স্কাউটদের দেশের যে কোনো প্রয়োজনে প্রস্তুত থাকার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

Kanaighat News on Thursday, January 31, 2013 | 8:47 PM

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের যে কোনো প্রয়োজনে সদা প্রস্তুত থাকতে এবং সেবার মানসিকতা নিয়ে দায়িত্ব পালনের জন্য স্কাউটদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্কাউটদের মূলমন্ত্র হচ্ছে- সদা প্রস্তুত ও সেবা। এজন্য আপনাদেরকে দেশের যে কোনো প্রয়োজনে সব সময় প্রস্তুত থাকতে হবে এবং সেবার মানসিকতা নিয়ে দায়িত্ব পালন করতে হবে। তিনি গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে এখানে নিপেন্দ্র চন্দ্র উচ্চবিদ্যালয় মাঠে দশম জাতীয় রোভার মুট এবং পঞ্চম জাতীয় কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প (কমডেকা) উদ্বোধনকালে এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী স্কাউটদের আন্তরিকতার সাথে দায়িত্ব পালন এবং সততা ও দেশপ্রেমের চেতনায় আদর্শ নাগরিক গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের পরামর্শ দেন। শেখ হাসিনা দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্কাউট আন্দোলন বিস্তৃত করা এবং তাদের উন্নত চরিত্র গঠনের পাশাপাশি জাতীয় উন্নয়নে শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করার পরিবেশ তৈরির আহ্বান জানান। বাংলাদেশ স্কাউটের সভাপতি মো. আব্দুল করিম, চিফ ন্যাশনাল কমিশনার মো. আবুল কালাম আজাদ, রোভার মুট সাংগঠনিক কমিটির সভাপতি আবু আলম মো. শহীদ খান অন্যান্যের মধ্যে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।



সপ্তাহব্যাপী এই রোভার মুট ও কমডেকাতে প্রায় ৭শ' স্কাউট, রোভার স্কাউট, স্বেচ্ছাসেবী ও কর্মকর্তা যোগ দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী পায়রা উড়িয়ে এই অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন। 'তুমি যা দেখেছো তার চেয়ে একটু ভালো অবস্থায় এই পৃথিবী ত্যাগ করো' -স্কাউটসের অগ্রদূত স্যার রবার্ট ব্যাডেন পাওয়েলের এই উক্তি উদ্ধৃত করে প্রধানমন্ত্রী এই দেশ ও বিশ্বকে আরো এগিয়ে নেয়ার শপথ নিতে স্কাউটদের প্রতি আহ্বান জানান। বিশ্বব্যাপী স্কাউট আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ছে -এ কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, এই আন্দোলনের মাধ্যমে ছেলে-মেয়েরা শৈশব থেকে আ�নির্ভরশীল ও সেবার লক্ষ্য নিয়ে বেড়ে উঠে। এবারের মুট ও কমডেকে'র প্রতিপাদ্যকে সময়োপযোগী অভিহিত করে তিনি বলেন, বর্তমান সরকার দায়িত্ব নেয়ার পর ২০১০ সালে বাংলাদেশ স্কাউটের চতুর্থ বার্ষিক পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। এই পরিকল্পনার আওতায় বিভিন্ন অঞ্চল, জেলা, উপজেলায় স্কাউট র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়। এর ধারাবাহিকতায় জাতীয় পর্যায়ে মুট ও কমডেকা আয়োজিত হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে সামাজিক উন্নয়ন ক্যাম্প বা কমডেকা অনুষ্ঠানের সুবাদে স্থানীয় জনসাধারণ উপকৃত হচ্ছে। এছাড়া সমাজ এগিয়ে যাচ্ছে এবং অংশগ্রহণকারীরা বিভিন্ন অঞ্চলের স্থানীয় পরিবেশ ও সংস্কৃতি সম্পর্কে জানার সুযোগ পাচ্ছে। (ফেয়ার নিউজ)

!! পল্টনের মামলায় ফখরুলের জামিন !!

 বৃহস্পতিবার বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অবরোধে ভাংচুর- সহিংসতার একটি মামলায় দায়রা আদালত থেকে জামিন পেয়েছেন। মহানগর দায়রা জজ মো. জহুরুল হক শুনানি শেষে পল্টন থানার মামলায় ফখরুলের জামিন মঞ্জুর করেন। কলাবাগান থানার আরেক মামলায় একই আদালতে ফখরুলের জামিন আবেদনের শুনানি হলেও পরে আদেশ দেবেন বলে জানিয়েছে আদালত। এ দুই মামলায় বুধবার ফখরুলের আবেদনের শুনানির দিন ধার্য থাকলেও তার আইনজীবী জয়নুল আবেদীন মেজবাহ আবেদনে মহানগর দায়রা জজ আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক মো. আখতারুজ্জামান শুনানি একদিন পিছিয়ে দেন। পল্টন থানায় বিস্ফোরক আইনের মামলায় ফখরুল জামিনের এই আবেদন করেন গত ২৮ জানুয়ারি। আর তার আগের দিন ভাংচুরের অভিযোগে কলাবাগান থানার আরেক মামলায় জামিনের আদেবন করেন। দুটি মামলাতেই ফখরুলের আবেদন হাকিম আদালতে নাকচ হয়ে যায়। গত ৯ ডিসেম্বর ১৮ দলের রাজপথ অবরোধের সময় গাড়ি ভাংচুরের ঘটনায় ঢাকায় যে ৩৮টি মামলা হয়, তার প্রায় সবকটিতে আসামি করা হয়েছে ফখরুলকে। এর মধ্যে চারটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানোর পর উচ্চ আদালত থেকে জামিন পান বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব। এর মধ্যে পল্টন ও শেরেবাংলা নগর থানার দুটি মামলায় ১০ ডিসেম্বর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবকে গ্রেপ্তার করা হয়। ওই দুই মামলায় ফখরুলের জামিন আবেদন মহানগর হাকিম আদালত ও দায়রা জজ আদালতে খারিজ হয়ে গেলে হাই কোর্টে যান এই বিএনপি নেতা।



হাইকোর্ট ২ জানুয়ারি তাকে ৬ মাসের অন্তবর্তীকালীন জামিন দিলেও পরদিন তাকে নতুন করে মতিঝিল ও সূত্রাপুর থানার দুটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। ১৫ জানুয়ারি গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগে সূত্রাপুর থানার মামলায় জামিন পান ফখরুল। মতিঝিলের মামলায় নিম্ন আদালতে তার জামিন আবেদন নাকচ হয়ে গেলেও পরে হাই কোর্ট থেকে ছয় মাসের জামিন পান তিনি। এরইমধ্যে ফখরুলকে কলাবাগান ও পল্টন থানার অন্য দুটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে ১০ দিন করে রিমান্ডের আবেদন করে পুলিশ। অবরোধের দিন পুলিশের কাজে বাঁধা, হামলা, হত্যা চেষ্টা ও গাড়িভাংচুরের অভিযোগ ও বিস্ফোরক আইনে করা পল্টন থানার মামলায় ফখরুলের জামিন আবেদন ২৭ জানুয়ারি নাকচ করে দেন ঢাকার মহানগর হাকিম মো. সাইফুর রহমান। পুলিশের ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদনও নাকচ হয়ে যায়। এ মামলাতেই বৃহস্পতিবার জামিন পেলেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব। আর পুলিশের কাজে বাঁধা, হামলা, হত্যা চেষ্টা ও গাড়িভাংচুরের অভিযোগে করা কলাবাগান থানার মামলায় ফখরুলের জামিন ও পুলিশের রিমান্ড আবেদন ২৪ জানুয়ারি নাকচ করে হাকিম আদালত। তাকে 'যথাযথ আইনি প্রক্রিয়া' ছাড়া নতুন করে কোনো মামলায় গ্রেপ্তার বা হয়রানি না করতে দুই মাসের অন্তর্বতীকালীন আদেশ দিয়েছে হাই কোর্ট। এর আগে হরতালে গাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও ভাংচুর মামলায় গ্রেপ্তারের পর কাশিমপুর কারাগারে মাস খানেক ছিলেন ফখরুল। পরে তিনি জামিনে ছাড়া পান (ফেয়ার নিউজ)



:: বিশ্ব ইজতেমা থেকে নিখোঁজ বৃদ্ধের সন্ধান ২০দিনেও মেলেনি ::

Kanaighat News on Wednesday, January 30, 2013 | 7:40 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক:
 বিশ্ব ইজতেমা থেকে নিখোঁজ হওয়া সত্তর বছরের এক বৃদ্ধের সন্ধান ২০ দিনেও পায়নি তার পরিবার। তার বাড়ি কানাইঘাট উপজেলার ৫ নং বড় চতুল ইউনিয়নের লখাইর গ্রামে। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়,ঢাকার ঢঙ্গীতে তুরাগ নদীর তীরে অনুষ্ঠিত বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বে শরীক হওয়ার জন্য  ৯ জানুয়ারী এলাকার অন্যান্য লোকের সাথে তিনি যান। পর দিন ১০ জানুয়ারী আসরের নামাযের সময় ইজতেমার ময়দান থেকে নিখোঁজ হন । বিশ্ব ইজতেমা চলাকালে সাথে থাকা এলাকার অন্যান্য লোকজন ইজতেমা ময়দান ও আশপাশ সম্ভাব্য স্থানে খোঁজাখুজি করে কোন সন্ধান না পেয়ে বাড়ী ফিরে আসেন। অদ্যাবধি কোন সন্ধান না পাওয়ায় উদ্বেগের মধ্যে রয়েছেন স্বজনরা। কোন সুহৃদয় ব্যক্তি সন্ধান পেলে ০১৭২০-৩০৩৩৩০  মোবাইল নাম্বারে যোগাযোগের জন্য অনুরোধ করেছেন পরিবারের লোকজন। 

:: বৃহস্পতিবার হরতালের ডাক জামায়াতের ::

বৃহস্পতিবার সারাদেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ঘোষণা করেছে জামায়াত। সমাবেশ আয়োজনের অনুমতি না দেওয়ার প্রতিবাদে আগামীকাল এ হরতালের ডাক দেন জামায়াত। বুধবার দুপুরে জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল রফিকুল ইসলাম খান সাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এ ঘোষণা দেওয়া হয়।



যুদ্ধাপরাধের জন্য গঠিত ট্রাইব্যুনাল বাতিল করে নেতাদের মুক্তি ও সারাদেশে আটক নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে রাজধানীর বায়তুল মোকারমের উত্তর গেটে বুধবার বিকেল তিনটায় সমাবেশ করতে চেয়েছিলো জামায়াত।



সমাবেশের অনুমতি চেয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কাছে আবেদনও করেছিলো তারা। কিন্তু বুধবার দুপুর পর্যন্ত ওই সমাবেশ আয়োজনের কোন লিখিত বা মৌখিক অনুমতি না পাওয়ায় দলটির হাইকমান্ড বৃহস্পতিবার হরতালের সিদ্ধান্ত নেয়। এর আগে ঢাকা মহানগর জামায়াতের নায়েবে আমির হামিদূর রহমান আযাদের বরাত দিয়ে তার এক ঘনিষ্ঠ সূত্র দুপুর সোয়া ১১টার দিকেই বাংলানিউজকে হরতালের বিষয়টি নিশ্চিত করে। সূত্রটি জানায়, দুপুরের আগেই হরতালের ঘোষণা দেবে জামায়াত।(ফেয়ার নিউজ) 





৩১ জানুয়ারির মধ্যে রাজধানী ভিক্ষুকমুক্ত করার উদ্যোগ

Kanaighat News on Tuesday, January 29, 2013 | 10:24 PM


আগামী ৩১ জানুয়ারির মধ্যে (বুধবার বা বৃহস্পতিবার) গুলশান, বনানী ও ধানমন্ডি ভিক্ষুকমুক্ত এলাকা ঘোষণা করবে সরকার। পুরো রাজধানী ভিক্ষুকমুক্ত করতেই এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন ভিক্ষুক পুনর্বাসন প্রকল্পের পরিচালক আবদুল মাবুদ বলেন, জানুয়ারিতেই রাজধানীর ভিআইপি এলাকাকে (গুলশান, বনানী ও ধানমণ্ডি) ভিক্ষুকমুক্ত ঘোষণা করা হবে। পর্যায়ক্রমে পুরো রাজধানীকেই ভিক্ষুকমুক্ত করা উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ভবঘুরে ও নিরাশ্রয় ব্যক্তি (পুনর্বাসন) আইনের আলোকেই এ কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি। প্রকল্প পরিচালক আরো বলেন, ময়মনসিংহে ভিক্ষুকদের পুনর্বাসন করা হলেও পরবর্তীতে তারা আবার রাজধানীতে ফিরে এসেছেন। রাজধানীকে ভিক্ষুকমুক্ত করা না গেলে তাদের পুনর্বাসন করা কিংবা দেশের অন্য কোথাও ভিক্ষুকমুক্ত করা সম্ভব হবে না। তাই প্রাথমিকভাবে রাজধানীকে ভিক্ষুকমুক্ত করা হবে। প্রকল্প পরিচালক জানান, রাজধানীকে ভিক্ষুকমুক্ত করতে একটি স্টিয়ারিং কমিটি গঠন করা হয়েছে। আন্ত:মন্ত্রণালয় বৈঠকও হয়েছে। এ কাজে ম্যাজিস্ট্রেটরা নিয়োজিত থাকবেন। সংবিধানের ১৫ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী রাষ্ট্রের সব নাগরিকের জন্য বাসস্থানের ব্যবস্থা করার জন্য সচেষ্ট থাকার কথা। সে লক্ষ্যে বর্তমান সরকার ভবঘুরে ও নিরাশ্রয় ব্যক্তি (পুনর্বাসন) আইন'২০১১ জাতীয় সংসদে পাস করে।

আইন অনুযায়ী নিরাশ্রয়দের আশ্রয় দিতে গত বাজেটে ২২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। ভিক্ষুক পুনর্বাসন প্রকল্পও হাতে নেয় সরকার। প্রকল্পের আওতায় নগরীর ১০ হাজার ভিক্ষুকের ওপর জরিপ চালানো হয়। জরিপের আওতায় এসব ভিক্ষুকদের মধ্য থেকে ২ হাজার ভিক্ষুককে ঢাকা, ময়মনসিংহ, বরিশাল ও জামালপুরে পুনর্বাসনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। কিন্তু এ কার্যক্রমে ব্যর্থ হয় সরকার। প্রকল্প বাস্তবায়নে দুর্নীতি ও অর্থনৈতিক অনিয়মের অভিযোগও ওঠে। গত ১২ নভেম্বর প্রকল্পের অর্থিক দুর্নীতি খতিয়ে দেখতে সমাজকল্যাণ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কামিটি তিন সদস্যের উপ-কমিটি গঠন করে। এ উপ-কমিটিকে দুই মাসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে নির্দেশ দেওয়া হয়।

উপ-কমিটির এ উদ্যোগের পর প্রকল্পটিকে গতিশীল ও কার্যকর করতে পুরো রাজধানীকে ভিক্ষুকমুক্ত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়। প্রসঙ্গত: আইন অনুযায়ী ভবঘুরে ও নিরাশ্রয় ব্যক্তিকে আশ্রয়দানের জন্য সরকারি অভ্যর্থনাকেন্দ্র এবং সরকারি বা বেসরকারি আশ্রয়কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার কথা বলা হয়েছে। ঢাকা ও ঢাকার বাইরের জেলায় এক বা একাধিক সরকারি আশ্রয়কেন্দ্র স্থাপন এবং বেসরকারি আশ্রয়কেন্দ্রের নিয়ন্ত্রণ, তত্ত্বাবধান ও পরিচালনা করার নীতিও গ্রহণ করা হয়েছে। বর্তমানে দেশে এ ধরনের ছয়টি আশ্রয়কেন্দ্র রয়েছে, যার প্রধানটির অবস্থান রাজধানীর মিরপুরে।(ফেয়ার নিউজ)

:: দেশব্যাপী জামায়াত শিবিরের তান্ডব!! কানাইঘাট আওয়ামীলীগের নিন্দা ::

নিজস্ব প্রতিবেদক:
একাত্তরের ঘাতক চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বানচাল করার লক্ষে দেশব্যাপী জামায়াত শিবির চক্র আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর উপর হামলা এবং জনগণের জানমালের ব্যাপক ক্ষতি সাধনের ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন কানাইঘাট উপজেলা ও পৌর আ’লীগের নেতৃবৃন্দ। এক বিবৃতিতে আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ বলেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশে আইনের শাসন এবং সমৃদ্ধের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে ও দেশের আপামর জনসাধারণের দাবী যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায়ের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। তখন একাত্তরের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়ে জামায়াত শিবির চক্র নৈরাজ্য সৃষ্টি করছে। এদের অপতৎপরতা প্রতিরোধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান। বিবৃতিদাতারা হলেন, উপজেলা আ’লীগের আহবায়ক পৌর মেয়র লুৎফুর রহমান, সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক ইউপি চেয়ারম্যান অধ্য সিরাজুল ইসলাম, যুগ্ম আহবায়ক রফিক আহমদ, মাসুদ আহমদ, এডভোকেট আব্দুস সাত্তার, এডভোকেট মামুন রশিদ, পৌর আ’লীগের আহবায়ক জামাল উদ্দিন, সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক কেএইচএম আব্দুল্লাহ, যুগ্ম আহবায়ক নাসির আহমদ, খলিলুর রহমান, শাহেদ আহমদ, নাজমুল ইসলাম হারুন প্রমুখ।

:: বৃহত্তর জৈন্তিয়া কেন্দ্রীয় শিক্ষক পরিষদের ধর্মঘট স্থগিত ::

Kanaighat News on Monday, January 28, 2013 | 8:18 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক:
স্থানীয় সংসদ সদস্য হাফিজ আহমদ মজুমদারের আশ্বাস ও এস.এস.সি পরীক্ষার দিক বিবেচনা করে বৃহত্তর জৈন্তিয়া কেন্দ্রীয় শিক্ষক পরিষদের ধর্মঘট স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। এ উপলক্ষে আজ সোমবার ১২টার সময় বৃহত্তর জৈন্তিয়া শিক্ষক পরিষদের সভাপতি মামুন আহমদের সভাপতিত্বে এক জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়। গত ২৬জানুয়ারী কানাইঘাট সুরমা উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য হাফিজ আহমদ মজুমদার। এসময় শিক্ষকদের ধর্মঘট প্রত্যাহারের অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, শিক্ষা মন্ত্রীর সাথে কথা বলে পর্যায়ক্রমে শিক্ষকদের দাবীদাওয়া পূরণের আশ্বাস দিলে শিক্ষক পরিষদ  সোমবার এক জরুরী সভায় সর্বসম্মতিক্রমে আজ থেকে ১৬ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত শিক্ষক ধর্মঘট স্থগিতের সিন্ধান্ত নেয় এবং আগামী ১৬ফেব্রুয়ারী শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের সাথে সড়কের বাজার উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় করার কথা রয়েছে। উক্ত মতবিনিময় সভায় তাদের সমস্যা তুলে ধরারও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

!! কানাইঘাটে শিবিরের রোষানলে পুলিশ !!

নিজস্ব প্রতিবেদক:
সারাদেশের ন্যায় এবার কানাইঘাটেও শিবিরের রোষানলের শিকার হলো পুলিশ। পরে অতিরিক্ত ফোর্সের এ্যাকশনে শিবির নিজেদের গুটিয়ে নিলে বড় ধরনের সংঘর্ষ ঘটেনি। প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছ থেকে জানা যায়, আজ সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় পৌর জামায়াত নেতা এ.কে.এম ওলিউল্লাহ, থানা শিবির সভাপতি সেলিম আহমদ ও ডিগ্রি কলেজ শিবির নেতা জয়নাল আবেদীনের নেতৃত্বে কানাইঘাট বাজারে শিবিরের শতাধিক নেতাকর্মী একটি মিছিল বের করে। মিছিলটি দক্ষিণ বাজার সিএনজি স্ট্যান্ডে আসা মাত্র কানাইঘাট থানা পুলিশ মিছিলের গতিরোধের চেষ্টা করলে মিছিল কারীরা উত্তেজিত হয়ে পুলিশকে ঘেরাও করে ফেলে এবং বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে পেশী শক্তি প্রয়োগ করে মিছিল নিয়ে পুনরায় বাজারে প্রবেশ করে এক পথসভায় মিলিত হয়। এসময় খবর পেয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল হাই একদল ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে শিবিরের নেতাকর্মীরা সভা পন্ড করে দ্রুত পলায়ন করে। এ ব্যাপারে কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল হাইয়ের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, শিবিরের বিক্ষোভ মিছিল মিটিংয়ের খবর পেয়ে সবধরনের ধ্বংসাত্মক কর্মকান্ড এড়াতে অতিরিক্ত ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌছার পূর্বেই শিবিরের নেতাকর্মীরা চলে যায়।

:: কানাইঘাট প্রেসক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এখলাছুর রহমানের রোগমুক্তি কামনা ::

নিজস্ব প্রতিবেদক:
দৈনিক শ্যামল সিলেট পত্রিকার কানাইঘাট প্রতিনিধি ও কানাইঘাট প্রেসক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এখলাছুর রহমান হৃদরোগজনীত কারনে অসুস্থ হয়ে সিলেট রাগীব-রাবেয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। তার আশু রোগমুক্তি কামনা করেছেন কানাইঘাট প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ। বিবৃতি দাতারা হলেন, কানাইঘাট প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও দৈনিক সিলেট বানী পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক এম.এ.হান্নান, সহসভাপতি বাবুল আহমদ, দপ্তর সম্পাদক নিজাম উদ্দিন, ক্রীড়া সম্পাদক জামাল উদ্দিন, সদস্য মাহবুবুর রশিদ, আব্দুন নুর, কাওছার আহমদ প্রমুখ।

:: কানাইঘাটে প্রতিপক্ষের হামলায় গুরুতর আহত শফিক উদ্দিনের মৃত্যু ::

নিজস্ব প্রতিবেদক:
গত ২০জানুয়ারী কানাইঘাট পৌরসভার বিষ্ণুপুর গ্রামে বাড়ীর সীমানা নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে গুরুতর আহত বিষ্ণুপুর গ্রামের শফিক উদ্দিন (৫৫) সিলেট ওমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর গত শনিবার উন্নত চিকিৎসার জন্য ওমেক হাসপাতাল থেকে ঢাকা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর সময় রাত ১২টার সময় পথিমধ্যে তার মৃত্যু হয়েছে। নিহতের লাশ আজ ওমেক হাসপাতালে ময়না তদন্তের পর তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। রবিবার বাদ মাগরিব বিষ্ণুপুর জামে মসজিদে জানাযার নামায শেষে শফিক উদ্দিনের লাশ গ্রামের গুরুস্তানে দাফন করা হয়। জানা যায়, বাড়ীর সীমানার জায়গা নির্ধারণ নিয়ে গত ২০জানুয়ারী শামসুল হক গংদের সাথে নিহত শফিক উদ্দিন গংদের সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ১০জন আহত হন। নিহতের পরিবারের অভিযোগ শামছুল হক ও তার ছেলেরা পরিকল্পিতভাবে হত্যা করার জন্য শফিক উদ্দিনের মাথায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে বেশ কয়েকটি আঘাত করে। ওসমানী হাসপাতালে অজ্ঞান অবস্থায় ৬দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর ঢাকায় তাঁকে পাঠানোর সময় তিনি পথিমধ্যে মারা যান। এঘটনায় নিহতের স্ত্রী রওশনারা বেগম বাদী হয়ে কানাইঘাট থানায় ৯জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। 

::কানাইঘাটে সেনাবাহিনীর বিশেষজ্ঞ দলের নেতৃত্বে শক্তিশালী বিষ্ফোরক দ্রব্য ধ্বংস ::

নিজস্ব প্রতিবেদক:
 কানাইঘাট থানা পুলিশের হেফাজতে থাকা শক্তিশালী বিষ্ফোরক দ্রব্য ৬টি ডেটোনেটর এবং ৬টি নিউজেল আজ রবিবার সকাল ১১টায় থানা সংলগ্ন মাঠে কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট বোমা বিষ্ফোরক বিশেষজ্ঞ ক্যাপ্টেন বায়েজিদ নিষ্ক্রিয়ের মাধ্যমে ধ্বংস করেছেন। এ সময় বোমার বিকট শব্দে পৌর শহর ও আশপাশ এলাকায় কেঁপে ওঠে। গত ১/৪/১২ইং তারিখে শক্তিশালী এ ৬টি ডেটোনেটর এবং ভারতীয় আমিন কোম্পানীর তৈরী ৬টি নিউজেল বিষ্ফোরক দ্রব্য থানা হেফাজতে থাকার পর আইনী প্রক্রিয়া শেষে আজ এ বিষয়ে এক্সপার্ট ক্যাপ্টেন বায়েজিদের নেতৃত্বে সেনাবাহিনীর একদল কর্মকর্তা এ বিষ্ফোরক গুলি কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল হাই ও ওসি (তদন্ত) শেখ মহসিন আলম এসময় উপস্থিত ছিলেন।

!! কানাইঘাটে মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত !!

Kanaighat News on Saturday, January 26, 2013 | 11:28 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক:
 সিলেট-৫ কানাইঘাট জকিগঞ্জ আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী আলহাজ্ব হাফিজ আহমদ মজুমদার বলেছেন, বাংলাদেশ যেভাবে শিক্ষা, কৃষি, শিল্পক্ষেত্রে বিপ্লব সৃষ্টি হয়েছে জাতীয় স্বার্থে দুই নেত্রীর মধ্যে দুরত্ব দূর হলে শিক্ষাসহ সকল ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক উন্নয়নের মাধ্যমে দেশ অচীরেই একটি সমৃদ্ধশালী রাষ্ট্রে পরিণত হবে। হাফিজ আহমদ মজুমদার আজ শনিবার বিকেল ২টায় রাজাগঞ্জ সুরমা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বাংলাদেশ মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি কানাইঘাট উপজেলা শাখার বার্ষিক সাধারণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। কানাইঘাট মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মুফজ্জিল আলীর সভাপতিত্বে ও সচিব ফজলুর রহমানের পরিচালনায় মজুমদার আরো বলেন, বর্তমান সরকার শিক্ষাকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে ইতিমধ্যে দেশকে নিরর মুক্ত করে নতুন প্রজন্মকে মানব সম্পদে পরিণত করার জন্য বেসরকারী ২৮হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণসহ বছরের ১ম দিনেই সকল শিক্ষার্থীদের হাতে বিনামূল্যে পাঠ্যবই তুলে দেওয়া হয়েছে। হাজার হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হচ্ছে। তিনি শিক্ষকদের দুঃখ দুর্দশা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই উপলব্দি করেন উল্লেখ করে বলেন, তিনি শিক্ষকদের সম্মান করেন। মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের চাকুরী জাতীয় করনের দাবীর প্রতি মজুমদার সমমর্মিতা প্রকাশ করে বলেন, আসন্ন এস.এস.সি পরীক্ষায় শিক্ষকদের দায়িত্ব পালনের অনুরোধ জানিয়ে বলেন, শিক্ষকদের চাকুরী জাতীয় করনের বিষয়টি তিনি জাতীয় সংসদে উত্তাপণ করবেন বলে আশ্বাস প্রদান করেন। উক্ত শিক্ষক সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, হাফিজ আহমদ মজুমদার শিক্ষা ট্রাষ্টের সচিব লোকমান আহমদ চৌধুরী, বাংলাদেশ মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সহসভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান মাষ্টার ফয়জুল ইসলাম, সিলেট জেলা আ’লীগের উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মস্তাক আহমদ পলাশ, উপজেলা আ’লীগের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম, কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল হাই, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী রেজিষ্ট্রার ফজলুর রহমান, আ’লীগ নেতা সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম। কানাইঘাট, গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, মামুন আহমদ, বিজন চন্দ্র বিশ্বাস, আব্দুল জলিল, নজরুল ইসলাম, জার উল্লাহ, এখলাছে এলাহী, বিনোদ রঞ্জন তালুকদার, সাজিদ মিয়া, মোহাম্মদ আলী, নুরুল আমিন, নালি আলী সরকার, শরিফ উদ্দিন, আফরুজা বেগম, মখলিছুর রহমান, জালাল উদ্দিন, শাহীন আহমদ প্রমুখ। অনুষ্ঠানের শুরুতে মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দ প্রধান অতিথি হাফিজ আহমদ মজুমদারকে ফুল দিয়ে বরণ করেন। 

:: কানাইঘাট দারুল উলূম মাদরাসায় ফুযালা সমাবেশ ২ ফেব্রুয়ারী ::


ঐতিহ্যবাহী জামেয়া ইসলামিয়া দারুল উলূম দারুল হাদীস কানাইঘাট, সিলেট এর ইতিহাস ঐতিহ্যকে সমুন্নত রাখার লক্ষ্যে আগামী ২ ফেব্রুয়ারী ২০১৩ ইং শনিবার সকাল ১১.০০ ঘটিকার সময় মাদরাসা মিলনায়তনে এক বিরাট ফুযালা সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।
উক্ত সমাবেশে মাদরাসার নতুন পুরাতন সকল ফুযালাগণকে যথা সময়ে উপস্থিত থাকার জন্য মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা মুহাম্মদ বিন ইদ্রীস  লক্ষীপুরী আহবান জানিয়েছেন।(বিজ্ঞপ্তি)

কানাইঘাট থানায় দায়েরকৃত পুলিশ এসল্ট মামলার নিখোঁজ আসামী মোহাম্মদ আলীর লাশ সুরমা নদী থেকে উদ্ধার

Kanaighat News on Friday, January 25, 2013 | 11:49 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক:
গত সোমবার সিলেট শহর থেকে রাতের বেলা বাড়ি ফেরার পথে শহর সংলগ্ন শাহপরান থানা এলাকার মিরের চকে অজ্ঞাতনামা একদল লোকের ধাওয়া খেয়ে নিখোঁজ কানাইঘাট থানার একটি পুলিশ এসল্ট মামলার আসামী মোহাম্মদ আলী (৫০) এর লাশ আজ শুক্রবার মিরের চক সংলগ্ন সুরমা নদীতে পাওয়া গেছে ।তার বাড়ি কানাইঘাট উপজেলার ৮নং ঝিংগাবাড়ি ইউনিয়নের আগতালুক গ্রামে।  এ ঘটনার খবর পেয়ে শাহপরান থানা পুলিশ বিকেল ৪টার দিকে ঘটনাস্থল থেকে মোহাম্মদ আলীর লাশ উদ্ধার করে সিলেট ওমেক হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে। মোহাম্মদ আলীর ভাতিজা আনোয়ার (১৮),ভাগ্নে আব্দুর রহিম(৩৫) জানান, মোহাম্মদ আলীসহ তারা তিনজন  কানাইঘাট থানায় দায়েরকৃত একটি এসল্ট মামলা থেকে জামিন নেওয়ার জন্য গত সোমবার সিলেট কোর্টে যান । আনোয়ার ও আব্দুর রহিম আদালতে উপস্থিত হয়ে জামিন পেলেও ওয়ারেন্টভূক্ত আসামী মোহাম্মদ আলী জামিনের জন্য আদালতে উপস্থিত হননি। মোহাম্মদ আলীর সাথে থাকা ভাতিজা ও ভাগ্নে জানান জামিন পাওয়ার পর রাত অনুমান সাড়ে ৮টার দিকে শহর থেকে ভাটার গ্রামের মৃত নিজামের উদ্দিনের পুত্র ইমরানের অটোরিক্শা যোগে নিজ বাড়ি আগতালুক গ্রামে ফেরার  পথে মিরেরচক এলাকায় আসামাত্র পুলিশের পোশাক পরিহিত কয়েকজন লোক তাদের গাড়ির গতিরোধ করলে মোহাম্মদ আলী গাড়ী থেকে নেমে দৌড় দেন। পুলিশের পোশাক পরিহিতরা তার পিছু নেয়। এর কিছুক্ষণ পর আরো বেশ কয়েকজন লোক একটি লেগুনা গাড়ী থেকে নেমে মোহাম্মদ আলীকে ফলো করে পিছু নেয়। ভয়ে তারা প্রথমে নিশ্চুপ থাকলেও এক পর্যায়ে অনেক খোঁজাখুজি করে ভাতিজা আনোয়ার ও ভাগ্নে আব্দুর রহিম মোহাম্মদ আলীকে খুঁজে না পেয়ে বাড়ীতে চলে যান। পরদিন সিলেটের সবকটি থানায় যোগাযোগ করেও মোহাম্মদ আলীকে আটক কিংবা তার কোন সন্ধান না পেয়ে গত তিন দিন ধরে মীরের চক এলাকায় অনেক খোঁজাখুজি করার পর আজ বেলা ১২টার দিকে মোহাম্মদ আলীর লাশ সুরমা নদীতে ভাসমান অবস্থায় দেখতে পান। লাশের গায়ে কিছুটা আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে ৮নং ঝিংগাবাড়ী ইউপির চেয়ারম্যান রফিক আহমদ চৌধুরী কানাইঘাট নিউজকে জানান।

:: কানাইঘাট জুলাই আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা খারিজ ::

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কানাইঘাট জুলাই আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শিব্বির আহমদের বিরোদ্ধে দায়েরকৃত রাষ্ট্রদ্রোহীতা মামলাটি খারিজ করেছেন বিজ্ঞ আদালত। জানা যায়, স্থানীয় নাজির আহমদ নামে এক ব্যক্তি গত জাতীয় শোক দিবসে জুলাই আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়নি মর্মে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরোদ্ধে সিলেট নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত-১ এ একটি মামলা দায়ের করে। দীর্ঘ তদন্ত ও শুনানী শেষে বিজ্ঞ আদালত ২১ জানুয়ারি মামলাটি খারিজ করেন। প্রধান শিক্ষক শিব্বির আহমদ ন্যায় বিচার পেয়েছেন জানিয়ে বলেন, সিলেট নগরীর শাহপরান থানায় ফৌজধারী সংক্রান্ত আরেকটি মামলায় তাকে জড়ানো হয়েছেন বলে জানান।

!! বঙ্গবন্ধুর সহচর জমির উদ্দিন প্রধানের দাবী বাচ্চু রাজাকারের ফাঁসির রায় দ্রুত কার্যকর করতে হবে !!

নিজস্ব প্রতিবেদক:
যুদ্ধাপরাধের মামলায় জামায়াতের সাবেক নেতা আবুল কালাম আযাদ ওরফে বাচ্চু রাজাকারকে ফাঁসির আদেশের রায় শুনে আনন্দে আত্মহারা হয়ে কেঁদে ফেললেন বঙ্গ বন্ধুর সহচর সিলেট আ’লীগের প্রবীণ নেতা জমির উদ্দিন প্রধান । আনন্দ ভরে তিনি বলেন, ৪১ধরে এই দিনটির অপেক্ষায় ছিলাম। দেরীতে হলেও যুদ্ধাপরাধের প্রথম রায়ের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের জনগণের নবযাত্রা শুরু হলো । তবে এ রায়কে দ্রুত কার্যকর করতে হবে । ১৯৭১ সালে এদেশের কিছু মানুষ জামায়াতের সাবেক নেতা গোলাম আযম, বাচ্চু রাজাকার গংদের নেতৃত্বে পাক সামরিক বাহিনীর সহযোগি হয়ে মুক্তিযুদ্ধের পুরোটা সময়ে হত্যা, নির্যাতন , ধর্ষণ , লুন্ঠন ও অগ্নিসংযোগে মেতে ওঠেছিল। মানবতা বিরোধী এসব অপরাধের হোতা গোলাম আজম সহ সকল রাজাকারের ফাঁসির আদেশের রায় ঘোষণারও দাবী জানান। এছাড়া তিনি জাতির কলংকমোচনের সূচনা করায় বঙ্গ বন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানান।

!! কানাইঘাটে সৎ ভাইয়ের নির্যাতনের শিকার নিরীহ এক ব্যক্তি !!

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কানাইঘাটে সৎ ভাইয়ের নির্যাতনের শিকার হয়ে আতংঙ্কের মধ্যে দিনযাপনের অভিযোগ করেছেন এক ব্যক্তি। উপজেলার ১নং লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউনিয়নে কাড়াবালা নিজগ্রামের মৃত হাজী নছিরুল হকের পুত্র মাসুক আহমদ (৪৮), এ অভিযোগ করেন। জানা যায়, মাসুক আহমদ তার সৎ ভাই মখলিছুর রহমানকে নিজ খরচে সৌদি আরবে পাঠিয়েছিলেন। প্রবাসে যাওয়ার পর আংশিক টাকা মখলিছ পরিশোধ করলেও বাকি টাকা অদ্যাবধি পরিশোধ করেনি। এমনকি সব ধরনের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে প্রবাসে থাকা অবস্থায় আলাদাভাবে নিজস্ব তহবিল সঞ্চয় করে। প্রায় ৫মাস পূর্বে সৌদি আরব হতে বাড়ী ফিরে পৈত্রিক বাড়ীতে আলাদাভাবে নিজের ঘর তৈরীর ইচ্ছা করলে তাকে মাসুক আহমদ সহ পরিবারের অন্যান্য লোকজন ব্যবস্থা করে দেন। এর কিছুদিন পর মাসুক আহমদ নিজেই পৈত্রিক বাড়ীতে আরেকটি ঘর তৈরী করতে চাইলে মখলিছ বাধা প্রদান করে। বিষয়টি কানাইঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশিক চৌধুরী, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ইফজালুর রহমানসহ স্থানীয় মুরব্বি এবং কানাইঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে বিষয়টি অবহিত করলে উপজেলা চেয়ারম্যান আশিক চৌধুরী সরেজমিনে গিয়ে বিষয়টি আপোষ মিমাংসা করে পৈত্রিক সম্পত্তি ভাগ ভাটোয়ারা করে দেন। গত ১৯ডিসেম্বর মাসুক আহমদ তার ভাটোয়ারা অংশে ঘর তৈরী করতে চাইলে মখলিছ আবার বাধা প্রদান করে। এক পর্যায়ে সে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মাসুককে পেটাতে শুরু করলে তার আর্ত চিৎকারে বোন ফাতেমা বেগম (৬০) এগিয়ে আসলে তাকেও সে মারধর করে গুরুতর জখম করে। এ সময় তাদের সুর চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে তাদেরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্সে ভর্তি করেন। এর পরও সে ক্লান্ত হয় নি, মাসুক আহমদ ও তার বোন ফাতেমা বেগম হাসপাতালে থাকা অবস্থায় রাতে ফাতেমা বেগমের বসত ঘর আগুনে জ্বালিয়ে দেয়। এসকল ঘটনার ইন্ধনদাতাদের এবং মখলিছুর রহমানকে আসামী করে মাসুক আহমদ কানাইঘাট থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার নং- (০১) ০১-০১-২০১৩ইং।

ভাইকে বেঁধে দুই বোন ধর্ষণ: ওসিকে তলব

এফএনএস : হাই কোট ভাইকে বেঁধে রেখে দুই বোনকে ধর্ষণের ঘটনায় কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থানার ওসিকে তলব করেছে। গতকাল বুধবার ন্যায়বিচার নিশ্চিতে করা একটি আবেদনের শুনানি করে বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী ও বিচারপতি মাহমুদুল হকের বেঞ্চ এই আদেশ দেয়। থানার ওসি মো. মোজাম্মেল হোসেনকে আগামী ২৮ জানুয়ারি আদালতে হাজির হয়ে ওই ঘটনায় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার ক্ষেত্রে তার ভূমিকা ব্যাখ্যা করতে বলা হয়েছে। আদালত একইসঙ্গে আমলযোগ্য ওই অপরাধে জড়িতদের বিরুদ্ধে ফৌজাদারি কার্যবিধি অনুসারে ব্যবস্থা গ্রহণে বিবাদিদেরকে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না, রুলে তাও জানতে চায়। দুই সপ্তাহের মধ্যে কুমিল্লার জেলা প্রশাসক, পুলিশের মহাপরিদর্শক, চট্টগ্রাম বিভাগের উপমহাপরিদর্শক, কুমিল্লার এসপি এবং চৌদ্দগ্রামের ওসিকে রুলের জবাব দিতে বলেছে।

গত ২২ জানুয়ারি বাংলাদেশ প্রতিদিনে প্রকাশিত 'এবার ভাইকে বেঁধে রেখে দুই বোনকে গণধর্ষণ' শিরোনামের একটি প্রতিবেদন সংযুক্ত করে আবেদনটি করা হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কুমিল্লা সদর উপজেলার বালুতুপা দৌলতপুর গ্রামের দুই বোনকে সদর দক্ষিণ উপজেলার পরানপুর গ্রামের পোশাক কর্মী মাহবুব আলম ও চৌদ্দগ্রামের পূর্ব বেলঘর গ্রামের রাসেল গত বৃহস্পতিবার রাতে তার বাড়িতে যাওয়ার কথা বলে নিয়ে যায়। পথে শিবেরবাজার কবরস্থান সংলগ্ন জঙ্গলের ভেতর তাদেরকে ১০-১২ জন যুবক ধর্ষণ করে। এ সময় দুই বোনের সঙ্গী ১০ বছর বয়সী ছোট ভাইকে একটি গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখা হয়।

ওই প্রতিবেদন অনুযায়ী, চৌদ্দগ্রাম থানার ওসি মোজাম্মেল হোসেন জানান, এ বিষয়ে থানায় কেউ অভিযোগ করেনি। আবেদনকারীর পক্ষে আদালতে শুনানি করেন এডভোকেট মনজিল মোরসেদ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত তালুকদার। এ বিষয়ে মনজিল মোরসেদ বলেন, আজকের পত্রিকায় ওই ঘটনায় কয়েকজনকে গ্রেপ্তারের খবর এসেছে। কিন্তু ওইদিনের পত্রিকায় বলা হয়েছে, ওসি বলছেন, কেউ না আসায় এফআইআর হয়নি। ওসি এটা বলতে পারেন না। এটা আমলযোগ্য অপরাধ। ফৌজদারি কার্যবিধি অনুসারে এ ধরনের ঘটনায় কেউ অভিযোগ করতে না আসলে পুলিশকেই মামলা করতে হয়। ওসিকে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে হবে।

:: ডালাইচর স্টুডেন্ট ওয়েল ফেয়ার সোসাইটির উদ্যোগে মেধাবী শিক্ষার্থী ও গুণীজনদের সংবর্ধনা প্রদান ::

Kanaighat News on Thursday, January 24, 2013 | 11:35 PM

নিজস্ব  প্রতিবেদক:
কানাইঘাট ডালাইচর স্টুডেন্ট ওয়েল ফেয়ার সোসাইটির উদ্যোগে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় বিভিন্ন স্কুল থেকে ডালাইচর গ্রামের পিএসসি ও জেএসসি পরীক্ষায় উর্ত্তীণ মেধাবী শিক্ষার্থী এবং গুণীজনদের সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে। স্থানীয় ডালাইচর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে আয়োজিত এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সোসাইটির সভাপতি নজির হাসান তুহিনের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারী রুবেল আহমদ সাগরের পরিচালনায় উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পৌর মেয়র লুৎফুর রহমান। প্রধান আলোচক ছিলেন কানাইঘাট ডিগ্রি কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন-উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রভাতী রানী দাস, কানাইঘাট ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ শামসুল আলম মামুন, কানাইঘাট থানার ওসি (তদন্ত) মহসিন আলম, কানাইঘাট সরকারী প্রাঃ শিক্ষক সমিতির সভাপতি আব্দুল লতিফ, সেক্রেটারী ইকবাল আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক খাজা আজির উদ্দিন, চিত্রশিল্পী ভানু লাল দাস, কানাইঘাট মুক্তিযোদ্বা সন্তান কমান্ডের আহবায়ক আব্দুল হেকিম শামীম, সংগঠনের পৃষ্ঠপোষক এনামুল হক, ছাত্রনেতা শাহাব উদ্দিন, আজমল হোসেন, মামুন রশিদ রাজু, স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের দপ্তর সম্পাদক আখতারুজ্জামান হিমেল, ডালাইচর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নীলিমা চক্রবর্তী, রোমান প্রমুখ। অনুষ্ঠান শেষে পিএসসি ও জেএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ মেধাবী শিক্ষার্থী এবং ডালাইচর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কৃতি শিক্ষার্থী ও গুণীজনদের মধ্যে সংগঠনের পক্ষ থেকে ক্রেষ্ট ও সম্মাননা তুলে দেন অতিথিবৃন্দ।



!! কানাইঘাটে ইউপি সদস্যা কর্তৃক প্রবাসীকে জুতা পেটা !!

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কানাইঘাট ৪নং সাতবাক ইউপির ৭নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যা শাবান বেগম (৩০) এর গৃহে গত ২০ জানুয়ারি রাতে এক কাতার প্রবাসী যুবকের প্রবেশের ঘটনায় ঐ যুবককে ইউপি সদস্যা শাবানা বেগম কর্তৃক জুতা পেটা ও ২০ হাজার টাকা জরিমানার ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক
চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় লোকজনদের কাছ থেকে জানা যায়, গত ২০ জানুয়ারি রাত অনুমানিক ৮টার দিকে ইউপি সদস্যা শাবানা বেগমের নিজ বাড়ী ভবানীগঞ্জ গ্রামে মোবাইল ফোন আলাপের সূত্র ধরে ৩নং দীঘির পার ইউপির হিম্মতের মাটি গ্রামের আব্দুল কাদিরের ছেলে কাতার প্রবাসী বেবুল আহমদ (৩৫) শাবানা বেগমের গৃহে প্রবেশ করে। এক পর্যায়ে ইউপি সদস্যার স্বামী বাবুল আহমদ বাড়ীতে ফেরে পরপুরুষ বেবুল আহমদকে তার গৃহে দেখে আটক করে রাখেন। বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে প্রচুর লোকজন ইউপি সদস্যার বাড়ীতে ভিড় জমান। খবর পেয়ে বিষয়টি সামাজিকভাবে নিষ্পত্তি করার জন্য সাঁতবাক ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য শফিকুর রহমান, হারিছ নোমানী, শফিক উদ্দিন, শফিকুর রহমান এবং দীঘিরপাড় ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আবুল আহমদ এবং বেবুল আহমদের আত্মীয় স্বজন শাবানা বেগমের বাড়ীতে যান। রাত সাড়ে ৩টা পর্যন্ত আলাপ আলোচনার পর কাতার প্রবাশী বেবুল আহমদকে ইউপি সদস্যার ঘরে প্রবেশ করায় ২০হাজার টাকা জরিমানা করে ১৫০টাকার স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেওয়া হয়। ইউপি সদস্যা শাবানা বেগম এ ঘটনায় এ যুবককে উপর্যুপরি জুতাপেটা করেন। ছেলে পক্ষের আত্মীয় স্বজনের অভিযোগ মোবাইল ফোনে শাবানা বেগমের সাথে এ প্রবাসীর পরিচয় এবং পূর্বে সাক্ষাৎ হয়। শাবানা বেগমের ফোন পেয়ে ২০ জানুয়ারি রাতে বেবুল আহমদ তার বাড়ীতে যাবার অপরাধে আসল ঘটনাটি ধামা চাপা দেওয়ার জন্য এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে। এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য শফিকুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে, তিনি বিষয়টি সত্য বলে জানান। শাবানা বেগমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ঐ যুবক তাকে প্রায়ই মোবাইল ফোনে উত্যক্ত করত। অনাধিকার ভাবে তার গৃহে প্রবেশ করায় তাকে আটক করে সালিশরা জুতা মেরেছেন বলে বিষয়টি এড়িয়ে যাবার চেষ্টা করেন। ইউপি সদস্যা আবুল আহমদ বলেন, বেবুলকে ইউপি সদস্যার বাড়ীতে আটক করা হয়েছে জানতে পেরে তিনি সেখানে যান জুতা পেটার কথা স্বীকার করে বলেন ২০হাজার টাকা জরিমানার বিষয়টি আগামী মাসের ১০তারিখে বসে সমাধান করা হবে।

!! মুক্তাঙ্গন ক্লাব এর উদ্যোগে মাসব্যাপী ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতার উদ্ভোধন !!


গত ২৩শে জানুয়ারি মুক্তাঙ্গন ক্লাব, চরিপাড়ার উদ্যোগে মাস ব্যাপী ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতার উদ্ভোধনী খলো আন্দুরমুখ বাজার সংলগ্ন স্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের সভাপতি নুরুল আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠতি সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রতিযোগিতার শুভ উদ্ভোধন ঘোষনা করেন কানাইঘাট উপজলো ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ও কানাইঘাট পৌর বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক মোঃ নুরুল ইসলাম, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চরিপাড়া স্কুল এন্ড  কলেজের ইংরেজী বিভাগের প্রভাষক ডিএইচ এম সেলিম, , বিশিষ্ট সমাজকর্মী জনাব গুলজার আহমদ চৌধুরী,  ডাঃ বিশ্বজি রায়, আলহাজ্ব আব্দুস সালাম, শিক্ষক জহির উদ্দিন চৌধুরী, বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী ও সমাজসেবী মাষ্টার এফ জামান, আশিকুর রহমান বুলবুল, ছাত্রদল নেতা আব্দুল বাছিত, মাহমুদ হোসাইন, আজমল হোসেন, তাজুল ইসলাম, কয়ছর আহমদ, সেবুল আহমদ, মাষ্টার উসমান আলী, মাওঃ ফয়ছল আহমদ মাষ্টার আফতাব উদ্দিন, মিনহাজ উদ্দিন ছয়ফুল আলম, ইকবাল হোসেন প্রমুখ


:: পুলিশ বাহিনীর জন্য পৃথক বিভাগ গঠিত হবে : প্রধানমন্ত্রী ::


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, পুলিশ বাহিনীর কর্মকাণ্ড অধিকতর দক্ষতার সঙ্গে সমন্বয় করতে এই বাহিনীর জন্য একটি পৃথক বিভাগ গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী গতকাল বুধবার 'পুলিশ সপ্তাহ-২০১৩' উপলক্ষে তাঁর কার্যালয়ে ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে ভাষণকালে বলেন, আমি মনে করি পুলিশ বাহিনীর জন্য পৃথক একটি বিভাগের প্রয়োজন। এটি যুক্তিসঙ্গত, যা আমাদের সক্রিয় বিবেচনায় রয়েছে। কিন্তু এজন্য সময় প্রয়োজন। তিনি বিষয়টি আগামী বাজেটে অন্তর্ভূক্ত করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়ে বলেন, এটি আগামী বছর সিদ্ধান্তটি বাস্তবায়নের সহায়ক হবে। 'দেশের সার্বিক উন্নয়নে পুলিশ বাহিনীর ভূমিকা সীমাহীন'-উল্লেখ করে শেখ হাসিনা সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গিবাদ দমনে পুলিশের ভূমিকায় সন্তোষ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, অনেক সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও পুলিশ বাহিনী বিশেষ করে সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদ দমনসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় ব্যাপক সাফল্য অর্জন করেছে। প্রধানমন্ত্রী সর্বোচ্চ পেশাদারিত্ব, আন্তরিকতা ও দক্ষতার সাথে জনগণের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার মাধ্যমে তাদের আস্তা ও বিশ্বাস অর্জন করতে পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানান। শেখ হাসিনা বলেন, প্রযুক্তি ও যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের সাথে অপরাধের ধরন ও কৌশল পাল্টাচ্ছে। অপরাধের সাথে জড়িত মানুষের সংখ্যা বেশি নয়, তবে তাদের অপরাধের ধরন এমন যে তারা সমাজের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের শান্তি বিনষ্ট করতে পারে। তিনি বলেন, 'বিএনপির পৃষ্ঠপোষকতায় জামায়াত-শিবির চক্র যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষা করতে দেশব্যাপী এক অরাজক পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে। তারা পুলিশের ওপর বর্বর হামলা চালিয়েছে। কিন্তু তারা এই বিচার বন্ধ করতে পারবে না। কারণ এটা গণমানুষের দাবি। বিচারের রায় অবশ্যই কার্যকর হবে।'

জনগণের মৌলিক অধিকার যেন লংঘিত না হয়, সে ব্যাপারে সজাগ থাকতে পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'একথা মনে রাখতে হবে যে, আপনাদের ছোট ছোট ভুলের জন্য সরকারের ভাবমূর্তি যেন ক্ষুণ� না হয়।' পুলিশ কর্মকর্তারা ত্যাগ ও সেবার আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে দেশ ও জনগণের কল্যাণে কাজ করতে এগিয়ে আসবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। শেখ হাসিনা বলেন, বর্তমান সরকার সুখী, সমৃদ্ধ ও নিরাপদ এক বাংলাদেশ গঠনে অঙ্গীকারাবদ্ধ। বিগত চার বছর তাঁর সরকার সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদে মদদ দেয়নি। তিনি বলেন, আইন-শৃঙ্খলা ও মানবাধিকার রক্ষা এবং জাতীয় ও স্থানীয় নির্বাচন অনুষ্ঠান এবং গুরুত্বপূর্ণ হত্যাকাণ্ডের তদন্তে পুলিশ বাহিনীর নিরপেক্ষ ও দায়িত্বশীল ভূমিকা প্রশংসিত হয়েছে। এজন্য তিনি পুলিশ বাহিনীর সকল সদস্যকে অভিনন্দন জানান। পুলিশ বাহিনীর উন্নয়নে নেয়া বিভিন্ন ব্যবস্থার উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর সরকার ২৮ বছর পর বঙ্গবন্ধুর দেয়া আইজিপি র‌্যাংক ব্যাজ পুনঃপ্রবর্তন করেছে। বর্তমান সরকার পুলিশের জন্য দু'টি প্রথম শ্রেণীর পদ সৃষ্টির সিদ্ধান্ত নিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর সরকার গত চার বছরে পুলিশ বাহিনীতে ৫শ' ক্যাডার পদসহ ২৭ হাজার ৫১৬টি নতুন পদ সৃষ্টি করেছে। সাব-ইন্সপেক্টর ও সার্জন পদকে দ্বিতীয় শ্রেণী এবং ইন্সপেক্টর পদকে প্রথম শ্রেণীর নন-ক্যাডার পদে উন্নীত করেছে। তিনি বলেন, সরকার পুলিশ বাহিনীর জন্য তিন বছর মেয়াদি কৌশল পরিকল্পনা (২০১২-২০১৪) প্রণয়ন করেছে। এছাড়া অবকাঠামো উন্নয়ন ও যানবাহনের যোগানসহ ব্যাপক উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করেছে।

তাঁর সরকার পদোন্নতি ও বদলির ক্ষেত্রে মেধা, দক্ষতা, পেশাগত অভিজ্ঞতাকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে - উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, 'আমরা প্রশিক্ষণের ওপর বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছি এবং পুলিশ বাহিনীকে একটি আধুনিক, গতিশীল, সময়োপযোগী এবং জনসেবামুখী প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি।' স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহিউদ্দিন খান আলমগীর, একই মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব সি কিউ কে মোস্তাক আহমেদ, পুলিশ মহাপরিদর্শক হাসান মাহমুদ খন্দকার এবং অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক শহীদুল হক অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট শামসুল হক টুকু ও প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব শেখ মো. ওয়াহিদ উজ জামান এসময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন।(ফেয়ার নিউজ)

!! যুবলীগ নেতার পিতা সমাজসেবী ফয়জুল হকের মৃত্যুতে আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের শোক !!

Kanaighat News on Wednesday, January 23, 2013 | 11:42 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কানাইঘাট পৌরসভার নন্দিরাই গ্রাম নিবাসী সমাজ সেবক ও উপজেলা যুবলীগের অন্যতম নেতা পাবেল আহমদের পিতা মোঃ ফয়জুল হক (৫৫) এর অকাল মৃত্যুতে শোকাহত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা ও মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে শোক প্রকাশ করেছেন আ’লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। শোকদাতারা হলেন-সিলেট-৫আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব হাফিজ আহমদ মজুমদার,জেলা আ’লীগের সভাপতি আব্দুজ জহির চৌধুরী সুফিয়ান,সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী এমপি,যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক এড.নাছির উদ্দিন খান, সাংস্কৃতিক সম্পাদক এমাদ উদ্দিন মানিক, প্রচার সম্পাদক এড.মাহফুজুর রহমান, উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মস্তাক আহমদ পলাশ, দপ্তর সম্পাদক জগলু চৌধুরী, কানাইঘাট উপজেলা আ’লীগের সিনিয়র যুগ্ন আহবায়ক ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম, যুগ্ন আহবায়ক রফিক আহমদ, মাসুদ আহমদ, এড. আব্দুস সাত্তার, এড.মামুন রশিদ, পৌর আ’লীগের আহবায়ক জামাল উদ্দিন, যুগ্ন আহবায়ক কেএইচএম আব্দুল্লাহ , নাজমুল ইসলাম হারুন, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ হোসেন খান, উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ন আহবায়ক শাহাব উদ্দিন, থানা শ্রমিক লীগের আহবায়ক জসিম উদ্দিন, সদস্য সচিব আলাউদ্দিন আল-আজাদ, থানা যুবলীগের অন্যতম নেতা আমিনুল ইসলাম বাবলু, শহীদুর রহমান, হাজী বিলাল , ইসমাঈল, দুলাল, কাওছার, সুলতান, রুমান, হারুন, নজমুল, ইসমাইল, আফজল, আরিফ, তাজ, থানা ছাত্রলীগের অন্যতম নেতা নজরুল ইসলাম সাজু,মারুফ আহমদ, আব্দুল্লাহ, আখতার, রুবেল, সাদেক , শাহার, ফয়ছল, খছরুজ্জামান, আশফাক, নাবিল, শহিদুল্লাহ, মামুন, তারেক, পারভেজ, নজির, জামাল, সুফিয়ান , দিলু, শাকির, মাফুজ, কানাইঘাট ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগ নেতা দেলোয়ার, ইমরান, আলমগীর , আবুল, রানা, সায়েম , মাহাদী, জয়নুল, মোশাররফ, জুনেদ, ফাহাদ, তুহিন, মিজান, সাহেদ, বাছিত, কাওছার, কামরুল, শাহীন, শাহরিয়া, মুন্না, জেহিন, নাইম,ইমরান প্রমুখ।

:: চাকুরী জাতীয়করণের দাবিতে কানাইঘাটে মাধ্যমিক শিক্ষকদের স্মারকলিপি ::

Kanaighat News on Tuesday, January 22, 2013 | 11:38 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক:
বেসরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয় শিক্ষক-কর্মচারীদের চাকুরী জাতীয়করণের দাবীতে বৃহত্তর জৈন্তিয়া কেন্দ্রিয় শিক্ষক পরিষদের পক্ষ থেকে আজ মঙ্গলবার কানাইঘাট, গোয়াইনঘাট ও জৈন্তাপুর উপজেলার কয়েকশত শিক্ষক-শিক্ষিকা মিছিল সহকারে চলমান অবিরাম ধর্মঘটের অংশ হিসেবে কানাইঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস.এম.সোহরাব হোসেনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেছেন। স্মারকলিপি প্রদানের পূর্বে সকাল ১১টায় কানাইঘাট ডাকবাংলো প্রাঙ্গনে জৈন্তিয়া কেন্দ্রীয় শিক্ষক পরিষদের নেতৃবৃন্দ সর্বস্তরের শিক্ষকবৃন্দ জমায়েত হয়ে চাকুরী জাতীয়করনের দাবীতে প্রতিবাদ সভা করেন। বৃহত্তর জৈন্তিয়া কেন্দ্রীয় শিক্ষক পরিষদের আহবায়ক মামুন আহমদের সভাপতিত্বে ও বীরদল এন এম একাডেমীর প্রধান শিক্ষক জার উল্লা’র পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন চরিপাড়া স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মুজম্মিল আলী, কানাইঘাট বাশিস’র সভাপতি মুফজ্জিল আলী, সচিব ফজলুর রহমান, গোয়াইনঘাট বাশিস’র সভাপতি সরওয়ার হোসেন, সচিব সলিমুল্লাহ,জৈন্তিয়া বাশিস’র সচিব আব্দুল জলিল,মানিকগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এখলাছ-ই এলাহি, গাছবাড়ি মডার্ণ একাডেমীর প্রধান শিক্ষক মিফতাহুল বর চৌধুরী,বশির আহমদ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুল আমিন, সড়কের বাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক মতিউর রহমান, সুরতুননেছা মেমোরিয়েল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাজ উদ্দিন সাজু, বীরদল এন এম একাডেমী’র সহকারী প্রধান শিক্ষক মহিউদ্দিন প্রমুখ। উল্লেখ্য যে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কর্মচারীদের চাকুরী জাতীয় করনের দাবীতে এ শিক্ষক সংগঠনের উদ্যোগে ১৪ জানুয়ারী হইতে অদ্যবধি পর্যন্ত এ তিন উপজেলার সকল মাধ্যমিক স্কুলে থালা ঝুলিয়ে ক্লাস বর্জন করে শিক্ষক কর্মচারীরা অবিরাম ধর্মঘট চালিয়ে যাওয়ায় সার্বিক শিক্ষা কার্যক্রম পাঠদানে মারাত্মক ব্যাঘাত ঘটছে।

!! কানাইঘাটে ভূমি অফিসের সদ্য যোগদানকৃত আব্দুল লতিফ বদলি !!

Kanaighat News on Monday, January 21, 2013 | 10:44 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক:
নারী কেলেঙ্কারির ঘটনায় গত ২৪ ডিসেম্বর বিশ্বনাথ উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার আব্দুল লতিফকে সেখান থেকে প্রত্যাহার করে কানাইঘাট উপজেলা ভূমি অফিসে বদলি করা হয়। গত ৩০ ডিসেম্বর সার্ভেয়ার আব্দুল লতিফ কানাইঘাট ভূমি অফিসে যোগদান করার পর তার নানা বিতর্কিত কর্মকান্ডের কারনে জেলা প্রশাসকের কার্য্যালয়ের এক স্মারকে আব্দুল লতিফকে কানাইঘাট থেকে পুনরায় আজ সোমবার প্রত্যাহার করে জেলা প্রশাসকের ভূমি হুকুম দখল শাখায় বদলি করা হয়েছে। তার বদলির বিষয়টি আজ কার্যকর করা হয়েছে বলে স্থানীয় প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে।

জৈন্তাপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি একেএম কুদরতের মৃত্যুতে কানাইঘাট প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দের শোক

নিজস্ব প্রতিবেদক:
জৈন্তাপুর প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং বৃহত্তর জৈন্তিয়া সাংবাদিক ফোরামের যুগ্ম আহবায়ক প্রবীণ, সাংবাদিক এ.কে.এম কুদরতের মৃত্যুতে শোকাহত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা এবং মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেছেন, কানাইঘাট প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ। এক শোক বার্তায় নেতৃবৃন্দ বলেন, এ.কেএম কুদরতের মৃত্যুতে বৃহত্তর জৈন্তিয়াবাসী একজন নির্ভিক কলম সৈনিককে হারিয়েছে যা পূরণ হওয়ার মত নয়। তিনি দীর্ঘদিন সাংবাদিকতার সাথে জড়িত থেকে সৎ ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে এলাকার আর্থ উন্নয়নে বিরাট ভূমিকা পালনের পাশাপাশি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সমাজ সেবায় নিয়োজিত ছিলেন। তার মৃত্যুতে মফস্বল সাংবাদিকরা একজন সত্যিকার অভিভাবককে হারিয়েছে। শোকদাতারা হলেন, কানাইঘাট প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এম.এ.হান্নান, সহসভাপতি বাবুল আহমদ, আব্দুর রব, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এখলাছুর রহমান, দপ্তর ও পাঠাগার সম্পাদক নিজাম উদ্দিন, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক জামাল উদ্দিন, সমাজসেবা সম্পাদক মিছবাউল ইসলাম চৌধুরী, সদস্য ময়নুল হক বুলবুল, শাহজাহান সেলিম বুলবুল, কুহিনুর চৌধুরী, মাহবুবুর রশিদ, আব্দুন নুর, কাওছার আহমদ প্রমুখ।

:: জেলা বঙ্গবন্ধু প্রজন্ম লীগের নেতৃবৃন্দকে অভিনন্দন ::

সিলেট জেলা নবগঠিত বঙ্গবন্ধু প্রজন্ম লীগের সভাপতির এডভোকেট দীপক চৌধুরীর সাধারণ সম্পাদক জুনেদ আলী এবং সাংগঠনিক সম্পাদক খোয়াজ আলীসহ নেতৃবৃন্দকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন, কানাইঘাট উপজেলা যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ। এক অভিনন্দন বার্তায় নেতৃবৃন্দ নবগঠিত কমিটির নেতৃত্বে সিলেটে বঙ্গবন্ধুর লক্ষ্য আদর্শ, তৃণমূল পর্যায়ের আরো বিকাশিত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। অভিনন্দন দাতারা হলেন, উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র সদস্য আবুল হারিছ, পৌর আ’লীগের সদস্য নজরুল ইসলাম, এম.সি.কলেজ ছাত্রলীগ নেতা রুমান আহমদ, মদন মোহন কলেজ ছাত্রলীগ নেতা মার্শেদ আহমদ প্রমুখ। (বিজ্ঞপ্তি)



:: কানাইঘাটে সাইদুর রহমান হত্যাকান্ড !! প্রেমিকার মা-বাবা গ্রেফতার !!

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কানাইঘাটে চাঞ্চল্যকর সাইদুর রহমান হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত সন্দেহে প্রেমিকার বাবা ও মা দু’জনকেই গ্রেফতার করেছে কানাইঘাট থানা পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন– নিহত সাইদুর রহমানের প্রেমিকা ফাতেমা বেগমের বাবা আব্দুল কুদ্দুস (৫৮) ও মা বদরুন নেছা(৫০)। জানা যায় ,গত রোববার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কানাইঘাট থানার একদল পুলিশ উপজেলার রাজাগঞ্জ এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করে। আজ সোমবার গ্রেফতারকৃতদের আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। উল্লেখ্য যে,গত বৃহস্পতিবার রাতে রাজাগঞ্জ ইউপির বীরদল মাঝপাড়া গ্রামের প্রেমিক সাইদুর রহমান তার প্রেমিকা একই গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের মেয়ে ফাতেমা বেগমের সাথে তার বাড়ীতে দেখা করতে গেলে নির্মমভাবে খুন হন। এ ঘটনায় নিহত সাইদুরের মা নেহারুন নেছা বাদী হয়ে কানাইঘাট থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। যার নং- (১৫), ১৮-০১-০১৩ ইং। ঘটনার পর থেকে প্রেমিকা ফাতেমা বেগম পলাতক রয়েছে।

!! গাছবাড়ী বাজারে দুই গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষ ॥ আহত ৬ !!

Kanaighat News on Sunday, January 20, 2013 | 10:32 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক:
মামলা সংক্রান্ত বিরোধ ও এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে আজ রোববার কানাইঘাট গাছবাড়ী বাজারে স্থানীয় গোয়ালজুর ও আমরপুর গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষের ৬জন আহতের খবর পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় কানাইঘাট থানায় পাল্টাপাল্টি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। জানা যায়,  রোববার রাত অনুমান ৭টার দিকে গাছবাড়ী বাজারের মৌচাক মার্কেটের একটি চা-স্টলে গোয়ালজুর গ্রামের আব্দুল লতিফ (৬০) গ্রামের কয়েকজনকে নিয়ে গল্প করছিলেন। এসময় আমরপুর গ্রামের বাসিন্দা ইউপি সদস্য এখলাছুর রহমানের হুকুমে শাহাব উদ্দিন গংরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে ধারালো অস্ত্র, লাঠি-সোঠা নিয়ে গোয়ালজুর গ্রামের আব্দুল লতিফ গংদের উপর হামলা চালায়। এসময় উভয় পরে মধ্যে সংঘর্ষে গোয়ালজুর গ্রামের আব্দুল লতিফ তার পুত্র সেলিম উদ্দিন (২৪), ফখরচটি গ্রামের মুশাহিদ আলী (৭০) এবং আমরপুর গ্রামের নাজিম উদ্দিন (২৮), জয়নাল আবেদীন (৩০), সাহাব উদ্দিনসহ কয়েকজন আহত হন। আহতদের মধ্যে ৪জনকে কানাইঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং গুরুতর আহত মুশাহিদ আলীকে সিলেট ওমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

:: এলজিএসপির প্রকল্প তদন্তকালে!!কানাইঘাট সদর ইউনিয়নের দু’পক্ষের মধ্যে তুলকালাম কান্ড ::

নিজস্ব প্রতিবেদক:
আজ রবিবার কানাইঘাট সদর ইউনিয়নের ২০১০-১১ অর্থ বছরের এলজিএসপি প্রকল্পের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে ব্যাপক অনিয়ম দূর্নীতি এবং অর্থ আত্মসাতের ঘটনার সরজমিন তদন্তকালে দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা ও আহতের ঘটনায় তোলকালাম কান্ড ঘটেছে। প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছ থেকে জানা যায়, এলজিএসপির বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ না করে টাকা আত্মসাৎ ও অনিয়ম দূনীতির অভিযোগ এনে সম্প্রতি সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে স্থানীয় কিছু লোকজন বাদী হয়ে সরকারের বিভিন্ন দফতরে অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে আজ উপজেলা প্রকৌশলী রিয়াজ মাহমুদের নেতৃত্বে স্থানীয় এলজিইডির একদল কর্মকর্তা ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলামের উপস্থিতিতে ২০১০-১১ অর্থ বছরের এলজিএসপি প্রকল্পের কাজ তদন্ত করতে যান। এক পর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বুরহান উদ্দিন সড়ক হইতে কচুপাড়া ইটসলিং রাস্তা তদন্তের সময় প্রকৌশলী রিয়াজ মাহমুদ গত বছর এ রাস্তায় কোন ইটসলিংয়ের কাজ হয়েছে কিনা স্থানীয় মাষ্টার ফয়জুল হকের পুত্র বিলাল আহমদের কাছে জানতে চান। সে কোন কাজ হয়নি উল্লেখ করলে এ সময় উপস্থিত উপজেলা ছাত্রলীগের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক নাজমুল ইসলাম হারুন, ছাত্রলীগ নেতা মারুফ আহমদসহ আরো কয়েকজন ইউপি চেয়ারম্যানের পক্ষ নিয়ে বিলাল আহমদকে বেধড়ক পেটাতে থাকেন। এসময় তার চাচা সাহাব উদ্দিন ও এলাকার লোকজন তাকে রক্ষা করার জন্য এগিয়ে আসলে তাদের উপরও আক্রমণ করে। এতে এলাকার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে পাল্টা হামলার চেষ্টা করলে হারুন-মারুফসহ ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী চটিগ্রামের ইসরাক আলীর বাড়ীতে গিয়ে আশ্রয় নেন এবং সরকারী কর্মকর্তারাও নিরাপদে চলে যান এ সময় ছাত্রলীগ কর্মীদের দু’টি মোটরসাইকেল আটক করে স্থানীয় লোকজন। উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে এক পর্যায়ে দ্রুত কানাইঘাট থানার সিনিয়র সাব-ইন্সপেক্টর মাসুদ পারভেজের নেতৃত্বে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের ও মোটর সাইকেল দুটি উদ্ধার করেন। স্থানীয় মুরব্বি মাষ্টার ফয়জুল হক, মৌলভী মালিক মিয়া, শামীম আহমদ, ফয়জুল হাসান, হেলাল আহমদ ও রফিক মিয়াসহ আরো অনেকে জানিয়েছেন, বিগত বছরে কচুপাড়া রাস্তায় কোন ধরণের ইটসলিংয়ের কাজ হয়নি। এছাড়া বীরদল বাজার একতা সড়কে নামমাত্র ইটসলিংয়ের কাজ করা হয়েছে। তদন্তের সময় তারা সরকারী কর্মকর্তাদের এলজিএসপির অর্থায়নে বিভিন্ন প্রকল্পের কাজের অনিয়ম, দুর্নীতির চিত্র তুলে ধরার চেষ্টা করলে চেয়ারম্যানের সাথে থাকা সদর ইউপির নাগরিক নন নাজমুল ইসলাম হারুন সহ আরো অনেকে স্থানীয় লোকজনকে হুমকী ধমকিসহ কয়েকজনকে শারীরিক ভাবে নির্যাতন করে। তবে ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম তার বিরুদ্ধে এলজিএসপির টাকা আত্মসাৎ ও বিভিন্ন প্রকল্পের কাজে যে অনিয়মের অভিযোগ আনা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন উল্লেখ করে বলেন, তিনি সুষ্ঠুভভাবে সবকটি প্রকল্পের কাজ করেছেন। নির্বাচনকেন্দ্রিক বিরোধ নিয়ে প্রতিহিংসার বশঃবর্তী হয়ে তার বিরুদ্ধে এ অপপ্রচার করা হচ্ছে। আজকের ঘটনাটি সম্পূর্ণ ষড়যন্ত্র ও পরিকল্পিত ভাবে করা হয়েছে তাকে হেয়প্রতিপন্ন করার জন্য। ছাত্রলীগ নেতা নাজমুল ইসলাম হারুন জানান, স্থানীয় কিছু বখাটে প্রকৃতির লোক সরকারী কাজের তদন্তের সময় বাধা দিলে আমরা এর প্রতিবাদ করলে আমাকেসহ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের উপর হামলা চেষ্টা করা হয়। উপজেলা প্রকৌশলী রিয়াজ মাহমুদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ২০১০-১১ অর্থবছরের সদর ইউনিয়নে এলজিএসপির উন্নয়নমূলক কাজে দুর্নীতির অভিযোগ এনে এলাকাবাসী কর্তৃক দায়েরকৃত অভিযোগের প্রেক্ষিতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে আমি প্রকল্পগুলো সরজমিন তদন্ত করেছি। তদন্তের স্বার্থে এ মুহুর্তে সবকিছু বলা যাচ্ছে না বলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান।





:: কানাইঘাটে বাড়ীর সীমানার জায়গা নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ॥ আহত- ১০ ::

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কানাইঘাট পৌরসভার বিষ্ণুপুর গ্রামে আজ রবিবার অনুমান সকাল ১০টার দিকে বসতবাড়ীর সীমানার জায়গা নির্ধারন নিয়ে পূর্ব বিরোধের জের ধরে দু’পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে উভয় পরে ১০জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আহতদের মধ্যে ৪জনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাদের কানাইঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট ওমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় কানাইঘাট থানায় পাল্টাপাল্টি মামলা দায়ের হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। থানায় দায়েরকৃত অভিযোগ ও স্থানীয় লোকজনদের কাছ থেকে জানা যায়, বাড়ীর সীমানা নির্ধারন নিয়ে বিষ্ণুপুর গ্রামের সমছুল হক (৭০) গং এবং পার্শ্ববর্তী বাড়ীর শফিক উদ্দিন (৬৫) গংদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। রবিবার সকাল ১০টার দিকে বাড়ীর সীমানার জায়গা চিহ্নিত করন নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে প্রথমে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে দু’পক্ষের মধ্যে গুরুতর আহত শফিক উদ্দিন (৬৮), তার ছেলে সাহেদুল ইসলাম (৩০), সমছুল হকের ছেলে ফখরুল ইসলাম (৪০), নুরুল ইসলাম (৪৫) কে সিলেট ওমেক হাসপাতালে প্রেরণ এবং কামরুল ইসলাম (১৬), সামছুল হক (৭০), আবুল হাসনাত (৩১) কে কানাইঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় উভয় পক্ষ একে অপরকে দায়ী করে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।

:: যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায় কার্যকর করার দাবীতে গাছবাড়ী বাজারে আ’লীগের মিছিল সমাবেশ !!

Kanaighat News on Saturday, January 19, 2013 | 8:47 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক:
অবিলম্বে চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায় কার্যকর করার দাবীতে কানাইঘাট উপজেলার ৭, ৮, ৯ নং ইউপি আ’লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের যৌথ উদ্যোগে আজ শনিবার বিকেল ৪টায় কানাইঘাট গাছবাড়ী বাজার বন্ধন কমিউনিটি সেন্টারে কর্মীসমাবেশ পরবর্তী বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা আ’লীগ নেতা সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মাওঃ ফজলে হকের সভাপতিত্বে ও আ’লীগ নেতা ওলিউর রহমান উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক নাজিম উদ্দিনের যৌথ পরিচালনায় যুদ্ধাপরাধীদের রায় কার্যকর করার দাবীতে উক্ত কর্মীসমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আ’লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক এমাদ উদ্দিন মানিক। বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম আহবায়ক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদ আহমদ, যুগ্ম আহবায়ক এডভোকেট আব্দুস সাত্তার, আ’লীগ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম, ছাইফুল্লাহ খালেদ, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন, সুহেল আহমদ, জুবায়ের, আলা উদ্দিন মেম্বার, মর্তুজ আলী মেম্বার, নুরুল হক মেম্বার। বক্তব্য রাখেন হেলাল উদ্দিন, নিয়াজ উদ্দিন, আব্দুল মালিক, মখলিছ, জেলা ছাত্রলীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক শাহরিয়র বখত সাজু, ছাত্রলীগ নেতা হারুন রশিদ, বেলাল আহমদ, যুবলীগ নেতা জিয়া উদ্দিন। কর্মী সমাবেশ শেষে বাদ মাগরিব যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায় দ্রুত কার্যকর করার দাবী জানিয়ে বাজারে  ৭নং বানীগ্রাম, ৮নং ঝিংগাবাড়ী ও ৯নং রাজাগঞ্জ ইউপি আ’লীগ ও অঙ্গসংগঠনের যৌথ উদ্যোগে এক বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

!! ভাড়ারী মাটি গোপীনাথ ঠাকুরের আখড়ায় হরিনাম লীলা সংকীর্ত্তণ সম্পন্ন !!

নিজস্ব প্রতিবেদক:
হাজার হাজার হিন্দু সম্প্রদায়ের পুণ্যার্থীদের উৎসবমুখর উপস্থিতিতে কানাইঘাটের গাছবাড়ী ভাড়ারি মাটি শ্রী শ্রী গোপীনাথ ঠাকুরের আখড়ার ৩ দিনব্যাপী অষ্টপ্রহর হরিনাম লীলা সংকীর্ত্তণ ধর্মীয় অনুষ্ঠান আজ শনিবার সম্পন্ন হয়েছে। শত বছরের পুরনো কানাইঘাটের প্রাচীনতম এ আখড়ায় প্রথানুযায়ী প্রতিবছর হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনদের অংশগ্রহণে ধর্মীয় অনুষ্ঠানমালা পালিত হয়ে আসলেও এলাকার একটি প্রভাবশালী চক্র এ আখড়ার দেবত্তর সম্পত্তি জালিয়াতির মাধ্যমে দখলের চেষ্টা এবং দীর্ঘদিন ধরে আখড়ায় অবস্থিত ছোট বড় মন্দিরগুলো সংস্কার না হওয়ায় আখড়ার ঝরাজীর্ণ দশাসহ নানা কারনে বিগত ২৫ বছর ধরে শ্রী শ্রী গোপীনাথ ঠাকুরের আখড়ায় ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন বন্ধ ছিল। আখড়ার জায়গা দখল নিয়ে স্থানীয় ও জাতীয় পত্রিকায় কয়েকমাস পূর্বে



স্থানীয় সাংবাদিকদের বরাত দিয়ে একাধিক সংবাদ প্রকাশিত হলে প্রশাসনের টনক নড়ে। উর্ধ্বতন প্রশাসনের বাস্তব পদক্ষেপ গ্রহণের কারনে নির্ভয়ে আখড়া পরিচালনা কমিটির উদ্যোগে গত বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার পর্যন্ত ৩ দিনব্যাপী ধর্মীয় অনুষ্ঠান আখড়া প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত ধর্মীয় অনুষ্ঠানে কানাইঘাট, জকিগঞ্জ, বিয়ানীবাজার, গোলাপগঞ্জ, জৈন্তাপুর ও সিলেট সদর উপজেলার হাজার হাজার হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের সমাগম ঘটে। এলাকার মুসলিম সম্প্রদায়ের সর্বস্তরের মানুষ হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করে তাদের সার্বিক সহযোগিতা করেছেন বলে উদ্যাপন কমিটির নেতৃবৃন্দ জানিয়েছেন। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশিক উদ্দিন চৌধুরী গত শুক্রবার আখড়ায় উপস্থিত হয়ে পূণ্যার্থীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করে এ আখড়ার উন্নয়ন ও সংস্কারের জন্য উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন। তিনি কানাইঘাটকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির জনপদ উল্লেখ করে বলেন, যুগ যুগ ধরে এখানে হিন্দু ও মুসলিম সম্প্রদায়ের লোকজন শান্তিপূর্ণভাবে তাদের ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন করে আসছেন।



!! কানাইঘাটে প্রেমিকার সাথে দেখা করতে গিয়ে লাশ হয়ে বাড়ী ফিরলেন প্রেমিক সাইদুর !!



নিজস্ব প্রতিবেদক:
কানাইঘাট উপজেলার রাজাগঞ্জ ইউনিয়নের বীরদল মাঝপাড়া গ্রামে তালতো বোনের সাথে প্রেমের সম্পর্কের জের ধরে গোপনে তার বাড়ীতে দেখা করতে গিয়ে রহস্যজনক ভাবে খুন হয়েছেন সাইদুর রহমান নামের ২০ বছরের এক যুবক। এ ঘটনায় এলাকাজুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। সাইদুর রহমানকে তালাতো ভাইয়ের পরিবারের লোকজন কর্তৃক পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করে তার লাশ প্রেমিকার বাড়ীর পুকুরে ফেলে রাখার অভিযোগ উঠেছে। খবর পেয়ে কানাইঘাট থানা পুলিশ আজ শুক্রবার ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সিলেট ওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছেন। পুলিশ ও বাদীর এজাহার সূত্রে জানা যায়, একই গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের কন্যা তালতো বোন ফাতেমা বেগমের সাথে সাইদুর রহমানের সাথে দীর্ঘদিনের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে ছিল। এরই সুবাদে প্রায়ই সাইদুর প্রেমিকার বাড়ীতে যাতায়াত করত। বিষয়টি জানতে পেরে ফাতেমার অভিভাবক সাইদুর রহমানের পরিবারের কাছে বিয়ের প্রস্তাব দিলে সাইদুরের পরিবার তা প্রত্যাখান করে। এঘটনায় ফাতেমার  অভিভাবকগণ ক্ষুব্ধ   হয়ে সাইদুরকে তাদের বাড়ীতে আসতে নিষেধ করেন। কিন্তু প্রেমের টানে গোপনে গোপনে সকল বাঁধা উপো করে সাইদুর প্রায়ই প্রেমিকার বাড়ীতে গিয়ে তার সাথে দেখা করত। এরই ধারাবাহিকতায় গত বৃহস্পতিবার সাইদুর রহমানের ভাই বিলালের শ্বশুর আব্দুল কুদ্দুসের বাড়ীর পাশের মাঠে ফুটবল খেলা শেষে অনুমান সন্ধ্যা ৭টায় সাইদুর প্রেমিকার বাড়ীতে যায়। ঐদিন অনুমান রাত ১০ টায় বিলালের শ্বশুর আব্দুল কুদ্দুস সাইদুরের বাড়ীতে গিয়ে জানান যে, সাইদুরের লাশ তাদের বাড়ীর পুকুরে ভাসছে। খবর পেয়ে সাইদুরের আত্মীয়-স্বজন দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে এসে পুকুর থেকে সাইদুরের লাশ পাড়ে তুলেন এবং স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে বিষয়টি অবহিত করেন। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে জনসাধারণের মধ্যে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। এ ব্যাপারে নিহতের মা নেহারুন বেগম (৬০) বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামাদের আসামী করে কানাইঘাট থানায় একটি হত্যা মামলা (নং-১৫,(০১)১৩) দায়ের করেন। চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। এ ব্যাপারে কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল হাইর সাথে কথা হলে তিনি কানাইঘাট নিউজকে জানান, ঘটনার খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে পৌছে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে ময়না তদন্তের জন্য ওমেক হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছি। সুরতহাল রিপোর্ট তৈরীর সময় মৃতের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

!! কানাইঘাটে প্রেমিকার সাথে দেখা করতে গিয়ে লাশ হয়ে বাড়ী ফিরলেন প্রেমিক সাইদুর !!

Kanaighat News on Friday, January 18, 2013 | 8:35 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কানাইঘাট উপজেলার রাজাগঞ্জ ইউনিয়নের বীরদল মাঝপাড়া গ্রামে তালতো বোনের সাথে প্রেমের সম্পর্কের জের ধরে গোপনে তার বাড়ীতে দেখা করতে গিয়ে রহস্যজনক ভাবে খুন হয়েছেন সাইদুর রহমান নামের ২০ বছরের এক যুবক। এ ঘটনায় এলাকাজুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। সাইদুর রহমানকে তালাতো ভাইয়ের পরিবারের লোকজন কর্তৃক পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করে তার লাশ প্রেমিকার বাড়ীর পুকুরে ফেলে রাখার অভিযোগ উঠেছে। খবর পেয়ে কানাইঘাট থানা পুলিশ আজ শুক্রবার ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সিলেট ওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছেন। পুলিশ ও বাদীর এজাহার সূত্রে জানা যায়, একই গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের কন্যা তালতো বোন ফাতেমা বেগমের সাথে সাইদুর রহমানের সাথে দীর্ঘদিনের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে ছিল। এরই সুবাদে প্রায়ই সাইদুর প্রেমিকার বাড়ীতে যাতায়াত করত। বিষয়টি জানতে পেরে ফাতেমার অভিভাবক সাইদুর রহমানের পরিবারের কাছে বিয়ের প্রস্তাব দিলে সাইদুরের পরিবার তা প্রত্যাখান করে। এঘটনায় ফাতেমার অভিভাবকগণ ক্ষুব্ধ   হয়ে সাইদুরকে তাদের বাড়ীতে আসতে নিষেধ করেন। কিন্তু প্রেমের টানে গোপনে গোপনে সকল বাঁধা উপো করে সাইদুর প্রায়ই প্রেমিকার বাড়ীতে গিয়ে তার সাথে দেখা করত। এরই ধারাবাহিকতায় গত বৃহস্পতিবার সাইদুর রহমানের ভাই বিলালের শ্বশুর আব্দুল কুদ্দুসের বাড়ীর পাশের মাঠে ফুটবল খেলা শেষে অনুমান সন্ধ্যা ৭টায় সাইদুর প্রেমিকার বাড়ীতে যায়। ঐদিন অনুমান রাত ১০ টায় বিলালের শ্বশুর আব্দুল কুদ্দুস সাইদুরের বাড়ীতে গিয়ে জানান যে, সাইদুরের লাশ তাদের বাড়ীর পুকুরে ভাসছে। খবর পেয়ে সাইদুরের আত্মীয়-স্বজন দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে এসে পুকুর থেকে সাইদুরের লাশ পাড়ে তুলেন এবং স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে বিষয়টি অবহিত করেন। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে জনসাধারণের মধ্যে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। এ ব্যাপারে নিহতের মা নেহারুন বেগম (৬০) বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামাদের আসামী করে কানাইঘাট থানায় একটি হত্যা মামলা (নং-১৫,(০১)১৩) দায়ের করেন। চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। এ ব্যাপারে কানাইঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল হাইর সাথে কথা হলে তিনি কানাইঘাট নিউজকে জানান, ঘটনার খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে পৌছে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে ময়না তদন্তের জন্য ওমেক হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছি। সুরতহাল রিপোর্ট তৈরীর সময় মৃতের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

:: কানাইঘাটে পুলিশ এ্যাসল্ট মামলার পলাতক দুই আসামী গ্রেফতার ::

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কানাইঘাটে পুলিশের উপর হামলার সাথে জড়িত সন্দেহে দুই ব্যক্তিকে গত বৃহস্পতিবার গ্রেফতার করেছে কানাইঘাট থানা পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলো গাছবাড়ী এলাকার আব্দুর রহিম (৩০) ও আনোয়ার (২০)। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ২০ অক্টোবর জৈন্তাপুর উপজেলার একটি হত্যা মামলার এজাহার নামীয় পলাতক আসামী মোহাম্মদ আলীকে গ্রেফতার করে নিয়ে আসার সময় এলাকার চিহ্নিত একদল বখাটে লোকজন পুলিশের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে গ্রেফতারকৃত মোহাম্মদ আলীকে হ্যান্ডকাফসহ ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় কানাইঘাট থানা পুলিশ মোহাম্মদ আলীকে প্রধান আসামী করে অজ্ঞাতনামা ২০/২৫ জনকে আসামী করে একটি পুলিশ এ্যাসল্ট মামলা দায়ের করে। এ মামলার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে গতকাল গভীর রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এসআই মাসুদ পারভেজ গাছবাড়ী এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করতে সম হয়।



!! বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু !!

টঙ্গীতে তাবলীগ জামাতের' ৪৭তম বিশ্ব ইজতেমা'র দ্বিতীয় পর্ব শুরু । দ্বিতীয় পর্বে ঢাকা জেলাসহ ৩৬টি জেলার তাবলীগ জামাতের মুসল্লিগণ ৩৮টি খিত্তায় অবস্থান করবেন। ইতোমধ্যে হাজার হাজার মুসলি ইজতেমা ময়দানে অবস্থান নিয়েছেন। আগামী ২০ জানুয়ারি রোববার আখেরী মোনাজাতের মাধ্যমে এবারের বিশ্ব ইজতেমার সমাপ্তি ঘটবে। এর আগে গত ১১ জানুয়ারি থেকে শুরু হয়ে ১৩ জানুয়ারি আখেরী মোনাজাতের মাধ্যমে বিশ্ব ইজতেমার ১ম পর্ব শেষ হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার ইজতেমা ময়দান ঘুরে দেখা গেছে, তাবলীগ জামাতের স্বেচ্ছাসেবকরা প্রথম পর্বের ময়লা আবর্জনা অপসারণ করে দ্বিতীয় পর্বের জন্য ইজতেমা ময়দানকে প্রস্তুত করছেন। ইতোমধ্যে বিভিন্ন জেলার তাবলীগ জামাতের লাখো মুসলি ইজতেমা মাঠে এসে নিজ নিজ জেলাওয়ারি খিত্তায় অবস্থান করছেন। শুক্রবার বাদ ফজর আ'ম বয়ানের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমা শুরু হবে। তবে বৃহস্পতিবার বাদ আছর থেকে বয়ান কার্যক্রম শুরু হয়েছে। আন্তর্জাতিক ব্যবস্থাপনা বিষয়ক জিম্মাদার প্রকৌশলী মোঃ গিয়াস উদ্দিন জানান, বৃহস্পতিবার বাদ আছর থেকেই ইজতেমায় সমবেত মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে তাবলীগ মুরব্বীদের বয়ান শুরু হয়েছে। প্রথম পর্বের ১হাজার ২শ' বিদেশী মুসল্লিসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের অনেক মুসলী বিভিন্ন মেয়াদি চিল্লার নিয়ত করে জামাতবন্দি হয়ে ইজতেমা ময়দানেই রয়েছেন। তারা দ্বিতীয় পর্বের আখেরী মোনাজাত শেষ করে তাবলীগের কাজে বিভিন্ন অঞ্চলে বেরিয়ে যাবেন। দ্বিতীয় পর্বেও শুক্রবারের জুম্মার নামাজে ইজতেমায় লাখ লাখ মুসলী অংশ নেবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। এ পর্বেও বিদেশী মেহমানদের টিনের সামিয়ানার পূর্ব পাশে স্থাপিত মূল মঞ্চ থেকে তাবলীগ জামাতের শীর্ষ মুরুব্বীগণ আরবি ও উর্দুতে বয়ান করবেন এবং মুসল্লিদের সুবিধার্থে তা বাংলা, আরবি, উর্দু ভাষায় তরজমা করে প্রচার করা হবে।



ইজতেমা এলাকায় গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি সংযোগ, মুসল্লিদের প্রাথমিক চিকিৎসা সেবাসহ সরকারি-বেসরকারি দপ্তরের বিভিন্ন সেবা কার্যক্রম প্রথম পর্বের ন্যায় দ্বিতীয় পর্বেও অব্যাহত রয়েছে। ইতোমধ্যে ইজতেমা ময়দানে গাজীপুর জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর, টঙ্গী পৌরসভা ও ওয়াসা পানি সরবরাহ শুরু করেছে। মুসল্লিদের সুশৃঙ্খল অবস্থানের জন্য ইজতেমা ময়দানে চটের তৈরি পুরো প্যান্ডেলকে দ্বিতীয় পর্বে ৩৮টি খিত্তায় ভাগ করে বিভিন্ন জেলাওয়ারী মুসল্লিদের অবস্থানের জন্য স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রথম পর্বে খিত্তার সংখ্যা ছিল ৪০টি। প্রথম পর্বে অংশগ্রহণকারীজেলা সমূহের মুসল্লিরা ২য় পর্বে অংশ নিচ্ছেন না। ঢাকা মহানগর এলাকার জন্য সাধারণ পার্কিং নিকুঞ্জ-১ আবাসিক এলাকার খালি জায়গা। উত্তরা ৬নং সেক্টর ও রাজউক কলেজের আশপাশের খালি জায়গা। সিলেট বিভাগের পার্কিং-উত্তরা ১২নং সেক্টর। বরিশাল বিভাগ পার্কিং-ধৌড় ব্রিজ ক্রসিং সংলগ্ন পার্কিং (ধৌড় ব্রিজ থেকে ২০০ গজ পশ্চিমে রাস্তার বাম পাশে)। ঢাকা বিভাগের পার্কিং- সোনারগাঁও জনপথ সড়কের পূর্ব থেকে পশ্চিম প্রান্ত। খুলনা বিভাগের পার্কিং-উত্তরা ১০ ও ১১ নং সেক্টর সড়কের উভয় পার্র্শ্ব। রংপুর বিভাগ পার্কিং- প্রতাশা হাউজিং। চট্টগ্রাম বিভাগের পার্কিং-উত্তরা ১৩নং সেক্টরস্থ গাউছুল আজম রোড ও গরীবে নেওয়াজ রোডের উভয় পার্র্শ্ব। রাজশাহী বিভাগের পার্কিং- কামারপাড়া হাউজিং মাঠ এবং উত্তরা ১০ নং সেক্টরের খালি জায়গা। চিকিৎসা সেবায় বেসরকারিভাবে এবারও প্রথম পর্বের ন্যায় হামর্দদ ল্যাবরেটরিজ, ইবনে সিনা ফার্মাসিউটিক্যাল্স, জনকল্যাণ ফার্মাসিউটিক্যালস, টঙ্গী ওষুধ ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতিসহ বেশ কয়েকটি সংগঠন এবং সরকারিভাবে গাজীপুর সির্ভিল সার্জন অফিস, টঙ্গী পৌরসভা ও র‌্যাব ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্প চালু করেছে। টঙ্গী উন্নয়ন পরিষদ মুসল্লিদের মাঝে বিনামূল্যে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের ব্যবস্থা নিয়েছেন বলে জানান উন্নয়ন পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা মোস্তফা হুমায়ুন হিমু। প্রথম পর্বের ন্যায় এ পর্বেও শনিবার বাদ আছর যৌতুক বিহীন গণবিবাহ অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান ইজতেমায় দায়িত্ব পালনরত মুরুব্বী।



র‌্যাব ও পুলিশ ওয়াচ টাওয়ারের মাধ্যমে ইজতেমা মাঠে মুসল্লিদের নিরাপত্তাদানে সার্বক্ষণিক নজরদারী করছে। এছাড়াও বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে মুসল্লিদের নিরাপত্তার দিকটি সার্বক্ষণিক নজর রাখছেন। গাজীপুর জেলা পুলিশ সুপার আব্দুল বাতেন জানান, এবারের দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমায়ও ৪ স্তরের নিরাপত্তায় ১০ হাজারের বেশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য নিয়োজিত রয়েছে। টঙ্গী থানার ওসি মোঃ ইসমাইল হোসেন জানান, আল্লাহর রহমতে প্রথম পর্বের বিশ্ব ইজতেমা যেমন সুশৃঙ্খলভাবে সুসম্পন্ন হয়েছে তেমনি দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের নিরাপত্তার বিষয়টি সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে নির্বিঘ� করা হবে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পালা করে ইজতেমা ময়দান ও আশপাশের এলাকার নিরাপত্তার দায়িত্বে কাজ করছে। সড়ক-মহাসড়কগুলোতে র‌্যাব-পুলিশের চেক পোষ্ট বসানো হয়েছে বলেও তিনি জানান। (ফেয়ার নিউজ)



কানাইঘাটে প্রেমিকাকে জোরপূর্বকভাবে উঠিয়ে নেওয়ার সময় প্রেমিকসহ ৩জন শ্রীঘরে

Kanaighat News on Thursday, January 17, 2013 | 8:07 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কানাইঘাট উপজেলার ৫নং বড়চতুল ইউপির মালিগ্রাম থেকে গত বুধবার রাত অনুমানিক সাড়ে ৮টার দিকে প্রেমিক কর্তৃক প্রেমিকাকে তার নিজ বাড়ী থেকে অটোরিক্সা যোগে জোরপূর্বকভাবে পালিয়ে নিয়ে যাবার সময় প্রেমিকসহ তার দুই সহযোগীকে স্থানীয় লোকজন আটক করে পুলিশের হাতে সোপর্দ করেছেন। এ ঘটনায় প্রেমিকার ভাই বাদী হয়ে ঐদিন রাতে কানাইঘাট থানায় ৩জনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ প্রেমিকাকে উদ্ধার করে ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করার জন্য সিলেট ওমেক হাসপাতালের ওসিসি বিভাগে ভর্তি করেছে। জানা যায়, কানাইঘাট পৌরসভার দলই মাটি গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য আলাউর রহমান (আলাই)র পুত্র নোহা চালক রুবেল আহমদ (২৩) এর সাথে মালিগ্রামের সফর আলীর মেয়ে হাজিরা বেগম (১৬) এর দুই বছর ধরে মন দেওয়া নেওয়া চলছিল। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রেমিক রুবেল আহমদ প্রেমিকা হাজিরা বেগমের সাথে শারিরিক সম্পর্ক গড়ে তুলে। হাজিরার পরিবার থেকে বিয়ের প্রস্তাব দেওয়া হলে প্রেমিক রুবেল বার বার বিষয়টি এড়িয়ে যায়। এ নিয়ে প্রেমিক জুটির মধ্যে মনোমালিন্যের সৃষ্টি হয়। গত বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে প্রেমিক রুবেল তার দুই বন্ধু বড়চতুল গ্রামের নুরুল আমিনের পুত্র অটোরিক্সা চালক মাহিম (২৫) এবং বাউরভাগ নয়াগ্রামের খলিলুর রহমানের পুত্র রুবেল উদ্দিন (২৪) কে সাথে নিয়ে হাজিরা বেগমের বাড়ীতে হানা দেয়। এক পর্যায়ে তারা জোরপূর্বকভাবে হাজিরা বেগমকে অটোরিক্সায় উঠিয়ে পালিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে তার আর্ত্মচিৎকারে বাড়ীর ও আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে প্রেমিক রুবেলসহ তার দুই সহযোগীকে অটোরিক্সাসহ আটক করেন। পরবর্তীতে পুলিশকে খবর দেওয়া হলে থানার এস.আই.মাসুদ পারভেজ ঘটনাস্থলে গিয়ে এ ৩ জনকে আটক এবং ভিকটিম হাজিরা বেগমকে থানায় নিয়ে আসেন। রুবেল আহমদ প্রভাবশালী পরিবারের সদস্য হওয়ায় তাকে থানা থেকে ছাড়িয়ে নেওয়ার তদবিরও চলে। রাতেই প্রেমিক হাজিরা বেগমের ভাই ফয়াজ আহমদ তার বোনকে রুবেল আহমদ কর্তৃক একাধিকবার ইচ্ছার বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ এবং অপহরণের অভিযোগ এনে থানায় বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ অভিযোগটি এফ.আই.আর করে। থানার মামলা নং- (১৩) ১৬/০১/২০১৩ইং। গ্রেফতারকৃত প্রেমিক রুবেল কানাইঘাট বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সেক্রেটারী ও আলোচিত পাথর ব্যবসায়ী হাজী আব্দুল মালিকের শ্যালক। সে দোলাভাই হাজী আব্দুল মালিকের বাসায় থেকে তার প্রাইভেট নোহা গাড়ী চালাতো। এব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস.আই.মাসুদ পারভেজের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, প্রেমিক রুবেলসহ ৩জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে এবং গতকাল তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। ভিকটিম হাজিরা বেগমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ওসমানী হাসপাতালের ওসিসিতে প্রেরণ করা হয়েছে।

!! মস্কো সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী !!

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাশিয়ায় তিন দিনের সরকারি সফর শেষে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে দেশে ফিরেছেন। প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর সফরসঙ্গীদের বহন করা বাংলাদেশ এয়ারলাইনের একটি ফ্লাইট বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা ২০ মিনিটে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। জাতীয় সংসদের উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীর, বেসামরিক বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী ফারুক খান, সংস্কৃতিমন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ, চিফ হুইপ আব্দুস শহীদ ও প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানান। এ সময় বিমানবন্দরে অন্যান্যের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব মোল্লা ওয়াহিদুজ্জামান, মন্ত্রিপরিষদ সচিব এম মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া, তিন বাহিনীর প্রধান ও ঢাকায় নিযুক্ত রাশিয়ার চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স উপস্থিত ছিলেন। শেখ হাসিনা রাশিয়া ও বাংলাদেশের মধ্যে বিদ্যমান সম্পর্ক সুদৃঢ় করতে সোমবার তাঁর প্রথম দ্বিপক্ষীয় সফরে মস্কো পৌঁছেন। প্রধানমন্ত্রীর এই সফরকালে বাংলাদেশে পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে দু দেশের মধ্যে তিনটি চুক্তি ও ছয়টি সমঝোতা স্মারক (এমওইউএস) স্বাক্ষর হয়। অন্যান্য খাতগুলো হচ্ছে কৃষি, স্বাস্থ্য, শিক্ষা, সংস্কৃতি, আইন ও বিচার, সন্ত্রাস মোকাবেলা ও সামরিক সহযোগিতা।



সফরকালে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে রাশিয়ার সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক এবং শেখ হাসিনার সঙ্গে ভুদিমির পুতিনের একটি একান্ত বৈঠক হয়েছে। রাশিয়ার ফেডারেল অ্যাসেমব্লির কাউন্সিল অব দ্য ফেডারেশনের চেয়ারপারসন ভ্যালেনটিনা আই. মাতবিয়েঙ্কো, যোগাযোগ ও গণমাধ্যমমন্ত্রী নিকোলাই নিকিফোরোভ ও রাশিয়ার পরমাণু শক্তি সহযোগিতা প্রতিষ্ঠানের (আরওএসএটিওএম) জেনারেল ডিরেক্টর সার্গেই কিরিয়েঙ্কো শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করে পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আলোচনা করেন। সফরকালে প্রধানমন্ত্রী দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে নিহত রাশিয়ার বীরদের সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং বিখ্যাত ক্রেমলিন মিউজিয়াম ও বলশয় থিয়েটার পরিদর্শন করেন। এছাড়াও তিনি বিশ্বের বৃহত্তম তেল ও গ্যাস অনুসন্ধান কোম্পানি গাসপ্রোমের স্থাপনা ঘুরে দেখেন। শেখ হাসিনা 'কনটেম্পোরারি বাংলাদেশ-পার্সপেক্টিভস ফর কোলাবোরেশন উইথ রাশিয়া'র ওপর আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন মস্কো স্টেট ইউনিভার্সিটিতে লেকচার দেন। প্রধানমন্ত্রীর বিশ্ববিদ্যালয় গমন ও লেকচার প্রদান করায় বিশ্ববিদ্যালয়ের রেক্টর তাঁকে ডিপ্লোমা ডিগ্রি প্রদান করেন। প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপুমনি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী প্রকৌশলী ইয়াফেস ওসমান, অ্যাম্বাসেডর এ্যাট লার্জ এম জিয়াউদ্দিন ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।(ফেয়ার নিউজ)





!! স্কুল ছাত্রীকে উত্যেক্ত করায় কানাইঘাটে এক যুবককে ১৫দিনের কারাদন্ড !!

Kanaighat News on Wednesday, January 16, 2013 | 7:40 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কানাইঘাটে স্কুল ছাত্রীকে উত্ত্যেক্ত করায় এক যুবককে ভ্রাম্যমান আদালতে ১৫দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে। থানা সূত্রে জানা যায়, উপজেলা ৭নং বানীগ্রাম ইউপির কায়স্থ গ্রামের মাসুক আহমদের পুত্র দুলাল আহমদ (২২) প্রায়ই স্কুলে যাবার পথে একই গ্রামের রকিব আহমদের স্কুল পড়–য়া মেয়েকে উত্যেক্ত করত। এ ঘটনায় ঐ ছাত্রীর পিতা রকিব আহমদ বাদী হয়ে কানাইঘাট থানায় দুলাল আহমদের বিরুদ্ধে ইভটিজিংয়ের অভিযোগ এনে দরখাস্ত করেন। থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল হাই তাৎণিক অভিযোগটি আমলে নিয়ে থানার এস.আই মাসুদ পারভেজকে নির্দেশ প্রদান করলে তিনি আজ বুধবার বেলা ২টায় এক অভিযান চালিয়ে উত্যেক্তকারী যুবক দুলাল আহমদকে তার নিজগ্রাম থেকে আটক করেন। পরে তাকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও প্রথম শ্রেণীর ম্যাজিষ্ট্রেট এস.এম.সোহরাব হোসেনের কার্যালয়ে হাজির করলে তিনি ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে দুলাল আহমদকে ১৫দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ডের রায় দেন। সাজা প্রাপ্ত এ আসামীকে জেল হাযতে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

!! চাকুরী জাতীয়করনের দাবীতে কানাইঘাটের ২০টি স্কুলে তালা ঝুলছে !!

নিজস্ব প্রতিবেদক:
বেসরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কর্মচারীদের চাকুরী জাতীয় করনের দাবীতে বৃহত্তর জৈন্তিয়া কেন্দ্রীয় শিক্ষক পরিষদের ডাকে গত ১৪ জানুয়ারী থেকে কানাইঘাট উপজেলার ২০ টি মাধ্যমিক স্কুলে অবিরাম কর্মবিরতি চলছে। শিক্ষকরা ক্লাস বর্জন সহ সব ধরনের একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়ায় সার্বিক শিক্ষা কার্যক্রম অচল হয়ে পড়েছে। সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, স্কুল গুলোর শ্রেণিকে থালা ঝুলে থাকায় শিক্ষার্থীরা এসে বাড়ীতে ফিরে যাচ্ছেন। বৃহত্তর জৈন্তিয়া কেন্দ্রীয় শিক্ষক পরিষদের আহবায়ক ও কানাইঘাট রামিজা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মামুন আহমদ কানাইঘাট নিউজকে জানান, বেসরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কর্মচারীদের চাকুরী জাতীয় করণের দাবীতে সারাদেশের দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষকরা বিভিন্ন প্লাটফর্মে আন্দোলন করে আসছেন। কিন্তু সরকার তাদের ন্যায় সংঘত দাবী মেনে না নেওয়ায় তারা বাধ্য হয়ে এ কর্মসূচী দিয়েছেন। দাবী না মানা হলে অবিরাম কর্মবিরতি চলবে। কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে আগামীকাল শিক্ষক পরিষদের উদ্যোগে জৈন্তাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে স্মারকলিপি পেশ ও মিছিল ২০জানুয়ারী গোয়াইনঘাট এবং ২২ জানুয়ারী কানাইঘাটে অনুরূপ কর্মসূচী পালিত হবে। এ শিক্ষক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এম.পি.ও ভুক্তির দাবীতে ঢাকায় অবস্থানরত শিক্ষকদের উপর পুলিশী নির্যাতনের তীব্র নিন্দা জানান। অপরদিকে শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণের লক্ষ্যে শিক্ষানীতি ২০১০ দ্রুত বাস্তবায়নের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণসহ ১৭ দফা দাবী বাস্তবায়নে বাংলাদেশ শিক্ষক কর্মচারীর ঐক্যজোটের কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে গত ১২জানুয়ারী থেকে শিক্ষক কর্মচারী ঐক্যজোটের ডাকে কানাইঘাট ডিগ্রি কলেজ, গাছবাড়ী আইডিয়াল কলেজের শিক্ষক ও কর্মচারীরা কাস বর্জনসহ সকল একাডেমিক কার্যক্রম থেকে বিরত রয়েছেন।

 
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো:মহিউদ্দিন,সম্পাদক : মাহবুবুর রশিদ,নির্বাহী সম্পাদক : নিজাম উদ্দিন। সম্পাদকীয় যোগাযোগ : শাপলা পয়েন্ট,কানাইঘাট পশ্চিম বাজার,কানাইঘাট,সিলেট।+৮৮ ০১৭২৭৬৬৭৭২০,+৮৮ ০১৯১২৭৬৪৭১৬ ই-মেইল :mahbuburrashid68@yahoo.com: সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত কানাইঘাট নিউজ ২০১৩