মেজরটিলায় অগ্নিকান্ডে ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি

Kanaighat News on Friday, April 29, 2016 | 4:01 PM

উৎসুক মানুষের ভিড়-ছবি আমির হোসেন সাগর
উৎসুক মানুষের ভিড়-ছবি আমির হোসেন সাগর
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক॥ সিলেট নগরীর মেজরটিলায় শুক্রবার ভোরে অগ্নিকান্ডে একটি বাসার ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি সাধিত হয়েছে। খবর পেয়ে দমকল বাহিনী প্রায় দেড় ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। গ্যাসের চুলা থেকে এ অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। অগ্নিকান্ডে বাসার সব কিছু পুড়ে গেলেও অলৌকিকভাবে রক্ষা পেয়েছে এক সেট কুরআন শরীফ।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার ভোরে মেজরটিলায় মাহবুবুর রহমান সিদ্দিকীর মালিকানাধীন দিপীকা-৯ নম্বর বাসার একটি ভাড়াটে রুম থেকে অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হয়। জনৈক মুসল্লী ফজরের নামাজ আদায় করতে মসজিদে যাওয়ার পথে আগুন দেখতে পান। এ সময় তিনি শোর চিৎকার শুরু করলে
আগুন নেভানোর চেষ্টা চালাচ্ছে দমকল বাহিনী-ছবি আমির হোসেন সাগর
আগুন নেভানোর চেষ্টা চালাচ্ছে দমকল বাহিনী-ছবি আমির হোসেন সাগর
আশ-পাশের লোকজন এসে জড়ো হন। বিষয়টি জানানো হয় ফায়ার সার্ভিসকে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে এসে প্রায় দেড় ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়।
স্থানীয়রা জানান, ওই বাসা সংলগ্ন এলাকায় ২০টি পরিবার ভাড়াটে হিসাবে বসবাস করে। এসব বাসার পাশাপাশি গৃহকর্তার বাসাটিও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বাসায় অবস্থানকারী অনেক ছাত্রের সার্টিফিকেট ও অ্যাডমিট কার্ড পুড়ে গেছে। শাহপরান থানার এসআই মোকাদ্দেস ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
অগ্নিকান্ড থেকে অলৌকিকভাবে রক্ষা পাওয়া কুরআন শরীফ-ছবি আমির হোসেন সাগর
অগ্নিকান্ড থেকে অলৌকিকভাবে রক্ষা পাওয়া কুরআন শরীফ-ছবি আমির হোসেন সাগর
ফায়ার সার্ভিসের টিম লিডার গোলাম আযম জানান, ওই বাসায় তখন বিদ্যুত ছিল না। সম্ভবত গ্যাসের চুলা থেকেই আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। তিনি জানান, আগুনে গৃহকর্তার বাসার ৪টি রুম একেবারে পুড়ে গেছে। ক্ষয়-ক্ষতির বিষয়ে তিনি ফায়ার সার্ভিসের কন্ট্রোল রুমে যোগাযোগের পরামর্শ দেন

সুবর্ণার মৃত্যু নিয়ে নানা প্রশ্ন


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: নৃত্যশিল্পী সুবর্ণা সাহার মৃত্যু নিয়ে নানা প্রশ্ন সর্বত্র। সুবর্ণার কেন এই পরিণতি তা নিয়ে জল্পনার অন্ত নেই সিলেটে। সাংস্কৃতিক অঙ্গনে নানা প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে। আড়ালে কোনো ঘটনা আছে কিনা সেটিও অজানা। পরিবারের সবাই শোকাহত। সুবর্ণা সাহার বয়স ত্রিশের কাছাকাছি। ব্যক্তিগত জীবনে অনেকখানি সফল তিনি। সংস্কৃতি অঙ্গনের পরিচিত মুখ। সিলেটের নৃত্যশৈলী সংগঠনের একজন সংগঠক। এই সংগঠনকে অনেকটা এগিয়ে নিয়েছেন নিজের দক্ষতার গুণে। পাশাপাশি সুবর্ণা ছিলেন সিলেটের খাজাঞ্চিবাড়ি ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের শিক্ষিকা। এর আগে সুবর্ণা সাহা সিলেটের পুলিশ লাইন উচ্চবিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেছেন। মা মমতা সাহাও পেশায় শিক্ষক। তিনি সিলেটের দাড়িপাড়াস্থ রসময় উচ্চবিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করতেন। এখন অবসরে আছেন। বাবা সুধাকর সাহা কয়েক বছর আগে মারা গেছেন। এরপর থেকে মাকে নিয়েই ছিল সুবর্ণার সংসার। তাদের বাড়ি সিলেট নগরীর কাজলশাহর ৫২-৩ নম্বর বাসা। দুই বোনের মধ্যে সুবর্ণা সাহা ছোট। বড় বোন সুবনা সাহার বিয়ে হয়ে গেছে। গত বুধবার সন্ধ্যায় মা মমতা হঠাৎ দেখেন ঘরের ভেতরে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে সুবর্ণার লাশ ঝুলছে। চিৎকার করে ওঠেন। এ সময় ছুটে আসেন আশপাশের লোকজন। পুলিশ এসে তার ঝুলন্ত অবস্থায় লাশ উদ্ধার করে। খবর শুনে ঘটনাস্থলে ছুটে যান সিলেটের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের লোকজন। তারাও কান্নায় ভেঙে পড়েন। সুবর্ণা আত্মহত্যা করবেন সেটি তারা স্বপ্নেও কল্পনা করতে পারেননি। পরিবারের সদস্যরা জানান, সুবর্ণার সঙ্গে পারিবারিকভাবে কোনো বিরোধ ছিল না। তবে সম্প্রতি তারা বিয়ের জন্য চাপ দিচ্ছিলেন। এমনকি তারা বলেছিলেন নিজের পছন্দ থাকলে বিয়ে করে নিতে। কখনো তার মতের বাইরে কেউ যায়নি। এছাড়া তার সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে কেউ কখনো বাধা হয়ে দাঁড়াননি। মা মমতা সাহা বলেন, বুধবার বিকালে তিনি বড় মেয়েকে দেখতে তার বাসায় যান। ঘটনার সময় ওই বাসাতেই ছিলেন। ফিরে এসে দেখেন সুবর্ণা ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে আছেন। বড় বোন সুমনা জানান, বুধবার সকালে সে মাকে নিয়ে নগরীর ক্লিনিকে ডাক্তার দেখাতে গিয়েছিলেন। সেখানে তিনি মা’কে ডাক্তার দেখানোর পর নিজেও ডাক্তার দেখান। সহপাঠীরা জানিয়েছেন, কয়েক দিন ধরে সুবর্ণা নিজের জীবন নিয়ে অতিষ্ঠ ছিলেন। বন্ধুদের জানিয়েছিলেন এ জীবন তার ভালো লাগে না। এ নিয়ে কিছুটা হতাশায় ভুগছিলেন তিনি। তবে এটি যে মৃত্যুর পর্যায়ে চলে যাবে সেটি তারা কল্পনা করতে পারেননি। সহপাঠীরা জানিয়েছেন, সুবর্ণার প্রেম ছিল তার কলেজ জীবনের এক সহপাঠীর সঙ্গে। ওই সহপাঠীও সিলেটের একটি বিদ্যাপীঠের শিক্ষক। সম্প্রতি ওই যুবক সরকারি চাকরি পেয়েছেন। এরপর থেকে তিনি সুবর্ণাকে এড়িয়ে চলছিলেন। এসব বিষয় নিয়ে সুবর্ণা কিছুটা বিপর্যস্ত ছিলেন। তবে পরিবারের কাছে এসব বিষয় জানাননি। এদিকে, লাশের ময়নাতদন্ত শেষে গতকাল দুপুর ২টায় সিলেটের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নিয়ে আসা হয় সুবর্ণার মরদেহ। এ সময় তার লাশে শেষ শ্রদ্ধা জানান সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সহপাঠীরা। তারা বলেন, সুবর্ণার মৃত্যু সবাইকে কাঁদিয়ে গেছে। বিকাল ৪টায় লাশ নিয়ে যাওয়া হয় সিলেটের শ্মশানঘাটে। সিলেটের কোতোয়ালি থানার ওসি সোহেল আহমদ জানিয়েছেন, সুবর্ণার মৃত্যুর ঘটনায় তার পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে। পুলিশ বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করেছে।

কোরআন বোঝার স্বীকৃত পদ্ধতি


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: পবিত্র কোরআনে কারিম মুসলমানদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ। আল্লাহ তায়ালা এতে মুসলমানদের জীবনযাপনের যাবতীয় পদ্ধতি মৌলিকভাবে বলে দিয়েছেন। হজরত জিবরাইলের (আ.) মাধ্যমে কোরআন সরাসরি রাসুলের (সা.) ওপর অবতীর্ণ হয়েছে। এরপর রাসুল (সা.) তা সাহাবায়ে কেরামকে পাঠ করে শুনিয়েছেন। পর্যায়ক্রমে তা অবিকৃতভাবে আমাদের পর্যন্ত পৌঁছেছে। পৃথিবীতে একমাত্র গ্রন্থ যাতে আজ পর্যন্ত বিন্দুমাত্রও বিকৃতি আসেনি। সেই কোরআন বোঝার প্রথম ধাপ হলো তা সহিহ-শুদ্ধভাবে পড়া। আর কোরআন বোঝার জন্য কোনো শিক্ষক বা মুরব্বির প্রয়োজন। কোনো শিক্ষক ছাড়া সঠিকভাবে কেউ কোরআন বুঝতে পারবে না। নবী করিম (সা.)কে পাঠানোর অন্যতম উদ্দেশ্য মুমিনদের কিতাবের তালিম দেয়া। কাকে তালিম দেবেন? আবু বকর সিদ্দিক, ওমর ফারুক, ওসমান গনী ও আলী (রা.)-কে? তাঁরা কি আরবি ভাষা জানতেন না? তাদের প্রত্যেকেই তো আরবি ভাষায় এক একজন পণ্ডিত ছিলেন। সুতরাং আরবি ভাষা শেখার জন্য বা এর অনুবাদ জানার জন্য কোনো শিক্ষকের প্রয়োজন ছিল না। অথচ নবী করিম (সা.)-কে আল্লাহ তাআলা পাঠিয়েছেন কিতাবের তালিম দেয়ার জন্য। এর দ্বারা জানা গেল নিছক তরজমা জেনে নেয়ার দ্বারা কিতাবুল্লাহ বুঝে আসবে না, এর দ্বারা কোরআনের ইলম হাসিল হবে না। আজকাল অনেকেই বলেন আমার কোনো শিক্ষকের দরকার নেই, আল কোরআনের অনুবাদ দেখেই আমি কোরআন বুঝে নেব। তাদের কাছে জিজ্ঞাসা, কোন কোরআনের তালিম দেয়ার জন্য আল্লাহ তায়ালা নবী করিম (সা.)-কে দুনিয়াতে পাঠিয়েছেন? তিনি ৩৩ বছর পর্যন্ত তালিম দিয়েছেন। সাহাবায়ে কেরাম এর ওপর নিজের জীবন উৎসর্গ করেছেন। তাবেয়ীনরা এটা সংরক্ষণ করে আমাদের পর্যন্ত পৌঁছে দিয়েছেন। এসব বিষয়কে পাশ কাটিয়ে কেউ কেউ বলে আমাদের এসব বিষয়ের দরকার নেই। আমি যা বুঝবো এটাই হলো সহীহ। তাহলে তাদের চেয়ে বড় গণ্ডমূর্খ আর কে হতে পারে! কোরআনের প্রথম হক হলো তা বিশুদ্ধভাবে তেলাওয়াত করা। এরপর মুরব্বির মাধ্যমে তা বোঝা। তবে এরও আগে দরকার আখলাকের পরিশুদ্ধি। কারণ কোরআন একটি নূর। আখলাকের পরিশুদ্ধি ছাড়া কোনো নূর ভেতরে ঢুকতে পারে না। মনে রাখতে হবে, কোরআন গতানুগতিক কোনো গ্রন্থ নয়। গতানুগতি ধারায় পড়লেই তা বুঝে আসবে না। এজন্য কোরআন শিখতে এবং বুঝতে হবে শরিয়তের নির্দেশিত পন্থায়।

প্রথমবারের মতো ফেসবুকের সাড়া পেল সরকার


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ব্যবহারকারীর তথ্য চেয়ে বাংলাদেশ সরকারের করা আবেদনে সাড়া দিয়েছে সবচেয়ে বড় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক। ২০১৫ সালের জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত তথ্য নিয়ে ২৮ এপ্রিল ফেসবুকের প্রকাশিত ‘গভর্নমেন্ট রিকোয়েস্ট রিপোর্ট’ এ বলা হয়েছে, বাংলাদেশ থেকে ওই সময় ১২টি অনুরোধে ৩১টি অ্যাকাউন্টের তথ্য চাওয়া হয়েছে। বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি) চারটি কনটেন্ট সরিয়ে ফেলার অনুরোধ করে। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বাংলাদেশের অনুরোধে সাড়া দিয়েছে তারা। অনুরোধে সাড়া দেয়ার হার ১৬ দশমিক ৬৭ শতাংশ। এ ছাড়া চারটি কনটেন্ট সরিয়ে ফেলা হয়েছে। ২০১৫ সালের ১২ নভেম্বর ফেসবুক প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানানো হয়, ওই বছরের জানুয়ারি থেকে জুন এই ছয় মাসে ফেসবুকের কাছে তিনটি অ্যাকাউন্ট সম্পর্কে তথ্য চেয়েছিল বাংলাদেশ সরকার। তিনবার অনুরোধের মাধ্যমে এই তিনজনের তথ্য জানতে চাওয়া হয়। তখন সরকারের ওই অনুরোধে ফেসবুক সাড়া দেয়নি। এর আগে ২০১৪ সালের শেষ ছয় মাসে পাঁচটি অনুরোধের মাধ্যমে পাঁচজনের অ্যাকাউন্ট সম্পর্কে তথ্য জানতে চেয়েছিল সরকার। ওই বছরের প্রথম ছয় মাসে ফেসবুকের কাছে ১৭টি অ্যাকাউন্টের তথ্য চেয়েছিল বাংলাদেশ সরকার। মোট সাতটি অনুরোধের মাধ্যমে এই তথ্য চাওয়া হয়েছিল। ২০১৩ সালের আগস্টে ১২ জনের তথ্য চাওয়া হয়েছিল। ২০১৫ সালের প্রথম ছয় মাস পর্যন্ত বাংলাদেশের কোনো অনুরোধে সাড়া না দিলেও এবারই প্রথম বাংলাদেশ সরকারের কোনো অনুরোধে সাড়া দিলো ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

শাহরুখের বিরুদ্ধে শত কোটি টাকার মানহানির মামলা!


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: শাহরুখ খানের ‘রইস’ ছবি নিয়ে যখন চারদিকে আলোচনা-উত্তেজনা-শোরগোল, ঠিক সে সময়ে বলিউড বাদশার জন্য একটি খারাপ সংবাদ এলো।আর সেটি হচ্ছে- তাঁর বিরুদ্ধে শত কোটি টাকার মানহানি মামলা। মন হচ্ছে-রইস ছবিটি আগামী ঈদে মুক্তি পাওয়ার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত মনে তা পিছিয়ে যাচ্ছে। সে যাই হোক প্রাক্তন গ্যাংস্টারের ছেলে শাহরুখের বিরুদ্ধে ১০১ কোটি টাকার মানহানির মামলার খবরটি এখন রইস ছবির মুক্তির বিষয়টিকে আড়াল করে ফেলেছে । শাহরুখ খানের পরবর্তী ছবি ‘রইস’ একটি বায়োপিক বলা যায়। শোনা যাচ্ছে, ছবির মূল চরিত্রটি গ্যাংস্টার আবদুল লতিফকে মাথায় রেখেই তৈরি করা। এছাড়া ছবির গল্প লতিফের জীবনের উপর ভিত্তি করেই লেখা হয়েছে। সেই আবদুল লতিফের ছেলে, মুস্তাক আহমেদ হঠাৎ মানহানির মামলা করে বসেছেন শাহরুখ খানের বিরুদ্ধে। তাও আবার ১০১ কোটি টাকার মামলা। মুস্তাকের বক্তব্য, ছবিতে তাঁর বাবার ‘ইমেজ’কে কলুষিত করা হয়েছে, বিশেষ করে ছবির দ্বিতীয় অর্ধে। মুস্তাকের দাবি, এতে তাঁর পরিবারের সুনাম ক্ষুণ্ন হয়েছে এবং তার মূল্য চোকাতে হবে শাহরুখ খানকে। এই নিয়ে রেড চিলিজ এনটারটেনমেন্টের পক্ষ থেকে জবাবি বিবৃতি ফাইল করা হবে ১১ মে। তাই আদালতের রায় জানতে এখন অনেক দেরি।

কিছু ছিটেফোঁটা গুপ্তহত্যা হচ্ছে: ইনু


কুষ্টিয়া: তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, সরকার সারাদেশে মানুষের জানমালের নিরাপত্তা দিতে সক্ষম হয়েছে। কিন্তু দেশে এখনো কিছু ছিটেফোঁটা গুপ্তহত্যা ও অতর্কিতে হামলার ঘটনা চলছে। বিএনপি-জামায়াতের ছাতার তলেই এসব গুপ্তহত্যাকারী ও জঙ্গিদের আস্তানা। শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে কুষ্টিয়ার সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী। ‘সাম্প্রতিক হত্যাকাণ্ডগুলো সরকারের ইশারাতেই হচ্ছে’ বিএনপির এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে তিনি এসব কথা বলেন। তথ্যমন্ত্রী বলেন, ২১ আগস্টে শেখ হাসিনার হত্যাচেষ্টাকারী খুনি ও জঙ্গিদের পক্ষে যারা ওকালতি করে, এদের পৃষ্ঠপোষক, আশ্রয়দাতারা এবং তাদের রাজনৈতিক বন্ধুরা গুপ্তহত্যার অপরাজনীতির সঙ্গে জড়িত। শেখ হাসিনার সরকার বাংলাদেশে বিচারহীনতার সংস্কৃতি বাতিল করে আইনের শাসন বাস্তবায়নের জন্য সব অপরাধীকে বিচারের আওতায় আনছে। জঙ্গিদের সঙ্গে নিজেদের সম্পর্ক আড়াল করতে বিএনপি অপপ্রচার চালাচ্ছে। ইনু বলেন, সরকার এরই মধ্যে ব্লগার, লেখক ও প্রকাশক হত্যা এবং কলাবাগানের হত্যা, রাজশাহীর হত্যাসহ সব হত্যার তদন্ত করছে। এ ক্ষেত্রে খুনিদের একচুলও ছাড় দেওয়া হবে না। বেশির ভাগ মামলার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সুতরাং যারা বলছেন, সরকার জঙ্গি এবং গুপ্তহত্যাকারীদের ব্যাপারে উদাসীন, তা সত্যি নয়।

শিগগিরই পুর্ণাঙ্গ হচ্ছে সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: শিগগিরই পুর্ণাঙ্গ রুপ পেতে যাচ্ছে সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি। শিগগিরই পুর্ণাঙ্গ কমিটির গঠনের ব্যপারে কেন্দ্র থেকে সভাপতি সাধারণ সম্পাদককে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলেও জানা গেছে। গত বছরের ৪ জুলাই সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সম্মেলণ অনুষ্ঠিত হয়। এরপর ২০ জুলাই কেন্দ্র থেকে আব্দুল বাছিত রুম্মানকে সভাপতি ও আব্দুল আলীম তুষারকে সাধারণ সম্পাদক করে ৪ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয়। এরপর থেকে এই ৪ সদস্যের কমিটি দিয়েই চলছে সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের কার্যক্রম। এ ব্যপারে সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুল বাছিত রুম্মান ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলীম তুষার সিলেটভিউ২৪ডটকম-কে বলেন, কেন্দ্র থেকে কমিটি পুর্ণাঙ্গ করার ব্যপারে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পুর্নাঙ্গ কমিটিতে ছাত্রদল-শিবির থেকে বা কোন মামলার আসামী যাতে প্রবেশ করতে না পারে সে জন্য খুব সুক্ষভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে, প্রয়োজনে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সহয়তা নেয়া হবে। বিভিন্ন পদে যোগ্যদের স্থান দেওয়ার জন্য সঠিকভাবে যাচাই-বাছাই করেই কেন্দ্রের হাতে কমিটি জমা দেব। তারা আরো বলেন, প্রকৃত ছাত্র, অবিবাহিত, মেধাবী ও যোগ্যদের দিয়েই হবে মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র মতে জেলা ও মহানগর শাখার কমিটি ১২১ সদস্য বিশিষ্ট হয়ে থাকে। তবে, পুর্বে বিভিন্ন ইউনিটে প্রয়োজনে ১২১ সদস্যের অধিক সদস্য নিয়ে কমিটি পুর্নাঙ্গ করার প্রচলন রয়েছে। সিলেটভিউ২৪ডটকম

একদিনে ঘুরে আসার মতো পাঁচটি মনোরম জায়গা

একদিনে ঘুরে আসার মতো পাঁচটি মনোরম জায়গা

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ব্যস্ত জীবনযাত্রা প্রকৃতির ছোঁয়া পাওয়া যায় না বললেই চলে। আর যারা ঢাকা শহরে থাকেন তাদের প্রকৃতির দেখা পেতে পারি দিতে হয় ঢাকার বাইরে। আবার ঢাকার বাইরে যেকোনো জায়গায় যাওয়াটা এবং যাতায়াত, থাকা, ঘুরা অনেক সময়ের ব্যাপার। আর খরচও লাগে অনেক।

তবে কম সময়ে ঢাকার আশেপাশেই ঘুরার অনেক সুন্দর জায়গায় আছে। যেখানে আপনি একদিনে ঘুরে আসতে পারবেন। আপনার অবশ্যই এসব জায়গায় ঘুরে ভালো লাগবে এবং কিছু দিনের জন্য হলেও আপনার মধ্যে একটি ঝরঝরে ভাব এনে দিবে।

চলুন জেনে নেই ঢাকার আশেপাশের এমন কয়েকটি জায়গা-

১। গোলাপ গ্রাম
নদী পথ পার হয়ে ছোট্ট একটি গ্রাম। তবে গ্রাম হলেও পুরোটাই গোলাপের বাগান দিয়ে পরিপূর্ণ । এখানে গেলে আপনার মনে হবে যেন বিশাল একটি গোলাপের বাগানে ভেতর আপনি ঘুরছেন। সরু পথ দিয়ে হাঁটতে হাঁটতে দেখবেন রাস্তার দুপাশ গোলাপের বাগান দিয়ে ঘেরা।

যেভাবে যাবেন
মিরপুর দিয়াবাড়ি বটতলা ঘাট থেকে সাহদুল্লাহপুর ঘাটের উদ্দেশ্যে ৩০ মিনিট পরপর ইঞ্জিনচালিত বোট ছাড়ে। সাহদুল্লাহপুর যেতে যেতে ৪৫ মিনিট- ১ ঘণ্টা লাগবে।সেখানে একেক জনের জন্য ২০-৩০ টাকা করে নিবে। অথবা নিজেরা হাতে চালানো বোট নিতে পারেন, যেতে দেড় ঘন্টার মতো লাগবে।

২। পানাম ও মেঘনার পার
পানাম সিটি ঢাকা শহর থেকে একদমই আলাদা এবং অন্য রকম। পুরনো বাড়িগুলো দেখে দেখেই দিন পার হয়ে যাবে। পৃথিবীর ১০০টি ধ্বংস প্রায় ঐতিহাসিক শহরের একটি পানামনগর। World Monument Fund ২০০৬ সালে পানামনগরকে বিশ্বের ধ্বংস প্রায় ১০০টি ঐতিহাসিক স্থাপনার তালিকায় প্রকাশ করে। ঈসাখাঁ-র আমলের বাংলার রাজধানী পানামনগর। এখানে কয়েক শতাব্দী পুরনো অনেক ভবন রয়েছে, যা বাংলার বার ভূইয়াঁদের ইতিহাসের সাথে সম্পর্কিত।

ওখান থেকে কাছেই মেঘনা নদী। নদীর ওপারে গেলেই দেখবেন কাশফুলে ঘেরা বিস্তৃত মাঠ। চাইলে পানাম ঘুরা শেষে সেখানেও ঘুরে আসতে পারেন।

যেভাবে যাবেন
ঢাকার অদূরে ২৭কি.মি দক্ষিণ-পূর্বে নারায়নগঞ্জের খুব কাছে সোনারগাঁতে অবস্থিত এই নগর। ঢাকা থেকে যাতায়াত ব্যবস্থাও সহজ। গুলিস্থান থেকে ‘মোগরাপারা’ এর যেকোনো বাসে (সোনারগাঁপরিবহন) করে যাবেন ‘মোগরাপারা’, সেখান থেকে অটোরিকশাযোগে দশ-পনের মিনিটে চলে যাবেন পানামনগরীতে।

৩। বালিয়াটি জমিদার বাড়ি
বালিয়াটি জমিদার বাড়ি বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় জমিদারবাড়িগুলোর একটি। ঢাকা জেলা সদর থেকে পয়ত্রিশ কিলোমিটার দূরে সাটুরিয়া উপজেলার বালিয়াটি গ্রামে অবস্থিত।মোট সাতটি স্থাপনা নিয়ে এই জমিদার বাড়িটি অবস্থিত। জমিদার বাড়ির পুরটাই মনোরম পরিবেশে ঘেরা!

যেভাবে যাবেন
ঢাকার গাবতলী থেকে মানিকগঞ্জ বা সরাসরি সাটুরিয়া যাওয়ার বাস পাওয়া যাবে। জন প্রতি ভাড়া পড়বে ৬০-৭০ টাকা। সাটুরিয়া পৌঁছে সেখান থেকে রিকশা বা লোকাল সিএনজিতে করে জমিদার বাড়ি যাওয়া যাবে। জন প্রতি ভাড়া ১০ টাকা। বালিয়াটি জমিদার বাড়ি রোববার পূর্ণদিবস আর সোমবার অর্ধদিবস বন্ধ থাকে। অন্যান্য সরকারি ছুটির দিনগুলোতেও বন্ধ থাকে। জমিদার বাড়িতে প্রবেশের জন্য টিকেটের মূল্য জন প্রতি ১০টাকা।

৪। মহেরা জমিদার বাড়ি, টাঙ্গাইল
টাঙ্গাইলে ঘুরার মত অনেক জায়গা আছে যা আপনি এক দিনে ঘুরে শেষ করতে পারবেন না। তবে তার মধ্যে মহেরা জমিদার বাড়ি সবচেয়ে সুন্দর। এটি তিনটি স্থাপনা নিয়ে তৈরি। বাড়ির ভেতরের দিকে বিশাল খাঁচায় বিভিন্ন রকম পাখি পালা হয়। তিনটি স্থাপনার প্রতিটাতে অসাধারণ কারুকার্য করা। এসব কারুকার্য দেখলেই মন ভরে যাবে

যেভাবে যাবেন
টাঙ্গাইলের জমিদার বাড়ি দেখতে হলে খুব সকালে বাসা থেকে বের হতে হবে। কারণ যেতে প্রায় ৩-৪ ঘণ্টা লাগবে। মহাখালি থেকে “ঝটিকা সার্ভিস” নামে বাসে যেতে পারবেন। এছাড়া টাঙ্গাইল যাওয়ার আরো বেশ কিছু ভাল বাস আছে। মহেরা জমিদার বাড়ির বর্তমান নাম মহেরা পুলিশ ট্রেইনিং সেন্টার। ওখানে যেতে হলে নামতে হবে ‘নাটিয়া পাড়া’ বাস স্ট্যান্ডে। সময় লাগবে ২-২.৩০ ঘন্টার মত। নেমে একটা অটো রিকশা নিয়ে যেতে হবে। রিক্সায় করে সরাসরি মহেরা জমিদার বাড়িতে যাওয়া যাবে। ভাড়া ২০-৩০ টাকা। জমিদার বাড়ি ঢুকতে টিকেট কিনতে হবে, জন প্রতি ২০ টাকা।

৫। পদ্মারিসোর্ট
ঢাকা থেকে ৪০ কি.মি. দূরে মুন্সীগঞ্জ জেলার লৌহজং নামক স্থানে পদ্মা নদীতে চড়ের উপর এই রিসোর্টটি অবস্থিত। পদ্মা নদীর পারে অবস্থিত বলেও জায়গাটি অতি মনোরম আর সুন্দর। বর্ষা ঋতুর সময় গেলে আপনার বেশি ভালো লাগবে।

যেভাবে যাবেন
ঢাকার গুলিস্তান, সায়েদাবাদ ও যাত্রাবাড়ী থেকে এই রুটে বিভিন্ন পরিবহনের অসংখ্য বাস প্রতি ১০/১৫ মিনিট পর পর চলাচল করে। গুলিস্তান সুন্দরবন স্কোয়ার মার্কেটের পূর্ব পাশ এবং যাত্রাবাড়ী গোলচত্ত্বরের পূর্ব-দক্ষিণ দিক থেকে ঢাকা-মাওয়া ও ঢাকা-লোহজং এর বাস ছেড়ে যায়। ঢাকা থেকে সড়কপথে এই জেলার ভাড়া ৬০ টাকা। মাওয়া ফেরিঘাট থেকে রিসোর্টে যাওয়ার জন্য রিসোর্টের নিজস্ব স্পীডবোট রয়েছে।

পদ্মা নদীর টাটকা ইলিশের তৈরি বিভিন্ন ধরনের খাবার খেতে চাইলে যেতে পারেন পদ্মা রিসোর্টে। এছাড়া আরও রয়েছে টাটকা শাকসবজি, গরু, মুরগি ও হাসের মাংস। এছাড়া মৌসুমি ফলমূল তো রয়েছেই। সকালের নাস্তার জন্য জনপ্রতি খরচ পড়ে ১০০ টাকা এবং দুপুর ও রাতের খাবারের জন্য জনপ্রতি খরচ পড়ে ৩০০ টাকার মতো।

পর্যটকগণ ইচ্ছা করলে অর্ধেক বেলা অথবা পুরো ২৪ ঘন্টার জন্য কটেজ ভাড়া নিতে পারেন। সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ভাড়া ২,০০০ টাকা। সকাল ১০টা থেকে পরের দিন সকাল ১০টা পর্যন্ত ভাড়া ৩,০০০ টাকা।

নানা রোগের জন্য দারুণ উপকারী ঢেঁড়স পানি

নানা রোগের জন্য দারুণ উপকারী ঢেঁড়স পানি

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: স্বাস্থ্যগুণের ভরা ঢেঁড়সের পিচ্ছিল ভাবের জন্য অনেকেই এটি পছন্দ করেন না। কিন্তু এই পিচ্ছিল সবজিটির রয়েছে অনেক ঔষধি গুণ। দক্ষিণ আফ্রিকায় এই সবজিটি কিডনি, ডায়াবেটিস, অ্যাজমা এবং কোলেস্টেরল প্রতিরোধে ব্যবহার করা হয়।

এক কাপ ঢেঁড়সে ২১ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি, ২ গ্রাম প্রোটিন, ৬০ মিলিগ্রাম ম্যাগনেসিয়াম, ২৯৯ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম, ৩ গ্রাম ফাইবার, ৩৩ ক্যালরি, ৭.৬ গ্রাম কার্বো হাইড্রেট, ৮০ মিলিগ্রাম ফলিক অ্যাসিড এবং .২ গ্রাম ফ্যাট আছে। লো ক্যালরি হওয়ায় এটি কোলেস্টেরল লেভেল কমিয়ে ওজন হ্রাস করে থাকে। এই ঢেঁড়স ভিজানো পানি ডায়াবেটিস, কোলেস্টেরলসহ নানা রোগের জন্য উপকারী।

দেখে নিন ঢেঁড়স পানির অসাধারণ স্বাস্থ্যগুণ-

উপকরণ:
২টি ঢেঁড়স
১ গ্লাস পানি

যেভাবে তৈরি করবেন:
১। প্রথমে ঢেঁড়সগুলোর মুখ এবং লেজের অংশ কেটে নিন।
২। এবার এক গ্লাস পানির মধ্যে কাটা ঢেঁড়স দিয়ে দিন।
৩। এভাবে সারা রাত রাখুন।
৪। সকালে খালি পেটে এটি পান করুন।

স্বাস্থ্য উপকারিতা:
১। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে
২। ব্লাড সুগার কমিয়ে দেয়, যা ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করে।
৩। কোলেস্টেরল মাত্রা নিয়ন্ত্রণ রাখে।
৪। কিডনি রোগ প্রতিরোধ করে।
৫। অ্যাজমা প্রতিরোধে সাহায্য করে।

ভাল ফল পেতে প্রতিদিন নাস্তার আগে খালি পেটে এটি পান করুন। এটি ডায়াবেটিস কমাতে সাহায্য করে, কোলেস্টেরল মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে কিডনি সুস্থ রাখে।

ভারতীয় মিডিয়ায় মুস্তাফিজের জন্য ইংরেজি অক্ষরে বাংলা!

ভারতীয় মিডিয়ায় মুস্তাফিজের জন্য ইংরেজি অক্ষরে বাংলা!

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সানরাইজ হায়দরাবাদ মুস্তাফিজের জন্য সর্বক্ষণিক দোভাষী নিয়োগ দিয়েছে- এটা পুরনো খবর। দলের ম্যানেজার থেকে কোচ সবাই বাংলা শিখছেন- এটাও পুরনো খবর। তাহলে নতুন খবরটা কী? নতুন খবর হলো- ভারতীয় মিডিয়া আইপিএলের এই নাম্বার ওয়ান বোলারের জন্য ইংরেজি অক্ষরে বাংলা লিখা শুরু করেছে।

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগে যাওয়ার আগে হয়ত একটু ভাষাগত ভীতি ছিল মুস্তাফিজের। কারণ ইংরেজি-হিন্দী কোনটাই যে ভালো জানেন না তিনি। কিন্তু এখন পরিস্থিতি পুরোই উল্টো! মুস্তাফিজ অন্য ভাষা শিখবে কী, এখন ওরাই মুস্তাফিজের জন্য কষ্ট করে বাংলা রপ্ত করছে।

আর এ সবই সম্ভব হয়েছে তার জাদুকরী বোলিংয়ের জন্য। আইপিএলে বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানদের যেভাবে নাচিয়েছেন মুস্তাফিজ, তা নিয়ে কিছুর বলার বাকি আছে বলে মনে হয় না।

প্রতি ম্যাচেই অসাধারণ পারফরমেন্সের সুবাদে ভারতের বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে- কাটার মাস্টার মুস্তাফিজের সাক্ষাৎকার। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাৎকারে ইংরেজি অক্ষরে লেখা কাটার-মাস্টার মুস্তাফিজের বাংলা কথা

সংবাদ মাধ্যম ডেকান ক্রোনিক্যালকে দেয়া সাক্ষাৎকারে মুস্তাফিজ ঠিক যেভাবে বাংলায় কথা বলেছেন ঠিক সেভাবেই ইংরেজি অক্ষরে বাংলা লিখেছে ওয়েবসাইটটি। শুধু তা-ই নয়, পাশে সেই বাংলার ইংরেজিটাও লিখে দিয়েছে।

ওই সংবাদ মাধ্যমটি লিখেছে, তিনি (মুস্তাফিজ) সাধারণ কেউ নন, এই তরুণকে খুব আগলে রাখছে তার দল হায়দরাবাদ। মুস্তাফিজ ইংরেজিতে খুব পাকা নন, আবার হিন্দিতে পারদর্শী নন, তবুও তিনি কিন্তু কথা চালিয়ে যাচ্ছেন।

তারপর ইংরেজি অক্ষরে মুস্তাফিজের বক্তব্য বাংলায় লেখা, "অল্প স্বল্প যা পারি, তাই দিয়ে চলতেছে, ভালোই লাগছে (“Olpo sholpo ja pari, tai diya choltese, bhaloi lagse...")।"

এখন ভারতের আরও অন্যান্যভাষার পত্রিকাগুলোতে বাংলা ভাষায় মুস্তাফিজের জন্য বক্তব্য দেখলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না!
 

আজ ‘ইত্যাদি’


ঢাকা: চাঁপাই নবাবগঞ্জে হর্টিকালচার সেন্টারের অভ্যন্তরের আম্রকাননে ধারণ করা জনপ্রিয় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ইত্যাদি আজ দেখা যাবে বিটিভি ও বিটিভি ওয়ার্ল্ডে রাত ৮টার বাংলা সংবাদের পর। ইত্যাদিতে বরাবরই দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে প্রচারবিমুখ, জনকল্যাণে নিয়োজিত মানুষদের খুঁজে এনে তাদের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরা হয়। যাতে তাদের এসব কাজ দেখে অন্যেরাও অনুপ্রাণিত হতে পারেন। এবারের পর্বেও রয়েছে তেমনি কয়েকটি হৃদয়ছোঁয়া প্রতিবেদন। শুরুতেই থাকছে অনুষ্ঠান ধারণস্থান চাঁপাইনবাবগঞ্জ এবং আম নিয়ে দুটি তথ্যবহুল প্রতিবেদন। ফজলে রাব্বী রবিন নামে এক যুবকের সম্প্রীতির ওপর একটি সচেতনতামূলক প্রতিবেদন এবং খুলনার ফুলতলা উপজেলার প্রচারবিমুখ, অসহায় ও দরিদ্র মানুষের সেবায় নিবেদিত প্রাণ, শিক্ষানুরাগী মানুষ কুতুবুদ্দিন আহমেদের ওপর একটি শিক্ষামূলক প্রতিবেদন থাকবে। এবারের বিদেশি প্রতিবেদন করা হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের পাশে অবস্থিত অষ্টাদশ শতাব্দীতে বাংলার নবাবদের আবাসস্থল পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মুর্শিদাবাদে। এই প্রতিবেদনে জানা যাবে নবাবদের নানা বিচিত্র ঘটনা। চাঁপাইনবাবগঞ্জকে নিয়ে মোহাম্মদ রফিকউজ্জামানের লেখা ও হানিফ সংকেতের সুরে একটি গানের সঙ্গে স্থানীয় প্রায় শতাধিক নৃত্যশিল্পীর অংশগ্রহণে রয়েছে একটি জমজমাট নৃত্য। নিয়মিত পর্ব হিসেবে এবারও রয়েছে যথারীতি মামা-ভাগ্নে, নানি-নাতি ও চিঠিপত্র বিভাগ। আরও থাকছে বিভিন্ন সমসাময়িক ঘটনা নিয়ে বেশ কিছু সরস অথচ তীক্ষ্ণ নাট্যাংশ। শহুরে বাঙালি বনাম গ্রাম্য বাঙালি, হাতের রেখা ও নেতার মর্জি, আইন ও আইনের প্রয়োগ, রোগীর কথায় অবাক ডাক্তার, উভয় সংকট, অন্তর বনাম বাহ্যিক সৌন্দর্য, ফেসবুকের ভালো-খারাপসহ বিভিন্ন বিষয়ের ওপর রয়েছে বেশ কয়েকটি নাট্যাংশ। বরাবরের মতো ইত্যাদির রচনা, পরিচালনা ও উপস্থাপনা করেছেন হানিফ সংকেত। নির্মাণ করেছে ফাগুন অডিও ভিশন।

ক্ষিপ্ত হয়ে আস্ত বিমান ভাঙচুর!


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: চাকরি থেকে বরখাস্ত করায় ক্ষিপ্ত হয়ে বিমানের একজন টেকনিশিয়ান আস্ত একটি বিমান বুলডোজার দিয়ে ভাঙচুর চালিয়েছে। বিমানটির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।সম্প্রতি রাশিয়ার একটি বিমানবন্দরে এই ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। বিমান ভাঙার এই ভিডিওটি ভাইরাল আকারে ছড়িয়ে পড়েছে ইন্টারনেটে। ব্যবহৃত ওয়াইএকে-৪০ মডেলের এই বিমানের আনুমানিক মূল্য প্রায় ৬০ লাখ টাকা( ৫২ হাজার পাউন্ড)। ব্রিটেনের প্রভাবশালী ট্যাবলয়েড পত্রিকা মিরর অনলাইনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে, বুলডোজার দিয়ে বিমানটির সামনের অংশে বেশ কয়েক বার আঘাত করা হচ্ছে। ফলে পাইলটের বসার স্থানের অংশে বিশাল গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত বিমানটি ইউটেয়ার এয়ারলাইন্সের ওয়াইএকে-৪০ মডেলের তিন ইঞ্জিনবিশিষ্ট একটি ছোট্ট বিমান। ওই টেকনিশিয়ান রাশিয়ান ইউটেয়ার এয়ারলাইন্সের বুলডোজার চালাত। সম্প্রতি তাকে বরখাস্ত করায় ক্ষিপ্ত হয়ে এই কাণ্ড ঘটায় সে।দৃশ্যত প্রতিশোধ নিতেই বুলডোজার দিয়ে বিমানটি ভাঙচুর করে সে। ভিডিওটি লাইভ লিক ডটকমে সম্প্রতি আপলোড করা হয়। তবে ভিডিওটির নিচে কমেন্ট বক্সে একজন লিখেছেন, বিমানটির ভেঙে দেয়ার ঘটনা পূর্বপরিকল্পিত। কারণ বিমানটি নষ্ট ছিল।তবে কেউ কেউ বলছে, এরকম বেশ কয়েকটি বিমান তৈরির পর বিক্রি না হওয়ায় এগুলো সেখানে পড়েছিল দীর্ঘ দিন ধরে।

ইরাকে আলজাজিরার সম্প্রচার বন্ধ

ইরাকে আলজাজিরার সম্প্রচার বন্ধ

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সহিংসতা ও সাম্প্রদায়িকতা উস্কে দেয়ার অভিযোগে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরার বাগদাদ অফিস বন্ধ করে দিয়েছে ইরাক। আলজাজিরা মিডিয়া নেটওয়ার্কের কাছে পাঠানো ইরাকের যোগাযোগ ও গণমাধ্যম কমিশনের (সিএমসি) এক চিঠিতে আলজাজিরা ব্যুরো নেটওয়ার্কের লাইসেন্স প্রত্যাহার ও এক বছরের জন্য অফিস বন্ধের এ নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, আপনাদের গণমাধ্যমের আলোচনার বিষয় সব সময় সহিংসতা ও সাম্প্রদায়িকতা উস্কে দিচ্ছে।

দোহাভিত্তিক সবচেয়ে বড় এই সংবাদমাধ্যম বুধবার এক বিবৃতিতে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলছে, তারা কোনো নীতির লঙ্ঘন করেনি অথবা পেশাদারি এবং বস্তুনিষ্ঠ কভারেজ থেকে বিচ্যুত হয়নি।

আলজাজিরা নেটওয়ার্কের ইরাকি ব্যুরো প্রধান ওয়ালিদ ইব্রাহিম বার্তাসংস্থা এএফপিকে বলেন, নেটওয়ার্কের বিদেশি কর্মীরা ইরাকে অফিসে প্রবেশ করতে পারছে না, কারণ কর্তৃপক্ষ ভিসা পেতে সহায়তা করেনি।

আলজাজিরা বলছে, মত প্রকাশের স্বাধীনতার সঙ্গে ইরাকি সরকারের যে প্রতিশ্রুতি রয়েছে তার সঙ্গে সিএমসির এ সিদ্ধান্ত সাংঘর্ষিক।

মাঠের বাইরে লড়ছেন মেসি-আলভেজ


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: বার্সেলোনার জার্সি গায়ে ২০০৮ সাল থেকে একসঙ্গে খেলছেন লিওনেল মেসি ও দানি আলভেজ। ফুটবল মাঠে দলের জয়ের জন্য দুজনই লড়েন কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে। গত আট বছরে দুজনের বন্ধুত্বও বেশ জমে উঠেছে। কিন্তু এবার মাঠের বাইরে ভিন্ন এক লড়াইয়ে নেমেছেন আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিলের এ দুই ফুটবলার। সম্প্রতি বার্সেলোনায় একটি ব্রাজিলিয়ান রেস্টুরেন্ট খুলেছেন আলভেজ। সেটা আরো বড় করার পরিকল্পনাও আছে ব্রাজিলিয়ান এই ডিফেন্ডারের। কিন্তু এখানে তাঁর শক্ত প্রতিপক্ষ হিসেবে দাঁড়িয়ে গেছেন মেসি। আলভেজের খাবারের দোকানের খুব কাছেই আরেকটি রেস্টুরেন্ট চালু করতে যাচ্ছেন আর্জেন্টাইন তারকা। দুই দোকানের দূরত্ব হবে হাঁটা পথে পাঁচ মিনিট। ফলে মানুষকে আকৃষ্ট করার ক্ষেত্রে বেশ জমে উঠবে মেসি-আলভেজের লড়াই। ফুটবল মাঠে অবশ্য দারুণ জমে মেসি-আলভেজ জুটি। রাইট ব্যাক হিসেবে খেললেও প্রায়ই মেসির গোলে নেপথ্য অবদান রাখেন আলভেজ। বার্সেলোনার জার্সি গায়ে ব্রাজিলিয়ান এই ডিফেন্ডারের পাস থেকে বল পেয়েই সবচেয়ে বেশি, ৪২টি গোল করেছেন মেসি। ৩৩টি গোল করেছেন আন্দ্রেস ইনিয়েস্তার পাস থেকে বল পেয়ে। ২০০৮ সাল থেকে মেসি-আলভেজ একসঙ্গে জিতেছেন পাঁচটি লা লিগা, তিনটি করে কোপা দেল রে ও চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপা। উয়েফা সুপার কাপ ও ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপও জিতেছেন তিনবার করে।

মে দিবসে সমাবেশের অনুমতি পেলো বিএনপি

মে দিবসে সমাবেশের অনুমতি পেলো বিএনপি

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: জাতীয়তাবাদী দল বিএনপিকে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস উপলক্ষে পহেলা মে রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করার অনুমতি দিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ।

আজ শুক্রবার বেলা ১১টা ২০ মিনিটে নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এ কথা জানান।

রিজভী বলেন, অন্যান্য সময়ের মতোই শর্ত দেয়া হয়েছে। অতিরিক্ত কোনো শর্তারোপ করা হয়নি। সমাবেশ দুপুর ২টা থেকে শুরু হয়ে সন্ধ্যার আগেই শেষ হবে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (গণমাধ্যম ও জনসংযোগ) মারুফ হোসেন সরদার জানান, শর্তসাপেক্ষে বিএনপিকে সমাবেশ করার অনুমতি দিয়েছে পুলিশ।

বৃষ্টির জন্য প্রার্থনা


ইসলাম ডেস্ক: সরাসরি স্রষ্টার নিয়ন্ত্রিত প্রক্রিয়ার অন্যতম বৃষ্টি। বৃষ্টি ভূমিকে ঊর্বর ও উৎপাদনশীল করে। বৃষ্টিতে সজীব ও সুশোভিত হয়ে ওঠে গাছপালা ও তৃণলতা। তীব্র খরায়, গ্রীষ্মের দাবদাহে জমিন যখন ফেটে চৌচির হয়ে যায়, চারদিকে প্রকৃতি খাঁ খাঁ করতে থাকে, তখন মহান প্রভুর ঐশী প্রেরণায় এক পশলা বৃষ্টি জগতে সঞ্চার করে নতুন প্রাণের। প্রকৃতি হয়ে ওঠে প্রাণবন্ত। মৃতপ্রায় বসুন্ধরা ফিরে পায় তার সজীবতা ও সৌরভ। বৃষ্টি কত বড় নেয়ামত সেটা রাজধানীসহ দেশের কিছু অঞ্চলের মানুষ ভালোভাবে টের পাচ্ছে। বৃষ্টির জন্য চার দিকে হাহাকার। কবে নামবে রহমতের বৃষ্টি সে অপেক্ষা সবার। অনাবৃষ্টি ও খরার অবস্থায় মহান আল্লাহ তায়ালার দরবারে বৃষ্টির জন্য দোয়া করা উচিত। সৃষ্টিকর্তার শরণাপন্ন হলে আল্লাহ বিপদ-আপদ, দুঃখ-কষ্ট, বালা-মুসিবত অবশ্যই দূর করে দেন। এ প্রসঙ্গে কোরআনে কারিমে ইরশাদ হয়েছে, ‘বরং তিনি (আল্লাহ), যিনি সৃষ্টি করেছেন আকাশমণ্ডলী ও পৃথিবী এবং আকাশ হতে তোমাদের জন্য বর্ষণ করেন বৃষ্টি, অতঃপর আমি (আল্লাহ) তা দ্বারা মনোরম উদ্যান সৃষ্টি করি, ওগুলোর বৃক্ষাদি উদগত করবার ক্ষমতা তোমাদের (মানুষের) নেই।’ (সুরা নমল) অনাবৃষ্টি হলে আল্লাহর মহান দরবারে বৃষ্টির জন্য দোয়া করার নিয়ম রয়েছে। ইসলামে বৃষ্টির জন্য দোয়া করার জন্য যে নামাজ আদায় করার নিয়ম রয়েছে সেই নামাজকে ‘ইসতিসকা’ বলা হয়। ইসতিসকা শব্দের অর্থ বৃষ্টির জন্য দোয়া করা। হাদিস শরিফের বিভিন্ন গ্রন্থে ইসতিসকার নামাজ ও দোয়ার বিস্তারিত বিবরণ রয়েছে। রাসুল সা. মসজিদে নববীর মিম্বারে দাঁড়ানো অবস্থায় বৃষ্টির জন্য দোয়া করেছেন। আবার ঈদগাহে কিম্বা খোলা ময়দানে বিশাল সমাবেশে ইসতিসকার নামাজে ইমামতি করেছেন। বৃষ্টির জন্য দুই হাত তুলে মোনাজাতও করেছেন। এক হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, হজরত আনাস ইবনে মালেক রা. থেকে বর্ণিত, এক ব্যক্তি জুমার দিনে মিম্বরের সোজাসুজি দরজা দিয়ে প্রবেশ করল। প্রিয়নবী সা. তখন মিম্বরে দাঁড়িয়ে খুতবা দিচ্ছিলেন। লোকটি প্রিয়নবী সা.-এর দাঁড়িয়ে বলল, ইয়া রাসুলাল্লাহ! গবাদিপশু সব ধ্বংস হয়ে গেল এবং রাস্তাগুলোতে চলাচল বন্ধ হয়ে গেল। সুতরাং আপনি আল্লাহর নিকট দোয়া করুন যেন তিনি বৃষ্টি দেন। বর্ণনাকারী বলেন, তখন হজরত রাসুলুল্লাহ সা. তার মোবারক হাত দু’খানা ওপরে তুলে দোয়া করলেন, ‘আল্লাহুম্মাসকিনা আল্লাহুম্মাসকিনা আল্লাহুম্মাসকিনা; হে আল্লাহ! বৃষ্টি দিন, হে আল্লাহ! বৃষ্টি দিন, হে আল্লাহ! বৃষ্টি দিন। হজরত আনাস রা. বলেন, আল্লাহর কসম! আমরা তখন আকাশে মেঘমালা দেখিনি, আকাশে মেঘের লেশমাত্রা নজরে পড়েনি। সালআ পর্বত ও আমাদের মাঝখানে কোনো ঘরবাড়িও ছিল না। হঠাৎ সালআ পর্বতের পেছন থেকে ঢালের মতো মেঘ বেরিয়ে এলো এবং মধ্যাকাশে গিয়ে বিস্তৃত হয়ে গেল। তারপর বৃষ্টি বর্ষণ শুরু হলো। তিনি বলেন, আল্লাহর কসম! আমরা ছয়দিন সূর্যের দেখা পাইনি। পরবর্তী জুমার দিন সেই লোকটি দরজা দিয়ে মসজিদে প্রবেশ করল। তখন প্রিয় নবী সা. মিম্বরে দাঁড়িয়ে খুতবা দিচ্ছিলেন। লোকটি দাঁড়িয়ে বলল, ইয়া রাসুলাল্লাহ! ধন-সম্পদ নষ্ট হয়ে গেল, সড়কগুলো বিচ্ছিন্ন হয়ে গেল, কাজেই আপনি বৃষ্টি বন্ধের জন্য দোয়া করুন। হজরত আনাস রা. বলেন, হজরত রাসূলুল্লাহ সা. দুই মোবারক হাত তুলে দোয়া করলেন, হে আল্লাহ! আমাদের আশপাশে বর্ষণ করুন, আমাদের ওপর আর বর্ষণ করবেন না- টিলা, পর্বত, উচ্চভূমি, মালভূমি উপত্যকা ও বনাঞ্চলে বর্ষণ করুন। হজরত আনাস (রা.) বলেন, তৎক্ষণাৎ বৃষ্টি বন্ধ হয়ে গেল, আমরা রোদ মাথায় নিয়ে ফিরলাম।’ (বুখারি) অনাবৃষ্টি বা খরাজনিত কারণে বৃষ্টির জন্য আল্লাহ তায়ালার দরবারে দোয়া করা সুন্নত। অনাবৃষ্টি আক্রান্ত এলাকার সর্বস্তরের মানুষ দীন-হীন পোশাক পরিধান করে খুবই বিনীতভাবে পায়ে হেঁটে খোলা ময়দানে সমবেত হয়ে বিনম্রভাবে কাতরস্বরে আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইতে হয়। তারপর ইমামের পেছনে দুই রাকাত নামাজ আদায় করতে হয়। এই নামাজে আজান-ইকামত নেই। ইমাম কেরাত পাঠ করবেন উচ্চৈঃস্বরে। ইমাম তার গায়ের চাদর উল্টিয়ে নেবেন অর্থাৎ চাদরে ডান পার্শ্ব বামে এবং বাম পার্শ্ব ডানে পরিবর্তন করে কিবলামু‍খি অবস্থায় হাত উঠিয়ে দোয়া করবেন। এর আগে খুতবা দেবেন। বহু নজির আছে এই নামাজ শেষ হতে না হতে বৃষ্টি বর্ষণ হতে থাকে। যদি না হয় মোট তিনদিন এই নামাজ আদায় করতে হয়। নবী করিম (সা.) মসজিদে নববীর দক্ষিণ-পশ্চিম কোণে, মসজিদ থেকে ৩০৫ মিটার দূরে অবস্থিত ময়দানে ইসতিসকার নামাজ আদায় করেছিলেন। বর্তমানে সেখানে ছাতার আকৃতির কয়েকটি গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদ আছে। যার নাম ‘মসজিদে গামামা’ অর্থাৎ ‘মেঘের মসজিদ’।

লক্ষ্মীপুরে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে ২ জনকে গুলি করে হত্যা

লক্ষ্মীপুরে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে ২ জনকে গুলি করে হত্যা

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার বাঙ্গাখাঁ ইউনিয়নের রাজিবপুর গ্রামে দুই ব্যক্তিকে গুলি করে ও কুপিয়ে হত্যা করছে দুর্বৃত্তরা। বৃহস্পতিবার দিবাগত গভীর রাতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, রাজিবপুর গ্রামের মৃত সেকান্তর মিয়ার ছেলে ইসমাইল হোসেন মানিক (৪৮) ও শামছুল করিমের ছেলে কামরুল ইসলাম (২৮)। তারা পরস্পর প্রতিবেশী ও সম্পর্কে চাচা-ভাতিজা।

বাঙ্গাখাঁ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন কাজল বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, নিহতদের শরীরে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে।

সহকারী পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) নাসিম মিয়া জানান, ভোরে বাঙ্গাখাঁ ইউনিয়নের রাজিবপুর গ্রামে টুকুমিয়ার ব্রিজের পাশ থেকে দুজনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

দুজনই স্থানীয় আওয়ামী লীগ কর্মী ও তারা পরস্পরের আত্মীয় বলে স্থানীয়দের ভাষ্য। নিহতদের বিরুদ্ধে মাদক, ডাকাতি ও চুরিসহ একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছেন এসএসপি নাসিম।

নিহত মানিকের মেয়ে জেনী বলেন, রাত ১টার পরে কে বা কারা মোবাইল ফোনে তার বাবাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। কিছুদিন আগে রিপন ও সংগ্রাম নামে দুই ‘সন্ত্রাসী’ তার বাবাকে হত্যার হুমকি দিয়েছিল বলেও দাবি করেছেন জেনী।

একইভাবে কামরুলকে রাতে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায় বলে জানিয়েছেন নিহতের মামা নুর আলম।

এএসপি নাসিম মিয়া বলেন, “স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ সকালে লাশ উদ্ধার করেছে। দুজনের শরীরেই গুলির চিহ্ন পাওয়া গেছে।

প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপ ভানুয়াতুতে ৭ মাত্রার ভূমিকম্প

প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপ ভানুয়াতুতে ৭ মাত্রার ভূমিকম্প

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ৭ মাত্রার ভূমিকম্প হয়েছে দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপ ভানুয়াতুতে। বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, আজ শুক্রবার এই ভূমিকম্পটি হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা জানিয়েছে, মালেকুলা দ্বীপের অল্প সংখ্যক মানুষ অধ্যুষিত নরসাপের এক কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমাঞ্চলে ইফাতে দ্বীপের ২৭ দশমিক ২ কিলোমিটার গভীরে ছিল এই ভূকম্পনের উৎপত্তি।

ইফাতে দ্বীপরাষ্ট্রটির রাজধানী পোর্ট ভিলা থেকে ২০৮ কিলোমিটার উত্তরপশ্চিমাঞ্চলে অবস্থিত।

প্রশান্ত মহাসাগরীয় ভয়ঙ্কর ‘রিং অব ফায়ার’র কাছে ভানুয়াতুর অবস্থান। সেখানে প্রায়ই ভূমিকম্প হয়।

কানাইঘাটে নিহতদের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম

Kanaighat News on Thursday, April 28, 2016 | 9:41 PM


নিজস্ব প্রতিবেদক: কাতারে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত কানাইঘাট উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ি ইউনিয়নের আমরপুর গ্রামের হাছই মিয়ার ছেলে ইসলাম উদ্দিন (৩২) ও তার ছোট ভাই মঈনুদ্দিন (৩০), গর্দনাকান্দি গ্রামের কুতুব উদ্দিনের ছেলে আওলাদ হোসেন (৩৫) এবং কাপ্তানপুর গ্রামের মুহিব উদ্দিন (২৮) এর বাড়িতে চলছে শোকের মাতম। সড়ক দুর্ঘটনায় তাদের নিহত হওয়ার খবরে পরিবার ও গোটা এলাকায় নেমে এসেছে শোকের ছায়া। বৃহস্পতিবার সকালে খবর নিয়ে জানা যায়,আমরপুর গ্রামের নিহত দুই ভাইয়ের গ্রামের বাড়িতে চলছে স্বজনদের আহাজারি। চার ভাই ও তিন বোনের মধ্যে ইসলাম উদ্দিন ছিলেন সবার বড়। ইসলাম উদ্দিনের তিন মেয়ে ্এবং মঈন উদ্দিনের এক ছেলে এক মেয়ে। স্বামী হারানোর শোকে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন ইসলাম উদ্দিন ও মঈন উদ্দিনের স্ত্রী । দুই ছেলের মৃত্যু সংবাদ শুনে বার বার মুর্ছা যাচ্ছেন তাদের বৃদ্ধ মা। প্রতিবেশী ও স্বজনেরা তাকে সান্তনা দেওয়ার চেষ্টা করছেন। পাশ্ববর্তী গ্রামের কালাম আজাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, পরিবারের অর্থকষ্ট দূর করার জন্য প্রায় ৬ বছর আগে ইসলাম উদ্দিন ও তার ছোট ভাই প্রায় ২ বছর আগে কাতারের উদ্দেশে পাড়ি জমান। সেখানে তারা একটি সবজির দোকানে কাজ করতেন। একই চিত্র উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ি ইউনিয়নের গর্দনাকান্দি গ্রামের কুতুব উদ্দিনের ছেলে আওলাদ হোসেন (৩৫) এবং কাপ্তানপুর গ্রামের মুহিব উদ্দিন (২৮) এর বাড়িতেও। পরিবারের দুই ভাই ও এক বোনের মধ্যে আওলাদ হুসেন ছিলেন বড়। তিনি দুই মেয়ে এক ছেলে সন্তানের জনক। ৮ মাস আগে দেশে ছুটিতে এসেছিলেন আওলাদ। সন্তান হারিয়ে শোকে পাগল প্রায় মা। বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন বৃদ্ধ বাবাও। মুহিবুর রহমান তিন ভাইয়ের মধ্যে সে ছোট। তার বড় দুই ভাইও কাতার থাকেন। সে সেখানে একটি কোম্পানিতে কাজ করত। তার মৃত্যুর খবর শুনে শোকে বারবার মুর্ছা যাচ্ছেন তার মা। প্রতিবেশী ও স্বজনেরা তাকে সান্তনা দেওয়ার চেষ্টা করছেন।

ব্যাট হাতে আবারো ব্যর্থ সাকিব


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএলে) রান খরা কাটছে না সাকিব আল হাসানের। এ নিয়ে টানা তিন ম্যাচেই দুই অঙ্কের কোটায় পৌঁছাতে ব্যর্থ হন বিশ্বের অন্যতম সেরা এই অলরাউন্ডার। বৃহস্পতিবার কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে আসরের চতুর্থ ম্যাচ খেলতে নেমে মাত্র ছয় রান করে সাজঘরে ফিরে যান সাকিব। চার বলে ছয় রানের এই ইনিংসে অবশ্য একটি বাউন্ডারির মার ছিল। এরপর বেশিক্ষণ ক্রিজে থাকেননি তিনি। হার্দিক পান্ডের বলে উইকেটের পেছনে পার্থিব প্যাটেলের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান এই বাঁ-হাতি অলরাউন্ডার। এই আসরের প্রথম দুই ম্যাচে উপেক্ষিত ছিলেন সাকিব, একাদশেই জায়গা হয়নি তাঁর। পরে দলে সুযোগ পেলেও সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিপক্ষে ব্যক্তিগত প্রথম ম্যাচে ব্যাট করতে নামতে হয়নি তাঁকে। পরের তিন ম্যাচে তিনি যথাক্রমে ১১, ৩ ও ৪ রান করছেন। আর একটি মাত্র উইকেট পেয়েছেন আগের ম্যাচে পুনের বিপক্ষে। অবশ্য ২০১১ সালে কেকেআরে যোগ দেওয়ার পর দলের দুটি শিরোপা জয়ের পেছনেও বড় অবদান রেখেছিলেন ওয়ানডের বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার। কলকাতা ২০১২ সালে জিতেছিল প্রথম শিরোপা। ২০১৪ সালে দ্বিতীয়বার আইপিএলের ট্রফি জিতেছিল কলকাতা। দুবারই দলের শিরোপা জয়ের পেছনে ভালো অবদান রেখেছিলেন সাকিব। ফলে টানা ষষ্ঠবারের মতো দলটির জার্সি গায়ে খেলছেন এই বাঁ-হাতি ক্রিকেটার। এর আগে ২০১১ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত আইপিএলের পাঁচটি আসরে ৩২টি ম্যাচ খেলে সাকিব করেছেন ৩৮৩ রান। বল হাতে নিয়েছেন ৩৮টি উইকেট। আর দুবার জিতেছিলেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার। সেই সাকিব এবার অনেকটাই নিষ্প্রভ।

কাতারে সড়ক দুর্ঘটনায় কানাইঘাটের ৪ জন নিহত

Kanaighat News on Tuesday, April 26, 2016 | 9:23 PM


নিজস্ব প্রতিবেদক: কাতারে সড়ক দুর্ঘটনায় কানাইঘাট উপজেলার ৪ ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। ট্যাক্সিযোগে দেশটির কাতারের দোহায় স্থানীয় সবজি মার্কেট থেকে সোমাল নামক স্থানে যাওয়ার পথে মালবাহী ট্রাকের ধাক্কায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এতে আরো ২ ব্যক্তি গুরুতর আহত হয়েছেন। মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় সকাল ১১টা (স্থানীয় সময় সকাল ৮টায়) এ মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হচ্ছেন- কানাইঘাট উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ি ইউনিয়নের আমরপুর গ্রামের হাছই মিয়ার ছেলে ইসলাম উদ্দিন (৩২) ও তার ছোট ভাই মঈনুদ্দিন (৩০), গর্দনাকান্দি গ্রামের কুতুব উদ্দিনের ছেলে আওলাদ হোসেন (৩৫) এবং কাপ্তানপুর গ্রামের মুহিব উদ্দিন (২৮)। সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত দু’জন হচ্ছেন- আওলাদ হোসেনের ছোট ভাই রেজওয়ানুল করিম এবং ঝিঙ্গাবাড়ি ইউনিয়নের ফরিদ উদ্দিন। কানাইঘাটের ঝিঙ্গাবাড়ি ইউনিয়নের গোয়ালজুড় গ্রামের কালাম আজাদ ও একই ইউনিয়নের লামা ঝিঙ্গাবাড়ি গ্রামের সেলিম উদ্দিন এ দুর্ঘটনার বিষয়টি কানাইঘাট নিউজকে নিশ্চিত করেছেন। তারা জানান, নিহত ৪ জনের সাথে অবস্থানরত হুমায়ুন আহমদ নামক এক ব্যক্তি তার বন্ধু কানাইঘাটের আমরপুর গ্রামের নুরুল ইসলামকে সড়ক দুর্ঘটনার বিষয়টি ফোন করে জানিয়েছেন।

কানাইঘাটে আকস্মিক পাহাড়ী ঢল! মুলাগুল বাজারের অর্ধশতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ঝুঁকির মধ্যে

Kanaighat News on Monday, April 25, 2016 | 9:45 PM


নিজস্ব প্রতিবেদক: গত শনিবার রাতে ভারতের উজান থেকে নেমে আসা আকস্মিক তীব্র পাহাড়ী ঢলে কানাইঘাট লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউপির প্রাচীনতম মুলাগুল বাজারের অর্ধ শতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান লোভা নদীর গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। তীব্র গতির পাহাড়ী ঢলে নদী ভাঙ্গন কবলিত বাজারে অর্ধশতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান লোভানদীতে তলিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি বর্তমানে আরো অর্ধ শতাধিক দোকান পাট ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। প্রাচীনতম এ বাজারটি লোভা নদীর ভাঙ্গন থেকে রক্ষা করার জন্য সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপকে তড়িৎ গতিতে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন এলাকাবাসী এবং বাজারের ব্যবসায়ীবৃন্দ। এদিকে গত শনিবার রাতে প্রচন্ড কাল বৈশাখী ঝড়ে লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউপির ৯নং ওয়ার্ডের সাউদগ্রাম, পশ্চিমপাড়া, কালিজুরী, বড়গ্রামে অর্ধশতাধিক আঁধা কাচা বসত ঘর বিধ্বস্ত এবং শতাধিক ঘরবাড়ী আংশিক ক্ষয়ক্ষতি সাধিত হয়েছে। ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ তমিজ উদ্দিন কাল বৈশাখী ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে আর্থিক সহায়তা প্রদান এবং তার ওয়ার্ডে অবস্থিত মুলাগুল বাজার নদী ভাঙ্গনের হাত থেকে রা করার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তারেক মোহাম্মদ জাকারিয়াকে অবহিত করেছেন।

কানাইঘাটে নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান মাসুদকে সংবর্ধনা


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: কানাইঘাট উপজেলার ৭নং দক্ষিণ বাণীগ্রাম ইউনিয়নের সদ্য নির্বাচিত চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ সমর্থিত মাসুদ আহমদকে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে। সোমবার আওয়ামী লীগ নেতা ইসলাম উদ্দিনের নেতৃত্বে কয়েকজন ছাত্রলীগ নেতাকর্মী মাসুদ আহমদের নির্বাচনী কার্যালয়ে গিয়ে এই সংবর্ধনা প্রদান করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন- কানাইঘাট উপজেলার গাছবাড়ী বাজার কমিটির সভাপতি ইজ্জাত উল্লাহ, গাছবাড়ী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেলিম আহমদ, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক নাজির উদ্দিন, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বাবুল আহমদ, সিলেট থেকে যাওয়া আওয়ামী লীগ নেতা ইসলাম উদ্দিন, সিলেট মহানগর ছাত্রলীগ নেতা মো. রাজু আহমদ, সোহেল আহমদ, মেহেদি হাসান ফয়েজ, ইমাদ আহমদ ও শাকিল আহমদ প্রমুখ।

আরও কয়েকদিন অব্যাহত থাকবে তাপপ্রবাহ

আরও কয়েকদিন অব্যাহত থাকবে তাপপ্রবাহ

রিপোর্ট: রোববারও গত কয়েকদিনের মতো অসহনীয় গরম বয়ে গেছে। দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে চলা তাপপ্রবাহে রাজধানীসহ দেশের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। এসময় বাতাসে আর্দ্রতা বেশি থাকায় অসহনীয় গরম অনুভূত হচ্ছে। যদিও সন্ধ্যার পর কিছুক্ষণ স্বস্তির বাতাস দেখা দিচ্ছে।

আবহাওয়াবিদরা বলছেন, আরও কয়েকদিন থাকবে চলমান তাপপ্রবাহ। এর মধ্যে দেশের কোথাও কোথাও বৃষ্টি হলেও রাজধানীতে সহসাই বৃষ্টির আভাস নেই। এজন্য মে মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্তও অপেক্ষায় থাকতে হতে পারে রাজধানীবাসীকে।

এদিকে চাঁদপুর, নোয়াখালী ও শ্রীমঙ্গল অঞ্চলসহ রংপুর ও বরিশাল বিভাগের ওপর দিয়ে এবং ঢাকা, রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের অবশিষ্টাংশে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বইছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

তবে ফরিদপুর, রাজশাহী, মংলা, সাতক্ষীরা, যশোর ও চুয়াডাঙ্গা অঞ্চলে তীব্র তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে।

রোববার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল যশোরে, ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এসময় রাজধানীতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয় ৩৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ রুহুল কুদ্দুস জানান, 'এপ্রিলের শেষার্ধে মাথার উপরে সূর্যকিরণ থাকে, এমন রোদে আর্দ্রতা বেশি থাকায় ভ্যাপসা গরম অনুভূত হয় বেশি'। অস্বস্তিকর আবহাওয়া বিরাজ করে প্রায় সবখানে।

গত কয়েক বছর ধরেই এপ্রিলে এমন গরম অনুভূত হচ্ছে। ২০১৪ সালের ২৪ এপ্রিল ৪০ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস উঠেছিল ঢাকার তাপমাত্রা।

তিনি অারো জানান, এই তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকবে। সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু জায়গায় এবং বরিশাল বিভাগের দুয়েক জায়গায় অস্থায়ী দমকাসহ বৃষ্টি হতে পারে। এসময় কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টিও হতে পারে।

'দু’সপ্তাহের বেশি সময় ধরে অনেক এলাকায় মাঝারি থেকে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে'। এটা অস্বাভাবিক নয়। বৈশাখের মাঝামাঝি এসে এমন আবহাওয়া থাকেই। চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও বৃষ্টির পূর্বাভাস থাকলেও ঢাকায় তাপমাত্রা আরও বাড়তে পরে। মে মাসের শুরুতে বৃষ্টি হতে পারে রাজধানীতে।

সুনামগঞ্জে ছোট ভাইয়ের হাতে বড় ভাই খুন


সিলেট, সোমবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৬ :: সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে ছোট ভাইয়ের বিরুদ্ধে। রবিবার রাত ৮টায় বাদাঘাট ইউনিয়নের লাউড়েরগড় গ্রামে এ ঘটনা ঘটে বলে পুলিশ জানিয়েছে। নিহত ইসলাম উদ্দিন (২৮) লাউড়েরগড় গ্রামের মৃত হাফিজ উদ্দিনের ছেলে। তাহিরপুর থানার ওসি মো. শহিদুল্লাহ স্থানীয়দের বরাত দিয়ে বলেন, বড় ভাই ইসলাম উদ্দিনের সঙ্গে পারিবারিক বিষয় নিয়ে জসিম উদ্দিনের কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে ইসলামকে দা দিয়ে কুপিয়ে আহত করেন জসিম। সুনামগঞ্জ সদর হাসাপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানান ওসি।

কানাইঘাটে চেয়ারম্যান পদে কে কত ভোট পেলেন!

Kanaighat News on Sunday, April 24, 2016 | 8:53 PM


নিজস্ব প্রতিবেদক: বিক্ষিপ্ত কিছু ঘটনা ছাড়াই গত শনিবার অনুষ্ঠিত কানাইঘাট উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের নির্বাচন উৎসব মুখর ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সম্পন্ন হয়েছে। বৈরি আবহাওয়া উপেক্ষা করে প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিতি ছিল স্বতঃস্ফুর্ত। ভোটকেন্দ্রে পরুষ ভোটারদের চাইতে নারী ভোটারদের উপস্থিতি ছিল বেশি। উপজেলার ৯টি ইউপির নির্বাচনে বেসরকারী ফলাফলে ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের প্রার্থী বিজয়ী হয়েছে ৪টিতে, বিএনপি বিদ্রোহী সহ ২টি এবং ৩ টিতে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, বেসরকারীভাবে ১নং লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে জামায়াত নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ ফয়াজ উদ্দি (ঘোড়া) প্রতীক নিয়ে ৪০৯৫টি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন, তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আ’লীগ বিদ্রোহী আলা উদ্দিন (আনারস) ৩২১১টি ভোট পেয়েছেন। ২নং লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপিতে আওয়ামীলীগ প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা মি. জেমস্ লিও ফারগুসন নানকা (নৌকা) প্রতীক নিয়ে ৩৪৬১টি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টির প্রার্থী এডভোকেট আব্দুর রহিম (লাঙ্গল) ৩২৪৪টি ভোট পেয়েছেন। ৩নং দিঘীরপাড় পূর্ব ইউপিতে আওয়ামীলীগ প্রার্থী আলী হোসেন কাজল (নৌকা) প্রতীক নিয়ে ৪১৮৫টি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির আলতাফ উদ্দিন (ধানের শীষ) ৩১০৭টি ভোট পেয়েছেন। ৪নং সাতবাঁক ইউপিতে মস্তাক আহমদ পলাশ (নৌকা) প্রতীক নিয়ে ২৯৩২টি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান ফয়জুল ইসলাম (চশমা) প্রতীক নিয়ে ২২৩৯টি ভোট পেয়েছেন। ৫নং বড়চতুল ইউপিতে স্বতন্ত্র মাও. আবুল হোসেন (চশমা) ৩৫২২টি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আব্দুল মালিক (ধানের শীষ) ২২৮০টি ভোট পেয়েছেন। ৬নং সদর ইউপিতে মামুন রশিদ (ধানের শীষ) প্রতীক নিয়ে ৩৮১৯ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছে, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম (মোটর সাইকেল) ৩২৭০টি ভোট পেয়েছেন। ৭নং দক্ষিণ বানীগ্রাম ইউপিতে মাসুদ আহমদ (নৌকা) প্রতীক নিয়ে ৩৪৪৭টি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বর্তমান চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন (ধানের শীষ) ২৮৬৫টি ভোট পেয়েছেন। ৮নং ঝিঙ্গাবাড়ী ইউপিতে বিএনপির বিদ্রোহী আব্বাস উদ্দিন (টেলিফোন) ২৯৭৮টি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী হারুন আহমদ (ঘোড়া) ২৮৪৯টি ভোট পেয়েছেন। ৯নং রাজাগঞ্জ ইউপিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা ফখরুল ইসলাম (চশমা) প্রতীক নিয়ে ২৮৪৯টি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সামছুল ইসলাম (খেজুরগাছ) ২৩৪৯টি ভোট পেয়েছেন

তুলসী পাতায় সারবে যেসব রোগ

তুলসী পাতায় সারবে যেসব রোগ

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ওষুধি গুনাগুণের দিক থেকে বিবেচনা করলে বলা যায়, আর দশটা গাছের তুলনায় তুলসি গাছের গুনাগুন বেশ ভিন্ন। ছোটোখাটো অনেক রোগের বেশ ভালো ঔষধ হিসেবে ব্যবহার করা হয় এই তুলসি পাতা।

জেনে নেয়া যাক রোগের ঔষধ হিসেবে তুলসি পাতার ব্যবহার-

সর্দি ও কাশি
সর্দি-কাসি প্রায় প্রত্যেকটি মৌসুমের খুব সাধারণ একটি অসুখ যা সবাইকে সমস্যা দেয়। এই সমস্যার হাত থেকে মুক্তি পেতে গেলে তুলসীপাতা ৫ মিনিট চিবিয়ে রসটি গিলে নিন। তাহলে এই সমস্যার হাত থেকে সহজেই সমাধান পেয়ে যাবেন।


জ্বর
তুলসীপাতা সবথেকে বেশি যে অসুখের হাত থেকে আপনাকে রক্ষা করবে তা হল জ্বর। চায়ে তুলসীপাতা সেদ্ধ করে সেই পাণীয় যদি পান করেন, তবে ম্যালেরিয়া, ডেঙ্গু প্রভৃতি অসুখ থেকে রক্ষা পেতে পারেন। আপনার পরিবারের কারো জ্বর হলে তাকে তুলসীপাতা এবং দারুচিনি মেশানো ঠান্ডা চা পান করান। জ্বর সেরে যাবে দ্রুত। মনে রাখবেন যেকোন বড় অসুখের প্রধান লক্ষণ এই জ্বর।

গলার ব্যাথা
সামান্য গরম পানিতে তুলসীপাতা দিয়ে সেদ্ধ করে নিয়ে, সেই পানি দিয়ে গার্গল করলে বা পানি পান করলে আপনার গলার ব্যাথা দ্রুত সেরে যাবে। গলায় যদি ক্যান্সার হয় তাহলেও কিন্তু গলা ব্যাথ্যা করবে। সুতরাং গলা ব্যাথ্যাকে হালকা ভাবে নিবেন না।

ত্বকের সমস্যা
ত্বকে ব্রণের সমস্যা সমাধানের একটি সহজ ও অন্যতম উপায় হল তুলসীপাতা। এছাড়াও নানান রকম অ্যালার্জি ও র‍্যাশে কার্যকর। তুলসীপাতার পেস্ট তৈরি করে তা ত্বকে লাগালে এই সমস্যাগুলি কমে যায়। বর্ণ থেকে কখনো কখনো পচন ধরে ত্বকে মারাত্বক ঘা হতে পারে। এবং পরে তা ক্যান্সারে পরিণত হতে পারে। তাই কোন অবস্থাতেই কোন কিছুকেই সাধারণ ভাবে দেখবেন না।

ইউপি নির্বাচন: আ.লীগ ৩৫২, বিএনপি ৫৮, অন্যান্য ১৩২

ইউপি নির্বাচন: আ.লীগ ৩৫২, বিএনপি ৫৮, অন্যান্য ১৩২
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: ৬১৪টি ইউনিয়ন তৃতীয় ধাপের পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে বিকেল ৪টায় শেষ হয়। এর মধ্যে দেশের অনেক ইউনিয়ন পরিষদে ভোট চলাকালীন অপ্রীতিকর ঘটনাও ঘটেছে। সর্বশেষ পাওয়া খবরে পাবনার চোটমোহর উপজেলায় নির্বাচনী সহিংসতায় একজনের মৃত্যু হয়েছে।

এসব ইউনিয়নে প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী আ.লীগ ৩৫২, বিএনপি ৫৮, অন্যান্য ১৩২ নির্বাচিত হয়েছেন।

চাঁদপুর: ফরিদগঞ্জ উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নে নির্বাচিত হলেন যারা :

১নং বালিথুবা পশ্চিম ইউনিয়নে বিজয়ী সফিকুর রহমান (আ.লীগ), ২নং বালিথুবা পূর্ব ইউনিয়নে বিজয়ী হারুন অর রশিদ (আ.লীগ বিদ্রোহী), ৩নং সুবিদপুর পূর্ব ইউনিয়নে বিজয়ী মাওলানা শারাফাত উল্যা (আ.লীগ), ৫নং গুপ্টি পূর্ব ইউনিয়নে বিজয়ী আব্দুল গনি বাবুল পাটওয়ারী (আ.লীগ), ৬নং গুপ্টি পশ্চিম ইউনিয়নে বিজয়ী আবুল কালাম ভূইয়া,  ৭নং পাইকপাড়া উত্তর ইউনিয়নে বিজয়ী আলী আক্কাছ ভূইয়া (আ.লীগ), ৮নং পাইকপাড়া শওকত হোসেন (আ.লীগ), ৯নং গোবিন্দপুর উত্তর সৈয়দ চৌধুরী, ১২নং চরদুঃখিয়া পশ্চিম হাসান আ. হাই (আ.লীগ), ১৫নং রুপসা উত্তর ওমর ফারুকী (আ.লীগ), ১৬নং রুপসা দক্ষিণ ইসকান্দর মিয়া, ৪নং সুবিদপুর পশ্চিম মহসীন হোসেন (আ.লীগ), ১০নং গোবিন্দপুর দক্ষিণ আব্দুল হান্নান  (আ.লীগ),

কুড়িগ্রাম : নাগেশ্বরী উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচিতরা হলেন:

রায়গঞ্জ আব্দুল্লাহ আল ওয়ালিদ মাসুম (আওয়ামী লীগ), সন্তোষপুর লিয়াকত আলী লাকু (আওয়ামী লীগ), রামখানা
আব্দুল আলিম (আওয়ামী লীগ), কেদার মাহবুব হোসেন (আওয়ামী লীগ), নুনখাওয়া শাহাবুল হোসেন (আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী), বেরুবাড়ী আব্দুল মোত্তালেব (আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী), বামনডাঙ্গা আমজাদ হোসেন (জাতীয় পার্টি), ভিতরবন্দ
আমিনুল হক খন্দকার বাচ্চু (জাতীয় পার্টি), নেওয়াশি আমজাদ হোসেন (জাতীয় পার্টি), কালিগঞ্জ মতিয়ার রহমান (জাতীয় পার্টি), কচাকাটা আব্দুল আউয়াল (জাতীয় পার্টি), বল্লভের খাস আকমল হোসেন (জাতীয় পার্টির বিদ্রোহী),
হাসনাবাদ গোলাম মাওলা বাবলু (বিএনপি), নারায়ণপুর, মজিবর রহমান (বিএনপি বিদ্রোহী)

কিশোরগঞ্জ : নিকলী উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচিতরা হলেন :

সিংপুর মো. অনোয়ার হোসেন (স্বতন্ত্র), দামপাড়া মো. আবু তাহের (আ.লীগ), কারপাশা তাকি আমান খান (আ.লীগ)
নিকলী সদর কারার বোরহান উদ্দিন (আ.লীগ), জারইতলা কামরুল ইসলাম মানিক (স্বতন্ত্র), গুরুই আবু তাহের (বিএনপি), ছাতিরচর মো. জামাল উদ্দিন (স্বতন্ত্র),

টাঙ্গাইল: ধনবাড়ী উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন যারা।

ধোপাখালী মো. আকবর হোসেন (আ.লীগ), যদুনাথপুর মীর ফিরোজ আহম্মেদ (আওয়ামী লীগ), মুশুদ্দি খন্দকার মঞ্জুর মোর্শেদ নান্নু মাষ্টার (আওয়ামী লীগ), পাইস্কা আরিফ বজলু (আওয়ামী লীগ), বলিভদ্র মুহাম্মদ সুরুজ্জামান মিন্টু (আওয়ামী লীগ), বীরতার মো. শফিকুল ইসলাম শফি (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী), বানিয়াজান শামসুল আলম তালুকদার (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী),

গোপালগঞ্জ : কাশিয়ানী উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে নির্বাচিতরা হলেন:

কাশিয়ানী সদর মশিউর রহমান খান (আ.লীগ), নিজামকান্দি মহব্বত হোসেন মোল্লা (আ.লীগ), সাজাইল কাজী জাহাঙ্গীর আলম (আ.লীগ), রাতইল বিএম হারুনুর রশীদ পিনু (আ.লীগ), ফুকরা মো. এমদাদুল হক (আ.লীগ), পারুলিয়া
মকিবুল ইসলাম (আ.লীগ), সিঙ্গা প্রনব সরকার (আ.লীগ), হাতিয়াড়া দেব দুলাল বিশ্বাস (আ.লীগ), পুইশুর
আলীউজ্জামান পান্নু (আ.লীগ), মাহমুদপুর মাসুদ রানা (আ.লীগ), মহেশপুর কাজী আবুল কালাম আজাদ (আ.লীগ বিদ্রোহী), ওড়াকান্দি মো. বদরুল আলম বিটুল (আ.লীগ বিদ্রোহী)।

সিলেটের জৈন্তাপুর ও কানাইঘাট উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নে নির্বাচিতরা হলেন:

১নং নিজপাট মঞ্জুর এলাহী সম্রাট (আ.লীগ), ২নং জৈন্তাপুর এখলাছুর রহমান (আ.লীগ), ৩নং চারিকাটা  শাহ আলম চৌধুরী তোফায়েল (বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী), ৪নং দরবস্ত বাহারুল আলম বাহার (বিএনপি), ৫নং ফতেহপুর মো. আব্দুর রশিদ (বিএনপি), ৬নং চিকনাগুল আমিনুর রশিদ (আ.লীগ বিদ্রোহী), ১নং লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ডাক্তার ফয়াজ উদ্দিন(স্বতন্ত্র), ২নং লক্ষীপ্রসাদ জেমস লিও ফারগুসন নানকা (আ.লীগ), ৩নং দিঘীরপাড় পূর্ব আলী হোসেন কাজল (আ.লীগ), ৪নং সাতবাঁক মস্তাক আহমদ পলাশ (আ.লীগ), ৫নং বড়চতুল মাওলানা আবুল হোসেন (স্বতন্ত্র), ৬নং কানাইঘাট সদর মামুন রশিদ (বিএনপি), ৭নং দক্ষিণ বানীগ্রাম মাসুদ আহমদ (আ.লীগ), ৮নং ঝিঙ্গাবাড়ী
আব্বাস উদ্দিন (বিএনপি বিদ্রোহী), ৯নং রাজাগঞ্জ ফখরুল ইসলাম (স্বতন্ত্র),

সুনামগঞ্জের তিন উপজেলার ২৬টি ইউনিয়নে নির্বাচিত হলেন যারা :

মোল্লাপাড়া, নুরুল হক (বিএনপি বিদ্রোহী), গৌরারং ফুল মিয়া (বিএনপি), রঙ্গারচর আব্দুল হাই (বিএনপি), সুরমা
আব্দুস সাত্তার ডিলার (আ.লীগ), লক্ষণশ্রী আব্দুল অদুদ (বিএনপি), কুরবাননগর আবুল বরকত (বিএনপি বিদ্রোহী), মোহনপুর নুরুল হক (জাপা), কাঠইর মো. শামসুল ইসলাম (স্বতন্ত্র), দোয়ারাবাজার সদর আব্দুল বারী (বিএনপি),
বোগলাবাজার, আরিফুল ইসলাম জুয়েল (বিএনপি), পান্ডারগাঁও ফারুক আহমদ (বিএনপি বিদ্রোহী), লক্ষীপুর
আমিরুল ইসলাম (আ.লীগ বিদ্রোহী), মান্নারগাঁও আবু হেনা আজিজ (বিএনপি), বাংলাবাজার জসিম উদ্দিন রানা (আ.লীগ বিদ্রোহী), নরসিংপুর একেএম আইয়ুবুর রহমানী (আ.লীগ বিদ্রোহী), পূর্ব বীরগাঁও নুর কালাম (স্বতন্ত্র),
সুরমা খন্দকার মামুনুর রশিদ (আ.লীগ), দোহালিয়া আনোয়ার মিয়া আনু (আ.লীগ), পাথারিয়া আমিনুর রশীদ (বিএনপি),
পশ্চিম পাগলা, নুরুল হক (আ.লীগ বিদ্রোহী), পশ্চিম বীরগাঁওয়ে শফিকুল ইসলাম (আ.লীগ বিদ্রোহী), পূর্ব পাগলা
আক্তার হোসেন (বিএনপি বিদ্রোহী), জয়কলস মো. মাসুদ মিয়া (আ.লীগ), দরগাপাশা মনির উদ্দিন (আ.লীগ),
শিমুলবাঁক মিজানুর রহমান জিতু (আ.লীগ), দরগাপাশা মনির উদ্দিন (আ.লীগ),

নওগাঁ: নিয়ামতপুর উপজেলার আটটি ইউনিয়নে নির্বাচিতরা হলেন:

হাজিনগর আব্দুর রাজ্জাক (আওয়ামী লীগ), ভাবিচা ওবাইদুল হক (আওয়ামী লীগ), নিয়ামতপুর বজলুর রহমান নঈম (আওয়ামী লীগ), রসুলপুর আব্দুর রাজ্জাক (আওয়ামী লীগ), পাড়ইল সৈয়দ মুজিব গ্যান্দা (আওয়ামী লীগ),

শ্রীমন্তপুর আজাহারুল ইসলাম বুলু (আওয়ামী লীগ), বাহাদুরপুর আবুল কালাম আজাদ (আওয়ামী লীগ), চন্দন নগর
বদিউজ্জামান বদি (সতন্ত্র প্রার্থী)।

মেহেরপুর :সদর উপজেলার ৪টি ইউনিয়নে নির্বাচিত হলেন যারা:

আমঝুপি বুরহান উদ্দীন চুন্নু (আ.লীগ), পিরোজপুর আব্দুস সামাদ বাবলু বিশ্বাস (আ.লীগ), বুড়িপোতা শাহজামাল (আ.লীগ), কুতুবপুর শহিদুল ইসলাম (বিএনপি),

ঠাকুরগাঁও : পীরগঞ্জ উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে বিজয়ীরা হলেন:

১নং ভোমরাদহ বর্তমান চেয়ারম্যান হিটলার হক (আ.লীগ), ২নং কোষারানীগঞ্জ গোলাম মোস্তফা (বিএনপি),
৩নং খনগাঁও, কাউসার আলী (স্বতন্ত্র প্রার্থী) ৫নং সৈয়দপুর বর্তমান চেয়ারম্যান একরামুল হক (আ.লীগ),
৬নং পীরগঞ্জ মাহবুব আলম (স্বতন্ত্র প্রার্থী), ৭নং হাজিপুর সিদ্দিকুর রহমান (জাতীয় পার্টি), ৮নং দৌলতপুর
কার্তিক চন্দ্র রায় (জাতীয় পার্টি), ৯নং সেনগাঁও মোস্তাফিজার রহমান (আ.লীগ), ১০নং জাবরহাট হুমায়ুন কবির (আ.লীগ), ১১নং বৈরচুনা জালাল উদ্দিন (স্বতন্ত্র প্রার্থী),

লালমনিরহাট: কালীগঞ্জ উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে নির্বাচিতরা হলেন :

চলবলা মিজানুর রহমান মিজু (আ.লীগ), চন্দ্রপুর জাহাঙ্গীর আলম (বিএনপি), মদাতী আব্দুল কাদের (স্বতন্ত্র), গোড়ল
মাহামুদুল ইসলাম (আ.লীগ), কাকিনা শহিদুল হক শহিদ (আ.লীগ), ভোটমারী আহাদুল ইসলাম চৌধুরী (আ.লীগ),
দলেগ্রাম খন্দকার শফিকুল ইসলাম (আ.লীগ), নুর ইসলাম (আ.লীগ)্

নাটোর: সদর উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে নির্বাচিতরা হলেন:

১নং ছাতনী তোফাজ্জল হোসেন সরকার (আ.লীগ), ২নং তেবাড়িয়া ওমর আলী প্রধান (আ.লীগ), ৩নং দিঘাপতিয়া
খন্দকার ওমর শরীফ চৌহান (আ.লীগ), ৪নং লক্ষিপুর খোলাবাড়িয়া আব্দুল বাতেন ভুঁইয়া (আ.লীগ), ৫নং বড় হরিশপুর
ওসমান আলী ভুইয়া (আ.লীগ), ৬নং কাফুরিয়া  ইলিয়াস হোসেন (আ.লীগ), ৭নং হালসা জহুরুল ইসলাম প্রামানিক (আ.লীগ)।

নোয়াখালী : চাটখিল উপজেলার ৯টি ইউনিয়নেই আওয়ামী লীগের প্রার্থী নির্বাচিতরা হলেন:

সাহাপুর গোলাম হায়দার কাজল, রামনারায়নপুর শাহ আলম, পরকোট বাহার আলম মুন্সি, বদলকোট সোলায়মান হোসেন, মোহাম্মদপুর, শহিদুল ইসলাম, পাঁচগাও বজলুল করিম বাবলু, হাটপুকুরিয়া ঘাটলাবাগ এস এম বাকীবিল্লাহ, নোয়াখোলা
ইব্রাহিম খলিল, খিলপাড়ায় আলমগীর হোসেন (বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতা)।

ফরিদপুরে আ. লীগ প্রার্থীর ভাইকে কুপিয়ে হত্যা

ফরিদপুরে আ. লীগ প্রার্থীর ভাইকে কুপিয়ে হত্যা

ফরিদপুর প্রতিনিধি: ফরিদপুরের মধুখালীতে ইউপি নির্বাচন ঘিরে সহিংসতায় আওয়ামী লীগের প্রার্থীর ভাইকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় বিএনপির প্রার্থীসহ আটজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

নিহত মো. আতিয়ার রহমান (৫৫) বাঘাট ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মো. মতিয়ার রহমানের বড় ভাই। আগামী ৭ মে এ ইউনিয়নে ভোট হওয়ার কথা রয়েছে।

মধুখালী থানার ওসি রুহুল আমিন জানান, শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার বাগাট ইউনিয়নের রায়যাদবপুরে এ ঘটনা ঘটে।

ওসি বলেন, রাত সাড়ে ৯টার দিকে বাঘাট বাজারে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ক্যাম্পের সামনে দিয়ে বিএনপি প্রার্থীর সমর্থকরা কয়েক দফা মিছিল করে। এ নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়।

“রাত সাড়ে ১০টার দিকে বিএনপির প্রার্থীর সমর্থকরা আওয়ামী লীগের নির্বাচনী অফিসে হামলা করে এবং কর্মীদের এলোপাতাড়ি কোপানো শুরু করে। এ সময় আতিয়ারসহ উভয়পক্ষের অন্তত আটজন আহত হন।”

পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আহতদের মধুখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে রাত সাড়ে ১১টার দিকে সেখানে আতিয়ারের মৃত্যু হয় বলে জানান ওসি।

তিনি জানান, “এ ঘটনায় বিএনপির প্রার্থী আব্দুর রহিমসহ আটজনকে রাতেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে।”

জকিগঞ্জের হাড়িকান্দি মাদ্রাসায় দোয়া মাহফিল সোমবার


কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: সিলেটের প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন জামেয়া মোহাম্মদিয়া হাড়িকান্দি’র দীর্ঘ কয়েক যুগের সফল মুহতামীম আল্লামা শায়খ আব্দুল গণী (রহ.) এর ইন্তেকালে আগামী ২৫ এপ্রিল সোমবার এক দোয়া মাহফিল ও স্মরণ সভার আয়োজন করা হয়েছে। ওই দিন সকাল ১০টা থেকে বাদ আসর পর্যন্ত হাড়িকান্দি মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে মরহুম আল্লামা শায়খ আব্দুল গণী (রহ.)’র মাগফেরাত ও দরজা বুলন্দির জন্য খতমে কুরআন, খতমে বুখারী, দোয়া মাহফিল ও স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হবে। এতে সর্ব সাধারণের উপস্থিতি কামনা করেছেন হাড়িকান্দি মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সামসুল ইসলাম খসরু।

কানাইঘাটে বন্যা!ধেয়ে আসছে পাহাড়ি ঢল


নিজস্ব প্রতিবেদক: ভারতের উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢল ও টানা ভারি বৃষ্টিপাতের ফলে কানাইঘাট উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের অর্ধ লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। গতকাল শনিবার ভারতের উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢল  হঠাত করে অব্যাহত ভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় নদীর তীরবর্তী গ্রামগুলোর মানুষ আতংকের মধ্যে বসবাস করছেন। রবিবার কানাইঘাটে সুরমা নদীর পানি বিপদ সীমার ১২২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

কানাইঘাটে আওয়ামী লীগ ৪, স্বতন্ত্র ৪ ও বিএনপি ১টিতে জয়ী

Kanaighat News on Saturday, April 23, 2016 | 11:24 PM


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাট উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে শনিবার। বেসরকারিভাবে প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী এসব ইউনিয়নের মধ্যে ৪টিতে আওয়ামী লীগ, ৪টিতে স্বতন্ত্র ও ১টিতে বিএনপির সমর্থিত প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। বিজয়ীরা হলেন- উপজেলার লক্ষ্মীপ্রসাদ পূর্ব ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান স্বতন্ত্র ডাক্তার ফয়াজ উদ্দিন (ঘোড়া), লক্ষ্মীসাদ পশ্চিম ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত জেমস্ লিও ফারগুসন নানকা (নৌকা), দিঘীরপাড় পূর্ব ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত আলী হোসেন কাজল (নৌকা), সাতবাঁক ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মোস্তাক আহমদ পলাশ (নৌকা), বড়চতুল ইউনিয়নে স্বতন্ত্র মাওলানা আবুল হোসেন (চশমা), কানাইঘাট সদর ইউনিয়নে বিএনপি সমর্থিত মামুন রশিদ (ধানের শীষ), দক্ষিণ বানীগ্রাম ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মাসুদ আহমদ (নৌকা), ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নে স্বতন্ত্র (বিএনপির বিদ্রোহী) আব্বাস উদ্দিন ও রাজাগঞ্জ ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী ফখরুল ইসলাম। -

'শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে'

'শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে'

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক: বিএনপির এক সময়ের নেতা ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা বলেছেন শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই আগামীতে ‘অবাধ ও সুষ্ঠু’ নির্বাচনে হবে। শেখ হাসিনা তার পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ‘বাস্তবায়িত করে চলেছেন’ মন্তব্য করে তার নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেন হুদা।

‘তৃনমূল বিএনপি’ নামে নতুন রাজনৈতিক দলের কমিটি ঘোষণা উপলক্ষে শুক্রবার এক অনুষ্ঠানে দলটির চেয়ার‌ম্যান নাজমুল হুদা বলেন, “বাংলাদেশের বর্তমান সরকার, বিশেষ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, যিনি গণতন্ত্রের মানসকন্যা হিসেবে পরিচিত এবং যিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যাও বটে, তিনি দেশে সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন নিশ্চই করবেন, এটা আমরা মনে প্রাণে-বিশ্বাস করি।”

তিনি বলেন, “সমস্ত উন্নয়ন দৃশ্যমান। আমরা বেরুলেই দেখছি, ফ্লাইওভার হচ্ছে, মেগা প্রকল্প পদ্মাসেতু হচ্ছে। বিভিন্নভাবে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে।”

১৯৭৮ সালে জিয়াউর রহমানের হাত ধরে বিএনপি প্রতিষ্ঠার পর গঠিত প্রথম স্থায়ী কমিটির সর্বকনিষ্ঠ সদস্য ছিলেন নাজমুল হুদা। খালেদা জিয়ার দুই সরকারের আমলে তিনি মন্ত্রিসভার সদস্য ছিলেন।

নানা ঘটনায় আলোচিত নাজমুল হুদা ১৯৯৬ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের রূপরেখা দেওয়ার কারণে মন্ত্রিত্ব থেকে সরে যেতে বাধ্য হন। দলীয় শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে ২০১০ সালের ২৩ জুন তাকে ফের বিএনপি থেকে বহিষ্কার করা হয়। তিনি তখন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ছিলেন।

ভুল স্বীকার করে খালেদা জিয়ার কাছে আবেদন করার পর ২০১১ সালের ৭ সেপ্টেম্বর আবার বিএনপির সদস্যপদ ফিরে পান নাজমুল হুদা। কিন্তু ২০১৪ সালের ৬ জুন সংবাদ সম্মেলন করে নিজের অভিমানের কথা তুলে ধরে বিএনপি ত্যাগের ঘোষণা দেন তিনি।

৩১টি দল নিয়ে গঠিত নতুন মোর্চা বাংলাদেশ জাতীয় জোটের নেতা নাজমুল ‍হুদা জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে শুক্রবারের অনুষ্ঠানে বলেন, “এই রাষ্ট্রের মালিক জনগণ একদিন তাদের ক্ষমতা ফিরে পাবে-এটা আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি। শুধু গণতন্ত্রের মানসকন্যা শেখ হাসিনার পক্ষেই এটা বাস্তবায়ন করা সম্ভব। আমরা সেই লক্ষ্যে সুশাসনের স্বপ্ন দেখছি।”

‘সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে’ ক্ষমতাসীন ১৪ দলীয় জোটের সঙ্গে সংলাপে বসার আগ্রহের কথাও অনুষ্ঠানে বলেন তিনি।

“আমাদের দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে এসে মাননীয় মন্ত্রী জনাব মোহাম্মদ নাসিম ইংগিত দিয়েছিলেন, জাতীয় জোটের সাথে ১৪ দলীয় জোট একযোগে কাজ করবে।

“আমি সেই ইংগিতের ওপর ভরসা করে তাকে আহ্বান জানাতে চাই- আসুন, দেশে যেসব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো রয়েছে, সমস্ত বিষয় নিয়ে বর্তমান সরকারকে বিভিন্নভাবে বিতর্কিত করার প্রচেষ্টা চলছে। সেসব বিষয় নিয়ে আমরা সংলাপে বসি এবং কি করে সমাধান করা যায়, আপনাদের সেই পরামর্শ আমরা দিতে আগ্রহী।”

বিশ্বের মানচিত্রে বাংলাদেশের ‘অনেকে উপরে’ চলে যাওয়ার কথা থাকলেও অতীতের রাষ্ট্রনেতারা ‘আশার আলো দেখাতে না পারায়’ তা সম্ভব হয়নি বলে মন্তব্য করেন হুদা।

‘তৃণমূল বিএনপি’র নতুন কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন এবং তাতে সোশাল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এসডিপি) নেতাকর্মীদের ‘যোগদান’ উপলক্ষে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

প্রসঙ্গত, ২০১০ সালে বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত হওয়ার পর তিনি বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ) নামে নতুন দল খোলেন। অবশ্য ওই দল থেকেও তিনি বহিষ্কৃত হন।

দ্বিতীয় দফা বিএনপি ছড়ার পর ২০১৪ সালের মে মাসে হুদা গঠন করেন বাংলাদেশ ন্যাশনাল অ্যালায়েন্স- বিএনএ। কিন্তু ওই দলের তেমন কোনো কার্যক্রম না থাকায় এক পর্যায়ে তার বিএনপিতে ফেরার গুঞ্জন ওঠে।

ওই বছর ২৯ নভেম্বর নাজমুল হুদা ‘বাংলাদেশ মানবাধিকার পার্টি’ গঠনের ঘোষণা দেন। গতবছর জানুয়ারিতে আসে তার নতুন জোটের ঘোষণা। সবশেষ গত মাসে ‘তৃণমূল বিএনপি’ নামে নতুন দল আনেন আলোচিত এই রাজনীতিবিদ।

কানাইঘাট সদর ইউনিয়নে বিএনপি মনোনীত মামুনুর রশীদ মামুন চেয়ারম্যান নির্বাচিত


কানাইঘাট নি্উজ ডেস্ক: কানাইঘাট সদর ইউনিয়নে বিএনপি মনোনীত মামুনুর রশীদ মামুন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রাপ্ত ভোটে ৩৮৫৫। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম পেয়েছেন ৩৩১২ ভোট। চেয়ারম্যান প্রার্থী মামুনের কন্ট্রোল রুম সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। মামুনুর রশীদ মামুন সিলেট জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদকের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় যুবদলের সহ-সম্পাদকেরও দায়িত্ব পালন করছেন।

কানাইঘাটের ৯ ইউনিয়নে বিজয়ী হলেন যারা-


নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ কানাইঘাটের ৯টি ইউনিয়নের বেসরকারি ফলাফল পাওয়া গেছে। প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী-১নং লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী ডাক্তার ফয়াজ উদ্দিন (ঘোড়া), ২নং লক্ষীপ্রসাদে আওয়ামীলীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী জেমস্ লিও ফারগুসন নানকা (নৌকা), ৩নং দিঘীরপাড় পূর্ব ইউনিয়নে আ’লীগ সমর্থিত আলী হোসেন কাজল (নৌকা), ৪নং সাতবাঁকে আ’লীগ সমর্থিত মস্তাক আহমদ পলাশ (নৌকা), ৫নং বড়চতুলে জমিয়ত সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী মাওলানা আবুল হোসেন (চশমা), ৬নং সদর ইউপিতে বিএনপি সমর্থিত মামুন রশিদ (ধানের শীষ) , ৭নং দক্ষিণ বানীগ্রাম ইউপিতে আ’লীগ সমর্থিত মাসুদ আহমদ (নৌকা), ৮নং ঝিঙ্গাবাড়ী ইউপিতে বিএনপি’র বিদ্রোহী আব্বাস উদ্দিন, ৯নং রাজাগঞ্জ ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী ফখরুল ইসলাম (চশমা) বিজয়ী হয়েছেন। প্রার্থীদের কন্ট্রোল রুম সূত্রে এ তথ্য পাওয়া গেলেও রাত পৌনে ৯টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত উপজেলা প্রশাসনের কন্ট্রোল রুম থেকে ফলাফল ঘোষণা করা হয়নি।

কানাইঘাটে ৯টি ইউপিতে শান্তিপূর্ণভাবে চলছে ভোট


নিজস্ব প্রতিবেদক:কানাইঘাটে ৯টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ চলছে। শনিবার সকাল ৮টা থেকে কানাইঘাটে ৯টি ইউনিয়নের ৮১টি ওয়ার্ডের মোট ৮৫টি ভোট কেন্দ্রে একযোগে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। এখন পর্যন্ত শান্তিপূর্ণভাবেই চলছে ভোটগ্রহণ। কোথাও কোনো ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। সকাল থেকেই ভোটন্দ্রেগুলোতে নারী-পুরুষ ভোটারদের উপস্থিতি লক্ষ করা গেছে। প্রতিটি ভোটকেন্দ্র ও এর আশপাশ এলাকায় বিপুল সংখ্যক আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাবারী বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন। উল্লেখ্য, কানাইঘাটে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৬০ জন, সদস্য পদে ৩৯৯ ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৯৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ৯টি ইউনিয়নে মোট ভোটার মোট ১ লক্ষ ৪৫ হাজার ২৭৯ জন । তার মধ্যে পুরুষ ভোটার ৭১৪৯৯ ও মহিলা ভোটার ৭৩৭৮০ জন।

কানাইঘাটে ৯ ইউপিতে ভোট গ্রহণ শুরু


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাটে শনিবার সকাল ৮টায় ৯টি ইউপির ৮১টি ওয়ার্ডের মোট ৮৫ টি ভোট কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। ৯টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৬০ জন, সদস্য পদে ৩৯৯ ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৯৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

ফের ৫ দিনের রিমান্ডে শফিক রেহমান

Kanaighat News on Friday, April 22, 2016 | 9:58 PM

ফের ৫ দিনের রিমান্ডে শফিক রেহমান

কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক:: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়কে অপহরণ ও হত্যা চেষ্টা মামলায় গ্রেফতার সাংবাদিক শফিক রেহমানকে আরও ৫ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

 প্রথম দফা রিমান্ড শেষে আজ দুপুরে শফিক রেহমানকে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুল হাসানের আদালতে হাজির করে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ।

পরে বেলা সাড়ে তিনটায় এ ব্যাপারে শুনানি অনুষ্ঠিত হলে শফিক রেহমানের পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন বিচারক। শুনানিকালে শফিক রেহমানের আইনজীবীরা রিমান্ড শুনানি পিছিয়ে দেয়ার আবেদন করলেও আদালত তা নামঞ্জুর করেন।

একই সঙ্গে শফিক রেহমানের সঙ্গে তার স্ত্রী ও আইনজীবীর একান্তে ১৫ মিনিট কথা বলার জন্য করা আবেদনও নামঞ্জুর করেন আদালত।

শুনানিতে শফিক রেহমানের পক্ষে আইনজীবী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সানাউল্লাহ মিয়া ও মাসুদ আহমেদ তালুকদার। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন পুলিশের জিআরও মো. জালালউদ্দিন।---বিডিলাইভ২৪)

নেইমারের সমালোচকদের কড়া জবাব দিলেন সুয়ারেজ

নেইমারের সমালোচকদের কড়া জবাব দিলেন সুয়ারেজ

কানাইঘাট নিউজ  ডেস্ক: নেইমারের সমালোচনাকারীদের কড়া জবাব দিয়েছেন সতীর্থ লুইস সুয়ারেজ। গত বুধবার নিজেদের মাঠে দেপোর্তিভো লা করুনাকে ৮-০ গোলে হারিয়ে টানা ৬ ম্যাচ পর জয়ের দেখা পায় বার্সেলোনা।

এর মধ্যে আছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার-ফাইনালের দ্বিতীয় পর্বে অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের কাছে ২-০ গোলে হেরে টানা দ্বিতীয়বারের মতো ট্রেবল জয়ের স্বপ্ন শেষ হয়ে যাওয়া ম্যাচটিও।   

চারটি গোল করে আর সতীর্থদের দিয়ে আরও তিনটি গোল করিয়ে দেপোর্তিভোর বিপক্ষে বার্সেলোনার জয়ের নায়ক ছিলেন সুয়ারেজই। আর নেইমার কাটান পাঁচ ম্যাচের গোল-খরা।

এই ব্যাপারে সুয়ারেজ বলেন, 'বিষয়গুলো যখন বাজেভাবে যায়, তখন আমরা সবাই দায় নেই'। গত কিছু দিন একজন ব্যক্তিকেই দোষারোপ করা হয়েছে। কিন্তু এটা ঠিক ছিল না।

আমরা যন্ত্র নই, প্রত্যেক খেলোয়াড়ই বাজে সময়ের মধ্য দিয়ে যায়। এটা কষ্ট দেয় যে, নেইমারকে দোষারোপ করা হয়েছে।

'আমরা যখন জিতছিলাম, তখন কেউ বলেনি যে, নেইমার জিতছিল। … তাকে দোষ দেওয়াটা ন্যায্য ছিল না। কিন্তু একটা বিষয় তার পক্ষে আছে। সে সব সময় লড়াই করে এবং কখনও হাল ছাড়ে না। যোগ করেন সুয়ারেজ।

কানাইঘাট উপজেলা ৯টি ইউপির নির্বাচন শনিবার


নিজস্ব প্রতিবেদক: শনিবার কানাইঘাট উপজেলা ৯টি ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন সম্পন্ন করার লক্ষ্যে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার উপজেলার ৮৫টি ভোট কেন্দ্রে নির্বাচনী সরঞ্জাম এবং নির্বাচনে দায়িত্বরত প্রিজাইডিং, সহকারী প্রিজাইডিং পোলিং অফিসার এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের পাঠানো হয়েছে। ৯টি ইউপির নির্বাচনে ৮৫টি ভোট কেন্দ্রে ১ লক্ষ ৪৫ হাজার ২৭৯ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। তার মধ্যে পুরুষ ভোটার ৭১৪৯৯ ও মহিলা ভোটার ৭৩৭৮০ জন। ৯টি ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে ৬০ জন, সদস্য পদে ৩৯৯ ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৯৬ জন মহিলা প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নির্বাচনের দিন যাতে করে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা, কেন্দ্র দখল, জাল ভোটের চেষ্টা, ব্যালট পেপার ছিনতাই ও মাস্তান-সন্ত্রাসী বাহিনীর কোন ধরনের অপকর্ম করতে না পারে তার জন্য পুরো উপজলা নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার থেকে নির্বাচনী এলাকায় বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ ও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের টহল দিতে দেখা গেছে। নির্বাচনের দিন ৮৫টি ভোট কেন্দ্র ও আশপাশ এলাকায়, বিভিন্ন আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর ২ হাজার সদস্য মোতায়েন করা হবে বলে কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ হুমায়ুন কবির জানিয়েছেন। এছাড়া ১৪ জন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট নির্বাচনী মাঠে সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করবেন। গতকাল শুক্রবার ৮৫টি ভোটকেন্দ্রে নিরাপত্তায় নিয়োজিত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এক প্রস্তুতি সভায় সিলেটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নুরল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) সুজ্ঞান চাকমা, সিলেট উত্তর সার্কেলের এএসপি ধীরেন্দ্র মহাপাত্র, জকিগঞ্জ সার্কেলের এএসপি জোতির্ম্যয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের উদ্দেশ্যে বলেন, শান্তিপূর্ণ নির্বাচন উপহার দেওয়া হচ্ছে আমাদের ইমানী পবিত্র দায়িত্ব। এর ব্যাপ্তয় ঘটতে দেওয়া যাবে না। কানাইঘাটের ৯টি ইউনিয়নে মডেল নির্বাচন উপহার দেওয়া হচ্ছে আমাদের কর্তব্য। নির্বাচনের দিন ভোটকেন্দ্রে কেউ সন্ত্রাস, ভোটারদের ভয়ভীতি প্রদর্শন, জাল ভোটের চেষ্টা, ব্যালট পেপারে হাত কিংবা ছিনতাই ও কেন্দ্র দখলের চেষ্টা করা হলে তাদেরকে গুড়িয়ে দিতে হবে। সাহসীকতার সহিত দায়িত্ব পালন করতে হবে। কেউ দায়িত্ব পালনে অবহেলা করলে কঠোর শাস্তি পোহাতে হবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও প্রধান নির্বাচন সমন্বয়কারী অফিসার তারেক মোহাম্মদ জাকারিয়া স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, ৮৫টি ভোট কেন্দ্রে নির্বাচনী সরঞ্জাম এবং নির্বাচনে দায়িত্বরত অফিসার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের পাঠানো হয়েছে। ৯টি ইউপির নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ভাবে অনুষ্ঠিত হবে, ভোটাররা যাকে ভোট দিবেন তিনিই নির্বাচিত হবেন, সেই লক্ষ্যে আমরা সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। ভোট নিয়ে কাউকে সন্ত্রাসের আশ্রয় নিতে দেওয়া হবে না এটাই সাফকথা।

কানাইঘাট উপজেলায় প্রচন্ড কালবৈশাখী ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি সাধিত ॥ ৫ শতাধিক ঘরবাড়ী বিধ্বস্ত


নিজস্ব প্রতিবেদক: কানাইঘাটে গত দু’সপ্তাহ ধরে কালবৈশাখী ঝড়, শিলাবৃষ্টি, বজ্রপাত ও ভারি বর্ষণ ও টানা বিদ্যুৎ না থাকায় জীবন যাত্রা চরম ভাবে ব্যাহত হচ্ছে। এরমধ্যে উপজেলার ৯টি ইউয়িনের ইউপি নির্বাচন আজ শনিবার অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনের দিন ঝড় বৃষ্টির ও ভারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনাও রয়েছে। এদিকে গত বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা দিয়ে বয়ে যাওয়া প্রচন্ড ঘুর্ণিঝড় ও শিলা বৃষ্টিতে উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়ন লন্ডভন্ড হয়ে গেছে। গত বৃহস্পতিবার রাতের দিকে বয়ে যাওয়া প্রচন্ড ঘুর্ণিঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে আঁধাকাচা ও পাকা টিনসেডের ৫ শতাধিক বাড়ীঘর বিধ্বস্ত এবং বুরো ফসল এবং বৈদ্যুতিক খুটি উপড়ে পড়ে ও গাছপালার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি সাধিত হয়েছে। পৌর এলাকার কিছু অংশ ছাড়া পুরো উপজেলা বিদ্যুৎ বিহীন অবস্থায় রয়েছে। এমতাবস্থায় আজ উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এদিকে প্রচন্ড ঘুর্ণিঝড়ে ক্ষতি গ্রস্ত বিধ্বস্ত কানাইঘাট সদর ইউপির নিজ চাউরা উত্তর, আগ্রীপাড়া, বড়কান্দি, এলাকার বাড়ী ঘর গতকাল পরিদর্শন করেছেন উপজেলা আওয়ামীলীগের আহ্বায়ক লুৎফুর রহমান, সদর ইউপি আ’লীগের প্রার্থী হোসেইন আহমদ বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী মামুন রশিদ, বর্তমান চেয়ারম্যান স্বতন্ত্র প্রার্থী অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম। তারা বিধ্বস্ত বাড়ী পরিদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের শান্তনা প্রদান এবং আর্থিক অনুদানও দেন। এছাড়া প্রচন্ড ঘুর্ণিঝড়ে ৫নং বড়চতুল ইউপির মালিগ্রাম, লখাইরগ্রাম, কুড়ারপার, পৌরসভার দুর্লভপুর, খেলুরবন্দ, হকারাই সহ উপজেলার বেশ কয়েকটি গ্রামে ৫ শতাধিক বাড়ীঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা গেছে ঘুর্নিঝড়ের তান্ডবে ব্যাপক ক্ষয়তি সাধিত হয়েছে। ৫ শতাধিক বাড়ী ঘর বিধ্বস্তের পাশাপাশি ব্যাপক গাছপালা ও বুরো ফসলের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

মুচমুচে ইলিশ ভাজা

মুচমুচে ইলিশ ভাজা
কানাইঘাট নিউজ ডেস্ক:

যা যা লাগবে

ইলিশ মাছ ৮ পিস
আদার রস ১ চা চামচ
লেবুর রস ১ চা চামচ
লাল মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ
হলুদ গুঁড়া সিকি চা চামচ
ময়দা আধা কাপ
গোলমরিচ গুঁড়া আধা চা চামচ
সয়াসস ১ চা চামচ
পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ
কাঁচামরিচ কুচি ২/৩টি
ভাজার জন্য তেল পরিমাণমতো

যেভাবে করবেন

মাছ ভালো করে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। এবার লেবুর রস, আদার রস, হলুদ, লবণ ও মরিচ গুঁড়া দিয়ে ভালো করে মাখুন। সয়াসস দিন। আধা ঘণ্টা পর মাখানো মাছ শুকনা ময়দায় গড়িয়ে নিন। ৫-৬ মিনিট পর প্যানে তেল (সরিষার) দিয়ে মাছ ভেজে নিন বাদামি করে। এবার ওই তেলেই পেঁয়াজ কুচি ও কাঁচা মরিচ কুচি ভেজে নিন। পরিবেশন ডিশে মাছ রেখে উপরে ভাজা পেঁয়াজ ও কাঁচা মরিচ ছড়িয়ে দিন। পেঁয়াজ খেতে না চাইলে শুধু কাঁচা মরিচ দিন।

কানাইঘাটের ৯টি ইউনিয়নে ভোটের লড়াই হবে হাড্ডাহাড্ডি

Kanaighat News on Thursday, April 21, 2016 | 9:01 AM


নিজস্ব প্রতিবেদক: নির্বাচন কমিশনের তফসীল অনুযায়ী আগামী ২৩ এপ্রিল শনিবার কানাইঘাট উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনের শেষ মুহূর্ত প্রচারণায় টানা বর্ষণ, ঝড়-তোফান, বজ্রপাত উপেক্ষা করে প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরা বাড়ী বাড়ী গিয়ে ভোট প্রার্থনা আর মিছিল-মিটিং, সভা-সমাবেশের মাধ্যমে সরগরম করে তোলেছেন ভোটের মাঠ। আওয়ামীলীগ ও বিএনপির জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ প্রতিদিন দলীয় সমর্থিত প্রার্থীদের পক্ষে নির্বাচনী মাঠে গণ সংযোগ করে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যে শান্তিপূর্ণ অবাধ ও সুষ্ঠু ভাবে ভোট গ্রহণ সম্পন্ন করার জন্য স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। এবারের ইউপি নির্বাচন দলীয় ভাবে অনুষ্ঠিত হলেও কানাইঘাটে ৯টি ইউনিয়নের নির্বাচনে আঞ্চলিকতার টান এখনও প্রবল। দলীয় প্রার্থীদের পাশাপাশি কয়েকটি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ ও বিএনপির বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী ভোটের মাঠে শক্ত অবস্থানে থাকায় বেকায়দায় আছেন আওয়ামীলীগ ও বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা। ৯টি ইউনিয়নের নির্বাচনে ৬টি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ এবং ৪টি ইউনিয়নে বিএনপির বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী থাকায় দলের প্রার্থীরা ভোটের লড়াইয়ে পিছিয়ে পড়তে পারেন বলে সরেজমিন ঘুরে ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে। যার কারনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীরা ভোটের লড়াইয়ে চমক দেখাতে পারেন। নানা শ্রেণী পেশার ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে ৯টি ইউনিয়ন নির্বাচনে ১নং লক্ষ্মীপ্রসাদ পূর্ব ইউপিতে মোট ৮জন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও বর্তমান চেয়ারম্যান স্বতন্ত্র প্রার্থী ডাক্তার ফয়াজ উদ্দিন (ঘোড়া), বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী শমসের আলম (ধানের শীষ), আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আলা উদ্দিন মড়াই (আনারস) প্রতীকের মধ্যে ত্রিমুখী লড়াই হবে। ২নং লক্ষ্মীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপিতে ৭জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে ভোটের লড়াইয়ে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন আওয়ামীলীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী জেমস্ লিও ফারগুসন নানকা (নৌকা), জাপা সমর্থিত এড. আব্দুর রহিম (লাঙ্গল), বর্তমান চেয়ারম্যান আ’লীগ বিদ্রোহী ফারুক আহমদ চৌধুরী (মোটর সাইকেল) ও বিএনপি সমর্থিত মোঃ কামাল উদ্দিন (ধানের শীষ) প্রতীকের। ৩নং দীঘিরপার পূর্ব ইউপিতে ৪জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও এখানে ভোটের লড়াইয়ে এগিয়ে রছেনে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী আলতাফ উদ্দিন (ধানের শীষ), আ’লীগ সমর্থিত আলী হোসেন কাজল (নৌকা),আ’লীগ বিদ্রোহী বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল মুমিন চৌধুরী (আনারস) প্রতীকের মধ্যে ত্রিমুখী লড়াই হবে। ৪নং সাতবাঁক ইউপিতে ৬জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে ভোটের লড়াইয়ে রয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান স্বতন্ত্র প্রার্থী মাস্টার ফয়জুল ইসলাম (চশমা), আ’লীগ সমর্থিত মস্তাক আহমদ পলাশ (নৌকা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল মান্নান (মোটর সাইকেল)। ৫নং বড়চতুল ইউপিতে ৬ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও এখানে চতুর্থমুখী হাড্ডা-হাড্ডি লড়াই হবে। তার মধ্যে আ’লীগ সমর্থিত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মুবশি^র আলী (নৌকা), বিএনপি সমর্থিত আব্দুল মালিক চৌধুরী (ধানের শীষ), জাপা সমর্থিত কিউএম ফররুখ আহমদ ফারুক (লাঙ্গল) ও স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মাও. আবুল হোসেন (চশমা)। এ চার জনের মধ্যে যে কেউ বিজয়ী হতে পারেন। ৬নং সদর ইউপিতে বর্তমান চেয়ারম্যান স্বতন্ত্র প্রার্থী অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম (মোটর সাইকেল), বিএনপি সমর্থিত মামুন রশিদ (ধানের শীষ) ও আ’লীগ সমর্থিত হোসেইন আহমদ (নৌকা) প্রতীকের মধ্যে ত্রিমুখী লড়াই হবে। ৭নং দক্ষিণ বানীগ্রাম ইউপিতে ৫জন প্রার্থীর মধ্যে বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি সমর্থিত শাহাব উদ্দিন (ধানের শীষ), আ’লীগ সমর্থিত মাসুদ আহমদ (নৌকা), স্বতন্ত্র মাস্টার লোকমান উদ্দিন (মোটর সাইকেল) প্রতীকের তুমুল লড়াই হবে। ৮নং ঝিঙ্গাবাড়ী ইউপিতে ১০জন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও এখানে বিএনপি সমর্থিত আবু বক্কর সিদ্দিকী (ধানের শীষ), আ’লীগ বিদ্রোহী মোঃ হারুনুর রশিদ (ঘোড়া), আ’লীগ সমর্থিত মোঃ নুরুল হক (নৌকা) ও আ’লীগ বিদ্রোহী জলাল মিয়া (টেবিল ফেন) প্রতীকের মধ্যে চতুর্থমুখী লড়াই হবে। ৯নং রাজাগঞ্জ ইউপিতে ১৩জন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও এখানে আঞ্চলিকতা নির্বাচনে জয়লাভে বড় ধরনের ফেক্টর হয়ে দাড়াবে। তবে ভোটের লড়াইয়ে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকবেন বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি সমর্থিত মোঃ মানিক মিয়া (ধানের শীষ), স্বতন্ত্র ফখরুল ইসলাম (চশমা), আ’লীগ সমর্থিত জহিরুল ইসলাম তুয়েল (নৌকা), স্বতন্ত্র মোঃ আজিজ আশিক (ঘোড়া), জমিয়ত উলামায়ে সমর্থিত মাও. সামছুল ইসলাম (খাজুর গাছ), আ’লীগ বিদ্রোহী শায়েস্তা মিয়া (অটোরিক্সা), আ’লীগ বিদ্রোহী তারেক হাসান খালেদ (মোটর সাইকেল) ও খেলাফত মজলিশ বাহার উদ্দিন (মিনার) প্রতীকের মধ্যে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। এদের মধ্যে যে কেউ বিজয়ী হতে পারেন। তবে কানাইঘাট উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে জামায়াতের রিজার্ভ ভোট রয়েছে। জামায়াতের নেতাকর্মীরা যাকে চেয়ারম্যান পদে সমর্থন করবেন ভোটের লড়াইয়ে তারা এগিয়ে থাকবেন বলে অনেকে ধারনা করছেন।

জৈন্তাপুরের ৬টি ইউনিয়নে নির্বাচনে লড়াই হবে ত্রিমুখী


জৈন্তাপুর প্রতিনিধি : ॥ আগামী ২৩ এপ্রিল শনিবার তৃতীয় ধাপের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে ত্রিমুখী নির্বাচনে ঝড় বইছে। কাক ডাকা ভোর হতে মধ্য রাত পর্যন্ত চলছে গণ সংযোগ, প্রচার ও প্রচারনা এবং ভোটারদের সাথে শেষ সাক্ষাৎ। প্রার্থীদের পাশাপাশি প্রচারণা, গণসংযোগে রয়েছে নিজ নিজ দলরে নেতাকর্মী ও সমর্থকেরা। প্রথম বারের মত দলীয় প্রতিকে নির্বাচনকে ঘিরে উৎসাহ উদ্দীপনার কোন অংশে কমতি নেই। আফিস আদালত হাট বাজার পান দোকান, চা-হোটেলগুলোতে। এককথায় গোটা উপজেলা জুড়ে নির্বাচন কেন্দ্রিক আলোচনা ও সমালোচনা। কে জিতবে আর কে হারবে এ নিয়ে প্রাথীদের পক্ষে বিপক্ষে সাধারনের পাশাপাশি কর্মী সমর্থক ও সাধারণ ভোটাররা হিসাব নিকাশ করছেন। ভোটারদের মতামতে ১নং নিজপাট ইউনিয়নে আলোচনায় রয়েছেন সাবেক উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক নিজপাট ইউপির চেয়ারম্যান মুখলিছুর রহমান দৌলার সুযোগ্য সন্তান আওয়ামীলীগ মনোনিত তথা নৌকা মার্কা প্রার্থী মঞ্জুর এলাহী সম্রাট। বিএনপি মনোনিত ধানের শীষের প্রার্থী ইন্তাজ আলী। অপরদিকে সমান তালে এগিয়ে রয়েছেন তরুন ব্যবসায়ী সতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া মার্কা প্রতিকে আলহাজ্ব কবির আহমদ। তাই এ ইউনিয়নে ৯টি কেন্দ্রে ১৮৪৩৪ ভোটের মধ্যে হাড্ডা-হাড্ডী লড়াই করবেন এ তিন প্রার্থী। ভোটারদের মতামতে ২নং জৈন্তাপুর ইউনিয়নে আলোচনায় রয়েছেন বিএনপি মনোনিত ধানেরশীষের প্রতিকের প্রার্থী মোঃ আলমগীর হোসেন। পাশাপাশি আওয়ামীলীগ মনোনিত নৌকা মার্কার প্রার্থী এখলাছুর রহমান এবং কোন অংশে পিছিয়ে নেই সতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া মার্কার তরুন ব্যবসায়ী ফখরুল ইসলাম। তাই এ ইউনিয়নে ৯টি কেন্দ্রে ১৬৫৬৫ ভোটের মধ্যে হাড্ডা-হাড্ডী লড়াই করবেন এ তিন প্রার্থী। ভোটারদের মতামতে ৩নং চারিকাটা ইউনিয়নে আলোচনায় রয়েছেন আওয়ামীলীগ ও বিএনপি মনোনিত প্রার্থীদের পিছনে ফেলে এগিয়ে রয়েছেন আনারস মার্কার সতন্ত্র প্রার্থী শাহ আলম চৌধুরী তোফায়েল। অপরদিকে এ ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ মনোনিত নৌকা মার্কার প্রার্থী মোঃ আইয়ুব আলী, পাশাপাশি অবস্থানে রয়েছে আওয়ামীলীগ টেলিফোন মার্কার বিদ্রোহী প্রার্থী এম.এ.হক। তাই এ ইউনিয়নে ৯টি কেন্দ্রে ১২৭২০ ভোটের মধ্যে হাড্ডা-হাড্ডী লড়াই করবেন এ তিন প্রার্থী। ভোটারদের মতামতে ৪নং দরবস্ত ইউনিয়নে আলোচনায় রয়েছেন ২বারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ মনোনিত নৌকা মার্কার প্রার্থী কামাল আহমদ। তার পাশাপাশি অবস্থানে রয়েছে বিএনপি মনোনিত ধানেরশীষের প্রার্থী বাহারুল আলম বাহার। এ ইউনিয়নে ৯টি কেন্দ্রে ২৪৮৯৮ ভোটের মধ্যে হাড্ডা-হাড্ডী লড়াই করবেন এ দুই প্রার্থী। ভোটারদের মতামতে ৫নং ফতেহপুর ইউনিয়নে আলোচনায় রয়েছেন বিএনপি মনোনিত ধানেরশীষের প্রার্থী মোঃ আব্দুর রশিদ। তার পাশাপাশি অবস্থান করেছেন আওয়ামীলীগ মনোনিত নৌকা মার্কার প্রার্থী মোঃ রফিক আহমদ। কোন অংশে প্রচারনায় ও ভোটযুদ্ধে এগিয়ে রয়েছেন আওয়ামীলীগ আনারস মার্কার বিদ্রোহী প্রার্থী হানিফ মোহাম্মদ। তাই এ ইউনিয়নে ৯টি কেন্দ্রে ১৪১২৬ ভোটের মধ্যে হাড্ডা-হাড্ডী লড়াই করবেন এ তিন প্রার্থী। ভোটারদের মতামতে ৬নং চিকনাগুল ইউনিয়নে আলোচনায় রয়েছেন বিএনপি মনোনিত ধানেরশীষ মার্কার প্রার্থী এবিএম জাকারিয়া। কোন অংশে পিছিয়ে নেই আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আনারস মার্কার প্রার্থী আমিনুর রশিদ। অপরদিকে আওয়ামীলীগ মনোনিত নৌকা মার্কার প্রার্থী মোঃ আলী আহমদ ও পিছিয়ে নেই। তাই এ ইউনিয়নে ৯টি কেন্দ্রে ১৩৪৬৭ ভোটের মধ্যে হাড্ডা-হাড্ডী লড়াই করবেন এ তিন প্রার্থী।
 
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো:মহিউদ্দিন,সম্পাদক : মাহবুবুর রশিদ,নির্বাহী সম্পাদক : নিজাম উদ্দিন। সম্পাদকীয় যোগাযোগ : শাপলা পয়েন্ট,কানাইঘাট পশ্চিম বাজার,কানাইঘাট,সিলেট।+৮৮ ০১৭২৭৬৬৭৭২০,+৮৮ ০১৯১২৭৬৪৭১৬ ই-মেইল :mahbuburrashid68@yahoo.com: সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত কানাইঘাট নিউজ ২০১৩