনের বক্তব্য, ‘শাড়ি ভারতের ঐতিহ্যশালী পোশাক। উনি পরতেই পারেন।’ আবার অন্য এক জনের ব্যাখ্যা, ‘বাঙালি মুসলিমরা তো এমন পোশাক পরেন।…’ গোটা বিষয়টি নিয়ে প্রকাশ্যে মুখ না খুললেও সোশ্যাল ওয়ার্ল্ডে সোহার ছোট্ট জবাব, ‘সাজগোজের জন্য পরিবার ও বন্ধুদের ভালবাসাই যথেষ্ট।’

তবে পোশাক বিতর্ক ওয়েব দুনিয়ায় নতুন নয়। দীপিকা পাড়ুকোন বা সানি লিওন তাদের সাহসী ফটোশুটের জন্য সম্প্রতি ট্রোলড হয়েছেন। দিন কয়েক আগে রমজান চলাকালীন ‘দঙ্গল’ খ্যাত ফতিমা সানা শেখ সুইমস্যুট পরা একটি ছবি শেয়ার করলে ট্রোলড হতে হয় তাকেও। সেটা মুসলিম সংস্কৃতির বিরোধী ছিল বলে মন্তব্য করেন অনেকে। তবে শাড়ি পরলেও যে ট্রোলড হতে হবে, সেলেবদের এ অভিজ্ঞতা সম্ভবত নতুন।

কানাইঘাট পৌরসভার রাস্তা দখল করে মার্কেট নির্মাণ


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট পৌরসভার জনগুরুত্বপূর্ণ রাস্তা কানাইঘাট বাজার নোয়াম সেন্টার হইতে আল-রিয়াদ কমিউনিটি সেন্টার পর্যন্ত রাস্তার উপরে পৌর কোড অমান্য করে একটি পাকা মার্কেট নির্মাণ করায় রাস্তায় যানবাহন চলাচল ও জন যাতায়াতে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টির অভিযোগ পাওয়া গেছে। কানাইঘাট পৌরসভার শিবনগর গ্রামের প্রবাসী নজির আহমদ পৌর মেয়র নিজাম উদ্দিনের বরাবরে গত ১৫ মে বাদী হয়ে পৌর কোড অমান্য করে রাস্তার একাংশ দখল করে শ্রীপুর গ্রামের জনৈক নুর হোসেন একটি পাকা মার্কেট নির্মাণ করছেন। এতে করে উক্ত মার্কেটের পাশে অবস্থিত প্রবাসী নজির আহমদ সহ রাস্তার উভয় পাশের বসবাসরত জনসাধারণের দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে। পৌর কোড অমান্য করে নুর হোসেন কর্তৃক মার্কেট নির্মাণ করায় বর্তমানে উক্ত রাস্তার উন্নয়ন মূলক কাজে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হয়েছে। জনস্বার্থে অবিলম্বে উক্ত সড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক ও জনগণের যাতায়াতের পথ সুগম করার জন্য রাস্তার উপরে বৈদ্যুতিক খুটি ও নুর হোসেনের মার্কেটের একাংশ ভেঙ্গে রাস্তা প্রশস্তকরনের জন্য পৌর মেয়রের হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়।

সুপ্রিম কোর্ট খুলবে রোববার

সুপ্রিম কোর্ট খুলবে রোববার

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সরকার ঘোষিত ছুটি, সাপ্তাহিক ছুটি এবং কোর্টের অবকাশ শেষে রোববার ২ জুলাই থেকে সুপ্রিম কোর্ট খুলবে। সর্বোচ্চ আদালতে শুরু হবে নিয়মিত বিচারিক কার্যক্রম।

গত ৯ জুন থেকে ১ জুলাই পর্যন্ত সরকার ঘোষিত ছুটি, সাপ্তাহিক ছুটি এবং কোর্টের অবকাশের কারণে সুপ্রিম কোর্টের নিয়মিত বিচার কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। তবে এ সময়ে জরুরী বিষয় শুনানি ও নিস্পত্তির জন্য সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে চেম্বার কোর্ট এবং সুনির্দিষ্ট বিচারিক এখতিয়ার দিয়ে হাইকোর্ট বিভাগে অবকাশকালীন বেঞ্চ গঠন করে দেন প্রধান বিচারপতি।

এসব আদালতে অবকাশের সময় বিভিন্ন মামলা শুনানি ও নিষ্পত্তি হয়। 
সূত্র: বিডি লাইভ।

জাতীয়পার্টি ছাড়া আওয়ামীলীগ ও বিএনপি ক্ষমতায় যেতে পারবে না---খালেদ সাইফুল্লাহ


নিজস্ব প্রতিবেদক: জাতীয়পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যতম সদস্য কানাইঘাট-জকিগঞ্জ জাতীয়পার্টির প্রধান সমন্বয়কারী খালেদ সাইফুল্লাহ বলেছেন জাতীয়পার্টি ছাড়া এদেশে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি কেউ ক্ষমতায় যেতে পারবেন না। এজন্য আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয়পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক সফল রাষ্ট্রপতি হোসেন মোহাম্মদ এরশাদ সারাদেশে নির্বাচনের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছেন। আগামী সংসদ নির্বাচনে সিলেট-৫ সহ সিলেটের অন্যান্য আসনে জাতীয়পার্টি মনোনীত প্রার্থীরা যাতে জয়লাভ করতে পারেন, এজন্য তিনি দলের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ ভাবে নির্বাচনের প্রস্তুতি নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। খালেদ সাইফুল্লাহ গত শনিবার ২৮ রমজান বিকেল ৪টায় স্থানীয় চতুল বাজারে কানাইঘাট ৫নং বড়চতুল ইউপি জাতীয়পার্টির এক কর্মী সমাবেশ পরবর্তী ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। বড়চতুল ইউপি জাপার সভাপতি হারুন আহমদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক রফিকুল আম্বিয়ার পরিচালনায় উক্ত কর্মী সমাবেশ ও ইফতার মাহফিলে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা জাপার যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুর রহমান বারাকাত, সদস্য সচিব শামীম উদ্দিন, জাপা নেতা মোঃ সিরাজী। বক্তব্য রাখেন জলাল আহমদ, জয়নাল উদ্দিন, সিরাজুল হক, রশিদ আহমদ, হারুন রশিদ সহ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

সংবিধানে-সহায়ক-সরকার-নামে-কিছুর-অস্তিত্ব-নেই'

'সংবিধানে সহায়ক সরকার নামে কিছুর অস্তিত্ব নেই'
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, দেশের মানুষ বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনায় আনন্দঘন পরিবেশে পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উদযাপন করায় বিএনপির গাত্রদাহ শুরু হয়েছে। আজ বৃহষ্পতিবার এক বিবৃতিতে তিনি এই কথা বলেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, গত এক দশকের মধ্যে এবারই তেমন কোন বড় ধরনের দুর্ঘটনা ও রাস্তাঘাটে ভোগান্তি ছাড়া দেশের মানুষ পরিবার পরিজনের সাথে ঈদ করতে বাড়ি যেতে পেরেছে। সরকার এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের রমজান মাসের শুরু থেকেই ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন রাখতে নিরলসভাবে কাজ করে গেছেন।

সহায়ক সরকারের বিষয়ে বিএনপি নেতাদের দেয়া বক্তব্যের জবাবে তিনি বলেন, বাংলাদেশের সংবিধানে নির্বাচিত সহায়ক সরকার নামে কোন কিছুর অস্তিত্ব নেই। তাই সংবিধান মেনে জনগণের দ্বারা নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

বিবৃতিতে হাছান মাহমুদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখন কেবল বাংলাদেশের নেত্রীই নন তিনি একজন আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত বিশ্বনেতা। তার বলিষ্ঠ ও গতিশীল নেতৃত্বে বাংলাদেশ নিম্ন আয়ের দেশ থেকে নিম্ন মধ্যবিত্ত দেশে পরিণত হয়েছে। বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে যে পাঁচটি দেশ উচ্চ প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে পেরেছে বাংলাদেশ তার মধ্যে পঞ্চম।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা তার দক্ষ নেতৃত্বে বাংলাদেশের দারিদ্র্যের হার ৪০ শতাংশ থেকে ২০ শতাংশের নীচে নামিয়ে এনেছেন। অপরদিকে খালেদা জিয়ার অযোগ্য নেতৃত্বের কারণে বিএনপি এখন মুমূর্ষু রোগীর মতো মুখ থুবড়ে পড়ে আছে। খালেদা জিয়ার নির্বাচনে না আসার ভুল সিদ্ধান্ত, পেট্রোল বোমার রাজনীতির কারণে বিএনপি এখন জনবিচ্ছিন্ন দল।

আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক বলেন, বিএনপি কখনোই মানুষের দুঃখ-দুর্দশায় পাশে দাঁড়ায় না বরং মানুষের দুঃখ-দুর্দশা নিয়ে রাজনীতি করার অপচেষ্টা করে। হাওর অঞ্চলে প্রাকৃতিক দুর্যোগের ফলে সৃষ্ট বন্যার্ত এলাকায় আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দু'বার গেছেন এবং ত্রাণ বিতরণ করেছেন। রিকশায় চড়ে মানুষের সমস্যার কথা শুনেছেন অথচ বিএনপি নেত্রীকে একবারের জন্যও সেখানে দেখা যায়নি। উপরন্তু তিনি এবং তার দলের নেতৃবৃন্দ ঢাকায় বসে সংবাদ সম্মেলনে সরকারের সমালোচনা করেছেন, ত্রাণ নিয়ে নানা প্রশ্ন তুলেছেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, চট্টগ্রামে অতিবৃষ্টিতে সৃষ্ট পাহাড় ধসের প্রথম দিন থেকেই সরকার আক্রান্ত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। পাহাড় ধসের পরদিন সকালেই ত্রাণমন্ত্রী আক্রান্ত এলাকায় ছুটে গেছেন, ত্রাণ বিতরণ করেছেন। সরকারের পাশাপাশি আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা প্রথম থেকেই দিনরাত মানুষের পাশে থেকেছেন।
সূত্র: বিডি লাইভ।

'প্রতিটি উপজেলায় টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ স্থাপন করা হবে'

'প্রতিটি উপজেলায় টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ স্থাপন করা হবে'
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, কারিগরি শিক্ষা প্রসারে সরকার দেশের প্রতি উপজেলায় একটি করে টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ স্থাপনের কার্যক্রম গ্রহণ করেছে।

তিনি আজ সংসদে সরকারি দলের সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারীর এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, দেশের বিপুল জনগোষ্ঠীকে আধুনিক ও দক্ষ মানবনসম্পদে রূপান্তর করতে কারিগরি শিক্ষার বিকল্প নেই। সরকার সে বিবেচনায় কারিগরি শিক্ষা প্রসারে টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ স্থাপনের কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। প্রথম পর্যায়ে ইতোমধ্যে ১শ’টি একটি করে টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ স্থাপন শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ৪২টির নির্মাণ কাজ শুরুর জন্য দরপত্র আহবান করা হয়েছে এবং ৪টির কাজ ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে।

সরকারি দলের সদস্য বেগম ফজিলাতুন নেসা বাপ্পির অপর এক তারকা চিহ্নিত প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বর্তমানে কারিগরি শিক্ষার ক্ষেত্রে ছাত্রী এনরোলমেন্টের হার ১০ শতাংশ থেকে ২০ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট বা সমমানের প্রতিষ্ঠানে এবং টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজসমূহে ভর্তিকৃত ছাত্রীর সংখ্যা ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের তুলনায় ২৪ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

তিনি বলেন, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের অধীনে বর্তমানে ৪টি বিভাগীয় সদরে (ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী ও খুলনা) ৪টি মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট চালু রয়েছে। অবশিষ্ট ৪টি বিভাগীয় শহরে ৪টি মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ও ৮টি বিভাগীয় শহরে ৮টি মহিলা টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ স্থাপনের প্রকল্প প্রস্তাব শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ থেকে পরিকল্পনা কামিশনে পাঠানো হয়েছে।

নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, ডিপ্লোমা পর্যায়ে শিক্ষায় ভর্তির ক্ষেত্রে নারীদের জন্য ২০ শতাংশ কোটা সংরক্ষণ করা হয়েছে। সরকারি ও বেসরকারি কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহে ২০১৮ সালে ৩ লাখ ৮৪ হাজার ৭৬৪ জন, ২০১৯ সালে ৪ লাখ ৭৩ হাজার ৭২২ জন এবং ২০২০ সালে ৬ লাখ ৪৭ জন ছাত্রী ভর্তির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। 
সূত্র; বিডি লাইভ।

আফগানিস্তানে তালেবানের হাতে ২ নারী পুলিশ নিহত

আফগানিস্তানে তালেবানের হাতে ২ নারী পুলিশ নিহত

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলীয় বাদাখশান প্রদেশে তালেবান জঙ্গিদের হামলায় দুই নারী পুলিশ নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার উত্তরাঞ্চলীয় মাহফোজুল্লাহ্ আকবারি এলাকার পুলিশের এক মুখপাত্র এক তথ্য জানিয়েছে।

পুলিশের ওই মুখপাত্র জানান, তালেবানরা দুই নারী পুলিশকে লক্ষ্য করে সরাসরি গুলি করে হত্যা করেছে।

তিনি বলেন, ‘দুই নারী পুলিশ কর্মকর্তা তাদের পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাতে দুই দিন আগে স্পিন গুল গ্রামে যান। তালেবান জঙ্গিরা পরিচয় জানার পর বুধবার বিকালে তাদের গুলি করে হত্যা করে।’ তবে এখন পর্যন্ত তালেবানের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে কিছু বলা হয়নি। খবর বাসস।

ইউকেতে সর্বোচ্চ রেমিটেন্স প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের এওয়ার্ড পেল পুবালী মানি ট্রান্স

Kanaighat News on Wednesday, June 28, 2017 | 11:34 PM

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক:

প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড বাংলাদেশের মালিকানাধীন ‘পিবিএল এক্সেঞ্জ ইউকে লিমিটেড’ এর মাধ্যমে ইউকে থেকে বাংলাদেশে সর্বোচ্চ রেমিটেন্স প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের এওয়ার্ড লাভ করেছে পুবালী মানি ট্রান্সফার ইউকে। মঙ্গলবার পিবিএল এক্সেঞ্জ ইউকে লিমিটেড এর উদ্যোগে প্রবাসীদের সাথে ঈদ পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠানে ইউকে’র তাদের ১৪টি এজেন্টের মধ্যে সার্টিফিকেট প্রদান ও সর্বোচ্চ রেমিটেন্স প্রদানকারী ২টি প্রতিষ্ঠানকে এওয়ার্ড প্রদান করা হয়। সর্বোচ্চ রেমিটেন্স প্রদানকারী ২টি প্রতিষ্ঠান হচ্ছে পুবালী মানি ট্রান্সফার হোয়াইটচ্যাপেল ও এসএফবি বিজনেস লিমিলেট ক্যানন স্ট্রিট। পিবিএল এক্সেঞ্জের সিইও শের মাহমুদ এর সভাপতিত্বে ও কাস্টমার সার্ভিস অফিসার মো: আব্দুল মুমিত পরিচালনায় এওয়ার্ড প্রদান করেন প্রাইম ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান ও বর্তমান ডায়রেক্টর মাহফুজ আহমদ ভূইয়া, ডেপুটি ম্যানেজিং ডায়রেক্টর হাবিবুর রহমান, ল্যান্ড ম্যানেজিং ডায়রেক্টর। এদিকে সর্বোচ্চ রেমিটেন্স প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের এওয়ার্ড লাভ করায় প্রতিষ্ঠানের সকল কর্মকর্তা, গ্রাহক বিশেষ করে প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড এর প্রতি কতৃজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন পুবালী মানি ট্রান্সফারের ম্যানেজিং ডায়রেক্টর শামীম আহমদ। উল্লেখ্য তাকে কোম্পানীর পক্ষ থেকে পুরুস্কার হিসেবে স্ব-পরিবারে ইউরোপ ট্যুরের সমপরিমান অর্থপ্রদান করা হয়। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রেমিটেন্স প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের এওয়ার্ড গ্রহন করেন এসএফবি বিজনেস লিমিলেট মো: ফখরুল ইসলাম।

কানাইঘাট উপজেলা যুবলীগের যুগ্ন-আহবায়কের পক্ষ থেকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা

Kanaighat News on Tuesday, June 27, 2017 | 3:06 PM


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ঈদ হোক সকলের. এক ফালি বাঁকা চাঁদ আসলে এক ফালি হাসির মতোই এসে হাজির হয় আমাদের কাছে। নির্মল-সুন্দর উত্সব ঈদুল ফিতর মুসলমানদের জীবনে এক অনন্য সাধারণ উত্সব। শ্যামল বাংলাদেশের গভীরে-গহিনে, গ্রামে-শহরে নিয়ে আসে পরস্পর মেলবন্ধনের বারতা। পবিত্র ঈদ উল ফিতর উপলক্ষে দেশ ও বিদেশের সর্বস্থরের জনসাধারণ সহ সবাইকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও ঈদ মোবারক। 
শুভেচ্ছান্তে- 
এস.এম মাহবুবুল আম্বিয়া 
যুগ্ম আহবায়ক --বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ।
কানাইঘাট উপজেলা শাখা।

কানাইঘাটে ঈদ জামাত কখন,কোথায়

Kanaighat News on Monday, June 26, 2017 | 1:07 AM


নিজস্ব প্রতিবেদক:
কানাইঘাটে পবিত্র ঈদুল ফিতরের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল সাড়ে ৮টায় কানাইঘাট উপজেলা কেন্দ্রীয় শাহী ঈদগাহ ময়দানেএ জামাতে কানাইঘাট উপজেলার প্রশাসনিক কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ বিপুল সংখ্যক মুসল্লী নামাজ আদায় করবেনএছাড়া কানাইঘাটের সবচেয়ে বড় ঈদের জামাত হবে ৫নং বড় চতুল ইউপির চতুল দগাহ বাজার শাহী ঈদগাহ ময়দানে এখানে সকাল সাড়ে ৮টায় ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবেপ্রতি বছর এ জামাতে প্রায় ৫ হাজার মুসল্লীদের সমাগম ঘটে থাকেএকই ইউপি চতুল বাজার দূর্গাপুর শাহী ঈদগাহ মাঠে সকাল সাড়ে ৮টায় ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবেপৌরসভায় অবস্থিত আব্দুর রব ক্বাসিমী মনসুরিয়া মাদরাসায় মাঠে পবিত্র ঈদুল ফিতরের জামাত সকাল সাড়ে ৮টায় অনুষ্ঠিত হবেকানাইঘাট বাজার জামে মসজিদে সকাল ৮টায় ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবেএখানে ঈদের নামাজ শেষে দোয়া ও বয়ান করবেন কানাইঘাট দারুল উলুম মাদ্রাসার মুহতামিম ওলিকুল শিরমনী আল্লামা মোহাম্মদ বিন ইদ্রিস লক্ষিপুরী২নং লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপির বড় বন্দ শাহী ঈদগাহ সকাল সাড়ে ৯টায়  ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে৯ নং রাজাগঞ্জ ইউপি মির্জারগড় শাহী ঈদগাহে সকাল সাড়ে ৮টায় ঈদ জামাত অনুষ্ঠিতম হবে ,৪নং সাতবাক ইউপি হাফিজিয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসা মাঠে সাড়ে ৮টায় এবং ৭নং দক্ষিণ বাণীগ্রাম ইউপি সছদ শাহী ঈদগাহে সাড়ে ৮টায় ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে


কানাইঘাট পৌর ছাত্রদলের আহবায়ক ও সদস্য সচিবের পক্ষ থেকে ঈদ শুভেচ্ছা

Kanaighat News on Sunday, June 25, 2017 | 11:40 PM


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: আত্মশুদ্ধির পর আনন্দের বার্তা নিয়ে আসা পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে বাংলাদেশ ছাত্রদল কানাইঘাট উপজেলার সর্বস্থরের নেতাকর্মী ও অভিভাবক সংগঠন বিএনপি এবং যুবদল’সহ সকল অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ জানিয়েছেন কানাইঘাট পৌর ছাত্রদলের আহবায়ক আর এ বাবলু এবং পৌর ছাত্রদলের সদস্য সচিব দেলোয়ার ইসমাঈল। এক শুভেচ্ছা বার্তায় তারা বলেন, “মুসলিম জাহানের প্রধান ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতর। “ঈদ শান্তি, সহমর্মিতা ও ভ্রাতৃত্ববোধের অনুপম শিক্ষা দেয়। সাম্য, মৈত্রী ও সম্প্রীতির বন্ধনে আবদ্ধ করে সকল মানুষকে। “ঈদ ধনী-গরীব নির্বিশেষে সকলের জীবনে আনন্দের বার্তা বয়ে নিয়ে আসুক।”

গাছবাড়ী ছাত্রলীগের উদ্যোগে সংবর্ধনা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: গাছবাড়ি ছাত্রলীগের আয়োজনে ২০১৭ সালের এস.এ.সি উত্তীর্ণ কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা ও ইফতার মাহফিল অাজ রবিবার  গাছবাড়ী বাজারস্থ কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্টিত হয় ।সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের অন্যতম নেতা খালেদ আহমদ সুমনের সভাপতিত্বে এবং গাছবাড়ি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সারওয়ার আহমদের পরিচালনায় সভায় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্তিত ছিলেন কানাইঘাট উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক এনামুল হক। প্রধান বক্তা হিসাবে উপস্তিত ছিলেন সিলেট জেলা ছাত্রলীগে সাবেক বিভাগীয় উপ-সম্পাদক ও কানাইঘাট যুবলীগের সিনিয়র সদস্য হামজা হেলাল। বিশেষ অতিথি হসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি হারুন রশীদ, কানাইঘাট উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আখতার হোসেন,সাংগঠনিক সম্পাদক জুবেল আহমদ,আব্দুল মৌলা,সুলতান আহমদ,আবুল কালাম,গোলাম সারওয়ার,ইমরান নাজির গাছবাড়ি ডিগ্রী কলেজ ছাত্রলীগ নেতা আব্দুর হমান সুমন আহমদ,হাসান আহমাদ,মাহফুজ আহমাদ প্রমুখ।

উপমহাদেশের সর্ববৃহৎ ঈদ জামাত দিনাজপুরে

উপমহাদেশের সর্ববৃহৎ ঈদ জামাত দিনাজপুরে

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: উপমহাদেশের সর্ববৃহত্তম ঈদের জামাত এবার অনুষ্ঠিত হবে দিনাজপুরে। ঈদগাহ জামাত শোলাকিয়াকে ছাড়িয়ে প্রথম বারের মতো দিনাজপুরের গোর-এ-শহীদ বড় ময়দানে অনুষ্ঠিত হবে সর্ব বৃহত্তম ঈদ জামাত।

এই ময়দানে এক সাথে ৫ লক্ষাধিক মানুষ ঈদের নামাজ আদায় করতে পারবে। উপমহাদেশের সর্ববৃহৎ এই ঈদের জামাত সরাসরি সম্প্রচার ও খবর পরিবেশনের জন্য বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেল কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে অনুরোধ জানিয়েছেন জাতীয় সংসদের হুইপ, দিনাজপুর সদর আসনের সংসদ সদস্য ইকবালুর রহিম।

তিনি জানান, ইতোমধ্যে ঈদের জামাত সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার জন্য সর্বোচ্চ নিরাপত্তাসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মালিকাধীন এই বিশাল মাঠে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে প্রায় ৩ কোটি ৮০ লাখ টাকা ব্যয়ে নান্দনিক সৌন্দর্য মন্ডিত করে নির্মিত হয়েছে এই ঈদগাহ মিনার।

দৃষ্টি নন্দন এই ঈদগাহ মিনার এ রয়েছে ৫২টি গম্বুজ। প্রধান গম্বুজের সামনে রয়েছে মেহরাব, যেখানে ইমাম দাঁড়াবেন। যার উচ্চতা ৪৭ ফুট। এর পাশাপাশি রয়েছে ৫১টি গম্বুজ। এছাড়াও ৫১৬ ফুট দৈর্ঘের ৩২টি আর্চ নিমার্ণ করা হয়েছে। প্রতিটি গম্বুজ ও মিনারে রয়েছে বৈদ্যুতিক বাতি। রাত হলেই যা ঈদগাহ ময়দানকে আলোকিত করে তোলে।

এদিকে জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপির সার্বিক তত্ত্বাবধানে দিনাজপুর গোর-এ শহীদ বড় ময়দানে নব-নির্মিত মিনার প্রাঙ্গনে পবিত্র ঈদ-উল ফিতরের প্রধান জামাত সফলভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে ২৩ জুন শুক্রবার মতবিনিময় সভা, দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

দিনাজপুর ষ্টেশন ক্লাবে উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম। মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন, পুলিশ সুপার মোঃ হামিদুল আলম, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাাপ্ত সভাপতি ও সাবেক এমপি অ্যাডঃ মোঃ আব্দুল লতিফ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ গোলাম রাব্বী, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আবু তাহের মোঃ মাসুদ রানা, দিনাজপুর পৌরসভা মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম।

জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান এ্যাডঃ মোঃ রবিউল ইসলাম রবি, দিনাজপুর চেম্বারের সভাপতি রেজা হুমায়ুন ফারুক চৌধুরী শামীম, শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ আনোয়ারুল ইসলাম, পার্বতীপুরস্থ খোলাহাটির সেনা কর্মকর্তা, দিনাজপুর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ ঘোষ কাঞ্চন প্রমুখ।

উক্ত মতবিনিময় সভায় দিনাজপুর বিজিবি’র সেক্টর কমান্ডার, দিনাজপুরের বিভিন্ন মসজিদের ইমাম, ঈদগাহ মাঠের ইমাম, সমাজের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের বিভিন্ন সেক্টরের কর্মকর্তাবৃন্দ, সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সূত্র: বিডি লাইভ।

কাল পবিত্র ঈদুল ফিতর

কাল পবিত্র ঈদুল ফিতর

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশের আকাশে আজ শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেছে। কাল সোমবার সারা দেশে উদযাপন করা হবে মুসলমানদের অন্যতম জাতীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতর। রোববার সন্ধ্যায় জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির উদ্যোগে ইসলামিক ফাউন্ডেশন, বায়তুল মোকাররম সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত সভা হতে এ ঘোষণা দেয়া হয়।

আজ শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা যাওয়ায় বাংলাদেশের ঘরে ঘরে আনন্দের বন্যা বইছে। চাঁদ দেখার অপেক্ষায় ছিল একমাস সিয়াম সাধনায় মগ্ন মুসলমানেরা। চাঁদ দেখা যাওয়ায় তারা খুশি।

এখন ঈদ জামাতে নামাজ আদায়ের প্রস্তুতি গ্রহণ করছেন ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা। রাজধানীসহ সারা দেশে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে গ্রহণ করা সকল ঈদ জামাতের সব প্রস্তুতি ইতোমধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে।

পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায়ে জাতীয় ঈদগাহের সব ধরণের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। নেওয়া হয়েছে চার স্তরের নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা। মোতায়েন থাকবে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কয়েক হাজার সদস্য।

রাজধানীতে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গনের জাতীয় ঈদগাহে সকাল সাড়ে ৮টায়। আর আবহাওয়া খারাপ থাকলে সকাল ৯টায় বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে। জাতীয় ঈদগাহ প্রস্তুতকারী সংশ্লিষ্টরা বলছেন, লাখো মুসল্লির ঈদের নামাজ আদায়ের জন্য প্রায় প্রস্তুত জাতীয় ঈদগাহ।

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি, মন্ত্রিসভার সদস্য, সংসদ সদস্য, রাজনীতিবিদসহ সব শ্রেণি-পেশার মানুষ জাতীয় ঈদগাহের প্রধান জামাতে অংশ নেবে। এখানে নারীদের জন্যও আলাদা নামাজ পড়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন জানিয়েছে, বায়তুল মোকাররমে ঈদের দিন সকাল ৭টা থেকে এক ঘণ্টা পর পর মোট পাঁচটি জামাত হবে। তবে, আবহাওয়া খারাপ হলে সকাল ৯টায় বায়তুল মোকাররমের জামাতই ঈদের প্রধান জামাত হবে বলে জানিয়েছেন ধর্মসচিব মো. আব্দুল জলিল।

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ অ্যাডভোকেট, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ, বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ পৃথক বাণীতে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন। 
সূত্র: বিডি লাইভ।

ঈদের নামাজে ইমাম হলেন বাশার আল আসাদ

ঈদের নামাজে ইমাম হলেন বাশার আল আসাদ

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ মধ্যাঞ্চলীয় হামা নগরীতে ঈদুল ফিতরের নামাজের ইমামতি করেছেন। আসাদ রোববার আল-নূরি মসজিদে নামাজ আদায় করেন। আসাদের অফিস থেকে প্রকাশিত একটি ছবিতে তাকে মসজিদের নামাজ আদায় করতে দেখা যায়।

এরপর তিনি মসজিদের বাইরে এসে মুসুল্লিদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন ইসলাম বিষয়ক মন্ত্রী মোহম্মদ আব্দেল সাত্তার সাইদ ও সিরিয়ার শীর্ষ আলেম আহমাদ বাদরেদিন হাসুউন। -এএফপি

হতাশ মানুষ খুঁজে বের করবে অ্যাপ!

হতাশ মানুষ খুঁজে বের করবে অ্যাপ!

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: অবসাদ এখন এমন এক জিনিস যা এখন সবার মধ্যে চলে এসেছে। কাজের চাপ, দৈনন্দিন জীবনে বিভিন্ন ধরনের টেনশনের কারণে অবসাদে ভোগা মানুষের সংখ্যা হু হু করে বেড়েই চলেছে। দিন দিন মানুষ অতিরিক্ত প্রযুক্তি নির্ভর হয়ে উঠছে। বাড়ছে সোশ্যাল মিডিয়া নির্ভরতা। ব্যক্তিগত সম্পর্কের বাঁধন আলগা হয়ে যাচ্ছে কোথাও কোথাও। এই বিশ্বায়নের যুগে সময়ের সঙ্গে তাল মেলাতে গিয়ে মানুষ মাঝে মধ্যেই অবসাদে ভুগছে প্রতিনিয়ত। কিছু কিছু সময় এই হতাশার মাত্রা মারাত্মক পর্যায়ে চলে যায়।

হতাশায় ভোগা মানুষদের চিহ্নিত করতে এবার একটি অ্যাপ নিয়ে এলো আইফোন। তাদের দাবি এই অ্যাপের সাহায্যে কোনও আইফোন ইউজার হতাশায় ভুগছে কিনা তা নির্ণয় করা যাবে। অ্যাপটি কাজ করবে আইফোন ইউজারের লেখার স্পীড বা লেখার ধরন দেখে।

সূত্রের খবর, অ্যাপটি আইফোন ইউজারের লেখার গতি, তিনি কী ভাবে কি প্যাড ব্যবহার করছেন তার উপর নজর রাখবে। অর্থাৎ আইফোন ইউজারের কতটা জোরে কি প্যাড ব্যবহার করছেন সেটি বিচার্য বিষয়। এরই সঙ্গে একটি বর্ণ বা শব্দ লেখার পর কতটা স্পেস দেওয়া হচ্ছে, শব্দের বানান ঠিক রয়েছে কিনা এ সব নির্ণয় করে ‘বিএফেক্ট’ বের করতে পারবে ওই ইউজার অবসাদে ভুগছেন কিনা।

বিশেষ এই অ্যাপটি তৈরি করেছেন শিকাগোর একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা। এখন দেখার ব্যাপার এই বিশেষ ধরণের আইফোন অ্যাপ্লিকেশন কতটা কাজ দেখাতে পারে।

নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা শোলাকিয়া

নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা শোলাকিয়া
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় দেশের বৃহত্তম ঈদের জামাত নির্বিঘ্ন করতে চার স্তরের নিরাপত্তাব্যবস্থা নিয়েছে প্রশাসন। ঈদের দিন মাঠের ভেতর ও বাইরে এক হাজারের বেশি সিসি ক্যামেরা, আটটি ওয়াচ টাওয়ারের মাধ্যমে আগতদের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করা হবে। মাঠ ও আশপাশের এলাকায় আট প্লাটুন বিজিবি ও ২০ প্লাটুন এপিবিএন মোতায়েন করা হয়েছে। পুরো মাঠ ও আশপাশের এলাকা নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেওয়া হবে বলে জানান কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. আনোয়ার হোসেন খান।

আজ রোববার সকালে শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠ পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান তিনি।

এছাড়াও মোতায়েন করা হয়েছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব), আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন), রেঞ্জ রিজার্ভ ফোর্স (আরআরএফ), বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি), জেলা পুলিশসহ হাজারেরও বেশি নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য।

মো. আনোয়ার হোসেন খান বলেন, মাঠের ভেতর-বাইরে পুলিশ বাহিনীকে সহায়তা করবে অসংখ্য স্বেচ্ছাসেবক দল। নিরাপত্তার স্বার্থে কাউকে ছাতা বা কোনো ধরনের ব্যাগ নিয়ে ঢুকতে দেওয়া হবে না। শুধু জায়নামাজ নিয়ে আসা যাবে। তিনি আরও জানান, ঈদের দিন পর্যন্ত নতুন ভাড়াটে না তুলতে বাড়িওয়ালাদের আহ্বান জানানো হয়েছে।

শোলাকিয়ার মাঠের নিরাপত্তার বিষয়ে পুলিশ সুপার আরও বলেন, ঈদের দিন মাঠের দক্ষিণে তিনটি, পূর্বে তিনটি ও উত্তর পাশে একটি প্রবেশপথ খোলা রাখা হবে। এর মধ্যে ছয়টি প্রবেশপথে আর্চওয়ে বসানো হয়েছে। একটি পথ গাড়ি প্রবেশের জন্য রাখা হয়েছে। প্রত্যেককে মেটাল ডিটেক্টর দিয়ে তল্লাশি করে মাঠে ঢুকতে দেওয়া হবে।

এবার শোলাকিয়ায় ১৯০তম ঈদুল ফিতরের জামাতে ইমামতি করবেন বাংলাদেশ ইসলাহুল মুসলেমিন পরিষদের চেয়ারম্যান মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ। সকাল ১০টায় জামাত শুরু হবে। মুসল্লিদের আসা-যাওয়ার জন্য দুটি বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠ কমিটির সভাপতি ও কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. আজিমুদ্দিন বিশ্বাস বলেন, মুসল্লিদের বাড়তি নিরাপত্তায় প্রশাসন থেকে সব রকমের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, গত বছর ৭ জুলাই ঈদুল ফিতরের দিন নামাজ শুরুর আগমুহূর্তে শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠের অদূরে আজিমউদ্দিন উচ্চবিদ্যালয়ের কাছে পুলিশের তল্লাশির সময় জঙ্গি হামলা হয়। এতে দুই পুলিশ কনস্টেবলসহ তিনজন নিহত হন। সূত্র: প্রথম আলো
 
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো:মহিউদ্দিন,সম্পাদক : মাহবুবুর রশিদ,নির্বাহী সম্পাদক : নিজাম উদ্দিন। সম্পাদকীয় যোগাযোগ : শাপলা পয়েন্ট,কানাইঘাট পশ্চিম বাজার,কানাইঘাট,সিলেট।+৮৮ ০১৭২৭৬৬৭৭২০,+৮৮ ০১৯১২৭৬৪৭১৬ ই-মেইল :mahbuburrashid68@yahoo.com: সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত কানাইঘাট নিউজ ২০১৩