কানাইঘাট পৌর যুবদলের উদ্যোগে জিয়াউর রহমান এর শাহাদাৎ বার্ষিকী পালিত

Kanaighat News on Tuesday, May 31, 2016 | 11:09 PM


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী যুবদল কানাইঘাট পৌর শাখার উদ্যোগে সোমবার বিকাল ৪ টায় স্থানীয় যুবদলের অস্থায়ী কার্যালয়ের সামনে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান এর ৩৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। পৌর যুবদলের সভাপতি জাকারিয়া হাবিব এর সভাপতিত্বে এবং যুবদলের সিনিয়র সহসাধারণ সম্পাদক রুবেল আহমদ ও সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন রশীদ মামুন এর পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কানাইঘাট-জকিগঞ্জের সাবেক সংসদ সদস্য এবং সিলেট জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাহির চৌধুরী। প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা যুবদলের সহসভাপতি অধ্যাপক হাবিব আহমেদ, বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কানাইঘাট উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক ফারুক আহমেদ, যুগ্ম আহবায়ক ফখরুল ইসলাম, সদর ইউনিয়নের সভাপতি শহীদুল ইসলাম, পৌর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালিক, সহ-সভাপতি মজির উদ্দীন, কানাইঘাট উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক রুহুল আমীন, পৌর ছাত্রদলের আহবায়ক আর এ বাবলু, সদর ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক বদরুল আলম, যুবদল নেতা মিছবাহুল হক সবুজ, পৌর যুবদল নেতা হারুন আহমেদ, যুবদল নেতা হেলাল আহমেদ, রুবেল আহমেদ, আব্দুল মান্নান, তহিরুল ইসলাম, কৃষক দল নেতা নজরুল ইসলাম,ছাত্রদল নেতা মোয়াজ্জিম হোসেন আল আমিন প্রমুখ।

সিলেটের ৩০ সাংবাদিকের বেসিক আইসিটি প্রশিক্ষণ


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অধীনে লার্নিং এন্ড আর্নিং ডেভলপমেন্ট প্রজেক্ট’র আওতায় সিলেটে সাংবাদিকদের জন্য বেসিক আইসিটি প্রশিক্ষণ সম্পন্ন হয়েছে। রেডিসন ডিজিটাল টেকনোলজিস লিমিটেড’র ব্যবস্থাপনায় জেলা পরিষদের হলরুমে মঙ্গলবার এ প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়। প্রশিক্ষণে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় স্থানীয় সরকারের উপ পরিচালক আবদুল আহাদ বলেন- সাংবাদিকরা সারাদিন সংবাদের পেছনে ছুটেন। এই ব্যস্ত সময়ের মধ্যেও তারা ইচ্ছে করলে আউটসোর্সিয়ের মাধ্যমে আয় করতে পারেন। তারা অবসর সময়টুকু আউটসোর্সিংয়ে ব্যয় করলে আয় বৃদ্ধির পাশাপাশি আইটি জ্ঞানও বৃদ্ধি পাবে। তিনি আরও বলেন- আইটি জ্ঞান থাকলে যে কেউ একটি ল্যাপটপ ও ইন্টারনেট সংযোগ নিয়ে আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে আয় করতে পারবে। এতে দেশে শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা কমবে। শিক্ষিত উদ্যমী যুবকরা চাকুরির পেছনে না ছুটে নিজেরাই কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে পারবে। আর সাংবাদিকরা আউটসোর্সিংয়ের ব্যাপারে এগিয়ে আসলে সমাজের অন্য লোকজনও এতে উৎসাহিত হবে। আবদুল আহাদ আরও বলেন- শেখ হাসিনা ক্ষমতা গ্রহণের পরই যখন ভিশন ২০২১ ঘোষণা করেন তখন ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার বিষয়টি অনেকের কাছে স্বপ্ন মনে হয়েছিল। এখন তা বাস্তবে রূপায়িত হওয়ার পথে। ২০২১ সালের মধ্যেই বাংলাদেশ প্রযুক্তি সমৃদ্ধ একটি মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে। সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শাহ্ দিদার আলম নবেলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রশিক্ষণে প্রশিক্ষক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রযুক্তিবীদ মেহেদী হাসান আজিম। প্রশিক্ষণার্থীরা হলেন- দৈনিক শ্যামল সিলেট’র বার্তা সম্পাদক আবুল মোহাম্মদ, সকালের খবর’র সিলেট ব্যুরো প্রধান দিপু সিদ্দিকী, মানবকন্ঠ’র সিলেট ব্যুরো প্রধান মনোয়ার জাহান চৌধুরী, বিডি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম’র সিলেট প্রতিনিধি মনজুর আহমেদ, বাংলানিউজ’র স্টাফ করেসপন্ডেন্ট নাসির উদ্দিন, বাংলাদেশ প্রতিদিন’র স্টাফ ফটো জার্নালিস্ট নাজমুল কবীর পাভেল, চ্যানেল টোয়েন্টিফোর’র স্টাফ রিপোর্টার গুলজার আহমদ, জিটিভি’র সিলেট প্রতিনিধি বিলকিস আক্তার সুমি, দৈনিক শুভ প্রতিদিন’র চিফ রিপোর্টার সাঈদ চৌধুরী টিপু, দৈনিক সবুজ সিলেট’র স্টাফ রিপোর্টার কাইয়ুম উল্লাস, একুশে টেলিভিশনের ক্যামেরাপার্সন সোহাগ আহমদ, দৈনিক ইনকিলাব’র সিলেট প্রতিনিধি খলিলুর রহমান, এনটিভি’র সিলেট প্রতিনিধি মারুফ আহমেদ, দৈনিক জালালাবাদের স্টাফ রিপোর্টার হুমায়ুর কবির লিটন, দৈনিক উত্তরপূর্ব’র স্টাফ রিপোর্টার ওলিউর রহমান, বণিক বার্তার সিলেট প্রতিনিধি আলী আকবর চৌধুরী, দৈনিক কাজিরবাজারের স্টাফ রিপোর্টার সিন্টু রঞ্জন চন্দ, সিলেটের সকাল ডটকম’র স্টাফ রিপোর্টার নোমান বিন আরমান, দৈনিক শ্যামল সিলেট’র স্পোর্টস ইনচার্জ কাইয়ুম আল রনি, সিলেটভিউ২৪ডটকম’র স্টাফ রিপোর্টার দিব্য জ্যোতি সী, দৈনিক সিলেট সংলাপ’র স্টাফ ফটো জার্নালিস্ট আনোয়ার হোসেন, দৈনিক জালালাবাদ’র কোম্পানীগঞ্জ প্রতিনিধি আবুল হোসাইন, সিলেটের ডাক’র গোয়াইনঘাট প্রতিনিধি মনজুর আহমেদ, দৈনিক উত্তরপূর্ব’র বিশ্বনাথ প্রতিনিধি প্রনঞ্জয় বৈদ্য অপু, দৈনিক যুগান্তর’র গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি অজামিল চন্দ্র নাথ, দৈনিক উত্তরপূর্ব’র গোয়াইনঘাট প্রতিনিধি এম এ মতিন, দৈনিক সবুজ সিলেট’র জৈন্তাপুর প্রতিনিধি রেজওয়ানুল করিম সাব্বির, কানাইঘাট নিউজ ডটকম সম্পাদক মাহবুবুর রশিদ, সিলেটভিউ২৪ডটকম’র ফেঞ্চুগঞ্জ প্রতিনিধি ফরিদ উদ্দিন প্রমুখ। পরবর্তীতে এই প্রশিক্ষণার্থীদের নিয়ে আইসিটি মন্ত্রণালয় ১৫ দিনের আরেকটি কর্মশালার আয়োজন করবে।

কানাইঘাটে সূচনার উদ্যোগে অপুষ্টির চক্র প্রতিরোধ মূলক অবহিতকরণ সভা

Kanaighat News on Monday, May 30, 2016 | 9:47 PM


নিজস্ব প্রতিবেদক: অতি দরিদ্র পরিবার সমূহের পুষ্টি পরিস্থিতি উন্নয়নের লক্ষে “বাংলাদেশে অপুষ্টির চক্র প্রতিরোধে একটি প্রয়াস” সূচনার উদ্যোগে কানাইঘাটে এক অবহিতকরণ সভা সোমবার সকাল ১০টায় উপজেলা সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। কানাইঘাট উপজেলার সদর ও ৮নং ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নে উক্ত কর্মসূচী বাস্তবায়নের লক্ষে উক্ত অবহিত করণ সভায় সভাপতিত্ব করেন, বাস্তবায়ন সংস্থা এনজিও এফআইভিডিবি’র নির্বাহী পরিচালক যেহীন আহমদ চৌধুরী। প্রোগ্রাম কো- অর্ডিনেটর তানিম ও পাপিয়ার যৌথ উপস্থাপনায় উক্ত অবহিতকরণ সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মরিয়ম বেগম কানাইঘাটে উক্ত কর্মসূচী বাস্তবায়নে অপুষ্টি চক্র প্রতিরোধে বিভিন্ন মতামত তুলে ধরে সরকারী কর্মকর্তা জনপ্রতিনিধি, গণমাধ্যম, এনজিও প্রতিনিধি ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ হুমায়ুন কবির, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের ডেপুটি কমান্ডার অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম, বড়চতুল ইউপির চেয়ারম্যান মুবেশির আলী, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুন্সী তোফায়েল ইসলাম, সমাজসেবা কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মোঃ নুরুজ্জামান, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা চন্দন চক্রবর্তী, প্রজীপ কর্মকর্তা সেলিম রেজা, কানাইঘাট প্রেসকাবের দপ্তর সম্পাদক সাংবাদিক নিজাম উদ্দিন। উক্ত কর্মসূচী বাস্তবায়নের পার্টনার অর্গানাইজেশন সংস্থা ওয়াল্ডসিফের ডাঃ মাহমুব আলম চৌধুরী, এইচকেআই’র নাজমুল ইসলাম, আইভিআই’র আশফিক খালিক, সেইভ দ্যা চিলড্রেনের ডাঃ মোজাফ্ফর, কর্মসূচী ব্যবস্থাপক সূচনার সেলিম মোড়ল প্রমুখ।

ছাতকে চুরি করা গরুসহ ৬ চোর আটক


ছাতক প্রতিনিধি, সোমবার, ৩০ মে ২০১৬ :: সুনামগঞ্জের ছাতকে পুলিশ-জনতা ধাওয়া করে ৬ গরুচোরকে আটক করা হয়েছে। সোমবার ভোরে সুরমা নদী থেকে তাদেরকে আটক করা হয়। এ সময় চুরি করা ২টি গরুও তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়। আটককৃতরা হলো- সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বটেরতল গ্রামের রইছ আলীর ছেলে হাবিবুর রহমান গেদা (২৮), বিশ্বনাথ উপজেলার কমলপুর গ্রামের আব্দুল আহাদের ছেলে আলী আকবর (২৫), সিলেটের জালালাবাদ থানার মানসিনগর গ্রামের আব্দুর নুরের ছেলে সাইফুর রহমান, একই এলাকার আনজু আলীর ছেলে লিলু মিয়া (৩৩), জমসিদ আলীর ছেলে জামাল আহমদ (২৬) ও চেরাগ আলী (২৮)। থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সোমবার ভোর রাতে ইঞ্জিনচালিত নৌকা দিয়ে গরু চুরির সময় নোয়ারাই ইউনিয়নের চরভাড়া এলাকার লোকজন ৬ চোরকে ধাওয়া করেন। এসময় ছাতক থানা পুলিশকে বিষয়টি অবগত করা হয়। পুলিশ ওই এলাকায় পৌছে স্থানীয় লোকজনকে সাথে নিয়ে ৬ গরুচোরকে আটক করে। এদিকে, গরু চুরির ঘটনায় সোমবার দুপুরে চরভাড়া গ্রামের সৈয়দ মিয়ার পূত্র হোসেন মিয়া বাদী হয়ে ছাতক থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

সিলেটে যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার, খুনের অভিযোগ


সিলেট, সোমবার, ৩০ মে ২০১৬ :: সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় এক যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বিষয়টিকে প্রেমে প্রত্যাখ্যাত হয়ে আত্মহত্যার ঘটনা বলা হলেও এটিকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা বলে দাবি করেছেন নিহত যুবকের পিতা। জানা গেছে, সোমবার সকালে দক্ষিণ সুরমার বরইকান্দি ৪নং রোডের মৃত আব্দুল মতিনের বাড়ীর বারান্দা থেকে ছাদেক মিয়া (২৪) এর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়। ঐ বাড়ীর সদস্যদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, আব্দুল মতিনের মেয়েকে প্রেম ও বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে ব্যর্থ হওয়ায় আত্মহত্যা করেছেন ছাদেক। কিন্তু নিহত যুবকের পিতা উপজেলার হাজরাই চৌধুরীগাওয়ের বাসিন্দা মো. আশিক মিয়া দাবি করেছেন তার ছেলেকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। তিনি সিলেটভিউ২৪ডটকমকে জানান, আব্দুল মতিন তাদের দুরসর্ম্পকের আত্মীয় ছিলেন। তিনি জীবিত অবস্থায় তার পারিবারিক বিভিন্ন কাজে ডাকতেন ছাদেককে। আব্দুল মতিন মারা যাওয়ার পর তার স্ত্রী সুফিয়া বেগমও একইভাবে ছাদেককে পারিবারিকভাবে বিভিন্ন কাজে নিয়োজিত রাখেন। সম্প্রতি আব্দুল মতিনের বাড়ী সংলগ্ন স্থানে মায়ের কিছু পৈত্রিক সম্পত্তির খোঁজ পান ছাদেক মিয়া। এ সম্পত্তি নিয়ে ছাদেকের সাথে সুফিয়া বেগমের মনোমালিন্য হয়। সম্পত্তির জের ধরেই ছাদেককে বাড়ীতে ডেকে নিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ছাদেকের পিতা আশিক মিয়া। তিনি এ হত্যার সুষ্ঠু বিচার দাবিতে দক্ষিণ সুরমা থানায় মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন। উল্লেখ্য যে, সোমবার সকালে দক্ষিণ সুরমা উপজেলার হাজরাই চৌধুরীগাওয়ের বাসিন্দা দিনমজুর মো. আশিক মিয়ার ছেলে ছাদেক মিয়ার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পোস্টমর্টেমের জন্য ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

শেভ করলে ১০০ ডলার জরিমানা করছে আইএস

Kanaighat News on Sunday, May 29, 2016 | 11:36 PM

শেভ করলে ১০০ ডলার জরিমানা করছে আইএস

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: অর্থের জন্য নানান ধরনের ব্যবসার পাশাপাশি এবার অদ্ভুত সব কর ও জরিমানা আরোপ করতে শুরু করেছে আইএস। যেমন কেউ যদি দাড়ি কেটে ফেলে তাহলে তাকে ১০০ মার্কিন ডলার জরিমানা দিতে হবে।

শুধু পুরুষ নয়, যদি কোন নারীর শরীরে আঁটসাঁট অবস্থায় বোরকা দেখা যায় তাহলে তাকেও ২৫ ডলার জরিমানা দিতে হবে। আইএসের উপর প্রকাশিত নতুন একটি প্রতিবেদনে এমনই সংবাদ জানানো হয়েছে।

অর্থনৈতিক সঙ্কটের কারণেই আইএস তাদের দখলকৃত অঞ্চলগুলোতে বিভিন্ন নতুন নতুন ইস্যুতে কর ও জরিমানা বৃদ্ধি অব্যাহত রেখেছে। আইএইচএস নামের একটি গবেষণাধর্মী কোম্পানি তাদের ইরাক এবং সিরিয়ার স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমের ভিত্তিতে এই খবর জানিয়েছে।

আইএইচএসের একজন বিশ্লেষক জানিয়েছেন, গত ৬ মাস ধরে আইএস তাদের খেলাফত অঞ্চলগুলোতে নতুন ইস্যুতে কর বৃদ্ধি শুরু করেছে।যদি কোন পুরুষ দাড়ি কেটে ক্লিন শেভ করে তাহলে তার জন্য ১০০ ডলার এবং যদি কেউ দাড়ি ছাঁটে তাহলে ৫০ ডলার জরিমানা দিতে হবে।কোন পুরুষ যদি লম্বা জোব্বা না পরে তাহলে ৫ ডলার জরিমানা।

কোন নারী আঁটসাঁট বোরকা পরে শরীরের আকৃতি প্রদর্শন করলে তার ২৫ ডলার জরিমানা দিতে হবে। কোন নারীর চোখ যদি প্রকাশ্যে দেখা যায় তাহলে তাকে ১০ ডলার অথবা ২৪ ক্যারেট স্বর্ণের ১ গ্রাম স্বর্ণ জরিমানা দিতে হবে। হাত ও পায়ে মোজা না পরলে ৩০ ডলার।

সবচেয়ে মজার ব্যাপার হচ্ছে, কোন পুরুষের কাছে সিগারেট পেলে ৪৬ ডলার জরিমানা, নারীর ক্ষেত্রে এটা ২৩ ডলার জরিমানা।

২০১৫ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে আইএস তার নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকার ২২ শতাংশ হারিয়েছে। সেই সাথে ধ্বংস হয়ে গেছে তার অর্থ ভাণ্ডার। যে ব্যাপক কর্মকাণ্ডে তারা জড়িয়েছে সেখানে প্রতিমুহূর্তে তাদের প্রয়োজন হাজার হাজার ডলার। সেই সঙ্কট পুরোতেই তাদের এই প্রচেষ্টা।

দাম কমলো স্বর্ণের

দাম কমলো স্বর্ণের

কানাইঘট নিউজ ডেস্ক: কয়েকবার বাড়ার পর ফের কমছে স্বর্ণের দাম। আগামী ৩১ মে (মঙ্গলবার) থেকে নতুন দামে বিক্রি হবে স্বর্ণ ও রূপা।

রোববার (২৯ মে) বাংলাদেশ জুয়েলারি সমিতির সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে স্বর্ণের দাম কমার বিষয়টি জানানো হয়েছে।

নতুন মূল্য তালিকায় ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণ বিক্রি হবে ৪৫ হাজার ৮শ’ ৯৭ টাকায়। বর্তমানে এর দাম রয়েছে ৪৭ হাজার ৪শ’ ১৪ টাকা। ভরিতে কমানো হয়েছে ১ হাজার ৫শ’ ১৬ টাকা।

২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম র্নিধারণ করা হয়েছে ৪৩ হাজার ৮শ’ ৫৬ টাকা। বর্তমান বাজার দর রয়েছে ৪৫ হাজার ৩শ’ ১৪ টাকা। ভরিতে কমানো হয়েছে ১ হাজার ৪শ’ ৫৮ টাকা।

১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণ ১ হাজার টাকা কমায় বিক্রি হবে ৩৭ হাজার ৬শ’ ১৬ টাকায়।

এছাড়াও প্রতি ভরি রূপার দাম কমানো হয়েছে ৫৮ টাকা। বাজার দর রয়েছে ১ হাজার ১শ’ ৬৬ টাকা ভরি।

বাজুস জানায়, আর্ন্তজাতিক বাজারের সঙ্গে মিল রেখেই দেশের বাজারে স্বর্ণ ও রূপার দাম কমানো-বাড়ানো হয়ে থাকে।

সন্তানকে শাস্তি দিতে জঙ্গলে ফেলে এলেন বাবা-মা

সন্তানকে শাস্তি দিতে জঙ্গলে ফেলে এলেন বাবা-মা

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: জাপানের হোক্কাইডো অঞ্চলের উত্তরে একটি পাহাড়ি জঙ্গলে সাত বছরের শিশুকে ফেলে আসার দুই দিন পরও তার সন্ধান পাওয়া যায়নি।

শাস্তি দিতে সন্তানকে জঙ্গলে ফেলে আসেন বাবা-মা। এ কথা জানানোর পর ছেলেটিকে খুঁজতে পুলিশসহ কয়েক শ উদ্ধারকর্মী ওই জঙ্গলে তল্লাশি চালাচ্ছেন।

টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইনের এক খবরে রোববার এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ছেলেটির বাবা-মা পুলিশকে প্রথমে বলেছিলেন, তাকে নিয়ে জঙ্গলে সবজির খোঁজে গিয়েছিলেন তারা। এক পর্যায়ে তাদের ছেলে হারিয়েছে যায়।

কিন্তু পুলিশের উপর্যুপরী জিজ্ঞাসাবাদে ছেলেটির বাবা-মা স্বীকার করেন, শাস্তি হিসেবে তাকে পাঁচ মিনিটের জন্য জঙ্গলে ছেড়ে দেন তারা। পরে প্রায় ৫০০ মিটার পথ ঘুরে এসে দেখেন যেখানে থাকার কথা ছিল, সেখানে ফিরে তার বাবা-মা আর খুঁজে পাননি তাকে।

শতাধিক সদস্যের জরুরি উদ্ধারকর্মীরা জঙ্গলে তল্লাশি অভিযান চালাচ্ছেন। তবে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ছেলেটির কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি।

জকিগঞ্জ ও গোয়াইনঘাটে আ.লীগের ১০ বিদ্রোহী প্রার্থী বহিষ্কার


সিলেট, রবিবার, ২৯ মে ২০১৬ :: দলীয় আদেশ অমান্য করে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীতা বহাল রাখায় জকিগঞ্জ ও গোয়াইনঘাট উপজেলার দশজন চেয়ারম্যান প্রার্থীকে দল থেকে বহিষ্কার করেছে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ। কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুযায়ী দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করায় তাদেরকে দলীয় পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। একইসাথে এসব বহিস্কৃত প্রার্থীদের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ না নিতে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী অঙ্গ-সংগঠনের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। রবিবার রাতে জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক জগলু চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বহিষ্কার আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। জকিগঞ্জ উপজেলায় দলীয় পদ থেকে বহিস্কৃত চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন, বীরশ্রী ইউনিয়নে সালেহ আহমদ, খলাছড়া ইউনিয়নে আব্দুল গফুর ও মাসুক আহমদ, কাজলসার ইউনিয়নে জহিরুল হক খছরু, আতিকুল ইসলাম মনি ও আব্দুল গফুর, সুলতানপুর ইউনিয়নে রফিকুল ইসলাম, বারঠাকুরী ইউনিয়নে জামাল উদ্দিন এবং কসকনকপুর ইউনিয়নে আলতাফ উদ্দিন লস্কর। গোয়াইনঘাট উপজেলার ডৌবাড়ি ইউনিয়নে ইয়াকুব আলীকে দলীয় পদ থেকে বহিস্কার করা হয়েছে। এছাড়াও দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের হয়ে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী অঙ্গ-সংগঠনের যেসব নেতাকর্মীরা প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন তাদের বিরুদ্ধেও খুব শীঘ্রই দলীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

মোদিকে যা লিখে চিঠি দিলো তরুণী!


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: বড় হয়ে ডাক্তার হতে চায় মশাল। কিন্তু আইনের জটে তার সেই ইচ্ছা পূর্ণ হবে কি না, সেটা জানেন না কেউই। জটিলতা কাটাতে এখন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির শরণাপণ্ণ হল এবারের সি বি এস ই পরীক্ষায় এই কৃতী ছাত্রী। দু’‌বছর আগে ধর্মীয় টানাপোড়েনের কারণে পাকিস্তানের সিন্ধ প্রদেশ থেকে মেয়ে মশালকে নিয়ে পালিয়ে এসেছিলেন তার মা‌-‌বাবা। জয়পুরে এসে পড়াশুনো শুরু করে মশাল। এবছরের সি বি এস ই পরীক্ষায় ৯১ শতাংশ নম্বর নিয়ে পাশ করেছে সে। তবুও মশালের চিকিৎসক হওয়ার ইচ্ছে এখনও বিশ বাঁও জলে। কারণ ভারতীয় আইন অনুযায়ী, মেডিক্যাল প্রবেশিকা পরীক্ষায় ভারতীয় নাগরিক ছাড়া বসতে পারে শুধু অনাবাসী ভারতীয়রা। মশাল ভারতে রয়েছে উদ্বাস্তু হিসাবে। জয়পুরে মশালের বাবা ‘‌অ্যানাস্থেসিস্ট’‌-‌এর কাজ করেন। তাঁদের কোনও ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট নেই। চেষ্টা করেও পাওয়া যাচ্ছে না ড্রাইভিং লাইসেন্স। মশাল বলেছে,‘‌এবছর প্রবেশিকা দিতে পারিনি। কিন্তু আমি ডাক্তারই হতে চাই। আমার মা বাবা প্রধানমন্ত্রীর কাছে সাহায্য চেয়ে চিঠি লিখেছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংকেও চিঠি লেখা হয়েছে। যে কোনও উপায়ে হোক পরের বছর প্রবেশিকা দিতে চাই।’‌‌

প্রধানমন্ত্রীর উপহার ‍‌"বীর নিবাস" পেল কানাইঘাটের চার অসহায় মুক্তিযোদ্ধা


নিজস্ব প্রতিবেদক: সিলেট-৫ (কানাইঘাট-জকিগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় হুইপ আলহাজ্ব সেলিম উদ্দিন বলেছেন, মুক্তিযোদ্ধারা হচ্ছেন জাতির শ্রেষ্ট সন্তান। তাদের ত্যাগের বিনিময়ে প্রিয় জন্ম ভূমি বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। তাই মুক্তিযোদ্ধা এবং তাদের পরিবারের কল্যাণে রাষ্ট্র সব ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। তিনি বলেন, মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের সদস্যদের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নানা মুখী যুগান্তকারী উদ্যোগ নিয়েছেন। মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বাসস্থানের ব্যবস্থা এবং তাদের সম্মানী ভাতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। তিনি রবিবার বিকেল ২টায় কানাইঘাট উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে মহান মুক্তিযুদ্ধে অবদানের জন্য কানাইঘাটের ৪ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রদত্ত ৪০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে বাস ভবন নির্মাণ কাজের শুভ উদ্বোধন ও উপহার স্বরূপ ‘বীর নিবাস’ এর চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মোঃ নাজমুল হকের সভাপতিত্বে ও কন্ট্রাক্টর সেলিম চৌধুরীর পরিচালনায় উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশিক উদ্দিন চৌধুরী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তারেক মোহাম্মদ জাকারিয়া, জেলা জাপার সিনিয়র সহ সভাপতি আব্দুশ শহিদ লস্কর বশির, উপজেলা প্রকৌশলী রিয়াজ মাহমুদ, উপজেলা জাপার সভাপতি আলা উদ্দিন মামুন প্রমুখ।

কানাইঘাটে ৩ দিন ব্যাপী কৃষি প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাটে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে ৩দিন ব্যাপী কৃষি প্রযুক্তি মেলা ২০১৬ রবিবার সকাল ১১টায় উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে শুভ উদ্বোধন করেছেন সিলেট-৫ (কানাইঘাট-জকিগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় হুইপ আলহাজ্ব সেলিম উদ্দিন। পরে তিনি সিলেট অঞ্চলে শস্যের নিবিড়তা বৃদ্ধিকরণ প্রকল্পের আওতায় ৩ দিন ব্যাপী কৃষি প্রযুক্তি মেলার বর্ণাঢ্য র‌্যালীতে নেতৃত্ব প্রদান এবং মেলায় অংশগ্রহণকারী বণজ ও ফলজ সমৃদ্ধ স্টল পরিদর্শন করেন। এ সময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন, কানাইঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশিক উদ্দিন চৌধুরী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তারেক মোহাম্মদ জাকারিয়া, জেলা জাপার সিনিয়র সহ সভাপতি আব্দুশ শহিদ লস্কর বশির, কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ হুমায়ুন কবির, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুন্সী তোফায়েল ইসলাম, উপজেলা জাপার সভাপতি আলা উদ্দিন মামুন, রাজাগঞ্জ ইউপির নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ফখরুল ইসলাম, লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউপি চেয়ারম্যান ডাক্তার ফয়েজ আহমদ, উপ সহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মনসুর আলম সহ কানাইঘাট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা এবং জাপা ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ। সেলিম উদ্দিন এমপি কৃষি মেলার উদ্বোধন কালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, বৃক্ষ আমাদের জাতীয় সম্পদ। বৃক্ষ রোপনের মাধ্যমে স্বাবলম্বি হওয়ার পাশাপাশি ফলজ বৃক্ষ আমাদের আমিষের চাহিদা পূরণ করে। জলবায়ুর বিরূপ প্রভাব থেকে দেশকে রক্ষা করতে হলে বৃক্ষ রোপনের উপর আমাদের গুরুত্ব দিতে হবে। দেশকে সবুজ বনায়নে পরিণত করার জন্য প্রতিটি বাড়ী ও চাষাবাদ উপযোগী জমিতে বৃক্ষ রোপন করতে হবে।

ভারতীয় টুরিস্ট ভিসা: এসএমএসে জানা যাবে সাক্ষাতের তারিখ

ভারতীয় টুরিস্ট ভিসা: এসএমএসে জানা যাবে সাক্ষাতের তারিখ

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ঢাকায় ভারতীয় হাইকমিশন রোববার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, ভারতে পর্যটন ভিসার জন্য সাক্ষাতের তারিখ এখন থেকে আবেদনকারীর মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে পাঠানো হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, '৩০মে ২০১৬ থেকে টুরিস্ট ভিসার জন্য আবেদনকারীদের সাক্ষাতের তারিখ ওয়ান-টাইম পাসওয়ার্ডসহ মোবাইলে এসএমএসের মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে'।

'ওই এসএমএস না দেখালে ভারতীয় ভিসা সেন্টারে প্রবেশ করতে ও আবেদনপত্র জমা দিতে দেওয়া হবে না'। এজন্য অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণের সময় আবেদনকারীকে আসল মোবাইল নম্বর লেখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে। 'তবে ৫ জুন ২০১৬ পর্যন্ত সাক্ষাতের তারিখ পাওয়া টুরিস্ট ভিসার আবেদনকারীদের ক্ষেত্রে নতুন এই প্রক্রিয়া প্রযোজ্য হবে না'।

এছাড়া আইভিএসি হেল্পলাইন: ০৯৬১২ ৩৩৩৬৬৬ ও ০৯৬১৪ ৩৩৩৬৬৬ এবং www.hcidhaka.gov.in এ বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে।

ঈদে ই-টোকেন ছাড়াই ভিসার আবেদন
আসন্ন ঈদ উপলক্ষে ভারত ভ্রমণেচ্ছু বাংলাদেশি নাগরিকদের অগ্রিম সাক্ষাতের তারিখ বা ই-টোকেন ছাড়াই সরাসরি ট্যুরিস্ট ভিসার আবেদন গ্রহণ করবে ভারতীয় হাই কমিশন।

ঢাকায় ভারতীয় হাই কমিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে রোববার জানানো হয়, এই প্রথমবারের মত আসন্ন ঈদের ছুটিতে ভারত ভ্রমণেচ্ছু বাংলাদেশি নাগরিকদের জন্য আগামী ৪-১৬ জুন ২০১৬ এক ঈদ ভিসা ক্যাম্পের আয়োজন করেছে ভারতীয় হাই কমিশন। ভিসা আবেদনকারীরা অগ্রিম সাক্ষাতের তারিখ/ই-টোকেন ছাড়াই তাদের ট্যুরিস্ট ভিসার আবেদন সরাসরি এ ঈদ ভিসা ক্যাম্পে জমা দিতে পারবেন।

ভারতীয় হাই কমিশনের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, যেসব আবেদনকারীর সাক্ষাতের তারিখ আছে তারা ঢাকার গুলশান, ধানমণ্ডি, উত্তরা ও মতিঝিল এবং ঢাকার বাইরে বরিশাল, ময়মনসিংহ ও খুলনায় আইভিএসি কেন্দ্রে (ইন্ডিয়ান ভিসা অ্যাপলিকেশন সেন্টার) ভিসা আবেদন জমা দিতে পারবেন। মেডিকেল, বিজনেস ও অন্যান্য ভিসা বিভাগের আবেদনপত্রও সংশ্লিষ্ট আইভিএসি কেন্দ্রগুলোতে গ্রহণ করা হবে।

ভিসা প্রসেসিং ফি সম্পর্কে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ভিসা আবেদন গ্রহণের জন্য ভারতীয় হাই কমিশনের আউটসোর্সিং এজেন্সি ইন্ডিয়ান ভিসা অ্যাপলিকেশন সেন্টারের (আইভিএসি) ভিসা প্রসেসিং ফি ৬শ' টাকা। ভিসা প্রসেসিং ফি ছাড়া আর কোনো ফি নেই। ভিসা প্রদানের ক্ষেত্রে ভারতীয় হাই কমিশনের কোনো এজেন্ট বা মাধ্যম নেই। ভিসা করে দেবার প্রতিশ্রুতি দানকারী ব্যক্তিকে কোনো টাকা না দেয়ার জন্য হাই কমিশনের পক্ষ থেকে পরামর্শও দেয়া হয়েছে।

সিলেটে ১৩ ইউপি চেয়ারম্যানের শপথ গ্রহণ


সিলেট, রবিবার, ২৯ মে ২০১৬ :: সিলেটে শপথ গ্রহণ করেছেন ১৩ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান। সিলেটের জৈন্তাপুর ও গোয়াইনঘাট উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানবৃন্দ শপথ গ্রহণ করেন। রবিবার বেলা ২টার দিকে সিলেট জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এ শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেটের জেলা প্রশাসক জয়নাল আবেদীন। অনুষ্ঠানে জৈন্তাপুর উপজেলার নিজপাট ইউপি চেয়ারম্যান মঞ্জুর এলাহী সম্রাট, জৈন্তাপুর ইউপি চেয়ারম্যান এখলাছুর রহমান, চারিকাটা ইউপি চেয়ারম্যান শাহ আলম চৌধুরী তোফায়েল, দরবস্ত ইউপি চেয়ারম্যান বাহারুল আলম বাহার, ফতেহপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবদুর রশিদ এবং চিকনাগুল ইউপি চেয়ারম্যান আমিনুর রশিদ শপথ গ্রহণ করেন। অন্যদিকে গোয়াইনঘাট উপজেলার নন্দীরগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান কামরুল হাসান আমিরুল, পূর্ব জাফলং ইউপি চেয়ারম্যান লুৎফুর রহমান লেবু, পশ্চিম জাফলং ইউপি চেয়ারম্যান আবদুস সালাম, তোয়াকুল ইউপি চেয়ারম্যান খালেদ আহমদ, রুস্তমপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. শাহাব উদ্দিন শিহাব, আলীরগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া হেলাল এবং ফতেহপুর ইউপি চেয়ারম্যান আমিনুর রশীদ চৌধুরী শপথ গ্রহণ করেন।

সাংবাদিকদের দ্বায়িত্বশীলতার সাথে কাজ করতে হবে: জেলা প্রশাসক


সিলেট, রবিবার, ২৯ মে ২০১৬ :: সিলেটের জেলা প্রশাসক জয়নাল আবেদীন বলেছেন, বর্তমান সময় তথ্য-প্রযুক্তির। মানুষ এখন টিভি ও প্রিন্ট মিডিয়ার চেয়ে অনলাইন গণমাধ্যমের দিকে ঝুকছে। তাই অনলাইন সাংবাদিকতার ভবিষ্যত খুবই উজ্জল। এজন্য অনলাইন সাংবাদিকদের দ্বায়িত্বশীলতার সাথে দেশের জন্য কাজ করতে হবে। রবিবার সন্ধ্যায় সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাবের নতুন সদস্যদের পরিচিতি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, আমি হবিগঞ্জে দ্বায়িত্বপালনকালে যা করতে পারেনি, তা সিলেটে করতে চাইছি। সিলেটের মানুষ খুবই আন্তরিক। সিলেটবাসীর সহযোগিতায় এপর্যন্ত চলতি ইউপি নির্বাচন সব চেয়ে সুষ্ট এবং শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছে। যাহা বাংলাদেশের নির্বাচনের ক্ষেত্রে মডেল। নির্বাচন কমিশন সচিব চলতি ইউপি নির্বাচনের ক্ষেত্রে সিলেটের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি দৈনিক সিলেট ডটকম’র সম্পাদক কবি মুহিত চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সহ-সাধারণ সম্পাদক আজকের সিলেট ডটকম’র প্রধান সম্পাদক এম. সাইফুর রহমান তালুকদারের সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বাসসের সিলেট ব্যুরো প্রধান মকসুদ আহমদ মকসুদ। অনুষ্টানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাবের জীবন সদস্য আফতাব চৌধুরী, ডাঃ মোস্তফা শাহজামান চৌধুরী বাহার, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র (১) রেজাউল হাসান কয়েস লোদী। অনুষ্টানে প্রধান অতিথি ক্লাবের নতুন সদস্যদের মধ্যে চিঠি বিতরণ করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি গোলজার আহমদ হেলাল, কোষাধক্ষ্য মেহেদী কাবুল, তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক কে.এ রহিম, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক তোফায়েল আহমদ, ক্রীড়া ও সাস্কৃতিক সম্পাদক প্রণব কান্তি দে, নির্বাহী সদস্য আব্দুল মুহিত দিদার, মারুফ হাসান, শিব্বির আহমদ, উদয় সমাজ কল্যাণ সংস্থা, সিলেটের সভাপতি সজিবুর রহমান রুবেল, সিলেট মিডিয়া ডটকম সম্পাদক মিসবাহ মনজুর, সিলেট নিউজ ওয়ার্ল্ড ডটকম সম্পাদক আফরোজ খান, সিলেট রিপোর্ট ডটকম সম্পাদক রুহুল আমীন নগরী, সুরমা ভিউ টোয়েন্টিফোর ডটকম সম্পাদক সোহাগ আহমদ, সিলেটের কন্ঠ ডটকম সম্পাদক শাকির আহমদ, নিউজ ওরগান টোয়েন্টিফোর ডটকম’র বার্তা সম্পাদক মাসুদ আহমদ রনি, ডেইলি বিডি নিউজ ডটকম সম্পাদক ফারহানা বেগম হেনা, সিলেট বাংলা নিউজ ডটকম সম্পাদক কামাল আহমদ, সদর বার্তা ডটকম সম্পাদক নূরুল আমিন, সিলেটের কন্ঠ ডটকম নির্বাহী সম্পাদক জাবেদ আহমদ, সিলেট প্রেস ডটকম নির্বাহী সম্পাদক আলতাফুর রহমান আনসার, এমটি নিউজ টোয়েন্টফোর ডটকম’র রাহিবুর রহমান ফয়সল, নববার্তা ডটকম’র সিলেট ব্যুরো প্রধান উদয় জুয়েল, দৈনিক সিলেট ডটকম’র স্টাফ রিপোর্টার তানভীর তালুকদার, আতিকুর রহমান ছামি, নিউজ ওরগান টোয়েন্টিফোর ডটকম’র স্টাফ রিপোর্টার সৈয়দ মোতাহার আহমদ, সিলেট এক্সপ্রস ডটকম’র স্টাফ রিপোর্টার তাসলিমা খানম বিথী, সিলেট মিডিয়া ডটকম’র স্টাফ রিপোর্টার ফাহাদ মারুফ, সোহেল আহমদ, সেলিম আহমদ, সিলেট রিপোর্ট ডটকম’র স্টাফ রিপোর্টার শাহিদ আহমদ হাতিমী, সমাজকর্মী হাসান আহমদ রাসেল প্রমূখ।

ইসলামের ইতিহাসে মাস্টার্স করেছেন মমতা ব্যানার্জি


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: দ্বিতীয়বারের জন্য ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিলেন মমতা ব্যানার্জি৷ তার নামের পাশে ‘জননেত্রী’, ‘অগ্নিকন্যা’ বিশেষণগুলো বসানো হয়৷ মানুষ মমতা সম্পর্কে এমন বেশ কয়েকটি তথ্য এখানে প্রকাশ করা হলো, যেগুলি অনেকেই হয়তো জানেন না৷ ১. ইতিহাসে ব্যাচেলর ডিগ্রি রয়েছে মমতা ব্যানার্জির৷ ইসলামিক হিস্ট্রিতে রয়েছে মাস্টার ডিগ্রি৷ ২. তৈলাক্ত খাবার বা ভাজাভুজি খেতে বিশেষ পছন্দ করেন না মমতা৷ ‘দিদি’ খেতে পছন্দ করেন মুড়ি, চা ও চকোলেট৷ ঘনিষ্ঠ মহলে হালকা মেজাজে আড্ডা দিতে বসলে মুড়ির সঙ্গে আলুর চপ খেতে ভালবাসেন মমতা৷ ৩. প্রতিদিন ট্রেডমিলে অন্তত ৫-৬ কিলোমিটার হাঁটেন মমতা৷ অধিবেশন চলাকালীন বিধানসভার লম্বা করিডর ধরে সহকর্মী, সাংবাদিকদের সঙ্গে হাঁটেন মমতা৷ গল্প করতে করতে একসঙ্গে ১০ কিলোমিটারও হেঁটে ফেলেন মমতা৷ ৪. সাদা তাঁতের শাড়ি পরতে ভালবাসেন মমতা ব্যানার্জি, সঙ্গে একরঙা পাড়৷ এই ধরনের শাড়ি তৈরির জন্য জনপ্রিয় হুগলির ধনেখালি৷ ৫. পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হয়েও দক্ষিণ কলকাতার ঘিঞ্জি হরিশ চ্যাটার্জি স্ট্রিটে টালির বাড়িতে থাকেন মমতা৷ অল্প বৃষ্টিতেই তার বাড়ির সামনে পানি জমে যায়৷ তখন মমতাকে দেখা যায় বাড়ির সামনে পাতা ইঁটের উপর পা রেখে হাঁটতে৷ ৬. প্রকৃতি বিশেষ প্রিয় মমতার৷ সময় পেলেই তাই দার্জিলিংয়ের পাহাড় বা মেদিনীপুরের জঙ্গলে ছুটে যান মমতা৷ ৭. নেচার ফটোগ্রাফি মমতার হবি৷ ৮. সেন্ট্রাল পার্কের সৌন্দর্যায়ন মমতার মস্তিষ্কপ্রসূত৷ ৯. মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গান শুনতে ভালোবাসেন৷ সময় পেলেই শোনেন রবীন্দ্রসঙ্গীত, পাঠ করেন নজরুলের কবিতা৷ ১০. বীরভূমে মমতার মামারবাড়ি৷ ছোটবেলায় মায়ের সঙ্গে মামারবাড়ি গেলেই সেখানকার ধানক্ষেতে খেলা করতেন আজকের মুখ্যমন্ত্রী৷ ১১. পূর্ণ সময়ের রাজনীতিতে আসার আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্টেনোগ্রাফার হিসেবে কাজ করতেন৷ এছাড়াও তিনি কখনও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকতা, কখনো প্রাইভেট টিউটর এমনকী সেলসগার্লের কাজও করেছেন৷ ১২. দুঃসময়ে যারা পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন তাদের কখনও ভোলেন না মমতা৷ মমতার রাজনৈতিক কেরিয়ারে প্রাক্তন কংগ্রেস নেতা সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের বিশেষ ভূমিকা ছিল৷ সেই সুব্রত মুখোপাধ্যায় আজ ফের পূর্ণমন্ত্রী পদে শপথ নিলেন৷ ১৩. মমতা বহু কবিতা, গদ্য, প্রবন্ধ, এমনকী উপন্যাসও লিখেছেন৷ তিনি একজন চিত্রশিল্পীও বটে৷ তার আঁকা ছবি বিক্রি করে প্রাপ্ত টাকার পুরোটাই তিনি দেন পার্টি ফান্ডে৷ ১৪. মুখে মুখে ছড়া তৈরি করতে পারেন এই জননেত্রী৷ বিভিন্ন জনসভায় কোনওরকম স্ক্রিপ্ট ছাড়াই তাই বিরোধীদের নিশানা করে দুই-চার লাইনের ছড়া কাটতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী৷ সেই ছড়া শুনে প্রশংসা আর হাততালিতে ভরিয়ে দেয় উপস্থিত জনতা৷ ১৫. বাংলার লোকশিল্পের প্রতি মমতার আন্তরিক অনুরাগ রয়েছে৷ ১৬. মমতা প্রকৃত অর্থেই একজন টেক-স্যাভি৷ সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করে মানুষের আরও কাছাকাছি পৌঁছে যান মমতা৷ ফেসবুকে লাইভ চ্যাট করেন, নিয়মিত টুইট করেন৷ বিধানসভা নির্বাচনের সময় তিনি ফেসবুক ৩৬০ টুল ব্যবহার করেছেন৷ সূত্র : সংবাদ প্রতিদিন

‘শান্তি রক্ষায় বাংলাদেশ বিশ্বে এখন রোল মডেল’


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস রোববার (২৯ মে)। ‘অনারিং দ্য হিরোজ (বীরদের সম্মানে)’ এ স্লোগানে এবছর বিশ্বজুড়ে নানা আয়োজনে পালিত হচ্ছে দিবসটি। জাতিসংঘ নিয়ন্ত্রিত ‘ব্লু হেলমেট’ বাহিনীর ৩ হাজার ৪০০ প্রয়াত সদস্যকে এ দিনে শ্রদ্ধা জানানো হবে। শান্তি প্রতিষ্ঠায় কর্মস্থলে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে শান্তিরক্ষী বাহিনীর এ সদস্যরা প্রাণ হারিয়েছেন। দিবসটিতে বাণী দিয়েছে জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন। বাণীতে তিনি বলেছেন, বিশ্বের বিভিন্ন বিপজ্জনক পরিবেশে নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছেন শান্তিরক্ষী বাহিনীর সদস্যরা। স্থানীয় বাসিন্দাদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের পাশাপাশি সৌহার্দ্য প্রতিষ্ঠায় অসামান্য ভূমিকা রাখছেন তারা। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশের ভূমিকার ভুয়সী প্রশংসা করেছেন জাতিসংঘ আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল অতুল খারে। বলেছেন, ‘শান্তি রক্ষায় বাংলাদেশ বিশ্বে এখন একটি ব্র্যান্ড নেম (রোল মডেল)’। শান্তিরক্ষী হিসেবে বাংলাদেশি নারী সদস্যদের অংশগ্রহণ সশস্ত্র বাহিনীর ইতিহাসে একটি মাইলফলক। বর্তমানে ২০৭ নারী সদস্য জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী হিসেবে বিভিন্ন দেশে দায়িত্ব পালন করছেন। এরমধ্যে সেনাবাহিনীর ২৪, বিমান নয়, নৌবাহিনী তিন এবং পুলিশ সদস্য ১৭১ সদস্য রয়েছেন। তবে শুরু থেকে এ পর্যন্ত ১ হাজার ৪৭ নারী সদস্য বিভিন্ন সময়ে দায়িত্ব পালন করছেন। এর মধ্যে সেনাবাহিনী ২২১, নৌ ০৬, বিমান ৪৬ এবং পুলিশ বাহিনীর ৭৭৪ সদস্য। শান্তিরক্ষী হিসেবে বাংলাদেশের নারী সদস্যদের উচ্ছসিত প্রশংসা করেছেন মিশনের প্রধান সমন্বয়ক হার্ভে ল্যাডসাউ ।আরব-ইসরায়েল যুদ্ধের পর বিবাদমান সীমান্তে শান্তি সেনা মোতায়েনের মধ্য দিয়ে ১৯৪৮ সালের মে মাসে শান্তিরক্ষী বাহিনীর প্রতিষ্ঠা। ওই সময় এ বাহিনীর নাম দেয়া হয় ‘ইউএন ট্রুস সুপারভিশন অরগানাইজেশ’ (জাতিসংঘ সমঝোতা তদারকি সংস্থা)। ২০০২ সালের ১১ ডিসেম্বর সর্বসম্মত এক প্রস্তাবে ২৯ মে’কে আন্তর্জাতিক শান্তিরক্ষী দিবস হিসেবে অনুমোদন করে জাতিসংঘ। প্রতিষ্ঠার গত ৬৮ বছরে জটিল পরিস্থিতি এড়াতে বিশ্বজুড়ে ৭১ বার শান্তিমিশন কার্যক্রম পরিচালনা করেছে জাতিসংঘ। এসব শান্তি মিশনে বিভিন্ন দেশের ১০ লাখেরও বেশি শান্তিরক্ষী দায়িত্ব পালন করেছে। বিশ্বের চার মহাদেশের ১৬ গোলযোগপূর্ণ স্পটে শান্তিরক্ষায় দায়িত্ব পালন করছে ১ লাখ ২৪ হাজারেরও বেশি শান্তিরক্ষী। জাতিসংঘের ৪৬ সদস্য দেশ শান্তিরক্ষী বাহিনীতে সৈন্য দিয়ে সহায়তা দিয়েছে। এদের অন্যতম বাংলাদেশ। বিশ্বের ১৪ দেশে শান্তিরক্ষার এ কার্যক্রমে বাংলাদেশের বিভিন্ন বাহিনীর ৭ হাজারের কিছু বেশি সদস্য দায়িত্ব পালন করছে। এদের মধ্যে সেনাবাহিনীর ৪ হাজার ৯২৬, নৌবাহিনীর ৫২৪, বিমান বাহিনীর ৬৩৯ এবং পুলিশের ১ হাজার ১১১ জন সদস্য রয়েছে। এগুলো হচ্ছে-কঙ্গো, আইভরি কোস্ট, সোমালিয়া, লাইবেরিয়া, সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপারলিক, লেবানন, হাইতি, দক্ষিণ সুদান, সুদান (দারফুর), পশ্চিম সাহারা, মালি, নেপাল, আফগানিস্তান এবং জাতিসংঘ সদর দপ্তরে শান্তি-শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীরা নিয়োজিত আছেন। ইরাক-ইরান যুদ্ধ বন্ধে শান্তি মিশনে অংশ নিয়ে বাংলাদেশের এ কার্যক্রম শুরু। ১৯৮৮ সালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ১৫ সদস্য জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে প্রথমে অংশ নেয়। বাংলাদেশ নৌবাহিনী ও বিমান বাহিনীর সদস্যরা শান্তিরক্ষা মিশনে প্রথম অংশ নেয় ১৯৯৩ সালে। নামিবিয়ায় ১৯৮৯ সালে অংশ নিয়ে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে যুক্ত হয় বাংলাদেশ পুলিশ। ওইসব দেশে বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীরা মিশন এলাকায় বিবাদমান দলকে নিরস্ত্রীকরণ, মাইন অপসারণ, সুষ্ঠু নির্বাচনে সহায়তা, সড়ক ও জনপথ এবং স্থাপনা তৈরিতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করছেন। এদিকে, শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের শুরু থেকে এ পর্যন্ত জাতিসংঘ পরিচালিত ৬৮ মিশনের মধ্যে ৫৪টিতে ১ লাখ ৪৪ হাজার ৭৩৯ বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী সদস্য অংশ নিয়েছে। বিশ্বের ৪০ দেশে শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নিয়েছে বাংলাদেশের সদস্যরা। এর মধ্যে সেনাবাহিনীর ১ লাখ ১৯ হাজার ৫৪২, নৌবাহিনীর ৩ হাজার ৮৭৫, বিমান বাহিনীর ৫ হাজার ২১৮ এবং পুলিশের ১৬ হাজার ১৯৪ সদস্য। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হিসাব মতে, শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে অংশগ্রহণের মাধ্যমে বছরে গড়ে সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকার মতো বৈদেশিক মুদ্রা আয় করছে। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী (গত ১২ মে,২০১৬) জাতিসংঘ শান্তি মিশনে সেনা, নৌ, বিমান এবং পুলিশ বাহিনীর মোট ১২৮ সদস্য প্রাণ হারিয়েছেন। এর মধ্যে সেনা বাহিনীর ১০৩, নৌ তিন, বিমান বাহিনী চার এবং পুলিশ বাহিনীর সদস্য ১৮। এছাড়া আহত হয়েছেন ২শ। সেনা ১৮৪, নৌ এক, বিমান বাহিনী পাঁচ এবং পুলিশের ১০ সদস্য।

উজ্জ্বল ত্বক চান? তাহলে পাকা আম খান


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: রাজধানীর সর্বত্রই এখন আমের রাজত্ব।পথে-ঘাটেও মিলছে পাকা আম। মৌসুম ফল আম স্বাদেও অতুলনীয়। বিশেষ করে গাছপাকা আমাদের গন্ধও দারুণ। দেখতেও বেশ।ধীরে ধীরে পাকা আম এখন ক্রেতাদের নাগালের মধ্যে চলে এসেছে।নানা উপায়ে আম খাওয়া যায়। জুস থেকে শুরু করে আচার সবই হয় আম দিয়ে। আমে রয়েছে পুষ্টিগুণও। এতে প্রচুর পরিমান ভিটামিন ‘এ’রয়েছে। এছাড়াও শরীরের নানা উপকার করে থাকে যেমন; চোখের নানা রোগ, চুলপড়া, খসখসে চামড়া, হজমের ইত্যাদি সমস্যা দূর করে।আমে আছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন ‘সি’ সেই সাথে আরো আছে ফাইবার যা সিরাম কোলেস্টরলের মাত্রা কমিয়ে দেয়, বিশেষ করে রক্তে উপস্থিত খারাপ কোলেস্টরল যেমন কম ঘনত্বের লাইপোপ্রটিন এর মাত্রা কমাতে সাহায্য। তবে ডায়াবেটিস রোগীদেরকে এই ফলটি বুঝেশুনে খেতে হবে। ত্বকের যত্নেও অনেক উপকারি ভূমিকা পালন করে পাকা আম। ভেতর ও বাইরে থেকে উভয়ভাবেই ত্বককে সুন্দর রাখতে সাহায্য করে আম। ত্বকের লোমের গোড়া পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে আম, ফলে ব্রণের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। আমে রয়েছে টারটারিক এসিড, ম্যালিক এসিড ও সাইট্রিক এসিড যা শরীরে অ্যালকালাই বা ক্ষার ধরে রাখতে সহায়তা করে। প্রয়োজনীয় এনজাইম যা শরীরের প্রোটিন অণুগুলো ভেঙ্গে ফেলতে সাহায্য করে যা হজমশক্তি বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। আমের মধ্যে আছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা কিনা ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে। স্তন, লিউকেমিয়া, কোলনসহ প্রোস্টেট ক্যান্সারকেও প্রতিরোধে সহায়তা করে আম। আম স্বাদে ভরপুর তবে খাবার সময়ে একটু সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। ছোট বাচ্চাদের দিতে হবে পরিমিত পরিমানের।

পাপমুক্ত জীবনের রহস্য


ইসলাম ডেস্ক: দুনিয়াতের কেউই চিরকাল থাকবে না। এজন্য উভয় জগতে সফল হওয়াই জীবনের প্রধান লক্ষ্য। জীবনকে সুখী সুন্দর ও স্বাচ্ছন্দ্যময় করার জন্য আল্লাহর বিধান ও রাসুলের আদর্শ অনুসরণের কোনো বিকল্প নেই। কিন্তু এর জন্য প্রয়োজন পরকালে জবাবদিহিতার বিষয় সর্বদা স্মরণ রাখা। কোরানে অসংখ্য আয়াতে আল্লাহ মানুষকে সতর্ক করে দিয়েছেন যে, পার্থিব জীবনের প্রতিটি কর্ম ও আচরণের জন্য কেয়ামতের ময়দানে পুঙ্খানুপুঙ্খরূপে হিসাব গ্রহণ করা হবে। তাতে যারা উৎরে যাবে, তারাই আল্লাহর প্রিয়ভাজন বলে গণ্য হবে এবং তাদের জন্য অনন্ত শান্তি ও পুরস্কারের সামগ্রী প্রস্তুত রয়েছে। আর যারা এ জবাবদিহিতায় উৎরে যেতে সক্ষম হবে না, তাদের কঠিন পরিণামের জন্য তারা নিজেরাই দায়ী হবে। মানুষের মধ্যে পরকালের জবাবদিহিতার চেতনা জাগরুক থাকলে তার জীবন শুদ্ধ ও উন্নত হতে বাধ্য। ইসলামের বিধানমতে মানুষ যদি পরকালীন জবাবদিহিতার অনুভূতি সর্বদা ধারণ করে রাখে, তাহলে তার প্রতিটি কর্মই পুরস্কারযোগ্য হয়ে যায়। বস্তুত এই অনুভূতিই তাকে অনন্য চালিকাশক্তি হিসেবে নিয়ন্ত্রণ করে এবং সবধরনের অসাধুতা ও অন্যায় ক্রিয়া-কলাপ থেকে নিবৃত্ত রাখে। মানুষ সব অন্যায়-অপকর্ম থেকে বেঁচে থাকলে তাতে সবচেয়ে বেশি মনোকষ্টের শিকার হয় অভিশপ্ত ইবলিস। তাই সে মানুষকে চাতুর্যের সঙ্গে প্রতারিত করার চেষ্টায় লিপ্ত থাকে। আল্লাহর শ্রেষ্ঠ সৃষ্টি আশরাফুল মাখলাকাতকে আল্লহর অভিপ্রায় ব্যর্থ করে দেয়ার চেষ্টা চালায়। সে জন্য অভিনব কৌশল ও ফন্দিতে মানুষের মনোযোগ ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার লক্ষ্যে সে নিরন্তর প্রয়াস চালায়। মানবীয় বুদ্ধিবৃত্তিকে অসার ও অসত্য চিন্তা-দর্শনে নিমজ্জিত করার জন্য নতুন নতুন পরিভাষার জন্ম দেয়। এভাবে মানুষ পাপে জড়ায়। পৃথিবীবাসীর জন্য সবচেয়ে অকল্যাণকর ও মারাত্মক বিষয় পরকাল বিমুখতা। অনন্তকালের জীবন কী উপায়ে সুখময় হবে সে বিষয়ে নিতান্ত উদাসীনতা বর্তমানকালের প্রধান প্রবণতা। মানুষকে উভয় জগতে সফল হতে হলে যে মহান প্রভুর অমোঘ বিধানে বিশ্ব পরিচালিত হচ্ছে, তার সামনে উপস্থিত হয়ে নিজের সবকিছুর হিসাব দেয়ার বাধ্যবাধকতা সর্বদা স্মরণ রেখেই চলতে হবে। সবকিছুর ওপরে থাকবে জবাবদিহিতার বোধ। এই গুণটির উপস্থিতি থাকলে দুনিয়ার কোনো আইনের দরকার হবে না, এমনিতেই মানুষ সব ধরনের অন্যায়-অনাচার থেকে বিরত থাকবে।

মাওলানা হুসাইন আহমদ দূর্লভপুরীর ইন্তেকাল, সোমবার জানাযা


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাটের প্রবীণ আলেম গোলাপগঞ্জ বাঘা মাদরাসার দীর্ঘ দিনের নাইবে মুহতামীম, বন্দরবাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ইমাম হাফিজ মাওঃ আব্দুল করিম এর শ্বশুর মাওঃ হুসাইন আহমদ দুর্লভপুরী ইন্তেকাল করেছেন(ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মরহুমের নামাজের জানাযা সোমবার সকাল সাড়ে নয়টায় দূর্লভপুর জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হবে|

অতিরিক্ত ব্রাশ করলে যা হতে পারে


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: দাঁত পরিষ্কার ও সমস্যা মুক্ত রাখতে অনেকেই দিনে একাধিকবার ব্রাশ করেন। কিন্তু আপনি কি জানেন, প্রয়োজনের অতিরিক্ত দাঁত ব্রাশের ফলে উপকারের তুলনায় অপকারই বেশি হতে পারে। অনেকেই আছেন যারা মনে করেন, প্রতিবার খাওয়ার পরই দাঁত ব্রাশ করা উপকারী। তাদের ধারণা এতে দাঁত পরিষ্কার থাকবে। তবে জানেন তো অতিরিক্ত কোনোকিছুই ভালো নয়। প্রয়োজনের তুলনায় বেশিবার ব্রাশ করার ফলে দাঁতের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটাই বেড়ে যায়। সম্প্রতি একটি স্বাস্থ্য সম্বন্ধীয় সাইটে অতিরিক্ত দাঁত ব্রাশ করার ক্ষতিকর দিকগুলো তুলে ধরা হয়। সেখানে বলা হয়েছে, চা বা কফি খাওয়ার পরপরই দাঁত ব্রাশ করা বেশ ক্ষতিকর। একইভাবে কোমল বা কার্বোনেইটেড পানীয় খাওয়ার পরপরই দাঁত ব্রাশ করা একদমই উচিৎ নয়। কারণ এ ধরনের পানীয় পান করার পরই ব্রাশ করা হলে এতে থাকা অ্যাসিড উপাদান দাঁতের এনামেল পুড়িয়ে ফেলতে পারে। আর ব্রাশ করার ফলে অ্যাসিড দাঁতের এনামেলের ভিতরে এঁটে যায়। নিউ দিল্লির ম্যাক্স সুপারস্পেশিয়ালিটি হাসপাতালের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সকালের ব্রেকফাস্ট এবং রাতের খাবার খাওয়ার পর, এই দুইবার দাঁত ব্রাশ করা উচিৎ। তবে খাবার খাওয়া ও দাঁত ব্রাশ করার মাঝে ৩০ মিনিটের বিরতি রাখতে হবে। এতে অ্যাসিডের মাত্রা কমে আসবে।

পদে পদে যেভাবে হেনস্থার শিকার সেই নাদিয়া!


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ‘দ্য গ্রেট ব্রিটিশ বেক অফ ২০১৫’ চ্যাম্পিয়ন হন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নাদিয়া হোসেইন। লন্ডনের অদূরে লুটন শহরে জন্ম নেয়া নাদিয়ার পৈতৃক বাড়ি সিলেটের বিয়ানীবাজারের মোহাম্মদপুর গ্রামে। শুধু আত্মবিশ্বাসের জোরে তিনি গড়েছেন নতুন ইতিহাস। নাদিয়া পত্রিকায় কলাম লেখেন, রান্নার বই লিখেছেন, বিভিন্ন টিভি শোতে অংশগ্রহণ করেন, লুজ উইমেন নামে একটি টিভি শোতে অতিথি প্যানেলিস্ট হিসেবে দায়িত্বও পালন করেছেন। সম্প্রতি ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলজাবেথের ৯০ তম জন্মদিনে কেকও বানিয়েছেন নাদিয়া। তবু তার মনে অনেক দুঃখ, অনেক কষ্ট। শুধু মুসলিম হওয়া এবং হিজাব পরার ‘অপরাধে’ যুক্তরাজ্যের মতো উদার গণতান্ত্রিক দেশেও হেনস্থার শিকার হতে হচ্ছে তাকে। ব্রিটেনের প্রভাবশালী পত্রিকা টাইমস ম্যাগাজিনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকার নাদিয়া জানালেন বিভিন্ন জঙ্গি হামলার পর অনলাইন থেকে শুরু করে প্রকাশ্যে তাকে কী কী ধরনের হেনস্থার শিকার হতে হয়। নাদিয়া হোসেইন বলেন,‘‘প্রত্যেকটা জঙ্গি হামলার পর মাথায় মেঘের পাহাড় নিয়ে বাইরে বেরোতে হয়। যখন আমি ট্রেনে উঠি তখন মানুষ আমার থেকে দূরে সরে বসেন। আমার পিঠে ব্যাগ অথবা স্যুটকেইস থাকে... আমি যখন বাসে উঠতে যাই লোকজন আমাকে ধাক্কা দেয়, জিনিসপত্র ফেলে দেয়।’’ গত বছরের নভেম্বরে প্যারিসে সন্ত্রাসী হামলার পর তার ভাইকে মৌখিক নির্যাতন করা হয় বলেও নাদিয়া জানান। এতকিছুর পরও যুক্তরাজ্যের প্রতি তার দৃষ্টিভঙ্গি আশাব্যঞ্জক। তিনি মনে করেন, “সবকিছু সত্ত্বেও এটি একটি একীভূত সমাজ। এখানে নেতিবাচক লোকের সংখ্যা অবশ্যই সংখ্যালঘুদের দলে।”

‘সিলেটসহ দেশবাসীর সাথে প্রতারণা করেছে বৃটিশ সরকার


সিলেট, রবিবার, ২৬ মে ২০১৬ :: ব্যয় সংকুচনের কথা বলে বাংলাদেশ থেকে বৃটিশ ভিসা প্রসেসিং সেন্টার ভারতে স্থানান্তর করে এদেশের জনগণের সাথে প্রতারণা করেছে বৃটিশ সরকার। বৃটিশ হাইকমিশন অফিস ঢাকায় রয়েছে, সেখানে সকল প্রকার কার্যক্রম চলছে অথচ শুধুমাত্র ভিসার জন্য নয়া দিল্লী যেতে হচ্ছে বাংলাদেশের আবেদনকারীদের। একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রের জনগণের সাথে কোন দেশের এধরনের বিমাতা সুলভ আচরণ কোন ভাবে কাম্য নয়। ভারতে বৃটিশ ভিসার যেতে হলে ভারতের ভিসাসহ আনুষাঙ্গিক অনেক খরচ বেড়ে যায় একজন আবেদনকারীর। বৃটেন তাদের স্বার্থ বুঝলেও বাংলাদেশের মানুষের দু:খ-দুর্দশা বুঝে না। তাই অবিলম্বে বৃটিশ ভিসা প্রসেসিং সেন্টার ভারত থেকে পুণরায় বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনার দাবি জানিয়েছেন সিলেটের জনগণ। রবিবার সিলেট ডেপলাপমেন্ট কাউন্সিল আয়োজিত ৫দিন ব্যাপী গণস্বাক্ষর সংগ্রহ কর্মসূচীর ৩য় দিনে নগরীর মদিনা মার্কেট এলাকায় এসডিসির নেতৃবৃন্দ একথাগুলো বলেন। গণস্বাক্ষর কর্মসূচীতে স্কুল-কলেজ, মাদরাসা ও বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক-শিক্ষিকা, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক, জনপ্রতিনিধি, বুদ্ধিজীবী, রাজনীতিবিদ, চিকিৎসক, আইনজীবি, সরকারি বেসরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ দলমত নির্বিশেষে সিলেটের বিপুল সংখ্যক জনতা স্বেচ্ছায় গণস্বাক্ষর কর্মসূচীতে অংশ গ্রহণ করেন। এসডিসির মহানগর কমিটির আহŸায়ক মো. আব্দুর রহিম তালুকদারের পরিচালনায় গণস্বাক্ষর কর্মসূচী চলাকালে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান খন্দকার মামুন আলী আখতার, ভারপ্রাপ্ত জেনারেল সেক্রেটারী স্নেহাংষু ভট্টাচার্য সন্টু, এসিসট্যান্ট জেনারেল সেক্রেটারী আব্দুল জলিল, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন খান, দপ্তর সম্পাদক নাছির আহমদ খান, ১০নং ওয়ার্ডের সভাপতি জালাল উদ্দিন সাহাবুল, ৮নং ওয়ার্ডের সভাপতি সিরাজ খান, ৬নং ওয়ার্ডের সহ-সভাপতি জালাল উদ্দিন, ৯নং ওয়ার্ডের সভাপতি স্বপন দাস। গণস্বাক্ষর কর্মসূচী চলাকালে এসডিসির নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, এসডিসির উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য সেলিম আহমদ চৌধুরী, কার্যকরী কমিটির ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক দেওয়ান মাসুদ রাজা চৌধুরী, কোষাধ্যক্ষ শাহিন আহমদ, নির্বাহী সদস্য জাবেদুল ইসলাম দিদার, ৫নং ওয়ার্ড কমিটির সভাপতি মিনু খান, ১৭নং ওয়ার্ডের সভাপতি আব্দুল মালেক, কার্যকরী কমিটির যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক জালাল উদ্দিন শামীম ও ক্রীড়া সম্পাদক আমীন তাহমিদ, ১নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ আহমদ সায়েম, প্রচার সম্পাদক হাফিজুর রহমান টিটু, ৬নং ওয়ার্ডের সহ সাধারণ সম্পাদক বীরেন্দ্র কুমার নাথ, এসডিসির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য খন্দকার আলী আকবর তারেক, ৫নং ওয়ার্ডের নির্বাহী সদস্য তুতিন মিয়া, ৬নং ওয়ার্ডের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল হক, প্রচার সম্পাদক হায়দার আলী সেলিম, ৭নং ওয়ার্ডের নির্বাহী সদস্য শহিদুর রহমান শহিদ ও মহরম আলী মিন্টু মিয়া ও ৯নং ওয়ার্ডের সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার আহমদ প্রমুখ। গণস্বাক্ষর কর্মসূচী চলাকালে মদিনা মার্কেটস্থ হক ম্যানশনের ব্যবসায়ীবৃন্দ ও মার্কেট কমিটি কর্মসূচী পালনে করতে সহায়তা করেন। ৱ

‘বিএনপি নির্মূলের ষড়যন্ত্র সফল হবে না’


ঢাকা: এস.এম. ফয়সল চিশতীকে সভাপতি ও বাহাউদ্দিন বাবুলকে সাধারণ সম্পাদক করে ১৬৫ সদস্য বিশিষ্ট ঢাকা মহানগর উত্তর জাতীয় পার্টির কমিটি গঠন করা হয়েছে। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ঢাকা মহানগর উত্তর পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন করেন। আজ রবিবার বিকালে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের প্রেস অ্যান্ড পলিটিক্যাল সেক্রেটারি সুনীল শুভরায় স্বাক্ষরিত এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। পূর্ণাঙ্গ কমিটির তালিকা সভাপতি-এস.এম. ফয়সল চিশতী, সহ-সভাপতি- সুলতান আহম্মেদ সেলিম (পল্লবী), জাহাঙ্গীর আলম পাঠান (মিরপুর), মোস্তাফিজুর রহমান নাঈম (গুলশান), শামছুল হক (পল্লবী), হাজী সিরাজ (তেজগাঁও), ইব্রাহিম খান (ক্যান্টনমেন্ট), মো. শহীদউল্যা বেপারী (খিলক্ষেত), মো. মজিবর রহমান (উত্তর খান), নজরুল ইসলাম (বাড্ডা), খলিলুর রহমান মোল্লা (রূপনগর), চৌধুরী গোলাম আহমেদ মিলু (বনানী), মো. আলী শেখ (খিলক্ষেত), মো. আলী বাবু (দক্ষিণ খান), কামরুল হুদা কাজল (পল্লবী), মো. হামিদ হাসান (দারুসসালাম), আশেকুল আমীন (উত্তরা), মো. নুরুল ইসলাম (ভাটারা), তারেক আদেল (বনানী), সাধারণ সম্পাদক- বাহাউদ্দিন আহম্মেদ বাবুল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক-জাকির হোসেন জিকু (তুরাগ), কাজী আবুল খায়ের (রামপুরা), নজরুল ইসলাম সরদার (খিলক্ষেত), মাহমুদ হাসান আলাল (উত্তর খান), হাজী কাইয়ুম (আদাবর), সহ-সাধারণ সম্পাদক- শরিফুল ইসলাম শরীফ (বাড্ডা), মো. মহিউদ্দিন তালুকদার মঞ্জু (উত্তরা), শরীফুল আলম সোহেল (উত্তরা), মাহফুজুর রহমান মোল্লা (শাহআলী), মো. আলমাছ উদ্দিন (দারুসসালাম), মো. মনিরুজ্জামান (ভাষানটেক), মো. আলাউদ্দিন আলাল (তুরাগ), সাংগঠনিক সম্পাদক- মো. আ. সাত্তার (গুলশান), মোখলেছুর রহমান মঞ্জু (মিরপুর), শেখ মো. নাসিরউদ্দিন (রূপনগর), মো. আতাউর রহমান (ভাষানটেক), মো. মামুনুর রহমান (বনানী), বজলুল হক মৃধা (ভাটারা), হাজী বাবুল (গুলশান), সিরাজুল ইসলাম (ভাষানটেক), মো. ইসমাইল হোসেন (আদাবর), ফজলুল হক শিশির (দক্ষিণ খান), যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক- মো. হারুন পাটোয়ারী (শিল্পাঞ্চল), লোকমান হোসেন বেঙ্গল (ক্যান্টনমেন্ট), রাজ মো. ওমর ফারুক (শাহআলী), আশরাফুল হক শিবলী (শেরে বাংলানগর), মো. আবু সাঈদ (তুরাগ), অর্থ সম্পাদক- মো. ঈসমাইল হোসেন (বিমানবন্দর), যুগ্ম অর্থ সম্পাদক- মুকুল আমীন (কাফরুল), প্রচার সম্পাদক-এস.এম. হাশেম (মোহাম্মদপুর), যুগ্ম প্রচার সম্পাদক- মো. আক্তারুজ্জামান মাসুম, দপ্তর সম্পাদক-আনিস উর রহমান খোকন (বাড্ডা), যুগ্ম দফতর সম্পাদক- মো. আ. হান্নান (রামপুরা), কৃষি বিষয়ক সম্পাদক-মো. রফিকুল ইসলাম, যুগ্ম কৃষি বিষয়ক সম্পাদক- জহিরুল ইসলাম মিন্টু (বাড্ডা), শ্রম বিষয়ক সম্পাদক- মো. সালেহ (শিল্পাঞ্চল), যুগ্ম-শ্রম বিষয়ক সম্পাদক- কাজী আ. আলী (খিলক্ষেত), তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক- মো. নাজমুল ইসলাম নয়ন (বিমানবন্দর), যুগ্ম তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক- আবু সাঈদ (গুলশান), সাহিত্য, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক- মো. জাকির হোসেন (শেরে বাংলানগর), যুগ্ম সাহিত্য, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক- মো. স্বপন (রামপুরা), শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক- ইদ্রিস আলী কুদু (খিলক্ষেত), যুগ্ম- শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক- সোহেল খন্দকার (উত্তরা পূর্ব), মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক- ক্যাপ্টেন (অবঃ) শামছুল হক (ক্যান্টনমেন্ট), যুগ্ম-মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক- মফিজুল ইসলাম (ভাষানটেক), এনজিও বিষয়ক সম্পাদক- মো. আ. বারেক (তেজগাঁও), যুগ্ম এনজিও বিষয়ক সম্পাদক- সার্জেন্ট (অব.) আক্তার (ক্যান্টনমেন্ট), ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক- এস.এম. হারুন অর রশীদ (বাড্ডা), যুগ্ম ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক- মো. আক্কাস মেম্বর (তুরাগ), মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা- লায়লা নূর (ক্যান্টনমেন্ট), যুগ্ম মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা-জাকিয়া শিল্পী (রূপনগর), যুব বিষয়ক সম্পাদক- মিজানুর রহমান বাবুল (উত্তরখান), যুগ্ম যুব বিষয়ক সম্পাদক- মজিবর রহমান লিটন (উত্তরখান), সমাজ কল্যাণ সম্পাদক- মোতাহার হোসেন সিদ্দিকী শাহীন (রূপনগর), যুগ্ম সমাজ কল্যাণ সম্পাদক- মবিন হোসেন কিশোর (খিলক্ষেত), স্বাস্থ্য, পরিবার পরিকল্পনা ও জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক সম্পাদক- সিরাজুল ইসলাম চন্নু (পল্লবী), যুগ্ম-স্বাস্থ্য, পরিবার পরিকল্পনা ও জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক সম্পাদক- আব্দুল হাকিম খন্দকার (ক্যান্টনমেন্ট), সমবায় বিষয়ক সম্পাদক- মো. শফিকুল ইসলাম লিপন (বাড্ডা), যুগ্ম সমবায় বিষয়ক সম্পাদক- শরীফুল ইসলাম (দক্ষিণ বাড্ডা), শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক- অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফা (ভাষাণটেক), যুগ্ম শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক- মো. রিয়াজ (কাফরুল), আইন বিষয়ক সম্পাদক- এ্যাড. শান্তা ইসলাম, যুগ্ম আইন বিষয়ক সম্পাদক- ফজলুল হক ফজু (গুলশান), তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সম্পাদক- মিন্টু শিকদার (ক্যান্টনমেন্ট), যুগ্ম তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক- মো. সাহিদ (গুলশান), সদস্য- নুরুল ইসলাম নুরু, শফিকুল ইসলাম সেন্টু (কাউন্সিলর), আমানত হোসেন (পল্লবী), দিল মোহাম্মদ দিলু (শেরে বাংলানগর), আ. করিম মেম্বর (বাড্ডা), কামরুল হাসান শাহীন (বাড্ডা), ইউনুছ আলী সরকার (খিলক্ষেত), মো. কামরুজ্জামান (কচুক্ষেত), গণি চৌধুরী (মোহাম্মদপুর), ডাঃ সেলিমা খান (শাহআলী), আমির আলী (গুলশান), নুরুল ইসলাম রিপন (বাড্ডা), মো. ইদ্রিস মিয়া (পল্লবী), মো. সালাউদ্দিন (বনানী), মো. ইউনুছ শরীফ (বনানী), মো. মারজান হোসেন (বনানী), রেজাউল করিম লাভলু (বনানী), মো. শুক্কুর শেখ (পল্লবী), এস.এম. তাহের শাপ্পু (পল্লবী), মজিবুর রহমান শিকদার (মিরপুর), মিয়াজী মো. শহীদুল ইসলাম (রামপুরা), এস.এম. সাইদ মাকসুদ সাইদ (শাহআলী), মো. আ. মোতালেব (পল্লবী), মাহবুবুর রহমান আকন্দ বকুল (বাড্ডা), মো. সালাম (খিলক্ষেত), বজলুর রহমান (ক্যান্টনমেন্ট), আসাদুজ্জামান আসাদ (পল্লবী), মো. আ. হাসান (মীরপুর), আবুল হোসেন (উত্তরখান), ফরিদ আহম্মেদ (তুরাগ), ফারুক আহম্মেদ (তুরাগ), রোজী আক্তার (ক্যান্টনমেন্ট), মিন্নত আলী সরকার (উত্তরা পূর্ব), বাবুল বিশ্বাস (উত্তরা পূর্ব), এম.এ. কুদ্দুস ( মোহাম্মদপুর ), হাজী শমসের ( মোহাম্মদপুর ), মো. শামীম ভুলু ( মোহাম্মদপুর), মোস্তাক হোসেন গুড্ডু ( মোহাম্মদপুর ), এস.এম. সালাউদ্দিন (তেজগাঁও), রেজওয়ানুল ইসলাম নাহীদ (বাডডা), সাইফুল ইসলাম টিটু (বাড্ডা), মোক্তার হোসেন পাঠান (পল্লবী), কাজী স্বপন (মিরপুর), জাহানারা মুকুল, সার্জেন্ট (অব.) মো. আবু তাহের খান (খিলক্ষেত), এস.এম. মাকসুদ সাঈদ (শাহআলী), ফরহাদ উদ্দিন বাদশা (শাহআলী), হাজী জহির (দারুসসালাম), আমীর হোসেন (১৬ নং কাফরুল), মো. সেলিম লেকু (গুলশান), মো. হাসান বাবু (পল্লবী), জামাল হোসেন (পল্লবী), মো. আবুল বাশার (ভাষানটেক), মো. ফিরোজ মিয়া (ভাষানটেক), হাজীআবুল হোসেন (রামপুরা), মো. আবু সুফিয়ান রহমান লিটন (কাফরুল), মহিবুর রহমান (খিলক্ষেত), মহিউদ্দিন ফরাজী (বাড্ডা), মো. মিজানুর রহমান (বাড্ডা), মো. আল আমিন (বাড্ডা), আকরাম হোসেন টিটু (বাড্ডা), কফিল উদ্দিন শিকদার (১নং ওয়ার্ড), লিটন মিয়া (১নং ওয়ার্ড), মো. নুরুন্নবী (উত্তরা পূর্ব), বাবুল বিশ্বাস (উত্তরা পূর্ব), হেলাল উদ্দিন হেলু (রমনা), মো. নাসিম (শিল্পাঞ্চল), বাবুল ভান্ডারী (শিল্পাঞ্চল), মো. আলী (শিল্পাঞ্চল), মো. হালিম (তেজগাঁও), মো. ইফতেখার বাবুল (তেজগাঁও), খালেদুজ্জামান মাসুদ (গুলশান), আয়াত আলী (গুলশান), মিজানুর রহমান তালুকদার (শ্রমিক পার্টি), আলমগীল হোসেন তালুকদার (শ্রমিক পার্টি), রমজান আলী (গুলশান), সাঈদ আলম (গুলশান), মো. শাহজাহান (গুলশান), আকবর আলী (গুলশান)।

ঢাকা উত্তরে জাপার সভাপতি চিশতী, সম্পাদক বাবুল


ঢাকা: এস.এম. ফয়সল চিশতীকে সভাপতি ও বাহাউদ্দিন বাবুলকে সাধারণ সম্পাদক করে ১৬৫ সদস্য বিশিষ্ট ঢাকা মহানগর উত্তর জাতীয় পার্টির কমিটি গঠন করা হয়েছে। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ঢাকা মহানগর উত্তর পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন করেন। আজ রবিবার বিকালে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের প্রেস অ্যান্ড পলিটিক্যাল সেক্রেটারি সুনীল শুভরায় স্বাক্ষরিত এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। পূর্ণাঙ্গ কমিটির তালিকা সভাপতি-এস.এম. ফয়সল চিশতী, সহ-সভাপতি- সুলতান আহম্মেদ সেলিম (পল্লবী), জাহাঙ্গীর আলম পাঠান (মিরপুর), মোস্তাফিজুর রহমান নাঈম (গুলশান), শামছুল হক (পল্লবী), হাজী সিরাজ (তেজগাঁও), ইব্রাহিম খান (ক্যান্টনমেন্ট), মো. শহীদউল্যা বেপারী (খিলক্ষেত), মো. মজিবর রহমান (উত্তর খান), নজরুল ইসলাম (বাড্ডা), খলিলুর রহমান মোল্লা (রূপনগর), চৌধুরী গোলাম আহমেদ মিলু (বনানী), মো. আলী শেখ (খিলক্ষেত), মো. আলী বাবু (দক্ষিণ খান), কামরুল হুদা কাজল (পল্লবী), মো. হামিদ হাসান (দারুসসালাম), আশেকুল আমীন (উত্তরা), মো. নুরুল ইসলাম (ভাটারা), তারেক আদেল (বনানী), সাধারণ সম্পাদক- বাহাউদ্দিন আহম্মেদ বাবুল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক-জাকির হোসেন জিকু (তুরাগ), কাজী আবুল খায়ের (রামপুরা), নজরুল ইসলাম সরদার (খিলক্ষেত), মাহমুদ হাসান আলাল (উত্তর খান), হাজী কাইয়ুম (আদাবর), সহ-সাধারণ সম্পাদক- শরিফুল ইসলাম শরীফ (বাড্ডা), মো. মহিউদ্দিন তালুকদার মঞ্জু (উত্তরা), শরীফুল আলম সোহেল (উত্তরা), মাহফুজুর রহমান মোল্লা (শাহআলী), মো. আলমাছ উদ্দিন (দারুসসালাম), মো. মনিরুজ্জামান (ভাষানটেক), মো. আলাউদ্দিন আলাল (তুরাগ), সাংগঠনিক সম্পাদক- মো. আ. সাত্তার (গুলশান), মোখলেছুর রহমান মঞ্জু (মিরপুর), শেখ মো. নাসিরউদ্দিন (রূপনগর), মো. আতাউর রহমান (ভাষানটেক), মো. মামুনুর রহমান (বনানী), বজলুল হক মৃধা (ভাটারা), হাজী বাবুল (গুলশান), সিরাজুল ইসলাম (ভাষানটেক), মো. ইসমাইল হোসেন (আদাবর), ফজলুল হক শিশির (দক্ষিণ খান), যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক- মো. হারুন পাটোয়ারী (শিল্পাঞ্চল), লোকমান হোসেন বেঙ্গল (ক্যান্টনমেন্ট), রাজ মো. ওমর ফারুক (শাহআলী), আশরাফুল হক শিবলী (শেরে বাংলানগর), মো. আবু সাঈদ (তুরাগ), অর্থ সম্পাদক- মো. ঈসমাইল হোসেন (বিমানবন্দর), যুগ্ম অর্থ সম্পাদক- মুকুল আমীন (কাফরুল), প্রচার সম্পাদক-এস.এম. হাশেম (মোহাম্মদপুর), যুগ্ম প্রচার সম্পাদক- মো. আক্তারুজ্জামান মাসুম, দপ্তর সম্পাদক-আনিস উর রহমান খোকন (বাড্ডা), যুগ্ম দফতর সম্পাদক- মো. আ. হান্নান (রামপুরা), কৃষি বিষয়ক সম্পাদক-মো. রফিকুল ইসলাম, যুগ্ম কৃষি বিষয়ক সম্পাদক- জহিরুল ইসলাম মিন্টু (বাড্ডা), শ্রম বিষয়ক সম্পাদক- মো. সালেহ (শিল্পাঞ্চল), যুগ্ম-শ্রম বিষয়ক সম্পাদক- কাজী আ. আলী (খিলক্ষেত), তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক- মো. নাজমুল ইসলাম নয়ন (বিমানবন্দর), যুগ্ম তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক- আবু সাঈদ (গুলশান), সাহিত্য, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক- মো. জাকির হোসেন (শেরে বাংলানগর), যুগ্ম সাহিত্য, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক- মো. স্বপন (রামপুরা), শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক- ইদ্রিস আলী কুদু (খিলক্ষেত), যুগ্ম- শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক- সোহেল খন্দকার (উত্তরা পূর্ব), মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক- ক্যাপ্টেন (অবঃ) শামছুল হক (ক্যান্টনমেন্ট), যুগ্ম-মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক- মফিজুল ইসলাম (ভাষানটেক), এনজিও বিষয়ক সম্পাদক- মো. আ. বারেক (তেজগাঁও), যুগ্ম এনজিও বিষয়ক সম্পাদক- সার্জেন্ট (অব.) আক্তার (ক্যান্টনমেন্ট), ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক- এস.এম. হারুন অর রশীদ (বাড্ডা), যুগ্ম ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক- মো. আক্কাস মেম্বর (তুরাগ), মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা- লায়লা নূর (ক্যান্টনমেন্ট), যুগ্ম মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা-জাকিয়া শিল্পী (রূপনগর), যুব বিষয়ক সম্পাদক- মিজানুর রহমান বাবুল (উত্তরখান), যুগ্ম যুব বিষয়ক সম্পাদক- মজিবর রহমান লিটন (উত্তরখান), সমাজ কল্যাণ সম্পাদক- মোতাহার হোসেন সিদ্দিকী শাহীন (রূপনগর), যুগ্ম সমাজ কল্যাণ সম্পাদক- মবিন হোসেন কিশোর (খিলক্ষেত), স্বাস্থ্য, পরিবার পরিকল্পনা ও জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক সম্পাদক- সিরাজুল ইসলাম চন্নু (পল্লবী), যুগ্ম-স্বাস্থ্য, পরিবার পরিকল্পনা ও জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক সম্পাদক- আব্দুল হাকিম খন্দকার (ক্যান্টনমেন্ট), সমবায় বিষয়ক সম্পাদক- মো. শফিকুল ইসলাম লিপন (বাড্ডা), যুগ্ম সমবায় বিষয়ক সম্পাদক- শরীফুল ইসলাম (দক্ষিণ বাড্ডা), শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক- অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফা (ভাষাণটেক), যুগ্ম শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক- মো. রিয়াজ (কাফরুল), আইন বিষয়ক সম্পাদক- এ্যাড. শান্তা ইসলাম, যুগ্ম আইন বিষয়ক সম্পাদক- ফজলুল হক ফজু (গুলশান), তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সম্পাদক- মিন্টু শিকদার (ক্যান্টনমেন্ট), যুগ্ম তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক- মো. সাহিদ (গুলশান), সদস্য- নুরুল ইসলাম নুরু, শফিকুল ইসলাম সেন্টু (কাউন্সিলর), আমানত হোসেন (পল্লবী), দিল মোহাম্মদ দিলু (শেরে বাংলানগর), আ. করিম মেম্বর (বাড্ডা), কামরুল হাসান শাহীন (বাড্ডা), ইউনুছ আলী সরকার (খিলক্ষেত), মো. কামরুজ্জামান (কচুক্ষেত), গণি চৌধুরী (মোহাম্মদপুর), ডাঃ সেলিমা খান (শাহআলী), আমির আলী (গুলশান), নুরুল ইসলাম রিপন (বাড্ডা), মো. ইদ্রিস মিয়া (পল্লবী), মো. সালাউদ্দিন (বনানী), মো. ইউনুছ শরীফ (বনানী), মো. মারজান হোসেন (বনানী), রেজাউল করিম লাভলু (বনানী), মো. শুক্কুর শেখ (পল্লবী), এস.এম. তাহের শাপ্পু (পল্লবী), মজিবুর রহমান শিকদার (মিরপুর), মিয়াজী মো. শহীদুল ইসলাম (রামপুরা), এস.এম. সাইদ মাকসুদ সাইদ (শাহআলী), মো. আ. মোতালেব (পল্লবী), মাহবুবুর রহমান আকন্দ বকুল (বাড্ডা), মো. সালাম (খিলক্ষেত), বজলুর রহমান (ক্যান্টনমেন্ট), আসাদুজ্জামান আসাদ (পল্লবী), মো. আ. হাসান (মীরপুর), আবুল হোসেন (উত্তরখান), ফরিদ আহম্মেদ (তুরাগ), ফারুক আহম্মেদ (তুরাগ), রোজী আক্তার (ক্যান্টনমেন্ট), মিন্নত আলী সরকার (উত্তরা পূর্ব), বাবুল বিশ্বাস (উত্তরা পূর্ব), এম.এ. কুদ্দুস ( মোহাম্মদপুর ), হাজী শমসের ( মোহাম্মদপুর ), মো. শামীম ভুলু ( মোহাম্মদপুর), মোস্তাক হোসেন গুড্ডু ( মোহাম্মদপুর ), এস.এম. সালাউদ্দিন (তেজগাঁও), রেজওয়ানুল ইসলাম নাহীদ (বাডডা), সাইফুল ইসলাম টিটু (বাড্ডা), মোক্তার হোসেন পাঠান (পল্লবী), কাজী স্বপন (মিরপুর), জাহানারা মুকুল, সার্জেন্ট (অব.) মো. আবু তাহের খান (খিলক্ষেত), এস.এম. মাকসুদ সাঈদ (শাহআলী), ফরহাদ উদ্দিন বাদশা (শাহআলী), হাজী জহির (দারুসসালাম), আমীর হোসেন (১৬ নং কাফরুল), মো. সেলিম লেকু (গুলশান), মো. হাসান বাবু (পল্লবী), জামাল হোসেন (পল্লবী), মো. আবুল বাশার (ভাষানটেক), মো. ফিরোজ মিয়া (ভাষানটেক), হাজীআবুল হোসেন (রামপুরা), মো. আবু সুফিয়ান রহমান লিটন (কাফরুল), মহিবুর রহমান (খিলক্ষেত), মহিউদ্দিন ফরাজী (বাড্ডা), মো. মিজানুর রহমান (বাড্ডা), মো. আল আমিন (বাড্ডা), আকরাম হোসেন টিটু (বাড্ডা), কফিল উদ্দিন শিকদার (১নং ওয়ার্ড), লিটন মিয়া (১নং ওয়ার্ড), মো. নুরুন্নবী (উত্তরা পূর্ব), বাবুল বিশ্বাস (উত্তরা পূর্ব), হেলাল উদ্দিন হেলু (রমনা), মো. নাসিম (শিল্পাঞ্চল), বাবুল ভান্ডারী (শিল্পাঞ্চল), মো. আলী (শিল্পাঞ্চল), মো. হালিম (তেজগাঁও), মো. ইফতেখার বাবুল (তেজগাঁও), খালেদুজ্জামান মাসুদ (গুলশান), আয়াত আলী (গুলশান), মিজানুর রহমান তালুকদার (শ্রমিক পার্টি), আলমগীল হোসেন তালুকদার (শ্রমিক পার্টি), রমজান আলী (গুলশান), সাঈদ আলম (গুলশান), মো. শাহজাহান (গুলশান), আকবর আলী (গুলশান)।

সিলেটে শুটিংয়ে বোমা বিস্ফোরণে আহত হয়েছেন ববিসহ আরো ২


সিলেট, রবিবার, ২৯ মে ২০১৬ :: শুটিং করতে গিয়ে গুরুতর আহত হয়েছেন ববি। গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ১১ টায় সিলেটের একটি শুটিং স্পটে এ ঘটনা ঘটে। এসময় তার সাথে আরো আহত হন নায়ক রণবীর ও কৌতুক অভিনেতা সীমান্ত। একটি বোমা বিস্ফোরণের দৃশ্যে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, সিলেট শহর থেকে প্রায় দু ঘন্টা দূরত্বে একটি শুটিং স্পটে কাজ চলছিল তখন। রাত সাড়ে ১১ টার দিকে অ্যাকশন দৃশ্যাটি শুরু হয়। নায়ক এবং নায়িকা দৌড়াতে থাকে। তাদের সামনেই বিস্ফোরণ ঘটতে থাকে বোমা। কিন্তু দুর্ঘটনাক্রমে তাদের খুব কাছেই একটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটে। সাথে সাথে আহত হন ববি, রণবীর ও সীমান্ত। সীমান্ত কিছুটা কম আহত হলেও পুড়ে যায় ববি ও রণবীরের শরীরের কিছু অংশ। সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত হন ববি। তার বাম হাত, উরু এবং হাঁটু ঝলসে যায়। রাতেই সিলেটের একটি বেসরকারী হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয় তাদের। বর্তমানে কিছুটা সুস্থ রয়েছেন তারা। তবে আগামী কয়েকদিন শুটিং করার মত অবস্থা নেই তাদের। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ববি বলেন, 'শরীরে অসহ্য যন্ত্রনা হচ্ছে। আপাতত কথা বলার মত অবস্থা নেই আমার। দোয়া করবেন যেন তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে উঠি। উল্লেখ্য, ববির হোম প্রোডাকশন ববস্টার ফিল্মস এর ব্যানারে নির্মিত হচ্ছে এ বিজলী ছবিটি। এটি পরিচালনা করছেন ইফতেখার চৌধুরী।

ফাইনালে খেলছেন মুস্তাফিজ, নিশ্চিত করলেন নিজেই

ফাইনালে খেলছেন মুস্তাফিজ, নিশ্চিত করলেন নিজেই
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারের আগে বড় একটা ধাক্কা খেয়েছিল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। হ্যামস্ট্রিং চোটের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচেই খেলতে পারেননি দলের অন্যতম ভরসা মুস্তাফিজুর রহমান।

তবে আজ ফাইনালে খেলতে পারবেন কিনা এনিয়ে ছিল নানা সংশয়। ভারতের সৌরভ গাঙ্গুলি থেকে শুরু করে সমর্থকরা চান আজ ফাইনালে খেলুক মুস্তাফিজ।
কিন্তু কয়েকটি সূত্রে জানা যায়, আজও নাকি খেলতে পারছেন না মুস্তাফিজ। অবশ্য সেটি পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া যাবে টসের সময়। কারণ তখনই ওয়ার্নার বলবেন আজ মুস্তাফিজ দলে আছেন কিনা।

তবে সবকিছুকে ছাপিয়ে মুস্তাফিজ যে আজকের ফাইনালে খেলছেন এটি এখন অনেকটাই নিশ্চিত। কারণ রোববার সন্ধ্যা ৭টার দিকে মুস্তাফিজ তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে খেলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আজ আইপিএলের ফাইনালে রাত সাড়ে ৮টায় বেঙ্গালুরুর মুখোমুখি হচ্ছে তার দল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। গ্রুপ পর্বের ১৪টি ম্যাচ ও এলিমিনেটর ম্যাচসহ মোট ১৫ ম্যাচেই একাদশে ছিলেন মুস্তাফিজ। তাতে মোট ১৬ উইকেট শিকার করেছেন।

এবার যারা ন্যূনতম ১০ ওভার বল করেছেন তাদের মধ্যে ফিজের ইকোনোমি সবচেয়ে কম। ৫৭ ওভার বল করে তার ইকোনোমি ৬.৭৩।

সব চেষ্টা ব্যর্থ, হজে যেতে পারছেন না ইরানিরা


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্কের টানাপোড়েন সৃষ্টি হওয়ার পর থেকেই ধারণা করা হচ্ছিল এবার ইরানিরা হজ করার জন্য সৌদি আরবে যেতে জটিলতা হবে। সেটাই সত্য হলো। অবশেষে চূড়ান্তভাবেই সিদ্ধান্ত হয়েছে, এবার ইরানি কোনো হাজি সরাসরি ইরান থেকে হজে যেতে পারবেন না। তবে অন্য দেশ থেকে ইরানি নাগরিকরা হজের সুযোগ পাবেন। ইরানের সংস্কৃতিমন্ত্রী আলি জান্নাতি রবিবার সৌদি আরবের সৃষ্ট প্রতিবন্ধকতাকে এরজন্য দায়ী করেছেন। তার বরাত দিয়ে দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে বলা হয়েছে, সৌদি আরবের সঙ্গে হজ নিয়ে পরপর দুটি বৈঠক ফলাফল ছাড়াই শেষ হয়। সৌদি আরবের বাধার কারণে চলতি বছর ইরানি হাজিরা হজে যেতে পারছেন না। চলতি বছর সেপ্টেম্বরে হজ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। সৌদি কর্মকর্তারা বলছেন, শুক্রবার ইরানি প্রতিনিধিদল সৌদিতে তাদের সফর শেষ করে। কিন্তু এ সফরকালে হজের বিষয়ে চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছানো যায়নি। সৌদি’র হজ মন্ত্রণালয় বলছে, দুদিনের বৈঠকে তারা অনেকগুলো প্রস্তাব রেখেছিলেন। কিন্তু শেষপর্যন্ত চূড়ান্ত সমঝোতায় পৌঁছানো সম্ভব হয়নি। চলতি বছর জানুয়ারিতে সৌদি আরব বিখ্যাত এক শিয়া ধর্মীয় নেতার ফাঁসি দেয়ার পর ইরানিরা তেহরানে সৌদি দূতাবাসে হামলা ও অগ্নিসংযোগ করে। এরপর রিয়াদ ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে। এছাড়া আঞ্চলিক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে শিয়াপন্থী ইরানের সঙ্গে সুন্নি সংখ্যাগরিষ্ঠ সৌদি আরবের বিরোধ রয়েছে। গত বছর হজ চলাকালে মিনায় পদদলিত হয়ে দুই হাজারের বেশি লোক মারা যান। এর মধ্যে ইরানি হাজির সংখ্যাই বেশি। মুসলিম বিশ্বের অন্য কোনো দেশ এ ব্যাপারে সৌদি আরবকে সরাসরি দোষারোপ না করলেও ইরান এই ঘটনায় সৌদি আরবকে দায়ী করে। এ নিয়ে চির শত্রু ভাবাপন্ন দুটি মুসলিম দেশের কূটনৈতিক সম্পর্কে টানাপোড়েন দেখা দেয়। গত জানুয়ারি থেকে তা চূড়ান্ত রূপ নেয় এবং কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন হয়ে যায়।

সিম নিবন্ধনে সময় আর বাড়ছে না


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: বায়োমেট্রিক (আঙ্গুলের ছাপ) পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধনে সময় আর বাড়ছে না। ৩১ মের মধ্যে সিম পুনঃনিবন্ধন না করলে ১ জুন থেকে তা ২ মাসের জন্য বন্ধ হয়ে যাবে। সচিবালয়ে রবিবার বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম-রিম রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রমের সার্বিক বিষয় নিয়ে সংবাদ সম্মেলন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম এ সব তথ্য জানান। বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে শনিবার পর্যন্ত ১০ কোটি ৯ লাখ সিম রেজিস্ট্রেশন হয়েছে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘৩১ মে নিবন্ধনের শেষ দিনে সকাল থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত আমার সিনিয়র সিটিজেনদের (ষাটোর্ধ্ব নাগরিকরা) অগ্রাধিকার দেব। এছাড়া নিবন্ধন সংক্রান্ত কোন সমস্যার জন্য নাগরিকরা ১৬১০৩ নম্বরে ফোন করে জেনে নিতে পারবেন সমস্যা সমাধানে তাদের কোথায় যেতে হবে।’ তারানা হালিম বলেন, ‘একটি জাতীয় পরিচয়পত্রের বিপরীতে কয়টি সিম রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে আগামী জুন মাসের শেষে বা জুলাই মাসের শুরুতে তা গ্রাহককে এসএমএসের মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে।’

পুরুষের পর্দায় নিরাপদ থাকবে নারী


ওয়ালি উল্লাহ সিরাজ :আল্লাহপাক মানুষকে সৃষ্টি করেছেন এবং তাদেরকে সমগ্র মাখলুকের উপর শ্রেষ্ঠত্ব দান করেছেন। সাথে সাথে আল্লাহপাক নারী ও পুরুষ হিসেবে মানবজাতির শ্রেণী বিন্যাস করেছেন। মানুষকে একই আত্মা থেকে সৃষ্টি করলেও তিনি মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দিয়েছেন বহু পুরুষ ও নারী। আল্লাহপাক ইরশাদ করেছেন,‘হে মানুষ, তোমরা তোমাদের রবকে ভয় কর, যিনি তোমাদেরকে সৃষ্টি করেছেন এক নফস থেকে। আর তা থেকে সৃষ্টি করেছেন তার স্ত্রীকে এবং তাদের থেকে ছড়িয়ে দিয়েছেন বহু পুরুষ ও নারী। আর তোমরা আল্লাহকে ভয় কর, যার মাধ্যমে তোমরা একে অপরের কাছে চেয়ে থাক। আর ভয় কর রক্ত-সম্পর্কিত আত্মীয়ের ব্যাপারে। নিশ্চয়ই আল্লাহ তোমাদের উপর পর্যবেক্ষক’। আল্লাহপাক মানব জাতিকে সৃষ্টি করার পর নারী ও পুরুষ উভয়কে কিছু বৈশিষ্ট্য দান করেছেন। নারী যেমন কিছু স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যের অধিকারী, অনুরূপ পুরুষের ও রয়েছে কিছু স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য। নারী ও পুরুষের বৈশিষ্টগত পার্থক্যটা অনেকটাই সৃষ্টিগত; যা আমরা কেউ অস্বীকার করতে পারি না। আর কিছু পার্থক্য আছে দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে। নারীদের দায়িত্ব ও পুরুষের দায়িত্ব কখনো এক নয়। একজন পুরুষ যে দায়িত্ব পালন করতে পারে, নারীরা তা পারে না। আবার একজন নারী যে কাজ করতে পারে, একজন পরুষ তা করতে পারে না। নারীর জন্য সন্তান লালন-পালন, স্বামীর খেদমত, বাড়ির ঘরের রান্না-বান্না ইত্যাদি কর্মই হল শোভনীয়। আর পুরুষের জন্য খেত-খামার, চাকরি, ব্যবসা-বাণিজ্য ইত্যাদি শোভনীয়। তাই নারীর উচিৎ ঘরে থাকা। ঘরের কাজ করা। প্রয়োজন হলে অবশ্যই বের হবে। তবে পর্দার করে বের হবে। ইসলাম ধর্মে শুধু নারী উপর পর্দা ফরজ করেনি। বরং নারী ও পুরুষ উভয়ের উপর বিধানাবলী সমানভাবে ফরজ করেছে। আল্লাহপাক পবিত্র কুরআনে ইরশাদ করেছেন,‘হে বনী আদম! তোমাদের শরীরের লজ্জাস্থানগুলো ঢাকার এবং তোমাদের দেহের সংরক্ষণ ও সৌন্দর্য বিধানের উদ্দেশ্যে আমি তোমাদের জন্য পোশাক নাযিল করেছি। আর তাকওয়ার পোশাকই সর্বোত্তম। এটি আল্লাহর নিদর্শনগুলোর অন্যতম, সম্ভবত লোকেরা এ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করবে।’-(আরাফ:২৬) এই আয়াতে আল্লাহ শুধু পুরুষদেরকে তাদের লজ্জাস্থান ডেকে রাখার কথা বলেননি। রবং নারী পুরুষ উভয়কে তাদের লাজ্জাস্থান ডেকে রাখতে বলেছেন। সুতরাং পর্দা শুধু নারীর উপর ফরজ নায়। আল্লাহপাকের এই বিধান নারী পুরুষ সকলের উপর ফরজ। আমাদের সমাজে ধর্মীয় গোঁড়ামি, অজ্ঞতা ও কুসংস্কারের কারণে নারীদের পুরুষের চাপিয়ে দেওয়া অনেক বিধানের যাঁতাকলে পৃষ্ঠ হতে হয়। যদিও শরিয়তের ওই বিধানাবরী পুরুষের জন্যও প্রযোজ্য। ইসলামের এমনই একটি অবশ্যপালনীয় বিধান হলো পর্দা, যা নারী-পুরুষ উভয়ের ওপর আরোপিত হয়েছে। কিন্তু যুগে যুগে এই পর্দাপ্রথা নারীর ওপর কঠোরভাবে পালনের নামে নারীকে বস্তুত কারাগারের ন্যায় অন্ধকার জীবনযাপনে বাধ্য করা হয়েছে। সুতরাং যদি এই পর্দার বিধানাবলী নারীর পাশাপাশি পুরুষও যথাযথভাবে পালন করে, তবে সর্বত্র নারী নিরাপদে চলাফেরা করতে পারবে। বলে রাখা ভালো, পর্দার বিধান কিছু ক্ষেত্রে শিথিল করা হয়েছে। যেমন- ডাক্তার রোগীকে দেখার স্বার্থে তার মুখমণ্ডল শুধু নয়, প্রয়োজন হলে সতরও দেখতে পারবে। পরিশেষে, পুরুষের ওপর অর্পিত শরিয়তের পর্দার বিধানাবলী যদি পুরুষ যথাযথভাবে মেনে চলে; তাহলে নারীকে পর্দাপ্রথার নামে ঘরে বন্দি করে রাখার প্রয়োজন হবে না। আর যদি এমনটি সম্ভব হয়, তবে সমাজে অনাচার- বিশেষ করে বর্তমান সময়ে আলোচিত যৌন হয়রানির জন্য আলাদা কোনো আইন প্রণয়নের আবশ্যকতা থাকবে না। কারণ ধর্মের বিধান অনুসারে পুরুষরা পথ-ঘাট এবং কর্মক্ষেত্রে দৃষ্টি সংযত রেখে চলাফেরা করবে। আর এর মাধ্যমে নারী নিরাপদ থাকবে। বস্তুত, পুরুষ যদি শরিয়ত মেনে পর্দা পালন করে; তবে সর্বদা নারী থাকবে নিরাপদ। লেখক: আলেম ও গণমাধ্যমকর্মী

হবিগঞ্জে আ.লীগ ১৩, বিএনপি ৪: বিদ্রোহীদের দাপট

Kanaighat News on Saturday, May 28, 2016 | 10:52 PM


হবিগঞ্জ সংবাদদাতা, শনিবার, ২৮ মে ২০১৬ :: হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর, লাখাই, নবীগঞ্জ ও বানিয়াচং উপজেলার ৩১টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে আওয়ামী লীগ ১৩, বিএনপি ৪ ও ১৪টিতে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী বেসরকারিভাবে জয়ী হয়েছেন। এর মধ্যে লাখাই উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নে নির্বাচিত চেয়ারম্যানরা হলেন- ১নং লাখাই ইউনিয়নে (বিএনপি) আরিফ আহমেদ রুপন, ২নং মুড়াকড়ি ইউনিয়নে (আ.লীগ বিদ্রোহী) আবুল কাশেম মোল্লা ফয়সল, ৩নং মুড়িয়াউক ইউনিয়নে (আ.লীগ বিদ্রোহী) মলাই মিয়া, ৪নং বামৈ ইউনিয়নে (আ.লীগ বিদ্রোহী) এনামুল হক মামুন, ৫নং করাব ইউনিয়নে (আ.লীগ) আব্দুল হাই কামাল, ৬নং বুল্লা ইউনিয়নে (আ.লীগ) শেখ মুক্তার হোসেন বেনু। মাধবপুর উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে- ১নং ধর্মঘর ইউনিয়নে (বিএনপি) শামসুল ইসলাম কামাল, ২নং চৌমুহনী ইউনিয়নে (আ.লীগ) মো. আপন মিয়া, ৩নং বহরা ইউনিয়নে (আ.লীগ বিদ্রোহী) আরিফুর রহমান আরিফ, ৪নং আদাঐর ইউনিয়নে (আ.লীগ) মো. ফারুক পাঠান, ৫নং আন্দিউড়া ইউনিয়নে (আ.লীগ) আলহাজ আতিকুর রহমান, ৬নং শাহজাহানপুর ইউনিয়নে (আ.লীগ বিদ্রোহী) তৌফিকুল আলম চৌধুরী, ৭নং জগদীশপুর ইউনিয়নে (আ.লীগ) সফিকুল ইসলাম, ৮নং বুল্লা ইউনিয়নে (বিএনপি) শামছুল ইসলাম মামুন, ৯নং নোয়াপাড়া ইউনিয়নে (স্বতন্ত্র) সৈয়দ আবু নাসিম মো. আলমগীর, ১০নং ছাতিয়াইন ইউনিয়নে (আ.লীগ বিদ্রোহী) আব্দুস সহিদ, ১১নং বাঘাসুরা ইউনিয়নে (আ.লীগ বিদ্রোহী) শাহাব উদ্দিন আহমেদ। নবীগঞ্জ উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নে- ১নং বড় ভাকৈর পশ্চিম ইউনিয়নে (আ.লীগ বিদ্রোহী) সত্যজিৎ দাশ, ২নং বড় ভাকৈর পূর্ব (বিএনপি বিদ্রোহী) আশিক মিয়া, ৩নং ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নে (স্বতন্ত্র) বজলুর রশিদ, ৪নং দীঘলবাক ইউনিয়নে (আ.লীগ) আবু সাঈদ এওলা, ৫নং আউশকান্দি ইউনিয়নে (স্বতন্ত্র) মুহিবুর রহমান হারুন, ৬নং কুর্শি ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান (আ.লীগ) আলী আহমেদ মুসা, ৭নং করগাঁও ইউনিয়নে (বিএনপি) ছাঈম উদ্দিন, ৮নং নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নে (আ.লীগ) সাজু আহমেদ চৌধুরী, ৯নং বাউশা ইউনিয়নে (আ.লীগ) আবু সিদ্দিক, ১০নং দেবপাড়া ইউনিয়নে (আ.লীগ বিদ্রোহী) অ্যাডভোকেট জাবেদ আলী, ১১নং গজনাইপুর ইউনিয়নে (আ.লীগ) ইমদাদুর রহমান মুকুল, ১২নং কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নে (স্বতন্ত্র) নজরুল ইসলাম, ১৩নং পানিউমদা ইউনিয়নে (আ.লীগ) ইজাজুর রহমান। বানিয়াচং উপজেলার সুজাতপুর ইউনিয়নে (আ.লীগ) মো. আব্দুল কুদ্দুছ শামীম। জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন চৌধুরী এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আল্লামা মাহমুদ মাদানী সিলেট আসছেন ৬ জুন


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: রহমত, বরকত ও নাযাতের পয়গাম নিয়ে আসছে পবিত্র মাহে রমজান। এই মাস আত্মশুদ্ধির মাস, গুনাহ মাফের মাস। আর আত্মশুদ্ধি অর্জন ও আল্লাহর সাথে কিভাবে সুসম্পর্ক স্থাপন করা যায় সে সম্পর্কে দিক নির্দেশনা দিতে সিলেট আসছেন বিশ্ব মুসলিমের অন্যতম আধ্যাত্মিক রাহবার, জানিশীনে ফেদায়ে মিল্লাত (রহ.), আওলাদে রাসূল (সা:) আল্লামা সায়্যিদ মাহমুদ মাদানী দামাত বারাকুতুহুম। তিনি পবিত্র রমজানের প্রথম সপ্তাহ সিলেটের ঐতিহ্যবাহী নয়াসড়ক জামে মসজিদে অবস্থান করবেন। অবস্থানকালীন তিনি মুসল্লিদের হেদায়াতের জন্য ঈমান-আমল, আদব-আখলাক তাসাউফের মেহনত ও পদ্ধতি সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ ইসলাহী বয়ান পেশ করবেন। উক্ত মোবারক মাহফিলে সকল মুসলমানদের উপস্থিত থাকার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। এই বরকতময় মাহফিল সুন্দরভাবে বাস্তবায়ন করার জন্য সকলের দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেছেন ইন্তেজামিয়া কমিটির সভাপতি খলিফায়ে ফেদায়ে মিল্লাত মাওলানা আলীম উদ্দীন দুর্লভপুরী ও মুফতী মাওলানা রশীদ আহমদ। উল্লেখ্য, হযরত মাদানী ৬ জুন থেকে ১২ জুন পর্যন্ত নয়াসড়ক মসজিদে অবস্থান করবেন ।

বালাগঞ্জে আওয়ামী লীগ ৪, বিএনপি ২


সিলেট, শনিবার, ২৮ মে ২০১৬ :: সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার ৬ ইউনিয়নের মধ্যে ৪টিতে আওয়ামী লীগ ও ২টিতে বিএনপির প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। শনিবার অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের সর্বশেষ প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী বেসরকারিভাবে ঘোষিত বিজয়ীদের মধ্যে- উপজেলার পূর্ব গৌরীপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হিমাংশু রঞ্জন দাশ। সবক’টি কেন্দ্রের ভোট গণনা শেষে প্রাপ্ত ফলাফলে নৌকা প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ২১৪৩টি ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি মনোনীত প্রার্থী এম মুজিবুর রহমান পেয়েছেন ২০০৩ ভোট। পশ্চিম গৌরীপুর ইউনিয়নে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী আমিরুল ইসলাম মধু। নৌকা প্রতিক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ২৯৯৩ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী নাসির উদ্দিন চশমা প্রতিকে পেয়েছেন ১৮০২ ভোট। বোয়ালজুড় ইউনিয়নে জয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আনহার মিয়া। বালাগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনহার মিয়া এর আগেও দু’বার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। পূর্ব পৈলনপুর ইউনিয়নে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী আব্দুল মতিন। বালাগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন বিএনপি আব্দুল মোনিম। ধানের শীর্ষ প্রতিক নিয়ে ভোটযুদ্ধে নামা মোনিমের লড়াই হয়েছে আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী আব্দুল মতিনের সাথে। সিলেটের বালাগঞ্জ উপজলার দেওয়ানবাজার ইউনিয়নে বিজয়ী হয়েছেন বিএনপি প্রার্থী নজমুল আলম। ধানের শীর্ষ প্রতিকে তিনি পেয়েছেন ৬৭২৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী রাজু মিয়ার মোটর সাইকেল প্রতিকে প্রাপ্ত ভোট ৪৫৭০। উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ২৯ জন, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৫২ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ২০৫ জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

ওসমানীনগর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হলেন যারা...


ওসমানীনগর প্রতিনিধি, শনিবার, ২৮ মে ২০১৬ :: সিলেটের ওসমানীনগর উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যার পর ভোট গণনা শেষে প্রাপ্ত ফলাফলে দলীয় বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থীরা ৪টি ইউনিয়নে জয়ী হয়েছেন। প্রাপ্ত ফলাফলে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ মনোনীত ১, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ৩, বিএনপি মনোনীত ৩ ও দলটির ১ জন বিদ্রোহী প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন। বেসরকারী ফলাফলে যারা নির্বাচিত হয়েছেন তারা হলেন, উমরপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত মো. গোলাম কিবরিয়া, আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন পশ্চিম পৈলনপুর ইউনিয়নে মো. আব্দুল হাফিজ এ মতিন গেদাই, বুরুঙ্গা ইউনিয়নে খালেক আহমদ লটই, উছমানপুর ইউনিয়নে ময়নুল আজাদ ফারুক। বিএনপি মনোনীত প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন, সাদিপুর ইউনিয়নে আব্দুর রব, তাজপুর ইউনিয়নে ইমরান রব্বানী, দয়ামীর ইউনিয়নে এসটিএম ফখর উদ্দিন। গোয়ালাবাজার ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মানিক।

ওসমানীনগরের বুরুঙ্গা ইউনিয়নে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জয়ী


সিলেট, শনিবার, ২৮ মে ২০১৬ :: ওসমানীনগর উপজেলার বুরঙ্গা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী খালেক আহমদ লটই। তিনি আনারস প্রতীক নিয়ে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম ছিলেন প্রতিদ্ব›িদ্ব আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মকদ্দুছ আলী ।

কোরআন-হাদিস অনুযায়ী রাষ্ট্র চললে অপকর্ম থাকবে না: আহমদ শফি


গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি, শনিবার, ২৮ মে ২০১৬ :: হেফাজতে ইসলামের আমীর, দারুল উলূম হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক শাহ্ আহমদ শফি বলেছেন, দেশের শান্তি সবাই চায়। দেশ কখনও খারাপ হয় না। মানুষের জন্য দেশ খারাপ হয়। তবে কোরআন হাদিস মোতাবেক রাষ্ট্র চললে চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, সন্ত্রাসীসহ কোন অপকর্ম থাকবে না। শনিবার দুপুওে সিলেটের গোলাপগঞ্জ পৌরশহরের চৌমুহনীতে বাণিজ্যিক ভবন উদ্বোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিলে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। আহমদ শফি বলেন, মানুষ যখন জামায়াতের সহিত পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করবে, এক ওয়াক্ত নামাজ কজা করবে না; তখনই দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হবে। তিনি সোনার বাংলার মানুষ সৎ পথে থেকে মুসলিম এ দেশকে সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তুলার জন্য সবার প্রতি আহবান জানান। রানাপিং মাদ্রাসাতুল বানাত ইসলামিয়ার শায়খুল হাদিস মাওলানা জিলাল উদ্দিন আহমদের সভাপতিত্বে এসময় বক্তব্য রাখেন হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব, সিনিয়র শায়খুল হাদিস হাফিজ আল্লামা জুনায়েদ বাবু নগরী, গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরী প্রমুখ। এর আগে সকাল ১১টায় হেলিকপ্টারযোগে তিনি সিলেটের গোলাপগঞ্জ পৌঁছেন। -

কন্যা সন্তানের বাবা হলেন রেলমন্ত্রী


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: কন্যা সন্তানের বাবা হলেন রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক। আজ শনিবার বিকাল ৩টা ৩০ মিনিটে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেন রেলমন্ত্রীর স্ত্রী হনুফা আক্তার। খবরটি নিশ্চিত করেছেন রেলমন্ত্রীর একান্ত সচিব (পিএস) এ কে এম জি কিবরিয়া মজুমদার। মা ও সন্তান দুজনেই সুস্থ আছেন বলে জানান তিনি। গত বুধবার রাতে রেলমন্ত্রীর স্ত্রী হনুফা আক্তারকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ২০১৪ সালের ৩১ অক্টোবর কুমিল্লার মেয়ে হনুফা আক্তারকে বিয়ে করেন রেলমন্ত্রী। বছরের অন্যতম আলোচিত ঘটনা ছিল সেই জাকজমকপূর্ণ বিয়ে। বরযাত্রায় ছিলেন ৬ জন মন্ত্রী, এমপিসহ ৭০০ বরযাত্রীর বিশাল গাড়িবহর। পরবর্তীতে ঢাকায় সম্পন্ন হয় বিবাহোত্তর সংবর্ধনা।

যেভাবে নায়িকা মাহির প্রেমে পড়েন সিলেটের অপু


সিলেট, শনিবার, ২৮ মে ২০১৬ :: চিত্রনাযিকা মাহিয়া মাহির বিয়ের ঘটনা এখন সিনেমাপ্রেমিদের মুখে মুখে। রূপালি জগতের কেউ না হয়েও মাহিকে নিজের স্ত্রী হিসেবে পেলেন সিলেটের ব্যাবসায়ী পারভেজ মাহমুদ অপু। সিনেজগতের এই তারকার সঙ্গে তার পরিচয়ের ঘটনা জানা গেল অপুর মুখ থেকেই। মাহির সাথে তার প্রথম দেখার গল্প শোনাতে গিয়ে একটু লাজুক হেসে অপু বললেন,“ আমার গ্রামের বাড়িতে একজন বন্ধুর মাধ্যমে মাহির সঙ্গে আমার পরিচয়।” তবে একদিন বন্ধুদের সঙ্গে লং ড্রাইভে গিয়েই মাহির প্রেমে পড়েন তিনি। বললেন, “ সে (মাহি) আমার সাথে ড্রাইভে ছিলো। আমি তখন গাড়ী চালাচ্ছিলাম আর তখন সে পিছনে বসে ছিলো। তখন গাড়ির লুকিং গ্লাসেই তাকে আমি দেখছিলাম... এভাবেই তাকে ভাল লাগতে শুরু হল।” তিন বছর আগের এই ঘটনা থেকেই মাহির ব্যাপারে আগ্রহ বাড়তে থাকে অপুর। পরে দুই পরিবারের সম্মতিতেই ‘অগ্নি’ খ্যাত এই তারকাকে নিজের জীবনসঙ্গী হিসেবে পেলেন তিনি। মাহির কোন বিষয়টি অপুকে মাহির প্রতি আকর্ষিত করেছিলো? উত্তরে নিজের নবপরিণীতা স্ত্রীকে তিনি ভাসালেন প্রসংশায়, “মাহির সব কিছুই আমার ভাল লাগে। নায়িকা হয়েও ও খুবই সরল; ক্ষেত্রবিশেষে বোকা টাইপ। আমার কাছে এটাই ভালো লাগে।” সিলেটের ছেলে পারভেজ মাহমুদ অপু পড়াশোনা করেছেন কম্পিউটার প্রকৌশল বিষয়ে। যুক্তরাজ্য থেকে পড়াশোনা শেষ করে এখন সিলেটে নিজেদের পারিবারিক ব্যাবসায় যুক্ত হয়েছেন। মাহির সঙ্গে তিন বছরের জানাশোনা থাকলেও বিয়েটা হযেছে পারিবারিকভাবেই।

শক্তিশালী রাউটার বাজারে এনেছে কম্পিউটার সোর্স

Kanaighat News on Friday, May 27, 2016 | 9:46 PM

শক্তিশালী রাউটার বাজারে এনেছে কম্পিউটার সোর্স
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ওয়াই ফাই রাউটারের কর্মদক্ষতা উন্নত না হলে সরাসরি অনলাইন ভিডিও দেখতে সমস্যা হয়। তবে এ সমস্যার সমাধান করতে ডিলিংকের নতুন একটি আল্ট্রা ওয়াইফাই রাউটার বাজারে নিয়ে এলো দেশের প্রযুক্তি পণ্য বিপণন প্রতিষ্ঠান কম্পিউটার সোর্স। যা লাইভ স্ট্রিমিং এবং অনলাইন গেমিংয়ের জন্য উপযুক্ত। রাউটারটির মডেল ডিআইআর ৮৯০এল।

রাউটারটির নেটওয়ার্ক ব্যবহার করেই অনলাইন প্রিন্টিং এবং প্রয়োজনীয় তথ্য-উপাত্ত হার্ডডিস্কে সংরক্ষণ করা যায়। উচ্চগতির ইন্টারনেট সম্প্রসারণে এগিয়ে থাকা ডিলিংক ডিআইআর ৮৯০এল মডেলের এসি৩২০০ রাউটারটির মূল্য ২২ হাজার টাকা।

এই রাউটারটি এসি৩২০০ রাউটারটি তিনটি ব্যান্ডেই কাজ করে। এর নেটওয়ার্ক গতি প্রতি সেকেন্ডে ৩.২জিবি পর্যন্ত। এতে স্মার্ট বিম ফরমিং প্রযুক্তি থাকায় পুরু দেয়ালের সিগন্যাল বাধা জয় করে সহজেই।

চতুর্দিকে শক্তিশালী ইন্টার সংযোগ অটুট রাখতে উচ্চমান ৬টি এক্সটার্নাল অ্যান্টেনার পাশাপাশি রাউটারটিতে ৪টি গিগা ল্যান, ১টি গিগা ওয়্যান এবং ২টি ইউএসবি পোর্ট রয়েছে। এর ইউএসবি পোর্টের মাধ্যমে স্টোরেজ ডিভাইস ও প্রিন্টার সংযুক্ত করা যায় অনায়াসে।

কোরিয়ান এয়ারের ইঞ্জিনে আগুন, বেঁচে গেল তিনশ যাত্রী

কোরিয়ান এয়ারের ইঞ্জিনে আগুন, বেঁচে গেল তিনশ যাত্রী

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: শুক্রবার সকালে কোরিয়ান এয়ারের একটি উড়োজাহাজের এক পাশের ইঞ্জিনে আগুন ধরার ঘটনা ঘটেছে। জাপানের রাজধানী টোকিওর হানেদা বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়নের প্রস্তুতিকালে এ ঘটনা ঘটে বলে বিবিসি সূত্রে জানা গেছে।

তবে এ ঘটনায় হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। ঘটনার পর উড়োজাহাজটির তিনশরও বেশি যাত্রী ও ক্রু-কে বিমান থেকে নামিয়ে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়।

ফ্লাইট ২৭০৮ হানেদা বিমানবন্দর থেকে সিউলের পথে রওয়ানা হওয়ার প্রস্তুতি নিতেছিল বলে জানিয়েছে বিমানবন্দরের কর্মকর্তারা।

রানওয়েতে থাকা বোয়িংয়ের ৭৭৭ উড়োজাহাজটির ওই ইঞ্জিনটিতে ফোম স্প্রে করে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন বিমানবন্দরের দমকল কর্মীরা। এ ঘটনায় অাতঙ্কিত হয়ে জাপানের সবচেয়ে ব্যস্ত বিমানবন্দরটি সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়।

তাৎক্ষণিকভাবে আগুন লাগার কারণ জানা যায়নি। তবে জাপানের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম ৩০ জন যাত্রীর অসুস্থবোধ করার কথা জানিয়েছে।

মানব-কুকুর হয়ে বেঁচে আছেন তারা!


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ধরুন, বেশ মজার একটা দৃশ্য দেখলেন। একজন মানুষ তার গায়ে রাবারের তৈরি কুকুরের পোশাক পরেছেন। কুকুরের মতোই মুখে কোনো খেলনা নিয়ে এটা সেটা করছেন। এমন দৃশ্য দেখলে যে কেউ মজা পাবেন বা হেসে উঠবেন। বোঝায় যায়, মানুষটি বেশ কৌতুক করতে পারেন। কিন্তু যারা জীবনের সঙ্গে কুকুরের মতো চাল-চলন বা স্বভাব-চরিত্র মিশিয়ে নিয়েছেন, তাদের ক'জন মানুষই বা চেনেন? বহু অনুষ্ঠানে বা পার্কে যারা কুকুরের পোশাক পড়ে কুকুর সেজে মানুষকে আনন্দ দেন, অনেক ক্ষেত্রেই তাদের জীবনটা অনেক কষ্টের। তবে পেশাদার এই মানুষের সংখ্যা অনেক। ইন্টারনেটের কল্যাণে তারা এক হওয়ার সুযোগ পেয়েছেন। এভাবে বিগত ১৫ বছরে বিশাল এক 'পাপ কমিউনিটি' গড়ে উঠেছে। এসব মানব-কুকুর সমাজের বহু মানুষ রয়েছেন। তারা পুরুষ, সমকামী বা যেকোনো চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের হতে পারেন। এরা সবাই চামড়ার তৈরি কুকুরের পোশাক পরতে আগ্রহী, তারা কুকুরের মতো করে খেলনা নিয়ে খেলেন, পাত্র থেকে মুখ দিয়ে খাবার খান, কুকুরের মতো করেই কান চুলকান। এক ডকুমেন্টরিতে দেখানো হয়, টম ওরফে স্পট 'মি. পাপি ইউরোপ' চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নেন। সেখানে ডেভিড ওরফে বুটব্রাশ ক্যামেরার সামনে কথা বলেন মুখে কুকুরের মুখোশ পরে। ডকুমেন্টরিতে দেখা যায়, লন্ডনের রাস্তায় দুজন কুকুর হয়ে হাঁটছেন। তারা ঘেউ ঘেউ করছেন এবং যান্ত্রিক লেজটি নাড়ছেন। তার গলায় বেল্ট বাঁধা। টম নিজের জীবনটাকেই কুকুরের মতো করে নিয়েছেন। তিনি আঁটোসাঁটো কুকুরের পোশাক পরেন। অনলাইন স্টোর ইবে-তে এগুলো কিনতেও পাওয়া যায়। বলেন, গলায় বেল্ট ছাড়া কুকুরের জীবন অর্থহীন। বেল্ট থাকার অর্থ তাকে দেখার কেউ আছে। টমের প্রেমিকার সঙ্গে তার ছাড়াছাড়ি হয়ে গেছে। তার সম্পর্ক গড়ে উঠেছে কলিনের সঙ্গে। তারা দুজনই সমকামী। তারা দুজনই মানব-কুকুর। মনোবিজ্ঞানী কার্ল জাং জানান, মানুষের সচেতন মন আবেগ, আবেশ, শিহরণ অনুভব করে এবং মনে আদর্শ নিয়ে নানা জল্পনা-কল্পনা করে। তাদের এই মনজুড়ে বসে রয়েছে কুকুর বা এর জীবন। বিভিন্ন পার্কে বা ক্লাবে যখন তারা এভাবে পেশাদার কাজ করেন, তখন মানুষ অনেক মজা পায়। তবে তাদের জীবনের সমকাম সত্যিকার অর্থে বেশ সিরিয়াস বিষয়। আরেক মানব-কুকুর কাজ। তার দাবি, স্রেফ কুকুরের মতো সাজলেই এমন হওয়া যায় না। কুকুরের মতো চলতে হলে সত্যিকার অর্থেই কুকুর হতে হবে। এভাবে চলাফেরার বিষয়টি তিনি দারুণ উপভোগ করেন। অনেক সময়ই এ জীবনের চর্চার বড় একটি অংশ জুড়ে রয়েছে যৌনতা, জানান কাজ। আরো বলেন, এসব পোশাক পরে প্রথমেই মনে হয় সেক্স করতে হবে। আবার সব সময় এতে যৌন আবেদন থাকে না। এমন জীবনের অভিজ্ঞতা সত্যিই অনন্য। এ জীবনে যে কেউ আসতে পারেন যার আগ্রহ রয়েছে। এ জীবন নিয়ে কোনো অনুতাপ থাকলে চলবে না। রাস্তায় অন্যান্য মানুষ বা প্রাণীর মতো আমরাও, জানান মানব-কুকুররা। সূত্র : গার্ডিয়ান
 
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো:মহিউদ্দিন,সম্পাদক : মাহবুবুর রশিদ,নির্বাহী সম্পাদক : নিজাম উদ্দিন। সম্পাদকীয় যোগাযোগ : শাপলা পয়েন্ট,কানাইঘাট পশ্চিম বাজার,কানাইঘাট,সিলেট।+৮৮ ০১৭২৭৬৬৭৭২০,+৮৮ ০১৯১২৭৬৪৭১৬ ই-মেইল :mahbuburrashid68@yahoo.com: সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত কানাইঘাট নিউজ ২০১৩