জেনে নিন কেন প্রতিদিন পেঁপে খাওয়া কেন ভাল

Kanaighat News on Friday, September 30, 2016 | 9:10 PM


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: পেঁপেতে প্রচুর পরিমাণ মিনারেল, অ্যানটিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন রয়েছে যা স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। শুধু তাই নয়, পেঁপেকে ভিটামিনের স্টোর বলা হয়। লো ক্যালরির ফল হওয়ায় এটি ওজন কমাতে বেশ কার্যকর। আপনি যদি ওজন কমাতে চান প্রতিদিনের খাবারে রাখুন পেঁপে। শুধু ওজন হ্রাস নয় পেঁপের রয়েছে আর নানা স্বাস্থ্য উপকারিতা। জেনে নিন প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় কেন পেঁপে রাখবেন। ১। কোলেস্টেরল হ্রাস করে পেঁপেতে রয়েছে ফাইবার, ভিটামিন সি এবং অ্যান্টি অক্সিডেন্ট রয়েছে যা ধমনীতে কোলেস্টেরল জমতে বাঁধা প্রদান করে। ধমনীতে চর্বি জমার কারণে হার্ট অ্যাটাকের মত ঘটনাও ঘটতে পারে। ২। হজম ক্ষমতা বাড়ায় পেঁপেতে প্রচুর পরিমাণে এনজাইম আছে যা খাবার হজমে সহায়তা করে থাকে। এছাড়াও প্রচুর পানি ও দ্রবণীয় ফাইবার আছে। যারা হজমের সমস্যায় ভুগে থাকেন তাঁরা নিয়মিত পথ্য হিসেবে পাকা বা কাঁচা পেঁপে খেতে পারেন। ৩। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে পেঁপেতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, সি ও ই। এই ভিটামিন গুলো রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং শরীরের বিভিন্ন সমস্যা দূর করে। এছাড়া পেঁপেতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ যা চোখের জন্য উপকারী। ৪। ডায়াবেটিস প্রতিরোধে চিনির পরিমাণ কম থাকায় ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য পেঁপে একটি আর্দশ ফল। যাদের ডায়াবেটিস নেই তাদের প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় পেঁপে রাখা উচিত। পেঁপে ডায়াবেটিস হওয়া প্রতিরোধ করে। ৫। হাড়ের ব্যথা রোধে পেঁপেতে প্রচুর পরিমাণ ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম এবং কপার রয়েছে, নিয়মিত পেঁপে খাওয়ার ফলে শরীরে ক্যালসিয়াম তৈরি হয় যা হাড় মজবুত করে ব্যথা হ্রাস করে। ৬। স্ট্রেস হ্রাস করতে সারাদিন ক্লান্তি এক নিমিষে দূর করে দিতে পারে এক প্লেট পেঁপে। এতে থাকা ভিটামিন সি স্ট্রেস হ্রাস করে। University of Alabama এর মতে প্রতিদিন ২০০ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি আমাদের খাদ্যতালিকায় রাখা উচিত যা স্ট্রেস কমাতে সাহায্য করে। ৭। ক্যান্সার প্রতিরোধক পেঁপেতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ফ্ল্যাভোনোক্সিড যা দেহে ক্যান্সারের কোষ তৈরিতে বাঁধা দেয়। Harvard School of Public Health’s Department এক গবেষণায় দেখা গেছে যে পেঁপের বিটা কেরোটিন উপাদান কোলন ক্যান্সার, প্রোসটেট ক্যান্সার প্রতিরোধ করে।

একটি বিস্ময়কর ইসলাম কবুলের ঘটনা


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: যুদ্ধের এক ময়দান। তখন মুসলমানদের সাথে কাফিরদের ভীষণ যুদ্ধ চলছে। হযরত আলী (রা) জনৈক বিপুল বলশালী শত্রুর সাথে যুদ্ধে মত্ত রয়েছেন। বহুক্ষণ যুদ্ধ চলার পর তাকে কাবু করে ভূপাতিত করলেন এবং তাকে আঘাত হানার জন্য তাঁর জুলফিকার উর্ধ্বে উত্তোলন করলেন। কিন্তু আঘাত হানার আগেই ভূপাতিত শত্রুটি তাঁর চেহারা মুবারকে থুথু নিক্ষেপ করলো। ক্রোধে হযরত আলীর চেহারা রক্তবর্ণ হয়ে উঠলো। মনে হলো, এই বুঝি তাঁর তরবারি শতগুণ বেশী শক্তি নিয়ে শত্রুকে খন্ড-বিখন্ড করে ফেলে। কিন্তু তা হলো না। যে তরবারিটি আঘাত হানার জন্য উর্ধ্বে উত্তোলিত হয়েছিল এবং যা বিদ্যুৎ গতিতে শত্রুর দেহ লক্ষ্য করে ছুটে যাচ্ছিল, তা থেমে গেল। শুধু থেমে গেল নয়, ধীরে ধীরে তা নীচে নেমে এল। পানি যেমন আগুনকে শীতল করে দেয়, তেমনিভাবে আলীর ক্রোধে লাল হয়ে যাওয়া মুখমন্ডলও শান্ত হয়ে পড়ল। হযরত আলীর এই আচরণে শত্রুটি বিস্ময় বিমূঢ়। যে তরবারি এসে তার দেহকে খন্ড-বিখন্ড করে ফেলার কথা, তা আবার কোষবদ্ধ হলো কোন কারণে? বিস্ময়ের ঘোরে শত্রুর মুখ থেকে কিছুক্ষণ কথা সরল না। এমন ঘটনা সে দেখেওনি, শোনেওনি কোনদিন। ধীরে ধীরে শত্রুটি মুখ খুলল। বলল, ‘আমার মতো মহাশত্রুকে তরবারির নিচে পেয়েও তরবারি কোষবদ্ধ করলেন কেন?’ হযরত আলী বললেন, ‘আমরা নিজের জন্য বা নিজের কোন খেয়াল খুশী চরিতার্থের জন্য যুদ্ধ করি না। আমরা আল্লাহর পথে আল্লাহর সন্তুষ্টি বিধানের জন্য যুদ্ধ করি। কিন্তু আপনি যখন আমার মুখে থুথু নিক্ষেপ করলেন তখন প্রতিশোধ গ্রহণের ক্রোধ আমার কাছে বড় হয়ে উঠল। এ অবস্থায় আপনাকে হত্যা করলে সেটা আল্লাহর সন্তুষ্টি বিধানের জন্য হতো না। বরং তা আমার প্রতিশোধ গ্রহণের জন্য হতো। আমি আমার জন্য হত্যা করতে চাইনি বলেই উত্তোলিত তরবারি ফিরিয়ে নিয়েছি। ব্যক্তিস্বার্থ এসে আমাকে জিহাদের পূণ্য থেকে বঞ্চিত করুক, তা আমি চাই না।’ শত্রু বলল, ‘আমি দূর থেকে এতদিন আপনাদের উদারতা, মহানুভবতা ও সত্যনিষ্ঠার কথা শুনেছি, আজ তা নিজের চোখে প্রত্যক্ষ করার সৌভাগ্য অর্জন করলাম।’ শত্রুটি ভূমি শয্যা থেকে উঠে দাঁড়িয়ে সংগে সংগে তাওবাহ করে ইসলাম কবুল করল। #শিক্ষা ইসলাম যুদ্ধ বা তরবারির মাধ্যমে আসেনি। ইসলাম যুগে যুগে এভাবেই তার মহত্ত্ব ও ইসলামী আন্দোলনের অকুতোভয় সৈনিকদের চারিত্রিক মাধুর্য দ্বারাই মানুষের মনে প্রভাব বিস্তার করেছে এবং এখনো করে চলেছে। আল্লাহ রাব্বুল আলামীন আমাদের সকলকে তাঁর দ্বীনের পথে কবুল করে নিন। আমীন।

ঢাকায় দুর্ঘটনায় বিজিবি সদস‌্য নিহত


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ঢাকার সিটি করপোরেশনের গাড়ির নিচে চাপা পড়ে সীমান্ত রক্ষা বাহিনী বিজিবির এক সদস‌্য নিহত হয়েছেন। শুক্রবার সকাল সোয়া ৯টার দিকে শ‌্যামলীতে শিশু মেলার সামনে এই দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন মোহাম্মদপুর থানার ওসি জামাল উদ্দিন মীর। নিহতের নাম আবু তাহের। তিনি বিজিবিতে নায়েক হিসেবে কর্মরত ছিলেন বলে পুলিশ জানিয়েছে। পুলিশ কর্মকর্তা জামাল বলেন, “তাহের রাস্তা পার হচ্ছিলেন। সিটি করপোরেশনের একটি ময়লার গাড়ি চাপা দিলে তিনি ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান।”

কানাইঘাটে হান্নান শাহ'র আত্মার মাগফেরাত কামনা করে শোক সভা


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য, বর্ষীয়ান রাজনীতিবীদ,আ স ম হান্নান শাহ্'র রুহের মাগফেরাত কামনায় কানাইঘাট উপজেলার ৩নং দিঘীরপার ইউপি বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের উদ্যেগে এক শোক সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্টিত হয়। শুক্রবার সন্ধ্যা ৭ ঘটিকার সময় ৩নং দিঘীরপার পূর্ব ইউপির অস্থায়ী কর্যালয়ে বিএনপির ইউপি সভাপতি আব্দুশ শহিদ মেম্বার ও সাধারণ সম্পাদক কতুব উদ্দীন মেম্বারের পরিচালনায় শোক সভা ও দোয়া মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা যুব-দলের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক সাজ উদ্দীন সাজু ,৩নং দিঘীরপার ইউপি বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি নুর উদ্দীন,সহ-সাধারণ সম্পাদক ফয়জুর রাহমান,৩ নং ইউ পি যুবদলের আহবায়ক ফয়জুল ইসলাম ফজই,আব্দুস সালাম, সিলেট জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সদস্য কানাইঘাট উপজেলার ছাত্রদলের যুগ্ন আহবায়ক এম মাসুম আহমদ, হাফিজ আহমদ সুজন, আবু রাইহান পাবেল,মিছবাহ উদ্দিন, আব্দু্ল কাদির, ইমরান আহমদ, ইমরান আহমদ নিরব,আং শহিদ,কিবরিয়া আহমদ, আবু বক্কর,৩নং ইউপি শ্রমিক দলের সভাপতি মানিক উদ্দীন মানিক প্রমুখ।

চলছে আয়নাবাজি


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: আজ শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ঢাকাসহ সারাদেশে মুক্তি পেলো অমিতাভ রেজা চৌধুরী সিনেমা ‘আয়নাবাজি’। সিনেমাটি প্রযোজনা করেছে কনটেন্ট ম্যাটারস লিমিটেড। এই সিনেমায় কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন চঞ্চল চৌধুরী ও মাসুমা রহমান নাবিলা। এছাড়াও সিনেমার একটি গুরুত্বর্পূণ নারী চরিত্রে অভিনয় করেছেন ইফফাত তৃষা। সিনেমায় অন্যান্যদের মধ্যে আছেন পার্থ বড়ুয়া, গাউসুল আলম শাওন, এজাজ বাপ্পী, হীরা চৌধুরী সহ আরও অনেকে। সিনেমাটি নিয়ে অমিতাভ রেজা চৌধুরী বলেন, ‘আয়নাবাজি’ একটি শহরের গল্প, যে শহরে এখনও সকালে দুধওয়ালা আসে, ফেরিওয়ালারা হাঁকডাক দেয়। ছবিটি নিয়ে দর্শকের ভালো সাড়াও পাচ্ছি। ‘আয়নাবাজি’র চিত্রনাট্য লিখেছেন অনম বিশ্বাস ও গাউসুল আলম শাওন। এর আগে ইউটিউবে প্রকাশ পায় আয়নাবাজির ট্রেলার। ট্রেলারেই সাড়া ফেলে সিনেমাটি।

অকর্মণ্যতা ইসলামে নিন্দনীয়


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: মানুষকে উপার্জনশীল ও কর্মতৎপর হওয়ার তাগিদ করেছে ইসলাম। বেকারত্ব, আলসেমী ও অকর্মণ্যতা ইসলামের দৃষ্টিতে নিন্দনীয়। রাসুল (সা.) বলেন, ফরজ ইবাদতগুলোর পরেই অত্যাবশ্যক কাজ হলো হালাল রুজি রোজগার করা। এজন্য নবী-রাসুলেরা পর্যন্ত হালাল রুজির জন্য শ্রম দিয়েছেন। ইসলাম কাউকে আলসেমী করে বসে থাকার অনুমতি দেয়নি। কোরআন ও হাদীসের বিভিন্ন স্থানে হালাল রুজি উপার্জনের প্রতি বিশেষ তাগিদ দেয়া হয়েছে। ভিক্ষাবৃত্তি বা কারো দয়া পাত্র হয়ে থাকাকে ইসলাম পছন্দ করে না। রাসুলের কাছে এক সুস্থ-সবল ব্যক্তি ভিক্ষা চাইতে এলে তিনি ওই ব্যক্তিকে কুড়াল কিনে বন থেকে কাঠ কেটে এনে জীবিকা নির্বাহের ব্যবস্থা করে দেন। এতেই বোঝা যায়, ইসলামের শিক্ষা হলো পারতপক্ষে কারো কাছে হাত না পাতা। হাদিসে আছে, নিজ হাতের উপার্জনের চেয়ে উত্তম খাবার আর নেই। বিভিন্ন ধর্মে মানুষকে পার্থিব ক্রিয়াকর্ম থেকে সম্পূর্ণরূপে মুক্ত হয়ে একমাত্র আধ্যাত্মিক সাধনায় নিমগ্ন হতে বলা হয়েছে। কিন্তু ইসলাম তা বলেনি। মানুষকে দুনিয়ায় যতদিন অবস্থান করতে হবে, ততদিন তাকে এখানকার বাস্তবতা মেনে নিতে হবে। অতিপ্রাকৃত ভাবধারা পোষণ করা এবং অস্বাভাবিক জীবনযাপন করা মানুষের জন্য কল্যাণকর হতে পারে না। তবে মানুষকে শুধু চেষ্টা করলেই হবে না, তাকে আল্লাহর অনুগ্রহের আশা রাখতে হবে। কারণ মানুষ নিজের ক্ষমতায় কোনো কিছুই করতে পারে না। তার যেকোনো চেষ্টা ও শ্রমের সাফল্যের জন্য শর্ত হলো আল্লাহ পাকের রহমত। এ কথাটি আল্লাহ তাআলা কুরআন মজীদের বিভিন্ন স্থানে বলে দিয়েছেন। মানুষ তার সাধ্যে যা কুলায়, সে পরিমাণ শ্রম ব্যয় করবে। আর তা সাফল্যে পৌঁছে দেয়া আল্লাহর কাজ। আল্লাহ তায়ালা তাই বান্দাকে শুধু পরিশ্রম করে যেতে বলেছেন। প্রতিদানে তাকে তার প্রয়োজন ও অবস্থা অনুযায়ী সুফল দান করা হবে। কার জন্য কতটুকু প্রতিদান দিলে ভালো হবে তা আল্লাহ পাকই সম্যক অবগত আছেন। তাই মানুষের উচিত, চেষ্টা করার পর যা পাওয়া যায় তাতে সন্তুষ্ট থাকা। আল্লাহ তায়ালা নামাজ আদায়ের পরই তারই অনুগ্রহের অন্বেষণে দুনিয়াতে ছড়িয়ে পড়তে নির্দেশ দিয়েছেন। মুসলমানরা ইবাদত পালনের সঙ্গে সঙ্গে পার্থিব ক্রিয়াকর্মেও জড়িত হবে। কিন্তু কোনো অবস্থাতে সৃষ্টিকর্তাকে বিস্মৃত হওয়া যাবে না। এটাই কোরআন-হাদিস নির্দেশিত পথ।

'ভুলে যেও না শাহরুখ, তুমিও পাকিস্তানি'

'ভুলে যেও না শাহরুখ, তুমিও পাকিস্তানি'

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সীমান্ত রেখা পেরিয়ে পাকিস্তানের সন্ত্রাস ঘাটিতে ভারতীয় সেনা জাওয়ানদের 'সার্জিক্যাল স্ট্রাইকে' সাফল্য পাবার পর এক টুইট করেছিলেন শাহরুখ খান। ২৯ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা ৬টা ৪৭ শাহরুখ খান এই টুইট করেন। এই টুইটি ছিল এরকম-

"সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে ভারতীয় সেনা জাওয়ানরা যে ভূমিকা নিয়েছে তার জন্য তাঁদের ধন্যবাদ। আমাদের সবার উচিত ভারতীয় সেনা জাওয়ানদের সুরক্ষার জন্য প্রার্থনা করা",

কিন্তু এই টুইটের পরই পাকিস্তানের এক তরুণীর তির্যক টুইট ফিরে আসে কিং খানের দিকে।

পাকিস্তানের করাচি বাসিন্দা ফাতেমা রিটুইটে লেখেন, "সন্ত্রাস? তোমাদের দেশেই জন্ম হয় সন্ত্রাসের। পাকিস্তানিরা তোমাকে ঘৃণা করে"। এখানেই শেষ নয়।  ওই তরুণী এও বলেন, "ভুলে যেও না, তুমিও পাকিস্তানি"। এরপরই শুরু হয় বাকযুদ্ধ।

তবে শাহরুখের পাকিস্তানি ফ্যানের টুইট জবাবে বসে থাকেনি শাহরুখের ভারতীয় ফ্যানরাও। হর্ষ রৌশন নামের এক শাহরুখ ফ্যান টুইট করেন, শাহরুখ একজন প্রকৃত ভারতীয় নাগরিক।

দাঁত ফিলিং মস্তিষ্ক, হার্ট ও কিডনির জন্য ক্ষতিকর: গবেষণা

দাঁত ফিলিং মস্তিষ্ক, হার্ট ও কিডনির জন্য ক্ষতিকর: গবেষণা

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: বিশ্বব্যাপী বেশিরভাগ মানুষই দাঁতের ক্ষয় সমস্যা ভুগে থাকেন। দাঁত ক্ষয় হলে এর চিকিৎসা হিসেবে চিকিৎসকরা দাঁত ফিলিং করে থাকেন। কিন্তু এটি শরীরের জন্য কতটা উপকারী?

সম্প্রতি একটি গবেষণায় বলা হয়েছে, দাঁত ফিলিংয়ে পারদ, রুপা, টিন এবং অন্যান্য ধাতুর যে মিশ্রণ ব্যবহৃত হয় তা শরীরে পারদের মাত্রা বৃদ্ধি পেতে পারে।

গবেষণায় বলা হয়েছে, মূলত যারা ৮ বারের বেশি দাঁত ফিলিং করেছেন, অন্যদের তুলনায় তাদের রক্তে ১৫০ শতাংশ বেশি পারদ প্রবেশ করেছে, যা মস্তিষ্ক, হার্ট ও কিডনি ড্যামেজ করার ঝুঁকি সৃষ্টি করতে সক্ষম। ইউনিভার্সিটি অব জর্জিয়ার একদল গবেষক তাদের গবেষণাপত্রে এ তথ্য প্রকাশ করেছেন।

ইউনিভার্সিটি অব জর্জিয়ার সহকারী অধ্যাপক সাজং ইয়ু বলেন, ‘আপনি যদি একবার ফিলিং করে, তাহলে হতে পারে তা ঠিক আছে। কিন্তু আপনি যদি ৮ বারের বেশি ফিলিং করেন তাহলে প্রতিকূল প্রভাবের সম্ভাব্য ঝুঁকি বেশি।’

দাঁতের ফিলিংয়ে এসব ডেন্টাল ‍উপাদানের মিশ্রণ ১৫০ বছর ধরে চলে আসছে কারণ এই মিশ্রণ সহজলভ্য এবং টেকশই। যা হোক, এই চিকিৎসা মিশ্রণের অর্ধেক পারদ, যা  ভারী ধাতু হিসেবে পরিচিত ও উচ্চ স্তরে বিষাক্ত হতে সক্ষম হওয়ায় মস্তিষ্ক, হার্ট, কিডনি, ফুসফুস এবং ইমিউন সিস্টেম ক্ষতি ঘটাচ্ছে। গবেষণায় দেখা গেছে, পারদের মধ্যে ক্ষতিকর মিথাইন পারদের উপস্থিতিও রয়েছে। এই মিথাইল পারদ এমনকি কম স্তরে ক্ষতি করতে পারে বলে গবেষকরা সতর্ক করেছেন।

গবেষকরা এটাও দেখেছে, মার্কারি-মুক্ত ফিলিং হিসেবে রেসিন মিশ্রণও সামান্য পরিমান বিপিএ নির্গত করে যা উন্নয়নে বা প্রজননে ক্ষতি করতে পারে।

কাস্টার্ড তৈরির সহজ উপায়

কাস্টার্ড তৈরির সহজ উপায়
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সহজ ও দ্রুত মেহমানদারি করার জন্য সবচেয়ে ভালো উপায় হলো কাস্টার্ড। তাই আজ সবচেয়ে সহজ উপায়ে কাস্টার্ড তৈরির প্রণালি দেয়া হচ্ছে বিডিলাইভ পাঠকদের জন্য। ফ্রিজে রেখেও বেশ অনেক দিন মেহমানদারি করতে পারবেন এই খাবারটি দিয়ে। তাছাড়া বিকালের নাশতায় পরিবেশন করতে পারেন এই সুস্বাদু কাস্টার।

উপকরণ :

২ কেজি দুধ, কাস্টার্ড পাউডার ৩/৪ টেবিল চামচ, চিনি এক কাপ বা পরিমাণমতো,  এলাচ ফল ৩/৪ টা, দারুচিনি ২/৩ টা, সাজানোর জন্য ফল ও ছোট ছোট মিষ্টি ।

প্রনালী :

– দুধ জ্বাল দিয়ে ১লিটার করে নিয়ে কাস্টার্ড পাউডার অালাদা ভাবে গুলিয়ে নিয়ে দুধের মধ্যে ঢেলে দিয়ে খুব ভালো করে নাড়তে থাকুন।

– এবারে ফল ও মিষ্টি ছাড়া সব উপকরণ দিয়ে দিন ঘন হয়ে এলে মিষ্টি চেখে পাএে ঢেলে একটু ঠান্ডা করে ফ্রিজে রেথে দিন। মেহমানদারি বা খাবার কিছুক্ষণ অাগে ফ্রিজ থেকে বের করে ফল কেটে উপরে দিয়ে দিন। মিষ্টি ছড়িয়ে দিন।

–  ফল হিসাবে ব্যবহার করবেন অাম, অাপেল, মাল্টা, কলা। খাওয়ার অাগে মিশিয়ে নিবেন তা না হলে ফলে পানি কাটবে পাতলা হয়ে যাবে। কিসমিস পেস্তাবাদাম ও ফল সবকিছু দিয়ে চামচ দিয়ে মাখিয়ে নিন।

বাংলার মাটিতে সিরিজ জয়ের স্বপ্নে বিভোর আফগানিস্তান

বাংলার মাটিতে সিরিজ জয়ের স্বপ্নে বিভোর আফগানিস্তান

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: শনিবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান। ম্যাচটি শুরু হবে বেলা আড়াইটায়। এর আগে সিরিজের প্রথম ম্যাচে মাত্র সাত রানে হেরেছিল আফগানিস্তান। আর দ্বিতীয় ম্যাচে স্বাগতিকদের বিপক্ষে দারুণ এক জয় পায় অতিথি দলটি।

আফগানিস্তান সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচ জিতে তাদের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে চান। দলটির অন্যতম নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান হাশমতউল্লাহ শাহিদি মনে করেন, বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজ জিততে পারলে এটি হবে তাদের ক্রিকেট ইতিহাসের সেরা সাফল্য।

শুক্রবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে এক সংবাদ সম্মেলনে হাশমতউল্লাহ বলেন, ‘এই প্রথম বাংলাদেশের মাটিতে তাদের বিপক্ষে সিরিজ খেলছি আমরা। আমার বিশ্বাস সিরিজ জিততে পারব আমরা। যদি সিরিজ জিততে পারি তাহলে এটি হবে আমাদের ক্রিকেট ইতিহাসের সেরা সাফল্য।

এসএমএসে জেনে নিন কখন কোথায় স্মার্টকার্ড পাবেন

এসএমএসে জেনে নিন কখন কোথায় স্মার্টকার্ড পাবেন

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী রোববার (২ অক্টোবর) উন্নতমানের জাতীয় পরিচয়পত্র (স্মার্টকার্ড) বিতরণের কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন। আর সোমবার থেকে নাগরিকের হাতে স্মার্টকার্ড তুলে দেয়া শুরু করবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

কার স্মার্টকার্ড কখন ও কোথা থেকে বিতরণ করা হবে যেকোনো মোবাইল থেকে ১০৫ নম্বরে এসএমএস পাঠিয়ে নাগরিকেরা সহজেই জানতে পারবেন।

এ বিষয়ে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) অনুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সুলতানুজ্জামান মো. সালেহ উদ্দিন জানান, www.nidw.gov.bd ওয়েবসাইটে গিয়ে NID Online Services লিংকের অন্যান্য তথ্য ট্যাবে জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ লিংকে গিয়ে এনআইডি নম্বর ও জন্ম তারিখ অথবা ফরম নম্বর ও জন্ম তারিখ দিয়ে স্মার্টকার্ড বিতরণের তারিখ জানা যাবে।

এসএমএসের মাধ্যমেও বিতরণের তারিখ ও কেন্দ্রের নাম জানা যাবে। এসএমএসের মাধ্যমে জানতে SC লিখে স্পেস দিয়ে ১৭ সংখ্যার এনআইডি নম্বর লিখে ১০৫ নম্বরে পাঠাতে হবে। আর যাদের এনআইডি ১৩ ডিজিটের তাদের এনআইডির নম্বরের প্রথমে জন্ম সাল যোগ করতে হবে বলে জানান তিনি।

তিনি আরো জানান, যারা ভোটার হিসেবে নিবন্ধিত হয়েছেন কিন্তু এখনো এনআইডি পাননি তারা SC লিখে স্পেস দিয়ে F লিখে স্পেস দিয়ে নিবন্ধন স্লিপের ফরম নম্বর লিখে স্পেস  দিয়ে D লিখে স্পেস দিয়ে yyy-mm-dd ফরমেটে জন্ম তারিখ লিখে ১০৫ নম্বরে পাঠাতে হবে।

এছাড়া ১০৫ নম্বরে ফোন করেও নাগরিকেরা স্মার্টকার্ড সম্পর্কে যেকোনো তথ্য জানার থাকলে জানতে পারবেন বলেও জানান তিনি।

পাক-ভারত উত্তেজনা: সীমান্ত থেকে সরানো হচ্ছে ভারতীয় গ্রামবাসীদের

পাক-ভারত উত্তেজনা: সীমান্ত থেকে সরানো হচ্ছে ভারতীয় গ্রামবাসীদের
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ভারত শুক্রবার থেকে পাকিস্তানের সীমান্তবর্তী এলাকায় বসবাসরত হাজার হাজার গ্রামবাসীকে সরিয়ে নিতে শুরু করেছে। বিরোধপূর্ণ কাশ্মীরে সীমান্ত বরাবর সামরিক অভিযান চালানোর একদিন পর নয়াদিল্লী এ কাজ শুরু করলো। সেখানে ভারতীয় সামরিক বাহিনীর অভিযান চালানোকে কেন্দ্র করে পারমানবিক ক্ষমতাধর দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

ভারতের পক্ষ থেকে এটিকে ‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’ বলা হচ্ছে।

পাকিস্তানের পক্ষ থেকে পাল্টা আঘাতের আশঙ্কায় ভুগছে পাঞ্জাব সহ গোটা পশ্চিম সীমান্ত। গত সন্ধ্যায় পাক সেনাপ্রধান রাহিল শরিফের ‘বদলা নেয়ার’ হুমকির পরে আশঙ্কার চোরাস্রোত বইছে নয়াদিল্লীর নর্থ-সাউথ ব্লকেও। ফলে আগামী দু’তিন দিন পাকিস্তান কী করে, সে দিকেই নজর থাকছে।

ভারতের উত্তরাঞ্চলীয় পাঞ্জাব রাজ্য কর্তৃপক্ষ জানায়, কোনও ঝুঁকি না নিয়ে আজ থেকেই পাঞ্জাব সীমান্তের দশ কিলোমিটারের মধ্যে যে সব গ্রাম রয়েছে, তা খালি করার কাজ শুরু হয়েছে। হামলার আশঙ্কায় সরকারি চিকিৎসক, নার্স ও পুলিশদের ছুটি বাতিল করে দিয়েছে পাঞ্জাব প্রশাসন। সীমান্তে পাঠানো হয়েছে বাড়তি সেনা। খোঁড়া হচ্ছে বাঙ্কার। অনির্দিষ্ট কালের জন্য বাতিল করা হয়েছে আত্তারি-ওয়াঘা সীমান্তের প্রাত্যহিক সেনা মহড়া। সতর্কতা জারি হয়েছে রাজস্থান, গুজরাট এবং জম্মু ও কাশ্মীরেও। সরানো হচ্ছে সেখানকার সীমান্তবর্তী বা নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর গ্রামের বাসিন্দাদেরও।

আজ সকালে পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী প্রকাশ সিং বাদলকে ফোন করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। টেলিফোনে তিনি পাল্টা হামলা চালানোর আশঙ্কা রয়েছে বলে জানান। তাই সীমান্ত সংলগ্ন সমস্ত গ্রাম খালি করে দেওয়া হোক।

পাঞ্জাবের সঙ্গে পাকিস্তানের প্রায় ৫৫৩ কিলোমিটার সীমান্ত রয়েছে। সীমান্তের কাছাকাছি যেসব গ্রাম রয়েছে, জেলা প্রশাসন দুপুর থেকেই সেগুলো খালি করার কাজ শুরু করেছে। গ্রামগুলোর দখল নিয়ে খোঁড়া হচ্ছে বাঙ্কার। সীমান্তে মজুদ করা হচ্ছে অস্ত্রশস্ত্র, গোলাবারুদ। সীমান্তের দায়িত্ব এখনও বিএসএফের হাতে থাকলেও প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে পাঠানকোট সেনা ছাউনিকেও। খালি করে দেওয়া হয়েছে পাঠানকোট হাসপাতালের আপৎকালীন বিভাগও। রোগীদেরও অন্যত্র পাঠানো হয়েছে।

সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী

সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্রে ১৭ দিনের সফর শেষে আজ দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টা ৪২ মিনিটে রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান তিনি।

তবে পূর্বনির্ধারিত সময়সূচি অনুযায়ী বিকাল ৫টা ২০ মিনিটে পৌঁছানোর কথা থাকলেও দুবাই থেকে দেরিতে রওনা হওয়ায় বিমানটি দেড় ঘণ্টা পরে পৌঁছায়। যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ার ডালেস আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বৃহস্পতিবার এমিরেটসের ফ্লাইটে ঢাকার পথে রওনা হন শেখ হাসিনা।

এদিকে বিমানবন্দর থেকে সন্ধ্যা সাতটার দিকে গণভবনের দিকে যাত্রা শুরু করেন প্রধানমন্ত্রী। তাকে গণ-অভ্যর্থনা জানাতে দুপুর থেকেই বিমানবন্দর এলাকা থেকে শুরু করে গণভবন পর্যন্ত সড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থান নিতে থাকেন আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্রে গ্লোবাল ফান্ড সম্মেলন ও জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভায় যোগ দিতে ঢাকা ছাড়েন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর ১৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী কানাডা থেকে যুক্তরাষ্ট্রে যান। সেখানে ২০ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের ৭১তম অধিবেশনে যোগ দেন তিনি।

অধিবেশন শেষে ২৬ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রীর দেশে ফেরার কথা ছিল। কিন্তু পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সময় কাটানোর জন্য তিনি দেশে ফেরা সময়সূচিতে পরিবর্তন আনেন।

জাতিসংঘের অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রীকে রাষ্ট্র পরিচালনাসহ বহুমাত্রিক অবদানের জন্য জাতিসংঘ পদক ‘প্ল্যানেট ৫০-৫০ চ্যাম্পিয়ন’ ও ‘এজেন্ট অব চেঞ্জ’ পদকে সম্মানিত করা হয়।

কানাইঘাটে এক সপ্তাহের ব্যবধানে দুটি হত্যাকান্ডের ঘটনায় সর্বত্র তোলপাড়


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাটে একসপ্তাহের মধ্যে দু’টি লোমহর্ষক হত্যাকান্ডের ঘটনায় সর্বত্র জনমনে নানা ধরনের প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। সামাজিক অধ:পতনের কারণে এ ধরনের হত্যাকান্ড সংঘটিত হচ্ছে বলে সচেতন মহল মনে করেন। সম্প্রতি কানাইঘাটে বেশ কয়েকটি নেতি বাচক ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সহ সর্বত্র আলোচনা ও সমালোচনা চলছে। গত ১৯ সেপ্টেম্বর মেয়েলি ঘটনার জের ধরে নৃশংস হত্যাকান্ডের স্বীকার হয় দর্জি ইমরান হোসেন। খুনিরা তাকে পৈশাচিক কায়দায় হত্যা করে লাশ ঘুম করার উদ্দেশ্যে পুকুরে ডুবিয়ে রাখে। এ ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই গত সোমবার উপজেলার লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউপির দূর্গম পাহাড়ী এলাকায় গণ-ধর্ষণের পর ১১ বৎসরের এক মেয়ে জঘন্যতম হত্যাকান্ডের ঘটনায় সর্বত্র তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। যেভাবে দু’টি হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়েছে তা পেশাদার খুনীদেরও হার মানিয়েছে। গত সোমবার উপজেলার লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউপির এরালীগুল গ্রামের তেরা মিয়ার মেয়ে স্থানীয় স্কুলের ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রী সুলতানা বেগম (১১) কে গণধর্ষণের পর ধর্ষণকারীরা যেভাবে তাকে শ্বাসরোদ্ধ করে হত্যা করে লাশ আড়াইশ’ ফুট উপরে একটি টিলায় মাটি চাপা দিয়ে গুম করে রাখে সম্প্রতি কয়েক বছরের মধ্যে এধরনের ঘটনা ঘটেনি। এ নির্মম পৈশাচিক হত্যাকান্ডের ঘটনায় এলাকার মানুষ হতবাক হয়ে পড়েছেন। খুনীদের যেন দ্রুত আইনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ফাঁসিতে ঝুলানো হয় তাদের একটাই দাবী। এদিকে সুলতানা বেগমের পৈশাচিক হত্যাকান্ডের ঘটনার সাথে জড়িত গ্রেফতারকৃত আবুল আহমদ, রাসেল ও ছাদেক শুক্রবার সিলেটের চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে সুলতানাকে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় বিজ্ঞ আদালতের কাছে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দিয়েছে বলে থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ হুমায়ুন কবির কানাইঘাট নিউজকে জানিয়েছেন। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী নিহত সুলতানার সহপাঠী ফারহানা বেগমেরও ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী নেয় আদালত। গণধর্ষণের পর নির্মম হত্যাকান্ডের স্বীকার সুলতানা বেগমের হত্যাকান্ডের ঘটনাস্থল শুক্রবার পরিদর্শন করেছেন সিলেট উত্তর সার্কেলের এএসপি ধীরেন্দ্র মহাপাত্র। স্থানীয় সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে ধীরেন্দ্র মহাপাত্র নিহত সুলতানা বেগমের বাড়ী এরালীগুল গ্রামে গেলে সেখানে হৃদয় বিদারক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন সুলতানার মা কুলছুমা বেগম ও স্বজনরা। সুলতানার মা গগণবিধারী কান্নাজড়িত কন্ঠে তার নিষ্পাপ মেয়েকে যারা ধর্ষণ করে খুন করেছে তাদের যেন ফাঁসি হয়। সুলতানার আত্মীয় স্বজনদের শান্তনা প্রদান এবং সেখানে উপস্থিত এলাকার সর্বস্তরের জনসাধারণকে আশ্বস্ত করে ধীরেন্দ্র মহাপাত্র বলেন যেভাবে নিষ্পাপ শিশু মেয়ে সুলতানা বেগমকে ধর্ষণ করে খুনীরা হত্যা করে লাশ টিলায় মাটিচাপা দিয়ে রেখেছিল তা নিন্দা জানানোর ভাষা আমাদের নেই। সুলতানা নিখোঁজের প্রথম দিন পুলিশকে এব্যাপারে তথ্য দিলে আমরা তার লাশ উদ্ধার ও খুনীদের আগেই গ্রেফতার করতে পারতাম। তারপরও এলাকাবাসীর সহযোগীতায় পুলিশ ধর্ষণ ও হত্যাকারী বড়খেওড় গ্রামের আবুল আহমদ (২৫), রাসেল (২৫) ও ছাদেক হোসেন (২৬) কে গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করেছে। তিনি নিহতের পরিবার ও এলাকাবাসীকে আশ্বস্ত করে আরো বলেন, কম সময়ের মধ্যে সুলতানা হত্যা মামলার চার্জশীট আদালতে দেওয়া হবে। খুনীদের যাতে মৃত্যুদন্ড হয় এবং ভবিষ্যতে এ এলাকায় এ ধরনের জগন্যতম ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে পুলিশ সেভাবেই দ্রুততার সাথে আইনী পদক্ষেপ নেবে। ধীরেন্দ্র মহাপাত্র সুলতানা হত্যা মামলার পলাতক আসামী বাবুল আহমদকে ধরিয়ে দেওয়ার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান। প্রসজ্ঞত যে, গত ২৬ সেপ্টেম্বর সোমবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে এরালীগুল গ্রামের তেরা মিয়ার ১১ বৎসরের শিশু ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রী সুলতানা বেগম গ্রামের জামে মসজিদে মক্তব পড়ে পাশ্ববর্তী বড়খেওড় গ্রামের ইমাম উদ্দিনের মেয়ে সহপাঠী ফারহানা বেগমের বাড়ীতে যায়। উক্ত বাড়ীতে অবস্থান করার একপর্যায়ে বেলা সাড়ে ১২টার দিকে ফারহানা বেগমের বড় ভাই বিবাহিত এক সন্তানের জনক আবুল আহমদ নিজ বাড়ীর টিলায় জঙ্গল পরিস্কার করার সময় তার বোন ফারহানা বেগমকে পানি দেওয়ার জন্য টিলার উপর থেকে ডাকাডাকি করে। ফারহানা বেগম ভাই আবুলের জন্য পানি না নিয়ে গিয়ে সহপাঠি সুলতানা বেগমকে পানি দিয়ে টিলার উপরে পাটায়। শিশু সুলতানা টিলার উপর পানি নিয়ে যাচ্ছে দেখে তার পিছু নেয় বড়খেওড় বাবুল আহমদ। সুলতানা পানি নিয়ে প্রায় আড়ই শ’ ফুট উপরে টিলায় উঠলে পাশর্^বর্তী একটি টিলার জঙ্গল পরিস্কার করছিল একই গ্রামের রাসেল ও ছাদেক। একপর্যায়ে আবুল আহমদ, বাবুল আহমদ, রাসেল ও ছাদেক একত্রিত হয়ে সুলতানা বেগমকে টিলার উপর আটকিয়ে মুখ চাপা দিয়ে পালাক্রমে গণধর্ষণ শুরু করলে সে অজ্ঞান হয়ে যায়। ধর্ষণের ঘটনাটি চাপা দিতে ধর্ষণকারীরা সুলতানাকে শ^াশরুদ্ধ করে হত্যা করে লাশ গুম করার জন্য টিলার উপরে মাটি খোঁড়ে চাপা দিয়ে রাখে। সুলতানা যে খুনী ধর্ষণকারী আবুল আহমদের বাড়ীতে গিয়েছিল তার পরিবার বিষয়টি গোপন রাখে। নিখোঁজের তিনদিন পর সুলতানার ভাই একলিম উদ্দিন কানাইঘাট থানায় তার বোনকে অপহরন করে লাশ গুমের ঘটনায় আবুল আহমদ সহ কয়েকজনকে আসামী করে অভিযোগ দিলে থানা পুলিশ গত বৃহস্পতিবার আবুল আহমদকে গ্রেফতার করলে তার স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দির সূত্র ধরে তার বাড়ীর আড়াই শ’ ফুট উপরের টিলায় মাটি চাপা দিয়ে রাখা সুলতানার অর্ধ গলিত লাশ উদ্ধার করে এবং এ ঘটনার সাথে জড়িত বাবুল আহমদের সহযোগী রাসেল ও ছাদেককে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় পুলিশ।

কাল ইরান যাচ্ছেন শিল্পমন্ত্রী

কাল ইরান যাচ্ছেন শিল্পমন্ত্রী
সংবাদ সংস্থা: শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু আগামীকাল ১ অক্টোবর চার দিনের সরকারি সফরে ইরান যাচ্ছেন।
ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরান সরকারের শিল্প, খনি ও বাণিজ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ রেজা নেমাতজাদেহের আমন্ত্রণে তিনি এ সফর করবেন। শিল্প মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আজ একথা বলা হয়।

শিল্পখাতে উন্নয়নের লক্ষে ইরানের সাথে অভিজ্ঞতা ও কারিগরি দক্ষতা বিনিময়ের ক্ষেত্র চিহ্নিত করা এ সফরের অন্যতম লক্ষ্য।

সফরকালে তিনি চার সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেবেন। বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ কর্পোরেশনের (বিসিআইসি) চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইকবাল, ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের (এফবিসিসিআই) পরিচালক মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন এবং শিল্পমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব এফ এম মাহমুদ প্রতিনিধিদলে সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত রয়েছেন।
চার দিনের এ সফরে শিল্পমন্ত্রী ইরানের উপ-রাষ্ট্রপতি, শিল্প, খনি ও বাণিজ্যমন্ত্রী, কৃষিমন্ত্রী এবং ইস্পাহান প্রদেশের গভর্নর জেনারেলের সাথে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করবেন।

এছাড়া, তিনি ইরান চেম্বার অব কমার্সের প্রেসিডেন্ট এবং ইস্পাহানের স্থানীয় শিল্প উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীদের সাথে মত বিনিময় করবেন।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ এবং ইরানের মধ্যে ঐতিহাসিকভাবে ব্যবসা-বাণিজ্য ও সুদৃঢ় সাংস্কৃতিক বন্ধন রয়েছে। এটি কাজে লাগিয়ে দ্বিপাক্ষিক অর্থনৈতিক ও বাণিজ্য সহযোগিতা জোরদারের লক্ষে ইরান সরকার শিল্পমন্ত্রীকে সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। এ সফরের মাধ্যমে ম্যানুফ্যাকচারিং ও সেবা শিল্পখাত এবং অর্থনৈতিক অবকাঠামো উন্নয়নে ইরানের সক্ষমতা সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে। এর ফলে দু’দেশের শিল্পখাতে কারিগরি জ্ঞান, প্রযুক্তি হস্তান্তর ও ব্যবস্থাপনা দক্ষতা বিনিময়ের পথ সুগম হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

শিল্পমন্ত্রী আগামী ৫ অক্টোবর দেশে ফিরবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

পাকিস্তান-চীনের বিতর্কিত এলাকায় ‘রাফায়েল’ মোতায়েন করবে ভারত’

পাকিস্তান-চীনের বিতর্কিত এলাকায় ‘রাফায়েল’ মোতায়েন করবে ভারত’

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সম্প্রতি ফ্রান্সের কাছে থেকে পারমাণবিক অস্ত্র বহনে সক্ষম ৩৮টি রাফায়েল যুদ্ধবিমান কিনতে ৮ দশমিক ৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে ভারত। সম্প্রতি কেনা এসব যুদ্ধবিমান পাকিস্তান ও চীনের সঙ্গে বিতর্কিত এলাকায় মোতায়েন করতে যাচ্ছে বলে শুক্রবার চীনের রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত সংবাদমাধ্যমে জানানো হয়েছে।

চীনের সরকারি সংবাদমাধ্যম গ্লোবাল টাইমস এক প্রতিবেদনে বলছে, এসব যুদ্ধবিমান পারমাণবিক ওয়ারহেড বহনে সক্ষম; এর ফলে ভারতের পারমাণবিক সক্ষমতা বাড়বে।

বিশেষজ্ঞদের দাবী, এসব যুদ্ধবিমান থেকে তিন বছর পর ভারতীয় বিমানবাহিনী পাকিস্তান ও চীনে লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালাতে পারবে। ভারতের বিমান বাহিনীর জন্য এই চুক্তি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ভারতীয় বিমানবাহিনীর হাতে বর্তমানে ৩৩ ফাইটার স্কোয়াড্রন রয়েছে; এর প্রত্যেকটিতে ১৮টি করে যুদ্ধবিমান আছে। চীন এবং পাকিস্তানের যৌথ হুমকি মোকাবেলায় দেশটির ৪৫টি যুদ্ধ ইউনিট প্রয়োজন হবে।

গ্লোবাল টাইমস বলছে, প্রতিবেশি চীনের হুমকির ধোঁয়া তুলে ভারত পশ্চিমা বিশ্বের কাছে থেকে অস্ত্র ক্রয় করছে। এর ফলে এশিয়ায় পশ্চিমা বিশ্বের তৈরি অস্ত্র রফতানি বৃদ্ধি পেয়েছে। সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস, গ্লোবাল টাইমস

‘পাকিস্তানে বন্দি সেনার জন্য সব পদক্ষেপ নেবে ভারত’

‘পাকিস্তানে বন্দি সেনার জন্য সব পদক্ষেপ নেবে ভারত’
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: পাকিস্তানে বন্দি ভারতীয় সেনা সদস্যের মুক্তির জন্য সব ধরনের পদক্ষেপ নিতে প্রস্তুত ভারত। বৃহস্পতিবার অসাবধানতাবশত ওই সেনা পাকিস্তানের ভেতরে ঢুকে পড়েছে। পাকিস্তানে বন্দি ২২ বছর বয়সী সেনা চান্দু বাবুলাল চৌহানকে ফেরাতে সব ধরনের প্রচেষ্টা নেয়া হচ্ছে’।

শুক্রবার ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেন। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বুধবার মধ্যরাতে পাক অধিকৃত কাশ্মিরের ৭টি সন্ত্রাসী আস্তানায় ভারতীয় সেনাবাহিনীর অভিযানের খবর প্রকাশের কয়েক ঘণ্টার মধ্যে মহারাষ্ট্রের নাগরিক ও সেনাসদস্য চান্দু চৌহানকে আটকের দাবি করে পাকিস্তান।

প্রতিবেশি এ দুই দেশের মাঝে চরম উত্তেজনা চলছে। পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যম ডনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গুলিতে ৮ ভারতীয় সেনা নিহত ও এক সেনাকে আটকের দাবি করেছে পাকিস্তান সেনাবাহিনী। তবে ভারতীয় সেনাবাহিনী পাকিস্তানের ভারতীয় সেনা হত্যার দাবি নাকচ করে দিয়ে বলছে, সেনাবাহিনীর স্পেশাল ফোর্সের সদস্যরা পাকিস্তানে অভিযান চালিয়ে নিরাপদে দেশে ফিরে এসেছে।

সেনাবাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ভারতের বিশেষ বাহিনী রাষ্ট্রীয় রাইফেলসের সদস্য চৌহান সার্জিক্যাল স্ট্রাইক অভিযানে অংশ নেয়নি। তবে দায়িত্ব পালনের সময় ভুলবশত পাক সীমান্তের ভেতরে ঢুকে পড়েছিল।

গত রাতে ভারতের সেনাবাহিনীর ডিরেক্টর জেনারেল অব মিলিটারি অপারেশনস লেফটেন্যান্ট জেনারেল রণবীর সিং গত রাতে পাকিস্তান কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সেনাসদস্যের মুক্তির বিষয়ে কথা বলেছেন।

রাঙামাটি ভ্রমণে হতাশ পর্যটকরা

রাঙামাটি ভ্রমণে হতাশ পর্যটকরা
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: রূপবৈচিত্র-হ্রদের জল-পাহাড় আর অরণ্যের অপার সৌন্দর্যের কোল ঘেঁষে রয়েছে প্রকৃতির রূপসী কন্যা রাঙামাটি। চট্টগ্রাম বিভাগের পার্তব্য চট্টগ্রামের তিনটি জেলার মধ্যে অন্যতম এই রাঙামাটি জেলা। আকা-বাকা পথ আর উঁচু-নিচু পাহাড় নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে রাঙামাটি।

বছরের এই সময়টি স্থানটিতে পর্যটকদের ব্যাপক সমাগম ঘটে। কিন্তু সম্প্রতি অপরুপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি রাঙামাটির প্রতি আগ্রহ কমে আসছে পর্যটকদের। পার্বত্য রাঙামাটি এখন অনেক শান্ত ও স্থিতিশীল। তাই পর্যটন মৌসুমে প্রতিবছরই পর্যটকদের সরব উপস্থিতি থাকে লেক পাহাড়ের এ শহরে।

জানা গেছে, প্রতিদিন হাজারো পর্যটকের আগমনে পর্যটন স্পটগুলো মুখরিত থাকলেও বর্তমানে রাঙামাটিতে স্বতস্ফূর্তভাবে আগত পর্যটকগণ চরম হতাশা নিয়ে ফিরে যাচ্ছে। নানাবিদ সমস্যার সঙ্গে অন্যতম আকর্ষণ ঝুলন্ত সেতু পানির নিচে ডুবে থাকাসহ ঐতিহ্যবাহী রাজবন বিহারে পর্যটকদের আগমনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিষেধাজ্ঞাসহ ভান্ডারী পাহাড়ে পর্যটক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞায় ভ্রমণের আকর্ষণ হারিয়ে ফেলছেন পর্যটকরা।

ফলে হোটেল মোটেল ও রেস্টুরেন্ট ব্যবসায় গুনতে হচ্ছে লোকসান। এমনকি এর প্রভাব পড়েছে টুরিস্টের সাথে জড়িত নৌযান ব্যবসায়। বেকার সময় পার করছে হরেক ব্যবসার সাথে জড়িত শত-শত মানুষ।

পাহাড়ের বৈচিত্রময় নৃতাত্বিক জনগোষ্ঠী ও তাদের সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক বৈশিষ্ট্যের জন্য রাঙামাটি শহর দেশি বিদেশি পর্যটকদের কাছে অনেক বেশি আকর্ষণীয় হলেও সাম্প্রতিক সময়ে পরিসংখ্যান বলে প্রতিবছরই কমছে রাঙামাটিতে পর্যটকদের সংখ্যা। তার মধ্যে বিদেশি পর্যটকদের সংখ্যা একেবারে তলানিতে। পর্যটন শহর রাঙামাটিকে ঘিরে বিভিন্ন সময় নানাবিধ সমস্যা তৈরি হওয়ায় পর্যটক কমছে বলে ধারনা স্থানীয়দের।

এখানকার যানবাহন ব্যবস্থা একেবারে নাজুক। স্থানীয় মালিক সমিতির দৌরাত্বের কারণে আধুনিক বিলাস বহুল যানবাহনের সংখ্যা একেবারে হাতেগোনা। তবে রাঙামাটি-চট্টগ্রাম রুটে যে যানবাহনগুলো চলাচল করে সেগুলো নিয়ে যাত্রীদের নানান অভিযোগ রয়েছে। মান্ধাত্বার আমলে যানবাহন দিয়ে এ রুটে চলছে যাত্রী সেবা। প্রায় দুর্ঘটনায় পতিত হওয়া এসব যানবাহনগুলোর ফিটনেস নিয়েও অভিযোগ দীর্ঘদিনের। তাছাড়া, শহরে সিএনজি চালিত ভাড়া নিয়েও আপত্তি পর্যটকদের।

বেশিরভাগ পর্যটক জানান, এখানকার অভ্যন্তরীণ সিএনজি ভাড়াটা বেশি। চট্টগ্রাম থেকে রাঙ্গামাটি আসতে যে পরিমাণ ভাড়া দিতে হয়, মাত্র দুই থেকে তিন কিলোমিটার ঘুরতে সে তুলনায় দ্বিগুনের বেশি ভাড়া প্রদান করতে হয়।

কিভাবে চিনবেন ভুয়া পুলিশ প্রতারক চক্র?

কিভাবে চিনবেন ভুয়া পুলিশ প্রতারক চক্র?

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: বর্তমানে ভুয়া পুলিশ পরিচয় দান করে একটি চক্র অভিনব কায়দায় প্রতারণা করে যাচ্ছে। কখনও কখনও তারা ডাকাতির মতো ঘটনাও ঘটাচ্ছে। সম্প্রতি রাজধানীর মগবাজার এলাকা থেকে চারজনের এরকম একটি চক্রকে ধরেছে ডিবি পুলিশের সদস্যরা, যারা দীর্ঘদিন থেকে রাজধানী ও দেশের বিভিন্ন জায়গায় কৌশলে বিভিন্ন মানুষকে ভয়ভীতি দেখিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছিল টাকা-পয়সা ও মূল্যবান সামগ্রী। ভুয়া পুলিশ সদস্যদের পরিচয়, কর্মকান্ড ও চেনার উপায় এসব বিষয়ে বিস্তারিত পাঠকদের জানাচ্ছেন হাফিজুর রহমান রিয়েল।

ভুয়া পুলিশের সদস্য কারা:
দেখা গেছে এসব ভুয়া পুলিশ পরিচয় দানকারী সদস্যরা বেশিরভাগই স্মার্ট প্রকৃতির। তাদের বেশভুষা আচার-আচরণ চলাফেরা এমনকি চুলের ছাট পর্যন্ত হয় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের মতো। পুলিশ বা অন্যান্য বাহিনী থেকে বিভিন্ন কারণে চাকুরীচ্যূত বা বরখাস্তকৃত সদস্যরা এ ধরনের ভুয়া পুলিশ পরিচয়দানকারী চক্রের সদস্য হয়।

তারা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীতে কাজ করার ফলে বিভিন্ন রকম আইন-কানুন ও কৌশল জানার কারণে খুব সহজেই মানুষকে বিশ্বাস স্থাপন করাতে সক্ষম হয়। তাদেরকে দেখে খুব সহজেই বোঝার সাধ্য নেই যে, তারা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য নয়।

তারা যেসব সরঞ্জামাদি ব্যবহার করে:
এই চক্রের সদস্যরা সাদা পোশাকে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয় দিয়ে বাসায় ঢোকে। তারা হ্যান্ডকাফ, খেলনা পিস্তল, খেলনা ওয়াকিটকি, দড়ি এবং ভুয়া  পরিচয়পত্র ব্যবহার করে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে এরা মাইক্রোবাস ব্যবহার করে। অনেক সময় এরা পুলিশের পোশাক, বাঁশি এবং ডিবি লেখা জ্যাকেটও ব্যবহার করে থাকে। তাদের আচার-আচরণ ও অন্যান্য বিষয়গুলো একটু ভালভাবে খেয়াল করলেই ওদের ভুয়া পরিচয় সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়।

অপারেশন কৌশল:
ভুয়া পুলিশ চক্রের সদস্যরা খেলনা, পিস্তল ও ওয়াকিটকি নিয়ে টার্গেটকৃত বাসায় যায় এবং ভয়ভীতি প্রদর্শন করে মামলা দেয়ার ভয় দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা আদায় করে। এরা বিশেষ করে ব্যাংক, বীমা ও বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানে আগে থেকেই ওঁৎ পেতে থাকে। কেউ টাকা তুললে বা জমা দিতে আসলে তার পিছু নেয়। পরে সুবিধামতো জায়গায় কৌশলে মাইক্রোবাসে তুলে খেলনা পিস্তল ঠেকিয়ে ও নানা ধরণের ভীতি প্রদর্শন করে সবকিছু হাতিয়ে নিয়ে নির্জন বা ফাঁকা জায়গায় ফেলে পালিয়ে যায়। আবার কখনও কখনও মুক্তিপণের মতো ঘটনা সাজিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়। মাঝে মধ্যে এরা ডাকাতিতেও সংশ্লিষ্ট হয়।

কীভাবে এদের চিনবেন:
একটু ভালমতো বুদ্ধি খাটিয়ে এই চক্রের সদস্যদের পর্যবেক্ষণ করলে সহজেই এদের পরিচয় সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়।

১। ব্যবহৃত ওয়াকিটকি চালু আছে কিনা লক্ষ্য করুন। ভুয়া পুলিশ সদস্যদের ওয়াকিটকি কখনও চালু থাকে না এবং কোন শব্দও পাওয়া যায় না। কারণ সেটি খেলনা ওয়াকিটকি।

২। সাদা পোশাকে পুলিশ কোন অভিযান পরিচালনা করলে অবশ্যই গায়ে জ্যাকেট পরিধান করে ও গলায় পরিচয়পত্র ঝুলানো থাকে। কিন্তু ভুয়া পুলিশ সদস্যরা অধিকাংশ সময় কোন ধরণের জ্যাকেট বা পরিচয়পত্র সাথে রাখে না।

৩। ভুয়া পুলিশ চক্র সবসময় খেলনা পিস্তল ব্যবহার করে, তারা কখনোই লং আর্মস: যেমন শর্টগান বা এসএমজি সাথে রাখেনা।

৪। গতিবিধি ও আচরণ পর্যবেক্ষণ করুন। ভুয়া পুলিশ সদস্যরা বাসায় ঢুকেই টাকা, অলঙ্কার ও মূল্যবান মালামাল নেয়ার জন্য ব্যস্ত হয়ে পড়ে। তাদের আচরণে উগ্রতা ও রুক্ষভাব পরিলক্ষিত হয়।

৫। এই চক্রের সদস্যদের পারস্পারিক কথোপকথন পর্যবেক্ষণ করার চেষ্টা করুন। এরা অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে এবং চোর ডাকাতের মতো আচরণ করতে থাকে।

ভুয়া পুলিশ দেখলে করণীয় :
আপনার নিজের নিরাপত্তা ও এসব প্রতারণাকারী চক্রের হাত থেকে রেহাই পেতে সবসময় নিজের বুদ্ধি-বিবেক ও পর্যবেক্ষণ ক্ষমতা প্রয়োগ করুন। এ ধরনের ঝামেলায় পড়লে বা মুখোমুখি হলে কৌশলে নিকটস্থ থানা বা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের অবহিত করুন। যদি শতভাগ নিশ্চিত হওয়া যায় যে এরা ভুয়া পুলিশ সদস্য এবং ব্যবহৃত অস্ত্রটিও খেলনা তাহলে সাথে সাথে সাহসিকতার সাথে তাদেরকে প্রতিহত করুন ও পুলিশকে খবর দিন এবং আপনার এলাকার সংশ্লিষ্ট বিট অফিসারকে অবহিত করুন।

লেখক:
সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার
ডিএমপি মিডিয়া এন্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগ
ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ।

সূত্র: ডিএমপি নিউজ

‘সম্মেলনে পাকিস্তানকে দাওয়াত করার প্রশ্নই ওঠে না’

‘সম্মেলনে পাকিস্তানকে দাওয়াত করার প্রশ্নই ওঠে না’

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: আওয়ামী লীগের আসন্ন ২০তম জাতীয় সম্মেলনে দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশকে আমন্ত্রণ জনানো হলেও পাকিস্তানকে আমন্ত্রণ জানানো হবে না। দলটির পক্ষ থেকে বলা হয়, যারা বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে, একাত্তরের ঘাতকদের পক্ষে সংসদে প্রকাশ্যে কথা বলে, সেই পাকিস্তানকে দাওয়াত করবেন না তারা।

বৃহস্পতিবার ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে অভ্যর্থনা উপকমিটির বৈঠক শেষে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এ কথা বলেন।

অক্টোবরের ২২ ও ২৩ তারিখ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগের ২০তম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘কয়েকটি পত্রিকায় নিউজ এসেছে, পাকিস্তান থেকে নাকি কয়েকজন আসছে। পাকিস্তানকে দাওয়াত করার প্রশ্নই ওঠে না। যারা বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে, একাত্তরের ঘাতকদের পক্ষে প্রকাশ্যে পার্লামেন্টে কথা বলে, সেই পাকিস্তানকে দাওয়াত করার প্রশ্নই ওঠে না। কেউ দাওয়াত করে নাই, করবেও না।’

জেনে নিন সূরার শুরুতে ‘বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম’ ব্যবহারের কারণ


কানাইঘাট নিউজি ডেস্ক: ‘বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম’ -এর অর্থ পরম করুণাময় অতিশয় দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি। সুরা তাওবা ব্যতীত পবিত্র কোরআনে অবতীর্ণ সকল সূরার শুরুতে ‘বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম’ রয়েছে। কিন্তু কেনো সুরার শুরুতে বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম অবতীর্ণ করা হয়েছে- এর কারণ সম্পর্কে হযরত ইমাম আবু হানীফা [রহ] এবং মদিনার অন্যান্য ফোকাহায়ে কেরাম বলেছেন, মূলত ‘বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম’ সূরায়ে ফাতিহা কিংবা অপর কোনো সূরার অংশ বিশেষ নয় বরং বরকত লাভের উদ্দেশ্যে অথবা দুটি সূরার মাঝে পার্থক্য নির্ণয়ের লক্ষ্যে প্রতিটি সূরা বিসমিল্লাহ দ্বারা শুরু করা হয়েছে। ‘বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম’-এর শানে নুজুল বা নাজিলের প্রেক্ষাপট সম্পর্কে হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস [রা] বলেছেন, রাসুল [সা] ‘বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম’ অবতীর্ণ হওয়া পর্যন্ত দুটি সূরার মাঝে পার্থক্য বিধান করতে পারতেন না তথা সূরার শুরু-শেষ বুঝতেন না। [মুসতারাকে হাকিম] এই রকম সংবাদ আরো পেতে হলে এই লেখার উপরে ক্লিক

৩৭তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা আজ

৩৭তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা আজ
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সরকারি চাকরিতে বিভিন্ন ক্যাডার ও নন-ক্যাডার পদে নিয়োগের জন্য ৩৭তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা শুক্রবার অনুষ্ঠিত হবে। ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, বরিশাল, রংপুর, সিলেট, খুলনায় মোট ১৯০টি কেন্দ্রে একযোগে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

পিএসসির এক বিজ্ঞপ্তিতে পরীক্ষার হলে মোবাইল ফোন, সব ধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইস, বই-পুস্তক, ক্যালকুলেটর এবং ব্যাগসহ প্রবেশে নিষেধ করা হয়েছে।

পরীক্ষার সময় হাতঘড়ি, পকেটঘড়ি, ইলেকট্রনিক ঘড়ি ব্যবহার নিষিদ্ধ, পরীক্ষার হলে প্রয়োজনীয় সংখ্যক দেয়াল ঘড়ি সরবরাহ করবে কমিশন।

উপরোক্ত ডিভাইস ও ঘড়ি পাওয়া গেলে তা বাজেয়াপ্তসহ পরীক্ষার বিধি ভঙ্গের কারণে সংশ্লিষ্ট প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিলসহ ভবিষ্যতে কমিশনের আওতায় সব নিয়োগ পরীক্ষায় অযোগ্য ঘোষণা করা হবে বলে জানায় পিএসসি।
পরীক্ষার আসন বিন্যাস পিএসসির ওয়েবসাইটে (www.bpsc.gov.bd) প্রকাশ করা হয়েছে।

ঢাকা, সেপ্টেম্বর ৩০(বিডিলাইভ২৪)// কে এইচ

আজ প্রধানমন্ত্রীকে বিমানবন্দর থেকে গণভবন পর্যন্ত অভ্যর্থনা

আজ প্রধানমন্ত্রীকে বিমানবন্দর থেকে গণভবন পর্যন্ত অভ্যর্থনা

সংবাদ সংস্থা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭১তম অধিবেশনে যোগদানের জন্য যুক্তরাষ্ট্র সফর শেষে দেশে ফিরে এলে তাকে ব্যাপক অভ্যর্থনা জানানোর প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

শেখ হাসিনা প্রায় ২ সপ্তাহব্যাপী যুক্তরাজ্য, কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্র সফর শেষে আজ শুক্রবার বিকেল ৫টা ২০মিনিটে দেশে ফিরে আসবেন।

তিনটি দেশে অবস্থানকালে নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭১তম অধিবেশনে ভাষণসহ প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন দেশের সরকার প্রধান, রাজনৈতিক, আন্তর্জাতিক সংগঠনের কর্মকর্তা ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানের নেতৃবৃন্দের সাথে পারস্পরিক ও দ্বিপাক্ষিক সাথে বৈঠক করেন।

তিনি দক্ষ রাষ্ট্র পরিচালনায় ও বহুমাত্রিক অবদান স্বরূপ জাতিসংঘ পদক ‘প্ল্যানেট ৫০-৫০ চ্যাম্পিয়ন’ ও ‘এজেন্ট অব চেঞ্জ অ্যাওয়ার্ডে’ ভূষিত হন। এই বিরল সম্মান লাভের জন্য তাকে অভ্যার্থনা জানানোর প্রস্তুতি নিয়েছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। স্মরণকালের বৃহৎ অভ্যর্থনা জানানোর লক্ষে বিমানবন্দর থেকে গণভবন পর্যন্ত রাস্তার দুই ধারে জনতার ঢল নামাতে চায় দলটির নীতিনির্ধারকরা।

এ জন্য গত ১০ দিন ধরে দলের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফসহ দলের সিনিয়র নেতারা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন ইউনিটের নেতাদের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক করছেন।

রাজধানী ছাড়াও ঢাকার পার্শ্ববর্তী জেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতা ও সংসদ সদস্যদের সঙ্গে আলাদা বৈঠক করা হয়েছে। বৈঠকে সর্বশক্তি দিয়ে এ অভ্যার্থনা অনুষ্ঠান সফল করার জন্য কেন্দ্র থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

যুক্তরাজ্য,যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা সফর শেষে আজ দেশে ফিরবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এদিন বিমানবন্দর থেকে গণভবন পর্যন্ত রাস্তার দুই পাশে লাখো জনতা সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানানোর কর্মসূচি গ্রহণ করেছে আওয়ামী লীগ।

প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানানোর জন্য আওয়ামী লীগ বিমান বন্দর থেকে গণভবন পর্যন্ত জাতীয় পতাকা, ফুল, ব্যানার, ফেস্টুনসহ সড়কের দু’পাশে অবস্থান নেয়ার জন্য জনগণের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে।

এদিকে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সফল করার জন্য আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসহযোগী সংগঠন ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছেন। ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর ও দক্ষিণের নেতাকর্মীরা।

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ জানিয়েছেন, মহানগর দক্ষিনের অন্তত অর্ধলক্ষাধিক নেতাকর্মীরা রাস্তায় দুই পাশে দাঁড়িয়ে শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা জানাবেন। এ জন্য প্রতিটি থানায় থানায় প্রস্তুতি সভা করা হয়েছে।

পৃথকভাবে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিক লীগ, মুক্তিযোদ্ধা লীগ, মহিলা লীগসহ দলের সব সহযোগী সংগঠনের সঙ্গে সভা করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। সভায় সকল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের পক্ষ থেকে ব্যাপক জমায়েতের মাধ্যমে অভ্যর্থনা সফল করার নির্দেশ দেন তিনি।

এছাড়াও আলাদাভাবে প্রস্তুতি সভা করেছে যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষক লীগ, যুব মহিলা লীগ, ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ।

আওয়ামী লীগের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, প্রধানমন্ত্রী এই বিরল সম্মানে ভূষিত হওয়ায় কৃতজ্ঞ বাঙালি জাতির পক্ষ থেকে আওয়ামী লীগসহ কেন্দ্রীয় ১৪ দল, সহযোগী, ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনসমূহ, বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন হযরত শাহজালাল (রা.) বিমান বন্দর থেকে খিলক্ষেত, কুড়িল ফ্লাইওভার, হোটেল রেডিসন, কাকলীর মোড়, বনানী, জাহাঙ্গীর গেইট, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, বিজয় স্মরণী, সামরিক জাদুঘর জাতীয় সংসদ ভবন মোড় ও গণভবন পর্যন্ত রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে তাকে অভ্যর্থনা জানাবে।

দলের সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম আওয়ামী লীগ, ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের প্রতিটি থানা, ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন, সহযোগী, ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনসমূহের নেতৃবৃন্দ ও সর্বস্তরের জনগণকে যথাসময়ে এই অভ্যর্থনা কর্মসূচিতে উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন।

এরশাদের সিলেট আগমনকে স্বাগত জানিয়ে নগরীতে প্রচার মিছিল


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদসহ দলের কেন্দ্রের শীর্ষ নেতাদের সিলেট আগমনকে স্বাগত জানিয়ে নগরীতে প্রচার মিছিল করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বিরোধীদলীয় হুইপ সিলেট-৫ (জকিগঞ্জ-কানাইঘাট) আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্ঠা সেলিম উদ্দিনের নেতৃত্বে নগরীর শিবগঞ্জ এলাকায় মিছিল করেন সংগঠনের শতাধিক নেতাকর্মী। মিছিলটি প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে পুনরায় শিবগঞ্জ-উপশহর পয়েন্টে এক পথসভায় মিলিত হন। পথসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে হুইপ সেলিম উদ্দিন এমপি বলেন, পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এমপি ও বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ এমপি’র আগমন ও সিলেট রেজিষ্ট্রারী মাঠে কর্মী সমাবেশকে সফল করতে তিনি সকল নেতাকর্মীকে আহŸান জানান। তিনি আরো জানান, পল্লীবন্ধু এরশাদ ও রওশন এরশাদ এর সিলেট সফর জাতীয় রাজনীতিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ সফর। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য আমাদেরকে এখন থেকে প্রস্তুতি নিয়ে আগামীতে জাতীয় পার্টিকে ক্ষমতায় নিয়ে যেতে হবে। সিলেট মহানগর জাতীয় যুব সংহতির সাধারন সম্পাদক মাহমুদুর রহমান মাহমুদের পরিচালনায় পথসভায় আরোও বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা জাতীয় পার্টির সাবেক সহ-সভাপতি মোহাম্মদ মজির উদ্দিন চাকলাদার, বাহার খন্দকার, যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক এম. ইকবাল হোসেন, জেলা জাতীয় যুব সংহতির সভাপতি আলতাফুর রহমান, সাধারন সম্পাদক মরতুজা আহমদ চৌধুরী, অর্থ সম্পাদক আনিসুজ্জামান পাবলু, জেলা মহিলা পার্টির সভনেত্রী নাহিদা আক্তার, জেলা জাপার আইন বিষয়ক উপদেষ্ঠা এ্যাড. আব্দুর রহিম, জেলা ছাত্র সমাজের সাবেক সভাপতি বেলাল উদ্দিন, নুরুজ্জামান আকন্দ, মান্না আহমদ, কানাইঘাট উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারন সম্পাদক বাবুল আহমদ, জেলা সেচ্ছাসেবক পার্টির সহ-সভাপতি কিউ.এম. ফররুখ আহমদ ফারুক, বিয়ানীবাজার উপজেলা জাপার সাধারন সম্পাদক হাজী সফর উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল ইসলাম লুকু, জকিগঞ্জ উপজেলা জাপা নেতা নোমান উদ্দিন চৌধুরী, ওয়াহিদুর রহমান হালন, আব্দুল মতিন, যুব সংহতি নেতা তাজুল ইসলাম, হাছানুল আলম হাছনু, শাহ আলম, কানাইঘাট উপজেলা জাপা নেতা নাজিম উদ্দিন, কামরুজ্জামান কাজল, কানাইঘাট উপজেলা যুব সংহতির সভাপতি শামীম উদ্দিন, বিয়ানীবাজার উপজেলা যুব সংহতির সভাপতি মুহবুর রহমান খান মুকিত, গোলাপগঞ্জ উপজেলা যুব সংহতির সভাপতিশাহান উদ্দিন নাজু, জকিগঞ্জ উপজেলা ছাত্র সমাজের সভাপতি সালমান আহমদ, সাধারন সম্পাদক এম. রুহুল আমিন, কানাইঘাট উপজেলাজাতীয় ছাত্র সমাজের সভাপতি আজাদুর রহমান আজাদ, বিয়ানীবাাজার উপজেলা ছাত্র সমাজের সভাপতি শফিউর রহমান প্রমুখ।

আ.লীগে যোগ দিলেন ১৪ সাংবাদিক

Kanaighat News on Thursday, September 29, 2016 | 11:54 PM


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগে যোগ দিলেন ঝিনাইদহের ১৪জন সাংবাদিক। এদের মধ্যে রয়েছেন জেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক সমকাল পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি মাহমুদ হাসান টিপু। বৃহস্পতিবার বিকালে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই এমপি, ঝিনাইদহ পৌরসভার মেয়র ও সাধারণ সম্পাদক সাইদুল করিম মিন্টুর হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে আনুষ্ঠনিকভাবে তারা আওয়ামী লীগে যোগদান করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘প্লানেট ৫০-৫০ চ্যাম্পিয়ন’ ও ‘এজেন্ট অব চেঞ্জ’ অ্যাওয়ার্ড এবং প্রধানমন্ত্রী পুত্র তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় ‘আইসিটি ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যাওয়ার্ড' পাওয়ায় শহরের পায়রা চত্বরে জেলা আওয়ামী লীগ আলোচনা সভার আয়োজন করে। আলোচনা সভার মঞ্চে এই যোগদান অনুষ্ঠিত হয়। আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়া সাংবাদিকরা হলেন- কাজী আলী আহম্মেদ লিকু, জাফর আহমেদ রাজু, শাহীন আক্তার পলাশ, মিরাজ জামান রাজ, ওয়ালিউল্লাহ ওলী, জাহিদুর রহমান তারেক, আব্দুল জব্বার, উৎপল কুমার, এস. এম, আবিদ হাসান, নাসির মল্লিক, সাহেদ সুলতান সেতু ও আব্দুল হাকিম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের একাধিকবার নির্বাচিত সভাপতি হাবিবুর রহমান হবুসহ বিভিন্ন পেশার শতাধিক মানুষ আওয়ামী লীগে যোগদান করেন। ---ঢাকাটাইমস

কানাইঘাট সাতবাঁক ইউ'পি ভিক্ষুক মুক্ত ঘোষনা


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সিলেট জেলার কানাইঘাট উপজেলার ৪ নং সাতবাঁক ইউনিয়নকে ভিক্ষুক মুক্ত ঘোষনা করা হয়েছে। এ লক্ষ্য এক সভা আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ইউনিয়ন কমপ্লেক্স হল রুমে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সিলেট জেলা আওয়ামীলীগের উপ প্রচার প্রকাশনা সম্পাদক মস্তাক আহমদ পলাশের সভাপতিত্বে ও উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আবুল হারিছ এর পরিচালনায় অনুষ্টিত সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তারেক মোহাম্মদ জাকারিয়া। উপস্থিত ছিলেন সাতবাঁক ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মখদ্দুছ আলী,সাবেক ইউপি সদস্য মঈন উদ্দিন,যুব লীগ নেতা এনামুল হক,মৌওলানা জামিল আহমদ,ইউপি সদস্য আব্দুন নুর,শাব্বির আহমদ,মামুন আহমদ প্রমুখ।।

কানাইঘাটে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা | গ্রেফতার ৩


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাটে নিখোঁজের তিন দিন পর এক শিশুর লাশ উদ্ধার করেছে কানাইঘাট থানা পুলিশ। শিশুটির নাম সুলতানা বেগম (১০)। সে উপজেলার লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউপির এরালীগুল গ্রামের মৃত তেরা মিয়ার কন্যা এবং ছোটফৌদ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রী। এব্যাপারে পুলিশ ও ভিকটিমের স্বজনদের কাছ থেকে জানা যায়, গত সোমবার সকালে সুলতানা বেগম (১০) প্রতিদিনের ন্যায় এরালীগুল জামে মসজিদ মক্তবে নামায ও কুরআন শিখতে যায়। সকাল ৯টার দিকে মক্তব ছুটি হলে সুলতানা বেগম তার সহপাঠি ফারহানা বেগম (১২) সাথে বাড়ীর উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিয়ে ইমাম উদ্দিনের বাড়ীর উত্তর পার্শ্বের আসামাত্র বড়খেওড় গ্রামের আবুল আহমদ, হোসেন আহমদ ও নারাইনপুর গ্রামের মস্তাক আহমদ সুলতানা বেগমকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। লোকমুখে এ ঘটনার খবর পেয়ে ভিকটিমের ভাই একলিম উদ্দিন তার বোন সুলতানাকে উদ্ধার করতে ইমাম উদ্দিনের বাড়ীতে গেলে তারা জানায়, তার বোন সুলতানা বেগম সহপাঠি ফারজানার সাথে অন্য বাড়ীতে বেড়াতে গেছে। ফিরে এলেই বাড়ীতে পৌঁছিয়ে দিবে। কিন্তু সারাদিন অপেক্ষার পরও সুলতানা ফিরে না আসায় ভিকটিমের স্বজনরা গ্রামের লোকজনকে নিয়ে ইমাম উদ্দিনের বাড়ীতে সুলতানার সন্ধানে গেলে বাড়ীর লোকজন নানা রকম টাল বাহানা করতে থাকে। পরবর্তীতে স্থানীয় ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মজির উদ্দিনকে সাথে নিয়ে বুধবার তাদের বাড়ীতে গেলে দেখা যায় বাড়ীর সব দরজা জানালা তালাবদ্ধ রয়েছে এবং বাড়ীতে কোন লোকজন নেই। এ বিষয়টি কানাইঘাট থানা পুলিশকে অবহিত করলে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কানাইঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ হুমায়ুন কবিরের নেতৃত্বে বৃহস্পতিবার বিকাল ৪টায় একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ইমাম উদ্দিনের টিলা বাড়ীর পাশ্ববর্তী অপর একটি টিলার উপর থেকে সুলতানা বেগমের মাটি চাপা দেওয়া লাশ উদ্ধার করে এবং ঘটনার সাথে জড়িত এরালীগুল গ্রামের আবুল আহমদ (২৫), রাসেল (২৫) ও ছাদেক হোসেন (২৬) কে গ্রেফতার করে। এ ব্যাপারে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির কানাইঘাট নিউজকে জানান, গ্রেফতারকৃতরা ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে যে, তারা তিন জন ও তাদের অপর এক সহযোগী পালাক্রমে ধর্ষণ শেষে সুলতানা বেগমকে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যার পর টিলার পাশে লাশ মাটিচাপা দিয়ে রাখে। নির্মম এই ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছিল।

কানাইঘাট উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সভা অনুষ্ঠিত


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট উপজেলার ক্রীড়া সংস্থার উদ্যোগে বৃহস্পতিবার কানাইঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলার ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি তারেক মোহাম্মদ জাকারিয়া'র সভাপতিত্বে এবং উপজেলা উপজেলার ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ,জেলা আওয়ামীলীগের উপ-প্রচার প্রকাশনা সম্পাদক ও সাতবাঁক ইউপির চেয়ারম্যান মস্তাক আহমদ পলাশ এর পরিচালনায় এক সভা অনুষ্টিত হয়। সভায় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ক্রীড়া সংস্হার উপদেষ্টা কানাইঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশিক উদ্দিন চৌঃ,কানাইঘাট থানা'র অফিসার ইনচার্জ হুমায়ুন কবির,বানীগ্রাম ইউ'পি চেয়ারম্যান মাসুদ আহমদ, ৩নং দিঘীরপার ইউপি চেয়ারম্যান আলী হোসেন কাজল,২নং লক্ষীপ্রসাদ ইউ'পি চেয়ারম্যান জেমস ফারগুশন নানকা,৫নং বড় চতুল ইউ'পি চেয়ারম্যান আবুল হোসেন চতুলী,সিলেট জেলা যুবলীগের অন্যতম সদস্য আব্দুল হেকিম শামীম, যুবলীগ নেতা এনামুল হক,ছাত্র নেতা নাজমুল ইসলাম প্রমুখ।

কানাইঘাটে ২ সন্তানের জননীর আত্মহত্যা


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাটে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে দুই সন্তানের জননীর আত্মহত্যার খবর পাওয়া গেছে। পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছে। জানা যায়- কানাইঘাট সদর ইউপির গোসাইনপুর গ্রামের মৃত আব্দুস সালাম মাস্টারের পুত্র শহিদ আহমদ তার স্ত্রী সিরিয়া বেগম ও দুই সন্তানকে নিয়ে বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) রাতের খাওয়া শেষে শুয়ে পড়েন। রাত ২টায় ঘুম থেকে উঠে স্বামী শহিদ আহমদ স্ত্রীকে বিছানায় না-দেখে ডাকাডাকি করে কোন সাড়াশব্দ না-পেয়ে স্ত্রী পার্শ্ববর্তী অন্য একটি কক্ষে শুয়ে আছে মনে করে তিনি আবার ঘুমিয়ে পড়েন। বৃহস্পতিবার সকাল ৭টার দিকে শহিদ আহমদ ও বাড়ির লোকজন সিরিয়া বেগমকে ডাকাডাকি করে কোন সাড়া শব্দ না-পেয়ে কানাইঘাট থানা পুলিশকে খবর দেন। পুলিশ সকাল ১১টায় ঘটনাস্থলে গিয়ে দরজা ভেঙ্গে ঘরের তীরের সাথে সিরিয়া বেগমের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পান। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এদিকে, সিরিয়া বেগমের মা হাফিজা বেগমের অভিযোগ স্বামী শহিদ আহমদ সিরিয়া বেগমকে নির্যাতন করে হত্যা করে লাশ তীরের সাথে ওড়না দিয়ে পেঁচিয়ে ঝুলিয়ে রাখে। অপরদিকে, সিরিয়া বেগমের স্বামীর বাড়ির লোকজন জানিয়েছেন- সে মানসিক রোগে ভুগছিলেন। মানসিক রোগের কারণে সিরিয়া বেগম বেশির ভাগ সময় বাবার বাড়ি থাকত। স্বামীর অগোচরে পাশের রুমে গিয়ে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে সে আত্মহত্যা করেছে। লাশ উদ্ধারকারী থানার এসআই রবিউল ইসলাম জানিয়েছেন- এ ব্যাপারে থানায় অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে। ময়না-তদন্তের রিপোর্টের পর সিরিয়া বেগমের মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

প্রতি উপজেলায় ১টি করে মডেল মসজিদ কমপ্লেক্স নির্মাণ: ধর্মমন্ত্রী

Kanaighat News on Wednesday, September 28, 2016 | 11:04 PM


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান বলেছেন, ‘সরকার প্রতি জেলা ও উপজেলায় ১টি করে মডেল মসজিদ কমপ্লেক্স নির্মাণের জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।’ তিনি বুধবার জাতীয় সংসদে সরকারি দলের সদস্য মো. আনোয়ারুল আজীমের (আনার) এক প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন। এ সময় মন্ত্রী বলেন, ‘পরিকল্পনা অনুযায়ী ইতোমধ্যে মডেল মসজিদের ২টি স্থাপত্য নকশা প্রণয়ন করে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে।’ সৌদি সরকার এ প্রকল্পে অর্থায়নের প্রতিশ্রুতি প্রদান করেছে বলে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘প্রকল্পের পিডিপিপি তৈরি করে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের মাধ্যমে সৌদি সরকারের কাছে পাঠানো হয়েছে। অর্থায়নের নিশ্চয়তা এবং নকশা চূড়ান্ত হলে প্রকল্পটির অনুমোদন গ্রহণপূর্বক বাস্তবায়ন কাজ শুরু হবে।’ -বাসস।

গোয়াইনঘাটকে বাল্যবিয়ে মুক্ত ঘোষণা


গোয়াইনঘাট প্রতিনিধি:: সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার জামাল উদ্দিন আহমদ বলেছেন, যে কোন মূল্যে সিলেট বিভাগকে বাল্যবিবাহ মুক্ত করা হবে। বাল্য বিবাহর আয়োজক ও সহযোগিতাকারীদের জন্য রয়েছে কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা। বাল্য বিবাহের অভিশাপ থেকে সমাজ ও দেশকে মুক্ত করতে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশিত কার্যক্রম সর্বাত্মক গুরুত্ব দিয়ে বাস্তবায়ন করতে হবে। তিনি বুধবার সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত গোয়াইনঘাট উপজেলাকে বাল্য বিবাহমুক্ত ঘোষণা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথাগুলো বলেন। গোয়াইনঘাটের যুব উন্নয়ন র্কর্মকর্তা আজহারুল কবিরের সঞ্চালনায় ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সালাহউদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন সিলেটের জেলা প্রশাসক মোঃ জয়নাল আবেদিন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল হাকিম চৌধুরী। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামি লীগের সভাপতি মোঃ ইব্রাহিম, গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদের ভাইসচেয়ারম্যান শাহ-আলম স্বপন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আফিয়া বেগম,সহাকরী কমিশনার (ভুমি) আশ্ররাফ আহমদ রাসেল। গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও আলীরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া হেলাল,গোয়াইনঘাট প্রেসক্লাব সভাপতি এম এ মতিন,সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মাষ্টার জামাল উদ্দিন,পূর্ব জাফলং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়াম্যান লূৎফুর রহমান লেবু,নন্দিরগাওঁ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ কামরুল হাসান আমিরুল,ডৌবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়াম্যান আরিফ ইকবাল নেহাল,ফতেহপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান চৌধুরী,তোয়াকুল ইউপি চেয়ারম্যান খালেদ আহমদ,রুস্তমপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ শাহাব উদ্দিন শিহাব,লেংগুড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মাহবুব আহমদ,গোয়াইনঘাট থানার সেকেন্ড অফিসার ময়নুল ইসলাম,উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মোঃ আব্দুল হক,প্রাথমিক শিক্ষক প্রতিনিধি আহমদ আলী,মাধ্যমিক শিক্ষক প্রতিনিধি ফরিদ আহমদ শামীম,নিকাহ রেজিষ্টার্ড প্রতিনিধি আমিরুল হক, ইমাম প্রতিনিধি কারী ফয়সল আহমদ প্রমুখ।

প্রথম বলে উইকেট নিয়ে রেকর্ডের পাতায় মোসাদ্দেক!

প্রথম বলে উইকেট নিয়ে রেকর্ডের পাতায় মোসাদ্দেক!

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ওয়ানডে ক্যারিয়ারের প্রথম ম্যাচ খেলছেন আফগানিস্তানের বিপক্ষে। সেখানে ব্যাট হাতে আগে টাইগারদের ত্রাণকর্তা ছিলেন এই তরুণ। এরপর বল হাতে পেয়ে ক্যারিয়ারের প্রথম বলেই শিকার করেছেন উইকেট। ঢুকে পড়েছেন ইতিহাস ও রেকর্ডের পাতায়।

প্রথম বাংলাদেশি বোলার হিসেবে ওয়ানডে ক্রিকেটে ক্যারিয়ারের প্রথম বলেই উইকেট শিকারের কীর্তি মোসাদ্দেকের। ক্রিকেট যতদিন খেলা হবে ততদিন তার কাছ থেকে বাংলাদেশের কোনো বোলার এই রেকর্ড কেড়ে নিতে পারবেন না! টেস্ট ও টি-টোয়েন্টিতেও এর রেকর্ড নেই বাংলাদেশের কারো। ওয়ানডেতে ১৯৭২ সাল থেকে এমন ঘটনা এর আগে ২৩ বার ঘটেছে। ২৪তম বোলার মোসাদ্দেক। ১৯৭২ সালে প্রথম বোলার হিসেবে এই ঘটনা ঘটিয়েছিলেন ইংল্যান্ডের পেসার জেফ আর্নল্ড।

লড়ছে টাইগাররা। মাশরাফি ও সাকিব আল হাসান ওপেন করেন বোলিং। সাকিব চতুর্থ ওভারে ২ উইকেট নেন। কিন্তু তারপর আর উইকেট পড়ছিল না। ঘরোয়া ক্রিকেটে এখন প্রায়ই বল করেন মোসাদ্দেক। তার ওপরই জুয়া খেলেছেন মাশরাফি। মোসাদ্দেক ওয়ানডেতে তার প্রথম বলেই হাশমতউল্লা শাহিদিকে (১৪) এলবিডাব্লিউর ফাঁদে ফেলে ব্রেক থ্রু এনে দেন। ৫৯ রানে ততৃীয় উইকেট হারায় প্রতপিক্ষ। ওভারটিতে ২ রান দেন। মোসাদ্দেকের জন্য এই ম্যাচ নানা কারণে স্মরণীয় হয়ে থাকল। তার সৌজন্যে ওয়ানডের রেকর্ডের আরেকটি পাতায়ও নাম উঠল বাংলাদেশের।

পূজা মন্ডপে ব্যাগ নিয়ে প্রবেশ নিষেধ: ডিএমপি কমিশনার

পূজা মন্ডপে ব্যাগ নিয়ে প্রবেশ নিষেধ: ডিএমপি কমিশনার

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: দুর্গাপূজায় পূজা মন্ডপে ব্যাগ নিয়ে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা ছাড়াও সকল ধরণের পটকা ও আতশবাজি না ফোটানোর নির্দেশ দিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া। বুধবার ডিএমপি সদর দপ্তরের শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে আইন শৃঙ্খলা সংক্রান্ত সভায় তিনি পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের এসব কথা বলেন।

সভায় ডিএমপি কমিশনার বলেন, রাজধানীর ২২৯ টি পূজামন্ডপের প্রত্যেকটিতে আইন শৃংঙ্খলা কমিটি গঠন করতে হবে এবং কমিটিতে লোকাল ওয়ার্ড কমিশনার ও গণ্যমান্য লোকদের রাখতে হবে। প্রত্যেক পূজামন্ডপ এবং এর আশপাশ এলাকায় পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা রাখতে হবে, সিসিটিভি’র আওতায় আনতে হবে এবং পূজামন্ডপে কোনো ব্যাগ নিয়ে প্রবেশ করা যাবে না।

তিনি আরো বলেন, ২২৯টি পূজা মন্ডপের জন্য নির্ধারিত বির্সজন পয়েন্টে, বির্সজন পয়েন্টে যাবার রাস্তায়, প্রত্যেক পূজামন্ডপ এবং এর আশপাশ এলাকায় পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা রাখতে হবে, নিজ নিজ পূজামন্ডপে স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ করতে হবে এবং প্রত্যেক মন্ডপে প্রবেশ ও বাহিরের জন্য আলাদা আলাদা পথ তৈরি করে প্রবেশ পথে আর্চওয়ে, হ্যান্ডমেটাল ডিটেক্টর দিয়ে কর্তব্যরত পুলিশ চেকিং করবে। প্রয়োজনে দেহ তল্লাশি করবে।

সভায় উপস্থিত ফায়ার সার্ভিস ও নৌ পুলিশের প্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, আপনারা নির্ধারিত বিসর্জন পয়েন্টের লোকাল পুলিশের সাথে সমন্বয় করে কাজ করবেন যাতে করে কোনো প্রকার দুর্ঘটনা না ঘটে।

এবার শিয়া মুসলিমদের তাজিয়া মিছিল ও শারদীয় দুর্গাপূজা যুগপৎভাবে হওয়ার কারণে বিশেষ গুরুত্বারোপ করে তাজিয়া মিছিলের জন্য নির্ধারিত রাস্তা এবং দুর্গাপূজা বির্সজনের জন্য নির্ধারিত রাস্তার জন্য সুপরিকল্পিতভাবে ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা সাজানোর জন্য উপস্থিত যুগ্ম কমিশনার (ট্রাফিক) ও সহ যুগ্ম কমিশনারকে (অপারেশন) বিশেষ নির্দেশ দেন পুলিশের এই কর্মকর্তা।

সভায় মহানগর শারদীয় দুর্গাপূজা উদযাপন কমিটি ও জাতীয় শারদীয় দুর্গাপূজা উদযাপন কমিটির প্রতিনিধিসহ পুলিশের অন্যান্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। 
--- বিডিলাইভ

কানাইঘাট উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সভা আগামীকাল


নিজস্ব প্রতিবেদক:কানাইঘাট উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার এক জরুরী সভা অাগামীকাল ১ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার দুপুর ১ টায় উপজেলা র্নিবাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে নির্বাহী কর্মকর্তা তারেক মোহাম্মদ জাকারিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্টিত হবে। উক্ত সভায় ক্রীড়া সংস্থার সকল নেতৃবৃন্দসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে উপস্থিত থাকার জন্য আহবান জানিয়েছেন কানাইঘাট উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক, জেলা আওয়ামীলীগের উপ-প্রচার প্রকাশনা সম্পাদক ও সাতবাঁক ইউপির চেয়ারম্যান মস্তাক আহমদ পলাশ।

যুক্তরাষ্ট্রের পরমাণু অস্ত্রের অজানা ৭ তথ্য

যুক্তরাষ্ট্রের পরমাণু অস্ত্রের অজানা ৭ তথ্য

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের কাছে এখনো যে পরিমাণ পারমাণবিক অস্ত্র আছে তা দিয়ে পৃথিবী ধ্বংস করে দেওয়া সম্ভব। চলুন জানা যাক আরো কিছু তথ্য-

প্রেসিডেন্টের হাতে ক্ষমতা: যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট চাইলে যেকোনো সময় কারো কোনো ধরনের অনুমতি ছাড়াই পরমাণু বোমা হামলা চালাতে পারেন।

২য় সর্বোচ্চ: ১৯৭০-এর পর পারমাণবিক অস্ত্র কার্যক্রম বন্ধ করার চুক্তি হলেও এখনো আমেরিকাতে যে অস্ত্রের মজুদ আছে তা পৃথিবীর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। প্রথম অবস্থানে আছে রাশিয়া। তাদের আছে ৮৫০০ পারমাণবিক অস্ত্র। যুক্তরাষ্ট্রের ৭৭০০।

অস্ত্রের প্রকারভেদ: যুক্তরাষ্ট্রের পারমাণবিক অস্ত্রে আছে নানান প্রকারভেদ। ভূমি থেকে ছোড়া যাবে এমন ক্ষেপণাস্ত্র  থেকে শুরু করে সাবমেরিনে ব্যবহারযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র পর্যন্ত আছে। এই নিউক্লিয়ার মিসাইলগুলো যে কোনো লক্ষ্যকে মুহূর্তে ধ্বংস করে দিতে পারে। এর মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ বিবেচনা করা হয় সাবমেরিন ক্ষেপণাস্ত্রকে।

প্রতিরক্ষা বাজেটের অংশ নয়: পারমাণবিক অস্ত্রের মজার বিষয় হলো- এটি যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাজেটের অংশ নয়। এটি জ্বালানি ও শক্তি বিভাগের অংশ (ডিওই)।

রক্ষণাবেক্ষণ বেসরকারি: যুক্তরাষ্ট্রের পারমাণবিক অস্ত্রাগারগুলোর রক্ষণাবেক্ষণ বেসরকারিভাবে করে থাকে দেশটির সরকার। ধারণা করা হচ্ছে, আগামী ৩০ বছরে এই রক্ষণাবেক্ষণ কাজে খরচ হবে কমপক্ষে ১ ট্রিলিয়ন ডলার।

অনেক অস্ত্র দেশের বাইরে: যুক্তরাষ্ট্রের অনেক পারমাণবিক অস্ত্র রাখা আছে দেশের বাইরে। তবে সবই বন্ধুপ্রতীম রাষ্ট্র। এর মধ্যে তুরস্কও আছে। আবার ন্যাটোভুক্ত জার্মানি, বেলজিয়াম, নেদারল্যান্ড ও ইতালিতেও আছে।

হারিয়ে গেছে বেশক’টি: রাশিয়ার সঙ্গে স্নায়ুযুদ্ধের সময় বেশক’টি পরমাণু বোমা ও সেগুলোর উপকরণ হারিয়ে ফেলেছে যুক্তরাষ্ট্র। কারো মতে সংখ্যাটা ৭ বা ৮।

ঢাবি'র ভর্তি পরীক্ষা: মেধাতালিকায় স্থান পেয়েছে কানাইঘাটের তিন মাদ্রাসা ছাত্র


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কলা অনুষদের অধীনে ২০১৬-১৭ সেশনের মানবিক শাখা ‘খ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে সোমবার। ভর্তি পরীক্ষায় প্রতিবছরের ন্যায় এবারও কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখেছে সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান গাছবাড়ী জামিউল উলূম কামিল মাদ্রাসা। এ প্রতিষ্ঠান থেকে এবারের ঢাবি ভর্তি পরীক্ষায় মেধা তালিকায় স্থান করে নিয়েছেন ২০১৬ সেশনে আলিম পরীক্ষায় উত্তীর্ণ তিন শিক্ষার্থী। ২০০ নাম্বারের মধ্যে ১৫০.২০ পেয়ে মেধা তালিকায় ৪৬২তম স্থানে উত্তীর্ণ হয়েছেন কানাইঘাট উপজেলার তিনসতি গ্রামের মস্তাক আহমদের ছেলে নোমান উদ্দিন, ১৩২.৯০ নাম্বার পেয়ে মেধা তালিকায় ২২৪৫তম স্থানে উত্তীর্ণ হয়েছেন একই উপজেলার নারাইনপুর গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে মাহবুবুর রাহমান এবং ১৪৬ নাম্বার পেয়ে মেধা তালিকায় ৭৫৬তম স্থানে উত্তীর্ণ হয়েছেন জকিগঞ্জ উপজেলার লোকমান উদ্দিনের ছেলে মোহাম্মদ।

সাদা বাঘের ভাষা বিভ্রাট


কাওসার শাকিল: চেন্নাইয়ের এক চিড়িয়াখানা থেকে সাদা বাঘটাকে আনা হয়েছিল উদয়পুর। কিন্তু আনার পর দেখা দিল মহাবিপদ। রামা নামের সেই সাদা বাঘ তার কেয়ার টেকারের কোন কথা শোনে না। বাঘ খায় না, নড়াচড়া করতে চায় না। মানে কোন সাড়া নেই। সমস্যা কি? খোঁজ করতে গিয়ে জানা গেল সাদা বাঘের আগের ট্রেইনার ছিল চেন্নাইয়ের স্থানীয়। তিনি তামিলে কথা বলতেন। এখনকার যে কেয়ারটেকার তিনি কথা বলেন মেওয়াড়িতে। এখন মুশকিল হল রামাতো সেই ভাষা বোঝে না। সে বোঝে খালি তামিল। সে সাড়াও দেয় না। ভিন্ন ভাষার মানুষে মানুষে যোগাযোগে সমস্যা হয় এতো নতুন কিছু না। তাই বলে বাঘ নিয়েও সেই একইরকম সমস্যা যে হতে পারে সেটা কারো মাথাতেই আসেনি। বিষয়টা এখন এমন দাঁড়িয়েছে, হয় রামাকে শিখতে হবে মেওয়াড়ি, নয়তো তার নতুন কেয়ারটেকারকে বলতে হবে তামিল। এক এক্সচেঞ্জ প্রোগ্রামের আওতায় আরিগনা আন্না জুওলজিকাল পার্ক থেকে পাঁচ বছর বয়সী রামা আর তার দুই নেকড়ে বন্ধুকে আনা হয়েছে সাজ্জাননাগার বায়োলজিকাল পার্কে। উদ্দেশ্য সাদা বাঘ দেখিয়ে আরো দর্শানার্থীকে আকৃষ্ট করা। কিন্তু সে আসার গুড়েবালি। বরং এখন বাঘ বাচানোই দায় হয়ে দাড়িয়েছে। শেষ পর্যন্ত চেন্নাই থেকে রামার আগের কেয়ারটেকারকেই ধরে বেঁধে নিয়ে এসেছে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। ঠেকার কাজটুকু আপাতত তাকে দিয়েই চালাতে চাইছেন তারা। তবে শুধু দর্শক বাড়ানোই তাদের প্রধান উদ্দেশ্য নয়। এর পেছনে রয়েছে আরো বড় দুরভিসন্ধী। দামিনী নামে একটি নি:সঙ্গ সাদা বাঘিনী আগে থেকেই এ চিড়িয়াখানায় রয়েছে। চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ চাইছে রামাকে দামিনীর সাথে বিয়ে দিয়ে জামাই করে রাখতে। তাতে বছর খানেকের মধ্যেই ঘর আলো করে আসবে নতুন নতুন মুখ। সাদা বাঘের মতন দুর্লভ প্রজাতীর বংশবিস্তারে যাতে কোন ব্যাঘাত না ঘটে সেজন্য দরকার হলে বাঘকেও মেওয়াড়ি ভাষা শেখাতে বদ্ধপরিকর সাজ্জাননাগারের লোকজন। ঢাকাটাইমস/

প্রকৃত মুসলমানের পরিচয়


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: মুসলমান কাকে বলে? ইসলামে পূর্ণতা আসে কীভাবে? যারা কোরান, হাদিস, আল্লাহ, রাসুল, সাহাবা, তাবেয়ীন, উলামায়ে মুজতাহিদিন এদের অনুসরণ করেন তারাই মুসলমান। মনে রাখতে হবে শুধু নামে মুসলমান হয় না। শুধু ইসলামি পোশাক পরলেই মুসলমান হওয়া যায় না। আল্লাহ মুসলমানদের উদ্দেশ করে বলেছেন, তোমরা যারা আমার ওপর ইমান এনেছ তারা ইসলামে পরিপূর্ণভাবে প্রবেশ কর। এক পা ইসলামে আরেক পা অন্য কোথাও এটার নাম প্রবেশ করা নয়। দু’পা যখন মানুষ একটি ঘরের ভেতরে রাখে তখন পরিপূর্ণভাবে সে প্রবেশ করে। আল্লাহ তায়ালা মুমিন বান্দাদের বলছেন, তোমরা পরিপূর্ণভাবে ইসলামে প্রবেশ কর। পুরোপুরি ইসলামে দাখিল করা মানে হলো, যে জিনিসটা ইসলামে হালাল, তা হালাল হিসেবে মেনে নিতে হবে। যে জিনিসটা হারাম তা হারাম হিসেবে মেনে নিতে হবে। আমাদের প্রত্যেকের যে দায়-দায়িত্ব আছে তা যথাযথভাবে পালন করতে হবে। কিছু করলাম, কিছু বাদ দিলাম; মনে চাইলে করলাম, মনে না চাইলে বাদ দিয়ে দিলাম এর নাম ইসলাম নয়। ইসলাম হলো একটি পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্থা। পালন করলে তা পুরোটাই করতে হবে, বাদ দিলে পুরোটাই দিতে হবে। এখানে ছাড়াছাড়ির কোনো সুযোগ নেই। কারণ রুহের জগতে প্রত্যেকেই আল্লাহর কাছে ওয়াদা করে এসেছি। সেদিন আল্লাহ আমাদের উদ্দেশে জিজ্ঞেস করেছিলেন, আমি কি তোমাদের রব নই, আমরা বলেছিলাম হ্যাঁ তুমি আমাদের রব। যারা এই ডাকে সাড়া দিয়েছিলেন তারাই তো মুসলমান। সেদিন যেহেতু আল্লাহর অঙ্গীকারে আবদ্ধ হয়ে গেছি সুতরাং আজ আর বের হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। পূর্ণাঙ্গ মুসলমান মানেই হলো নিজের কোনো ইচ্ছা থাকবে না, সব ইচ্ছা আবর্তিত হবে আল্লাহর নির্দেশের সঙ্গে। মৃত ব্যক্তি গোসলদাতাদের হাতে যেমন অসহায়, তার যেমন করার কিছুই থাকে না, তেমনি আমরা সবাই দীন ও শরিয়তের ক্ষেত্রে এমন। এখানে আমাদের কোনো যুক্তি-তর্ক ও মনোবাসনা চলবে না, এখানে প্রভুর নির্দেশনাই একমাত্র অবলম্বন করতে হবে। যারা নিজেকে পুরোপুরি আল্লাহর কাছে আত্মনিবেদন করতে পারবে তারাই প্রকৃত মুসলমান; তাদের জন্যই উভয় জাহানে রয়েছে সুসংবাদ। ইসলামের বিধি বিধান অমান্য করা যাবে না কোনোভাবেই।

টেসলাকে টেক্কা দেবে আউডি

টেসলাকে টেক্কা দেবে আউডি
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: টেসলা মডেল এক্স এসইউভি-এর গাড়ির ব্যাটারি একবার চার্জ দিয়েই সব চাকা ব্যবহার করে গাড়িটি ২৮৯ মাইল ভ্রমণ করতে পারে। আউডি ইতোমধ্যে জানিয়ে দিয়েছে তারা এই সীমাকেও অতিক্রম করে ফেলবে।

আউডি'র সম্ভাব্য উৎপাদন সংস্করণটিতে কুইক চার্জিং ক্ষমতা থাকবে, কিন্তু এটি বলা কঠিন যে কত জলদি কুইক চার্জিং ফিচারটি কাজ করবে। যদিও বিজনেস ইনসাইডার-এর প্রতিবেদনে আশা করা হয়েছে, ই-ট্রন-কোয়াট্রো ধারণায় দেখানো সময়ের আশপাশেই থাকবে উৎপাদিত সংস্করণে কুইক চার্জিংয়ের সময়।

এই গাড়ির ধারণাটিতে আছে কম্বাইন্ড চার্জিং সিস্টেম (সিসিএস)। যার অর্থ হল এটি ডিসি এবং এসি দুটি ইলেকট্রিক্যাল কারেন্ট-এর মাধ্যমে চার্জ উৎপাদন করতে পারে। ডিসি'র মাধ্যমে এই গাড়িটি ৫০ মিনিটে ১৫০ কিলোওয়াট চার্জ গ্রহণ করতে পারে, যা এই গাড়িটির জন্য ফুল চার্জ হিসেবে ধরা হয়।

২০১৮ সাল থেকে এই গাড়ির উৎপাদন শুরু করবে আউডি। এ গাড়িতে থাকবে তিনটি বৈদ্যুতিক মোটর, একবার চার্জেই গাড়িটি ৩১০ মাইল যেতে পারবে এবং এই গাড়িগুলোর থাকবে দ্রুত চার্জ নেওয়ার ক্ষমতা।

এই গাড়ির কারণে নিয়ে বৈদ্যুতিক গাড়ি নির্মাণে সুপিরিচিত মার্কিন প্রতিষ্ঠান টেসলা মডেল এস আর এক্স শীঘ্রই প্রতিযোগিতার সম্মুখীন হতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছে ব্যবসা-বাণিজ্যবিষয়ক মার্কিন সংবাদ সাইট বিজনেস ইনসাইডার।

ই-ট্রন কোয়াট্রো ধারণায় আনা হয়েছে পরীক্ষামূলক বিশেষ গাড়ি চালনা প্রযুক্তি। এই প্রযুক্তি রেডার সেন্সর, ভিডিও ক্যামেরা, আল্ট্রাসনিক সেন্সর ব্যবহার করা হয়েছে। গাড়ির পরিবেশ নিয়ে ডেটা সংগ্রহ করার জন্য এতে একটি লেজার সেন্সরও ব্যবহার করে হয়েছে।

চালক যাতে দেখতে পারে তার আশপাশে কী চলছে তার জন্য গাড়ির দরজার সামনের দিকে রাখা হয়েছে কার্ভড ডিসপ্লে। গাড়ি উৎপাদনের পর ওই সংস্করণে এই প্রযুক্তি দেখা যাবে কিনা তা এখনও নিশ্চিত নয়। কিন্তু গাড়ি প্রস্তুতকারকরা ইতোমধ্যে নতুন ধরনের এই মিরর ডিজাইনের পরীক্ষা শুরু করেছেন। পিছনের দৃশ্য স্ট্রিম করতে মার্কিন গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান জেনারেল মোটর্স তাদের শেভি বোল্ট এবং ক্যাডিলাক সিটি৬ নামের গাড়ির মিররে ক্যামেরা ব্যবহার করছে।

আউডি ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে লাস ভেগাসে অনুষ্ঠিত সিইএস-২০১৬'তে এলটিই অ্যাডভান্স নামের মোবাইল কমিউনিকেশন সাপোর্ট করে এমন অত্যাধুনিক প্রযুক্তিসমৃদ্ধ গাড়ির ঘোষণা দেয়।

'সিন্ধু পানি চুক্তি' লঙ্ঘন মানেই যুদ্ধের ঘোষণা: পাকিস্তান

'সিন্ধু পানি চুক্তি' লঙ্ঘন মানেই যুদ্ধের ঘোষণা: পাকিস্তান
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: উরির সেনা ছাউনিতে জঙ্গি হামলায় ভারতীয় সেনা নিহত হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ভারত ও পাকিস্তানে সৃষ্ট উত্তেজনা বেড়েই চলেছে। ভারতের দাবি, এ ঘটনার সঙ্গে পাকিস্তান জড়িত।

এদিকে, পাকিস্তানের দাবি, মোদী সরকারের চাল খাটিয়ে এঘটনা ঘটিয়েছে। তাছাড়া, কোনো ঘটনা ঘটলেই পাকিস্তানের ওপর দায় চাপানো ভারতের স্বভাবে পরিণত হয়েছে।

উরির ঘটনার পর থেকে ভারতের জনগণও চায় পাকিস্তানে হামলা করুক ভারত। ভারতের কট্টরপন্থি শিবসেনারা ঘোষণাও দিয়েছে, দেশ থেকে পাকিস্তানি অভিনয় শিল্পীদের পিটিয়ে বের করে দেয়ার।

এবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর এক বৈঠকের পর জল আরও ঘোলাটে হয়ে গেল। কল্যাণ মার্গে নরেন্দ্র মোদী 'সিন্ধু পানি চুক্তি'র বিষয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক করেন। এই চু্ক্তি ভেঙে দেয়ার জন্য কাজ শুরু করেছে ভারত।

পাকিস্তান প্রধানমন্ত্রীর বিদেশ নীতি সংক্রান্ত উপদেষ্টা সরতাজ আজিজ এ প্রসঙ্গে বলেছেন, 'আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে ভারত কখনও একতরফাভাবে এই চুক্তি থেকে নিজেকে সরিয়ে নিতে পারে না। এটা করা হলে, তা যুদ্ধ ঘোষণা করার সমতুল্য হবে বলে মনে করছে ইসলামাবাদ'।

১৯৬০ সালে করাচিতে 'সিন্ধু পানি চুক্তি' স্বাক্ষরিত হয়। তৎকালীন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরু এবং পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খান এই চুক্তিতে সাক্ষর করেছিলেন।

চুক্তি অনুযায়ী, কাশ্মীর-পাঞ্জাব অঞ্চলে শতদ্রু, বিপাশা এবং ইরাবতী, এই তিনটি নদীর উপরে নয়াদিল্লি কোনো নির্মাণ কাজ করতে পারবে না। কারণ এই তিন নদীর পানি যেকোনো ভাবে আটকে দিলে পাকিস্তান খরায় পড়ে যাবে।

এ কারণেই বিশ্ব ব্যাংকের তত্ত্বাবধানে ৫৬ বছর আগে এই পানি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। বিগত বছর গুলোতে দুই দেশের মধ্যের সম্পর্ক উঠা-নামা করলেও ঠিকছিল এই চুক্তিটি। কিন্তু উরি ঘটনার পর থেকেই প্রশ্ন উঠেছে সেই চুক্তি নিয়ে।

ধানমন্ডিতে পানির ট্যাঙ্কে আগুন, নারীসহ দগ্ধ ছয়

ধানমন্ডিতে পানির ট্যাঙ্কে আগুন, নারীসহ দগ্ধ ছয়

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকার একটি বাড়িতে পানির ট্যাঙ্কি পরিষ্কার করার সময় আগুনে পুড়ে এক নারীসহ ছয়জন দগ্ধ হয়েছেন। এরা হলেন- নিরাপত্তাকর্মী আবেদ আলী (৫০), বাকীরা শ্রমিক সাদ্দাম হোসেন (২৮) আবদুর রাজ্জাক (৫০), মাসুম আলী (২৪), আবদুর রাজ্জাক (২৩), ও শিরিন আক্তার (২৭)।

আজ বুধবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের সবাইকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। এদের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন কর্তব্যরত চিকিৎসক।

ওই বাড়ির ভাড়াটিয়া মো. রাকিবুল ইসলাম বলেন, বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ধানমন্ডি আবাসিক এলাকার চার নম্বর সড়কের ৩৪/এ নম্বর বাড়ির পানির ট্যাঙ্কি পরিষ্কার করছিল ওই শ্রমিকেরা। এ সময় সেখানে একটি বৈদ্যুতিক লাইট লাগানোর সময়ে তা বিস্ফোরণ হয়ে আগুন ধরে যায়। এতে সেখানে আগুন লেগে যায়। পরে তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করি।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের আবাসিক সার্জন ডা. পার্থশঙ্কর পাল বলেন, দগ্ধদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের অবজারভেশন ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে আবেদ আলীর শরীরের ৩৮ শতাংশ, সাদ্দাম হোসেনের ৩০ শতাংশ, আবদুর রাজ্জাকের ৩৮ শতাংশ, মাসুম আলীর ৪৯ শতাংশ , আবদুর রাজ্জাকের ২৭ শতাংশ ও শিরিন আক্তারের ২০ শতাংশ পুড়ে গেছে।

জানতে চাইলে ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের ডিউটি অফিসার শাহজাদী সুলতানা বলেন, পরিস্কার করার পরে পানি না ভরে তিনদিন খালি রাখ হয় ট্যাঙ্কটি। এরপর সেখানে লাইট লাগাতে গেলে বিস্ফোরণ হয়।

শেখ হাসিনাকে নিয়ে সৈয়দ হকের শেষ কবিতা

 কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক:
২৮ সেপ্টেম্বর বুধবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭০তম জন্মদিন। এ জন্মদিন উদযাপন উপলক্ষে দেশের কবি লেখক সংস্কৃতিকর্মীজনদের পক্ষ থেকে আনন্দ অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছিল আগেভাগেই। সেই জন্মদিন উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক ছিলেন সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক। নিজের শরীর খারাপ হলেও দেশনেত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন পালনে তাঁর ছিল অসীম আগ্রহ। কিন্তু, শেষ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উদযাপন করা সম্ভব হলো না তাঁর। এ আয়োজনের মাত্র এক দিন আগে ২৭ সেপ্টেম্বর, মঙ্গলবার ফুসফুসের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন দেশবরেণ্য প্রথিতযশা এই লেখক।
বুধবারের এ আয়োজন উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিবেদন করে সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকের লেখা কবিতার নাম ‘আহা, আজ কী আনন্দ অপার!’
এ কবিতায় সব্যসাচী লেখকের মনের আনন্দ প্রকাশ করেছেন এভাবে- ‘আহা, আজ কী আনন্দ অপার/ শুভ শুভ জন্মদিন দেশরত্ন শেখ হাসিনার’।
সৈয়দ হক প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনের কবিতায় লেখেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু স্বপ্নবাহু তাঁর/শুভ শুভ জন্মদিন/দেশরত্ন শেখ হাসিনার/পঁচাত্তরের কলঙ্কিত সেই রাত্রির পর/নৌকা ডোবে নদীর জলে/সবাই বলে নৌকা তুলে ধর/কেইবা তোলে কে আসে আর/স্বপ্নবাহু তাঁর/বঙ্গবন্ধু কন্যার/শুভ শুভ জন্মদিন দেশরত্ন শেখ হাসিনার।’
এ কবিতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাফল্যের প্রশংসা করে সৈয়দ হক লেখেন, শেখ হাসিনা সব নদীতে/দুর্জয় গতিতে/টেনে তোলেন নৌকা আনেন উন্নয়ন জোয়ার/শুভ শুভ জন্মদিন দেশরত্ন শেখ হাসিনার।’
প্রধানমন্ত্রীর ৭০তম জন্মদিন উপলক্ষে সৈয়দ হক কবিতায় যা উচ্চারণ করেছেন, সুস্থ থাকলে ২৮ সেপ্টেম্বর হয়ত নিজেই স্বকণ্ঠে আবৃত্তি করতেন। কিন্তু তার আগের দিন নিজেই বিদায় নিয়ে চলে গেলেন ৮০ বছর বয়সে। প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে তার কবিতাটা আর আবৃত্তি করা হলো না।
বুধবার সন্ধ্যা ছয়টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির উন্মুক্ত প্রাঙ্গনে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে ওই ‘আনন্দ অনুষ্ঠান’টি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।
শেখ হাসিনার উদ্দেশে কবির লেখা কবিতাটি নিচে হুবহু তুলে ধরা হলো:



আহা, আজ কী আনন্দ অপার!

-সৈয়দ শামসুল হক

আহা, আজ কী আনন্দ অপার
শুভ শুভ জন্মদিন দেশরত্ন শেখ হাসিনার
জয় জয় জয় জয় বাংলার
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু স্বপ্নবাহু তাঁর
শুভ শুভ জন্মদিন দেশরত্ন শেখ হাসিনার
পঁচাত্তরের কলঙ্কিত সেই রাত্রির পর
নৌকা ডোবে নদীর জলে
সবাই বলে নৌকা তুলে ধর
কেইবা তোলে কে আসে আর
স্বপ্নবাহু তাঁর
বঙ্গবন্ধু কন্যার
শুভ শুভ জন্মদিন দেশরত্ন শেখ হাসিনার
শেখ হাসিনা সব নদীতে
দুর্জয় গতিতে
টেনে তোলেন নৌকা আনেন উন্নয়ন জোয়ার
শুভ শুভ জন্মদিন দেশরত্ন শেখ হাসিনার
জাতির পিতার রক্তে দেশ
এখনও যায় ভেসে
সেই রক্তের পরশ মেখে দেশ উঠেছে জেগে
এ দেশ তোমার আমার
জয় জয় জয় জয় বাংলার
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু স্বপ্নবাহু তাঁর
শুভ শুভ জন্মদিন দেশরত্ন শেখ হাসিনার

ফ্যাটযুক্ত যে ৬টি খাবার স্বাস্থ্যের জন্য ভাল


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ওজন কমানোর জন্য ডায়েট করার সময় ফ্যাটযুক্ত সব ধরণের খাবার বাদ দিয়ে থাকেন। কিন্তু সবধরণের ফ্যাট খাবার বাদ দেওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ভাল নয়। কিছু কিছু ফ্যাটযুক্ত খাবার আছে যা শরীরের জন্য বেশ ভাল। এই ফ্যাটযুক্ত খাবারগুলো খাদ্যতালিকায় রাখা উচিত। ১। অ্যাভোকাডো অ্যাভোকাডো উচ্চ ফ্যাটযুক্ত একটি খাবার। একে “বাটার পেয়ারস” বলা হয় ফ্যাটের কারণে। কিন্তু অ্যাভোকাডোয় মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট রয়েছে যা খারাপ কোলেস্টেরল হ্রাস করে হার্ট সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। একটি অ্যাভোকাডোতে ৩০ গ্রাম ফ্যাট রয়েছে। মাখনের পরিবর্তে অ্যাভোকাডো খেতে পারেন। ২। বিশুদ্ধ নারকেল তেল মোটা হওয়ার ভয়ে মাখন, তেলের পরিবর্তে অনেকে অলিভ অয়েল খেয়ে থাকেন। অলিভ অয়েলের পরিবর্তে নারকেল তেল ব্যবহার করতে পারেন। বিশুদ্ধ নারকেল তেল শরীরের ভাল কোলেস্টেরল বৃদ্ধি করে। ৩। ডিম প্রোটিনের অন্যতম উৎস ডিম। তাই ডায়েট করলেও প্রতিদিন একটি করে ডিম খাওয়ার চেষ্টা করুন। অনেকে ডিমের কুসুম বাদ দিয়ে শুধু সাদা অংশ খেয়ে থাকেন। সম্পূর্ণ একটি ডিমে ৫ গ্রাম ফ্যাট রয়েছে এরমধ্যে ১.৫ গ্রাম স্যাচুরেটেড ফ্যাট রয়েছে। ৪। কাঠবাদাম এক আউন্স কাঠবাদামে (২৩টি কাঠবাদাম) ১৬০ গ্রাম ক্যালরি, ১৪ গ্রাম আনস্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং ৬ গ্রাম প্রোটিন রয়েছে। এতে প্রচুর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন ই, ফাইবার, রিবোফ্লাভিন, ম্যাগনেশিয়াম এবং ফসফরাস রয়েছে যা প্রতিদিনের ৪০% পুষ্টির চাহিদা পূরণ করে। ৫। কিছু মাছ কিছু সামুদ্রিক মাছ যেমন স্যামন, সার্ডিন, টুনা ইত্যাদি মাছে প্রচুর ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে। American Heart Association এর মতে যারা সপ্তাহে কমপক্ষে দুইবার ওমেগা থ্রিযুক্ত মাছ খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। ৬। অলিভ অয়েল অনেক পুষ্টিবিদগণ সাধারণ তেলের পরিবর্তে অলিভ অয়েল খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। অলিভ অয়েলে মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট রয়েছে যা খারাপ কোলেস্টেরল দূর করে। এছাড়া এতে ভিটামিন এ এবং ভিটামিন ই এবং ম্যাগনেশিয়াম রয়েছে যা হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস করে।

চলচ্চিত্র ও গানে সৈয়দ হকের অসামান্য যত কীর্তি

চলচ্চিত্র ও গানে সৈয়দ হকের অসামান্য যত কীর্তি

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ''তুমি আসবে বলে, কাছে ডাকবে বলে, ভালোবাসবে ওগো শুধু মোরে,
তাই চম্পা বকুল করে, গন্ধে আকুল এই জ্যোৎস্না রাতে মনে পড়ে''।

সুভাস দত্তের বিখ্যাত চলচ্চিত্র 'সুতারাং' ছবির এই গানটি এখনও হৃদয় ছুঁয়ে যায় মানুষের। কালজয়ী এই গানের গীতিকার প্রয়াত সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক। এমন অসংখ্য জনপ্রিয় গানের গীত রচনা করেছেন প্রথিতযশা এই সাহিত্যিক। এর মধ্যে ''হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস দম ফুরাইলে ঠুস''- এই গানটি তাকে চির অমর করে রাখবে। এছাড়াও আছে, 'চাঁদের সাথে আমি দেবনা তোমার তুলনাসহ আরও অসংখ্য গান।

গল্প, উপন্যাস, প্রবন্ধের পাশাপাশি চলচ্চিত্রেও অসামান্য অবদান রেখেছেন এই ক্ষণজন্মা লেখক। বাংলা চলচ্চিত্রের জন্য বেশ কিছু সিনেমার চিত্রনাট্যও লিখেছেন তিনি।

শুধু চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্যই নয়, সৈয়দ হক চলচ্চিত্রের জন্য লিখেছেন শ্রোতাপ্রিয় সব গান। এর মধ্যে- এমন মজা হয় না গায়ে সোনার গয়না, এই যে আকাশ এই যে বাতাস, তুমি আসবে বলে কাছে ডাকবে বলে, হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস, তোরা দেখ দেখ দেখরে চাহিয়া, চাঁদের সাথে আমি দেব না তোমার তুলনা গানগুলো আজও দর্শক শ্রোতাপ্রিয়।

সব্যসাচী এই লেখকের সাহিত্য থেকেও নির্মিত হয়েছে প্রচুর চলচ্চিত্র। তার উপন্যাস নিষিদ্ধ লোবান অবলম্বন করে নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু নির্মাণ করেন চলচ্চিত্র গেরিলা। মুক্তি পায় ২০১১ সালের ১৪ এপ্রিল। ছবিটি দশটি বিভাগে জিতে নেয় সেই বছরের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। সবশেষ সৈয়দ শামসুল হক নিজেও অভিনয় করেন সিনেমায়। সংযোগ নামের সিনেমাটি নির্মাণ করছেন আবু সাইয়ীদ।

১৯৫৭ থেকে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত সৈয়দ হক ৩০টির মতো চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্য রচনা করেন। সৈয়দ হকের লেখা মাটির পাহাড়, তোমার আমার, রাজা এল শহরে, শীত বিকেল, সুতরাং, কাগজের নৌকাসহ প্রতিটি চলচ্চিত্র জনপ্রিয়তা পায়। মূলত ১৯৫৬ থেকে ১৯৫৭ সালে লেখকের বাবার মৃত্যুর পর অর্থের জন্যই তিনি চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্য রচনা শুরু করেন।
 
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো:মহিউদ্দিন,সম্পাদক : মাহবুবুর রশিদ,নির্বাহী সম্পাদক : নিজাম উদ্দিন। সম্পাদকীয় যোগাযোগ : শাপলা পয়েন্ট,কানাইঘাট পশ্চিম বাজার,কানাইঘাট,সিলেট।+৮৮ ০১৭২৭৬৬৭৭২০,+৮৮ ০১৯১২৭৬৪৭১৬ ই-মেইল :mahbuburrashid68@yahoo.com: সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত কানাইঘাট নিউজ ২০১৩