‘জীববৈচিত্র নষ্ট করার সরকারি অপকৌশল’

Kanaighat News on Monday, September 30, 2013 | 9:18 PM

সুন্দরবন রক্ষায় রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র প্রকল্প বাতিল করার দাবি জানিয়েছেন ইসলামী ঐক্যজোটের ভাইস চেয়ারম্যান ও খেলাফতে ইসলামীর আমীর মাওলানা আবুল হাসানাত আমিনী।

সোমবার এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, “সরকার বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যরে লীলাভুমি সুন্দরবনকে ধ্বংসের জন্য রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে। নিঃসন্দেহে এটা সুন্দরবনকে ধ্বংস করে জীববৈচিত্র বিনষ্ট করার সরকারী অপকৌশল।”
তিনি বলেন, “বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র স্থাপনের নামে এই অমূল্য সম্পদকে ক্ষতিগ্রস্ত করা এদেশের আপামর জনতা কোনোদিনই মেনে নিবে না। রামপাল ছাড়াও কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের জন্য বাংলাদেশে অনেক উপযুক্ত জায়গা আছে। কিন্তু সরকার এসব কিছুর তোয়াক্কা না করে বিদেশী প্রভুদের পরামর্শে সুন্দরবনকে ধ্বংস করতেই এমন ঘৃণ্য সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।”
মাওলানা আমিনী অবিলম্বে রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রকল্প বাতিলের দাবি জানিয়ে বলেন, "অন্যথায় দেশবাসী এর বিরুদ্ধে গণআন্দোলন গড়ে তুলতে বাধ্য হবে।”
গার্মেন্টস শ্রমিকদের জীবনমান উন্নয়নের জন্য অবিলম্বে জিএসপি সুবিধা পুনর্বহাল, শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ৮ হাজার টাকা নির্ধারণসহ তাদের সকল ন্যয্য দাবীর প্রতি ইসলামী ঐক্যজোটের পূর্ণ একাত্মতা ও সহমর্মিতার প্রকাশ করা হয় বিবৃতিতে। ---পরিবির্তন

লিবিয় হিমাগারে গাদ্দাফি বিরোধীদের লাশ

লিবিয়ার সাবেক নেতা মুয়াম্মার গাদ্দাফির শাসনামলে নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে নিহত সরকার বিরোধীদের লাশ সংরক্ষণকারী একটি হিমাগারের সন্ধান পাওয়া গেছে। ওই হিমাগারে ১৯৮০’র দশকে নিখোঁজ লেবাননের বিশিষ্ট আলেম ইমাম মুসা সাদরের লাশ রয়েছে কি-না তা নিয়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। বিকৃত হয়ে যাওয়া লাশগুলোর একটির সঙ্গে সাদরের চেহারার দূরাগত মিল থাকায় এ চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।
ইরানের আরবি স্যাটেলাইট নিউজ চ্যানেল আল-আলম জানিয়েছে, সম্প্রতি রাজধানী ত্রিপোলির কেন্দ্রীয় হাসপাতালের হিমাগারে ১৯৮০’র দশকে নিহত ১৮ ব্যক্তির লাশ পাওয়া যায়। কিন্তু নিহতদের শরীরে প্রচণ্ড নির্যাতনের চিহ্ন থাকার পাশাপাশি প্রায় তিন দশক সময় পার হয়ে যাওয়ার কারণে এসব লাশ সনাক্ত করা কঠিন হয়ে পড়েছে।
এ কারণে লাশগুলো সনাক্ত করার জন্য ডিএনএ টেস্ট করা হচ্ছে। এ পর্যন্ত তিনজনের মরদেহ সনাক্ত করা গেছে এবং তাদের লাশ ত্রিপোলির শহীদ স্কয়ারে দাফন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ওই তিন ব্যক্তি হলেন মোহাম্মাদ সাঈদ আত-তামজিনি, খলিফা ইব্রাহিম আল-হামাসি এবং জামাল মুহাম্মদ আল-মিসরাতি। ১৯৮৪ সালে গাদ্দাফির  বাসভবন বাব আল-আজিজিয়ায় হামলা করার দায়ে এই তিন ব্যক্তিকে হত্যা করা হয়েছিল।
এদিকে কোনো কোনো সূত্র জানিয়েছে, ১৯৮০’র দশকে লিবিয়া সফরে গিয়ে নিখোঁজ  হয়ে যাওয়া আলেম ইমাম মুসা সাদর ও তার দুই সঙ্গীর লাশ ওই হিমাগারে থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। এ সম্পর্কে বিশিষ্ট আরব বিশ্লেষক নাসের আদ-দায়িসি বলেছেন, গাদ্দাফির পতনের পর তার দফতর প্রধান আহমাদ রমজান জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন, ইমাম মুসা সাদরকে হত্যা করা হয়েছে। কিন্তু তার লাশ কোথায় আছে তা রমজান জানাতে পারেননি। তবে ইমাম সাদরের লাশ সংরক্ষণ করার সম্ভাবনা কম।
গাদ্দাফি কেনো ৩০ বছর ধরে নিহত সরকার বিরোধীদের লাশ সংরক্ষণ করেছিলেন সে সম্পর্কে লিবিয়ার দৈনিক আল-মিসার পত্রিকার সম্পাদক বশির জাবিয়া বলেছেন, “গাদ্দাফির বহু কর্মকাণ্ড ছিল অস্বাভাবিক। এ কারণে এ কাজটি তিনি কেনো করেছিলেন তা আমাদের বোধগম্য নয়। কোনো মনস্তত্ত্ববিদ হয়তো এ প্রশ্নের জবাব দিতে পারবেন যে, তিনি কেনো নিহত কিছু বিরোধীর লাশ সংরক্ষণ করেছিলেন।”
ইমাম মুসা সাদর ও তার দুই সঙ্গীর লাশ ওই হিমাগারে থাকতে পারে কি-না সে সম্পর্কিত এক প্রশ্নের উত্তরে লিবিয়ার ওই সাংবাদিক বলেন, “আমার মনে হয় না তাঁর লাশ ওখানে ছিল। গাদ্দাফি এ কাজটি করবেন না। আমার মনে হয়, শহীদ মুসা সাদরের লাশ মাটিতে পুতে ফেলা হয়েছে।”
ইরানি বংশোদ্ভূত মুসা সাদর ছিলেন লেবাননের খুবই প্রভাবশালী ও জনপ্রিয় নেতা। আমাল মুভমেন্টের প্রতিষ্ঠাতা মুসা সাদর ১৯৭৮ সালের ৩১ আগস্ট লিবিয়া সফরের সময় রহস্যজনকভাবে অপহরণ ও নিখোঁজ হন।সফরের সময় তার সঙ্গে মোহাম্মাদ ইয়াকুব ও আব্বাস বদরুদ্দিন নামে দুই সঙ্গী ছিলেন এবং গাদ্দাফি সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তার সঙ্গে তাদের সাক্ষাতের কথা ছিল। নিখোঁজ হওয়ার পর লিবিয়া সরকার ঘোষণা করে যে, ইমাম মুসা সাদর ও তার সঙ্গীরা বিমান উঠে ইতালির রাজধানী রোমে গেছেন। কিন্তু, ইতালি সরকার এ দাবি প্রত্যাখ্যান করে বলেছিল-ওই বিমানে মুসা সাদর ও তার সঙ্গীদের খুঁজেই পাওয়া যায়নি।

কানাইঘাটে বিএনপি-জামায়াত সংঘর্ষ !! আহত ১৫

নিজস্ব প্রতিবেদক:
আগামী ৫ই অক্টোবর বিরোধী দলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সিলেটের সমাবেশকে সফল করার লক্ষ্যে কানাইঘাট উপজেলা ১৮ দলীয় জোটের উদ্যোগে আজ সোমবার বিকাল সাড়ে ৩টায় প্রচার সমাবেশের মঞ্চ দখল নিয়ে যুবদল, ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের সাথে  ছাত্রশিবিরের ব্যাপক সংঘর্ষে ১৫ জন আহত, মঞ্চ ও শতাধিক চেয়ার-টেবিল ভাঙ্গচুর করা হয়েছে। এ ঘটনায় ১৮ দলীয় জোটের সমাবেশ ও গণমিছিল পন্ড হয়ে যায়। তবে জামায়াত-শিবিরের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী শো-ডাউনের মাধ্যমে দফায় দফায় কানাইঘাট বাজারে মিছিল করেছে। প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, বেগম খালেদা জিয়ার সমাবেশ সফল করার লক্ষ্যে জেলা ১৮ দলীয় জোটের উদ্যোগে উপজেলা পর্যায়ে প্রচার সমাবেশ ও গণমিছিলের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। সোমবার পূর্ব নির্ধারিত উপজেলা ১৮ দলীয় জোটের উদ্যোগে কানাইঘাট পূর্ব বাজারে বিকাল ২টায় সমাবেশ শুরু হয়। সমাবেশ চলাকালে বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি নূরুল ইসলাম, থানা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক সাজ উদ্দিন সাজু ও থানা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম শাহীনের নেতৃত্বে প্রায় শতাধিক নেতাকর্মী মিছিল নিয়ে মঞ্চের দিকে এগিয়ে যায়। মঞ্চে উঠা ও পাল্টাপাল্টি স্লোগানকে কেন্দ্র করে যুবদল, ছাত্রদল ও শিবির নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে উভয়দলের নেতাকর্মীরা মঞ্চের চেয়ার-টেবিল ও দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। প্রায় আধ ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে শতাধিক চেয়ার, মূল মঞ্চ ঘুড়িয়ে দেওয়া হয়। সংঘর্ষে যুবদল, ছাত্রদল ও শিবিরের ১৫ নেতাকর্মী আহত হন। আহতদের মধ্যে ছাত্রদল কর্মী রায়হান উদ্দিনকে সিলেট ওমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে এবং ছাত্রদল নেতা আব্দুল করিম শাহীন, স্বেচ্ছাসেবক দলনেতা আব্দুর রহমান, ছাত্রদল কর্মী আজমল হোসেনসহ অন্যান্যরা চিকিৎসা নিয়েছেন। এক পর্যায়ে বাদ আছর ৫ অক্টোবরের সমাবেশকে সফল করার লক্ষ্যে জামায়াত শিবির নেতাকর্মীরা বাজারে কয়েক দফা মিছিল করে। এরপর আব্দুল কাহির চৌধুরীর নেতৃত্বে বিএনপির একাংশ পূর্ব বাজারে সভা করে। বাজারে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার সময় বিপুল সংখ্যক পুলিশ নিরাপদে অবস্থান করতে দেখা গেছে। প্রসঙ্গত যে, কানাইঘাটে ১৮ দলীয় পাল্টাপাল্টি কমিটি রয়েছে। এক কমিটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন চাকসুর সাবেক আপ্যায়ন সম্পাদক মামুনুর রশিদ মামুন। এ জোটের সাথে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম, খেলাফত মজলিস ও ইসলামী ঐক্যজোট রয়েছে। আজকের সমাবেশে এ গ্রুপের নেতাকর্মীরা অংশ গ্রহণ করেনি। এদিকে  ১৮ দলীয় জোটের সমাবেশে হামলা, ভাঙ্গচুর ও আহতের ঘটনার সাথে চাকসুর আপ্যায়ন সম্পাদক মামুনুর রশিদ মামুন সমর্থিত জোটের কোন নেতাকর্মী সম্পৃক্ত নয়। তারপরও জামায়াত শিবিরের নেতাকর্মীরা মামুন রশিদের বিরুদ্ধে কটাক্য করে স্লোগান, তার বিলবোর্ড ভাঙ্গচুর ও থানা যুবদলের আহবায়ক আব্দুল মান্নানের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাঙ্গচুরের ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন উপজেলা ১৮ দলীয় জোটের সচিব মুফতি মাওলানা এবাদুর রহমান, পৌর জোটের আহবায়ক হাজী ইফজালুর রহমান ও পৌর সচিব কাউন্সিলার শরীফুল হক। 

কানাইঘাটে নারীদের নিয়ে বিশাল মানব বন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক:
 মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উদ্যোগে দেশব্যাপী তৃণমূল পর্যায়ে নারীদের মধ্যে ব্যাপক সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে আজ সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় কানাইঘাট উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বিশাল মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। উপজেলা পরিষদ চত্বরের সামনে উক্ত মানব বন্ধনে তৃণমূল পর্যায়ের বিভিন্ন পেশার কয়েক’শ নারী  ও হাজারো স্কুল ছাত্রী প্রশাসনের কর্মকর্তা, মহিলা জনপ্রতিনিধিরা অংশ গ্রহণ করে। আধাঘন্টাব্যাপী এ মানব বন্ধনে অংশ গ্রহণ করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম সোহরাব হোসেন, উপজেলা নারী উন্নয়ন ফোরামের সভানেত্রী মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রভাতী রাণী দাস, কানাইঘাট থাকার ওসি আব্দুল আউয়াল চৌধুরী, ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম, ফারুক আহমদ চৌধুরীসহ সাংবাদিক ও এনজিও কর্মীরা অংশ গ্রহণ করেন। 

পলিটেকনিক শিক্ষার্থীদের আন্দোলন স্থগিত

ঢাকা : পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা ১৫ দিনের জন্য আন্দোলন কর্মসূচি স্থগিত করেছে। 

আজ সোমবার দুপুরে সচিবালয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সাথে বৈঠকের পর কারিগরি ছাত্র পরিষদের আহ্বায়ক জাকির হোসেন সাগর এই ঘোষণা দেন।

সাগর সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের চাকরির ক্ষেত্রে পদোন্নতি এবং 'ইঞ্জিনিয়ার' শব্দের সংজ্ঞা নতুন করে নির্ধারণ করার বিষয়ে তাদের দাবি পূরণের আশ্বাস দেয়া হয়েছে। তাই তারা আন্দোলন ১৫ দিনের জন্য স্থগিতের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

গত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়েও শিক্ষার্থীরা প্রকৌশলীর সংজ্ঞায় ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের অন্তর্ভুক্ত করার দাবিতে আন্দোলন করে। পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আদেশটি সংশোধনের আশ্বাস দিলেও তা বাস্তবায়ন না হওয়ায় বেশ কিছুদিন ধরে আন্দোলন করে আসছে তারা।

বৈঠকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আতোয়ার রহমান, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. শাহজাহান মিঞা, কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. আবুল কাশেম, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব হাবিবুর রহমান প্রমুখ বৈঠকে অংশ নেন।---ডিনিউজ

রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে’র উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

পাবনা: সম্পূর্ণ ঝুঁকিমুক্তভাবে দেশে এই প্রথম পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের কাজ শুরু হতে যাচ্ছে। বিশ্বের ৩১তম পারমানবিক চুল্লি ‘রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র’এর প্রথম পর্যায়ের নির্মাণ কাজ আগামীকাল ২ অক্টোবর, বুধবার সকাল ১১টায় উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এদিন বিকালে জেলা আওয়ামীলীগের জনসভায় বক্তব্য রাখবেন এবং পাবনার আরো ২ ডজন বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীর সফরকে ঘিরে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।
সরকারী একটি সুত্র জানায়, রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়নে ৫শ’ মিলিয়ন ডলার ব্যয় হবে। নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ৬৩ রকমের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হবে। খরচের ৯০ শতাংশ দেবে রাশিয়া, বাকী ১০ শতাংম দেশের নিজস্ব তহবিল থেকে ব্যয় হবে। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিনের সাথে বৈঠকের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রকল্পের নিরাপত্তার বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে বলেছেন। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটার এবং ঈশ্বরদীতে এ সম্পর্কিত তথ্য কেন্দ্র খোলা হবে। এই তথ্য কেন্দ্র থেকে যে কোন মানুষ পরমাণু বিদ্যুত কেন্দ্র সম্বন্ধে বিষদ ভাবে জানতে পারবেন। সুত্র জানায়, ২৪ হাজার কোটি টাকার এ প্রকল্পে সরকার জন নিরাপত্তার বিষটিকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিচেছ। ইতোমধ্যেই সরকার চলতি বাজেটে ৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রেখেছে। রাশিয়ার আর্থিক ও কারিগরি সহায়তায় বিশ্বের সর্বাধুনিক থ্রীজি  প্রযুক্তি ব্যবহার এবং ৫ স্তরের নিরাপত্তা বেষ্টনী তৈরি করা হবে। ফলে এর ২শ মিটার দুরেই মানুষ বসবাসও করতে পারবে। এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরকে কেন্দ্র করে পাবনা জেলার সর্বত্র বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। দলীয় নেতা-কর্মীদের মধ্যে প্রানচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে। রুপপুরসহ গোটা ঈশ্বরদী উপজেলা সাজানো হয়েছে রঙিন সাজে। পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন এবং জেলা আওয়ামীলীগের জনসভাকে সফল করতে দিন রাত কাজ চলছে। আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও প্রধান মন্ত্রীর বিশেষ সহকারী মাহবুব উল আলম হানিফ, স্বরাষ্ট্রপ্রতিমন্ত্রী এ্যাড. শামসুল হক টুকু, ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী আব্দুল আহাদ, শামসুর রহমান শরীফ ডিলু এমপি, গোলাম ফারুক খন্দকার প্রিন্স এমপি, পাবনা জেলা পরিষদের প্রশাসক এম সাইদুল হক চুন্নুসহ দলীয় নেতা-কর্মীরা দফায় দফায় বৈঠক করছেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ দিন বেলা ১১ টায় রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রথম পর্যায়ের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন শেষে বিকাল ৩ টায় রূপপুর আনবিক প্রকল্প মাঠে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় ভাষণ দেবেন। এ সময়ই তিনি প্রায় দুই ডজন উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন : এডওয়ার্ড কলেজের একাডেমিক কাম-এক্সামিনেশন হল, বেড়া বিপিন বিহারি উচ্চ বিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন, চরগড়গড়ি দক্ষিণপাড়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার একাডেমিক ভবন ও ফরিদপুর ফায়ার সার্ভিস স্টেশন।
এছাড়াও ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করবেন: ঈশ্বরদী উপজেলার কোমরপুর হতে নাটোর জেলার লালপুর উপজেলার গৌরিপুর পর্যন্ত পদ্মা নদীর বাম তীর সংরক্ষণ প্রকল্প, পাবনার শহীদ আমিনুদ্দিন স্টেডিয়াম সংস্কার ও উন্নয়ন প্রকল্প, বেড়া ডিগ্রি কলেজ, সাঁথিয়া ডিগ্রি কলেজ, কাশিনাথপুর শহীদ নূরুল হোসেন ডিগ্রি কলেজ, মাসুমদিয়া-ভবানিপুর কেজিবি কলেজ, সুজানগর নিজাম উদ্দিন আজগর আলী ডিগ্রি কলেজ, চাটমোহর বড়দা নগর আব্বাসিয়া দাখিল মাদ্রাসা, ফরিদপুর ইয়াসিন আলী ডিগ্রি কলেজ, ভাঙ্গুড়া মহিলা কলেজ, ঈশ্বরদী মহিলা কলেজ, আটঘড়িয়ার পার খিদিরপুর কলেজ একাডেমিক ভবন,  বনওয়ারিনগর সিবি উচ্চ বিদ্যালয়, সাঁথিয়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, ভাঙ্গুরা ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয় এবং চিনাখরা বিলকলমি দাখিল মাদ্রাসা ও আটঘড়িয়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের একতলা ভবন। ---ডিনিউজ

কন্যা শিশু দিবস উপলক্ষে জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে সেমিনার


নরসিংদী:  জাতীয় কন্যা শিশু দিবস ২০১৩ উপলক্ষে শিল্পকলা একাডেমীতে সোমবার এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক)সুরাইয়া বেগমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মোঃ ওবায়দুল আজম। এ সময় জেলা প্রশাসক নরসিংদী ব্রাহ্মন্দী বালিকা বিদ্যালয়ের ষষ্ট শ্রেণীর ছাত্রী পশ্চিম ব্রাহ্মন্দীর মোঃ আলী ফরাজী ও সাহিদা বেগমের কন্যা সাদিয়া আক্তার বুশরা নামে এক শিশুকে বিশেষ অতিথির সম্মানে ভূষিত করে মঞ্চে জেলা প্রশাসকের পাশে বসানো হয়। 
অনুষ্ঠানে সাদিয়া ইসলাম বুশরা বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন। এতে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা উম্মে মাহমুদা খানম জেলা তথ্য কর্মকর্তা সানজীদা আমীন,নরসিংদী সরকারী কলেজের সহকারী অধ্যাপক খাদিম হোসেন প্রমূখ,সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ভেনিসা রড্রিক্স,জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মোঃ হাসান ইমাম,মাদ্রাসা শিক্ষক নয়ন মোল্লা,পাপড়ীর নির্বাহী পরিচালক আবু বাছেদ,ঢাকা আহছানিয়া মিশনের এলাকা সমন্বয়কারী তপন কুমার সরকার,ব্র্র্যাকের প্রতিনিধি প্রবাল কুমার সাহা। প্রধান অথিতি জেলা প্রশাসক ওবায়দুল আজম বলেন মেয়েরা দুর্বল নয়। গার্মেন্টস ফ্যাক্টরীর সকল কাপড় মেয়েরা তৈরী করে থাকে। সভ্যতা বজায় রাখার জন্য তারা সন্তান জন্ম দেয়। কৃষি চাষ মেয়েরা আবিস্কার করেছে। অভিভাবকদের মানষিক নির্যাতনে একটি মেয়ের করুন মৃত্যুর ঘটনা উল্লেখ করে তিনি কন্যা শিশুদের আত্মহত্যার প্ররোচনার জন্য পিতা মাতাদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেয়া হবে বলে জানান। তিনি আরো বলেন নরসিংদীতে ১৮শত কোটিপতি রয়েছে তাদের মেয়েরা লেখা পড়া করলেও ছেলেদের লেখাপড়া করায় না। তাদেরকে ব্যাবসা দেখানোর জন্য বসিয়ে দেয়া হয়। লেখা পড়া ছাড়া ব্যাবসা দেখা শুনা কোন ক্রমেই সফল  হবে না। এক ব্যাবসা ধংস হযে যাবে। যে কোন কাজে লেখা পড়ার কোন বিকল্প নেই। তিনি বলেন বর্তমান সরকারের আমলে দেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে, নারীরা যখন স্কুল কলেজ অফিস আদালত সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে গুরুত্বপূর্ণ পদে চাকুরী করছে। সে সময় কিছু বদমাস ধর্মান্ধ লোক মহিলাদের কে আর ঘরের বাইরে যেতে দেবে না বলে হুমকী দেয়। অথচ তারা দেশের স্বাধীনতা চায়নি । দেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না।দেশকে তালেবানী রাষ্ট্র বানানোর চেষ্টা করছে। আসুন সকলে মিলে তাদের এদেশ থেকে বিতারিত করি।মৌলবাদী ফতুয়াবাজদের আমারা বর্জন করব। তিনি কন্যা শিশুর প্রতি বৈষম্য দূরীকরণসহ তাদের শিক্ষিত ও দক্ষ জনগোষ্ঠী রূপে গড়ে তোলার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান। 
এদিকে নরসিংদীতে কর্মরত বেসরকারী সংস্থা এমডিএস বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরামের সহযোগীতায় শিশু অধিকার সপ্তাহ ও কন্যা শিশু দিবস উদযাপনে বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহন করেছে।---ডিনিউজ 

শেরপুর- শ্রীবরদী সড়কে ডাকাতি:আটক ২


শেরপুর: ঈদকে সামেনে রেখে শেরপুর - শ্রীবরদী বাইপাস সড়কে হালগড়া এলাকায় রোববার দিবাগত রাতে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। এতে গরু ব্যবসায়ীদের ১০ টি ভটভটি গাড়ীতে হামলায় দুই গরু ব্যবসায়ী গুরুতর আহত হয়েছেন। ডাকাতরা নিয়ে গেছে দুইটি গুরুসহ লক্ষাধিক টাকা। পুলিশ এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুজনকে আটক করেছে। রাতের এ ঘটনায় এলাকায় আতংক বিরাজ করছে। 
পুলিশ ও ডাকাতদের কবলে পড়া গরু ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে জানা যায়, রোববার রাত ১২ টার দিকে বকশিগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা ১০-১৫ টি ভটবটি গাড়ী দিয়ে গরু নিয়ে যায়। এ সময় শেরপুর শ্রীবরদী বাইপাস সড়কের হালগড়া এলাকায় একদল ডাকাত তাদের গাড়ীর গতিরোধ করে। এক পর্যায়ে ডাকাতরা তাদের ওপর হামলা করে। এ সময় তাদের কাছ থেকে টাকা ও দুটি গরু ছিনিয়ে নেয়। এ সময় বাধাঁ দিতে গেলে দু’গরু ব্যবসায়ী গুরুতর আহত হন। আহদের বাড়ি সানন্দবাড়ি এলাকায়। আহতদের ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানা যায়। এ ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। তৎক্ষণে ডাকাতরা গা ঢাকা দেয়। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে  পুলিশ সোমবার দুজনকে আটক করেছে। 
থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আলী শেখ বলেন, জড়িত সন্দেহে তাদেরকে আটক করা হয়েছে। তবে ডাকাতির ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তরা যদি তাদের চিনতে না পারে তাহলে আটকদের ছেড়ে দেয়া হবে।---ডিনিউজ

গোবিন্দগঞ্জে ফেন্সিডিলসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ী আটক


গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা): গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে চাল ভর্তি ট্রাকে বিপুল পরিমান ফেন্সিডিলসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ী থানা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছে।
জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার দুপুর আড়াইটায় এস আই আনোয়ার হোসেন সংঙ্গীও ফোর্স নিয়ে গোবিন্দগঞ্জ-দিনাজপুর উপসড়কের থানার সামনে বিরামপুর থেকে ছেড়ে আসা একটি চাল ভর্তি ট্রাকে তল্লাশী চালিয়ে ৩৪১ বোতল ফেন্সিডিলসহ দিনাজপুর জেলা সদরের ইমাম বক্সের পুত্র আমিনুল ইসলাম(৪২), বাতেন আলীর পুত্র বাবলু মিয়া (৪৬) রানীপুর গ্রামের কাসেম আলীর পুত্র সোহরাব (৪৭) কে গ্রেফতার করে । এ ব্যাপারে গোবিন্দগঞ্জ থানার ওসি তদন্ত মেহেদী রাসেল জানান, চাল ভর্তি ট্রাকে ফেন্সিডিল আটকের ঘটনায় চোরা চালান আইনে মামলা দায়ের হয়েছে।

সাড়ে ৩ লাখ মানুষের জন্য ১ জন ডাক্তার


মহেশপুর(ঝিনাইদহ): ৫০ শয্যায় উন্নতি হলে কি হবে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি। চলছে আগের  মতোই খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে।
অন্যদিকে যারা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে ২০/২৫ বছর বাধাহিন ভাবে চাকুরী করে যাচ্ছেন তারা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে রাম রাজত্ব কায়েম করে চলেছে। তারা কমপ্লেক্সটির ভিতরের বহুদিনের পুরাতন গাছ বিক্রিসহ অনেক কর্মকান্ডে জরিয়ে পরছে।       
উপজেলার সাড়ে ৩ লাখ মানুষের চিকিৎসার জন্য ১ জন ডাক্তার। অনেক রোগী চিকিৎসা সেবা না পেয়ে আরো অসুস্থ হয়ে বাড়ী ফিরে যাচ্ছে। ৫০ শয্যার জন্য আসা অনেক মুল্যবান যন্ত্রপাতি ডাক্তারের অভাবে হচ্ছে নষ্ট।    
ভবন ও তৈরী করা হয়েছে ৫০ শয্যার। কিন্তু কার্যক্রম চলছে ৩১ শয্যার। সাড়ে ৩ লাখ মানুষের জন্য যেখানে ২০ জন ডাক্তার থাকার কথা কিন্তু সেখানে আছে নাম মাত্র কর্মকর্তাসহ ৪ জন ডাক্তার। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সর কর্মকর্তা ডাক্তার তাহাজ্জেল হোসেন প্রশাসনিক কাজে সব সময় থাকেন ব্যস্ত। ফলে ৩ জন ডাক্তার রেেয়ছে বর্তমানে। 
ডাক্তারের মধ্যে ১ জন ডাক্তার ২৪ ঘন্টা ইনডোর ও আউটডোর কাজ করে থাকেন। অন্য জন করেন পরের দিন। ফলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা সেবা একেবারেই ভেঙ্গে পড়েছে। অনেক রোগী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে  চিকিৎসা সেবা না পেয়ে কোয়াক চিকিৎসকদের নিকট চিকিৎসা সেবা নিতে দেখা গেছে। আবার অনেক রোগী ফিরছে আরো অসুস্থ অবস্থায়। 
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি সুত্রে জানা গেছে, বহু দিনের এ চিকিৎসক সংকট ভয়াবহ আকার ধারন করায় এ উপজেলার প্রায় সাড়ে ৩ লক্ষাধিক মানুষ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স বিমুখ হয়ে ক্লিনিক মুখি হচ্ছেন। তার পরও রয়েছে ডাক্তারদের রোগীদের সাথে  দুর্ব্যবহার।
সুত্রটি আরো জানান, কিছু দিন পুর্বে দু’এক জন নতুন ডাক্তার আসলেও ১৫ থেকে ২০ দিন থাকার পরে তারা উপর মহলের তদবির করে আবার চলে যান। 
মাত্র ৩ জন ডাক্তার প্রতিদিন ১ জন করে ইনডোর ও আউটডোরের রোগী দেখছেন। ফলে ২৪ ঘন্টায় ১ জন ডাক্তার দিয়ে এত বড় উপজেলা এলাকা কোন ভাবেই চালানো সম্ভব না।
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অন্য একটি সুত্রে জানাগেছে ১৯৮৩ সাল থেকে অনেকে বাধা হিন ভাবে চাকুরি করে আসছেন। যাদের কোন দিন অন্যত্র বদলিও হয়না। যার কারনে সেই সব ব্যাক্তিরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভিতরের বহুদিনের পুরাতন গাছ ছাটায়ের নামে গাছ কেটে বিক্রি করে দিচ্ছে একের পর এক। তার পরও সেই সব কর্মকর্তারা রয়েছে ধরা ছোয়ার বাইরে।   
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিসংখ্যান বীদ কর্মকর্তা মহিউদ্দিন জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জন্য যেখানে ডাক্তার,নার্সসহ ৮৬ জন কর্মকর্তা কর্মচারী থাকার কথা সেখানে কর্মকর্তা  সহ ৪জন ডাক্তারসহ কর্মকর্তা কর্মচারী রয়েছে ৬৬ জন।  
মহেশপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ডাক্তার তাহাজ্জেল হোসেন জানান, ৫০ শয্যা উন্নতি করা হলেও চলছে ৩১ শয্যায়। ৫০ শয্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জন্য ২০ জন ডাক্তার, ১৫ জন নার্স থাকার কথা। কিন্তু সেখানে আছে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা সহ মাত্র ৪ জন ডাক্তার।। ফলে ৩ জন ডাক্তার দিয়ে চালানো হচ্ছে এই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি। শুধু তাই না ঔষধ সরবরাহ পর্যন্ত করা হচ্ছে ৩১ শয্যার। 
তিনি আরো জানান,এখানে ৩/৪ জন ডাক্তার আসলেই ৫০ শয্যার বেড গুলো চালু করা যাবে। তা না হলে সম্ভব হবেনা। ---ডিনিউজ

সেনবাগের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের কর্মবিরতি


নোয়াখালী: প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের দ্বিতীয় শ্রেণীর কর্মকর্তার মর্যাদা প্রদান ও সহকারী শিক্ষকদের বেতন স্কেল এবং ভাতা বৃদ্ধির দাবীতে গত ১৭ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়া কর্ম বিরতির কারণে নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার ১১৯ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কয়েক হাজার শিক্ষার্থীর শিক্ষা জীবন হুমকির মুখে পড়েছে। এতে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে দারুণ উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে।
জানা গেছে, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের দ্বিতীয় শ্রেণীর কর্মকর্তার মর্যাদা প্রদান ও সহকারী শিক্ষকদের বেতন স্কেল এবং ভাতা বৃদ্ধির দাবীতে গত ১৭ সেপ্টেম্বর থেকে শিক্ষকরা তাদের কর্মবিরতি শুরু করে। প্রথম দিন এক ঘন্টা, দ্বিতীয় দিন দুই ঘন্টা ও তৃতীয় দিন চার ঘন্টা কর্মবিরতি পালন করে। এর মধ্যেও সরকার কোন সিন্ধান্ত গ্রহণ না করায় গত ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে পূর্ন দিবস কর্ম বিরতি পালন করা শুরু করে যা এরির্পোট লেখা পর্যন্ত অব্যাহত রয়েছে।
শিক্ষকরা জানায় মঙ্গলবারের মধ্যে তাদের দাবী না মানলে ঢাকায় মহাসমাবেশ করে বিদ্যালয়ে তালা ঝুলানো কর্মসূচী পালন করবে তারা।---ডিনিউজ

ঝিনাইদহে ধুমপানমুক্তকরণ প্রকল্পের কর্মশালা


ঝিনাইদহ: ঝিনাইদহে ধুমপানমুক্তকরণ প্রকল্পের দিনব্যাপী অভিজ্ঞতা বিনিময় কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের কার্যকর প্রয়োগের মাধ্যমে খুলনা বিভাগের পাবলিক প্লেস ও পাবলিক পরিবহন ধুমপানমুক্তকরণ প্রকল্পের আওতায় খুলনা বিভাগের ১০টি জেলার বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ এতে অংশ নেয়। প্রকল্পটির মাধ্যমে খুলনা বিভাগের প্রায় ৩০ লক্ষ মানুষ উপকৃত হচ্ছে বলে কর্মকর্তারা অভিজ্ঞতা বিনিময় কর্মশালায় জানান।
এইড’র আয়োজনে সোমবার স্থানীয় এইড কমপ্লেক্স মিলনায়তনে কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. একেএম মতিনুর রহমান। বেসরকারী সংগঠন এইড এর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক তারিকুল ইসলাম পলাশের সভাপতিত্বে কর্মশালায় প্রকল্প সমন্বয়কারী দোয়া বখ্শ শেখ, প্রকল্পের এপিসি তন্ময় কুন্ডু, ডিআরসি শফিক আকরাম, মাসুদ আহমেদ সনজু  তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন  নিয়ে বক্তব্য রাখেন।
বক্তারা বলেন, তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের কার্যকর প্রয়োগের মাধ্যমে খুলনা বিভাগকে ধূমপানমুক্ত করণ প্রকল্পের লক্ষ হলো খুলনা বিভাগের পাবলিকপ্লেস ও পরিবহন সমূহকে ধূমপানমুক্ত করার মাধ্যমে পরোক্ষ ধূমপান হ্রাসকরা। প্রকল্পটির মাধ্যমে খুলনা বিভাগের প্রায় ৩০ লক্ষ মানুষ উপকৃত হচ্ছে বলে কর্মকর্তারা অভিজ্ঞতা বিনিময় কর্মশালায় জানান।---ডিনিউজ

রাজশাহী জেলা আ’লীগের সভাপতিকে মোহনপুরে অবাঞ্ছিত ঘোষণা


রাজশাহী: রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মেরাজউদ্দিন মোল্লার সাথে দলের মোহনপুর উপজেলা কমিটির নেতাকর্মীদের দ্বন্দ্ব এখন প্রকাশ্য রূপ নিয়েছে। সংগঠন পরিপন্থী কার্যকলাপের অভিযোগ এনে গত শনিবার বিকেলে মোহনপুর উপজেলার করিশা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে প্রতিবাদ সভা থেকে তাকে অবাঞ্ছিত ও প্রতিহত করার ঘোষণা দিয়েছেন তারা। ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সালাউদ্দিন শাহ’র সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ওবাইদুল্ল¬াহ সরকার, সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক পৌর মেয়র শহিদুজ্জামান শহিদ, বাকশিমইল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রভাষক আব্দুল মান্নান, সাধারণ সম্পাদক আলী হোসেন, উপজেলা যুবলীগ সভাপতি ইকবাল হোসেন, মৌগাছি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুর সবুর মাস্টার, জাহানাবাদ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হযরত আলী, বাকশিমইল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী দুলাল। 
ওই সভায় উপস্থিত নেতাকর্মীরা বলেন, এমপি মেরাজউদ্দিন  মোল্লা গত ২৪ সেপ্টেম্বর ধোপাঘাটা ও করিশা এলাকায় স্থানীয় দলীয় নেতাকর্মীদের না জানিয়ে অসাংগঠনিকভাবে নির্বাচনী প্রচারণায় এসে আওয়ামী লীগে ভাঙ্গন ও বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি করে। তিনি ওইদিন দলীয় ব্যানারে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধিয়ে দেন বলে অভিযোগ করেন তারা। এতে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতিসহ অন্তত ১০ নেতাকর্মী আহত হন। 
তৃণমূল নেতাকর্মীরা জানান, এমপি মেরাজউদ্দিন মোল্লা নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে মোহনপুর উপজেলা দলীয় কার্যালয়ে একদিনও দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে আলোচনায় বসেন। কিন্তু এখন নির্বাচন ঘনিয়ে আসায় নিজস্ব বাহিনী নিয়ে তিনি নির্বাচনী গণসংযোগে আসেন। মেরাজ মোল্লার এই আচরণ দলের নেতাকর্মীরা মেনে  নেবেন না বলে সভায় জানানো হয়। 
এদিকে, সোমবার এমপি মেরাজ মোল্লার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘ওরা আমাকে কী অবাঞ্ছিত করবে? আমার বিরুদ্ধে কথা বলার জন্য  তো স্থানীয় ছেলেরা ওদেরই পিটিয়ে হাসপাতালে পাঠিয়েছিল। গত নির্বাচনেও আমার মনোনয়ন বাতিলের জন্য দলের সভানেত্রীর কাছে তারা গিয়েছিল। আমি এমপি নির্বাচিত হওয়ার পরও ওরা আমার বিরুদ্ধে লেগে আছে। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুস সালাম দুইবার আর সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুজ্জামান শহিদ পৌর নির্বাচনে ফেল করেছে। ওরা সব ফেল করা পাটি। কাজেই ওদের সঙ্গে কী করে সম্পর্ক রাখবো।---ডিনিউজ

রাজশাহীতে ট্রেনে নিচের ঝাঁপিয়ে পড়ে মা-মেয়ের আত্মহত্যা


রাজশাহী: রাজশাহী মহানগরীর ভদ্রা রেলক্রসিংয়ে চলন্ত ট্রেনের নিচে ঝাঁপিয়ে পড়ে শিশুকন্যাসহ এক মা আত্মহত্যা করেছেন। সোমবার দুপুর সোয়া ১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা হচ্ছেন- শামীমা আক্তার কাকলি (২৫) ও তার ১৯ মাসের শিশুকন্যা লাবনী। কাকলির গ্রামের বাড়ি নওগাঁ জেলার আত্রাই উপজেলার ইসলামগাছি এলাকায়। তার স্বামী মনসুর আলী রাজশাহী মহানগরীর সাহেব বাজার ‘সিঙ্গার’ শাখার শপ অ্যাসিসটেন্ট পদে চাকরি করেন। 
রাজশাহী জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন জানান, সম্ভবত স্বামীর উপর অভিমান করে কাকলি দুপুরে মহানগরীর ভদ্রা রেলক্রসিংয়ের পাশে সৈয়দপুর থেকে রাজশাহীর উদ্দেশে ছেড়ে আসা আন্তঃনগর বরেন্দ্র এক্সপ্রেস ট্রেনের নিচে তার শিশুকন্যাকে নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েন। চলন্ত ট্রেনের নিচে পড়ে কাকলি ঘটনাস্থলেই মারা যান। মুমূর্ষু অবস্থায় তার ১৯ মাসের শিশুকন্যা লাবনীকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সাঈদুর রহমান তাকে মৃত ঘোষণা করেন। বিকেল সোয়া ৫টায় এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নিহতদের লাশ হাসপাতালের মর্গে ছিল। 
তিনি আরো জানান, তারা ভদ্রা এলাকার ভাড়া বাড়িতে থাকতেন। সংসারের অর্থনৈতিক টানাপোড়েনে স্বামীর উপর অভিমান করে কাকলি আত্মহত্যা করেছেন বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।---ডিনিউজ

সীমান্তে যুদ্ধবিরতিতে একমত নওয়াজ-মনমোহন

ঢাকা : ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং এবং পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ সীমান্তে যুদ্ধবিরতিতে একমত হয়েছেন। দুই দেশের নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর উত্তেজনা কমানোর বিষয়ে সমন্বিত শান্তি প্রতিষ্ঠায় পদক্ষেপ নেয়ার সিদ্ধান্ত হয় বৈঠকে। জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনের ফাঁকে রোববার ঘন্টাব্যাপী এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। খবর দ্য ডন, এনডিটিভি।

নিয়ন্ত্রণ রেখা অঞ্চলে যুদ্ধবিরতি আনয়ন প্রসঙ্গে দু’জন জ্যেষ্ঠ সেনা কর্মকর্তার উপর পূর্ণাঙ্গ পরিকল্পনা প্রণয়নের দায়িত্ব দেয়া হয়। অবশ্য ডিরেক্টর জেনারেল মিলিটারি অপারেশন বৈঠকের সময় নির্ধারণ করা হয়নি। বৈঠকে নেওয়াজ শরীফ ও মনমোহন সিং পরস্পরকে নিজ দেশ সফরের আমন্ত্রন জানান।

প্রধানমন্ত্রী নেওয়াজ শরীফের সাথে ছিলেন পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা সারতাজ আজিজ, অর্থমন্ত্রী ইশাক দর, পানি ও বিদ্যুৎ মন্ত্রী খাজা আসিফ, পররাষ্ট্র সচিব জলিল আব্বাস জিলানিসহ জাতিসংঘের পাক প্রতিনিধি মাসুদ খান।

ভারতীয় প্রতিনিধি দলে প্রধানমন্ত্রীর সাথে ছিলেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা শিবশঙ্কর মেনন, পররাষ্ট্র সচিব সুজাতা সিংসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা।

হামিদ মীরের এক মন্তব্যে ভারতে তোলপাড়

ঢাকা: নেহাতই সাধারণ দু’টি শব্দ দেহাতি অওরত। গ্রাম্য মহিলা। আর তাই নিয়েই দিনভর সরগরম হয়ে রইল নিউ ইয়র্ক থেকে নয়া দিল্লি। মনমোহন সিংহ সম্পর্কে নওয়াজ শরিফ এই বিশেষণ ব্যবহার করেছেন কি না, তা নিয়ে যখন নানা মহলে তুমুল বিতর্ক চলছে, তখনই আসরে নেমে পড়লেন নরেন্দ্র মোদী। এবং খবরের সত্যাসত্য যাচাইয়ের পথে না হেঁটে বিষয়টিকে কাজে লাগিয়ে ঘরোয়া রাজনীতিতে ফায়দা তুলতে সক্রিয় হলেন তিনি।

দিল্লিতে এক জনসভায় এই মন্তব্যের প্রসঙ্গ তুলে এক দিকে মোদী পাক প্রধানমন্ত্রীকে হুঁশিয়ার করে বললেন, এই কথা বলার সাহস হয় কী ভাবে! মোদীর এই মন্তব্য শুনে কেউ যদি ভেবে থাকেন, বিজেপির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী আসলে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর পাশে দাঁড়িয়েছেন, তা হলে তাকে বাজি হারতে হবে। কারণ, ওই সভাতেই মোদীর পরবর্তী মন্তব্য, ‘কংগ্রেসের সহ-সভাপতিই যখন প্রধানমন্ত্রীর পাগড়ি খুলে নিয়েছেন, তখন নওয়াজ আর কে’! অর্থাৎ, এবারে তার ব্যঙ্গের নিশানায় মনমোহনই! বিতর্কের শুরু পাকিস্তানের সাংবাদিক হামিদ মিরের এক সাক্ষাৎকার থেকে। ভারতেরই একটি সংবাদ চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে হামিদ বলেন, শনিবার সাংবাদিকদের সঙ্গে প্রাতরাশ বৈঠকের সময় এক একান্ত আলাপচারিতার ফাঁকে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী এই শব্দগুচ্ছ ব্যবহার করেছেন মনমোহন সিংহের উদ্দেশে।


নওয়াজ নাকি বলেছেন, এক জন গ্রাম্য মহিলা যেমন কান্নাকাটি করেন, আমেরিকায় এসে মনমোহন ঠিক সে ভাবেই কাঁদছেন! পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অভিযোগ করছেন বারাক ওবামার কাছে! ভারত-পাক প্রধানমন্ত্রী স্তরে বৈঠক শুরুর প্রাক্কালে করা হামিদ মীরের এই মন্তব্য নিয়ে হইচই শুরু হয়ে যায়। আর এই সুযোগ ছাড়তে চাননি নরেন্দ্র মোদী। রোববার দিল্লির জনসভায় এই মন্তব্যটিকে পুঁজি করে এক ঢিলে তিন পাখি মারার চেষ্টা করেন তিনি। প্রথমে নওয়াজ শরিফকে এক হাত নিয়ে বলেন, “পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর এত সাহস হয় কোথা থেকে? প্রধানমন্ত্রীর প্রতি এই মন্তব্য দেশ সহ্য করবে না।” পাক প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে তার এই হুঁশিয়ারি শুনে স্বাভাবিকভাবেই হাততালিতে ফেটে পড়ে জনতা। কিন্তু মোদীর উদ্দেশ্য তো মনমোহনের সহমর্মী হওয়া নয়।


বরং সুকৌশলে মনমোহন সিংহের পাশাপাশি রাহুল গান্ধীকেও এক হাত নেয়াই লক্ষ্য তার। তাই সভায় মোদীর মন্তব্য, “এক অর্ডিন্যান্স নিয়ে বিদেশে সফররত প্রধানমন্ত্রীকে যখন ‘ফালতু’ বলে তার পাগড়ি খুলে দিতে পারেন কংগ্রেসের সহ-সভাপতি, তখন নওয়াজ আর কে?” মোদী যখন জনসভায় ওই মন্তব্য করছেন, তখনও নিউ ইয়র্কে মনমোহন-নওয়াজ শীর্ষ বৈঠক শুরু হয়নি। সেটা মাথায় রেখেই মোদীর মন্তব্য, “এর পরে মনমোহন সিংহ কি পারবেন শরিফের সঙ্গে আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে কথা বলতে? তিনি তো কথা বলতেই ভুলে গিয়েছেন!” মোদী যে শুধু কংগ্রেসের নেতাদেরই নিশানা করেছেন, তা নয়।


 ঠারেঠোরে নিশানা করেছেন, ভারতের একটি টেলিভিশন চ্যানেলের এক সাংবাদিককেও। মোদী অবশ্য ওই সাংবাদিকের নাম নেননি। কিন্তু এ কথা বলতেও ভোলেননি, “আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে এ ধরনের মন্তব্য করার সময় যে সাংবাদিক সন্দেশ খাচ্ছিলেন, তার উচিত ছিল, সেই সন্দেশ ছেড়ে তখনই সেখান থেকে বেরিয়ে যাওয়া!” মনমোহন-নওয়াজ বৈঠকের আগে দুই দেশের দুই সাংবাদিক গোটা বিষয়টিতে জড়িয়ে যাওয়ায় বিষয়টি অন্য মাত্রা পায়। কারণ, মোদী গোটা বিষয়টি উস্কে দেয়ায় শুরু হয় নতুন বাক্যুদ্ধ।


হামিদ মীর পাকিস্তানের জিও টিভির কর্ণধার। কাতারের দোহায় ওসামা বিন লাদেনের সাক্ষাৎকারও নিয়েছিলেন তিনি। নওয়াজ তার প্রাতরাশে যে ক’জন সাংবাদিককে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন, তার মধ্যে হামিদ মীরের সঙ্গেই উপস্থিত ছিলেন এনডিটিভি’র বরখা দত্ত-ও। মনে করা হচ্ছে, বরখাকেই নিশানা করেছেন মোদী। যার ‘জবাব’ দিতে গিয়ে টুইটারে মোদীর উদ্দেশে বরখা বলেন, তার উপস্থিতিতে মনমোহনের প্রতি কোনো অশালীন শব্দ ব্যবহার করা হয়নি। একই সঙ্গে বিতর্কের জন্য হামিদের উপরেই দায় চাপিয়ে দিয়েছেন বরখা। 
বরখা নিজেও একটি টেলিভিশন সাক্ষাৎকার নিয়েছেন নওয়াজের। সেখানে মনমোহনকে ‘একজন ভালো মানুষ’ বলেই অভিহিত করেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী। পাকিস্তানের তরফেও সরকারি ভাবে কোনো রকম কটূ মন্তব্যের কথা অস্বীকার করা হয়েছে। আজ সকালে নওয়াজ শরিফের নির্দেশে ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা শিবশঙ্কর মেননকে ফোন করেন পাক বিদেশসচিব জলিল জিলানি। তিনি মেননকে বলেন, মনমোহন সম্পর্কে কোনো রকম অসম্মানসূচক মন্তব্য করেননি পাক প্রধানমন্ত্রী। প্রাতরাশ বৈঠকে ঠিক কী হয়েছিল, তার ব্যাখ্যা দিয়ে বরখা পরে টুইটারে দাবি করেন, ‘অফ-রেকর্ড’ নওয়াজ মনমোহন-ওবামা বৈঠক নিয়ে তার অসন্তোষ ব্যক্ত করেন।

বরখার দাবি, ওই বৈঠকের সূত্র ধরে নওয়াজ বলেছিলেন, ভারতের কোনো অসন্তোষ থাকলে তা পাকিস্তানকে সরাসরি বলা উচিত। আর সেখানেই নওয়াজ একটি উপমা টেনে একটি গল্প বলেন। নওয়াজের সেই গল্পে কোনও গ্রামে দু’জনের মধ্যে ঝগড়া রয়েছে। তার মধ্যে একজন আবার মহিলা। সেই গল্পের সারবস্তু হল, এ ধরনের কোনো বিবাদ হলে দু’জনের মধ্যেই তা মিটিয়ে নেওয়া উচিত। তৃতীয় পক্ষকে মধ্যস্থতা করার জন্য ডাকার কোনও প্রয়োজন নেই। বরখা বলেন, “হামিদ মির যখন অন্য টেলিভিশনে এ কথা বলছেন, শুনে আমি স্তম্ভিত। সাধারণত ‘অফ রেকর্ড’ আলোচনা নিয়ে রিপোর্টিং করা হয় না। তবে এটি যখন বাইরে এসেছে, তাই আমার অবস্থান জানালাম।” হামিদ মীর আবার টুইট করে পাল্টা দাবি করেন, “নওয়াজের সাক্ষাৎকার নেওয়ার প্রস্তুতি নিতে বরখা কিছুক্ষণের জন্য বাইরে গিয়েছিলেন। পরে ক্যামেরা নিয়ে ফিরে আসেন। তিনি সর্বক্ষণ ওখানে ছিলেন না।” কিন্তু হামিদের এই দাবির সঙ্গে একমত নন পাকিস্তান থেকে নওয়াজের সফরসঙ্গী হয়ে আসা অন্য সাংবাদিকরাই। তারাও এখন দুষছেন হামিদকে। তাদের মতে, হামিদ আদৌ নওয়াজের সফরসঙ্গী নন।

পাকিস্তানের ‘আজ টিভি’র সম্পাদক আফসা আলম নিউ ইয়র্ক প্যালেস হোটেলের আড্ডায় প্রকাশ্যেই বললেন, “শরিফের সঙ্গে প্রাতরাশ বৈঠকে আমরাও উপস্থিত ছিলাম। ভারতের প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী এ ধরনের মন্তব্য করেননি।” চার দিক থেকে এত বিবাদের পর হামিদ জানান, “মনমোহনের প্রতি নওয়াজ কোনও অপমানসূচক মন্তব্য করেননি।” নিউ ইয়র্কে হাজির পাক সাংবাদিকদের একটা অংশের আবার বক্তব্য, হামিদ মির আইএসআইয়ের ঘনিষ্ঠ। পাকিস্তানের এই গুপ্তচর সংস্থাটি আগাগোড়াই নওয়াজ-মনমোহন বৈঠকের বিরোধী। এবং সে কারণেই বৈঠক শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগে হামিদ মির সুকৌশলে ওই মন্তব্যটি ছড়িয়েছেন।


 কিন্তু মনমোহন বরাবরই চান, আলোচনার মাধ্যমে পরস্পরের বক্তব্য স্পষ্ট ভাবে তুলে ধরতে। তাই এই ধরনের ‘ছোট’ প্ররোচনাকে গুরুত্ব না দিয়ে নওয়াজের সঙ্গে আলোচনায় বসেছেন তিনি। কিন্তু তার পরেও ‘গ্রাম্য মহিলা’ মন্তব্য নিয়ে ধোঁয়াশা থেকেই যাচ্ছে। দিল্লিতে কংগ্রেসও যথেষ্ট বিব্রত। কারণ, এমনিতেই রাহুলের মন্তব্য নিয়ে অস্বস্তি কাটাতে তারা হিমশিম খাচ্ছে। তার উপর মোদী যে ভাবে মনমোহন-রাহুল ‘দ্বৈরথ’কে তুলে ধরতে নওয়াজ শরিফের মতো নতুন পাত্রকে রাজনৈতিক হাতিয়ার করেছেন, তাতে সমস্যা বেড়েছে। ফলে তড়িঘড়ি ময়দানে নামেন কংগ্রেসের মুখপাত্র অজয় মাকেন।

এক সাংবাদিক বৈঠকে মোদীকে পাল্টা নিশানা করে তিনি বলেন, “যে মোদী নিজেকে এত জাতীয়তাবাদী হিসেবে তুলে ধরেন, তিনিই আজ ভারতীয় সাংবাদিকের কথায় গুরুত্ব না দিয়ে পাকিস্তানকে ভরসা করছেন? মোদী তো নিজেই দেশের প্রধানমন্ত্রীর পাগড়ি খুলে দিলেন!” এক প্রাক্তন কূটনীতিক রসিকতা করে বলছিলেন, ক্রিকেটের পরিভাষায় বলে, ‘ক্যাচেস উইন ম্যাচেস’। ‘গ্রাম্য মহিলা’ নিয়ে যে খোঁচাটা উঠেছিল, তা অনবদ্য ভাবে লুফেছেন মোদী। কিন্তু ম্যাচ জিতবেন কি? তা সময়ই বলবে। সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।

বাগদাদের ৯ স্থানে একযোগে গাড়িবোমা হামলা: নিহত ২৫

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইরাকের রাজধানী বাগদাদের শিয়া মুসলমান অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে একযোগে নয়টি গাড়িবোমা হামলা চালানো হয়েছে। এসব হামলায় অন্তত ২৫ জন নিহত ও শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছে। কিছুক্ষণ আগের খবরে নিহতের সংখ্যা ১৭ জন বলে জানানো হয়েছিল। আহতদের মধ্যে বহু মানুষের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে প্রতি মুহূর্তে নিহতের সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে।

জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব মেনে নিবে সিরিয়া


আন্তর্জাতিক ডেস্ক: রাসায়নিক অস্ত্রভাণ্ডার ধ্বংস করে ফেলার ব্যাপারে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব সিরিয়া মেনে চলবে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ।

রোববার, দামেস্কে ইতালির সংবাদ ভিত্তিক আর এ আই টেলিভিশনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, তার সরকার কেবল রাসায়নিক অস্ত্র কর্মসূচি বাতিলের বিষয়ে নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাবনাকেই সমর্থন করে না, একই সাথে এই ধরনের অস্ত্র আইনবিরুদ্ধ ঘোষণা করে যে কোনো আন্তর্জাতিক সম্মেলনে অংশ গ্রহণের ব্যাপারেও আগ্রহী।

আসাদ আরো জানান, নিরাপত্তা পরিষদের সাম্প্রতিক প্রস্তাবনার আলোচনায় আসার আগেই আমরা রাসায়নিক অস্ত্র প্রতিরোধ সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক সম্মেলনে যোগ দিয়েছে। আমাদের সম্মতির ভিত্তিতেই রাশিয়া এই প্রস্তবানার আহ্বান জানিয়েছিল। ২০০৩ সালে মধ্যপ্রাচ্যকে রাসায়নিক অস্ত্র মুক্ত অঞ্চল করার ব্যাপারে আমরাই নিরাপত্তা পরিষদে প্রস্তাব তুলেছিলাম।

আসাদকে উতখাত করাই আমেরিকার লক্ষ্য:রাইস


আন্তর্জাতিক ডেস্ক: আমেরিকার জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা সুসান রাইস বলেছেন, সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদকে ক্ষমতা থেকে উতখাত করতে চায় হোয়াইট হাউজ।

মার্কিন টিভি চ্যানেল সিএনএন এর ফরিদ জাকারিয়াকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, সিরিয়ার বিষয়ে আমেরিকার অবস্থান খুবই পরিষ্কার; আর তা হলো, আসাদকে ক্ষমতা ছাড়তে হবে।

বাশার আল-আসাদ নিজ দেশে মারাত্মক সহিংসতা সৃষ্টি করেছেন এবং এ সহিংসতা মধ্যপ্রাচ্যে ছড়িয়ে পড়েছে এরকম ভিত্তিহীন ও বানোয়াট অভিযোগ করে সুসান রাইস আরো বলেন, আমেরিকা জোরালোভাবে মনে করে, আসাদ যদি শাসন ক্ষমতায় থাকেন তবে সিরিয়ার জন্য কোনো সুন্দর ভবিষ্যতে থাকবে না।

ওয়াশিংটন যখন সিরিয়া সরকারকে উতখাতের চেষ্টা করা হচ্ছে তখন সিরিয়ার রাসায়নিক অস্ত্র ধ্বংসে আমেরিকা কি করে প্রেসিডেন্ট আসাদের সহযোগিতা পাবে- এমন এক প্রশ্নের জবাবে এ সব কথা বলেন রাইস। তিনি আরো দাবি করেন, সিরিয়ার রাসায়নিক অস্ত্র ধ্বংস করা সংক্রান্ত জাতিসংঘের সর্বশেষ ইশতেহার কেবল আসাদ সরকারের জন্যেই প্রযোজ্য হবে না।


জাতিসংঘ আমেরিকার সাবেক রাষ্ট্রদূত রাইস আরো বলেন, সিরিয়ার বিষয়ে সব পথই আমেরিকা খোলা রেখেছে এবং রাসায়নিক অস্ত্র ধ্বংস করা সংক্রান্ত ইশতেহার দামেস্ক সঠিক ভাবে পালন না করলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র একক ভাবেই দেশটিতে সামরিক হামলা চালাবে।
অবশ্য, রাসায়নিক অস্ত্র ধ্বংস করতে ব্যর্থ হলে সে জন্য শাস্তিমূলক ব্যবস্থা হিসেবে সিরিয়ার ওপর সামরিক হামলার কোনো ব্যবস্থা জাতিসংঘ ইশতেহারে রাখা হয়নি।

দেশে ফিরলেন প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে ফিরেছেন। আটদিনের যুক্তরাষ্ট্র সফর শেষে এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি বিমানে তিনি আজ বিকেলে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরণ করেন। জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের সম্মেলনে অংশ নিতে তিনি যুক্তরাষ্ট্র গিয়েছিলেন। বিমানবন্দরে তাকে অভিনন্দন জানাতে অসংখ্য নেতাকর্মীরা জমায়েত হন। সাউথ-সাউথ পুরষ্কার অর্জন করায় তারা প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানান। বিমানবন্দরের ভিআইপি লাউঞ্জে প্রধানমন্ত্রী উপস্থিত সবার সামনে বক্তব্য রাখেন। এর আগে নিউইয়র্কের স্থানীয় সমায় সকাল ১১ টা ২০ মিনিটে জেএফকে এয়ারপোর্টে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ড. এ কে এ মোমেন, রাষ্ট্রদূত আকরামুল কাদেরসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। জাতিসংঘের ৬০৮তম সাধারণ অধিবেশনে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের নেতা হিসেবে ১৩৩ সদস্যবিশিষ্ট দল নিয়ে গত ২৩শে সেপ্টেম্বর নিউ ইয়র্ক যান শেখ হাসিনা। সফরের শুরুতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ও ফার্স্টলেডি মিশেল ওবামার দেয়া সংবর্ধনা সমাবেশে যোগ দেন তিনি।---ডিনিউজ

অর্থ পাচার মামলায় তারেকের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য গ্রহণ ৮ অক্টোবর

ঢাকা: বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুনের বিরুদ্ধে দুদকের দায়ের করা অর্থ পাচার মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ আগামী ৮ অক্টোবর ধার্য করেছেন আদালত। সোমবার বিশেষ জজ আদালত-৩ এর বিচারক মো. মোতাহার হোসেনের আদালতে ১৩তম সাক্ষী দুদকের পরিচালক এবং মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. ইব্রাহিমের সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য ধার্য ছিলো। সোমবার আইনজীবী অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া হাইকোর্টের আদেশের কপি জমা দেয়ার জন্য সময়ের আবেদন করলে আগামী ৮ অক্টোবর ফের দিন ধার্য করেন আদালত।---ডিনিউজ

রায় দেখে প্রতিক্রিয়া জানাবে বিএনপি


ঢাকা: আগামীকাল রায় দেখেই প্রতিক্রিয়া জানানো হবে বললেন, দলটির নীতিনির্ধারক নেতারা । বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ মামলার রায় হচ্ছে আগামীকাল। এনিয়ে দলের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত কোন অবস্থান পরিষ্কার করা হয়নি। ঘোষণা করা হয়নি কোন কর্মসূচি।  বিএনপির এ শীর্ষ নেতার রায় নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে রয়েছে দলটি।
 
এই বিচার সম্পর্কে বিএনপির স্থায়ী কমিটির  সদস্য লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান মানবজমিনকে বলেন, বিএনপি সব সময়ই যুদ্ধাপরাধের বিচারের পক্ষে। তবে আমরা আগেই বলেছি, বিচার হতে হবে স্বচ্ছ ও আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন। সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর রায়ের জন্য অপেক্ষা করবো। রায়ের পরেই দলের পক্ষ থেকে প্রতিক্রিয়া জানানো হবে।  এ ব্যাপারে বিএনপির দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেন, মানবতা বিরোধী অপরাধের বিচারটি সম্পূর্ণ প্রহসনমূলক বিচার। বিচারটি আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন হয়নি। প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতেই সরকার প্রহসনমূলক বিচার করছে। তবে সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ মামলার রায়ের জন্য অপেক্ষা করবো। আদালত কি রায় দেয় তা দেখে আমরা দলের অবস্থান জানাবো। 

তবে এর আগে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে জামায়াতের কয়েকজন শীর্ষ নেতার বিরুদ্ধে রায় হলেও কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি বিএনপি। তবে জামায়াতের পক্ষ থেকে রায়ের দিন ও রায়ের পরদিন হরতাল পালন করা হয়। গত ১৪ই আগস্ট শুনানি শেষে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমান রাখে ট্রাইব্যুনাল। ২০১০ সালের ২৬শে জুলাই তার বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে মামলা হয়। গাড়ি পুড়িয়ে যাত্রী হত্যার এক মামলায় ওই বছরের ১৬ই ডিসেম্বর এ সংসদ সদস্যকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এরপর ১৯শে ডিসেম্বর যুদ্ধাপরাধের অভিযোগেও তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।---ডিনিউজ

শেষ মুহূর্তে আসতে বাধ্য হবে বিএনপি

দিনারপুল(বরিশাল):  যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সিটি নির্বাচনের মতো শেষ মুহূর্তে জাতীয় নির্বাচনে আসতে বাধ্য হবে বিএনপি। আজ সোমবার দুপুরে বরিশাল (দিনারেরপুল)-লক্ষ্মীপাশা-দুমকি সড়কে গোমা, লক্ষ্মীপাশা ও বাহেরচর ফেরী উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত এক জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

দুমকি উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি মো: সুলতান আহমেদ হাওলাদারের সভাপিত্বে জনসভায় জাতীয় পার্টির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমীন হাওলাদার এমপি, কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান মিসেস নাসরিন জাহান রত্না এমপি, বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মো: ইউনুচ এমপি, বাকেরগঞ্জের উপজেলা চেয়ারম্যান মো: সামসুল আলম চুন্নু, পৌর মেয়র লোকমান হোসেন ডাকুয়া বিশেষ অতিথি ছিলেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব, বরিশাল ও পটুয়াখালীর জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারদ্বয়, সড়ক ও জনপদ বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, মহাজোট আছে, আমি বিশ্বাস করি জাতীয় পার্টি মহাজোটেই থাকবে। মন্ত্রী বলেন, আমি রাস্তার মন্ত্রী, রাস্তাতেই আমি থাকি, রাস্তাই আমার ঠিকানা।--ডিনিউজ

কানাইঘাটে ছাত্রদলের প্রস্তুতি সভা

Kanaighat News on Saturday, September 28, 2013 | 8:29 PM

নিজস্ প্রতিবেদক:
 আগামী ৫ অক্টোবর বিরোধী দলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সিলেটের মহাসমাবেশকে সফল করার লক্ষ্যে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল উপজেলা ও পৌর শাখার যৌথ উদ্যোগে এক প্রস্তুতি সভা আজ শনিবার বেলা ১টায় কানাইঘাট পূর্ব বাজারস্থ বিএনপির কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি খসরুজ্জামান পারভেজের সভাপতিত্বে এবং পৌর ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেনের পরিচালনায় প্রস্তুতি সভায় বেগম খালেদা জিয়ার সমাবেশকে সফল করার জন্য উপজেলার প্রতিটি বাজার এবং কলেজ পর্যায়ে ছাত্রদলের উদ্যোগে প্রচার মিছিল, গণসংযোগের কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়। সভায় উপস্থিত ছিলেন পৌর ছাত্রদলের সভাপতি রুহুল আমিন, সাধারণ সম্পাদক রুহুল আম্বিয়া, থানা ছাত্রদল নেতা রুহুল আমিন বাবলু, দেলোয়ার হোসেন, পৌর যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক মামুনুর রশিদ, কানাইঘাট ডিগ্রি কলেজ শাখা ছাত্রদল নেতা এইচ এম রানা, আব্দুল কুদ্দুস, আফজাল, রুহুল, তোফায়েল, সুহেল আহমদ, রাসেল, মিছবাহ, বিপি সিং প্রমুখ। এছাড়া বেগম খালেদা জিয়ার জনসমাবেশ কে সফল করার জন্য কানাইঘাট উপজেলা বিএনপি, যুবদল, কৃষকদল, স্বেচ্ছাসেবকদল, শ্রমিকদল, উলামা দল, ছাত্রদল ও জাসাস অঙ্গসংগঠনের উদ্যোগে ব্যাপক কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়েছে।

গোপনে প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও!

নিউইয়র্ক সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গোপন ভিডিও করতে গিয়ে ধরা পড়েছেন তারই সফরসঙ্গী বাংলাদেশি এক নারী সাংবাদিক। নিউইয়র্কের গ্র্যান্ড হায়াত হোটেলে শুক্রবার এই ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে সফরসঙ্গী সাংবাদিকদের মধ্যে নানা আলোচনা-সমালোচনা চলছে। এর আগের দিনই প্রধানমন্ত্রীর 'ভাষণের প্যাকেট' নিয়ে তুলকালাম ঘটেছিল। তার রেশ কাটতে না কাটতেই নতুন করে 'গোপন ক্যামেরা'র খবরে বিব্রত এখন সফরসঙ্গী সাংবাদিকেরা।
বিশ্বস্ত একটি সূত্র জানায়, বাংলাদেশি প্রতিনিধি দলের সাথে থাকা বেসরকারি একটি টেলিভিশন চ্যানেলের একজন নারী সাংবাদিক প্রধানমন্ত্রীর সাথে তার কথোপকথন গোপনে রেকর্ড করেছেন- এমন অভিযোগ উঠার পরই আলোচনা ডালপালা মেলে।
সূত্রটি আরো জানায়, পূর্বানুমতি নিয়ে শুক্রবার দুপুরে ওই নারী সাংবাদিক সাক্ষাতের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কক্ষে যান। তার সাথে শেখ হাসিনা অনানুষ্ঠানিক অনেক কথাবার্তাও বলেন। কথাবার্তার এক পর্যায়ে ওই সাংবাদিক তার সাথে থাকা ভিডিও ক্যামেরাটি গোপনে চালু করে দেন। বিষয়টি বুঝতে পেরে প্রধানমন্ত্রীর প্রটোকল কর্মকর্তারা তাতে বাধ সাধেন। কারণ ওই সাংবাদিক বক্তব্য গ্রহণ বা রেকর্ড করার অনুমতি নেননি।
প্রধানমন্ত্রীর কক্ষ থেকে বেরিয়ে আসার পর ওই নারী সাংবাদিকের ভিডিও ক্যামেরা পরীক্ষা করা হয়। ওই ভিডিওতে প্রধানমন্ত্রীর সব অনানুষ্ঠানিক কথাবার্তার রেকর্ড পাওয়া যায়। পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রটোকল কর্মকর্তারা ওই নারী সাংবাদিকের ধারণ করা ভিডিও টেপটিও জব্দ করেন।
এর আগে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণ সংবলিত একটি বাক্স (প্যাকেট) নিয়ে নিউইয়র্ক সিটিতে তুলকালাম কাণ্ড ঘটেছিল এর আগের দিনই। বিস্ফোরক সন্দেহে জাতিসংঘের পাশেই অবস্থিত সেকেন্ড অ্যাভিনিউ বন্ধ করে দেওয়া হয়।  সিকিউরিটি ফ্রিজিং জোন হিসেবে পরিচিত এলাকায় পরিস্থিতি মোকাবিলায় ছুটে আসে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।
সেকেন্ড এভিনিউ ও ৪৩ স্ট্রিটে অবস্থিত জাতিসংঘে বাংলাদেশ মিশনের সামনেই বৃহস্পতিবার এ ঘটনার সূত্রপাত। এসময় ছুটে আসে পুলিশের বিশেষ স্কোয়াড, এফবিআই, এন্ট্রি টেরোরিজম টাস্ক ফোর্সের বিশেষ বাহিনী, দমকল, প্রশিক্ষিত ডগ স্কোয়াড ও অ্যাম্বুলেন্স।---পরিবর্তন 

১১ অক্টোবর পর্যন্ত আল্টিমেটাম

সুন্দরবন রক্ষায় রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্প বাতিল এবং জাতীয় কমিটি ঘোষিত সাত দফা বাস্তবায়নের দাবিতে লংমার্চ  রামপালের দিগরাজে। লংমার্চে সুন্দরবন ঘোষণা দিয়েছে জাতীয় কমিটি। জাতীয় কমিটির পক্ষে অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ শনিবার বিকেলে এ ঘোষণা দেন। ঘোষণায় সরকারের প্রতি সাত দফা দাবি পেশ করা হয়েছে। দাবি মানা না হলে আরো কঠিন আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে।
অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ পরিবর্তন ডট কমকে বলেন,“১১ অক্টোবরের মধ্য প্রকল্প বাতিল করা না হলে ১২ অক্টোবর থেকে নতুন কর্মসূচি ঘোষণা দেওয়া হবে।”
তিনি সরকারের কঠোর সমালোচনা করে বলেন,“সরকার দায়ছাড়া ভাবে কাজ করে যাচ্ছে, এটা কোন দায়িত্বশীল সরকারের কাজ না।”
তিনি সরকারকে হুঁশিয়ার করে বলেন,“২২ অক্টোবর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করা হলে জনগণ তা উপড়ে ফেলবে।”
মঙ্গলবার সকাল ১০টায় রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে লংমার্চ বহর যাত্রা শুরু করে। লংমার্চ শেষ করে ঢাকা আসছে অংশগ্রহণকারীরা।--পরিবর্তন

ইরাকি কারাগারে বন্দী ৭৯ বাংলাদেশি

ডেস্ক রিপোর্ট: ইরাকের কুর্দিস্তান প্রদেশের রাজধানী সুলাইমানির বন্দিশিবিরে আটক রয়েছেন ৭৯ বাংলাদেশি। ইরাকে অনুপ্রবেশের অভিযোগে বিনা বিচারে মাসাধিকাল ধরে তারা সেখানে আটক রয়েছেন। বৃহস্পতিবার কুর্দিস্তানের স্থানীয় ইংরেজি অনলাইন সংবাদমাধ্যম রুদাওয়ের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। আটক বাংলাদেশিরা আশঙ্কা করছেন, তাদের ইরানে পাঠানো হতে পারে। তবে কারাপ্রধান হিয়া শেখ আলী বলেছেন, আটক ব্যক্তিদের সবাইকে দেশে পাঠানোর ব্যাপারে আদালতের আদেশের অপেক্ষায় আছি।
আমরা তাদের থাকা-খাওয়ার প্রয়োজনীয় সবকিছুই দিচ্ছি। কুর্দিস্তানের স্থানীয় ইংরেজি অনলাইন সংবাদমাধ্যম রুদাও তাদের প্রতিবেদনে আটক ৩ বাংলাদেশির বক্তব্য প্রকাশ করেছে। ওই ৩ বাংলাদেশি হলেন- আমজাদ আলী, মুহাম্মদ আতিক ও শামসু মিয়া। আমজাদ আলী জানান, ৮ মাস ধরে তারা আটক রয়েছেন। তিনি বলেন, বাড়ি বিক্রি করে এখানে এসেছি টাকা কামানোর আশায়। তিনি বলেন, প্রতিদিনই তারা আদালতে পাঠানোর কথা বলে, কিন্তু পাঠায় না। এখন শুনছি আমাদের ইরান পাঠানোর চিন্তা করছে তারা। এদিকে সুলাইমানি পুলিশ জানিয়েছে, তারা এ পর্যন্ত ১৮০ জন বাংলাদেশিকে আটক করেছে। তাদের অধিকাংশকেই দেশে পাঠানো হয়েছে। কেউ আবার বিভিন্ন কোম্পানিতে কাজ নিয়ে ওই দেশে থাকার সুযোগ পেয়েছেন।---ডিনিউজ

চুনারুঘাট থেকে অপহৃত স্কুল ছাত্র কানাইঘাটে উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক:
হবিগঞ্জের চুনারুঘাট থেকে অপহৃত স্কুল ছাত্র দীপ্ত কানাইঘাটে উদ্ধার। হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট উপজেলার এক স্কুল ছাত্রকে গত বৃহস্পতিবার অপহরণের পর আজ শুক্রবার কানাইঘাট চতুল বাজার থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। জানা যায়, চুনারুঘাট উপজেলার চন্ডিছড়া চা-বাগানের কর্মকর্তা স্থানীয় শাসন গ্রামের সিবেন্দ চক্রবর্তীর পুত্র চুনারুঘাট দক্ষিণাচরণ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্র দীপ্ত চক্রবর্তী (১৫) সে গত বৃহস্পতিবার স্কুল থেকে ফেরে বিকাল ২টায় চন্ডিছড়া মাজারে যাবার উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বের হয়। দীপ্ত জানায়, একা একটি সিএনজিতে উঠলে পথে যাত্রীবেশী দু’জন অজ্ঞাতনামা লোক সিএনজিতে উঠে এবং এক পর্যায়ে কৌশলে তাকে নেশা জাতীয় কিছু খাইয়ে অজ্ঞান করে হানিফ পরিবহনে তুলে ঢাকায় নিয়ে যায়। সেখান থেকে পুনরায় আজ শুক্রবার ভোরের দিকে একই পরিবহনে তাকে অজ্ঞাতনামারা সিলেট কদমতলী বাসস্ট্যান্ডে ফেলে রেখে যায়। পরে তাকে এলোমেলো ভাবে ঘুরতে দেখে কানাইঘাটের দুই যুবক হোটেলে চাকুরী দেওয়ার নাম করে কানাইঘাটের চতুল বাজারে আজ বিকাল ২টার দিকে নিয়ে আসে। এক পর্যায়ে দ্বীপ্ত মোবাইল ফোনে তার বাবা সিবেন্দ চক্রবর্তীকে তার অবস্থানের বিষয়টি অবহিত করে। বিষয়টি তাৎক্ষণিক দীপ্তের আত্মীয়-স্বজনরা কানাইঘাট থানা পুলিশকে জানালে থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আউয়াল চৌধুরী বিকাল ৫টায় চতুল বাজারে এক অভিযান চালিয়ে একটি রেস্টুরেন্ট থেকে স্কুল ছাত্র দ্বীপ্তকে উদ্ধার করেন। ওসি জানান, দ্বীপ্তকে অপহরণ করা হয়েছে কিনা অথবা কেউ তাকে ফুঁসলিয়ে এমন ঘটনা ঘটিয়েছে কিনা তা তদন্তকরে দেখা হচ্ছে। দীপ্তকে তার আত্মীয়-স্বজনের জিম্মায় দেওয়া হবে। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত দীপ্তের আত্মীয়-স্বজন কানাইঘাট অবস্থান করছিলেন। 

কুড়িগ্রামে প্রধানমন্ত্রীর ৬৭তম জন্মদিন পালন

কুড়িগ্রাম: কুড়িগ্রামে প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার ৬৭তম জন্মদিন পালন করেছে জেলা ছাত্রলীগ। সকালে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যলয়ে আনুষ্ঠানিক ভাবে জন্মদিনের কেক কাটা, মিষ্টি বিতরণ ও শেখ হাসিনার বর্ণাঢ্য জীবনি আলোচনার মধ্যদিয়ে দিবসটি পালন করা হয়। এ সময়  বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক পিপি এ্যাডভোকেট আব্রাহাম লিংকন, আওয়ামীলীগ নেতা সালে আহমেদ মজনু, কাজিউল ইসলাম, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আইয়ুব আলী প্রমূখ। বক্তরা আগামী সংসদ নির্বাচনে পূনরায় জননেত্রী শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় আনার জন্য সকলকে কাজ করার আহবান জানান ও শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করেন। ---ডিনিউজ

মাধবপুরে অস্ত্রসহ ৪ ডাকাত আটক

মাধবপুর (হবিগঞ্জ): হবিগঞ্জের মাধবপুর থানা পুলিশ ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ঢাকা-সিলেট মাহসড়কের নোয়াপাড়া বাসষ্ট্যান্ড সাহেব বাড়ি এলাকা থেকে শনিবার ভোর রাতে দেশীয় অস্ত্র সহ আন্তঃজেলা ডাকাতদলের ৪ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে মাধবপুর থানার পুলিশ উল্লেখিত এলাকায় অভিযান চালিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার ব্রাহ্মণশাসন গ্রামের মুজিবুরের ছেলে হাফিজুল (২৫) একই গ্রামের আব্দুল বাছিদের ছেলে আলমগীর (২০), নুর পুর গ্রামের কাচা মিয়ার ছেলে রফিক (২৫) ও মাধবপুর উপজেলার ছাতিয়াইন গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে সুমন মিয়া (২০)।  ওসি অমল কুমার ধর জানান, ধৃতদের বিরুদ্ধে একাধিক ডাকাতির মামলা রয়েছে। ---ডিনিউজ

সাতক্ষীরায় এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা


সাতক্ষীরা: জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধে ৬০ উর্দ্ধো রজব আলী ঢালি নামের এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষ। সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আখড়াখোলা গ্রামে শনিবার বেলা ১২ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। 
স্থানীয়দের বরাত দিয়ে সাতক্ষীরা সদর থানার ওসি শাহজাহান আলি খান জানান, আখড়াখোলা গ্রামের রজব আলী ঢালি’র সাথে প্রতিবেশি এনায়েত ঢালি’র জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। 
এ নিয়ে সকালে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। এক পর্য়ায়ে রজব আলী ঢালিকে পিটিয়ে হত্যা করে প্রতিপক্ষরা। 
তিনি জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। সন্ধ্যায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় কোন মামলা হয়নি বলে জানা গেছে। ---ডিনিউজ

শেরপুরে পলিটেকনিক শিক্ষার্থীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ

শেরপুর: পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট এর কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে শনিবার দুপুরে শেরপুর পলিটেকনিকের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল চলাকালে পলিটেকনিকের ভিতর ভাংচুর শুরু করে শিক্ষার্থীরা। এসময় পলিটেকনিকের বাইরে অবস্থানরত পুলিশ পলিটেকনিকের ভিতরে ঢুকে লাঠি চার্জ করেন বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীদের উপর। এতে বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা আরো বিক্ষুদ্ধ হয়ে পুলিশের উপর হামলা চালায়। সেইসাথে তারা পলিটেকনিকের নিজস্ব মাইক্রোবাসসহ ল্যাবরোটরি কক্ষ, বিভিন্ন কক্ষের সকল দরজা-জানালা, আসবাবপত্র মূল্যবার জিনিসপত্র ভেঙ্গে চুরমার করে ফেলে। এরপর তারা পলিটেকনিকের ৫ তলার ছাদের উপর উঠে পলিটেকনিকের সামনে ঢাকা-শেরপুর মহাসড়কের পার্শ্বে অবস্থানরত পুলিশের উপর বৃষ্টির মতো ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। এদিকে পলিটেকনিকের বাইরে অবস্থানরত আশপাশের বিভিন্ন মেচের শিক্ষার্থীরাও সংগবব্ধ হয়ে রাস্তায় অবস্থানরত পুলিশকে লক্ষ করে রাস্তার দুই প্রান্ত থেকে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ ও লাঠি-সোটা নিয়ে পুলিশের উপর হামলা চালায়। এসময় পুলিশ প্রথমে টিয়ারসেল এবং পরে সর্টগানের গুলি (রাবার বুলেট) নিক্ষেপ করতে থাকে। এতে ওই এলাকা রণক্ষেত্র পরিনত হয়। এভাবে প্রায় ৪ ঘন্টা চলে থেমে থেমে সংর্ঘষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা। অবশেষে অতিরিক্ত পুলিশ এসে পলিটেকনিকের ভিতরে অবস্থানরত শিক্ষার্থীদের লক্ষ করে মুহুমুহু রাবার বুলেট, ছুড়তে ছুড়তে পলিটেকনিকের ভিতরে প্রবেশ করে পরিস্থিতির নিয়ন্ত্রণ নেয় পুলিশ। এতে বিক্ষুদ্ধ শক্ষার্থীরা পিছু হটে পলিটেকনিকের পেছন দিয়ে পালাতে থাকে। পুলিশের ব্যাপক তল্লশি ও অভিযান চালিয়ে পলিটেকনিকের ভিতরের বিভিন্ন কক্ষ থেকে শাতাধিক শিক্ষার্থীকে আটক করে। এসময় পুলিশ শিক্ষাথীদের কাছ থেকে অসংখ্য হাতুরি, দা, বটিসহ বিভিন্ন ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করে। এদিকে পুলিশ ও শিক্ষার্থীদের সংর্ঘষের সময় পুলিশের রাবার বৃুলেট ও ইটের আঘাতে শেরপুরের সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) মো. সালাহ উদ্দিন সিকদারসহ প্রায় ৩০ জন পুলিশ সদস্য এবং আরো প্রায় ২০ জন শিক্ষার্থীসহ অর্ধশত জন আহত হয়। এদিকে পলিটেকনিকের বাইরের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে শহর থেকে আরো পুলিশ এবং র‌্যাব আসলে পরিস্থিতি নিযন্ত্রনে আসে। সকাল ১১টা থেকে শুরু হওয়া ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া শেষ হয় বিকাল ৩টায়। এজন্য ৪ ঘন্টা ঢাকাÑশেরপুর যান চলাচল বন্ধ থাকে। এদিকে এ সংর্ঘষ ও ভাংচুরের ঘটনায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের দাবী, পুলিশ তাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসুচী চলাকালে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর বিনা উস্কানিতে লাঠি চার্জ করেছে। অপরদিকে শেরপুরের সহকারী পুলিশ সুপার মো. সালাহউদ্দিন সিকদার দাবী করেছে, শিক্ষার্থীরা প্রথমে পলিটেকনিকের দারজা-জানালা ভাংচুর এবং বাইরে সড়ক অবরোধ করার চেষ্টা করলে পুলিশ বাধা দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে শিক্ষার্থীরা প্রথমে পুলিশের উপর হামলা চালালে আত্মরক্ষায় পুলিশ প্রথমে টিয়ার সেল এবং পরবর্তিতে বাধ্য হয়ে রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে।---ডিনিউজ

রোববার রাজশাহীর চার জেলায় শিবিরের সকাল-সন্ধ্যা হরতাল


রাজশাহী: পাবনা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ এবং নাটোর জেলায় রোববার সকাল সন্ধ্যা হরতালের ডাক দিয়েছে ছাত্রশিবির। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারী সাইফুদ্দিন ইয়াহিয়াসহ আটক শিবিরের ৮ নেতাকর্মীর গ্রেফতারের প্রতিবাদ ও  মুক্তির দাবিতে শনিবার দুপুরে এর হরতালের ডাক দেয় শিবির। শনিবার দুপুরে রাবি শাখা শিবিরের প্রচার সম্পাদক মহসিন আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 
এদিকে, হরতালের সমর্থনে দুপুরের পর নগরীর বেশ কয়েকটি পয়েন্টে শিবির কর্মীরা মিছিল বের করলে ফাঁকা গুলি, রাবার বুলেট ও টিয়ার শেল ছুঁড়ে পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ ঘটনায় অন্তত: ৫ জন আহত হয়েছেন। তবে জড়িত কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।   
এক ই-মেইল বার্তায় শিবির জানায়, রাবি ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারী সাইফুদ্দিন ইয়াহইয়া সহ আটক শিবির নেতা-কর্মীদের মুক্তি এবং অস্ত্র উদ্ধারের সাজানো নাটকের প্রতিবাদে রোববার রাজশাহী অঞ্চল ছাত্রশিবিরের আহবানে রাজশাহী, নাটোর, পাবনা ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের চারজেলার সকাল-সন্ধ্যা সর্বাত্বক হরতাল পালন করা হবে। রাজশাহী, নাটোর, পাবনা ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের চার জেলার দায়িত্বশীলদের যৌথ বৈঠক শেষে এ হরতালের স্বীদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
ওই বিবৃতি উল্লেখ করা হয়, ফ্যাসীবাদী সরকার প্রশাসনের দলীয় ক্যাডার দিয়ে নিরপরাধ শিবির নেতা-কর্মীদের আটক করে জুলুম-নির্যাতন ও অস্ত্র উদ্ধারের নাটক সাজানোর মাধ্যমে তাদের ইসলাম বিদ্বেষী মনোভাব জনগণের সামনে প্রস্ফুটিত করছে। নেতৃবৃন্দ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে দলীয় ক্যাডারের ভূমিকা পালন না করে নিরপেক্ষ মনোভাব নিয়ে জনগণের জানমাল রক্ষায় দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখতে আহবান জানান। শিবির নেতৃবৃন্দ রাবি ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারী সাইফুদ্দিন ইয়াহইয়া সহ আটক শিবির নেতা-কর্মীদের মুক্তি এবং অস্ত্র উদ্ধারের সাজানো নাটকের প্রতিবাদে ডাকা স্বতস্ফুর্ত হরতাল পালনে রাজশাহী, নাটোর, পাবনা ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের চারজেলার সর্বস্তরের মানুষকে আহ্বান জানান নেতারা। 
এদিকে, রাজশাহী নগরীতে হরতালের সমর্থণে বের করা নগর ছাত্রশিবিরের মিছিলে গুলি চালিয়েছে পুলিশ। শনিবার বেলা সোয়া ২টার দিকে নগরীর তালাইমারি এলাকায় রোববারের হরতালের সমর্থণে ছাত্রশিবিরা মিছিল বের করলে পুলিশ বারাব বুলেট, টিয়ার শেল ও ফাঁকা গুলি চালিয়ে শিবির কর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এতে অন্তত: ৫ শিবির কর্মী আহত হয়েছেন বলে দাবি করেছেন নগর শিবিরের ভারপ্রাপ্ত অফিস সম্পাদক এমএম মালেক। তাৎক্ষনিকভাবে আহতদের নাম-পরিচয় জানাতে পারেননি তিনি। তবে আহতদের বিভিন্ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ওই শিবির নেতা। এছাড়া নগরীর কাটাখালি, বায়া বিমানবন্দরসড়কসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় হরতালের সমর্থণে মিছিল করেছে শিবির কর্মীরা। 
নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিয়াউর রহমান জিয়া জানান, শিবির কর্মীরা হরতালের সমর্থণে মিছিল বের করার চেষ্টা করলে প্রায় ৪০ রাউন্ড বাবার বুলেট ও টিয়ার শেল ছুঁড়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়া হয়। পরে এ ঘটনায় জড়িতদের আটকে ওই এলাকায় তল্লাশি অভিযান চালানো হয়। তবে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি বলে জানান ওসি। 
অন্যদিকে, রোববারের হরতালকে কেন্দ্র করে আগের দিন নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। জোরদার করা হয়েছে র‌্যাব-পুলিশের টহল। সব সধরণের নাশকতা এড়াতে পুলিশী তৎপরতা অব্যহত রয়েছে বলে রাজশাহী মহানগরের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কমিশনার সরদার তমিজউদ্দিন আহমদ জানান। হরতালকে কেন্দ্র করে নগরীতে কোন ধরণের নাশকতা সৃষ্টির চেষ্টা বরদাশত করা হবেনা বলে জানান তিনি। 
উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার ভোর রাতে রাজশাহী নগরীর মালোপাড়া এলাকায় অবস্থিত শিবির পরিচালিত কনটেস্ট কোচিং সেন্টার থেকে রাবি শিবিরের সেক্রেটারীসহ ৮ নেতাকর্মীকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করে র‌্যাব। ওইদিনই শিবিরের পক্ষ থেকে শনিবারের মধ্যে নেতার্মীদের মুক্তি না দিলে রোববার হরতালের হুমকি দেয়া হয়। ---ডিনিউজ

রাবি ছাত্রলীগের আনন্দ র‌্যালি


রাবি: প্রধান মন্ত্রী ও  আওয়ামী লীগ সভানেত্রি  শেখ হাসিনার ৬৭ তম জন্ম দিন উপলক্ষ্যে আনন্দ্য র‌্যালি করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ। শনিবার বেলা ১২টার বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন ঢাকা-রাজশাহী তার এ কর্মসূচি পালন করে। র‌্যালিটি  বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক থেকে শুরু হয়ে কাজলা গেটে এসে শেষ হয়।
র‌্যালীতে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের অন্যতম সদস্য ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের (রাসিক) সদ্য সাবেক মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, রাজশাহী মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক জেডুসরকার, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি এম. মিজানুর রহমান রানা, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য সাইদুল ইসলাম রুবেল, ফিরোজ সরকার, মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মীর তৌহিদুর রহমান কিটু, মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক মীর ইশতিয়ার আহমেদ, অর্নাজামানসহ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের অসংখ্য নেতাকর্মী। 
উল্লেখ্য বাংলাদেশের স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান ও বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জ্যেষ্ঠ সন্তান শেখ হাসিনা ১৯৪৭ সালের এই দিনে(২৮ সেপ্টেম্বর ) গোপালগন্জের মধুমতি নদী তীরবর্তি প্রত্যন্ত পাড়াগাঁ টুঙ্গিপাড়ায় জন্ম গ্রহন করেন। তার ডাক নাম হাসু। তিনি বর্তমানে জাতিসংষ সাধারণ পরিষদের ৬৮তম অধিবেশনে যোগদান উপলক্ষে নিউইয়র্কে অবস্তান করছেন।---ডিনিউজ

মুর্তি পূজা নিয়ে কটাক্ষ করে হিন্দু নেতার বক্তব্যে আগৈলঝাড়ায় তোলপার


আগৈলঝাড়া (বরিশাল): সারাদেশে ধর্মীয় মূল্যবোধে আস্তিক আর নাস্তিক নিয়ে বয়ে যাওয়া ঝড়ের মধ্যে আগৈলঝাড়ায় মুর্তি পূজা নিয়ে শতাধিক লোকের প্রকাশ্য সভায় চরম কটাক্ষ করে এক হিন্দু আওয়ামীলীগ নেতা বক্তব্য দেয়ায় আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে হিন্দু সম্প্রদায়সহ বিভিন্ন সম্প্রদায় ও রাজনৈতিক দলের মধ্যে। 
আমি মুর্তি পূজায় বিশ্বাস করিনা। এছাড়াও মূর্তি পূজা সম্পর্কে বিভিন্ন মতবাদ ব্যক্ত করলে তোপের মুখে ব্যাক্তিগত মতামত বলে চালিয়ে দিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক, ভেগাই হালদার পাবলীক একাডেমীর প্রধান শিক্ষক ও বাকাল ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান যতিন্দ্র নাথ মিস্ত্রী।  
 হিন্দু ধর্মের প্রধান উৎসব শারদীয়া  দূর্গা পূঁজা ও পরবর্তি অনুষ্ঠান উদযাপন উপলক্ষে এক প্রস্তুতি সভায় গত শুক্রবার বিকেলে শ্রীমতি মাতৃ মঙ্গল বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয় হল রুমে হিন্দু ধর্মীয় পূঁজা ও অনুষ্ঠান উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি বার পাইকা স্কুলের প্রধান শিক্ষক শুনিল কুমার বাড়ৈর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিতে গিয়ে একথা বলেন। তাৎক্ষনিক এর প্রতিবাদ করেন ওই সভায় উপস্থিত একই স্কুলের সাবেক শিক্ষক ও আওয়ামী লীগের সাবেক আহ্বায়ক অরুণ কৃষ্ণ হালদার, বিএম কলেজের সাবেক অধ্যাপক ও আওয়ামী লীগ নেতা ড. নীল কান্ত বেপারীসহ অন্যান্য হিন্দু নেতৃবৃন্দ। এপ্রসঙ্গে ড.নীল কান্ত বেপারী এ প্রতিনিধিকে বলেন, হিন্দু ধর্মের লোকজন তাদের হাজারো বছরের ধর্মিয় সাংস্কৃতি আর ঐতিহ্য নিয়ে যে পূজা অর্চনা করে আসছে যতীন তাতে চরম আঘাত করেছেন। এতে এবারের অনুষ্ঠিতব্য ১৪১টি পূজা মন্ডপের উপস্থিত হিন্দু নেতৃবৃন্দর মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তার মত একজন দ্বায়িত্বশীল লোক একটি পূজার মিটিংএ প্রকাশ্যে এভাবে কথা বলতে পারেনা। ওই সভার সভাপতি শুনীল কুমার বাড়ৈ বলেন, তিনি যা বলেছেন তা তার ব্যাক্তিগত মতামত। তবে ওই সভায় এভাবে তার মতামত বলা ঠিক হয়নি। ---ডিনিউজ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া মহিলা সরকারী কলেজের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল-মানববন্ধন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া: ব্রাহ্মণবাড়িয়া মহিলা সরকারী কলেজের শিক্ষকদের অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে কলেজের শিক্ষার্থীরা। শনিবার দুপুরে তারা আন্দোলনে নামে। ‘দুর্নীতিমুক্ত কলেজ চাই, স্বাধীন ভাবে পড়তে চাই’- এ শে¬¬াগানকে সামনে রেখে দুপুরে কলেজ ক্যাম্পাস থেকে শিক্ষার্থী তানজিনা, স্মৃতি, মুন্নি, সাজেদা, কানিছ ফাতেমার নেতৃত্বে এক বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে প্রেসক্লাবের সামনে এসে মানববন্ধন করে। মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন, কলেজের শিক্ষকদের নিকট ইংরেজী, গণিত, রসায়ন, পদার্থ, হিসাব বিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিষয় প্রাইভেট না পড়লে ফেল করিয়ে দেয়া হয়। আর প্রাইভেট যারা পড়ে তাদের অগ্রিম প্রশ্নপত্র দিয়ে দেয়া হয়। সরকারী নিয়মমতে কলেজে পরীক্ষা নেয়া হয়না। নিজেদের মনগড়া মত পরীক্ষা নেয় কলেজ প্রশাসন। শিক্ষকরা অতিরিক্ত টাকা নিয়ে সাজেশন বিক্রি করে। এতে করে অনেক দরিদ্র-অসহায় শিক্ষার্থীর পক্ষে সাজেশন কেনা সম্ভব হয়না। যার ফলে বেশির শিক্ষার্থীদের ফলাফল ভাল হয়নি। এইসব দুর্নীতির কারনে আমাদের কলেজের ফলাফল প্রতি বছর দেশের অন্যান্য কলেজ তুলনায় খুবই খারাপ হচ্ছে। বিষয়টি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফুল¬ চন্দ্র দেবনাথকে বার বার অবহিত করলেও তিনি বিষয়টি নিয়ে টালবাহানা করছেন। এ ব্যাপারে কলেজের উপাধ্যক্ষ আব্দুস সোবহাসের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা হবে।---ডিনিউজ

পাকিস্তানে ভূমিকম্পে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৫১৫ ত্রাণ কাজে সেনাবাহিনী


আন্তর্জাতিক ডেস্ক : পাকিস্তানের বেলুচিস্তান প্রদেশের আওয়ারান ও কেচ জেলায় ভয়াবহ ভূমিকম্পে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৫১৫ জনে দাঁড়িয়েছে। এ সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। পাকিস্তানের জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের দেয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, আহতের সংখ্যা ৭৬৫; ভূমিকম্পে নিহতদের মধ্যে রয়েছে নারী ও শিশু।

ভূমিকম্পের ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তার জন্য পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় ও প্রাদেশিক সরকার এবং সেনাবাহিনী একযোগে আহ্বান জানিয়েছে। গতকাল (শুক্রবার) সেনাবাহিনীর ত্রাণবাহী হেলিকপ্টারের ওপর হামলা সত্ত্বেও এ আহ্বান জানানো হলো। গতকাল পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী চৌধুরী নিসার আলী খানসহ কয়েকজন মন্ত্রী, বিরোধীদলের ‌নেতা এবং শীর্ষ পর্যায়ের সেনা কর্মকর্তারা ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। এসময় তারা প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের পক্ষ থেকে ত্রাণ কাজের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ দেয়ার কথা ঘোষণা করেন। চৌধুরী নিসার জানান, নিউ ইয়র্ক থেকেই প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্তদের খোঁজ-খবর নিচ্ছেন এবং ত্রাণ ততপরতার প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিচ্ছেন।

পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী শাহবাজ শরীফ ঘোষণা করেছেন- আওরান জেলার বেকার ইঞ্জিনিয়ার ও গ্রাজুয়েটদের চাকরির ব্যবস্থা করবেন তার রাজ্যে। এছাড়া, তিনি সরাসরি অর্থ সহায়তারও ঘোষণা দেন। আর সিন্ধুর মুখ্যমন্ত্রী পাঁচ কোটি রুপি অর্থ সহায়তা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। এদিকে, গত মঙ্গলবার ভূমিকম্প আঘাত হানার পর এ পর্যন্ত আওয়ারান ও আশপাশের এলাকায় ১৫ বার আফটার শক অনুভূত হয়েছে। গতকালও আফটার শক অনুভূত হয়।

মুম্বইয়ে ভবন ধসে নিহত বেড়ে ২৫


ঢাকা: ভারতের মুম্বইয়ে ৫ তলা ভবন ধসের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২৫ জনে দাঁড়িয়েছে। ধ্বংসস্তূপের তলা থেকে এ পর্যন্ত উদ্ধারকর্মীরা ৩২ জনকে জীবিত উদ্ধারে সক্ষম হয়েছেন। আহতদের স্থানীয় বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা এপি। গতকাল সকালের দিকে ডকইয়ার্ড রোডের কাছে বহুতল ভবনটি ধসে পড়ে। উদ্ধারকাজ পরিচালনার ১২ ঘন্টার মাথায় ছোট একটি মেয়েকে উদ্ধার করা হয়েছে। শ’ শ’ উদ্ধারকর্মী লোহার বাঁকানো রড, হাতুড়ি ও ভারি যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে উদ্ধারকাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। রাতের দিকে আরও কিছু মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। মুম্বইয়ে ৬ মাসের মধ্যে এটি তৃতীয় ভবন ধসের ঘটনা।

 এর আগে গত এপ্রিলে মুম্বইয়ে অবৈধভাবে নির্মিত একটি বহুতল ভবন ধসে ৭২ জন প্রাণ হারিয়েছিলেন। গত জুনে একটি ৩ তলা ভবন ধসে ৫ শিশুসহ প্রাণ হারিয়েছিলেন ১০ জন।---ডিনিউজ
 
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো:মহিউদ্দিন,সম্পাদক : মাহবুবুর রশিদ,নির্বাহী সম্পাদক : নিজাম উদ্দিন। সম্পাদকীয় যোগাযোগ : শাপলা পয়েন্ট,কানাইঘাট পশ্চিম বাজার,কানাইঘাট,সিলেট।+৮৮ ০১৭২৭৬৬৭৭২০,+৮৮ ০১৯১২৭৬৪৭১৬ ই-মেইল :mahbuburrashid68@yahoo.com: সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত কানাইঘাট নিউজ ২০১৩