দম ফেলার ফুসরত নেই কানাইঘাটের দর্জিদের

Kanaighat News on Thursday, June 30, 2016 | 10:27 PM


নিজস্ব প্রতিবেদক: ঈদ মানে আনন্দ, ঈদ মানে খুশি। আর মাত্র ক’দিন পরই পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর। ঈদকে সামনে রেখে ব্যস্ত সময় পার করছেন কানাইঘাটের দর্জিরা। যেন তাদের দম ফেলারও ফুসরত নেই। দিন-রাত নতুন নতুন পোশাক তৈরি করছেন তারা। কানাইঘাট পৌর শহর ঘুরে দেখা গেছে, ঈদকে সামনে রেখে বিভিন্ন মার্কেটগুলো লাইটিং দিয়ে সাজানো হয়েছে। থান কাপড় ও টেইলার্সের দোকানগুলোতে তরুন-তরুনীদের উপচে পড়া ভীড় লেগে আছে। সেলাই মেশিনের কুটুর-কাটুর শব্দ যেন ঈদের আগাম বার্তা জানান দিচ্ছে। টেইলার্সের দোকানগুলোতে গিয়ে দেখা যায়, কারিগররা কেউ থ্রিপিস, পাঞ্জাবী,ফতওয়া এর কারুকাজ নিয়ে ব্যস্ত আবার কেউ কাপড় ইস্ত্রি,পাঞ্জাবি,শার্টের বোতাম লাগাতে ব্যাস্ত সময় পার করছেন । তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ৮-১০ রোজার পর থেকেই তাদের ব্যস্ততা বেড়ে যায়। ভোর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত চলছে তারা সেলাইয়ের কাজ করছেন। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পোশাক সরবরাহ করতে ইতিমধ্যে অধিকাংশ টেইলার্সের মালিকরা নতুন অর্ডার নেওয়া বন্ধ করে দিয়েছেন। শাপলা টেইলার্সের প্রোপ্রাইটর ছমির উদ্দিন জানান,গত বছরের তুলনায় এ বছর অর্ডার বেশী হচ্ছে,তাই গ্রাহক সামলাতে কিছুটা হিমশিম খাচ্ছেন তিনি।

গাছবাড়ীতে ছাত্রলীগের ইফতার মাহফিল

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: কানাইঘাট উপজেলার গাছবাড়ী অাঞ্চলিক ছাত্রলীগর উদ্দ্যেগে স্থানীয় গাছবাড়ি কমিউনিটি সেন্টারে এক ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্টিত হয়।গাছবাড়ি ছাত্রলীগর সভাপতি খালেদ আহমদ সুমনের সভাপতিত্বে সাধারন সম্পাদক সারওয়ার আহমদের পরিচালনায় এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কানাইঘাট উপজেলা অাওয়ামীলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক অলিউর রহমান।প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় সেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য এড.ফখরুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক জালাল উদ্দিন কয়েছ, এম,সি কলেজ ছাত্রলীগর সাবেক সভাপতি তাজিম উদ্দিন, কানাইঘাট উপজেলা অাওয়ামীলীগের সদস্য জুবের অাহমদ চৌধুরী, কানাইঘাট উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাক মাসুক আহমদ, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক বিভাগীয় উপসম্পদক হামজা হেলাল, জেলা ছাত্রলীগর সহ সভাপতি হারুন রশীদ, সহ সভাপতি মামুন উদ্দিন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপসম্পদক জামিল আহমদ আনসারি, শাবিপ্রবি ছাত্রলীগ নেতা দেলওয়ার হোসেন, এম সি কলেজ ছাত্রলীগ নেতা জসীম,সেবলু, আব্দল মৌলা, মুন্তাসির ,মাহফুজুর রহমান মাসুম, রেজওয়ান অাহমেদ পাশা প্রমুখ।

কানাইঘাটে শেষ দিনে ব্যাংকগুলোতে ছিল উপচে পড়া ভিড়

 
নিজস্ব প্রতিবেদক:
ঈদের আগে শেষ কার্যদিবস আজ (বৃহস্পতিবার)। তাই ঈদের সামনে টাকা তোলা ও জমা দেওয়ার জন্য দীর্ঘ লাইনে গ্রাহকরা। ব্যস্ত সময় পার করছে ব্যাংকাররাও। বৃহস্পতিবার কানাইঘাটের বিভিন্ন ব্যাংকের শাখায় গ্রাহকের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। প্রয়োজনীয় লেনদেনের পাশাপাশি নতুন টাকার জন্যও ভিড় করতে দেখা গেছে গ্রাহকদের। ব্যাংকের শাখাগুলোতে ঘুরে দেখা গেছে টাকা তুলতে ব্যাংকের কাউন্টারে সামনে লম্বা লাইন।
সোনালী ব্যাংকের কানাইঘাট শাখায় টাকা তুলতে আসা এক চাকুরিজীবী কানাইঘাট নিউজকে বলেন,  ব্যাংক বন্ধ হয়ে যাচ্ছে তাই প্রয়োজনীয় টাকা তুলতে এসেছি। প্রায় এক ঘণ্টা ধরে দাঁড়িয়ে আছি। যে লম্বা লাইন, মনে হচ্ছে আর বেশকিছু সময় দাঁড়াতে হবে।

রক্ত গড়িয়ে পড়লে কি রোজা ভেঙে যায়?


রশ্ন : রোজা রেখে যদি শরীরের কোনো অংশ কেটে রক্ত গড়ায়ে পড়ে, তাহলে কি রোজা ভেঙে যায়? উত্তর : এই ভাই যে রক্তক্ষরণের কথা উল্লেখ করেছেন, এ বিষয় নিয়ে বিভিন্ন আলেমের মধ্যে মতবিরোধ রয়েছে। কিন্তু বিশুদ্ধ বক্তব্য হচ্ছে, এর মাধ্যমে সিয়াম নষ্ট হবে না। রক্তক্ষরণের কারণে কেউ কেউ বলেছেন, রক্তক্ষরণের কারণে সিয়াম নষ্ট হয় এবং তাঁরা এ বক্তব্যটুকু নিয়েছেন মূলত কাপিং বা সিঙ্গা বা চুষে নেওয়া হয়, সে ক্ষেত্রে তাঁরা অনুমান করে হুকুম করেছেন সিয়াম নষ্ট হয়। হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর সুস্পষ্ট বক্তব্য বা হাদিসের মাধ্যমে এভাবে আসেনি; বরং বক্তব্য যেটা, সেটা হচ্ছে কোনো কারণে রক্ত বের হয় বা ক্ষত বা আহত হয়, সে ক্ষেত্রে তাঁর সিয়াম নষ্ট হবে না; বরং তিনি সিয়াম কন্টিনিউ করতে পারবেন।

রমজানে দোয়া কবুল প্রসঙ্গে বিশ্বনবি


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: নেকি অর্জনের সীমাহীন সুযোগ ও প্রবৃত্তিকে নিয়ন্ত্রণ করে মহান চরিত্র অর্জনের উত্তম প্রশিক্ষণের মাস এ রমজান। তাকওয়া অর্জনের এ মহান মাসে মুমিনের ওপর অর্পিত হয়েছে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব। রমজানে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন এবং এ সুযোগের সদ্ব্যবহার করে বিশ্ব মুসলিমের উচিত নিজেদেরকে চারিত্রিক অধপতন থেকে রক্ষা করা। কুরআন অধ্যয়নের মাধ্যমে ঝিমিয়ে পড়া চেতনাকে জাগ্রত করা এবং সকল প্রকার অযাচিত কাজের বলয় থেকে মুক্ত থেকে পরকালের চিরস্থায়ী জীবনের সফলতা অর্জনে আল্লাহর নিকট দোয়া করা। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, এ মাসে দোয়া কবুল হয়। কেননা রমজান মাসে আল্লাহ তাআলা বান্দার সকল প্রার্থনা কবুল করে থাকেন। এ প্রসঙ্গে হাদিসের ছোট্ট একটি উদ্ধৃতি তুলে ধরা হলো- হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, (রমজানে) প্রতি দিন ও রাতে (জাহান্নাম থেকে) আল্লাহর কাছে অনেক বান্দা মুক্তিপ্রাপ্ত হয়ে থাকে। তাদের প্রত্যেক বান্দার দোয়া কবুল হয়ে থাকে (যা সে রমজানে করে থাকে)। (মুসনাদে আহমাদ) পরিশেষে… পবিত্র রমজান মাসে শরিয়ত কর্তৃক যে সব দায়িত্ব ও কাজ অর্পিত হয়েছে কিংবা যা পালন করতে মুসলিম উম্মাহকে উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে এবং যা থেকে বিরত থাকতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে, সেগুলো বিধি-নিষেধ পালন করে আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করলে আল্লাহ তাআলা অবশ্যই বান্দাকে ক্ষমা করে দিবেন। আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে তাঁর বিধি-নিষেধ পালনের মাধ্যমে ক্ষমা লাভ করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

ঈদে সাত মিনিটের খণ্ড নাটক


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ঘটনাটি একেবারেই ব্যতিক্রম। এবারই প্রথম ঈদে এমন ব্যতিক্রমী আইডিয়া নিয়ে কাজ হয়েছে। ইফাদ নিবেদিত এবার ঈদে বিভিন্ন চ্যানেলে প্রচার হবে খন্ড নাটক। ‘লেটার’স ফ্রম রোমিও’ শিরোনামের নাটকটি ঈদে আরটিভি সহ বিভিন্ন চ্যানেলে প্রচার হবে। সাত মিনিটের নাটকটি রচনা ও পরিচালনা করেছেন ইভান মজুমদার। এতে অভিনয় করেছেন তানভীর ফাইনেস্ট, রানী আহাদ, শাওন মিলনসহ আরো অনেকে। তানভীর বলেন, ‘অন্যরকম একটা কাজ করেছি। এবার ঈদে দর্শকরা এই শর্ট নাটকটি দেখে সত্যিই ভিন্ন মজা পাবেন। কারণ বর্তমানে সারাবিশ্বেই শর্ট ফিল্মের একটা জয়জয়কার অবস্থা। সেই হিসেবে আমাদের দেশে শর্ট নাটক কিংবা শর্ট ফিল্মের জায়গাটা দর্শকদের কাজে নতুন মাত্রা যোগ করবে। তারই প্রয়াস হিসেবে ঈদে আমাদের ইফাদ নিবেদিত এই শর্ট নাটক। যা বিভিন্ন চ্যানেলে প্রচার হবে।’ রানী আহাদ বলেন, ‘নাটকটিতে কাজ করে অন্যরকম লেগেছে। ছোট্ট একটা গল্প কিন্তু গভীরতা অনেক। আশা করি দর্শকরা শর্ট নাটকটি দেখে অন্যরকম আনন্দ পাবেন।’

পানির চাহিদা মিটবে যেসব খাবারে


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: কথায় বলে পানির অপর নাম জীবন। পানি ছাড়া কি মানুষ বাঁচতে পারে? পূর্ণবয়স্ক একজন মানুষের সারাদিনে দুই থেকে তিন লিটার পানি লাগে। পানি আমাদের শরীরকে আর্দ্র করে। পানির সঙ্গে সঙ্গে দেহ থেকে অনেক বিষাক্ত পদার্থও বেরিয়ে যায়। এমন কিছু খাবার আছে যা দিয়ে শরীরে পানির চাহিদা মেটানো সম্ভব। এসব খাবারগুলোকে অন্তত কিছুক্ষণের জন্য আমরা পানির বিকল্প হিসাবে গ্রহণ করতে পারি। তরমুজ- গরমকালে বাজারে ওঠে তরমুজ। তরমুজের ভিতরে সাঁসের থেকে তরলের পরিমাণই বেশি। তাই গরমে তরমুজ খাওয়া খুবই উপকারী। তরমুজের ৯৩ শতাংশই পানি। শুধু তাই নয়, তরমুজে লবণ, ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়ামও থাকে। টক দই- ঘরে পাতা টক দইয়ে ৮৫-৮৮ শতাংশ পানি রয়েছে। তাই পানির চাহিদা সহজেই মেটায় টক দই। শসা- পানির বিকল্প হিসাবে শসাও খুবই কার্যকরী। শসায় ৯৬.৭ শতাংশ পানি রয়েছে। মূলা- মূলা দেখে বোঝা না গেলেও এই ভিতরেও কিন্তু পানির পরিমাণ আঁশের তুলনায় বেশি থাকে। তাই সালাদে মুলো খাওয়া খুবই ভাল। ফুটি- ফুটিতেও থাকে প্রায় ৯০.২ শতাংশ পানি। দেহে পানির অভাব পূর্ণ করতে ফুটির জুড়ি মেলা ভার। গাজর- কচি গাজর শরীরে পানির চাহিদা পূরণ করে। ৯০ শতাংশ পানি থাকে কচি গাজরে। টমেটো- টমেটোতে ৯৪.৫ শতাংশই পানি। সালাদে টমেটো খাওয়া খুবই উপকার। বাঁধাকপি- বাঁধাকপিতে পানির পরিমাণ ৯৫.৬ শতাংশ। শরীরে পানির চাহিদা মেটায় বাঁধাকপিও। স্ট্রবেরি- ৯১ শতাংশ পানি থাকে স্ট্রবেরিতে। শরীরকে হাইড্রেট করতে সাহায্য করে স্ট্রবেরি। কুমড়ো- ৯০.২ শতাংশ পানি আছে কুমড়োতে। তাই শরীরে পানির চাহিদা মেটাতে এই সবজির ভূমিকাও গুরুত্বপূর্ণ।

ক্রিকেট ম্যাচে মা-ছেলে!


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: একই দলের হয়ে পিতা-পুত্রের মাঠে নামার কাহিনী পৃথিবীতে নেহাত কম নয়। কিন্তু এই প্রথম শোনা গেল, একই দলে মা-ছেলের ক্রিকেট খেলার কথা! বিরল এই ঘটনটি কিন্তু নামমাত্র পাড়ার ক্রিকেটে নয়। ইংল্যান্ডের জেলা প্রিমিয়ার ডিভিশনে এই ঘটনা ঘটেছে! মিসেস স্মিথ (৪৭) তার ছেলে লুককে স্টেডিয়ামে ছাড়তে আসেন। কিন্তু মাঠে পৌঁছে দেখেন ছেলের দল মহা চিন্তায়। কারণ তাদের একজন খেলোয়াড় তখনো এসে পৌঁছাননি। তিনি আসতেও পারবেন না। উপায়ন্তর না দেখে ১৪ বছর বয়সী লুকের মা প্রস্তাব দেন দল চাইলে তিনি মাঠে নামবেন! শেষ পর্যন্ত নেমেই পড়েন। মিসেস স্মিথের বাবা একসময় ক্রিকেট খেলতেন। সেটা ১৯৪০ সালের কথা। স্মিথ নিজেও স্থানীয় একটি ক্লাবের মেয়েদের দলের প্রতিনিধিত্ব করতেন। বিয়ের পর সংসার নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ায় খেলা ছেড়ে দেন। ‘এটা আমার কাছে গর্ব করার মতো ব্যাপার। মেয়েদের ক্লাবে খেলেছি। কিন্তু এই প্রথম ছেলেদের দলের হয়ে খেললাম। আর সেটা সন্তানের দল হওয়ায় বেশি ভালো লাগছে।’ বলেন স্মিথ। স্মিথের স্বামী মানে লুকের বাবাও ক্রিকেটের সঙ্গে জড়িত। দ্বিতীয় বিভাগ ক্রিকেটে আম্পায়রিং করেন তিনি। ক্রিকেটীয় পরিবার বটে!

শাড়ি- লুঙ্গি নয়, যাকাত হোক স্বনির্ভরতার প্রতীক


ওয়ালি উল্লাহ সিরাজ; যাকাত ইসলামের একটি ফরজ বিধান। সমাজে ধনী-গরিবের মাঝে সাম্য ও ভ্রাতৃত্বের বন্ধন সৃষ্টি করা ও সমাজকে দারিদ্র্য থেকে মুক্তি দেয়া হলো এর উদ্দেশ্য। ইসলাম একজনের হাতে বিপুল অর্থ-সম্পদ জমা হওয়াকে পছন্দ করে না। ইসলাম চায় ধনী-গরিব সবাই স্বাচ্ছন্দ্যে জীবনযাপন করুক। তাই দরিদ্রের প্রতি লক্ষ্য করে যাকাতের বিধান প্রবর্তন করা হয়েছে। যাকাত আদায় করলে আল্লাহপাক সম্পদের মালিকদের বরকত দেন। একটি হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, রাসূল সা. বলেছেন- ‘সদকা করার কারণে কখনো সম্পদ কমে না।’ দান-খয়রাত করলে সম্পদের পরিমাণ কমলেও সম্পদের বরকত কমে না। আল্লাহপাক এ সম্পদকে তার ভবিষ্যতের জন্য বরকতময় করে দেন এবং তার দান-খয়রাতের কারণে তাকে এর চেয়ে উত্তম সম্পত্তি দান করেন। আমাদের দেশে যাকাতের আসল উদ্দেশ্য হারিয়ে ফেলছে। ইসলামি বিধান হচ্ছে- যাকাতের অর্থ দিয়ে দরিদ্র মানুষকে অর্থনৈতিকভাবে স্বনির্ভর। যাতে ভবিষ্যতে তাকে আর মানুষের দ্বারে দ্বারে যেত না হয়। কিন্তু আজকের বিত্তবান সমাজে দরিদ্রদের অর্থনৈতিকভাবে স্বনির্ভরতার কথা আর ভাবছেন না। সবাই ঝুঁকছেন শুধু শাড়ি-লুঙ্গির দিকে। রাজধানীর গুলিস্থান, ফুলবাড়িয়া ও ফার্মগেটসহ নানা স্থানে বেশকিছু মার্কেটে ব্যানার টানিয়ে বিক্রি হচ্ছে যাকাতের শাড়ি-লুঙ্গি। জাকাতকে কেন্দ্র করে আমাদের অর্থনীতিতে প্রতিবছর হাত বদল হচ্ছে কোটি কোটি টাকা। অথচ এ অর্থে গরিবদের কোন উপকারে আসছে না। ইসলামি শরিয়া ধনীদের উপর যাকাত ফরজ করেছে যেন তাদের মাধ্যমে দেশের দরিদ্র সমাজের লোকেরা স্বনির্ভর হয়। কিন্তু আমাদের এই শাড়ি-লুঙ্গির সংস্কৃতিতে ধনীদের টাকায় লাভবান হচ্ছেন শুধু ধনীরাই। গরিবের কপালে তেমন কোনো পরিবর্তন ঘটছে না। এছাড়াও জাকাতের টাকায় শাড়ি-লুঙ্গি বিতরণের মাধ্যমে আমাদের সমাজে বিপর্যয় ঘটছে। গত বছরের ৭ জুলাই ময়মনসিংহ পৌরসভা কার্যালয়ের কাছে নূরানী জর্দার মালিক শামীম তালুকদারের জাকাতের শাড়ি-লুঙ্গি বিতরণকে কেন্দ্র করে বহু মানুষের সমাগম হয়। এক পর্যায়ে ভিড়ে পদপিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই কয়েকজনের মৃত্যু হয়। এই ঘটনায় নারী ও শিশুসহ মোট ২৭ জন মারা যান। আজ আলেম সমাজের ভাবার সময় হয়েছে, এইভাবে যাকাত আদায় করলে আদৌ জাকাত আদায় হবে কিনা? আমাদের নবী সা. বিভিন্ন হাদিসে মুসলিম জাতিকে যাকাত আদায়ের বিষয়ে সচেতন করেছেন। একটি হাদিসে এসেছে, হযরত জারির ইবনে আব্দুল্লাহ থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন- ‘আমরা রাসূল সা.-এর হাতে বায়াত গ্রহণ করি নামাজ কায়েম করা, যাকাত আদায় করা এবং প্রত্যেক মুসলমানের কল্যাণ কামনার উপর।’ অপর হাদিসে এসেছে, হযরত আবু সায়ীদ রা. বর্ণনা করেন, ‘একদিন রাসূলুল্লাহ সা. আমাদেরকে নসিহত করছিলেন। তিনবার শপথ করে তিনি বললেন, ‘যে ব্যক্তি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়বে, রমজানের রোজা রাখবে, জাকাত প্রদান করবে এবং সব ধরনের কবিরা গুনাহ থেকে বিরত থাকবে আল্লাহপাক তার জন্য অবশ্যই বেহেশতের দরজা খুলে দিয়ে বলবেন, ‘তোমরা নিরাপদে তাতে প্রবেশ কর’। -নাসায়ী ইসলামে অর্থনৈতিকভাবে দুইটি বিষয় আমাদের উপর ওয়াজিব করা হয়েছে। ১. সাদাকাতুল ফিতর ২. যাকাত। আমরা যদি নবী সা.-এর এই দুই বিষয়ের হাদিস নিয়ে আলোচনা-পর্যলোচনা করি, তাহলে আমরা দেখতে পাব এই দুইটা বিষয়ের উদ্দেশ্য সম্পূর্ণ আলাদা। ফিতরা আদায় করি, যেন সমাজের সবাই ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে পারি এই জন্য। কিন্তু যাকাতের উদ্দেশ্য কখনো ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করা নয়। যাকাতের উদ্দেশ্য হলো সমাজের দরিদ্র ও অসহায় লোকদের অর্থনৈতিকভাবে স্বনির্ভর করে তোলা। আমাদের সমাজে শাড়ি-লুঙ্গি দেয়ার যে সংস্কৃতি শুরু হয়েছে। এই সংস্কৃতি যদি চলতে থাকে, তাহলে প্রকৃত যাকাত আদায়ের ব্যবস্থার কোনো অস্তিত্ব আর খুঁজে পাওয়া যাবে না। সুতরাং সমাজের বিত্তবানদের প্রতি আহ্বান হচ্ছে, নিজেদের সুনাম ও খ্যাতি বৃদ্ধির জন্য নয়, যাকাত প্রদান করুণ ইসলামি শরীয়া অনুযায়ী- তাহলেই সমাজের ও দেশের কল্যাণ হবে। লেখক : আলেম ও গণমাধ্যমকর্মী

সুস্থ থাকতে চাইলে এই জুসগুলো খান

সুস্থ থাকতে চাইলে এই জুসগুলো খান

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: বর্তমানে একটি মহাসমস্যা হলো স্থূলতা। যদিও ওজন কমানো খুব কঠিন একটি কাজ তবে কাজটি অসম্ভব নয়। এর জন্য প্রয়োজন ওজন কমানোর ব্যাপারে লক্ষ্য স্থির করা, অঙ্গীকারাবদ্ধ থাকা এবং লক্ষ্য অর্জনে কাজ করে যাওয়া।

তবে এজন্য শুধু মুখে বললেই কাজ হবে না। সবচেয়ে বড় কথা কোন ধরনের ম্যাজিক দিয়ে ওজন কমানো সম্ভব না। এর জন্য প্রয়োজন জীবনযাত্রায় পরিবর্তন আনা। যার ফলে আপনি আপনার ওজন কমানোর কাঙ্ক্ষিত স্বপ্ন পূরণ করতে পারবেন এবং শরীরের সুন্দর একটি গঠন পাবেন। নিয়মিত শারীরিক ব্যায়াম ও একটি স্বাস্থ্যকর খাবার তালিকা অনুসরণ করার মাধ্যমে সঠিক উপায়ে শরীরের বাড়তি মেদ ঝড়ানো সম্ভব।

শরীরকে ভালোবেসে কী খাচ্ছেন বা কতটুকু খাচ্ছেন তা খেয়াল রাখুন। বাড়তি ক্যালরি গ্রহণ কমানোর সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে বিভিন্ন স্বাস্থ্যকর পানীয় পান করা। বাড়তি চিনি যোগ না করে স্বাস্থ্যকর পানীয় খেলে তা শরীরের প্রয়োজনীয় পুষ্টি সরবরাহ করে। তবে এই ক্ষেত্রে অবশ্যই বাসায় তৈরি করা পানীয় হতে হবে। আমরা কয়েকটি স্বাস্থ্যকর পানীয়ের কথা জানাচ্ছি, যা ওজন কমাতে সাহায্য করবে।

লেবুর শরবত
ওজন কমানোর জন্য প্রথম যে পানীয়টির কথা মনে আসে, সেটা হলো লেবুর শরবত। সকালে খালিপেটে লেবুর শরবত ওজন কমানোর গতিকে ত্বরান্বিত করে। দেহকে দূষণমুক্ত করতে সাহায্য করে এবং সারাদিন ঝরঝরে রাখে।

গাজরের জুস
গাজরের জুসে থাকে ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, ক্যারোটিন এবং ভিটামিন-'এ', 'বি'-১, 'বি'-৩, 'বি'-৬, 'সি' এবং 'কে'। সেই সাথে এতে থাকে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা দেহের বিপাকক্রিয়াকে উন্নত করে এবং প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

বিট জুস
এটি সত্যিকার অর্থেই একটি স্বাস্থ্যকর পানীয়, কারণ এতে থাকে উচ্চপরিমাণে ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, আয়রন, ফসফরাস, জিংক ও খাদ্যআঁশ এবং সেই সাথে ভিটামিন 'এ', বি-৬, 'সি', 'ডি' এবং 'কে'। ভিটামিন এবং খাদ্যআঁশ দেহ থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের করে দিতে সাহায্য করে যার ফলে দেহের ওজন কমে।

ডালিমের জুস
প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট-সমৃদ্ধ এই পানীয়টি দেহের প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করে। এছাড়া এতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ওজন কমানোর গতিকে ত্বরান্বিত করে।

ক্রানবেরি জুস
এই জুসটিও অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের বেশ শক্তিশালী একটি উৎস যা দেহের সংরক্ষিত চর্বির ভাঙনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

করলার জুস
করলার জুসে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট দেহকে সম্পূর্ণরূপে দূষণ দূর করতে সাহায্য করে। হজমক্রিয়া উন্নত করে, বিপাকক্রিয়া বৃদ্ধি করে, ওজন কমাতে সাহায্য করে এবং দেহের কোষে চর্বি জমা হতে বাধা দেয়।

আমলকীর জুস
ভিটামিন 'সি' এর একটি সমৃদ্ধ উৎস হচ্ছে আমলকী এবং এটি দেহের বিপাকক্রিয়ার হার বৃদ্ধি করে যা দেহে চর্বি জমা হতে বাধা দেয়।

গম পাতার রস
শুনে হয়তো অনেকের অবাক লাগতে পারে। কিন্তু এটি আমাদের দেহের জন্য খুবই উপকারী। দেহের দূষণ দূর করার সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে গম পাতার রস খাওয়া যা দেহের ওজন কমাতে ওষুধের মতো কাজ করে। এটি পটাসিয়ামে ভরপুর যা দেহের ক্যালরি বার্ন করতে সাহায্য করে এবং এতে আরো রয়েছে খাদ্যআঁশ যা পেট ভরা থাকার অনুভূতি দেয়।

তরমুজের জুস
তরমুজের জুস হচ্ছে ওজন কমানোর জন্য একটি আদর্শ পানীয় যা ইলেক্ট্রোলাইট, ভিটামিন এবং খনিজ পদার্থে পরিপূর্ণ। এটি আপনার ওজন কমানোর গতিকে ত্বরান্বিত করে কোন রকম ক্লান্ত ও দুর্বলতা বোধ ছাড়াই।

অ্যালোভেরা জুসযদিও এই পানীয়টির স্বাদ খুব একটা মুখরোচক নয় তবে এই পানীয়টি তাৎক্ষণিকভাবে দেহের বিপাকক্রিয়াকে উন্নত করতে সাহায্য করে। এই অ্যালোভেরার জুস নিয়মিত পান করলে শুধু যে ওজন কমাতে সাহায্য করবে তাই নয়, এটি আপনার চুল এবং ত্বককেও স্বাস্থ্যবান করবে।

এই পানীয়গুলো যারা ওজন কমাতে চান শুধু তারাই নন বরং সবার দেহের সুস্থতার জন্যও সাহায্য করে। তাই আর দেরি না করে আজ থেকেই পান করা শুরু করুন এসব পানীয়ের যেকোনো একটি বা একাধিকটি এবং ওজন কমানোর গতিকে করুন ত্বরান্বিত।

ইফতারিতে নুডলস রোল

ইফতারিতে নুডলস রোল

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: পবিত্র রমজান মাস চলছে। দেখতে দেখতে রোজা প্রায় শেষের দিকেই শেষ আসছে।

গ্রীষ্মকালের তীব্র গরমে এই রোজা মানুষ একটি বেশিই ক্লান্ত হচ্ছে। তাই সারাদিনের রোজা ইফতারিতে পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ জরুরি। ইফতারিতে নুডলস রোল পুষ্টিকর একটি খাবার হতে পারে যদি সেটা বাসা বাড়িতে নিজের হাতে তৈরি করতে পারেন।

পুর তৈরির প্রয়োজনীয় উপকরণ :
১. মুরগির মাংস দিয়ে কিমা ১/২ কাপ,
২. আদা বাটা ১ চা চামচ,
৩. রসুন বাটা ১ চা চামুচ,
৪. আলু কুচি ১/২ কাপ,
৫. নুডলস ১/২ কাপ,
৬. পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ,
৭. মরিচ কুচি ১ টেবিল চামচ,
৮. গাজর কুচি,
৯. বরবটি কুচি,
১০. টেস্টিং সল্ট ১/২ চা চামচ,
১১. লবণ পরিমাণ মতো,
১২. তেল ভাজার জন্য,
১৩. সয়াসস ১ টেবিল চামচ এবং
১৪. ধনে পাতা কুচি ১ চা চামচ।

রোলের শিট তৈরির প্রয়োজনীয় উপকরণ:
১. দেড় কাপ ময়দা,
২. পরিমাণ মতো পানি,
৩. লবণ এক চিমটি এবং পরিমাণ মতো তেল।

প্রস্তুতপ্রণালীঃ
১. হাড়িতে পানি দিয়ে নুডুলস, গাজর, বরবটি ও আলু কুচি সেদ্ধ করে নিন।
২. প্যানে তেল গরম করে পেঁয়াজ ও বাটা মশলা দিয়ে মুরগির মাংস ভেজে নিন।
৩. মাংস ভাজা হয়ে আসলে নুডলস, লবণ, সয়াসস, টেস্টিং সল্ট, কাঁচা মরিচ দিয়ে নেড়ে চেড়ে নামিয়ে রাখুন। চুলা থেকে নামিয়ে ধনে পাতা কুচি ছিটিয়ে দিন।

৪. অন্যদিকে ময়দার সঙ্গে লবণ, পানি ও তেল মেখে খামির তৈরি করুন। এবার পাতলা করে ছোট ছোট রুটি বেলে তাওয়ায় হালকা সেকে নিন। এরপর রুটির ভেতরে একপাশে পুর রেখে দুই দিকের মুখ বন্ধ করে পেচিয়ে নিন।

৫. তারপর ডুবো তেলে মচমচে করে ভেজে নিন রোলগুলো। এরপর ইফতারিতে পরিবেশন করুন মজাদার নুডলস রোল।

৬. সঙ্গে টক কিছু থাকলে অনেক মজাদার হয়ে উঠবে এটি। মেহমানদের জন্যও আকর্ষণীয় একটি খাবার হতে পারে নুডলস রোল।

খবরটা শুনে আকাশ থেকে পড়লাম: শাহরিয়ার

খবরটা শুনে আকাশ থেকে পড়লাম: শাহরিয়ার

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: অক্টোবরে ইংল্যান্ড-সিরিজ সামনে রেখে আজ ৩০ সদস্যের প্রাথমিক দল ঘোষণা করেছে বিসিবি। অধিকাংশই টেস্ট, ওয়ানডে কিংবা টি-টোয়েন্টিতে গত দুই বছরে বাংলাদেশ দলের নিয়মিত মুখ।

কেউ কেউ অবশ্য সেরা একাদশে সুযোগ না পেলেও ছিলেন প্রাথমিক স্কোয়াডে। এবার চমক শুধু দীর্ঘদিন পর শাহরিয়ার ও রকিবুল হাসানের দলে অন্তর্ভুক্তি। শাহরিয়ার নিজেও ভাবতে পারেননি প্রাথমিক দলে সুযোগ পাবেন।

শাহরিয়ার জানান, 'খবরটা শুনে তো আকাশ থেকে পড়লাম'! আমি ভেবেছিলাম, প্রিমিয়ার লিগের টাকাপয়সা পেয়েছি কি না, জানতে ফোন দিয়েছে।

২০১৩ সালের এপ্রিলে জিম্বাবুয়ে সফরে একটি টেস্ট খেলেছিলেন শাহরিয়ার নাফীস। দুই ইনিংসে করেছিলেন ৪০ রান। এরপর একাদশ তো বটেই প্রাথমিক দলেও সুযোগ হয়নি তার। অবশেষে তিন বছর পর ডাক পেলেন এ বাঁহাতি ওপেনার।

গত এক বছরে ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো করে প্রাথমিক দলে জায়গা পেয়েছেন শাহরিয়ার। এবার ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে ব্রাদার্সের হয়ে ১০ ম্যাচে ১ সেঞ্চুরি ও ১ ফিফটিতে ৩৮.৮৮ গড়ে করেছেন ৩৫০ রান। দল সুপার লিগ না যাওয়ায় পরিসংখ্যানটা খুব একটা উজ্জ্বল হয়নি। তবে দুর্দান্ত খেলেছেন সর্বশেষ জাতীয় লিগে।

৬ ম্যাচে ২ সেঞ্চুরি ও ৪ ফিফটিতে ৭৯.৪৪ গড়ে করেছেন ৭১৫ রান, যেটি ২০১৫-১৬ মৌসুমে সর্বোচ্চ। একই মৌসুমে বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগেও (বিসিএল) তার পারফরম্যান্স মন্দ নয়। ৬ ম্যাচে ১ সেঞ্চুরি ও ৩ ফিফটিতে ৪৪.৬৬ গড়ে রান ৪০২।

শাহরিয়ারের চেয়ে বড় চমক প্রাথমিক দলে রকিবুলের সুযোগ পাওয়াটা। সর্বশেষ কবে ছিলেন বাংলাদেশ দলে, মনে করতে পারলেন না তিনি নিজেও। ২০১১ সালের নভেম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে খেলেছেন সর্বশেষ সিরিজ। তবে দীর্ঘদিন পর প্রাথমিক দলে ডাক পাওয়ায় মোটেও বিস্মিত নন রকিবুল, 'এ মুহূর্তে মনে করতে পারছি না সর্বশেষ কবে দলে ছিলাম'! তবে ডাক পেয়ে খুব একটা অবাক হইনি। এবার আশা তো ছিলই।

রকিবুলের এই আত্মবিশ্বাসের মূল রসদ প্রিমিয়ার লিগে তার দুর্দান্ত পারফরম্যান্স। এবার ব্যাটসম্যানদের মধ্যে এতটাই প্রতিদ্বন্দ্বিতা ছিল, লিগের শেষ দিনে নির্ধারিত হয়েছে কে হবেন সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক! এই প্রতিযোগিতায় বিজয়ের হাসি হেসেছেন রকিবুলই।

১৬ ম্যাচে ১ সেঞ্চুরি ও ৫ ফিফটিতে ৬৫.৩৬ গড়ে ৭১৯ রান করে আছেন সবার ওপরে। শুধু একদিনের ক্রিকেটই নয়, বড় দৈর্ঘ্যের ক্রিকেটও ধারাবাহিক ভালো খেলেছেন রকিবুল। ২০১৫-১৬ মৌসুমে বিসিএলে ৪ ম্যাচে ২ সেঞ্চুরি ও ২ ফিফটিতে ৭৪.৪২ গড়ে ৫২১ রান করে ছিলেন দুইয়ে। জাতীয় লিগে ৬ ম্যাচে ৩ ফিফটিতে ৪৫.২৫ গড়ে করেছেন ৩৬২ রান।

তবে এবার মূল একাদশে তাদের রাখা হয় কিনা সে ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া না গেলেও শাহরিয়ার-রকিবুল যে বাতিলের খাতায় পড়ে যাননি, প্রাথমিক দলে তাদের অন্তর্ভুক্তি সেটিই বলে।

বাংলাদেশ থেকে মায়ের কোলে ফিরে গেল দিল্লির সনু

বাংলাদেশ থেকে মায়ের কোলে ফিরে গেল দিল্লির সনু

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: অবশেষে আজ বৃহস্পতিবার ভারতে মায়ের কোলে ফিরল দিল্লির শিশু সনু। বিমানবন্দরে সনুকে নিতে যান তার বাবা-মা। পরে তারা দেখা করে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে। এ সময় শিশুটিকে আদর করেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

দিল্লি থেকে পাচার করে সনুকে বাংলাদেশের বরগুনার বেতাগীতে আনা হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত শিশুটি যে দেশে ফিরছে, গতকাল বুধবার সনুর মা মুমতাজকে সেই খবরটি দেন খোদ সুষমা স্বরাজ।

২০১০ সালে সনুকে ভারতের নয়াদিল্লি থেকে পাচার করে বরগুনার বেতাগী উপজেলার গেরামর্দন গ্রামের হাসি বেগমের হাতে তুলে দেয় পাচারকারীরা। সনুর ওপর হাসি বেগম অত্যাচার চালাতেন। এর প্রতিবাদ করেন গ্রামের বাসিন্দা ঢাকার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা জামাল ইবনে মুসা।

জামাল সনুকে তার মা-বাবার কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার উদ্যোগ নিলে ক্ষিপ্ত হয়ে তার বিরুদ্ধে চারটি মামলা করেন হাসি বেগম। এসব মামলায় জামাল দুই দফায় ১ মাস ১৯ দিন কারাভোগ করেন। তার চাকরিও চলে যায়। নির্যাতনের শিকার সনু একপর্যায়ে হাসি বেগমের বাড়ি থেকে পালায়। পরে জামাল তাকে খুঁজে বের করে আদালতে তুলে দেন। আদালত সনুকে কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠান। নিজ খরচে জামাল গত ১৪ মে দিল্লিতে গিয়ে সনুর বাবা-মায়ের সন্ধান পান। এরপর তিনি ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে দেখা করে বিস্তারিত জানান। এরপর ভারত ও বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে সনুকে দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়। এর মধ্যে ভারতীয় হাইকমিশনের উদ্যোগে পরীক্ষা করা হলে সনুর সঙ্গে তার বাবা-মায়ের ডিএনএ মিলে যায়। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে আদালত থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে সনুকে গ্রহণ করেন রমাকান্ত গুপ্ত।

গত ৩০ মে এ নিয়ে গণমাধ্যমে ‘বাংলাদেশের বজরঙ্গি ভাইজান’ শিরোনামে খবর ছাপা হয়। পাকিস্তানি একটি শিশুকে ভারতীয় এক যুবকের অনেক দুর্ভোগ সহ্য করে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার গল্প নিয়ে বলিউডের সাম্প্রতিক চলচ্চিত্র বজরঙ্গি ভাইজান বেশ জনপ্রিয়তা পায়। সনুকে নিয়ে জামালের গল্পও সিনেমার সেই গল্পকেও হার মানিয়েছে!

দুপুরে দায়িত্ব পাওয়া অগ্রণী ব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত এমডি গ্রেপ্তার

দুপুরে দায়িত্ব পাওয়া অগ্রণী ব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত এমডি গ্রেপ্তার

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: দা​য়িত্ব নেওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই গ্রেপ্তার হলেন অগ্রণী ব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মিজানুর রহমান। বৃহস্পতিবার বিকেলে তাকে গ্রেপ্তার করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

এর আগে আজ সকালে অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সৈয়দ আবদুল হামিদকে অপসারণ করা হয়। ক্ষমতার অপব্যবহার করে ৭৯২ কোটি টাকা ঋণ বিতরণ করার অভিযোগে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে আবদুল হামিদকে অপসারণের নির্দেশ দেওয়া হয়।

এরপর দুপুরের দিকে ব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত এমডির দায়িত্ব পান মিজানুর রহমান।

সূত্র জানায়, আজ দুদকের উপকমিশনার বেনজির আহমেদ গ্রেপ্তার করেন মিজানুর রহমানকে।

ক্যাপ্টেনই বস, আমি পিছনে থাকব

ক্যাপ্টেনই বস, আমি পিছনে থাকব
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: তিনি অন্য রকম কোচ হতে চান। একেবারে অন্য রকম। যিনি তাঁর দলের বোলারদের বলবেন, নিজেই নিজের ক্যাপ্টেন হয়ে ওঠো। সবসময় আত্মবিশ্বাসে টগবগ করো।

আর তিনি নিজে যেহেতু স্পিন বিশেষজ্ঞ, তাই নেটে দলের পেস বোলারদের কয়েকদিন দেখে, তাঁদের সঙ্গে কথা বলে বোর্ডকে একজন পেস বোলার কোচ দেওয়ার প্রস্তাবও দিতে পারেন।

বেঙ্গালুরুতে প্রস্তুতি শিবিরের প্রথম দিনই ভারতীয় ক্রিকেটাররা নেটে নামতে না পারলেও নতুন কোচ কিন্তু প্রথম দিনই বুঝিয়ে দিলেন তিনি ফ্রন্টফুটে খেলারই পক্ষপাতী। তিনিও যে বিরাট কোহালির মতো আগ্রাসী, ঠোঁটকাটা হয়ে উঠতে পারেন, তা এ দিন সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েই বুঝিয়ে দিলেন কুম্বলে।

সাফ জানিয়ে দিলেন, দায়িত্ব নেওয়ার পর তিনি প্রথম রবি শাস্ত্রীকেই ফোন করেছিলেন, কেমন করে এত দিন সাফল্যের সঙ্গে ভারতীয় দল চালালেন, তার রহস্য জানার জন্য।

সামনেই ওয়েস্ট ইন্ডিজে টেস্ট সিরিজ। তাই বুধবার বেঙ্গালুরুতে ছ’দিনের প্রস্তুতি শিবির শুরু হল ভারতীয় দলের। কিন্তু প্রথম দিনই বাধ সাধল বৃষ্টি। ঠিক ছিল, দু’বেলাই মাঠে নামবেন, নেট করবেন কোহালিরা। কিন্তু সারা দিনের বৃষ্টিতে সে সব কিছুই হল না। স্থানীয় আবহাওয়া দফতর জানিয়ে দিয়েছে, শুক্রবারের আগে মেঘ-বৃষ্টি থেকে রেহাই পাওয়ার সম্ভাবনা কম। অর্থাৎ শুক্রবারও কুম্বলে দল নিয়ে মাঠে বা নেটে নামতে পারবেন কি না, সন্দেহ রয়েছে।

তবে তাঁর পরিকল্পনা কী, তা নিয়ে কোনও সন্দেহ রাখলেন না কুম্বলে। বলে দিলেন, আমার কাজ দলটাকে প্রস্তুত করা ও শেপে রাখা। আমরা, সাপোর্ট স্টাফ নেপথ্যে কাজ করব। সামনে থাকবে ক্রিকেটাররা। আমি একসময় ক্রিকেটার ছিলাম, এখন কোচ। তাই দু’জনেরই ভূমিকা কী, তা আমার কাছে স্পষ্ট। মাঠে ক্যাপ্টেনই সিদ্ধান্ত নেবে। স্ট্র্যাটেজি তৈরির জন্য যা যা তথ্য প্রয়োজন, সেগুলো আমি বড়জোর তাকে দিতে পারি। এর বেশি কিছু নয়।

দলের বোলারদের আরও আত্মবিশ্বাসী হয়ে ওঠার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, যখন খেলতাম, তখন মনে করতাম, আমিই আমার বোলিংয়ের ক্যাপ্টেন। এই দলের বোলারদের মধ্যেও এই ব্যাপারটাই আনার চেষ্টা করব। আমি নিজে একজন বোলার বলে ওদের আরও কাছে গিয়ে ওদের সমস্যাগুলো বোঝার চেষ্টা করব। ওরা কী চায়, তা বোঝার চেষ্টা করব। তারপর হয়তো বোর্ডকে একজন ফাস্ট বোলার কোচ দেওয়ার কথাও বলব।

শুধু যাঁরা মাঠে নেমে খেলছেন, তাঁরা নয়, দলের বাইরেও যাঁরা থাকবেন, তাঁদের পাশে থাকাটাও যে তাঁর কাজ, তাও স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন কুম্বলে। বলেন, একটা সফরে আমাকে দল থেকে বাদ দেওয়া হয়েছিল। তাই বুঝি, দলের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটার হয়েও বাদ পড়লে কেমন লাগে। এ রকম সময়ে ছেলেদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। ফোন তুলে ওদের, ‘ডোন্ট ওয়ারি’ বলাটা খুব জরুরি। আশা করি, ছেলেদের সঙ্গে এই যোগাযোগ রাখার কাজটা আমি ভালই পারব।

রবি শাস্ত্রীর বদলে তাঁকে কোচ করে নিয়ে আসা নিয়ে হঠাৎ একটা বিতর্ক দেখা দিয়েছে। কুম্বলে পুরো বিষয়টাকেই অন্য দিকে ঘুরিয়ে দিয়ে বলেন, দায়িত্ব পাওয়ার পর প্রথম ফোনটা আমি রবিকেই করি। এত দিন ধরে দলটা ও দুর্দান্ত চালিয়েছে কি না। রবি, আমি বা অন্য কে দায়িত্বে আছে, সেটা কোনও ব্যাপার নয়। দল ও দলের ক্রিকেটাররাই আসল কথা। সব ফর্ম্যাটে ভারতীয় দল ভাল করুক, এটাই বড় কথা। রবি আগে এই জার্নির একটা অংশ ছিল, এখন আমি। কাল হয়তো অন্য কেউ আসবে। সেটা বড় কথা নয়। দল ও ক্রিকেটাররাই আসল ব্যাপার।

কয়েক দিন পরেই চার টেস্টের সিরিজ খেলতে দল নিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজে যাচ্ছেন কুম্বলে। যেখানে ১৫টি আন্তর্জাতিক ম্যাচে ৪৯ উইকেট রয়েছে তাঁর। তিনবার ইনিংসে পাঁচ উইকেটও নিয়েছেন সেখানে। কোচ হওয়ার পর প্রথম সিরিজ নিয়ে ভারতীয় ক্রিকেটের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি বলছেন, ‘‘শেষবার ওয়েস্ট ইন্ডিজে গিয়ে আমরা ৩-০ জিতেছিলাম। সেই আত্মবিশ্বাসটা নিয়েই এ বার ওখানে যাচ্ছি আমরা। এ বারও আমরা ওখানে সিরিজ জয়ের আশা ও সম্ভাবনা নিয়েই যাচ্ছি। গত বার ইশান্ত শর্মা সিরিজ সেরা হয়েছিল। বিরাট, মুরলী বিজয়, অমিত মিশ্ররা ভাল করেছিল। তাই এ বারের দলের ওখানে খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে। আমারও রয়েছে। সেটাও কাজে লাগবে হয়তো। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ছোট ফর্ম্যাটে কঠিন প্রতিপক্ষ। আর ওখানকার কন্ডিশন অনেকটা ভারতের মতোই। তাই দলের ছেলেরাও এই চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করতে মুখিয়ে রয়েছে। ছেলেদের একটা কথা বলে দিয়েছি, হারি-জিতি, লড়াকু মানসিকতাটা থাকা দরকার।’’

আগামী এক বছর তাঁকে বেশিরভাগ সময়ই কাটাতে হবে বিরাট কোহালির সঙ্গে। তার পরে মহেন্দ্র সিংহ ধোনির সঙ্গেও জুটি বাঁধতে হবে। দু’জনের সঙ্গেই এর মধ্যে কথা হয়ে গিয়েছে বলে জানালেন কুম্বলে। দু’জনের সঙ্গেই সম্পর্ক যথেষ্ট ভাল সম্পর্ক তাঁর, দাবি নতুন কোচের।

সুত্র- আনন্দবাজার

আফগানিস্তানে পুলিশের বাসে আত্মঘাতী হামলা, নিহত ৪০

আফগানিস্তানে পুলিশের বাসে আত্মঘাতী হামলা, নিহত ৪০

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের কাছে পুলিশের সদ্য উত্তীর্ণ ক্যাডেটদের একটি কনভয়ে আত্মঘাতী হামলা হয়েছে। এখন পর্যন্ত ৪০ জন মারা যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

নিহতদের অধিকাংশই নতুন পুলিশ সদস্য। প্রশিক্ষণ শেষে গ্রাজুয়েশন অনুষ্ঠান থেকে ফেরার পথে পর পর দুটো হামলা হয়। খবর বিবিসির।

স্থানীয় গভর্নর হাজি মোহাম্মদ মুসা খান জানিয়েছেন, হামলায় বহু লোক জখম হয়েছে। তালেবান হামলার দায় স্বীকার করেছে।

আফগান পুলিশ এবং সৈন্যরা তালেবানের অন্যতম প্রধান টার্গেট। সপ্তাহখানেক আগে কাবুলে একটি বাসে একই ধরণের এক হামলায় ১৪ জন নিহত হয়েছিল।

রোজা মানুষ মানুষকে ফাঁকি দেয়াও ভুলিয়ে দেয়


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: রোজা হচ্ছে ‘তাকওয়া’ অর্জনের সর্বোত্তম ট্রেনিংকোর্স। একজন মানুষ যতবড় পাপিষ্ঠ কিংবা যেমনই হোক না কেন রোজা রাখার পর তার অবস্থা এমন হয় যে, প্রচণ্ড গরমের দিনে পিপাসায় কাতর সে, একাকী কক্ষে, অন্য কেউ সাথে নেই, দরজা-জানালা বন্ধ, কক্ষে রয়েছে ফ্রিজ, ফ্রিজে রয়েছে শীতল পানি-এমনি মুহূর্তে তার তীব্র চাহিদা হচ্ছে, এ প্রচণ্ড গরমে এক ঢোক ঠাণ্ডা পানি পান করার। তবুও কি এ রোজাদার লোকটি ফ্রিজ থেকে শীতল পানি বের করে পান করে নিবে? না, কখনোই না। অথচ লোকটি যদি পান করে, জগতের কেউই জানবে না। তাকে কেউ অভিশাপ কিংবা গালমন্দও করবে না। জগতবাসীর কাছে সে রোজাদার হিসেবেই গণ্য হবে। সন্ধ্যায় বের হয়ে সে লোকজনের সাথে ইফতারও করতে পারবে। কেউই জানবে না তার রোজা ভঙ্গের কথা। কিন্তু সে পান করবে না। কারণ, সে ভাবে যে, অন্য কেউ না দেখলেও আমার মালিক যার জন্য রোজা রেখেছি তিনি তো আমায় দেখছেন। তাছাড়া আর কোনো কারণ নেই। রোজার উদ্দেশ্য সম্পর্কে মহান আল্লাহ তায়ালা তাকওয়া অর্জন করতে বলেছেন। অর্থাৎ রোজার মাধ্যমে তিনি অন্তরের মাঝে তাকওয়া বা আল্লাহভীতির আলোক প্রজ্জ্বলিত করতে বলেছেন। আল্লাহ বলেন, ‘রোজা আমার জন্যই, সুতরাং আমিই এর প্রতিদান নিজ হাতেই দেবো।’ আল্লাহর সামনে দণ্ডায়মান হওয়ার এবং জবাবদিহিতার ভয়ের অনুভূতি হৃদয়ে জাগ্রত হওয়াকেই বলে ‘তাকওয়া’। এজন্যই শাহ আশরাফ আলী থানভী (রহ.) বলেছেন, ‘রোজা দ্বারা শুধুমাত্র পশুসুলভ চরিত্রের মৃত্যু ঘটবে এমন নয়, বরং বিশুদ্ধ রোজা মানেই তাকওয়ার উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন সিঁড়ি।’ ইমাম গাযযালী (রহঃ) তার স্বভাবসুলভ দার্শনিক দৃষ্টিভঙ্গিতে সিয়ামের উদ্দেশ্য সম্পর্কে আলোকপাত করতে গিয়ে লিখেছেন, ‘আখলাকে ইলাহী তথা আল্লাহর গুণে মানুষকে গুণান্বিত করে তোলাই হচ্ছে সিয়ামের উদ্দেশ্য। সিয়াম মানুষকে ফেরেশতাদের অনুকরণের মাধ্যমে যতদূর সম্ভব নিজেকে প্রবৃত্তির গোলামী থেকে মুক্ত হওয়ার শিক্ষা দেয়। কেননা ফিরিশতাগণ সকল চাহিদা থেকে সম্পূর্ণ মুক্ত এবং মানুষের মর্যাদাও হচ্ছে পশুর চেয়ে বহু ঊর্ধ্বে। জৈবিক চাহিদা মুকাবিলা করার জন্য তাকে দান করা হয়েছে বিবেক ও বুদ্ধির আলো। অবশ্য এক দিক দিয়ে তার স্থান ফেরেশতাদের নীচে। জৈবিক চাহিদা ও পাশবিক কামনা অনেক সময় তার উপর প্রাধান্য বিস্তার করতে সক্ষম হয় এবং তার ভেতরের এ পশুত্ব দমন করতে তাকে কঠোর সাধনা করতে হয়। তাই মানুষ যখন পাশবিক ইচ্ছার সুতীব্র স্রোতে গাঁ ভাসিয়ে দেয়, তখন সে নেমে আসে অধঃপতনের নিম্নতম স্থানে। অরণ্যের পশু আর লোকালয়ের মানুষে কোনো প্রভেদ থাকে না তখন। আর যখন সে তার পাশবিকতা দমন করতে সক্ষম হয়, তখন তার স্থান হয় নূরের ফেরেশতাদেরও ওপরে।’ (এহয়াউল উলুম, খণ্ড-১, পৃষ্টা ২১৬) রোজার আরেকটি মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে- আল্লাহ তা’আলার হুকুম পালন। এমনকি পুরো দ্বীনের মূল কথাই হচ্ছে আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের হুকুম পালন করা। যখন বলবেন, খাও তখন খাওয়াটাই ‘দ্বীন’। যখন বলবেন খেও না- তখন না খাওয়াটাই ‘দ্বীন’। আল্লাহ তা’আলার দাসত্ব স্বীকার আর আনুগত্যের এক বিস্ময়কর পদ্ধতি তিনি রোজার মাধ্যমে বান্দাকে দিয়েছেন। তিনি দিনব্যাপী রোজা রাখার হুকুম দিলেন, তার জন্য বহু সওয়াব বা প্রতিদান রাখলেন। অন্যদিকে সূর্যাস্তের সাথে সাথে তাঁর নির্দেশ- ‘তাড়াতাড়ি ইফতার করে নাও।’ ইফতারে তাড়াতাড়ি করাটা আবার মুস্তাহাব হিসেবে আখ্যায়িত করলেন। বিনাকারণে ইফতারে বিলম্ব করাকে মাকরুহ হিসেবে আখ্যায়িত করলেন। কেন মাকরুহ? যেহেতু সূর্যাস্তের সাথে সাথে আল্লাহ তা’আলার হুকুম হচ্ছে ইফতার করে নেয়ার। যেহেতু এখন যদি না খাওয়া হয়, যদি ক্ষুধার্ত থাকা হয়, তবে এ ক্ষুধার্ত অবস্থা আল্লাহর নিকট পছন্দনীয় নয়। কারণ, সকল কিছুর মৌলিক উদ্দেশ্য হলো আল্লাহর আনুগত্য-দাসত্ব প্রকাশ করা, নিজ আকাঙ্ক্ষা পূরণ করা নয়। আবার সেহরির সময় বিলম্ব করে খাওয়া উত্তম। তাড়াতাড়ি খাওয়া সুন্নত পরিপন্থি। অনেকে রাত ১২টার সময় সাহরি খেয়ে শুয়ে পড়ে, এটা সুন্নতের পরিপন্থি। সাহাবায়ে কেরামের এ অভ্যাস ছিল যে, তাঁরা সাহরি শেষ সময় পর্যন্ত খেতেন। কারণ, সাহরি শেষ সময়ে খাওয়া শুধুমাত্র অনুমতিই নয়; বরং হুকুমও। আল্লাহ তা’আলার আনুগত্য তো এরই মাঝে নিহিত। তাই হাকীমুল উম্মত হযরত আশরাফ আলী থানভী (রহ) বলেছেন, ‘যখনই আল্লাহ তা’আলা খাওয়ার নির্দেশ দেন, তখন বান্দা যদি বলে- খাবো না কিংবা বলে -আমি কম খাই, তাহলে এটা তো আনুগত্যের প্রকাশ হলো না। আরে ভাই! খাওয়ার আর না খাওয়ার মাঝে কিছু নেই। সকল কিছুই হচ্ছে তাঁর আনুগত্যের মাঝে। অতএব, যখন তিনি বলেন -খাও, তখন খাওয়াটাই ইবাদাত। তখন না খেয়ে নিজের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত আনুগত্য প্রকাশ করার প্রয়োজন নেই।’

সোমালিয়ায় বোমা হামলায় ১৮ জন নিহত

সোমালিয়ায় বোমা হামলায় ১৮ জন নিহত

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সোমালিয়ার রাজধানী লাফোলেতে বোমা হামলায় কমপক্ষে ১৮ জন নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার শহরের একটি মিনি-বাসে ও বোমা হামলার ঘটনায় ঘটে বলে পুলিশ জানান।

এ ঘটনায় এখনো কেউ দায় স্বীকার করেনি। তবে আল শাবাবের জঙ্গিরা দেশটির নিরপত্তা বাহিনীর উপর ঘন ঘন হামলা চালাচ্ছে।

দেশটির পুলিশ অফিসার জানান, মিনি-বাসে বোমা হামলায় অন্তত ১৮ জন মারা গেছে। রাস্তায় একটি শক্তিশালী রিমোট কন্ট্রোল বোমা আগে থেকেই রাখা ছিল।

ঈদে মারিয়া শিমুর গান


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ঈদ উল ফিতর উপলক্ষে এটিএন বাংলায় প্রচার হবে ৭ দিন ব্যাপী বিশেষ অনুষ্ঠানমালা। এই অনুষ্ঠানমালায় প্রচার হবে ছোটদের অনুষ্ঠান, ম্যাগাজিন, সঙ্গীতানুষ্ঠান, নৃত্যানুষ্ঠান, নাটক, খন্ড নাটক, ধারাবাহিক নাটক, টেলিফিল্ম এবং চলচ্চিত্র। এরই অংশ হিসেবে ঈদের তৃতীয় দিন প্রচার হবে শিল্পী মারিয়া শিমুর একক সঙ্গীতানুষ্ঠান ’আমি ভালবাসি’। এবারের ঈদে বাজারে আসছে মারিয়া শিমুর নতুন অ্যালবাম ‘আমি ভালবাসি’। অ্যালবামের গানের কথা লিখেছেন মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন। সুর ও সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন মান্নান মোহাম্মদ। এ অ্যালবামের গানগুলো নিয়েই সাজানো হয়েছে বিশেষ এই সঙ্গীতানুষ্ঠান। অনুষ্ঠানের গানগুলো চিত্রায়িত হয়েছে এটিএন বাংলা স্টুডিও সহ দেশে এবং দেশের বাইরের সব মনোরম লোকেশনে। অনুষ্ঠানে গান পরিবেশনের পাশাপাশি বাফা’র শিল্পীদের সঙ্গে নিয়ে শিল্পী নিজেই নেচেছেন গানের তালে। অনুষ্ঠানের গানগুলো হলো- আমি নীল আকাশে মেঘ হয়ে উড়ে বেড়াবো, একবার বলি বার বলি, চুপি চুপি এসে তুমি, লায়লা লায়লা লায়লা, আমি ভালোবাসি ভালোবাসি, এ বুকে নাম লিখা যে তোরি, ও জীবন জীবন রে, কি যাদু আছে বল তোমারও নয়নে, একটা চিঠি লিখে দিলাম বন্ধু তোমার নামে এবং ধ্রুব তারা জ্বলে আকাশের কোলে। অনুষ্ঠানটি প্রচার হবে ঈদের তৃতীয় দিন, রাত ১০টা ৪৫মিনিটে।

দুই হাজার নিবন্ধিত সিমসহ ময়মনসিংহে আটক ৩

দুই হাজার নিবন্ধিত সিমসহ ময়মনসিংহে আটক ৩

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি: ময়মনসিংহে অবৈধভাবে বায়োমেট্রিক করা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রায় ২ হাজার ২০০ মোবাইল ফোনের সিম, অবৈধ ভিওআইপি, বায়োমেট্রিক যন্ত্রসহ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ।

বুধবার রাতে শহরের সানকিপাড়ায় নয়ন মণি মার্কেট এলাকার ওই বাসায় অভিযান চালানো হয় বলে কোতোয়ালি থানার ওসি কামরুল ইসলাম জানান।

আটক তিনজন হলেন জহিরুল ইসলাম (২০), হুমায়ুন (২৫) ও রুহুল আমিন (২০)। তারা সবাই অবৈধ ভিওআইপির সঙ্গে জড়িত বলে পুলিশের ভাষ্য।

ওসি বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ রাত ১১টার দিকে সানকিপাড়া এলাকার একটি ছয়তলা ভবনের পাঁচতলার ফ্ল্যাটে অভিযান চালায়। জহিরুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি ওই বাসা ভাড়া নিয়েছিলেন।

“সেখানে সহস্রাধিক সিমকার্ড পাওয়া যায়, যেগুলো জালিয়াতির মাধ্যমে নিবন্ধিত। এছাড়া বিভিন্ন ধরনের ভিওআইপি সরঞ্জাম ও জাতীয় পরিচয়পত্রও পাওয়া গেছে। আটক তিনজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

বেসরকারি মোবাইল অপারেটর এয়ারটেলের তিন কর্মকর্তাকে সিম জালিয়াতির অভিযোগে গ্রেপ্তার করার এক দিন পর ময়মনসিংহে এই চক্রের সন্ধান পেল পুলিশ।

ঢাকার পুলিশ বলছে, এয়ারটেলের তিন কর্মকর্তাসহ মোট ২২ জনকে তারা মঙ্গলবার আটক করেছেন, যারা নিবন্ধন জালিয়াতিতে জাড়িত।

বিটিআরসির পরিচালক সুফি মো. মঈন উদ্দিন জানান, এই চক্রটি নিবন্ধনের সময় নানা অজুহাতে একাধিকবার গ্রাহকের আঙুলের ছাপ নিয়ে তার অজান্তেই অন্য সিমও তার নামে নিবন্ধন করে আসছিল। পরে সেই সিম তারা অপরাধীদের কাছে বিক্রি করত বেশি দামে।

‘ঈদের বাজনা বাজেরে’


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: প্রতি বছরের ন্যায় এবারও পবিত্র ঈদুল ফিতর এর অনুষ্ঠানমালায় চাঁদ রাত ১০টা ৪০ মিনিটে এটিএন বাংলায় প্রচার হবে বিশেষ ঈদ ম্যগাজিন ‘ঈদের বাজনা বাজেরে’। খন্দকার ইসমাইল এর উপস্থাপনা ও পরিচালনায় আলো ঝলমলে সেটে জমকালো পরিবেশনা আর ব্যতিক্রমী সব আয়োজন নিয়ে সাজানো হয়েছে এবারের ঈদ অনুষ্ঠান । জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের কালজয়ী সৃষ্টি 'ও মন রমজানের ওই রোজার শেষে, এল খুশীর ঈদ'। ঈদের এই গানটিতে অংশ নিয়েছেন সুদূর কানাডা প্রবাসী ভাই বোন বন্ধুরা। অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন বাংলাদেশের সঙ্গীত জগতের সবচেয়ে জনপ্রিয় ও সম্মানিত ব্যক্তিত্বদের একজন। যিনি গীতিকার, সুরকার, সঙ্গীত শিল্পী, সঙ্গীত পরিচালক। প্রিয় শিল্পী চিরসবুজ কুমার বিশ্বজিৎ। আরও সঙ্গীত পরিবেশন করেন আরফিন রুমি ও ঐশি । এই প্রজন্মের কয়েকজন সম্ভাবনাময় সঙ্গীতশিল্পী রেশমি , নওশীন , নিপা , রিফাত অংশগ্রহণ করেন সঙ্গীত বিষয়ক কুইজ-এ । বিদেশী প্রতিবেদনে থাকছে কানাডার মেডিভ্যাল টাইমস-এর উপর প্রতিবেদন। মধ্য যুগের যুদ্ধ, রণকৌশল সব কিছুই এখানে হুবহু তুলে ধরা হয়েছে। ঈদ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ের মধ্যে রয়েছে ঈদে ভোগান্তি হাস্যরসাত্মক স্কিড এর মাধ্যমে উপস্থাপন করা হয়েছে । এসব স্কিড এ অভিনয় করেন আশরাফ কবির , লিটন , উত্তম , সহ আরও অনেকেই ।

কিভাবে বুঝবেন সে আপনার প্রেমে পড়েছে!

কিভাবে বুঝবেন সে আপনার প্রেমে পড়েছে!

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সে কি আপনাকে ভালোবাসে নাকি ভালোবাসে না- এটা যেন বুঝতেই পারছেন না। অনেক সময় কাছের মানুষ বা ভালোবাসা হয়তো আশপাশেই থাকে, কিন্তু বোঝ যায় না। মনের মানুষটি লাজুক প্রকৃতির হলে তিনি আপনার ওপর ক্রাশ খেয়েছেন কি না, সেটা বোঝা আরো দুষ্কর। তবে চোখ সেই সমাধান করে দিতে পারে, হিউম্যান কমিউনিকেশন রিসার্চ জার্নালে তেমনটি বলা হয়েছে।

তার একটি বিশেষ প্রতিবেদনে আছে, কোনো মানুষের চোখের ভাষা দিয়ে বোঝা যায়, তিনি আপনার প্রেমে পড়েছেন কি না। ভালোভাবে লক্ষ করলে দেখা যাবে, যার ওপর ক্রাশ খেয়েছেন, অপলক তার দিকে তাকিয়ে থাকা যায়। চোখের তারায় ভালোবাসা খেলে যায়। সেই ভালোবাসা বুঝতে পারার ক্ষমতা অবশ্য থাকতে হবে। নিছক ক্রাশ বা নিখাঁদ প্রেমে পড়লে ব্যক্তির মধ্যে বেশ কিছু পরিবর্তন আসে। যেভাবে বুঝবেন সে আপনাকে ভালোবাসে।

সারাক্ষণই আশপাশে:
ভালোবাসার মানুষের পাশে অকারণে থাকতে ভালো লাগে। একটু কাছাকাছি, পাশাপাশি, হালকা ছোঁয়া—ব্যাস এটুকুই আরকিচ্ছু না। আপনার চারপাশে যে বন্ধুটি সব সময় এমন ভালোবাসা নিয়ে আগলে রাখছে, নানা ছলে আপনার পাশে বসার, কাছে আসার চেষ্টা করছে। সন্দেহ নেই, তিনি আপনার প্রেমে পড়েছেন। ষষ্ঠেন্দ্রিয়ও সংকেত দেবে। বুঝতে পারবেন আপনার প্রতি তাঁর ভালোবাসা।

হাসি দেখে:
যে কথায়, যে কাজে হাসির কিছু নেই, প্রেমে পড়লে মন এমন ফুরফুরে থাকে যে সব সময় মুখে হাসি থাকে। আশপাশে কেউ নেই, অন্য কেউ খেয়াল করলে বুঝতে পারবে, আপনি আনমনে হাসছেন। হয়তো তখন মনের মধ্যে খেলছিল প্রিয়জনের মুখটি। অনেকে বলে, প্রেমে পড়লে বোকার মতো হাসি আসে। সেই ‘বোকা’ হাসি দেখেও বোঝা যায়, প্রেমে পড়েছেন তিনি।

চলছে খুদে বার্তা, চ্যাটিং:
প্রেমে পড়লে দিনের একটা বড় সময় আপনার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করবে। ভালো বন্ধুদের মধ্যেও এমন হয়। তবে অহেতুক, অকারণ, ছোট ছোট কিছু কথা তিনি চালিয়ে যাবেন। জানতে চাইবেন আপনার খোঁজখবর। আপনি যদি কোনো খুদে বার্তা পাঠান, দ্রুত মিলবে তার উত্তর। যেন আপনার প্রশ্নের জন্যই তিনি প্রস্তুত ছিলেন।

অফুরন্ত প্রশংসা:
প্রেমে পড়ার শুরুর দিনগুলোতে আপনি সারাক্ষণ তার মুখে আপনার প্রশংসা শুনবেন। মুগ্ধতা এমন তুঙ্গে থাকে, যা দেখে তা-ই ভালো লাগে।

ব্যক্তিগত কথা, অনুভূতি জানানো:
কথা বলার নানা ফাঁকে বিশেষ ব্যক্তি জানিয়ে দিতে পারে তার মনের গোপন কথা। কোনো গল্প, সিনেমার আদলেও বলতে পারে। শুধু ভালোবাসার মানুষকে বলতে ইচ্ছে করে—সেসব অনুভূতি, ব্যক্তিগত জীবনের কথা, পরিবারের কথা চলে আসে তখন। এর ফাঁকে জানতে চাইবে, আপনার কোনো পছন্দের মানুষ আছে কি না। বিয়ে, ভবিষ্যৎ নিয়ে পরিকল্পনা কী ইত্যাদি।

অন্যকে দেখে ঈর্ষা:
আপনার সঙ্গে অন্য কাউকে দেখলে কিছুটা ঈর্ষা কাজ করবে তার মধ্যে। ঈর্ষা না থাকলে কিসের আবার ভালোবাসা?

মুগ্ধ করার চেষ্টা:
যেভাবেই হোক আপনাকে মুগ্ধ করার চেষ্টা করবেন। এমন কিছু হয়তো করবে, যাতে আপনি চমকে যাবেন। আপনার সব বিষয়ে সাহায্য করবে। অনেক খেয়াল রাখবে।

এবার মিলিয়ে নিন। এত দিন ভাবছিলেন, ‘তিনি’ নিশ্চয় আমার প্রেমে পড়েছেন। সাড়া দেবেন কি না, সেটা আপনার হাতেই থাকল।

'নিখোঁজরা যেখানে আছেন আল্লাহ যেন ভালো রাখেন'

'নিখোঁজরা যেখানে আছেন আল্লাহ যেন ভালো রাখেন'

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ভবিষ্যতে দেশে গণতন্ত্র ফিরে এলে আমরা অবশ্যই গুম হওয়া নেতাকর্মীদের খোঁজ করবো বলে জানিয়েছেন বেগম খালেদা জিয়া।

গতকাল বুধবার রাজধানীর গুলশানে হোটেল লংবীচে এক ইফতার মাহফিলে এসব কথা বলেন তিনি।

বিএনপির বিগত আন্দোলনে গুম-খুনের শিকার দলের নেতাকর্মীদের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ওই ইফতার মাহফিলের আয়োজন করা হয়। পরে ওইসব পারিবারের সদস্যদের হাতে ঈদ উপহার ও আর্থিক সহয়তা তুলে দেন বিএনপি চেয়ারপারসন।

অনুষ্ঠানে অংশ নেন বিএনপির নিখোঁজ নেতা ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহমিনা রুশদী লুনাসহ অন্যরা। অনুষ্ঠানে ৪০টি পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

খালেদা জিয়া বলেন, 'জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল, যুবদল, বিএনপির যারা গত কয়েক বছর ধরে নিখোঁজ রয়েছে, তারা কিভাবে আছেন, কেমন আছেন তা আমরা কিছুই জানি না।'

নিখোঁজদের পরিবারের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, 'আপনারা যে আশা করছেন, স্বজনরা একদিন ফিরে আসবে, আমরাও সেই আশায় আছি। তারা ফিরে এসে আপনাদের যেমন আদর করবে  ঠিক তেমনিভাবে আমাদের দলে ফিরে নেতা-কর্মীদের সঙ্গে মিলে আমাদের আপন হয়ে থাকবে। নিখোঁজ নেতা-কর্মীরা যেখানেই আছে আল্লাহ যেন তাদের ভালো রাখেন।'

তিনি আরো বলেন, 'আমাদের প্রত্যেকের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে নানা হয়রানী-নির্যাতন চালানো হচ্ছে। এই সরকারের প্রধান উদ্দেশ্যে হলো বিএনপিকে ধ্বংস করা।'

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, দলের সিনিয়র নেতা চৌধুরী কামাল ইবনে  ইউসুফ, সেলিমা রহমান, অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, ডা. জাহিদ হোসেন, অ্যাডভোকেট আহমেদ আজম খান, আবদুল আউয়াল মিন্টু, যুগ্ম মহাসচিব, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির  খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক শরিফুল আলম, শহিদুল ইসলাম বাবুল, দলের নেতা সানাউল্লাহ মিয়া. শিরিন সুলতানা প্রমুখ।

মুম্বাইয়ে মেডিক্যাল স্টোরে অগ্নিকাণ্ড, ৫ শিশুসহ নিহত ৯

মুম্বাইয়ে মেডিক্যাল স্টোরে অগ্নিকাণ্ড, ৫ শিশুসহ নিহত ৯

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ভারতের মুম্বাইয়ের আন্ধেরি শহরের একটি মেডিক্যাল স্টোরে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় ৫ শিশুসহ ৯ জন নিহত হওয়ার খবর জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নেভানোর কাজ শুরু করেন। তবে তাৎক্ষণিক অগ্নিকাণ্ডের সঠিক কারণ জানা যায়নি।

এদিকে অমৃতসর রেলস্টেশনের একটি টিকিট কাউন্টারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। প্রাথমিকভাবে এতে হতাহত বা ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানা যায়নি।

কানাইঘাটে জয়ফৌদ গ্রামে বাড়ী ঘরে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ ॥ দুই মহিলা আহত

Kanaighat News on Monday, June 27, 2016 | 11:57 PM


নিজস্ব প্রতিবেদক: পূর্ব শত্রুতার জের ধরে কানাইঘাট দিঘীরপাড় পূর্ব ইউপির জয়ফৌদ (ঠাকুরেরমাটি) গ্রামে প্রতিপক্ষের হামলায় সোমবার রাত অনুমান ৯টায় এক পরিবারের দুই মহিলা আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। স্থানীয় এলাকাবাসীর কাছ থেকে জানা যায়, পূর্ব শত্রুতা ও জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে ইউপির দর্পনগর পশ্চিম গ্রামের মৃত আজাদুর রহমানের পুত্র ডাঃ কামাল উদ্দিনের নেতৃত্বে ১৫/২০ জন জয়ফৌদ (ঠাকুরেরমাটি) গ্রামের ডাঃ আব্দুর রহিমের বাড়ীতে গিয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা করে। হামলাকারীরা বাড়ীতে কোন পুরুষ সদস্যদের না পেয়ে বাড়ীর মহিলাদের মারধর ও বাড়ী ঘরে ইট পাটকেল নিক্ষেপ শুরু করলে তাদের আত্মচিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। হামলায় বাড়ীর মহিলা মরিয়ম বেগম (৪০) ও হাজিরা বেগম (৩০) আহত হন। তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। আহত মরিয়ম বেগম জানিয়েছেন, পূর্ব বিরোধের জের ধরে ডাঃ কামাল উদ্দিনের নেতৃত্বে হামলা করে বাড়ীর মালামাল লুটপাটের চেষ্টা তাদের বাড়ী ঘওে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ এবং তাদের শারীরিক ভাবে নির্যাতন শুরু করলে তাদের আত্মচিৎকারে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে কামাল গংরা পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় আহত মরিয়ম বেগম হামলাকারীদের বিরুদ্ধে কানাইঘাট থানায় মামলা দায়েরের প্রস্ততি নিচ্ছেন।

কানাইঘাটের প্রবীণ মুরব্বী হাজী জমশেদ আলীর ইন্তেকাল


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি বৃহত্তর জন্তিয়া ১৭ পরগনার প্রবীণ মুরব্বী কানাইঘাট পৌরসভাধীন দুর্লভপুর গ্রামের বাসিন্দা হাজী জমশেদ আলী আর নেই। সোমবার সকাল ৬টায় বার্ধক্য জনিত রোগে হাজী জমশেদ আলী নিজ বাড়ীতে ইন্তেকাল করেন(ইন্নানিল্লাহি--- রাজিউন)। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৯০ বছর। তিনি স্ত্রী, ৬ ছেলে ও ৫ মেয়ে সহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। মরহুমের জানাজার নামায সোমবার বিকেল ৪টায় দুর্লভপুর বড় মসজিদ প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশিক উদ্দিন চৌধুরী, পৌর মেয়র নিজাম উদ্দিন, কানাইঘাট সদর ইউপির নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মামুন রশিদ, বানীগ্রাম ইউপির নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মাসুদ আহমদ সহ বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, ১৭ পরগনার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সহ সর্বস্তরের মানুষ শরীক হন। পরে তাঁর লাশ গ্রামের গুরুস্তানে দাফন করা হয়। এদিকে উপজেলা বিএনপির দুই বারের সাবেক সভাপতি প্রবীণ মুরব্বী হাজী জমশেদ আলীর ইন্তেকালে শোকাহত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা এবং মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে শোক প্রকাশ করেছেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি মামুনুর রশিদ মামুন, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ফরিদ ,আহমদ, পৌর বিএনপির সভাপতি কাউন্সিলার শরিফুল হক, সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান সহ বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। প্রসজ্ঞত যে, হাজী জমশেদ আলীর বড় পুত্র ফখরুদ্দিন শামীম উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক এবং সাবেক পৌরসভার প্যানেল মেয়র ছিলেন। এছাড়া তাহার আরেক পুত্র জসীম উদ্দিন উপজেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন।

অবশেষে উদ্বোধন হচ্ছে ঢাকা-চট্টগ্রাম চার লেন মহাসড়ক

অবশেষে উদ্বোধন হচ্ছে ঢাকা-চট্টগ্রাম চার লেন মহাসড়ক

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: প্রায় এক যুগ আগে যে কাজ শুরু হয়েছিল, তা শেষ হচ্ছে অবশেষে। আসন্ন ঈদের আগে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হচ্ছে ঢাকা-চট্টগ্রাম চার লেন মহাসড়ক।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ২ জুলাই বহুল প্রতিক্ষিত এই চার লেন মহাসড়কের উদ্বোধন করবেন বলে জানিয়েছেন ওবায়দুল কাদের।

সোমবার দুপুরে চট্টগ্রামের ভাটিয়ারীতে এ প্রকল্পের কাজ দেখতে গিয়ে মন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, “২ তারিখে ইনশাল্লাহ ঢাকা-চট্টগ্রম মহাসড়কের শুভ উদ্বোধন। প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার হিসেবে আমরা দেশবাসীর উদ্দেশ্যে এটি নিবেদন করছি।”

দাউদকান্দি থেকে চট্টগ্রাম পর্যন্ত ১৯২ কিলোমিটার সড়কে ২৩টি ব্রিজ, ২৪৩টি কালভার্ট ও ১৪টি বাইপাসসহ আনুষাঙ্গিক কাজ শেষ হয়েছে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, এখন ঢাকা-চট্টগ্রামের পথ সাড়ে চার ঘণ্টায় পাড়ি দেওয়া সম্ভব হবে বলে আশা করছেন।

ঢাকা-চট্টগ্রাম চার লেনের পাশাপাশি ময়মনসিংহ-জয়দেবপুর চার লেনের সড়কও একই সময়ে উদ্বোধন করা হবে বলে জানান কাদের।

তিনি বলেন, “এরপর আগামী বছরের শেষ ভাগ থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম ২২৫ কিলোমিটার এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণের প্রস্তুতি পর্ব শুরু করব।”

২০০৫ সালের ২৬ ডিসেম্বর একনেক সভার চূড়ান্ত অনুমোদন পাওয়া এ প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছিল ২০০৬ সালের জানুয়ারিতে। এরপর প্রকল্পের মেয়াদ বেড়েছে তিন দফা। ২০১২ সালের জুন মাসে চার লেনে গাড়ি ছোটার কথা থাকলেও তা আর হয়নি।

পিএসসি পরীক্ষা বাতিলের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছে মন্ত্রিসভা

পিএসসি পরীক্ষা বাতিলের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছে মন্ত্রিসভা

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: আগের মতোই পঞ্চম শ্রেণিতে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ও অষ্টম শ্রেণিতে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষা চলতে থাকবে।

আজ সোমবার সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের এ কথা জানিয়েছেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, পঞ্চম শ্রেণির পরিবর্তে অষ্টম শ্রেণিতে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা নেওয়ার প্রস্তাব মন্ত্রিসভা অনুমোদন করেনি। বৈঠকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়কে প্রস্তাবটি আরও পর্যালোচনা করতে বলা হয়েছে।

এর কারণ হিসেবে তিনি বলেন, শিক্ষার স্তর পরিবর্তনের এই বিশাল কর্মযজ্ঞ পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে পরবর্তী সময়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। কারণ, এই প্রক্রিয়ার সঙ্গে অবকাঠামোগত, শিক্ষক নিয়োগ, প্রশিক্ষণসহ অনেক ধরনের কর্মকাণ্ড জড়িত।

তাই আগের মতোই পঞ্চম শ্রেণিতে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ও অষ্টম শ্রেণিতে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষা অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সম্প্রতি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় পঞ্চম শ্রেণিতে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা হবে না বলে ঘোষণা দেয়। এর পরিবর্তে অষ্টম শ্রেণিতে সমাপনী পরীক্ষা নেওয়ার কথা জানায়। এ–সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের জন্য পাঠায়। কিন্তু আজ মন্ত্রিসভা প্রস্তাবটি নাকচ করে আরও পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে বলে।

এ ছাড়া মন্ত্রিসভায় আজ রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের লক্ষ্যে বাংলাদেশ ও রাশিয়ার মধ্যে আন্তরাষ্ট্রীয় ঋণচুক্তির খসড়া অনুমোদন করা হয়েছে।

মিতু হত্যায় আরও দু-একজনের ধরা পড়া নিশ্চিত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

মিতু হত্যায় আরও দু-একজনের ধরা পড়া নিশ্চিত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম (মিতু) হত্যার সঙ্গে জড়িত আরও দু-একজন নিশ্চিত ধরা পড়বে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

আসাদুজ্জামান বলেন, মাহমুদা হত্যায় জড়িত সন্দেহভাজনদের শনাক্ত করা হয়েছে। গত শুক্রবার গভীর রাতে বাবুলকে ডিবি কার্যালয়ে নেওয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সন্দেহভাজন আসামিদের মুখোমুখি করতে তাকে ডিবি কার্যালয়ে নেওয়া হয়েছিল।

‘মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচারবিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস’ উপলক্ষে সোমবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত এক ব্রিফিং শেষে সাংবাদিকের প্রশ্নে এ কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, তিনি এতটুকুই জানেন। আরও কিছু জানলে পরে জানাবেন।

ব্রিফিং মন্ত্রী বলেন, দেশে ৫০ হাজারের বেশি মাদকসংক্রান্ত মামলা ঝুলে আছে। মামলা সুরাহার জন্য পৃথক আদালত করা হবে। মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও পাচার প্রতিরোধে বিভিন্ন কর্মপরিকল্পনা তুলে ধরেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

পাকিস্তানে বৈধতা পেল হিজড়াদের বিয়ে

পাকিস্তানে বৈধতা পেল হিজড়াদের বিয়ে

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: পাকিস্তানে হিজড়াদের বিয়ে নিয়ে নতুন ফতোয়া জারি হয়েছে। দেশের শীর্ষ ৫০ আলেম হিজরাদের বিয়ে বৈধ বলে ঘোষণা করেছেন। সোমবার দেশটির স্থানীয় গণমাধ্যমে ডেইলি ডন এ তথ্য প্রকাশ করা হয়।

রোববার নতুন এই ফতোয়া জারি করা হয়। তানজিম ইতিহাদ-ই-উম্মাতের একদল বিজ্ঞ আলেম ওই ফতোয়া জারি করেন। তারা জানান, হিজড়ারাও এখন বিয়ে করতে পারবেন।

তবে ফতোয়ায় বলা হয়েছে, যে সব হিজড়াদের মধ্যে পুরুষসুলভ বৈশিষ্ট্য বেশি সে যে কোনো নারী বা অন্য কোনো হিজড়াকে বিয়ে করতে পারবে। ঠিক একই রকম কোনো হিজড়ার মধ্যে নারীসুলভ বৈশিষ্ট্য বেশি থাকলে তারা নিজেদের পছন্দমত বিয়ে করতে পারবে।

তবে যাদের মধ্যে নারী এবং পুরুষ উভয় ধরণের বৈশিষ্ট্যই রয়েছে তারা কাউকে বিয়ে করতে পারবেন না।

আলেমগণ জানিয়েছেন, আগে সম্পত্তি থেকে হিজড়াদের বঞ্চিত করা হতো। এটা একেবারেই অবৈধ। আর অনেক বাবা-মা মনে করেন, আল্লাহ রাগ করে তাদের হিজড়া সন্তান দান করেছেন। কিন্তু এটা ঠিক নয়। আল্লাহই ভালো জানেন আমাদের জন্য কোনটা ঠিক।

এ ধরনের বাবা-মায়ের বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর পদক্ষেপ নেয়া উচিত বলে মনে করেন আলেমরা।

সমাজে হিজড়াদের প্রতি যে বৈষম্যমূলক আচরণ করা হয় তা থেকে সবাইকে বিরত থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। হিজড়াদের অপমান করা বা তাদের আজেবাজে কথা বলাকে ‘হারাম’ বলেও উল্লেখ করেন তারা।

ওই ফতোয়ায় আরো বলা হয়, একজন হিজড়া মারা গেলে অন্য সব মুসলমান নারী পুরুষের মতই তাকে দাফন করা হবে।

সিরিয়ায় বিমান হামলায় ২৫ শিশু নিহত

সিরিয়ায় বিমান হামলায় ২৫ শিশু নিহত

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: পূর্ব সিরিয়ায় বিমান হামলায় ২৫ শিশু নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ। সোমবার ইউনিসেফের এক বিবৃতির বরাত দিয়ে আর্ন্তজাতিক সংবাদমাধ্যম এ খবর দিয়েছে।

দেশটির দেইর আল জোর প্রদেশের আল কুরিয়া শহরে ধ্বংস্তুপের নিচ থেকে এ শিশুদের মরদেহে উদ্ধার করেছে স্বাস্থ্যকর্মীরা। নিজেদের স্থানীয় সূত্রের বরাতে এ তথ্য দিয়েছে ইউনিসেফ।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটসও (এসওএইচআর) শনিবার এ হামলার তথ্য জানিয়েছে।

সংস্থাটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, সিরিয়া বা রাশিয়ার পরিচালিত বিমান হামলায় আল কুরিয়ায় অনেক প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে।

ইউনিসেফ এক বিবৃতিতে জানায়, আল কুরিয়ার ব্যাপক জনবসতিপূর্ণ স্থানগুলোতে অন্তত তিনটি হামলার ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে একটি হামলার লক্ষ্যবস্তু ছিল মসজিদ।

এ ধরনের হামলাসহ যেকোনো প্রকারের সহিংসতা থেকে শিশুদের নিরাপদে রাখার আহ্বান জানানো হয় ইউনিসেফের বিবৃতিতে।

প্রধানমন্ত্রীকে ঈদকার্ড পাঠালেন খালেদা জিয়া

প্রধানমন্ত্রীকে ঈদকার্ড পাঠালেন খালেদা জিয়া
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: গত কয়েক বছরের ন্যায় এবারও আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ঈদ শুভেচ্ছা কার্ড পাঠিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টায় ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বিএনপির সমাজকল্যাণ সম্পাদক আবুল খায়ের ভুইয়ার নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল এ শুভেচ্ছা কার্ড পৌঁছে দেন।

এ সময় আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক আবদুস সুবহান গোলাপ ঈদ শুভেচ্ছা কার্ড গ্রহণ করেন। শুভেচ্ছা কার্ড প্রদানের পর আবুল খায়ের ভুইয়া বলেন, বিভেদের রাজনীতির ভুলে ঐক্যের রাজনীতি চালু করা উচিত। তাই খালেদা জিয়া বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভানেত্রীকে ঈদের শুভেচ্ছা কার্ড পাঠিয়েছেন।

প্যারিস সফরে ব্যাবসায়ী ও ক্রীড়ানুরাগী হারুন


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার ব্যাবসায়ী ও ক্রীড়ানুরাগী হারুন মিয়া এক সংক্ষিপ্ত সফরে ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে এসেছেন। তিনি প্যারিসে অবস্থানকালে U E F A euro 2016 France এর খেলা সরাসরি স্টেডিয়ামে বসে দেখবেন। এছাড়া বিভিন্ন ব্যাবসায়ী, সামাজিক ও ক্রীড়া সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় ও সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হবেন।তিনি প্যারিসে অবস্হিত বিশ্ব বিখ্যাত দর্শনীয় স্হাপনা ও স্হান সমুহ পরিদর্শন করবেন। হারুন মিয়া কানাইঘাটের গাছবাড়ী এলাকার গোয়ালজুর গ্রামের অধিবাসী, বিশিষ্ট মুরব্বী মরহুম হাজী আবরু মিয়া (আবু হাজী) – এর নাতি এবং ঝিংগাবাড়ী ইউনিয়নের মেম্বার মামুন রশীদ বাবুল মিয়ার বড় ভাই। তিনি মানবাধিকার ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথেও সম্পৃক্ত রয়েছেন। হারুন মিয়া ইতিমধ্যে ভারত, সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, সাউথ আফ্রিকা সহ অনেক দেশ ভ্রমন করেছেন। প্যারিসে তার সাথে 0033753942180 এই নম্বরে যোগাযোগ করা যাবে।

কানাইঘাটে একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্পের মাঠকর্মীকে প্রাণ নাশের হুমকির ঘটনায় এক ব্যক্তি গ্রেফতার


নিজস্ব প্রতিবেদক: একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্পের কানাইঘাট সাতবাঁক ইউপির মাঠকর্মী বাবুল আহমদ খেলাপী ঋণ আদায় করতে গিয়ে ঋণ গ্রহীতা কর্তৃক প্রাণ নাশের হুমকির ঘটনায় কানাইঘাট থানা পুলিশ ইউপির জয়পুর গ্রামের মৃত মুশাহীদ আলীর পুত্র জহির উদ্দন কনাইকে গত রবিবার গ্রেফতার করেছে। জানা যায়, একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্পের সাতবাঁক ইউপির মাঠকর্মী বাবুল আহমদ প্রকল্পের ঋণের বকেয়া টাকা খোঁজতে গিয়ে গত ১২ জুন গ্রেফতারকৃত জহির উদ্দিন কনাই তাকে প্রাণে হত্যার উদ্দেশ্যে দা দিয়ে ধাওয়া করলে বাবুল আহমদ নিরাপদে গিয়ে জীবন রক্ষা করেন। এ বিষয়টি বাবুল আহমদ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তারেক মোহাম্মদ জাকারিয়াকে অবহিত করলে তিনি এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কানাইঘাট থানা পুলিশকে অবহিত করলে পুলিশ ঋণ খেলাপি জহির উদ্দিন কনাইকে গ্রেফতার করে

যশোরে বাসের ধাক্কায় ৩ ব্যবসায়ী নিহত

যশোরে বাসের ধাক্কায় ৩ ব্যবসায়ী নিহত

যশোর প্রতিনিধি: যশোরের বাঘারপাড়ায় বাস-নছিমন সংঘর্ষে তিন গরু ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। এ সময় চারটি গরুও মারা গেছে।

রোববার রাতে যশোর-মাগুরা সড়কের পুলেরহাট বাজারে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত ব্যক্তিরা হলেন মাগুরার শালিখা উপজেলার পোড়াগাছি গ্রামের আহম্মেদ পাটোয়ারির ছেলে ইসহাক হোসেন ও লাল্টু হোসেন এবং একই উপজেলার হাজামবাড়ি গ্রামের জাহাঙ্গীর।

বাঘারপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ছয়রুউদ্দিন জানান, যশোর থেকে চারটি গরু কিনে নছিমনযোগে মাগুরা ফিরছিলেন চার ব্যবসায়ী। পুলেরহাট বাজারে পৌঁছালে একটি বাস নছিমনটিকে ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই ইসহাক হোসেন ও লাল্টু হোসেন নিহত ও চালকসহ তিনজন গুরুতর হন। এ সময় চারটি গরু মারা যায়।

আহত ব্যক্তিদের মধ্যে জাহাঙ্গীরকে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতাল, আশরাফুলকে মাগুরা সদর হাসপাতাল ও সিরাজুল ইসলামকে শালিখা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। রাতে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে জাহাঙ্গীর মারা যান।

আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসরের ঘোষণা মেসির

আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসরের ঘোষণা মেসির

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন বিশ্ব ফুটবলের ক্ষুদে জাদুকর আর্জেন্টাইন সুপারস্টার লিওনেল মেসি। আজ কোপা আমেরিকার ফাইনালে চিলির কাছে ট্রাইবেকারে হারের পর এই ঘোষণা দিলেন মেসি।

বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, কোপার ফাইনালে চিলির বিপক্ষে হারের পরপরই আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে বিদায় নেওয়ার কথা বলেন আর্জেন্টাইন তারকা।

সর্বকালের সেরা দুই খেলোয়াড় পেলে আর দিয়েগো মারাদোনাও কোপা আমেরিকা জিততে পারেননি। মেসির সুযোগ ছিল তাদেরকে ছাড়িয়ে যাওয়ার। ব্যর্থতার জন্য এখন নিজেকেই দায়ী করে অবসরের ঘোষণা দিলেন সাম্প্রতিক সময়ে বিশ্বের অন্যতম সেরা এই ফরোয়ার্ড। এর আগে ২০১৪ বিশ্বকাপের ফাইনালে গিয়েও খালি হাতে ফিরতে হলো মেসির আর্জেন্টিনাকে।

গভীর হতাশা নিয়েই অবসরের এই ঘোষণা দিলেন লিওনেল মেসি। মাত্র ২৯ বছর বয়সেই! আজ সকালে নিউ জার্সিতে কোপা আমেরিকার ফাইনালে হেরেছেন। চিলি টাইব্রেকে ৪-২ গোলে হারিয়েছে আর্জেন্টিনাকে। এরপর অবসরের ঘোষণা দেন মেসি।

এই ঘোষণার পর মেসি বলেন, "আমার জন্য জাতীয় দলে খেলা শেষ। আমার যতটা করা সম্ভব ছিল করেছি। চ্যাম্পিয়ন হতে না পারাটা নিদারুণ বেদনার-" জানিয়েছেন মেসি।

২০১৪ বিশ্বকাপের ফাইনালে আর্জেন্টিনাকে নিয়ে যান মেসি। সেখানেও জার্মানির কাছে হারেন। ২০১৫ কোপা আমেরিকার ফাইনালে উঠেছিলেন। সেখানে এই চিলির কাছেই টাইব্রেকে হেরেছিলেন। আবার হারলেন কোপার শতবর্ষ উদযাপনের বিশেষ আসরে। টানা তিনটি আসরের রানার্স আপ হওয়ার কষ্ট নিয়ে জাতীয় দলকে বিদায় বলে দিলেন আর্জেন্টিনার হয়ে সবচেয়ে বেশি গোলের রেকর্ডের মালিক মেসি। তিন আসরেই আর্জেন্টিনার অধিনায়ক ছিলেন তিনি।

চিলির সাথে এই ফাইনাল জিতলে ২৩ বছর কোপার শিরোপা জিততে না পারার দুঃখ ঘুচতো আর্জেন্টিনার। সেই সাথে প্রথম কোনো বড় আসরের শিরোপা উঠতো মেসির হাতে। কিন্তু মেসির ভাগ্য লিখন যেন ট্র্যাজিক হিরোর! নির্ধারিত ৯০ মিনিটে গোল হয়নি। ম্যাচে ১২০ মিনিটে গোল করতে পারেনি কোনো দল। এরপর পেনাল্টি শুট আউট। ভাগ্যের লড়াই। সেখানে মেসি প্রথম শটটি নিতে গেলেন। এবং বাইরে মারলেন।

এরপর মেসির অবস্থা দেখে বোঝা যাচ্ছিল, শিরোপাটা ওখানেই হারিয়ে ফেলার আতঙ্কে ডুবে গেছেন। কিছুক্ষণ পর বিগলিয়ার শট মেসির বার্সেলোনা সতীর্থ চিলির গোলরক্ষক ক্লদিও ব্রাভো ঠেকিয়ে দিলেন। পরের শটে চিলি গোল করে শিরোপা ধরে রাখার উৎসবে মাতে। রেকর্ড ৫বার ব্যালন ডি'অর জেতা মেসি আবারও দ্বিতীয়। আন্তর্জাতিক ফুটবলে কখনোই প্রথম হতে না পারার কষ্ট নিয়েই বিদায় নিলেন আর্জেন্টিনার ফুটবল জাদুকর।

কানাইঘাট পৌরসভার ২০১৬-১৭ অর্থ বৎসরের ৬ কোটি ৭৭ লক্ষ ৮০ হাজার টাকার বাজেট ঘোষণা

Kanaighat News on Sunday, June 26, 2016 | 11:37 PM


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট পৌরসভার ২০১৬-১৭ অর্থ বছরের ৬ কোটি ৭০ লক্ষ ৮০ হাজার টাকার বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে। এতে মোট ব্যয় দেখানো হয়েছে ৬ কোটি ৭৭ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা। উদ্বৃত তহবিল দেখানো হয়েছে ৩০ হাজার টাকা। গতকাল রবিবার বিকাল ৪টায় স্থানীয় আল-রিয়াদ কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত ২০১৬-১৭ অর্থ বছরের বাজেট পেশ করেন পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী মনিরুল ইসলাম। বাজেট পেশের পাশাপাশি এ উপলক্ষে নাগরিকদের সম্মানে পৌরসভার উদ্যোগে এক ইফতার মাহফিলেরও আয়োজন করা হয়। পৌর মেয়র নিজাম উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, গণমাধ্যম কর্মী, পৌরসভার সাবেক ও বর্তমান কাউন্সিলরদের উপস্থিতিতে বাজেট অধিবেশনে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ফোরাম সিলেট জেলা শাখার সভাপতি, কানাইঘাট সদর ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান ও বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন, কানাইঘাট বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি সিরাজুল ইসলাম খোকন, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব বাবু সুদীপ্ত কুমার রায়, কানাইঘাট সদর ইউপি আওয়ামীলীগের সভাপতি মাষ্টার মামুন আহমদ, পৌরসভার সাবেক প্যানেল মেয়র হাজী আব্দুল মালিক, কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এখলাছুর রহমান, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী জয়নাল আবেদীন ও সদর ইউপি আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক তাজ উদ্দিন। পৌর প্রকৌশলী মনিরুল ইসলাম গত বছরের প্রকৃত আয় ব্যয় ও বর্তমান বছরের বাজেট বাস্তবায়ন অগ্রগতি এবং আগামী বছরের খসড়া বাজেট উপস্থাপন করেন। স্বাগত বক্তব্যে মেয়র নিজাম উদ্দিন বলেন, তিনি পৌরসভার মেয়রের দায়িত্ব নেয়ার পর পৌরবাসীর দুর্ভোগ লাঘব এবং সেবার মান বাড়াতে ইতিমধ্যেই তিনি পৌর এলাকার পানি নিষ্কাসন সহ জনগুরুত্বপূর্ণ রাস্তা-ঘাট সংস্কার ও নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। তিনি আরো বলেন, এক কোটি টাকা ঋণের বোঝা নিয়ে তিনি পৌর মেয়রের দায়িত্ব নেয়ার পর পৌর শহরে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ, ড্রেনেজ নির্মাণ ও জলাবদ্ধতা দূরীকরণ করেছেন। পৌরসভার কাংখিত উন্নয়নে তিনি দলমত নির্বিশেষে সকলের সহযোগিতা কামনা করে নিয়মিত পৌর কর পরিশোধের আহ্বান জানান। বিভিন্ন উন্নয়ন সংস্থার কাছ থেকে অর্থ বরাদ্দ পেলে পৌরবাসীর জীবন মান আরো উন্নত হবে বলে আশা প্রকাশ করেন মেয়র নিজাম উদ্দিন। প্রস্তাবিত বাজাটে নতুন করে কোন করারোপ করা হয়নি। তাই রাজস্ব খাতে আয়ের সর্বোচ্চ গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। বাজেট পেশকালে আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, পৌর এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

কানাইঘাটে জালাল খুনের ঘটনায় ১৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউনিয়নের কেউটি হাওর গ্রামে জালাল আহমদ (৫০) নামের এক ব্যক্তি খুনের ঘটনায় ১৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। নিহতের ছেলে শাহীন আহমদ বাদী হয়ে শনিবার কানাইঘাট থানায় এ মামলা দায়ের করেন বলে জানিয়েছেন ওসি হুমায়ুন কবির। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গত বৃহস্পতিবার রাতে জালাল আহমদকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। তিনি কেউটি হাওর গ্রামের মৃত মাহমুদ আলীর পুত্র। স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, একটি রাস্তার কাজ নিয়ে জালাল আহমদের সাথে একই গ্রামের আব্দুল হকের পুত্র কালা মিয়া ও দুদু মিয়ার পক্ষের লোকজনের বিরোধ চলে আসছিল। এর জের ধরে সম্প্রতি প্রতিপক্ষের লোকজন জালাল আহমদের পরিবারকে গ্রাম্য সালিশে ‘একঘরে’ করে রাখেন। গত ১৭ জুন জালাল আহমদের ছেলে শাহীন ও ভাতিজা কামরুল গ্রামের মসজিদে জুমার নামায পড়তে গেলে কালা মিয়ার পক্ষের লোকজন তাদের মারপিট করে মসজিদ থেকে বের করে দেয়। বিষয়টি স্থানীয় সালিশে নিষ্পত্তির জন্য এলাকার মুরব্বীরা উদ্যোগ নেন। কিন্তু, প্রতিপক্ষের(কালা-দুদু) পক্ষের লোকজন তা প্রত্যাখ্যান করে করে। গত বৃহস্পতিবার রাত অনুমান সাড়ে ৮টার দিকে স্থানীয় মমতাজগঞ্জ বাজার থেকে কেনাকাটা করে জালাল আহমদ ও তার পুত্র শাহীন (২২), ভাতিজা আবুল হাসনাত, কামরুল, নৌকাযোগে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে স্থানীয় দেউছই হাওরে আসামাত্রই কালা মিয়ার পক্ষের লোকজন দু’টি ইঞ্জিন নৌকা নিয়ে জালাল আহমদকে তুলে আনার চেষ্টা চালায় এবং তার নৌকায় হামলা করে। নৌকাটি হাওরে ডুবে গেলে জালাল আহমদের ছেলে শাহীন, ভাতিজা আবুল হাসনাত ও কামরুল সাঁতরে তীরে উঠতে সক্ষম হন। কিন্তু, প্রতিপক্ষের লোকজন জালাল আহমদকে ধরে তাদের নৌকায় তুলে নিয়ে এলোপাতাড়ি ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মৃত ভেবে বান্দের আইল নামক স্থানে ফেলে রেখে যায়। পরে জালাল আহমদের আত্মীয় স্বজনরা তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে রাতেই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক তার অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরের পরামর্শ দেন। কিন্তু, ওসমানী হাসপাতালে আনার পথে জালাল আহমদের মৃত্যু হয়। এ ঘটনার খবর পেয়ে কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ হুমায়ুন কবিরের নেতৃত্বে একদল পুলিশ শুক্রবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। ময়না তদন্তের পর নিহতের লাশ শুক্রবার বাদ মাগরিব গ্রামের মসজিদে জানাজাশেষে দাফন করা হয়। এ ব্যাপারে থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ হুমায়ুন কবিরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, পূর্ব বিরোধের জের ধরে জালাল আহমদকে প্রতিপক্ষের কালা মিয়া, দুদু, আব্দুল হক, মাসুক, জাহিদ, শাহিদ, কয়ছর, চুন্নু মিয়া সহ ১০/১২ জন নৌকা থেকে তুলে নিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। ওসমানী হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় থানায় ১৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে বলে জানান ওসি।

কানাইঘাট বড়চতুল ইউপির নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মাওঃ আবুল হোসেনের উদ্যোগে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

Kanaighat News on Saturday, June 25, 2016 | 10:19 PM


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট ৫নং বড়চতুল ইউপির নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মাওঃ আবুল হোসেন চতুলীর নিজ উদ্যোগে এক ইফতার মাহফিল শনিবার তার নিজ বাড়ী চতুল মাদানীনগরে অনুষ্ঠিত হয়। চতুল পরগনার বিশিষ্ট মুরব্বী হাজী ওমর ফারুক চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও মাওঃ ক্বারী হারুনুর রশিদ চতুলীর পরিচালনায় উক্ত ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, জমিয়তে উলামা বাংলাদেশের আমির আল্লামা আলিমুদ্দীন দুর্লভপুরী। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, কানাইঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশিক উদ্দিন চৌধুরী, কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ হুমায়ুন কবির, কানাইঘাট পৌরসভার মেয়র নিজাম উদ্দিন আল মিজান, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার কানাইঘাট সদর ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম, জমিয়তে উলামা ঢাকা মহানগরের সেক্রেটারী মাওঃ সদর উদ্দিন মাকনুন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বীর মুক্তিযোদ্ধা মুহিবুর রহমান, উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক বানীগ্রাম ইউপির নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মাসুদ আহমদ, জৈন্তাপুর চারিকাটা ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান এম.এ হক, আ’লীগ নেতা সুবেদার আফতাব আহমদ, আব্দুর রশিদ মেম্বার, জামিল আহমদ, জাকারিয়া, বিএনপি নেতা আব্দুল মালিক চৌধুরী, আব্দুর রহমান, আলমাছ উদ্দিন চৌধুরী, জমিয়ত নেতা মাসুদুল কাদির, কানাইঘাট প্রেসকাবের দপ্তর সম্পাদক সাংবাদিক নিজাম উদ্দিন, আব্দুল্লাহ শাকির, বদরুল ইসলাম আল ফারুক, আব্দুর রহমান, আসাদ, মারুফ, জুনেদ আহমদ। ইফতার মাহফিলে এছাড়াও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী, উলামায়ে কেরাম, ব্যবসায়ী ও জনপ্রতিনিধি সহ সর্বস্তরের মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

চলে গেলেন বিশ্বনন্দিত আলেম মাওলানা মুহিউদ্দীন খান


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশের উজ্জ্বল নক্ষত্র শীর্ষস্থানীয় আলেমে দ্বীন, মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (৮০) ইন্তিকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। শনিবার বিকেল সোয়া ৬টায় রাজধানীর ল্যাব এইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন। তিনি দীর্ঘদিন থেকে অসুস্থ ছিলেন। গত বুধবার তাঁর শারীরিক অসুস্থতা কিছুটা বৃদ্ধি পেলে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছিল। আগামীকাল রোববার বাদ জোহর বাইতুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে মরহুমের প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। পরে তার লাশ নেয়া হবে ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও উপজেলার নিজ বাড়িতে। সেখানে জানাজা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে। তিনি উপমহাদেশের একজন বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন, রাবেতা আলম আল ইসলামীর সন্মানিত সদস্য, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ছিলেন। মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ১৩৪২ বাংলা সনের ৭ বৈশাখ শুক্রবার ময়মনসিংহের মাতুলালয়ে জন্ম গ্রহণ করেন। এ ক্ষণজন্মা মনীষী ইসলামী সাহিত্য সাংবাদিকতার জগতে এক জীবন্ত কিংবদন্তি ছিলেন। বাংলা ভাষায় সিরাত চর্চা প্রবর্তন, মাআরেফুল কোরআনের অনুবাদ, ইসলামের মৌলিক বিষয়গুলো দুষ্প্রাপ্য ও উচ্চাঙ্গের কিতাবাদি সহজ-সরল, সাবলীল ভাষায় সবার বোধগম্য করে প্রকাশ করে তিনি আমাদের কাছে চির অম্লান হয়ে থাকবেন। আল্লাহ তাআলা তাঁর খেদমত কবুল করুন। তাঁকে জান্নাতের উচ্চ মাকাম দান করুন। আমিন।

কানাইঘাটে ইসলাহুল মুসলীনের উদ্যোগে ১০ জন দরিদ্র দিন মজুরের মধ্যে ভ্যান গাড়ী বিতরণ


নিজস্ব প্রতিবেদক: ইসলাহুল মুসলীন বাংলাদেশের উদ্যোগে শনিবার কানাইঘাটের ১০ জন দরিদ্র দিন মজুরের মধ্যে ভ্যান গাড়ী বিতরণ করা হয়েছে। কানাইঘাট ডাক বাংলায় ও বড়চতুল ইউপির নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান মাওঃ আবুল হোসেন চতুলীর বাড়ীতে পৃথক ভ্যান গাড়ী বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, জমিয়তে উলামা বাংলাদেশের আমির কানাইঘাট দারুল উলূম মাদ্রাসার নায়েবে মুহতমিম আল্লামা আলিমুদ্দীন দুর্লভপুরী, বড়চতুল ইউপির নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মাওঃ আবুল হোসেন চতুলী, ইক্বরা বাংলাদেশের প্রিন্সিপাল ও ঢাকা মহানগর জমিয়তে উলামার সেক্রেটারী মাওঃ সদও উদ্দিন মাকনুন, ইক্বরার কেন্দ্রীয় নেতা মাও. মাসউদুল কাদির, কানাইঘাট প্রেসকাবের দপ্তর সম্পাদক সাংবাদিক নিজাম উদ্দিন, সাংবাদিক আব্দুন নুর, কানাইঘাট পৌর যুবলীগের আহ্বায়ক এনামুল হক, উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি রুহুল আমিন, মাও. বদরুল হাসান, মাও. বদরুল ইসলাম আল ফারুক, আব্দুল্লাহ শাকির, মাও. শাহিদুল ইসলাম, মাও. আসাদ, মাও. আল জাকির, মাও. সাদ উল্লাহ, হা. আলমাছ আহমদ, মাও. সিফত উল্লাহ, মাও. শিব্বির আক্তার প্রমুখ। উক্ত সংস্থার নেতৃবৃন্দ ভবিষ্যতে কানাইঘাটে দরিদ্রদের মধ্যে বিভিন্ন সাহায্য সহযোগিতা অব্যাহত রাখবেন বলে আশ্বস্ত করেন।

টোল আদায়কে কেন্দ্র করে কানাইঘাট সড়কের বাজার লেসি-ক্ষুদ্র ও মাংস ব্যবসায়ীরা মুখোমুখি অবস্থানে


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট সড়কের বাজার ব্যবসায়ী কমিটির সেক্রেটারী ও বাজারের ইজারাদার কয়ছর আহমদ অতিরিক্ত টোল আদায় করছেন এমন অভিযোগে বাজারের ক্ষুদ্র ও মাংস ব্যবসায়ীদের মুখোমুখি অবস্থানে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা অব্যাহত থাকায় যে কোন সময় অনাকাংখিত ঘটনা ঘটতে পারে। এ ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসনকে এগিয়ে আসার জন্য এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, জনপ্রতিনিধি ও ব্যবসায়ীরা আহ্বান জানিয়েছেন। বাজার লেসি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের মধ্যে উত্তেজনার প্রেক্ষিতে বিষয়টি সমাধানের লক্ষ্যে গত সোমবার রাতে তারাবির নামাজের পর হারিছ চৌধুরী অডিটোরিয়ামে বাজারের ব্যবসায়ী ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে এক জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়। বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মাওঃ নিজাম উদ্দিনের সভাপতিত্বে উক্ত সভায় বাজারের ব্যবসায়ী ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উত্তেজনা নিরসনে তাদের মতামত তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন। সভায় উপস্থিত হয়ে বাজারের ক্ষুদ্র এবং মাংস ব্যবসায়ীরা বাজারের ইজারাদার ও সেক্রেটারী কয়ছর আহমদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ আনেন। তাদের অভিযোগ বাজার লেসি অতিরিক্ত টোল আদায়ের কারনে তার কাছে বিশেষ করে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা জিম্মি হয়ে পড়েছেন। তিনি ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে মাংস ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে গরু জবাই প্রতি সিট এবং প্রতিদিন বাজারের ব্যবসায়ী সমিতির চাঁদা সহ ৪৭০ টাকা আদায় করছেন। বাজার থেকে মাংস ব্যবসায়ীরা গরু কিনলে তাকে হাজার প্রতি ৮০ টাকা এবং অন্যান্য বাজার থেকে গরু কিনলে পুণরায় তাকে সিট প্রতি মোটা অংকের টাকা দিতে হয়। এভাবে একটি গরু জবাই করলে হাজার খানেক টাকা বাজার লেসিকে দিতে হয়। নতুবা তিনি পুলিশ দিয়ে গ্রেফতারের ভয় দেখান। সড়কের বাজার থেকে মাংস ব্যবসায়ীদের তিনি গরু কিনতে দিচ্ছেন না। মাংস ব্যবসায়ীরা সভায় এর প্রতিকার চান। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা সভায় উপস্থিত হয়ে জানান, তাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টোল আদায় করা হচ্ছে। এ পর্যন্ত কয়েকজন ব্যবসায়ী লেসী কয়ছর আহমদ কর্তৃক শারীরিক লাঞ্চিতের শিকার হয়েছেন। বাজারের ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসীর আহ্বানে গত সোমবারের সভায় ব্যবসায়ী সমিতির নেতৃবৃন্দকে বিষয়টি মিমাংসা করার জন্য উপস্থিত থাকার জন্য বলা হলেও ব্যবসায়ী সমিতি সভাপতি আলতাফ হোসেন ও লেসি বাজার সেক্রেটারী কয়ছর আহমদ সভায় উপস্থিত না হলে ব্যবসায়ী ও এলাকার কয়েকশত গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হলে একপর্যায়ে ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আলতাফ হোসেন সভায় উপস্থিত হয়ে পূর্বের নিয়মে টোল আদায় এবং বাজার লেসি কয়ছর আহমদ এবং ক্ষুদ্র ও মাংস ব্যবসায়ীদে মধ্যে টোল আদায় নিয়ে যে বিরোধ সৃষ্টি হয়েছে তা রোজার পর এলাকাবাসীকে নিয়ে মিমাংসা করে দিবেন বলে আশ্বাস প্রদান করেন। তবে বাজার লেসি ও ব্যবসায়ী সমিতির সেক্রেটারী কয়ছর আহমদের অভিযোগ ক্ষুদ্র ও মাংস ব্যবসায়ীরা তার বিরুদ্ধে অতিরিক্ত টোল আদায়ের যে অভিযোগটি এনেছেন তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। তিনি সরকারী বিধি মোতাবেক বাজার থেকে টোল আদায় করছেন। তিনি মাংস ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন, এরা বাজারে উত্তেজনা ছড়াচ্ছে। তারা ক্রেতা ও বাজার ব্যবসায়ী সমিতির নেতৃবৃন্দের সাথে খারাপ আচরন করে থাকে। অতিরিক্ত দামে মাংস বিক্রি ও রোগাক্রান্ত গরু জবাই করলে আমি তার প্রতিবাদ করায় এরা আমার বিরুদ্ধে কুৎসা রটাচ্ছে। আর তাদের এসব কর্মকান্ডের পিছনে ইন্ধন যোগাচ্ছেন বাজারের সাবেক লেসি আব্দুস সালাম বটল। মাংস ব্যবসায়ীর অধিকাংশ তার আত্মীয়। এ ব্যাপারে তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তারেক মোহাম্মদ জাকারিয়া ও থানার ওসি হুমায়ুন কবিরকে অবহিত করেছেন।

'যুক্তরাজ্য সরে গেলেও বাকি ২৭ রাষ্ট্র এক থাকবে'

Kanaighat News on Friday, June 24, 2016 | 11:53 PM

'যুক্তরাজ্য সরে গেলেও বাকি ২৭ রাষ্ট্র এক থাকবে'

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: যুক্তরাজ্যের গণভোটে ইউরোপের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক এ জোটটির সঙ্গে ৪১ বছরের বন্ধন ছেঁড়ার পক্ষে রায় আসার পর হতাশ ইইউ নেতারা ‘স্থিতিশীলতা ও সংহতি’র আহ্বান জানিয়েছেন। সেইসঙ্গে ইইউ’র পরিবর্তন ও সংস্কারের কথাও বলেছেন।

ব্রেক্সিটে বিশ্ব বাজারে বড় ধরনের ঝাঁকুনির প্রেক্ষাপটে শুক্রবার সংকটকালীন জরুরি আলোচনায় বসেন ইউরোপীয় কমিশনের প্রধান জাঙ্কার, ইউরোপীয় পার্লামেন্ট প্রেসিডেন্ট মার্টিন শুলজ, ইউরোপীয় কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাস্ক এবং ডাচ প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুটে।

জাঙ্কার জোর দিয়ে বলেছেন, যুক্তরাজ্য সরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেও ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাকি ২৭ সদস্য রাষ্ট্র একসঙ্গে পথ চলবে।

বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্যে ইইউ-তে থাকা না থাকা নিয়ে গণভোট অনুষ্ঠিত হয়। এতে ৫২ শতাংশ ব্রিটিশ ইইউ থেকে যুক্তরাজ্যের বেরিয়ে যাওয়ার পক্ষে এবং ৪৮ শতাংশ মানুষ ইইউ য়ে থাকার পক্ষে ভোট দেয়।

এরপরই পদত্যাগের ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন। তিনি যুক্তরাজ্যের ইইউ ত্যাগের প্রক্রিয়া শুরুর বিষয়টি ছেড়ে দেন নতুন প্রধানমন্ত্রীর ওপর।

কিন্তু ইইউ নেতারা চান আলোচনা আগামী সপ্তাহেই শুরু হোক। অক্টোবরে নতুন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব নেওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে নারাজ তারা।

পরে তাদের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে ব্রেক্সিটের জন্য দুঃখপ্রকাশ করার পাশাপাশি ব্রিটিশদের সিদ্ধান্তের প্রতি সম্মান জানানো হয়। আর এ বিবৃতিতেই যুক্তরাজ্যকে যত দ্রুত সম্ভব জনগণের সিদ্ধান্ত কার্যকরের আহ্বান জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, 'ইইউ ত্যাগের প্রক্রিয়া যত বেদনাদায়কই হোক না কেন,  যুক্তরাজ্যের যত দ্রুত সম্ভব জনগণের সিদ্ধান্ত কার্যকর করা উচিত। কারণ, এক্ষেত্রে কোনও ধরনের বিলম্ব অকারণে অনিশ্চয়তা বাড়াবে।

নেতারা বলেন, 'আমরা ইউরোপীয় ইউনিয়ন ত্যাগ সংক্রান্ত শর্তাবলী নিয়ে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে দ্রুত আলোচনা শুরু করতে প্রস্তুত'।

গত ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ক্যামেরনের সঙ্গে অর্থবাজার, অভিবাসন ও অন্যান্য বিষয় নিয়ে যে চুক্তি হয়েছিল সেগুলো আর নতুন করে আলোচনা হবে না বলে জানিয়েছেন নেতারা।

তবে তারা জানান, ইইউ ত্যাগের জন্য যুক্তরাজ্যকে অবশ্যই লিসবন চুক্তির আর্টিকেল ফিফটি  আহ্বান করতে হবে, যার আওতায় বিচ্ছিন্নতা নিয়ে আলোচনা চলবে।

তারা আরও জানান, কিভাবে সদস্যপদ বাতিল করা হবে সে বিষয়ে আলোচনার জন্য দুই বছর সময় থাকবে।

শনিবার ইইউ-র প্রতিষ্ঠাতা ছয় সদস্য জার্মানি, ফ্রান্স, নেদারল্যান্ডস, ইতালি, বেলজিয়াম ও লুক্সেমবার্গ এর প্রতিনিধিরা বার্লিনে এক বৈঠকে বসবেন। এছাড়া, ভোট মূল্যায়নের জন্য আগামী মঙ্গলবার ইউরোপীয় পার্লামেন্টে বিশেষ অধিবেশন বসবে।

'পুরো সেশন শেষ করতে পারে নি দি মারিয়া'

'পুরো সেশন শেষ করতে পারে নি দি মারিয়া'

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: গত বুধবার আর্জেন্টিনা কোচ জেরার্দো মার্তিনো বলেছিলেন, অ্যাডাক্টর মাংসপেশির চোটে পড়া দি মারিয়া ফাইনালে খেলার জন্য ‘ফিট’ হয়ে উঠেছেন। বৃহস্পতিবার তিনি অনুশীলনেও নেমেছিলেন।

কিন্তু পুরো সেশন শেষ করতে পারেননি। পরীক্ষা করার পর তার চোটের অবস্থার পরিবর্তন ধরা পড়ে বলে জানায় এএফএ।

দেশটির ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন সূত্রে আরো জানা যায়, দি মারিয়া ফিট থাকলেও সে পুরো সেশনের প্র্যাকটিসই শেষ করতে পারে নি। তাই তাকে নিয়ে কোনো ঝুঁকি নিতে চাইছেন না জেরার্দ মার্তিনো।

কোপা আমেরিকার শতবর্ষী আসরের গ্রুপ পর্বে পানামার বিপক্ষে ৫-০ গোলে জেতা ম্যাচের প্রথমার্ধে ডান ঊরুতে ব্যথা নিয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন পিএসজির মিডফিল্ডার দি মারিয়া। পরে পরীক্ষায় দেখা গেছে, পায়ের অ্যাডাক্টর মাংসপেশি সামান্য ছিড়ে গেছে তার।

এরপর আর মাঠে নামা হয়নি চোটের কারণে ২০১৪ বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলতে না পারা দি মারিয়ার। গত বছর চিলির কাছে টাইব্রেকারে হেরে যাওয়া ফাইনালেও চোট নিয়ে প্রথমার্ধেই মাঠ ছাড়তে হয়েছিল তাকে।

নিউ জার্সির ইস্ট রাদারফোর্ডে বতর্মান চ্যাম্পিয়ন চিলির বিপক্ষে আর্জেন্টিনার ফাইনালটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় আগামী সোমবার ভোর ৬টায়।

উপশহরে দুর্ধর্ষ চুরি


সিলেট, শুক্রবার, ২৪ জুন ২০১৬ :: সিলেট নগরীর উপশহরে দুর্ধর্ষ চুরির ঘটনা ঘটেছে। দিনদুপুরে চোর ঘরের দরজার লক ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে ৩টি ল্যাপটপ ও ৫টি মোবাইলসহ মুল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে যায়। শুক্রবার বেলা দেড়টার দিকে ডি ব্লকের ৩৪নং রোডের ৮নং বাসায় এ চুরির ঘটনা ঘটে। জানা যায়, ডি ব্লকের ৩৪নং রোডের ৮নং বাসার দ্বিতীয় তলা ৮/১০ জন ছাত্র ম্যাচ করে বসবাস করছেন। শুক্রবার তার জুমআর নামাজে গেলে এ ফাঁকে চোর বাসার দরজার লক ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে। ঘরে থাকা ৩টি ল্যাপটপ ও ৫টি মোবাইলসহ মুল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে চোর পালিয়ে যায়। নামাজ পড়ে বাসায় ফিরে ছাত্ররা দরজার লক ভাঙা ও ঘরে থাকা মালামাল না পেয়ে বিষয়টি শাহপরাণ থাকা পুলিশকে অবগত করেন। সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। এব্যাপারে থানার উপ পুলিশ পরিদশক আনোয়ার হোসেনের সাথে যোগাযোগের জন্য তার মোবাইলে বার বার ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেনি।

বড়লেখা ও জুড়ীতে পালিত হয়নি আ.লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী!


বড়লেখা প্রতিনিধি, শুক্রবার, ২৪ জুন ২০১৬ :: মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা ও জুড়ী উপজেলার কোথাও পালিত হয়নি আওয়ামী লীগের ৬৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। কেন্দ্রের নির্দেশ থাকলেও বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) দেশের প্রধান ও ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক সংগঠন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে জেলার দুই উপজেলায় চোখে পড়েনি কোন কর্মসূচি। এতে দলের তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে। এ নিয়ে দলের সাধারণ কয়েকজন কর্মী-সমর্থক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্র জনায়, গত বুধবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এক বিবৃতিতে দলের গৌরবজ্জ্বল ৬৭ বছর পূর্তিতে গৃহিত কর্মসূচি পালনের জন্য আওয়ামী লীগ, সহযোগি ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের সকল জেলা, উপজেলাসহ সকল স্তরের নেতাকর্মী, সমর্থকদের প্রতি আহবান করেন। কিন্তু মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা ও জুড়ী উপজেলায় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে কোন কর্মসূচি লক্ষ করা যায়নি। তবে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জাতীয় সংসদের হুইপ মো. শাহাব উদ্দিন এমপি তার নির্বাচনী এলাকায় (বড়লেখা-জুড়ী) না থাকার কারণে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করা হয়নি বলে দলের নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানিয়েছে। এ বিষয়ে বড়লেখা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার উদ্দিনের সাথে শুক্রবার রাত ৮টায় মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী কেন্দ্রে পালন করা হয়। থানা পর্যায়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালনের বাধ্যবাধকতা নেই। তবে কেন্দ্র থেকে নির্দেশ পেলে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করা হতো। কেন্দ্র থেকে কোন নির্দেশ পাইনি।’ এদিকে বক্তব্য জানতে জুড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক বদরুল হোসেনের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তিনি কল রিসিভ করেননি।
 
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো:মহিউদ্দিন,সম্পাদক : মাহবুবুর রশিদ,নির্বাহী সম্পাদক : নিজাম উদ্দিন। সম্পাদকীয় যোগাযোগ : শাপলা পয়েন্ট,কানাইঘাট পশ্চিম বাজার,কানাইঘাট,সিলেট।+৮৮ ০১৭২৭৬৬৭৭২০,+৮৮ ০১৯১২৭৬৪৭১৬ ই-মেইল :mahbuburrashid68@yahoo.com: সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত কানাইঘাট নিউজ ২০১৩