জমি বিক্রির টাকায় আমজাদের জার্মানির পতাকা

Kanaighat News on Monday, June 30, 2014 | 8:16 PM

শফিকুল ইসলাম শফিক, মাগুরা : বিশ্বকাপ ফুটবল উন্মাদনায় পিছিয়ে নেই বিশ্বসেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানের জন্মস্থান মাগুরা। ব্রাজিল সমর্থকরা যেমন বিশাল আকৃতির হাতি নিয়ে শহরে র‌্যালি বের করেছে। তেমনি আর্জেন্টিনা সমর্থকরাও বাদ্যযন্ত্র নিয়ে মিছিল করেছে। সব কিছু ছাপিয়ে গেছে জার্মান সমর্থক কৃষক আমজাদ হোসেনের ৩ কিলোমিটার লম্বা জার্মানির পতাকা।
পতাকা দেখতে আমজাদের বাড়িতে প্রতিদিন ভিড় করছে নানা বয়সী ফুটবল প্রেমীরা। ধানী জমি বিক্রি করে আড়াই লাখ টাকা দিয়ে ৩ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের বিশাল এক জার্মান পতাকা তৈরি করে রীতিমতো আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন কৃষক আমজাদ হোসেন। পাগল এই সমর্থকের বাড়ি মাগুরা পৌর এলাকার ৩নং ওয়ার্ডের ঘোড়ামারা গ্রামে। ৫৯ বছর বয়সী আমজাদ হোসেনের ধ্যান জ্ঞান শুধু জার্মান ফুটবল দলকে নিয়ে। ব্রাজিল আর্জেন্টিনার সমর্থক বেশি হলেও জার্মানের খেলার দিন নিজ খরচে গরু জবাই দিয়ে নৈশ ভোজের মাধ্যমে বলতে গেলে এলাকার অনেককে জার্মান সমর্থক বানিয়ে ফেলেছেন তিনি।
ফুটবল পাগল আমজাদ কিভাবে জার্মানির সমর্থক বনে গেছেন সে ব্যাপারে জানিয়েছেন দ্য রিপোর্টকে। তিনি বলেছেন, ২০০৫ সালে তার পুরুষাঙ্গে পাথর ধরা পড়লে বহু ডাক্তারের ওষুধে কাজ না হওয়ায় সে নিশ্চিত মৃত্যুর পথে ছিলেন। অবশেষে মাগুরা নতুন বাজার এলাকার কবিরাজ মৃত মনোরঞ্জন বসু জার্মানির তৈরি হোমিও ওষুধ দিয়ে তাকে সেই কঠিন রোগ থেকে সম্পূর্ণ সুস্থ করে তোলেন। এর পর থেকেই জার্মানির সমর্থক।
২০০৬ সালে বিশ্বকাপ ফুটবলে জার্মানি দলের সমর্থনে ২৮০ গজের পতাকা তৈরি করেছিলেন আমজাদ। ২০১০ সালের বিশ্বকাপে সে পতাকা বাড়িয়ে ২১২০ গজে রূপান্তর করেন। এ বছর ২০১৪ বিশ্বকাপ ফুটবলে ৩৫৫০ গজ কাপড় দিয়ে ৩ কিলোমিটার লম্বা জার্মান পতাকা তৈরি করেছেন। এ জন্য তার খরচ হয়েছে আড়াই লাখ টাকা। ৫০ শতাংশ ধানী জমি বিক্রি করে এই অর্থ সংগ্রহ করেছেন তিনি।
ছোট বেলা থেকে আমজাদ হোসেন ভাল ফুটবল খেলায় জেলার বিভিন্ন মাঠে নানা দলের হয়ে হায়ারে খেলতেন। বয়সের ভারে নিজে ফুটবল খেলতে না পারলেও অল্প বয়সী ছেলেদের ৪টি ফুটবল কিনে দিয়ে তাদের সঙ্গে অধিকাংশ সময় পার করেন। বাড়িতে বিদ্যুৎ না থাকায় সৌর বিদুৎতের মাধ্যমে ১৭ ইঞ্চি সাদাকালো টেলিভিশনে খেলা দেখেন তিনি। শুধু জার্মান দলের খেলা দেখতে শহর থেকে ১০ হাজার টাকা খরচ করে ডিশ লাইন নিয়েছেন তিনি।
আমজাদের প্রত্যাশা তার দল এবারের বিশ্বকাপ জিতবে। প্রিয় খেলোয়াড় মুলার, ওজিল, ফিলিপ লাম, ক্লোসা। গ্রামের ইলাহী মোল্ল্যা, তোতা মিয়া ও আনছার আলী তার পতাকা প্রদর্শনে সহযোগিতা দিয়ে আসছেন। জার্মান দল সেমিফাইনালে ওঠলে শহরে কয়েক হাজার লোক সমাগম ঘটিয়ে পতাকা প্রদর্শন করবেন বলে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের জানিয়েছেন তিনি।
মাগুরা জেলা ক্রীড়া সংস্থার একাধিকবার নির্বাচিত সেক্রেটরি হাজী মকবুল হোসেন বলেছেন, কৃষক আমজাদ হোসেনের জার্মান পতাকা তৈরিই ফুটবলের ব্যাপক জনপ্রিয়তা প্রমাণ করে। ৩ কিলোমিটার লম্বা পতাকা গিনিজ বুকে স্থান পেতে পারে।
- See more at: http://www.thereport24.com/article/43341/index.html#sthash.DsB3j1Wf.dpuf

বড় জয়ে শুরু কলম্বিয়ার

Kanaighat News on Sunday, June 15, 2014 | 12:51 AM

স্পোর্টস ডেস্ক : দুর্ভেদ্য রক্ষণ গড়ে এক দশক আগে ইউরো জিতেছিল গ্রিস। একইভাবে বিশ্বকাপেও দারুণ কিছু করে দেখাতে চেয়েছিল দলটি। কিন্তু গ্রিক রক্ষণদুর্গ ভেঙে ব্রাজিল বিশ্বকাপে দুর্দান্ত সূচনা করেছে কলম্বিয়া। শনিবার বেলো হরিজন্তের স্তাদিও মিনেইরাওয়ে ‘সি’ গ্রুপের ম্যাচে গ্রিকদের ৩-০ গোলে হারায় কলম্বিয়া। জয়ী দলের পক্ষে একটি করে গোল করেন পাবলো আরমেরো, তিওফিলো গুতিয়েররেস ও জেমস জেমস রদ্রিগেস। চোটের কারণে বিশ্বকাপে নেই মোনাকোর ফালকাও। তবে সেরা তারকাকে ছাড়াই প্রতিপক্ষকে আক্রমণে আক্রমণে পর্যদুস্ত করে তোলে কলম্বিয়া। জিততেও কোনো সমস্যায় হয়নি তাদের। বাছাইপর্বের ১০ ম্যাচে মাত্র চারবার নিজেদের জাল থেকে বল কুড়িয়ে আনা গ্রিস বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে এসে পঞ্চম মিনিটেই গোল হজম করে বসে। গ্রিকদের চুপসে দিয়ে গোল করে বসেন কলম্বিয়ার ডিফেন্ডার পাবলো আরমেরো। গ্রিক রক্ষণকে ফাঁকি দিয়ে মিডফিল্ডার হুয়ান কাদরাদো দারুণ কৌশলে বল বাড়ান ডি বক্সের মাঝে ঢুঁকে পড়া আরমেরোকে। বল পেয়েই সোজাসুজি শট নেন আরমেরো। তবে ওই শটে গোল নাও হতে পারতো, কারণ গ্রিক গোলরক্ষক বলের লাইনেই ছিলেন। কিন্তু এক ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে দিক পাল্টে বল জালে জড়িয়ে যায়। গ্রিক রক্ষণের শক্তি নিয়ে আলোচনা চলছিল অনেকদিন ধরেই। প্রথমার্ধে সেই রক্ষণভাগকে কঠিন ফেলেছিল হোসে পেকারমানের শিষ্যরা। আর সেই পরীক্ষায় উৎরাতে পারেনি ইউরোপের দলটি। ২৮তম মিনিটে ম্যাচে ফেরার একটা সুযোগ পেয়েছিল গ্রিস। কিন্তু ফরোয়ার্ড দিমিত্রিস সালপিনগিদিসের ক্রস থেকে মিডফিল্ডার পানাইওটিস কোনের শটটি ক্রসবারের উপর দিয়ে চলে যায়। প্রথমার্ধের শেষ মুহূর্তে ম্যাচের সবচেয়ে সহজ সুযোগটি হাতছাড়া করে গ্রিস। কিন্তু ডি বক্সের বাইরে থেকে নেয়া বোলোনিয়ার কোনের দুর্দান্ত শটটি অসাধারণ দক্ষতায় ঝাঁপিয়ে পড়ে ঠেকিয়ে দেন ওরেস্টিস কারনেজিস। দ্বিতীয়ার্ধেও মাঠ দখলে রেখে একের পর এক আক্রমণ করতে থাকে লাতিন আমেরিকার দলটি। ব্যবধান দ্বিগুণ করতেও দেরি হয়নি তাদের। ৫৮তম মিনিটে দারুণ গোলটি করেন তিওফিলো গুতিয়েররেস। মিডফিল্ডার জেমস রদ্রিগেসের কর্নারে ডি বক্সের মাঝে ছুটন্ত অবস্থায় আলতো টোকা দিয়ে লক্ষ্যভেদ করেন ফরোয়ার্ড গুতিয়েররেস। ৬৩তম মিনিটে ব্যবধান কমানোর আরেকটি ভালো সুযোগ পায় গ্রিস। কিন্তু কোনের জোরালো শটটি ক্রসবারে লেগে ফিরে আসে। ‘ইনজুরি’ সময়ে কলম্বিয়ার জয় নিশ্চিত করা গোলটি করেন ২২ বছর বয়সী রদ্রিগেস। বিশ্বকাপে এটাই তার প্রথম গোল। আর বিশ্বকাপের মঞ্চে এটা কলম্বিয়ার সবচেয়ে বড় জয়।

সাবেক দুই চ্যাম্পিয়ন মুখোমুখি

সফিকুল হাসান সোহেল:ঢাকা: বিশ্বের সবচেয়ে র্দুবেদ্য ও রহস্যময়ী বন আমাজনের মাঝেই গড়ে উঠেছে মানাউস। ব্রাজিলের ১২টি স্টেডিয়ামের ভেতর সবচেয়ে সুন্দর স্টেডিয়ামের অবস্থান সেখানে। আর সেখানেই মুখোমুখি হচ্ছে বিশ্বের সাবেক দুই চ্যাম্পিয়ন ইটালী ও ইংল্যান্ড। এর ভেতর ইটালি আবার চারবার এবং ইংল্যান্ড একবার বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন। ব্রাজিলের পর সর্বোচ্চ ৪বার চ্যাম্পিয়ন আজ্জুরিরা। ফুটবল ম্যাচের আবহে আবহাওয়া ও কন্ডিশনের বড় ব্যাপার হয়ে ওঠাকে ব্যতিক্রমই মানতে হবে। এই কন্ডিশনে মানিয়ে নিতেই এই দুই সেরা দল আজ প্রথমবারের মতো ল্যাটিন আমেরিকান দেশটিতে মুখোমুখি হচ্ছে। ইউরোপিয়ান দেশগুলোর জন্য ব্রাজিলের কন্ডিশন যে খুব স্বস্তিদায়ক হবে না, সেটি জানা ছিল সবার। এর মধ্যে সবচেয়ে অস্বস্তিদায়ক আবার মানউস। আমাজন অঞ্চলের মাঝে আমাজোনিয়া স্টেডিয়ামের তাপমাত্রা ও আর্দ্রতা শীতপ্রধান মহাদেশের দেশগুলোর পারফরম্যান্সে প্রভাব ফেলবে নিশ্চিত। ড্রয়ের আগে সবারই তাই প্রার্থনা ছিল, ডি গ্রুপের খেলা অনুষ্ঠিত হবে যে মানাউসে, সেই গ্রুপে যেন না পড়ি। ইংল্যান্ড ক্যাম্প থেকে তো প্রকাশ্যেই বলা হয়েছিল তা। কী দুর্ভাগ্য, সেই ইংল্যান্ডই পড়ে গেল আমাজনের চক্করে। সবচেয়ে রহস্যময়ীর চক্করে। শনিবার বাংলাদেশ সময় রাত চারটায় ম্যাচ শুরু হলেই বোঝা যাবে কন্ডিশন মানিয়ে নেয়ার লড়াইয়ে জিতবে কোন দল। ইতালি-উরুগুয়ে-ইংল্যান্ড সাবেক তিন বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের দেখা হয়ে যাচ্ছে প্রথম পর্বেই। এদের মধ্যে দ্বিতীয় রাউন্ডে ওঠার অধিকার পাবে কেবল দুটি দল। এবারকার বিশ্বকাপে এটাকে ডেথ গ্রুপ বলা হচ্ছে। দুর্ভাগা ছাড়া নিজেদের আর কী ভাববে পরাশক্তি-ত্রয়। আর গ্রুপের চতুর্থ দল কোস্টা রিকা। ফুটবল-দেবতার অভিশাপ যে কেন তাদের উপর পড়ল, এই ভাবনাতেই শুরু করবে তারা বিশ্বকাপ। এমন গ্রুপে প্রতিটি ম্যাচই গুরুত্বপূর্ণ। ইতালি-ইংল্যান্ডের সর্বশেষ দেখা যেমন দুই বছর আগের ইউরোতে। সেই ম্যাচটি টাইব্রেকার গড়ালেও ১২০ মিনিট জুড়ে আধিপত্য ছিল আজ্জুরিদের। বিশেষ করে আন্দ্রেয়া পিরলো যেভাবে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিজের জাদুকরী পায়ে ধরে রেখেছিলেন, ইংলিশরা নিশ্চিতভাবেই তা ভোলেনি। সেই পিরলো আছেন এখনো। আছেন জানলুইজি বুফ্ফন ও দানিয়েল দে রস্সি। আট বছর আগের বিশ্বকাপ জয়ের তিন সেনানী। ইতালির শক্তির বড় এক একটা অংশ এই অভিজ্ঞ তিন জন। তবে সর্বশেষ খবরে জানা গেছে বুফফন কে তুলছেন না প্রথম ডু অর ডাই ম্যাচে কোচ। সঙ্গে মারিও বালোতেল্লির প্রতিভার দীপ্তিতে উজ্জ্বল বেপরোয়া তারুণ্য। গত বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ডে তারা বাদ পরলেও ইউরোর ফাইনালে উঠে আবার ইঙ্গিত দিয়েছে কক্ষপথে ফেরার। গত বছরের কনফেডারেশন্স কাপের সেমিফাইনালেও উঠেছিল তারা। অন্যদিকে ইংল্যান্ডের নিয়তি আটকা পড়ে আছে সেই দ্বিতীয় রাউন্ড আর কোয়ার্টার-ফাইনালেই। বিশ্বকাপ কিংবা ইউরো-সব টুর্নামেন্টে ফেভারিট হিসেবে শুরু করে দ্রুত বিদায় নেওয়াটা তাদের সাম্প্রতিককালের ইতিহাস। সে কারণেই কিনা, এবার আর ফেভারিটের তকমা জুড়ে নেই তাদের সাথে। ইতালির মতো অভিজ্ঞতায় আস্থা না রেখে তারুণ্যের জয়গানই রয় হজসনের স্কোয়াডে। গত বিশ্বকাপের দ্বিতীয় রাউন্ডে ১-৪ গোলে জার্মানির কাছে হেরে বিদায় নেওয়া একাদশের তিনজনই কেবল হয়তো আজ থাকবেন প্রথম একাদশে। ওয়েইন রুনি, স্টিভেন জেরার্ড ও গ্লেন জনসন। অ্যাডাম লালানা, রাহিম স্টার্লিং, ড্যানিয়েল স্টারিজ, জর্ডান হেন্ডারসনদের মতো তরুণ খেলোয়াড়রা আজ বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই মুখোমুখি অগ্নিপরীক্ষায়। ব্রাাজিলের পর সবচেয়ে বেশি চার বার বিশ্বকাপ জেতা ইতালি যে তাদের প্রতিপক্ষ। তারপরও আশার কিন্তু কমতি নেই ইংল্যান্ড ক্যাম্পে। রুনির কণ্ঠে যেমন দিন কয়েক আগে শোনা গেছে আত্মবিশ্বাসী সুর, আমি যতগুলো ইংল্যান্ড স্কোয়াডে খেলেছি, তার মধ্যে এটি সম্ভবত সেরা। ইতালি দলের আত্মবিশ্বাসের পারদ আরো উঁচুতে। পিরলোর কথার তারই প্রতিফলন, বিশ্বকাপ জয়ের সামর্থ্য আমাদের আছে। গ্রুপ পর্ব কিংবা কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বাদ হয়ে যাওয়াটা আমি মেনে নেব না। সব ধাপ পেরিয়ে শিরোপা জেতার শক্তি আছে ইতালির। সব ধাপ বলতে তো ফাইনাল পর্যন্ত সিঁড়ির সাতটি ধাপ। ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার মতো সহজ গ্রুপে পড়া দলগুলোর ক্ষেত্রে প্রথম তিনটি ধাপ কেবলই আনুষ্ঠানিকতা। ইতালির জন্য তা নয়। বরং প্রথম ধাপ থেকেই তাদের খেলতে হবে নকআউট রাউন্ডের মতো। তবে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে একটি সুবিধা আছে তাদের-বিশ্বকাপে কখনোই এই দলটির কাছে হারেনি আজ্জুরি। তবে ইতিহাস সাক্ষ্য দিচ্ছে স্লো স্টার্টার হিসেবে একটা তকমা তাদের গায়ে লেগে আছে। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে আজকের ম্যাচে সেটিও ঝেড়ে ফেলার চ্যালেঞ্জ ইতালির। এখন খেলার মাঠে তার প্রমাণ দিতে হবে আজ্জুরিদের। আর দুই দলের জন্যই অভিন্ন চ্যালেঞ্জ? মানাউসের বিরুদ্ধ আবহাওয়ায় স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে পারা। সুতরাং দুই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে কারা এগিয়ে যাবে আজকের ম্যাচ সেটাই দেখার বিষয়। -

উরুগুয়ের বিপক্ষে কোস্টারিকা

স্পোর্টস রিপোর্টার:ঢাকা: ২০তম ব্রাজিল বিশ্বকাপে কোস্টারিকার বিপক্ষে নিজেদের প্রথম ম্যাচে আজ মাঠে নামছে উরুগুয়ে। এদিকে নিশ্চিতভাবেই মাঠে নামা হচ্ছে না লুইস সুয়ারেসের। তবে পরের ম্যাচগুলোতে বিশ্বের অন্যতম সেরা এই স্ট্রাইকারের খেলার সম্ভাবনা আছে বললেন কোচ অস্কার তাবারেস। স্বাগতিক হিসেবে ব্রাজিলে বিশ্বকাপ ব্রাজিলবাসীর কাছে অন্তহীন আক্ষেপের সমার্থক। উরুগুয়ের কাছে ব্যাপারটির মাত্রা আবার ভিন্নরকম। অনন্ত প্রেরণা হয়ে আসে তা তাদের কাছে। ১৯৫০ সালের সেই মারাকানাজো উপাখ্যানের রচয়িতা যে তারাই। ৬৪ বছর পর ব্রাজিলে আরেক বিশ্বকাপে উরুগুয়ের তাই আত্মবিশ্বাসেই মাঠে নামার কথা। কিন্তু শনিবার বাংলাদেশ সময় রাত ১টায় ফরতালেজায় কোস্টারিকার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচের আগে অবস্থাটা ঠিক তেমন না। সুয়ারেসের চোটে এলোমেলো উরুগুয়ে শিবির। সদ্য সমাপ্ত ক্লাব মৌসুমে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ মাতিয়ে লিভারপুলের জার্সিতে ৩৩ লিগ ম্যাচে সুয়ারেস করেছিলেন রেকর্ড ৩১ গোল। ৩৮ ম্যাচের ইপিএলে এটিই সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড। বিশ্বকাপে ইতালি-ইংল্যান্ডের সঙ্গে এক গ্রুপ পড়ে যাওয়াতেও তাই খুব একটা হাহাকার ওঠেনি উরুগুয়েতে। খেলা হবে নিজ মহাদেশে আর চেনা শত্রু ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলবে সুয়ারেস। নকআউট পর্বে যেতে আর কী চাই। কিন্তু বিশ্বকাপ প্রস্তুতি ক্যাম্পে সুয়ারেস বাঁ হাঁটুর চোটে পড়লেই সর্বনাশের কারণ হয়ে দাড়ায়। ল্যাটিল আমেরিকান এই দেশটির।, টুর্নামেন্টে আর মাঠে নামা হচ্ছে না তার। পরে তাকে বিশ্বকাপের দলে রেখে দিলেও আজ প্রথম ম্যাচে খেলানোর ঝুঁকি হয়তো নেবেন না কোচ অস্কার তাবারেস। বিশেষত সামনের দুই ম্যাচের প্রতিপক্ষ যখন সাবেক দুই বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন। প্রতিপক্ষ হিসেবে কোস্টারিকা তুলনামূলক সহজ। ফুটবল-ঐতিহ্য কিংবা ফুটবলীয় সামর্থ্য, কোনটিতেই উরুগুয়ের ধারে-কাছে নেই তারা। সুয়ারেসের চোট নিয়ে বিশ্বজুড়ে সোরগোল হলেও , কিন্তু একই দুর্ভাগ্যের শিকার তো কোস্টারিকাও। এভারটনে খেলা তাদের সেরা ডিফেন্ডার ব্রায়ান ওভিয়েদো এবং বাছাইপর্বে দলের সর্বোচ্চ গোলদাতা আলভারো সাবোরিও ইনজুরির কারণে ব্রাজিলেই যেতে পারেননি। প্রথম একাদশের রাইটব্যাক হেইনের মোরা গিয়েছিলেন। কিন্তু চোট দুর্ভাগ্যে তাকেও ফিরতে হয়েছে দেশে। হোর্হে লুই পিন্তোকে তাই নড়বড়ে এক একাদশই নামাতে হচ্ছে গত বিশ্বকাপের সেমিফাইনালিস্টদের বিপক্ষে। ওই বিশ্বকাপে সেরা খেলোয়াড়ের গোল্ডেন বল পুরষ্কার জেতা দিয়েগো ফোরলান থাকছেন আজ উরুগুয়ের একাদশে। তার সঙ্গে এদিনসন কাভানির জুটি কোস্টারিকার রক্ষণ ভেঙেচুরে দিতে সক্ষম। আর সেটি উরুগুয়ের জন্য প্রয়োজনও। ইতালি-ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হওয়ার আছে গোলপার্থক্যে এগিয়ে থাকতে হবে যে। আর চোট কাটিয়ে ফেরার অপেক্ষায় থাকা সুয়ারেসের জন্য মঞ্চটাও তো প্রস্তুত রাখতে হবে। ডিনিউজবিডি/সোহেল

ব্রাজিল! আমিও আছি

স্টাফ রিপোর্টার : বিশ্বকাপ ফুটবলে ব্রাজিলের প্রতি নিজের সমর্থনের কথা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, তিনি সব সময় জয়ী দলের পক্ষে। ব্রাজিলের প্রথম ম্যাচের দুটি গোল তিনি দেখেছেন। খেলার বাকি খবর নিয়েছেন সকালে। শনিবার গণভবনে চীন সফর নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর সামনে প্রশ্ন ছোড়া হয় বিশ্বকাপ নিয়েও। এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী নিজেকে জয়ী দলের সমর্থক দাবি করে উপস্থিত সাংবাদিকদের কাছে জানতে চান আপনারা কোন দলের সমর্থক? সেখানে থাকা উপস্থিত সাংবাদিক ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কর্মকর্তারা অনেকে ব্রাজিল, ব্রাজিল বলে উচ্চারণ করলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমিও আছি…।

গ্রামীণ অর্থনীতিতে অবদান রাখছে তালের শাস

এইচ আর তুহিন, যশোর : সারি সারি তালগাছ। রাস্তার দু’ধারে কিংবা বিলের আঁইলে এমন দৃশ্য এখন খুব একটা চোখে পড়ে না। তাল গাছে ‘কানা বগীর ছা’ ও ‘বাবুই পাখির বাসা’ও নেই আগের মতো। কালের বিবর্তনে অনেকটাই ম্লান হয়ে গেছে। তবে ‘এক পায়ে দাঁড়িয়ে’ থাকা তালগাছের কদর এখন বেড়েছে। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার পাশাপাশি তাল শাস ও পাকা তালের চাহিদা রয়েছে। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে শুরু করে রাজধানী ঢাকা পর্যন্ত তাল শাসের চাহিদা রয়েছে। মওসুমি ফল হিসেবে ‘তাল শাস’ গ্রামীণ অর্থনীতিতে অবদান রাখছে। তালগাছ মালিক এবং তাল শাস ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সাথে কথা বলে এমনটিই জানা গেছে। এলাকা ভেদে একটি তাল শাস চার থেকে সাত টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। তাল শাস ব্যবসায়ী বাল্লক মল্লিক বলেন, একটি গাছের তাল ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা পাইকারি দরে কেনা হচ্ছে। ঢাকায় নিয়ে এক হাজার তাল শাস আট থেকে নয় হাজার টাকা বিক্রি করছি। পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতা খাজানূর বলেন, কেউ একটু তরল, কেউ একটু শক্ত শাস পছন্দ করেন। প্রতিদিন ৬০ থেকে ৮০ কাঁদি তাল বিক্রি করছি। সৈয়দ আবুল হোসেন জানান, এখন পুরোপুরি তাল শাসের মওসুম চলছে। একটি তাল পাঁচ থেকে সাত টাকা বিক্রি করছি। প্রতিদিন দুই থেকে আড়াই হাজার টাকার তাল শাস বিক্রি হচ্ছে। তিনি জানান, এক থেকে দেড় মাস পর্যন্ত তাল শাস বিক্রি করা যাবে। এ বছর তালের ভালো ফলন হয়েছে জানিয়ে যশোর সদর উপজেলার তরফনোয়াপাড়া গ্রামের লিটন বিশ্বাস বলেন, তাল শাস খাওয়ার প্রবণতা দিন দিন বেড়ে চলেছে। তাল শাসের কদর বেড়ে যাওয়ায় ‘পাকা তাল’ কমে যাচ্ছে। এতে করে ‘তালবড়া’, ‘পাতা পোড়া’, ‘চুষি’, ‘তালক্ষীর’, ‘তালমিছরি’সহ বিভিন্ন পিঠাপুলি তৈরি কমে গেছে। কবি ও ছড়াকার খান মুহম্মদ মঈনুদ্দীনের ‘কানা বগীর ছা’ ছড়ার প্রসঙ্গ টেনে নড়াইল রেসিডেনসিয়াল মডেল স্কুলের অধ্যক্ষ সাংবাদিক সুলতান মাহমুদ বলেন, ঐ দেখা যায় তাল গাছ/ ঐ আমাদের গাঁ/ ঐ খানেতে বাস করে/ কানা বগীর ছা। কবির এই অসাধারণ বর্ণনায় তালগাছ আরো জীবন্ত হয়েছে এবং এর প্রয়োজনীয়তাও বেড়েছে। সুলতান মাহমুদ আরো বলেন, কবি রজনীকান্ত সেনের ‘স্বাধীনতার সুখ’ কবিতায় তালগাছে বাবুই পাখির বর্ণনাও অসাধারণ। চিত্রশিল্পী বলদেব অধিকারী বলেন, গ্রাম ও শহর অঞ্চলে তালগাছ, তাল শাস ও পাকা তালের চাহিদা রয়েছে। তাই আমার অঙ্কিত ‘বাংলার বরোমাসি’ বর্ণনার ৬০ ফুট দৈর্ঘের ক্যানভাসে তালগাছ ও তাল পিঠার ঐহিত্য তুলে ধরেছি। যশোরের ডা. মাহবুবুর রহমান বলেন, একটি তালে শাসে যে পরিমাণ পুষ্টিগুণ রয়েছে, ওই পরিমাণ ভাতেও সেই পুষ্টি নেই। তাল শাসে শর্করা, স্নেহ ও আমিষ জাতীয় গুণ ছাড়াও অন্যান্য পুষ্টিগুণ রয়েছে। আর পাঁকা তালে ভিটামিন ‘এ’সহ অন্যান্য উপাদান রয়েছে। বাজারজাতকৃত বিভিন্ন পানীয়, তথাপি ফাস্টফুড জাতীয় খাবার না খেয়ে ‘তাল শাস’ খাওয়া অনেক স্বাস্থ্যসম্মত ও উপকারি বলে মন্তব্য করেন তিনি। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা ছবিহরি দাস বলেন, কাঁচা (শাস) ও পাঁকা তাল গ্রামীণ অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখছে। তাছাড়া দুর্যোগ সহিষ্ণুতার কথা বিবেচনা করে দেশে বেশি বেশি তালগাছ লাগানো প্রয়োজন। -

১৯ অক্টোবর থেকে রাবির ভর্তি পরীক্ষা শুরু

রাবি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা শুরু আগামী ১৯ অক্টোবর চলবে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত। মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতরের প্রশাসক অধ্যাপক ইলিয়াছ হোসেন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এতথ্য জানানো হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দ্রুততম সময়ের মধ্যে ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে ক্লাস শুরুর লক্ষে ২০১৪-২০১৫ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত ভর্তি উপ-কমিটির এক সভা মঙ্গলবার উপাচার্য দফতরে অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মুহম্মদ মিজানউদ্দিন এ সভায় সভাপতিত্ব করেন। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ১৯ থেকে ২৫ অক্টোবর স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ভর্তি সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্যাদি বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশ করা হবে। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট www.ru.ac.bd থেকেও প্রয়োজনীয় তথ্য পাওয়া যাবে। -

সেক্স বোম কোর্টনির বিশ্বকাপ

ডিনিউজ ডেস্ক : হলিউডের হার্টথ্রব কোর্টনি স্টোডেন ব্রাজিল বিশ্বকাপ উদযাপন করলেন একটু অন্যভাবে। তিনি নিজের জন্য নিজের ডিজাইনে বানালেন একটি বিশেষ ধরনের জার্সি। তাতে বুকের বেশির ভাগ অংশই রয়ে গেল উন্মুক্ত। এ জার্সি পরে তিনি সবার নজর কাড়ার চেষ্টা করলেন। পরলেন টাইটস। এতে তার শরীরের প্রতিটি ভাঁজ স্পষ্ট হয়ে ফুটে উঠল। তার গড়ন দেখলে যেকোন পুরুষ দুর্বল হয়ে পড়তে পারেন। এমন গড়ন তিনি প্রাকৃতিকভাবে অর্জন করেন নি। বেশ কয়েকবার অপারেশন করিয়ে তবেই নিজেকে সেক্স বোম হিসেবে প্রকাশ করেছেন। যখনই কোন বড় ইভেন্ট আসে তখন তিনি চেষ্টা সে ইস্যুতে নিজেকে প্রকাশ ঘটাতে। এবার বিশ্বকাপেও তার ব্যতিক্রম হয় নি। এবার হলিউডের একটি পার্কে তিনি ফুটবল হাতে পোজ দেন। সে ছবি তারপর ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বময়। আবেদনময়ী পুরুষরা হা করে তাকিয়ে আছে সে দিকে। ১৯ বসন্তের এই কোর্টনি ব্রাজিলের জার্সির ধরন পাল্টে নিয়েছেন। গলার কাছে নামিয়ে নিয়েছেন অনেকটা, যাতে শরীরের অপ্রকাশিত অংশগুলো স্পষ্ট হয়ে ওঠে। গলায় পরা হারও পরিষ্কার দেখা যায়।

সেক্স বোম কোর্টনির বিশ্বকাপ

ডিনিউজ ডেস্ক : হলিউডের হার্টথ্রব কোর্টনি স্টোডেন ব্রাজিল বিশ্বকাপ উদযাপন করলেন একটু অন্যভাবে। তিনি নিজের জন্য নিজের ডিজাইনে বানালেন একটি বিশেষ ধরনের জার্সি। তাতে বুকের বেশির ভাগ অংশই রয়ে গেল উন্মুক্ত। এ জার্সি পরে তিনি সবার নজর কাড়ার চেষ্টা করলেন। পরলেন টাইটস। এতে তার শরীরের প্রতিটি ভাঁজ স্পষ্ট হয়ে ফুটে উঠল। তার গড়ন দেখলে যেকোন পুরুষ দুর্বল হয়ে পড়তে পারেন। এমন গড়ন তিনি প্রাকৃতিকভাবে অর্জন করেন নি। বেশ কয়েকবার অপারেশন করিয়ে তবেই নিজেকে সেক্স বোম হিসেবে প্রকাশ করেছেন। যখনই কোন বড় ইভেন্ট আসে তখন তিনি চেষ্টা সে ইস্যুতে নিজেকে প্রকাশ ঘটাতে। এবার বিশ্বকাপেও তার ব্যতিক্রম হয় নি। এবার হলিউডের একটি পার্কে তিনি ফুটবল হাতে পোজ দেন। সে ছবি তারপর ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বময়। আবেদনময়ী পুরুষরা হা করে তাকিয়ে আছে সে দিকে। ১৯ বসন্তের এই কোর্টনি ব্রাজিলের জার্সির ধরন পাল্টে নিয়েছেন। গলার কাছে নামিয়ে নিয়েছেন অনেকটা, যাতে শরীরের অপ্রকাশিত অংশগুলো স্পষ্ট হয়ে ওঠে। গলায় পরা হারও পরিষ্কার দেখা যায়।

শাহ আমানত থেকে ১৬ কেজি সোনা উদ্ধার

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি : চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ১৩৮টি সোনার বার উদ্ধার করেছেন কাস্টমস কর্মকর্তারা। শনিবার রাত সোয়া ৯টার দিকে বিমানবন্দরে পড়ে থাকা দুটি কার্টন থেকে এসব সোনার বার পাওয়া যায় বলে কাস্টমসের সহকারী কমিশনার কাজী রেজাউল হাসান জানান। তিনি বলেন, ফ্লাই দুবাইয়ের একটি ফ্লাইট সন্ধ্যায় দুবাই থেকে সরাসরি চট্টগ্রামে আসে। যাত্রীরা চলে যাওয়ার সময় বিমানবন্দরের মধ্যে পরিত্যক্ত অবস্থায় দুটি কার্টন পাওয়া যায়। “সেগুলোতে দুটি ব্যাটারির খোলসের মধ্যে মোট ১৩৮টি সোনার বার ছিল, যার ওজন ১৬ কেজি।” এসব সোনার বারের বাজারমূল্য প্রায় ছয় কোটি ৯০ লাখ টাকা বলে জানান তিনি। -

ঠাকুরগাঁওয়ে মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

ঠাকুরগাঁও: বৃহস্পতিবার সন্ধায় পুলিশ ঠাকুরগাঁও রোড রেল ষ্টেশনে এক অভিযান চালায়। অভিযান চালাকালে রেল ষ্টেশন ঈদগাহ্ মাঠ হতে মাদক ব্যবসায়ী লিটনকে (২৫) আটক করে। তার শরীরে তল্লাশী চালিয়ে ৭০ পিস গাঁজার পুড়িয়া উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ঠাকুরগাঁও সদর থানায় একটি মামলা হয়েছে। গ্রেফতার কৃত লিটনের বাড়ী ইসলাম নগর নতুন বাইন্ডারী আব্দুল সাত্তারের পুত্র বলে জানা যায়। পুলিশ জানায়, লিটনের বিরুদ্ধে ৭/৮ টি মামলা রয়েছে।

আজ পবিত্র শবেবরাত

আজ শুক্রবার দিবাগত রাতে সৌভাগ্যের রজনী হিসেবে পরিচিত পবিত্র লাইলাতুল বরাত। উপমহাদেশে রাতটি শবেবরাত হিসেবেও পরিচিত। বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বের ধর্মপ্রাণ মুসলমানগণ মহান আল্লাহর রহমত পাওয়ার আশায় নফল রোজা ও নামাজ, কোরআন তেলাওয়াত, জিকিরের মতো এবাদত-বন্দেগীর মধ্যদিয়ে দিবসটি অতিবাহিত করবেন। মহিমান্বিত এ রজনীতে মুসলিম উম্মাহর সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশ্বের মুসলমান সম্প্রদায় বিশেষ দোয়া-মোনাজাত করবেন। পবিত্র শবেবরাত উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া পৃথক পৃথক বাণী দিয়েছেন। এ উপলক্ষে ধর্মপ্রাণ নারী-পুরুষ নফল রোজা পালন করেন। বাসাবাড়ি ছাড়াও মসজিদে মসজিদে রাতভর চলবে নফল নামাজ, পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত, ওয়াজ মাহফিল ও অন্যান্য এবাদত-বন্দেগি। রাতব্যাপী এবাদত, বন্দেগি, জিকির ছাড়াও এই পবিত্র রাতে মুসলমানরা মৃত পিতা-মাতা, আত্মীয়-স্বজনসহ প্রিয়জনদের কবর জেয়ারত করে থাকেন। মহিমান্বিত এ রজনী ভাবগম্ভীর পরিবেশের মধ্য দিয়ে পালনের লক্ষ্যে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে আজ শুক্রবার দিবাগত রাতে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানমালার মধ্যে রয়েছে—ওয়াজ মাহফিল, কুরআন তেলাওয়াত, মিলাদ মাহফিল, হামদ্, না’ত, নফল ও তাহাজ্জুদের নামাজ এবং আখেরি মোনাজাত। পবিত্র এ রাতে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমসহ দেশের সব মসজিদ রাতভর খোলা থাকবে। বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতারসহ বিভিন্ন বেসরকারি টিভি চ্যানেল ও রেডিও এ উপলক্ষে ধর্মীয় নানা অনুষ্ঠান সমপ্রচার করবে। এদিকে দিবসটির তাত্পর্য তুলে ধরে জাতীয় দৈনিকগুলোতে বিশেষ নিবন্ধ প্রকাশিত হবে। পবিত্র শবেবরাত উপলক্ষে শনিবার সরকারি ছুটি থাকবে। -

‘পবিত্র শবে বরাত’ লক্ষ কোটি সওয়াব হাসিলের সুবর্ণ সুযোগ

রাজু আহমেদ : মুসলমানদের জন্য আল্লাহ ও তার রাসুল (সাঃ) এর পক্ষ থেকে অত্যন্ত মোবারকময় এক মহামান্বিত শবে বরাতের রাত । আল্লাহর পক্ষ থেকে এ রাতে সকল বান্দাহের অতীতের গুনাহরাশি মাফ এবং অগণন সওয়াব লাভের সূবর্ণ সুযোগ । তাইতো মুসলমানদের কাছে শবে বরাতের রাতটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ । বছরের মাত্র কয়েকটি মহিমান্বিত রাতের মধ্যে এ রাতটি এতই তাৎপর্যপূর্ণ যে কারনে এ রাতের অন্য নাম ‘লাইলাতুল বারাআত’ । আরবি শব্দ ‘লাইলাতুল বারাআত’ শব্দের শাব্দিক অর্থ ‘সৌভাগ্য রজনী’ । মানবতার মুক্তির দুত আল্লাহ প্রেরিত সর্বশেষ এবং সর্বশ্রেষ্ঠ রাসুল হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর অসংখ্য মর্যাদাপূর্ণ হাদিসে পাক দ্বারা এ রাতের মহিমা ও গুরুত্ব প্রমানিত । বাঙালি মুসলমানদের জন্য এ রাতটি অন্যতম একটি আনন্দের রাত । শুধু যে ধর্র্মীয় পরহেযগার মুসলমানদের জন্য আনন্দের তাইনা বরং এ রাত সকল শ্রেণীর মুসলমানদের মুসলমানদের কাছেই অত্যন্ত আকাঙ্খিত । আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে মুসলমানদের জন্য এ বরকতময় রাতটি একটি অন্যতম পাওয়া । মুসলমানদের কাছে এ রাতটি যেমন ইবাদতের বিশেষ সুযোগ করে দেয় তেমনি মানুষের মধ্যে পারস্পরিক সৌহার্দ্য ও ভ্রাতৃত্ব সৃষ্টিরও অন্যতম সুযোগ । এ রাতে ইবাদাতের সাথে চলে উৎকৃষ্ট খাবারের আয়োজন । যে সকল মুসলমানরা সারা বছরে একবারও মসজিদমূখী হয় না তারাও এ মহিমান্বিত রাতে আল্লাহর সন্তুষ্টি হাসিলের আশায় রাতভর জেগে আল্লাহ তায়ালার ইবাদাত বান্দেগী করার ইচ্ছা পোষণ করে । বাংলাদেশের মুসলমান পুরুষদের চেয়ে যেহেতু নারীরা বেশি ধর্মভীরু সেহেতু তারা এ রাতকে শুধু তাদের এবং তাদের রবের মধ্যকার সম্পর্ক স্থাপনের রাত হিসেবে স্থান দেয় । শবে বরাতের রাতে যা করণীয় ঃ- শবে বরাতের রাত্রিতে নামায-দুআ, কুরআনে হাকীম তিলাওয়াত, যিকির আযকার, দুরূদ শরীফ পাঠ করা উত্তম । শবে বরাতের রাতের পরের দিন অর্থ্যাৎ ১৫ই শাবান রোযা রাখাও উত্তম । যাদের বাবা-মা, নিকট আত্মীয় স্বজন দুনিয়া থেকে বিদায় নিয়েছেন তারা তাদের আত্মীয় স্বজনের কবর যিয়ারত করার জন্য এ রাতটিকে উত্তমভাবে কাজে লাগাতে পারে । তবে এ যিয়ারত কার্য দলভেদে না করে একাকী করাই উচিত । শবে বরাতের রাত সম্পর্কে কিছু ভূল ধারণা ও প্রচলিত কুসংস্কার ঃ- শবে বরাতের রাতকে পালন করতে গিয়ে কিছু মানুষ উৎসাহের আতিশায্যে এমন কতগুলো কাজ করে থাকেন কিংবা করা জরুরী মনে করেন যার সাথে শবে বরাতের বিন্দু মাত্র সম্পর্ক নেই । যেমন, অনেকে বিশ্বাস করেন শবে বরাতের রাতে মহান আল্লাহ তায়ালা পৃথিবীর সকল প্রাণীর আগামী এক বছরের রিজিক নির্ধারন করে দেন । এটাও অমূলক বিশ্বাস । আগামী এক বছরের যারা মারা যাবে এবং যারা জন্মগ্রহন করবে তাদের তালিকা তৈরি করেন বলে কুসংষ্কার প্রচলিত আছে। এ রাতে কুরআন মাজীদ লাওহে মাহফুজ থেকে প্রথম আসমানে অবতীর্ন হওয়ার যে ধারনা তা ভূল । শবে বরাতের রাতে গোসল করাকে অনেকে সওয়াবের কাজ মনে করেন । প্রকৃত পক্ষে শবে বরাতের সাথে গোসলে কোন সম্পর্ক নেই । অনেকে বিশ্বাস করেন এ রাতে মৃত ব্যক্তিদের রূহ দুনিয়ায় তাদের অতীতের বাসগৃহে আসে । যা মূলত ভ্রান্ত ধারনা । শবে বরাতের রাতে আতশবাজি করা চরম বেয়াদবী এবং আইনের দৃষ্টিতেও অপরাধ । সওয়াব হাসিলের আশায় সরকারী-বেসরকারী ভবনে আলোক সজ্জা করা হয় । এ আলোক সজ্জার কারনে কেবল বিদ্যুতের অপচয় হয় কিন্তু সওয়াব হয় না । শবে বরাতের রাতে আগরবাতি মোমবাতি দিয়ে কবরস্থান আলোকিত করা কুসংস্কার । শবে বরাতের রাতে প্রচলিত আমলগুলোর কিছু কিছু আমল ভাল এবং সওয়াবের কিন্তু ভ্রান্ত বিশ্বাসের কারনে ঐ আমলগুলো বিদ’আতে পরিনত হয় । শবে বরাতের সওয়াব থেকে যে শ্রেণীর লোকেরা বঞ্চিত হবে ঃ- শবে বরাতে আল্লাহ তা’য়ালা তার বান্দাহদেরকে অসংখ্য সওয়াব দান করেন । তবে কয়েক শ্রেণীর লোক আছে যারা শবে বরাতের পূর্ণ রাত জেগে আল্লাহর ইবাদাত করলেও তা দিয়ে কোনরুপ উপকৃত হবে না । এ শ্রেণীর লোকেরা হল-মুশরিক ব্যক্তি অর্থ্যাৎ যিনি আল্লাহর সাথে যে কোন প্রকারের শিরক বা অংশীদার স্থাপন করে । যে ব্যক্তি কারো প্রতি বিদ্বেষ পোষনকারী । যে ব্যক্তি অপরের ভালো দেখতে পারে না অর্থ্যাৎ পরশ্রীকাতরতায় ভোগে । যে ব্যক্তি আত্মীতার সম্পর্ক ছিন্ন করে হোক তা নিকটাত্মীয় কিংবা দুরসম্পর্কের আত্মীয় । যে ব্যক্তি ব্যবিচারে লিপ্ত । যে ব্যক্তি মদ্যপ অর্থ্যাৎ নেশাখোর । যে ব্যক্তি মাতা পিতার সাথে সাদাচারন করে না কিংবা মাতা-পিতাকে কষ্ট দেয় । উপরোক্ত শ্রেনীর ব্যক্তিরা যতক্ষন তাদের কৃত অপকর্মের জন্য আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা না করে ততক্ষন আল্লাহ তাদের কোন দোওয়া কবুল করেন না । এমনকি তাদের কোন সৎ কাজের বিনিময়ে সওয়াবও দান করেন না । সবশেষে আমরা আল্লাহর দরবারে প্রার্থনা করি, তিনি যেন আমাদেরকে তার এবং তার রাসুলের পরিপূর্ন পদাঙ্ক অনুসরন করে চলার তৌফিক দান করেন এবং শবে বরাতের পূর্ণ শিক্ষা আমাদের জীবনে কাজে লাগাতে পারি । শবে বরাত উপলক্ষে আমাদের সমাজে যে সকল বিদ’আত প্রচলিত আছে তা থেকে আল্লাহ যেন আমাদেরকে মুক্ত রাখেন । সর্বোপরি এ রাত যেন লক্ষ কোটি সওয়াব হাসিলের উসিলা হয় এবং আমাদের পূর্ব পুরুষদের জন্য দোয়া কামনা করা যার বদৌলতে আল্লাহ তায়ালা তাদেরকে জান্নাতের মেহমান হিসেবে কবুল করেন । এ রাতে বিশ্ব মুসলিম উম্মাহের প্রতি আল্লাহর পক্ষ থেকে রহমত কামনা করছি এবং আমাদের কৃত দোষত্রুটি জন্য তার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি । রাজু আহমেদ :কলাম লেখক । -

জাহান্নামের আগুন ও অন্ধকার

ডিনিউজ ডেস্ক,ঢাকা: রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, এক হাজার বছর জাহান্নামকে উত্তাপ দেয়া হয়েছে। ফলে তার আগুন রক্তিম বর্ণ ধারণ করেছে। অতপর পুনরায় এক হাজার বছর উত্তাপ দেয়ার ফলে এটি সাদা রং পরিগ্রহ করেছে। অতপর আরও এক হাজার বছর উত্তাপ দেয়ার ফলে এর আগুন কৃষ্ণবর্ণ হয়ে গেছে। সুতরাং জাহান্নাম এখন সম্পূর্ণরূপে গাঢ় কালো তমসাচ্ছন্ন। (তিরমিযী) অন্য এক রিওয়ায়েতে ‘অন্ধকার রাতের ন্যায় তমসাচ্ছন্ন’ বলা হয়েছে। অপর এক বর্ণনায় আছে যে, এ কারণে অগ্নিশিখা থেকে আলো বিচ্ছুরিত হয় না। অর্থাৎ সেখানে সার্বক্ষণিক অন্ধকার বিরাজ করছে। (তারগীব) বুখারী ও মুসলিম শরীফের একটি বর্ণনায় আছে, রাসুলে করীম (সা.) ইরশাদ করেন, তোমাদের ব্যবহৃত এ আগুন জাহান্নামের আগুনের সত্তর ভাগের এক ভাগ। সাহাবায়ে কিরাম (রা.) আরজ করলেন, দহনের জন্য তো এ আগুনই যথেষ্ট। তিনি ইরশাদ করলেন, হ্যাঁ, এতদসত্ত্বেও পৃথিবীর আগুনের চাইতে জাহান্নামের আগুন ঊনসত্তর গুণ শক্তিশালী। ওই এক রিওয়ায়েতে আছে, জাহান্নামীরা যদি পৃথিবীর আগুনে আসতো তাহলে তাদের (সুখ) নিদ্রা এসে যেতো (তারগীব)। কেননা, জাহান্নামের আগুনের তুলনায় পৃথিবীর আগুন ঠাণ্ডা ছাড়া কিছু নয়। কাজেই জাহান্নামের মুকাবিলায় এতে আরামই অনুভূত হবে। -

প্রীতি ‘যৌন হয়রানি’র শিকার

ডিনিউজ ডেস্ক : হিন্দি সিনেমার অভিনেত্রী এবং এ বছর ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে ফাইনালে খেলা কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের এক মালিক প্রিতি জিনটা সাবেক প্রেমিক এবং কেইপির আরেক মালিক নেস ওয়াদিয়ার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানি, শারীরিক নির্যাতন এবং ভয় ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ করেছেন। তিনি পুলিশের কাছে বৃহস্পতিবার একটি চিঠি দেন যা পরে এফআইআর হিসেবে গৃহীত হয়। চিঠিতে তিনি বলেন ৩০মে দক্ষিণ মুম্বাইয়ের ওয়াংখেরে স্টেডিয়ামের ভেতরে বহু লোকের সামনে তিনি ‘যৌন হয়রানি’র শিকার হন।তিনি আরও বলেন সম্পর্ক ভেঙ্গে যাওয়ার পর প্রায়ই তাকে হয়রানি করেছেন নেস ওয়াদিয়া। সম্প্রতি এই ব্যবসায়ীর সঙ্গে জিনটার পাঁচ বছরের সম্পর্কের অবসান ঘটে। এদিকে এ অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং ভিত্তিহীন দাবি করে ভারতীয় দৈনিক টাইমস অফ ইন্ডিয়াকে ওয়াদিয়া বলেছেন, “আমি ভাবতেই পারিনা যে সে (জিনটা)এত নীচে নামতে পারে।” এক সূত্রের বরাত দিয়ে টাইমস অফ ইন্ডিয়া বলছে, দুই মাস আগে নতুন সম্পর্কে জড়িয়েছেন ওয়াদিয়া যা জিনটা একদমই মেনে নিতে পারছিলেন না। এমনকি আইপিএল চলাকালীন ওয়াদিয়ার মায়ের সামনেই কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের এই দুই মালিক বাক-বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন বলেও শোনা যাচ্ছে। -

বিশ্বকাপ বির্তকে পুনম পান্ডে

ডিনিউজ ডেস্ক : ব্রাজিল বিশ্বকাপ ফুটবলের পর্দা ওঠার সঙ্গে সঙ্গেই নড়েচড়ে বসেছেন বলিউডের বিতর্কিত নায়িকা পুনম পান্ডে। সম্প্রতি নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে বিশ্বকাপ উপলক্ষে একটি ছবি প্রকাশ করেছেন। আর তা থেকেই নতুন বিতর্কের শুরু হয়েছে। টুইটারে প্রকাশিত ছবিটিতে দেখা যায়, পুনম পান্ডে বিকিনি পরিহিত অবস্থায় পোজ দিয়েছেন। ছবিটির ওপরে লেখা ছিলো, ‘ফুটবল ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপ ২০১৪-ডোন্ট মিস দ্য ফুটবল ফ্রম টু ডে’। বিশ্বকাপ উপলক্ষে প্রকাশিত এই ছবিটি নিয়ে এরই মধ্যে বলিউডে তোলপাড় শুরু হয়েছে। পুনমের ভক্তদের অনেকেই আশা করছেন এবারের বিশ্বকাপে পুনম পান্ডের পছন্দের দল শিরোপা জিতলে তিনি নগ্নও হতে পারেন। কারণ ২০১১ সালে অনুষ্ঠিত ক্রিকেট বিশ্বকাপের শিরোপা ভারতের ঘরে আসলে নগ্ন হবেন বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন। কিন্তু ভারত শিরোপা জিতলেও, কথা রাখেননি পুনম। উল্লেখ্য, ‘ব্রাজিল বিশ্বকাপ ফুটবল২০১৪’ এ পুনম পান্ডের প্রিয়দল ব্রাজিল। ইতিমধ্যে টুইটারে ব্রাজিলের জার্সি গায়ে একটি ছবিও প্রকাশ করেছেন বিতর্কিত এই নায়িকা। -

তারিন ও অপূর্বের অপ্রত্যাশিত রাত

স্টাফ রিপোর্টার,ঢাকা: প্রায় এক বছর পর আবার নাটকে জুটিবদ্ধ হয়ে অভিনয় করেছেন তারিন ও অপূর্ব। মেজবাহ শিকদারের রচনা ও পরিচালনায় এ নাটকটির নাম ‘অপ্রত্যাশিত রাত’। রাতে বিয়েবাড়ি থেকে পালিয়ে গিয়ে তারিন আশ্রয় নেন অপূর্ব’র বাড়িতে। কিন্তু সত্যিই কি তারিন বিয়েবাড়ি থেকে পালিয়েছিলেন! হয়তো, হয়তো বা না। এমনই দ্বন্দ্বমুখর গল্প নিয়ে নির্মিত হয়েছে ‘অপ্রত্যাশিত রাত’ নাটকটি। আবার তারিনের সঙ্গে অভিনয় করা প্রসঙ্গে অপূর্ব বলেন, অভিনেত্রী কিংবা কো-আর্টিস্ট হিসেবে যাই বলি না কেন, তারিন অসাধারণ। নতুন এ নাটকটিতে আমরা চেষ্টা করেছি বেশ বৈচিত্র্য আনার জন্য। আশা করি দর্শকদের ভাল লাগবে। নাটক প্রসঙ্গে তারিন বলেন, স্ক্রিপ্টটি আমার কাছে দারুণ লেগেছে, তাই কাজটি করেছি। দর্শকদের কোনভাবেই বোঝার উপায় থাকবে না নাটকে একের পর এক কি হতে যাচ্ছে। আসছে ঈদে একটি স্যাটেলাইট চ্যানেলে এটি প্রচার হবে বলে জানিয়েছেন নির্মাতা।

মালয়েশিয়া থেকে লন্ডন ফিরেছেন তারেক রহমান

Kanaighat News on Saturday, June 14, 2014 | 11:59 PM

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপির সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যান তারেক রহমান মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে ১২ দিনের সফর শেষে শুক্রবার লন্ডন ফিরেছেন। সফরকালে তিনি কুয়ালালামপুরের জালান কিয়া পেঙ এ বিখ্যাত প্রিন্স কোর্ট মেডিকেল সেন্টারে চেকআপ করান এবং রাস্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে ১২ জুন পুত্রা ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের তুন রাজ্জাক হল-বি’তে বিএনপি আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন। সেখানে র‌্যাব বিলুপ্তির পক্ষে গণস্বাক্ষর কর্মসূচিও উদ্বোধন করেন তারেক রহমান। শুক্রবার সকাল ১০ টায় তারেক রহমান তার স্ত্রী ডা. জোবায়দা রহমান ও কন্যা জাইমা রহমানকে সঙ্গে নিয়ে কাতার এয়ারওয়েজের একটি উড়োজাহাজে কুয়ালালামপুর ত্যাগ করেন। এসময় এয়ারপোর্টে তাকে বিদায় জানান তার ব্যক্তিগত মূখ্য কর্মকর্তা মিয়া নূর উদ্দীন অপু এবং স্থানীয় বিএনপির বিপুল সংখ্যক নেতা-কর্মী। প্রসঙ্গত যে, গত ২ জুন মালয়েশিয়ায় আসেন তারেক রহমান। ঐদিন কুয়ালালামপুর বিমান বন্দরে পৌছালে তাকে স্বাগত জানান মালয়েশিয়া সরকারের কমিউনিকেশন ও মাল্টিমিডিয়া মন্ত্রনালয়ের মহাসচিব দাতো আবদুর রহীম রাজী। তারেক রহমান ২০০৮ এর ১২ই সেপ্টেম্বর চিকিৎসার জন্য স্বপরিবারে লন্ডন গমনের প্রায় পাঁচ বছর পর প্রথম তিনি লন্ডনের বাইরে যান গত বছরের ১ এপ্রিল পবিত্র ওমরাহ পালনের জন্য সউদী আরব।এক সপ্তাহকাল সউদী আরবে অবস্থান করে পবিত্র ওমরাহ পালন ও রাসূলে করিম সাল্লাল্ল¬াহু আলাইহি ওয়া সাল্ল¬ামের রওজা মোবারক জিয়ারত শেষে লন্ডনে ফিরে প্রত্যাবর্তন করেন। এরপর গেলেন কুয়ালালামপুর।

বাগদাদের পথে জঙ্গিরা

ডিনিউজ ডেস্ক,ঢাকা: নতুন কয়েকটি শহরের দখল নিয়ে ইরাকের রাজাধানী বাগদাদের কাছাকাছি পৌঁছে গেছে ইসলামি জঙ্গিরা৷ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেছেন, ইরাক সরকারকে সহযোগিতার জন্য সব বিকল্পই তিনি বিবেচনা করে দেখছেন৷ ইরাকি পুলিশ ও সেনা কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, শুক্রবার সকালে বাগদাদ থেকে মাত্র ৫০ কিলোমিটার দূরে বাকুডা শহরের কাছে সরকারি বাহিনীর সঙ্গে সুন্নি জঙ্গিদের যুদ্ধ শুরু হয়েছে৷ ২০০৩ সালে অ্যামেরিকান সৈন্যদের অভিযানের পর থেকে আরব, কুর্দি ও সুন্নি অধ্যুষিত বাকুডা শহরে প্রায়ই সংঘাত ও সহিংসতা ঘটে আসছে৷ আল-কায়েদার শাখা ইসলামিক স্টেট ইন ইরাক অ্যান্ড দ্য লেভান্ট-এর (আইএসআইএল) জঙ্গিরা গত সোমবার এই আক্রমণ শুরুর পর সালাহেদিন প্রদেশের রাজধানী তিকরিত এবং নিনেভে প্রদেশের মসুলের নিয়ন্ত্রণ নেয়৷ তাদের হাতে পূর্বাঞ্চলীয় শহর জালাওলারও পতন হয়েছে বলে দুবাইভিত্তিক আল-আরাবিয়া টেলিভিশনের খবরে জানানো হয়েছে৷ এদিকে বিভিন্ন শহরে সুন্নি জঙ্গিদের আক্রমণের সুযোগে কুর্দি বিদ্রোহীরাও নতুন করে সক্রিয় হয়ে উঠছে৷ সরকারি সৈন্যরা পালিয়ে যাওয়ার পর কিরকুক শহরের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে তারা।

‘মা-ছেলেকে আগে রিমান্ডে নিতে হবে’

ঢাকা : সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান হত্যাকা-ে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও তার বড় ছেলে তারেক রহমানকে আগে রিমান্ডে নিতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ বিকালে গণভবনে তার চীন সফর নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন। ‘জিয়া হত্যায় জন্য শেখ হাসিনাকে রিমান্ডে নিতে হবে’ তারেক রহমানের এমন বক্তব্যের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়া ৯০ সালে গুলিস্তানের এক জনসভায় জিয়ার হত্যাকা-ের জন্য হঠাৎ এরশাদকে খুনি হিসেবে আখ্যায়িত করেছিলেন। কিন্তু যাকে খুনি হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন তার কাছ থেকেই দুটি বাড়ি ও গাড়ি নিয়েছেন। এছাড়া খালেদা জিয়া ও তার ছেলেকে আমি প্রশ্ন করবো, জিয়া হত্যার পর তারা লাশ দেখতে যায়নি কেন। তাই রিমান্ডে নিলে আগে মা-ছেলেকে নিতে হবে। কারণ তাদের সঙ্গে কতটুকু সম্পর্ক ছিল। উল্লেখ্য, গত ৬ই জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চীনের প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াংয়ের আমন্ত্রণে ছয়দিনের এক সরকারি সফরে ওই দেশে যান। ওই সফরে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে আনুষ্ঠানিক আলোচনা ছাড়াও ঢাকা ও বেইজিংয়ের মধ্যে দুটি চুক্তি ও তিনটি সমঝোতা স্মারক সই রয়েছে। চুক্তিগুলো হচ্ছে- বাংলাদেশ ও চীনের মধ্যে অর্থনৈতিক ও কারিগরি সহযোগিতা এবং পটুয়াখালীতে যৌথ উদ্যোগে কয়লাভিত্তিক গুরুত্বপূর্ণ বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রতিষ্ঠা। সমঝোতা স্মারকগুলো হচ্ছে- চট্টগ্রামে চীনের অর্থনৈতিক ও বিনিয়োগ অঞ্চল প্রতিষ্ঠা, কর্ণফুলী নদীর তলদেশে টানেল নির্মাণ এবং মুন্সিগঞ্জ জেলার গজারিয়ায় গার্মেন্ট পল্লী প্রতিষ্ঠা। ডিনিউজ

পলকের ছবি নিয়ে ফেসবুকে ঝড়

মন্ত্রিসভার সর্বকনিষ্ঠ সদস্য জুনায়েদ আহমেদ পলক। বয়সে যেমন তরুণ-কর্মঠ, তেমনি মানসিকতার দিক থেকেও চিরসবুজ। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব কাঁধে নিয়ে বাংলাদেশকে বিশ্বের বুকে তথ্যপ্রযুক্তির মডেল বানানোর স্বপ্ন বাস্তবায়নে উড়ে বেড়াচ্ছেন এক দেশ থেকে অন্য দেশে। মন্ত্রী হবার আগে টকশোতে ঝড় তুলতেন পলক। এবার ফেসবুকে পোস্ট করা তারই এক ছবি নিয়ে ঝড় উঠেছে সাইবার দুনিয়ায়। ফ্রান্সের মন্ট ব্লান্স গ্রামে তোলা ছবিটি গতকাল ভোররাতে (বাংলাদেশ সময়) তিনি আপলোড করেন। মটরবাইকের ওপর মডেলদের মতো বসে তোলা ছবিটি ফেসবুকে আপলোডের পরই তা দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে ইন্টারনেট জগতে। পড়তে থাকে মন্তব্যের পর মন্তব্য। শনিবার বিকাল পৌনে ৪টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তার ছবিটিতে লাইক পড়েছে ৪০০১টি। এছাড়া শেয়ার করেন ২৫ জন। যারা শেয়ার করেছেন তাদের ওয়াল থেকেও আবার ছবিটি শেয়ার করেন অনেকে। মন্তব্য করেন সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ, শিক্ষার্থী থেকে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক পর্যন্ত। খুবই দ্রত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে ছবিটির লাইক সংখ্যা। মন্তব্য পড়ছে পক্ষে-বিপক্ষে। শাহীন রহমান নামে জনৈক ফেসবুক ব্যবহারকারী বলছেন, ‘ইনি আমাদের মাননীয় আইসিটি মন্ত্রী, যিনি একজন পাবলিকের প্রতিনিধি। তিনি তো আর সিনেমার নায়ক নন। একটি দায়িত্বশীল চেয়ারের দায়িত্বে পলক সাহেব। কিন্তু আমি বিষ্মিত এ ধরণের হিরো মার্কা ছবি ফেসবুকে তিনি কেন প্রকাশ করেন!’ তার এ মন্তব্যের জবাব দিয়েছেন সাংবাদিক কেরামত উল্লাহ বিপ্লব। তিনি বলেন, ‘শাহীন ভাই, বাংলাদেশ এখন ডিজিটাল। সুতরাং সামনে তাকান, পেছনে নয়। আমার কাছে পছন্দ হয়েছে ছবিটি।’ অন্যদিকে উৎপল দাস বলে আরেক ফেসবুক ইউজার লিখেছেন, ‘মন্ত্রী বলে কি ভাইয়ের শখ আহ্লাদ কিছু থাকবে না?’ পলকের সমালোচনা করে ফারজানা মোজাম্মেল লিখেছেন, ‘মন্ত্রী হিসেবে এ রকম ছবি দেওয়া শোভনীয় নয়। এটা পারিবারিক অ্যালবামেই মানায়।’ আরিফ হোসেন লিখেছেন, ‘ভাইজান মনে হয় বিয়ের পাত্রী খুঁজছেন।’- এ রকম শত শত মন্তব্যের ঝড় বইছে ফেসবুক ওয়ালে। হিট বাড়ছে প্রতিমন্ত্রীর ফেসবুকে। শেয়ার হচ্ছে ছবি। দ্রুত বাড়ছে লাইকের সংখ্যা।

কানাইঘাটে মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন মোটর সাইকেল আরোহী চাকুরীজীবি এনামুল হক

Kanaighat News on Sunday, June 1, 2014 | 10:52 PM

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
 কানাইঘাটে যাত্রীবাহী চলন্ত একটি বাসের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষে আজ রবিবার মোটরসাইকেল আরোহী, উপজেলার একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের মাঠ সহকারি এনামুল হক (২৫) এর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে কানাইঘাট থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরির্দশন করে ঘাতক বাসটিকে আটক করে থানায় নিয়ে আসলেও বাসের চালক পালিয়ে যায়। জানা যায়, উপজেলার ৮নং ঝিংগাবাড়ি ইউপির আগতালুক গ্রামের মৃত মঈন উদ্দিনের পুত্র একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের ৭নং বাণী গ্রাম ইউপির (চুক্তি ভিত্তিক) মাঠ সহকারি পদে কর্মরত এনামূল হক প্রকল্পের কাজ করে, আজ সকাল সাড়ে ১১টার দিকে মোটরসাইকেল যোগে কর্মস্থল উপজেলা পল্লী উন্নয়ন অফিসে আসছিলেন। পথিমধ্যে গাজী বুরহান উদ্দিন সড়কের মাছুখাল বাজার সংলগ্ন ধলিবিল দক্ষিণ গ্রামের সেলিম উদ্দিনের বাড়ির পাশে আসা মাত্র বিপরীতগামী আসা সিলেট মুখী (মৌলভীবাজার-জ-১১-০২৬০) যাত্রীবাহী বাসের সাথে মোটর সাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে এনামুল হক মাথায় আঘাত প্রাপ্ত হয়ে মারাত্মক জখম হন। পরে তাঁকে স্থানীয় লোকজন আশংকাজনক অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে দ্রুত সিলেট ওমেক হাসপাতালে নিয়ে যাবার পথে পথিমধ্যে মৃত্যুর কুলে ঢলে পড়েন এনামুল হক। দুর্ঘটনার খবর পাওয়ার পরই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তারেক মোহাম্মদ জাকারিয়া উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা রবিন্দ্র চন্দ্র তালুকদার এবং এনামুল হকের সহকর্মীরা হাসপাতালে ছুটে যান এবং চিকিৎসার তদারকী করেন। পরে উর্ধ্বতন প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে পোস্ট মেডাম ছাড়াই এনামুল হকের লাশ কানাইঘাট থানা পুলিশের জিম্মায় তার পরিবারের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হয়। এদিকে সড়ক দূর্ঘটনায় এলাকার পরিচিত মুখ যুব সংগঠক কানাইঘাট ডাকনাইল সমাজ উন্নয়ন সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও ঢাকনাইল বিদ্যা নিকেতন জুনিয়রস্ স্কুলের প্রধান শিক্ষক এনামুল হকের মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। তার আত্মীয়-স্বজনদের কান্নায় এলাকার বাতাস ভারী হয়ে উঠে। উল্লেখ্য যে, ৫মাস পূর্বে একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের মাঠ সহকারী পদে এনামুল হক চাকুরীতে যোগদান করেন। দেড়মাস পূর্বে তিনি বিয়ে করেন। বাবা মঈন উদ্দিন ২মাস পূর্বে মারা যান। পরিবারের ৪ভাই ৩বোনের মধ্যে নিহত এনামুল হক সবার বড় ছিলেন।
 
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো:মহিউদ্দিন,সম্পাদক : মাহবুবুর রশিদ,নির্বাহী সম্পাদক : নিজাম উদ্দিন। সম্পাদকীয় যোগাযোগ : শাপলা পয়েন্ট,কানাইঘাট পশ্চিম বাজার,কানাইঘাট,সিলেট।+৮৮ ০১৭২৭৬৬৭৭২০,+৮৮ ০১৯১২৭৬৪৭১৬ ই-মেইল :mahbuburrashid68@yahoo.com: সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত কানাইঘাট নিউজ ২০১৩