কানাইঘাট পৌরসভায় বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় উদ্বোধন

Kanaighat News on Tuesday, January 31, 2012 | 11:19 PM

কানাইঘাট উপজেলার সদরের পৌর এলাকায় রামপুর গ্রামে নতুন বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল সোমবার রামপুর বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় নামে এই বিদ্যালয়টির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন কানাইঘাট পৌরসভার মেয়র লুৎফুর রহমান। বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার ফলে পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডবাসীর দীর্ঘ দিনের দাবী পূরণ হলো। পৌরসভার অর্থায়নে বিদ্যালয়টি পরিচালিত হবে। বিদ্যালয়ের উদ্বোধন শেষে ছাত্র ছাত্রীদের মধ্যে নতুন বই বিতরণ করা হয়। এ সময় পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তাজউদ্দিন, ২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শরিফুল হক, ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোঃ জাহান ও সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর ফয়জুন নেছা, বিশিষ্ট মুরুববী ইজ্জাদুর রহমান চৌধুরী, পৌরসভার ইঞ্জিনিয়ার মনিরুল হক সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। পরে মেয়র বায়মপুর বদিকোনা রাস্তার মাটির কাজের উদ্বোধন সহ পৌরসভার বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কাজ পরিদর্শন করেন।

চোরাকারবারিদের দখলে রাতের কানাইঘাট

কাওছার আহমদ:

রাত হলেই কানাইঘাট চলে যায় মাদক ও চোরাকারবারিদের দখলে। এ ব্যাপারে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের নীরব ভূমিকা নিয়ে জনমনে ক্ষোভের সৃষ্টি হচ্ছে। যে কোনো সময় এর বিস্টেম্ফারণ ঘটতে পারে। কানাইঘাট পৌর শহর ও উপজেলার শতাধিক স্পটে মাদক ও চোরাচালানের কাজ হয়ে থাকে। এসব অপরাধীর কাছ থেকে পুলিশ নিয়মিত বখরা আদায় করে থাকে বলে অনেকের অভিমত। মাঝে মধ্যে বনিবনা না হলে দু'একটি অভিযান চালায় পুলিশ। পরে আবার তা বন্ধ হয়ে যায়। সম্প্রতি কানাইঘাট বাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় মদ্যপায়ীদের উৎপাত আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। এলাকাবাসী বিষয়টি পুলিশ প্রশাসনকে জানানোর পরও রহস্যজনক কারণে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে না। কানাইঘাট বাজার, সুরাইঘাট সোনাতন পুঞ্জি, নুনছড়া কুলি বস্তি, লোভাছড়া কুলি বস্তি, ডাউকেরগুল, চতুল বাজার ও গাছবাড়ী অঞ্চলের বেশ কয়েকটি স্পটে গাঁজা, মাদক ও চোরাচালানি পণ্য কেনাবেচা হয়ে থাকে। মুলাগুল-ডাউকেরগুল গ্রামের মিরাপিং শাহর মাজার চত্বরে রাত হলেই গাঁজা সেবনকারীদের আড্ডা জমে। রোববার স্থানীয় পুলিশ চতুল ইউনিয়নের সরুফৌদ গ্রামের জামাল উদ্দিনের বাড়ি থেকে লক্ষাধিক টাকার ১০ কার্টুন ভারতীয় নাসির বিড়ি আটক করে। এলাকাবাসী এ অভিযান পুলিশের আইওয়াশ বলে মনে করছে। তা না হলে পুলিশের নাকের ডগায় কানাইঘাট বাজারে ভারতীয় চোরাই পণ্য পান, নাসির বিড়ি, যৌন উত্তেজক ট্যাবলেটসহ বিভিন্ন অবৈধ দ্রব্য প্রকাশ্যে বিক্রি হয় কীভাবে! কানাইঘাটের ইউএনও রফিকুল হোসেইন বলেন, অপরাধ কর্মকাণ্ড নির্মূল করতে পুলিশি তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। সবার সহযোগিতা নিয়ে কানাইঘাট থানাটি একটি সুন্দর ও অপরাধমুক্ত এলাকা হিসেবে

কানাইঘাটে সমাজসেবী সামছ উদ্দিন হাজীর ইন্তেকাল ॥ বিভিন্ন মহলের শোক

কানাইঘাট উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ি মিয়াগুল নিবাসী সামছ উদ্দিন হাজী আর নেই। তিনি গত সোমবার ভোর ৬টায় বার্ধক্যজনিত কারণে ইন্তেকাল করেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজেউন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯০ বছর। তিনি ২ ছেলে, ২ মেয়ে, নাতি-নাতনী, আত্মীয়-স্বজন সহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। মরহুম হাজী আহসান উল্লাহর পুত্র সামছ উদ্দিন ছিলেন একজন সমাজসেবী ও শালিস বিচারক। গত সোমবার বাদ জোহর স্থানীয় মিয়াগুল মসজিদ মাঠে অনুষ্ঠিত বিশাল জানাজা নামাযে ইমামতি করেন তার সুযোগ্য পুত্র বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন জামায়াত নেতা আল্লামা বেলাল আহমদ।মরহুমের মৃত্যুতে গভীর শোক ও শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ মাওলানা ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী, জেলা জামায়াতের আমীর হাফিজ মাওলানা আনোয়ার হোসেন খান, উপজেলা জামায়াতে আমীর আব্দুল করিম, কানাইঘাট প্রেসক্লাব যুগ্ম সম্পাদক আম্বিয়া চৌধুরী, আওয়ামীলীগ নেতা আলাউদ্দিন মেম্বার, বিএনপি নেতা শরীফ উদ্দিন ও আবুল হাসনাত প্রমুখ।এদিকে হাজী সামছ উদ্দিন স্মরণে এক সভা স্থানীয় শহর উল্লাহ মার্কেটে বেলা ৩টায় অনুষ্ঠিত হয়। জামায়াত নেতা আমিন উদ্দিন (তোতা মিয়া)’র সভাপতিত্বে এবং হুমায়ুন রশীদ বেলালের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় হাজী সামছ উদ্দিন এর কর্মময় জীবনের স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য রাখেন জামায়াত নেতা আল্লামা আবুল কালাম, বদরুল আলম, আব্দুল্লাহ আল মামুন, আলী আহমদ, শামীম আহমদ প্রমুখ।

যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষা করার জন্য বিরোধী দল আন্দোলনের নামে দেশে অরাজকতার সৃষ্টি করছে --------আব্দুজ জহির সুফিয়ান

Kanaighat News on Monday, January 30, 2012 | 10:38 PM

নিজাম উদ্দিনঃ

সিলেট জেলা আ’লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুজ জহির চৌধুরী সুফিয়ান বলেছেন, শেখ হাসিনার সরকার যখন একাত্তরের চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধী বিচার প্রক্রিয়া তরান্বিত, সকল হত্যাকান্ডের বিচারের মাধ্যমে দেশে আইনের শাসন কায়েম, জনগণের কল্যাণে বিভিন্ন যুগান্তকারী প্রদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে দেশকে খাদ্যে সয়ংসম্পূর্ণ করার পাশাপাশি শিক্ষাক্ষেত্রে যুগান্তকারী পদক্ষেপ গ্রহন, গ্রামীণ এলাকার মানুষের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করন এবং বিদ্যুৎ সেক্টরে ব্যাপক উন্নয়নের মাধ্যমে দেশকে লোড শেডিং মুক্ত করে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বিপ্লব সাধনের মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে কাজ করে যাচ্ছেন, তখন যুদ্ধাপরাধী ও দূর্নীতিবাজদের বিচার বানচাল করার লক্ষে বিরোধী দলীয় নেত্রী খালেদা জিয়া একাত্তরের ঘাতক জামায়াত শিবিরকে সাথে নিয়ে সারাদেশে পরিকল্পিতভাবে বিভিন্ন ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে শেখ হাসিনার সরকারকে উৎখ্যাত করার জন্য গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছেন। কিন্তু ষড়যন্ত্র আর চক্রান্ত করে যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষা ও সরকার উৎখ্যাত করা যাবে না বলে তিনি হুসিয়ার উচ্চারণ করেন। আব্দুজ জহির চৌধুরী সুফিয়ান আজ সোমবার(৩০ জানুয়ারী) বিকেল ৫টায় কানাইঘাট গাছবাড়ী বাজারে ৭নং দক্ষিণ বানীগ্রাম ও ৮নং ঝিংগাবাড়ী ইউপি আ’লীগ ও অঙ্গসংগঠনের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত জেলা আ’লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক এমাদ উদ্দিন মানিকের নাগরিক গণ সংবর্ধনা উপলক্ষে আয়োজিত এক বিরাট জনসভায় উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। আ’লীগ নেতা সাইফুল্লাহ খালেদের সভাপতিত্বে এবং এডভোকেট আব্দুস সাত্তারের পরিচালনায় উক্ত জনসভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সিলেট জেলা আ’লীগের সহসভাপতি, সিলেট সদরের উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ, মাসুক উদ্দিন আহমদ চৌধুরী, জেলা আ’লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সজ্জাদ আলী রফিক, এডভোকেট নাসির উদ্দিন খান, ৬ নং সদর ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম,সংবর্ধিত জেলা আ’লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক এমাদ উদ্দিন মানিক। বক্তব্য রাখেন, আ’লীগ নেতা মাসুদ আহমদ, ওলিউর রহামান, রফিক আহমদ, এডভোকেট মামুন রশিদ, আব্দুল খালিক নয়ন, ফজলে হক, উমর আলী, মাষ্টার সিরাজ উদ্দিন, আলা উদ্দিন, যুবলীগ নেতা মাসুক আহমদ, নাজিম উদ্দিন, জেলা ছাত্রলীগের সাংসকৃতিক সম্পাদক শাহরিয়ার বখত সাজু, থানা ছাত্রলীগের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক নাজমুল ইসলাম হারুন প্রমুখ।

কানাইঘাটে ১০ কার্টুন ভারতীয় নাসির বিড়ি আটক

Kanaighat News on Sunday, January 29, 2012 | 11:04 PM

কানাইঘাট থানা পুলিশ আজ রবিবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার চতুল ইউনিয়নের সরুফৌদ গ্রামের জামালের বাড়ী থেকে লাক্ষাধিক টাকার ১০ কার্টূন ভারতীয় নাসির বিড়ি আটক করে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানার এসআই শফিক খান একদল পুলিশ ফোর্স নিয়ে গতকাল জামাল উদ্দিনের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে এ বিড়ি আটক করেন। এ ঘটনায় থানায় চোরাচালানী আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

কানাইঘাটে বিএনপি’র বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশের হামলা

দেশজুড়ে বিএনপি’র গণমিছিল কে কেন্দ্র করে লীপুর, বরগুনা, চাঁদপুরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পুলিশের সাথে সংঘর্ষে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের ৫ নেতাকর্মী নিহত অসংখ্য নেতাকর্মী আহত ও গণগ্রেফতারের ঘটনার প্রতিবাদে কানাইঘাট উপজেলা বিএনপি অংঙ্গসংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত বিক্ষোভ মিছিলে হামলা করেছে পুলিশ। দলীয় নেতাকর্মী নিহতের ঘটনায় আজ রবিবার বাদ মাগরিব উপজেলা বিএনপি নেতা ও পৌর কাউন্সিলার শরিফুল হক, পৌর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ফরিদ আহমদ ও জেলা ছাত্রদলের তথ্য গবেষণা সম্পাদক জসীম উদ্দিনের নেতৃত্বে কানাইঘাট পূর্ব বাজার থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়ে উত্তর বাজার প্রদক্ষিণ শেষে দক্ষিণ বাজারের কলেজ রোড অতিক্রম করার সময় পুলিশ বিএনপি’র মিছিলের পিছন দিক থেকে অতর্কিতভাবে হামলা চালায়। এসময় দলের কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হন। মিছিলটি পুলিশী হামলায় ছত্রবঙ্গ হওয়ার পর আবারও দলের নেতাকর্মীরা সংগঠিত হয়ে শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশি হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে দক্ষিণ বাজারে তাৎণিকভাবে পথসভায় বক্তব্য রাখেন বিএনপি নেতা কাউন্সিলার শরিফুল হক, পৌর বিএনপি’র সাধারণ সস্পাদক অধ্যাপক ফরিদ আহমদ, বিএনপি নেতা জসিম উদ্দিন, পৌর বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল হোসেন বুলবুল, নিজাম উদ্দিন, মোহাম্মদ আলী, বিলাল আহমদ, আলমাছ, জাকারীয়া, স্বেচ্ছাসেবকদল নেতা জালাল আহমদ জনী, উপজেলা যুবদল নেতা সায়িক আহমদ, কাওসার আহমদ বাঙ্গালী, পৌর যুবদল নেতা ডালিম আহমদ, রফিক আহমদ, আজির উদ্দিন মেসি, ফারুক আহমদ, ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক নেতা আব্দুল করিম শাহীন, ছাত্রদল নেতা আমিনুল ইসলাম, কয়সর আলম, তাজুল, দুদু, বদরুল, কিবরীয়া, রাসেল, বুলবুল প্রমুখ। এদিকে উপজেলা বিএনপি’র বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশি হামলার প্রতিবাদে তাৎণিকভাবে কানাইঘাট গাছবাড়ী বাজার, সড়কের বাজার, সুরাইঘাট বাজার ও রাজাগঞ্জ বাজারে বিক্ষোভ মিছিল করেছে স্থানীয় বিএনপি অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা।

হাতিম-ইউসুফ মেমোরিয়াল কিন্ডারগার্ডেন এর বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠিত

Kanaighat News on Saturday, January 28, 2012 | 10:16 PM

শিশুদের লেখাপড়ার পাশাপাশি শারিরীক বিকাশে খেলাধুলার প্রয়োজন। আজকের শিশুরা আগামী দিনের সমাজ গড়ার কর্ণদার। তাই আগামীর দেশ গড়ার প্রজন্ম শিশুদের পড়াশুনার পাশাপাশি সুস্থবিনোদন এবং খেলাধুলার বিকল্প নেই। আজ শনিবার বিকেলে কানাইঘাট উপজেলার চতুলবাজারের হাতিম, ইউসুফ মেমোরিয়াল কিন্ডারগার্ডেনের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন।এলাকার বিশিষ্ঠ শিক্ষানুরাগী আলহাজ্ব নূর উদ্দিনের সভাপত্বিতে ও কিন্ডারগার্ডেনের সহকারী শিক্ষক সারওয়ার জাহান শাহীনের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সিলেট জেলা পুলিশ সুপার সাখাওয়াত হোসাইন।অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, শ্রীহট্ট সংস্কৃত কলেজের অধ্যক্ষ ড.দিলীপ কুমার দাস চৌধুরী, সিলেট সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার পুলিন চন্দ্র রায়, বার্তাসংস্থা আইএনবির নিজস্ব প্রতিবেদক অরুন সরকার।অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য দেন, হাতিম. ইউসুফ মেমোরিয়াল কিন্ডারগার্ডেনের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক শিক্ষানুরাগী ও সাংবাদিক জাকারিয়া আলম জামিল। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন এডভোকেট শিহাব উদ্দিন, চতুল বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আব্দুর রশিদ (সাবেক মেম্বার), সুবেদার আফতাব উদ্দিন, স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সদস্য নূর আহমদ প্রমুখ।অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রধান অতিথি সিলেট জেলা পুলিশ সুপার সাখাওয়াত হোসাইনকে স্কুলের পক্ষ থেকে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. ইসমাঈল আলী ও প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক জাকারিয়া আলম জামিল ।অনুষ্ঠানের শেষে প্রধান অতিথি তিনদিন ব্যাপী ক্রীড়া প্রতিযোগীতায় বিভিন্ন ইভেন্টে বিজয়ীদের এবং ট্যালেন্টপুল বৃত্তিপ্রাপ্ত ছাত্রদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।

কানাইঘাটে সুলতানা হত্যা মামলা ডিবিতে হস্তান্তর

নিজাম উদ্দিন:

স্থানীয় প্রশাসন ও গ্রাম্য সালিশে বার বার বিচার প্রার্থী হওয়ার পরও ন্যায় বিচার না পেয়ে স্বামী ও সন্তানের স্বীকৃতি না পাওয়া এবং কোলের নবজাতক সন্তান কেড়ে নেওয়ার ঘটনার অপমান সইতে না পেরে গত ২২ সেপ্টেম্বর কানাইঘাট পৌরসভার বিষ্ণপুর গ্রামের দরিদ্র আমিনা বেগমের প্রতিবন্ধি কন্যা আত্মহননকারী সুলতানা বেগম (১৮) এর হত্যা মামলাটি আরো অধিকতর তদন্তের জন্য কানাইঘাট থানা থেকে সিলেট ডিবি পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কানাইঘাট থানার সাব ইন্স্পেক্টর শফিক খান নির্দিষ্ট সময়ে মামলাটির প্রকৃত রহস্য উদ্ঘাটন করতে না পারায় থানা থেকে মামলাটি ডিবি পুলিশের কাছে গত ২৫ জানুয়ারী হস্তান্তর করা হয়। ডিবির ইন্সপেক্টর জুবায়ের আহমদ আলোচিত এ মামলাটির দায়িত্ব পাওয়ার পর ডিবির সাব-ইন্সপেক্টর জগদিশকে মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব অর্পণ করেন। সাবইন্সপেক্টর জগদিশ তদন্তের দায়িত্ব পাওয়ার পর গতকাল শুক্রবার সরেজমিনে কানাইঘাট বিষ্ণুপুর গ্রামের নিহত সুলতানার বাড়িতে গিয়ে সুলতানার মা আমিনা বেগম এবং এলাকার অনেকের সাথে এ ব্যাপারে কথা বলেন। উল্লেখ্য যে, স্বামী ও সন্তানের স্বীকৃতির দাবীতে স্থানীয় প্রশাসন ও গ্রাম্য সালিশে বিচার না পেয়ে ক্ষোভ ও অভিমানে গত ২২ সেপ্টেম্বর প্রতিবন্ধি সুলতানা নিজ বাড়িতে রহস্যজনক ভাবে মারা যায়। পরদিন তার লাশ তড়িগড়ি করে দাফন করা হলে এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হলে এ নিয়ে প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় তার রহস্যজনক মৃত্যুর সংবাদ প্রকাশিত হলে কানাইঘাট থানা পুলিশ সুলতানার কথিত প্রেমিক মাদ্রাসা ছাত্র রুবেল আহমদ (১৭) কে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করে। সুলতানার মা তার মেয়ে সামাজিক গ্লানি ও স্বামী, সন্তানের স্বীকৃতি না পেয়ে বিষ পানে আত্মহত্যা করেছে অভিযোগ এনে থানায় মামলা দায়ের করেন। এরপর ২৯ সেপ্টেম্বর পুলিশ সুলতানার লাশ কবর থেকে উত্তোলন করে ময়না তদন্তের জন্য সিলেট ওমেক হাসপাতালে প্রেরণ করে। মৃত্যুর ৩ মাস ২৩ দিন পর গত ১৪ জানুয়ারী সুলতানা বিষপানে আত্মহত্যা করেছে মর্মে ময়না তদন্তের রিপোর্ট কানাইঘাট থানা পুলিশের কাছে আসে। ডিবিতে মামলা হস্তান্তরের বিষয়ে জানতে চাইলে কানাইঘাট থানার ওসি (তদন্ত) রুহুল আমিন জানান, সুলতানা বিষপানে আত্মহত্যা করেছে পোস্টমোডেমর রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে। তবে সুলতানার কথিত প্রেমিক রুবেল আহমদকে গ্রেফতার করা হলেও ডিএনও টেস্টের রিপোর্টে সুলতানার নবজাতক শিশুর জন্মদাতা হিসেবে তার সম্পৃক্ততা পাওয়া যায় নি বিধায় মামলাটি অধিকতর তদন্ত ও নবজাতকের প্রকৃত জন্মদাতা এবং ঘটনার সাথে জড়িতদের খুঁজে বের করার জন্য মামলাটি ডিবিতে হস্তান্তর করা হয়েছে।

শীগ্রই কমিটি ঘোষণা:কানাইঘাট যুবলীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে প্রাণ চাঞ্চল্য

Kanaighat News on Thursday, January 26, 2012 | 10:17 PM

দীর্ঘদিন ধরে কমিটি বিহীন সাংগঠনিকভাবে বিপর্যস্ত জিমিয়ে পড়া কানাইঘাট উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম শক্তিশালী করার লক্ষ্যে শীগ্রই নতুন কমিটি গঠনের উদ্যোগ নিয়েছেন জেলা যুবলীগ নেতৃবৃন্দ। গত বৃহস্পতিবার(২৬ জানুয়ারী জেলা যুবলীগ নেতৃবৃন্দ বিকেল ৩টায় কানাইঘাট উপজেলা যুবলীগের কমিটি গঠনের লক্ষ্যে স্থানীয় ডাক বাংলায় দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে মতবিনিময় করেন। মতবিনিময় সভাকে কেন্দ্র করে গত কয়েকদিন ধরে উপজেলা যুবলীগের তৃণমূল পর্যায়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার সৃষ্টি হয়। সে লক্ষ্যে জেলা যুবলীগের নেতৃবৃন্দের দৃষ্টি আকর্ষন করতে উপজেলা যুবলীগের বিদ্ধমান আব্দুল হেকিম শামীম ও মাসুক আহমদের নেতৃত্ত্বাধীন গ্রুপ ও উপ গ্রুপের নেতাকর্মীরা শোডাউন প্রদর্শন করে। এক পর্যায়ে সভাস্থলে পাল্টাপাল্টি স্লোগানকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা দেখা দিলে জেলা নেতৃবৃন্দের কঠোর হস্তক্ষেপে কোন ধরনের অপৃতিকর ঘটনা ঘটেনি। এবং অপৃতিকর ঘটনা এড়াতে স্থানীয় যুবলীগের কোন নেতাকর্মীকে মতবিনিময় সভায় বক্তব্য দেওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়নি। উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র লুৎফুর রহমানের উপস্থিতিতে মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শামিম আহমদ ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মহসিন কামরান জেলা যুবলীগ নেতা আশিকুর রহমান মাসুক, দিদার আহমদ, তিতাস। জেলা যুবলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক তাদের বক্তব্যে নেতা কর্মীদের আশ্বস্থ করে বলেন, শীগ্রই কানাইঘাট উপজেলা যুবলীগের কমিটি গঠন করা হবে। কর্মীদের হুসিয়ারী উচ্চারন করে নেতৃবৃন্দ বলেন, নিজেদের মধ্যে কোন ধরনের বিশৃঙ্খলা ও দলাদলী বর্দাস্ত করা হবে না। সকল বেধাবেদ ভূলে গিয়ে দলকে শক্তিশালী করতে সবাইকে এক সাথে কাজ করার আহ্বান জানান জেলা নেতৃবৃন্দ। মতবিনিময় সভায় উপজেলা যুবলীগ নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জেলা যুবলীগের সদস্য আব্দুল হেকিম শামিম, মাসুক আহমদ, হুসেন আহমদ, দুদু মিয়া, এনামুল হক, নাজিম উদ্দিন প্রমুখ।

কানাইঘাটে দিনমজুরের বসতঘর পুড়িয়ে দিয়েছে দূর্বৃত্তরা

কানাইঘাট সদর ইউনিয়নের সূতার গ্রামে গত বুধবার(২৫ জানুয়ারী) রাতে এক দিনমজুরের সনের বসত ঘর পুড়িয়ে দিয়েছে দূবৃত্তরা। জানা যায় গোসাইনপুর গ্রামের আলতাফ হোসেনের মালিকানাধীন সূতারগ্রামের একখন্ড জমির উপর মাটির ঘর তৈরী করে গত ২০ জানুয়ারী থেকে দিনমজুর আব্দুল জব্বার (৩৮) তার পরিবার নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন। গত বুধবার রাত অনুমানিক সাড়ে ১১টার সময় কে বা কাহারা আব্দুল জব্বারের ঘরে আগুন ধরিয়ে দিলে ঘরটি পুড়ে ছাই হয়ে যায়। আগুন নিভাতে গিয়ে আব্দুল জব্বার আহত হন। আগুনে পুড়ে ঘরের হাস-মুরগি মারা যায়। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন, জমির খন্ডটি নিয়ে বিরোধ থাকায় এর জের ধরে অসহায় আব্দুল জব্বারের ঘর অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটতে পারে।

কানাইঘাট সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ান

Kanaighat News on Tuesday, January 24, 2012 | 8:38 PM

কিশোরকন্ঠ পাঠক ফোরাম কানাইঘাট ডিগ্রি কলেজ শাখার উদ্যোগে আয়োজিত অনুর্ধ এস.এস.সি/দাখিল সিক্স-এ সাইড ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ২০১২ এর ফাইন্যাল খেলা ও পুরস্কার বিতরণ আজ মঙ্গলবার কলেজ সংলগ্ন মাঠে অনুষ্ঠিত হয়েছে। কলেজ শাখা সভাপতি মোঃ জয়নাল আবেদীনের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারী মাসুক আহমদ জুবায়েরের পরিচালনায় খেলা পরবর্তী পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কিশোরকন্ঠ পাঠক ফোরাম সিলেট জেলা পূর্বের সাবেক পৃষ্ঠপোষক এ.কে.এম ওলিউল্লাহ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কিশোরকন্ঠ পাঠক ফোরাম কানাইঘাট উপজেলা শাখার সভাপতি মোঃ সেলিম উদ্দিন, বিশিষ্ট সাংবাদিক নিজাম উদ্দিন, সমাজসেবী কামাল উদ্দিন, কবির আহমদ, ইকবাল হোসেন প্রমুখ। অনুষ্ঠান শেষে টুর্নামেন্টের বিজয়ী দল কানাইঘাট সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় ও দ্বিতীয় স্থান অর্জনকারী কানাইঘাট মনসুরিয়া কামিল মাদ্রাসার খেলোয়াড়দের মাঝে ট্রফি তুলে দেন অতিথিবৃন্দ।

কানাইঘাটে ট্রলির ধাক্কায় ব্যাংক কর্মকর্তা আহত

নিজাম উদ্দিন :

আজ মঙ্গলবার কানাইঘাট উত্তর বাজারে রোড পারমিট বিহীন বেপরোয়া একটি ট্রলির নিচে চাঁপা পড়ে মোটর সাইকেল আরোহী ইসলামী ব্যাংক কানাইঘাট শাখার এক কর্মকর্তা গুরুতর আহত হয়েছেন। জানা যায়, গতকাল বেলা দেড়টায় ইসলামী ব্যাংক কানাইঘাট শাখার কর্মকর্তা আব্দুল হাকিম (৪০) মোটর সাইকেল যোগে ব্যাংকে যাচ্ছিলেন। এসময় বিপরীত দিক থেকে দ্রুত গতিতে ছুটে আসা স্থানীয়ভাবে (কুত্তাগাড়ি) নামে পরিচিত পানির ইঞ্জিত চালিত অবৈধ ট্রলি ড্রাইভার নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মোটর সাইকেল স্বজোরে ধাক্কাদিলে আব্দুল হাকিম ট্রলির নিচে চাঁপা পড়ে গুরুতর আহত হন। দূর্ঘটনার সময় অবস্থা বেগতিক দেখে ট্রলির চালক দ্রুত পালিয়ে যায়। পরে খবর পেয়ে কানাইঘাট থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে ট্রলি গাড়ি জব্ধ করে থানায় নিয়ে যান। আহত ব্যাংক কর্মকর্তা আব্দুল হাকিমকে কানাইঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। উল্লেখ্য যে, কানাইঘাট পৌর শহরে প্রতিদিন শতাধিক এসব অবৈধ ট্রলি শহরে প্রবেশ করে বিকট শব্দ ও কালো ধোয়া দিয়ে জনদূর্ভোগ সৃষ্টি করে থাকে। গত ৩বছরে এসব অবৈধ যানবাহনের দূর্ঘটনার স্বীকার হয়ে অন্তত ৬জন নিহত ও শতাধিক মানুষ পঙ্গুত বরণ করছেন। ইদানিং পৌর শহরে অবৈধ যানবাহন বিশেষ করে ট্রলির সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় এসব যানবাহনের বিরুদ্ধে মোটর যান আইনে ব্যবস্থা এবং অবৈধ যানবাহনের চলাচল বন্ধের দাবী জানিয়ে আসছেন স্থানীয় সচেতন মহল, স্কুল কলেজ ও মাদ্রাসাগামী শিার্থীরা। উপজেলা আইনশৃঙ্খলা ও সমন্বয় কমিটির মাসিক সভায় অংশগ্রহনকারী জনপ্রতিনিধিরা ট্রলির যাতায়াত পৌর শহরে বন্ধের দাবী জানিয়ে আসলেও রহস্যজনক কারনে স্থানীয় প্রশাসন অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে কোন ধরনের আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করছেন না।

কানাইঘাটে দুই জুয়াড়ির কারাদণ্ড

কানাইঘাটে ২ জুয়াড়ীকে ২০দিন করে সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও প্রথম শ্রেণীর ম্যাজিষ্ট্রেট এস.এম.সোহরাব হোসেন। গতকাল সোমবার ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে কানাইঘাট পৌরসভার দুর্লভপুর গ্রামের মৃত সওকত আলীর পুত্র জুয়াড়ী নূর ইসলাম (৩০) এবং নয়াতালুক গ্রামের আব্দুস সালামের পুত্র আব্দুল মুতলিব (৪০) কে ২০দিন করে সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডিত করেন। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গতকাল বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানার এস.আই.শফিক খান দূর্লভপুর গ্রামের হাওর এলাকায় সংঘবদ্ধ হয়ে একটি চক্র টাকার বিনিময়ে জোয়ার আসর বসিয়েছে জানতে পেরে সেখানে অভিযান চালিয়ে জুয়াড়ী নূরুল ইসলাম ও আব্দুল মুতলিবকে আটক করেন। পরে নির্বাহী কর্মকর্তার কার্য্যালয়ে তাদের হাজির করা হলে, প্রথম শ্রেণির ম্যাজিষ্ট্রেট এস.এম.সোহরাব হোসেন আটককৃতদের বিরুদ্ধে আদালত পরিচালনা করে ২০দিন করে সশ্রম কারাদন্ড দেন। সাজাপ্রাপ্ত এ দু’জনকে আজ সিলেট কেন্দ্রীয় জেল হাযতে প্রেরণ করবে পুলিশ। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে, থানার মামলা নং- (৭) ২৩/০১/০১২। উলে¬খ্য যে, কানাইঘাট থানার নবাগত অফিসার ইনচার্জ রফিকুল হোসেন থানায় যোগদানের পর থেকে উপজেলা ব্যাপী বিশেষ করে গরু চোর, মাদক ব্যবসায়ী, মাদক সেবী ও জুয়াড়ীদের বিরুদ্ধে ষাড়সী অভিযান চালিয়ে আসছেন। প্রতিদিন থানা পুলিশ বিভিন্ন স্থানে হানা দিয়ে জুয়াড়ীদের গ্রেফতারী অভিযান অব্যাহত রেখেছে।

কানাইঘাট ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের আহবায়ক ফখর চৌধুরী আর নেই

কমিউনিটি নেতা ,কানাইঘাট ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন ইউকে’র আহবায়ক ফখর চৌধুরী সোমবার সকাল ৮টার দিকে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে নিজ বাসায় ইন্তেকাল করেছেন(ইন্না লিল্লাহি... ... ... রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫৩ বছর। ফখর চৌধুরী মৃত্যুকালে স্ত্রী, ২ ছেলে, ২ মেয়ে আত্মীয়স্বজন ছাড়াও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। একজন সদালাপী, হাস্যজ্জ¦ল লোক ছিলেন ফখর চৌধুরী। পোস্টমর্টেমের জন্য বর্তমানে তার মরদেহ পপলার মরচুয়ারিতে রয়েছে। আগামী বুধ অথবা বৃহস্পতিবার পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তরের কথা রয়েছে।সে অনুযায়ী লন্ডনে তার প্রথম নামাজে জানাজা শেষে বৃহস্পতি অথবা শুক্রবার তার লাশ বাংলাদেশে পাঠানো হবে। কানাইঘাটে তার নিজগ্রাম ব্রাক্ষ্মনগ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে বলে তার পরিবারের প থেকে জানানো হয়েছে। ফখর চৌধুরী ১৯৮৪ সালে সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি ছাড়াও মদন মোহন কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৮২ সালে কানাইঘাট প্রগতিশীল ছাত্রপরিষদেরও সভাপতি ছিলেন। সর্বশেষ তিনি যুক্তরাজ্য বসবাসরত কানাইঘাট উপজেলার প্রবাসীদের সংগঠন কানাইঘাট ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের আহবায়কের দায়িত্ব পালন করছিলেন। আমৃত্যু বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একজন একজন সৈনিক হিসেবে তিনি কাজ করে গেছেন। এছাড়াও তিনি লন্ডন লেবার পার্টির একজন সক্রিয় সদস্য ছিলেন।তিনি ১৯৮৭ সাল থেকে লন্ডনে স্ত্রী,সন্তান-সন্ততি নিয়ে স্থায়ীভাবে বসবাস করছিলেন। আওয়ামী লীগ নেতা ফখর চৌধুরীর গ্রামের বাড়ি সিলেট জেলার কানাইঘাট উপজেলার ব্রাক্ষ্মণগ্রামে। এদিকে ফখর চৌধুরীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন কানাইঘাট ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন ইউকের নেতৃবৃন্দ। কানাইঘাট ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ এক বিবৃতিতে বলেন ফখর চৌধুরীর মৃত্যুতে কানাইঘাটবাসী হারালো একজন অভিভাবককে। তার স্থান পূরণ হবার নয়। আমাদের এ তি অপূরণীয়। ফখর চৌধুরীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ শরীফ, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুক,সহ সভাপতি হরমুজ আলি, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জিয়া উদ্দিন লালা, ডা. ফয়জুল ইসলাম, সাবেক কাউন্সিলার শাহাবুদ্দিন আহমদ বেলাল। কানাইঘাট ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের পে যুগ্ম আহবায়ক নিজাম উদ্দিন আহমদ চৌধুরী, খসরুজ্জামান খসরু, ইকবাল হোসাইন, প্রফেসর এম এ মালেক, আনিসুর রহমান ছাড়াও ফয়েজ আহমদ বুলবুল, শামীম আহমদ, মাহতাব উদ্দিন, এনাম উদ্দিন আহমদ চৌধুরী , বাবরুল হোসেন বাবুল, জালাল উদ্দিন, সারওয়ার কবির, আবুল ফয়েজ, মাসুম আহমেদ, রানা ইমাদ, শাহীন আহমেদ, সুহেল আহমদ, তোফায়েল আহমদ সহ অনেকে। এদিকে কানাইঘাট প্রজন্ম প্রতিভা ছাত্রকল্যাণ পরিষদ যুক্তরাজ্য শাখার প থেকেও মরহুমের মৃত্যুতে গভীর শোকপ্রকাশ করা হয় এবং শোকসন্তপ্ত পরিবার পরিজনের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করা হয়।

ছোটদেশ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পুরস্কার বিতরন সম্পন্ন

Kanaighat News on Sunday, January 22, 2012 | 6:21 PM

কানাইঘাট ছোটদেশ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া ও পুরস্কার বিতরনী উপলক্ষে গত শনিবার স্কুল অডিটোরিয়ামে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দুল হাই এর সভাপতিত্বে ও সহকারী শিক্ষক আব্দুল মন্নানের পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট বৃটিশ আমেরিকান কলেজের প্রিন্সিপাল এএসএম মঞ্জুর আহমদ, বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা ইলিয়াস আহমদ, কানাইঘাট ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক বশির উদ্দিন আহমদ, ছোটদেশ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুফজ্জিল আলী, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি এমএ লতিফ ও হামিদা শিক্ষা ট্রাষ্টের সচিব হাজী ফখরুল ইসলাম প্রমুখ।

রামিজা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা সম্পন্ন

Kanaighat News on Thursday, January 19, 2012 | 10:40 PM

ঐতিহ্যবাহী কানাইঘাট রামিজা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান গত বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় স্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ জমির উদ্দিন প্রধানের সভাপতিত্বে ও স্কুলের সহকারী শিক শামীম আহমদের পরিচালনায় উক্ত পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস.এম.সোহরাব হোসেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কানাইঘাট পৌরসভার মেয়র লুৎফুর রহমান, কানাইঘাট ডিগ্রি কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্য ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম, উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিা কর্মকর্তা আব্দুল বাছিত। উপস্থিত ছিলেন, স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সদস্য আব্দুন নূর, কানাইঘাট প্রেসকাবের দপ্তর সম্পাদক নিজাম উদ্দিন, সাংবাদিক কাওছার আহমদ প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্যে স্কুলের প্রধান শিক মামুন আহমদ, স্কুলের বিভিন্ন সমস্যা তোলে ধরে বলেন, পর্যাপ্ত পরিমাণ ভবন না থাকায় স্কুলের ৭শতাধিক শিার্থীর সুষ্ঠুভাবে পাঠদান করা সম্ভব হচ্ছে না। তিনি শিার্থীদের লেখা পড়ার সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে দ্রুত একটি ভবন নির্মাণের জন্য সভায় উপস্থিত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও পৌর মেয়রের হস্তপে কামনা করেন। অনুষ্ঠান শেষে বিভিন্ন ইভেন্টে বিজয়ী শিার্থীদের অতিথিবৃন্দ পুরস্কার তুলে দেন।

কানাইঘাট পৌর আ’লীগের যুগ্ম আহ্বায়কের মুক্তির দাবীতে সমাবেশ অনুষ্ঠিত

কানাইঘাট পৌর আ’লীগের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক কেএইচএম আব্দুল্লাহর নিঃশর্ত মুক্তির দাবীতে এবং তার উপর দায়েরকৃত ষড়যন্ত্রমূলক সাজানো মিথ্যা মামলা পুনঃ তদন্তের দাবীতে কানাইঘাট পৌর আ’লীগ ও কানাইঘাট বঙ্গবন্ধু আদর্শ বাস্তবায়ন পরিষদের যৌথ উদ্যোগে আজ বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টায় কানাইঘাট বাজার ত্রিমোহনী পয়েন্টে এক প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। বঙ্গবন্ধু আদর্শ বাস্তবায়ন পরিষদের সভাপতি জিএম হায়দারের সভাপতিত্বে এবং পৌর আ’লীগ নেতা ইসমাইল হোসেনের পরিচালনায় উক্ত প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট জেলা আ’লীগের সিনিয়র সদস্য জননেতা জমির উদ্দিন প্রধান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, পৌর আ’লীগের আহ্বায়ক জামাল উদ্দিন, কানাইঘাট বাজার বণিক সমিতির সভাপতি আ’লীগ নেতা সিরাজুল ইসলাম (খোকন), বঙ্গবন্ধু আদর্শ বাস্তবায়ন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দিন। বক্তব্য রাখেন, পৌর আ’লীগ নেতা খলিলুর রহমান, আজমল হোসেন, ইসলাম উদ্দিন, নজরুল ইসলাম, মামুন রশিদ, সাহেদ আহমদ ও আজির উদ্দিন প্রমুখ। সভায় বক্তারা বলেন, একটি মামলাবাজ চক্র সরকারী জলমহাল গাঁয়ের জোরে ভোগ দখল করে সরকারের ল ল টাকা রাজস্ব ফাকির মাধ্যমে হরিলোটের চেষ্টা করলে আব্দুল্লাহ তার প্রতিবাদ করায় সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য মূলকভাবে প্রতিবাদী কন্ঠ পৌর আ’লীগের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক ও বিভিন্ন সমাজিক সংগঠনের সাথে জড়িত আব্দুল্লাহর উপর সম্পূর্ণ ষড় যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা দিয়ে তাঁকে হয়রাণী করছে। নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে আব্দুল্লাহর নিঃশর্ত মুক্তির দাবী করে তার বিরুদ্দে দায়েরকৃত মামলা পুনঃ তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত অপরাধীদের চিহ্নিত করার জন্য প্রশাসনের প্রতি জোর দাবী জানান।

কানাইঘাট কমিউনিটি ক্লিনিকে প্রথম নবজাতক “হৃদয় ”-এর জন্ম

Kanaighat News on Wednesday, January 18, 2012 | 6:34 PM

কানাইঘাট সদর ইউনিয়নের নিজ চাউরা কমিউনিটি ক্লিনিকের ডাক্তারদের তত্ত্বাবধানে সফল ভাবে প্রথম বারের মত সন্তান প্রসব করেছেন রিনা বেগম (২৬)। তিনি নিজ চাউরা উত্তরগ্রামের জমির উদ্দিনের স্ত্রী। গতকাল সকাল ৮ টায় রিনা বেগম প্রসব জনিত ব্যাথা নিয়ে কিনিকে তার স্বজনদের নিয়ে উপস্থিত হন। প্রথমে কমিউনিটি কিনিকের কর্তব্যরত ডাক্তাররা তার প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা দেন পরবর্তীতে কানাইঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সহকারী ডাঃ উৎপলেন্দু বিশ্বাস একদল মেডিকেল টিম নিয়ে দ্রুত সেখানে পৌছেন। তাদের সহায়তায় কোনপ্রকার জটিলতা ছাড়াই রিনা বেগম একটি সুন্দর ফুটফুটে পুত্র সন্তান প্রসব করেন। মা-বাবা তাদের হৃদয় নিংড়ানো এ পুত্র সন্তানের নাম রেখেছেন হৃদয়।

কানাইঘাট প্রেসক্লাবে বিএনপির সংবাদ সম্মেলন

তত্ত্বাবধায়ক সরকার পদ্ধতি পূর্ণবহাল, ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) পদ্ধতি বাতিল, টিপাইমুখে বাঁধ নিমার্ণ বন্ধ এবং বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এম.ইলিয়াস আলীসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে আজ বুধবার কানাইঘাট উপজেলা শাখা বিএনপির উদ্যোগে কানাইঘাট প্রেসকাবে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে উপজেলা বিএনপির মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক আব্দুর রব বলেন, বর্তমান সরকার দেশে একদলীয় বাকশাল ব্যবস্থা পুর্ণবহালের ল্েয সুগভীর ষড়যন্ত্রের অংশ হিসাবে আদালতের অসম্পূর্ণ রায় পাশ কাটিয়ে নিরপে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা জাতীয় সংসদে মাত্র ৪ মিনিটে বাতিল করে দেশে শান্তিপূর্ণ অবাধ নিরপে নির্বাচন ব্যবস্থা উঠিয়ে দিয়ে দেশকে চরম অনিশ্চয়তার দিকে টেলে দিচ্ছে। কিন্তু কোন দলীয় সরকারের অধীনে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপে এবং সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন সম্ভব নয়। তিনি উদাহরণ হিসাবে উল্লেখ করে লিখিত বক্তব্যে বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তনের ল্েয ১৯৯৫-৯৬ সালে বর্তমান রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই দাবীতে তাদের মিত্রদের নিয়ে দেশে ধ্বংসাত্মক জ্বালাও-পোড়াও, অসংখ্য মানুষ হত্যা ও লাগাতার হরতালের মাধ্যমে দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা ব্যাহত করলে তৎকালীন বিএনপি সরকার আ’লীগের আন্দোলন ও দাবীর প্রেেিত নিরপে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তন করেছিল। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে অতীতের সবকটি জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিরপে ভাবে সম্পন্ন হলেও আজ মতার লোভে শেখ হাসিনা অতীত ইতিহাস ভুলে গিয়ে মতায় টিকে থাকার জন্য এবং আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিজেদের চরম ভরাডুবির আশংকায় তত্ত্বাবধায়ক সরকার পদ্ধতি বাতিল করে (দলীয় সরকার) তাদের অধীনে নিবার্চন অনুষ্ঠানের চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। দলীয় সরকারের অধীনে কখনও সুষ্ট-অবাধ-নিরপে গ্রহণ যোগ্য নির্বাচন সম্ভব নয়, কারণ দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন কমিশন স্বাধীন ও নিরপেভাবে দায়িত্ব পালন করতে পারে না, এর নজির রয়েছে। তিনি প্রমাণ হিসাবে উল্লেখ করে বলেন, ভোলা উপ-নির্বাচন এবং নারায়নগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে করতে কমিশন সেনাবাহিনী মোতায়ানের দাবী সরকারের কাছে জানালেও তারা সেনাবাহিনী মোতায়েন করেনি। ইভিএম প্রসঙ্গে তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জার্মান, ফিনল্যান্ডের মতো অন্যান্য উন্নত রাষ্ট্রে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ করলেও পরবর্তীতে ফলাফল পরিবর্তন, জাল-জালিয়াতিসহ বিভিন্ন ত্র“টি ধরা পড়লে এ পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ বাতিল করা হয়। কিন্তু যেখানে দেশে ইভিএম পদ্ধতির মাধ্যমে ভোট গ্রহণ বাতিল হচ্ছে সেখানে বর্তমান সরকার নির্বাচন কমিশনের যোগসাজসে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা (সনাতন) পদ্ধতিতে ব্যালেটের মাধ্যমে ভোট প্রথা বাতিল করে নিজেদের অসৎ উদ্দেশ্য চরিতার্থের জন্য জনগণের ভোটাধিকারের রায় পরিবর্তন ও ভোট ডাকাতি, নির্বাচনী ফলাফল পাল্টিয়ে মতায় টিকে থাকার উদ্দেশ্যে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণের উদ্যোগ নিয়েছে। এ পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ হলে পোলিং এজেন্টদের অজান্তে নিবার্চনের দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মকর্তারা ব্যাপক কারচুপির মাধ্যমে ফলাফল পরিবর্তন করতে পারেন। বিএনপি মনে করে ইভিএম পদ্ধতি বর্তমান সরকারের পাতানো বিজয় বক্স ছাড়া আর কিছু নয়। লিখিত বক্তব্যে আব্দুর রব আরো বলেন, সরকার ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে মতায় টিকে থাকার আজ দেশে মানবাধিকার চরমভাবে লঙ্ঘিত করে বিরোধী দলের উপর স্টিমরোলার চালাচ্ছে। এ ধারাবাহিকতায় দেশের জনগণের ভোটাধিকার নিশ্চতকরণসহ সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলন নৎসাত করার ল্েয বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব তারেক রহমানসহ জাতীয় নেতৃবৃন্দ থেকে শুরু করে মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে একের পর এক ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। এর অংশ হিসাবে সিলেটের কোটি মানুষের প্রিয় নেতা বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এম.ইলিয়াছ আলীর জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে তার বিরুদ্ধে একের পর এক ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে সরকার। অপর দিকে পুরো সিলেটসহ দেশের বিরাট অংশ মরু প্রক্রিয়া করার ল্েয ভারত সরকার একতরফা ভাবে টিপাইমুখে মরন বাঁধ নির্মাণ করলেও ব্যর্থ সরকার তার প্রতিবাদ করতে পারছে না। তিনি দেশের এই ক্রান্তিলঘেœ তত্ত্বাবধায় সরকার ব্যবস্থা পুর্ণবহাল, ইভিএম পদ্ধতি বাতিল, টিপাইমুখে বাঁধ নির্মাণ বন্ধ এবং সরকারের সকল হিংসাত্মক অগণতান্ত্রিক কার্যকলাপ রুখে দাঁড়াবার জন্য দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে আগামী দিনের চলমান সকল আন্দোলন-সংগ্রামে দেশপ্রেমিক সকল শক্তিকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। সংবাদ সম্মেলনে এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি এম.এ. লতিফ, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক হাবিব আহমদ, পৌর বিএনপির সভাপতি ইফজালুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ফরিদ আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক নূরুল হোসেন বুলবুল প্রমুখ।

সুরমার চরে সবজির হাট

Kanaighat News on Tuesday, January 17, 2012 | 7:20 PM

মাহবুবুর রশিদ:

ভোর তখন ৭টা চারিদিকে প্রচন্ড কুয়াশা আর হাঁড় কাপানো শীত। এসব হাঁড় কাঁপানো শীত দমিয়ে রাখতে পারেনি কানাইঘাটের সবজি চাষীদের। ভোর থেকেই সবজি ভর্তি সারি সারি নৌকা নিয়ে হাজির কানাইঘাটের সুরমা চরে সবজিগুলো বিক্রির জন্য। চারিদিকে সবজি আর সবজি, এ যেন সবজি চাষীদের এক মহা মিলনমেলা। এসব উৎপাদিত সবজিগুলোর মধ্যে রয়েছে মূলা, শিম, বাঁধাকপি, ওলকপি,টমেটো, লাইশাক, লাল শাক, শশা, ঝিংগা, লাউ,সরিষা, মরিচ, আলু, পেঁয়াজ ও ফরাস ইত্যাদি। উপজেলার বিভিন্ন জায়গা থেকে সবজি চাষীরা এসব সবজ নিয়ে আসেন। প্রতিদিন ভোর থেকেই দুপুর পর্যন্ত সুরমা নদীর চরে বসে এই শীতকালীন সবজির হাট। কার্যত শীতকালে কানাইঘাটে সুরমা নদীর পানি শুকিয়ে যায়। জেগে উঠে বিশাল চর। খননের অভাবে ভরাট হয়ে যাওয়া নদীর চরে শাক-সবজি চাষ করে সাবলম্বী হয়ে উঠেছেন স্থানীয় কৃষক। এই সবজিগুলো উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজার ছাড়াও সিলেট বিভাগের সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার, বিয়ানীবাজার,জকিগঞ্জ, কোম্পানীগঞ্জ, জৈন্তা, গোয়াইনঘাট এলাকাসহ আরো কয়েকটি উপজেলায় বিক্রি হয়। সরেজমিনে সুরমার চরের সবজির হাটে কথা হয় চড়িপাড়া গ্রামের সফল সবজি চাষী আজির উদ্দিন এর সাথে তিনি জানান,ভাই আমরার খবর কেউ রাখেনা, আমরার ইতা সবজির ছবি পত্রিকাত আইবনি। স্থানীয় আরো কয়েকজন কৃষকের সাথে আলাপকালে জানা যায়, প্রতিবছরের মতো শীতকালীন শাক-সবজির ভালো ফলন হয়েছে, তবে পর্যাপ্ত সার হলে আরো ভালো হতো। ৬ নং সদর ইউনিয়নের গোসাইনপুর গ্রামের সফল-সবজি কৃষক ওহিদ উদ্দিন জানান, টি এস পি সারের অভাব ও পোকার জন্য কীটনাশক ঔষদের দাম বেশি থাকায় পর্যাপ্ত পরিমাণ সবজি উৎপাদন করতে পারছিনা । কানাইঘাট উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, সুরমা নদীর প্রায় ২৫ কিলোমিটার চরসহ ৩,৫০০ হেক্টর জমিতে এ বছর শাক-সবজি চাষ হয়েছে । উপজেলার ১, ২, ৪ ও ৬নং সদর ইউনিয়নে শাক-সবজি বেশি উৎপন্ন হয়। এ ছাড়া ৭, ৮, ৯নং ও অন্যান্য ইউনিয়নের চর ছাড়া ও খাল, বিলের পাশে কিছুটা শাক-সবজি উৎপন্ন হয়। ১নং পূর্ব ও ২নং পশ্চিম লক্ষীপ্রসাদ ইউনিয়নের লোভারমুখ, মেছারচর, আন্দুরমুখ, ৪নং সাতবাঁক ইউনিয়নের পাত্রমাটি, চরিপাড়া, ছাপনগর, বায়মপুর, মূলাগোল, ৬নং কানাইঘাট সদর ইউনিয়নের ডালাইচর, গোসাইনপুর, সুতারগ্রাম, সোনাপুরের চরে ও ৭নং দক্ষিণ বাণীগ্রাম ইউনিয়নের কায়স্তগ্রাম, বড়দেশ চরের গ্রামগুলোতে শীতকালীন সবজি উৎপন্ন হয়।

ময়না তদন্তের রিপোর্ট সুলতানা বিষপানেই মারা গেছে

Kanaighat News on Monday, January 16, 2012 | 10:28 PM

নিজাম উদ্দিন/কাওছার আহমদঃ


স্বামী স্বীকৃতি ও নবজাতক কন্যা সন্তানকে কোল থেকে কেড়ে নেওয়ার ঘটনায় কানাইঘাট পৌরসভার বিষ্ণুপুর গ্রামের প্রতিবন্ধী সুলতানার মৃত্যুর রহস্য ময়না তদন্তের রিপোর্টে বেরিয়ে এসেছে। ফেঁসে যাওয়ার ভয়ে অনেকে আতংকের মধ্যে রয়েছেন। ২০১১ সালের ২২ সেপ্টেম্বর কানাইঘাট পৌরসভার বিষ্ণুপুর গ্রামের আমিনা বেগমের কন্যা প্রতিবন্ধী সুলতানা (১৮) বিষপানেই আত্মহত্যা করেছে বলে ময়না তদন্তের রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে। মৃত্যুর ৩ মাস ২৩ দিন পর ময়না তদন্তের রিপোর্ট কানাইঘাট থানা পুলিশের কাছে পৌছলে তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই শফিক খান এ প্রতিবেদককে জানান, পৌরসভার বিষ্ণুপুর গ্রামের স্বামী পরিত্যক্তা আমিনা বেগমের প্রতিবন্ধী কন্যা সুলতানার সাথে পাশের বাড়ীর মাদ্রাসা পড়–য়া রুবেল আহমদ (১৭) এর প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এক পর্যায়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে রুবেল সুলতানার সাথে দৈহিক সম্পর্ক গড়ে তোললে সে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। বিষয়টি জানাজানি হলে সুলতানার মা রুরেলের পরিবারকে বিষয়টি অবগত করে তার মেয়েকে বিয়ে করার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন। এতে রুবেলের স্বজনরা ঘটনাটি অস্বীকার করে তাড়িয়ে দেন। কোন উপায় না পেয়ে আমিনা বেগম গ্রাম্য মাতব্বরদের কাছে বিচার প্রার্থী হলে বার বার সালিশ বৈঠক বসলেও কোন সমাধান হয়নি। এক পর্যায়ে রুবেলকে অভিযুক্ত করে কানাইঘাট থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার বিষয়টি স্থানীয় পৌর মেয়র লুৎফুর রহমানের কাছে গড়ালে তিনি পৌর ও গ্রাম্য সালিশের মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করেন এবং আমিনা বেগম ও তার অন্তঃসত্ত্বা সুলতানাকে এই বলে আশ্বস্থ করেন যে, সন্তান প্রসবের পর ডিএনএ টেস্টের মাধ্যমে তার বিয়ের স্বীকৃতি দেওয়া হবে। কিন্তু সন্তান প্রসবের পর পৌর কার্যালয়ে সেই পৌর ও গ্রাম্য সালিশদের সিদ্ধান্তে সুলতানাকে ৩০ হাজার টাকা হাতে তুলে দিয়ে তার কোলের সন্তানটিকে কেড়ে নিয়ে সিলেট শহরতলীর জনৈক মহিলার কাছে দত্তক দেন। এ ঘটনায় নিরাশ হয়ে ভেঙ্গে পড়ে সুলতানা ও তার মা। বিয়ের বিষয়টি নিয়ে সালিশ বোর্ডের কাছে কথা বলতে চাইলে তাদেরকে সেখান থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়। এ ধরণের ভৎসনা ও অপমান নিয়ে বাড়ী ফিরে সুলতানা ২২ সেপ্টেম্বর নিজগৃহে রহস্যজনকভাবে মারা যায়। পরদিন সুলতানার মা আমিনা বেগম তার মেয়ে বিষপানে আত্মহত্যা করেছে অভিযোগ এনে কানাইঘাট থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এ খবর বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ায় প্রচারিত হলে পুলিশ সুলতানার প্রেমিক রুবেলকে গ্রেফতার করে এবং বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশে স্থানীয় পুলিশ ২৯ সেপ্টেম্বর সুলতানার লাশ কবর থেকে উত্তোলন করে ময়না তদন্তের জন্য সিলেট ওমেক হাসপাতালে প্রেরণ করে। এরপর মামলাটি পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বার বার তদন্ত করলে প্রায় ১ মাস পর দত্তক দেওয়া নবজাতককে উদ্ধার করে পুলিশ। নবজাতক এ সন্তানের পিতৃ পরিচয় নির্ধারণের জন্য ডিএনএ টেস্ট করা হলেও অদ্যাবধি এ রিপোর্ট পুলিশের কাছে পৌছেনি। এমনকি সুলতানাকে আত্মহত্যার দিকে ঠেলে দেওয়ার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থাও নেওয়া হয়নি। এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস.আই. শফিক খানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ময়না তদন্তের রিপোর্টের ভিত্তিতে মামলার চার্জশীট আদালতে প্রেরণ করা হবে।

সমাজসেবী ফাহিম আল্ ইসহাক চৌধুরীর আজ জন্মদিন

মাহমুদ বিন শফীক:



আজ ১৬ জানুয়ারী। জকিগঞ্জ-কানাইঘাটের গরীব-দুঃখী ও মেহনতী মানুষের বন্ধু, নিঃস্বার্থ সমাজসেবী, নিরহংকার ব্যক্তি, সবুজ - শ্যামল আকা - বাকা মানচিত্রে বাঁধা পূণ্যভূমিতে ফোটা ফুটন্ত গোলাপ- ক্যাপ্টেন ফাহিম আল্ ইসহাক চৌধুরী ১৯৮২ সালের এই দিনে শাহবাগস্থ মুহিতপুর গ্রামে মোছা. জাহানারা বেগমের কুলে জন্ম। এই সবুজের হাওয়ায় ক্যাপ্টেন ফাহিম- মায়ের কোলে বেড়ে উঠেন। বেড়ে উঠেন সুবুজের সাথে মিশে এই প্রকৃতিক সুন্দর্য্যরে লীলাভূমিতে। বাল্যকালে সহপাঠিদের সাথে খেলাধুলা, উঠাবসা ও মেধায় কেড়ে নেন পাড়া-প্রতিবেশী ও প্রাইমারী শিক্ষকগণের মন। স্বপ্ন জাগিয়ে দেন সকলের মনে। ভাবতে থাকে সকলেই- একদিন ফাহিম এই মাঠি মানুষ ও জকিগঞ্জ - কানাইঘাটের মুখ উজ্জল করবে। তাই সবারই স্বপ্ন ও আত্মার দোয়া বৃথা নয়। ৭ বছর বয়সে মা-বাবার সাথে ফাহিম উচ্চ ও আধুনিক শিক্ষা লাভের আশায় চলে যান সুধুর লন্ডনে। সেখানেও অত্যন্ত মেধার সহিত ব্যাচলর অব সাইন্সের অধ্যয়ন শেষ করে লাল সুবুজে গাথা পতাকার মান আরও সূদৃঢ় ও সুমহান করতে ২০০৬ সালে ভর্তি হন ডিসকভারী ট্রেনিং সেন্টারে (ঞড়ৎড়হঃ ঈধহধফধ)। ২০০৭ সালে দক্ষতা ও সততার প্রমাণ দিয়ে জন্মভূমিতে ফিরেন ক্যাপ্টেন টাইটেল নিয়ে। দেশ ও জাতীর মুখ উজ্জলের লক্ষ্যে তিনি চাকরী নেন ইজি জেড এয়ারওয়েজে প্রথম বাংলাদেশী ক্যাপ্টেন হিসাবে। দীর্ঘদিন চাকুরী করার পর এয়ার পরিবহনে সবচেয়ে পরিচিত ব্রিটিশ এয়ারওয়েজেও প্রথম বাংলাদেশী ক্যাপ্টেন হিসাবে চাকুরী করেন। বাল্য থেকে ফাহিম ছিলেন উদারমনা, নিরহংকার ও নিঃস্বার্থ। তাই শিক্ষাবর্ষের ফাঁকে ফাঁকে নাড়ির টানে এলাকার সুন্দর মানুষের মায়ায় চলে আসতেন জন্মভূমিতে। চলে যেতেন গ্রামের সুবিধা বঞ্চিত এবং দরিদ্র শিক্ষার্থীসহ গরীব- দুঃখী ও নির্যাতি - নিপিড়িতদের পাশে। নিজের লেখা-পড়ার খরচের টাকা থেকে বাঁিচয়ে সাধ্যমত বিলিয়ে দিতেন এলাকার ঐসব মানুষের তরে। সময়ের তালে ধীরে ধীরে তাঁর হাত প্রসারিত হতে থাকে। তাই গ্রামের সুবিধা বঞ্চিত এবং দরিদ্র শিক্ষার্থীসহ গরীব- দুঃখী ও নির্যাতি - নিপিড়িতদের সব ধরনের সহযোগিতা-সহমর্মিতার পাশাপাশি এলাকার মসজিদ, মাদ্রাসায় দান - খয়রাত এবং রাস্তাঘাটের উন্নয়নের জন্য নিজের অনুদান অব্যাহত রাখেন। অবদান রাখেন- বণ্যার্থদের ত্রান সামগ্রী দিয়ে, স্কুল - কলেজে, শিক্ষা ও সংস্কৃতি উন্নয়নে আর্থিক ও মানসিকভাবে। ২৯ বছর বয়সে সেই ফাহিম আজ জকিগঞ্জ-কানাইঘাটের নয়ন মনি, গরীব-দুঃখী, মেহমনতী মানুষের বন্ধু, নিরহংকার ব্যক্তি ও নিঃস্বার্থ সমাজসেবী ক্যাপ্টেন ফাহিম আল্ ইসহাক চৌধুরী নামে। তাই জকিগঞ্জ ও কানাইঘাটের সর্বস্থরের জনগণ মহান রাব্বুল আলামীনের কাছে চায় তাঁর দীর্ঘায়ূ, চায় তাঁর উজ্জল ভবিষ্যত।

জেলা আ’লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদককে কানাইঘাটে সংবর্ধনা

Kanaighat News on Sunday, January 15, 2012 | 9:27 PM

সিলেট জেলা আ’লীগের সহসভাপতি ও জকিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মাসুক উদ্দিন আহমদ বলেছেন, কোন কিছু চাওয়া-পাওয়ার আশায় নয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়তে আ’লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের আদর্শের প্রতি অভিচল থেকে দল ও দেশের জন্য কাজ করতে হবে। তিনি আরো বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা যখন দেশকে খাদ্যে স্বয়ং সম্পুর্ণ ও অর্থনৈতিকভাবে দারিদ্রমুক্ত সমৃদ্ধ দেশ গঠনের পাশাপাশি একাত্তরের চিহ্নিত যুদ্ধাঅপরাধীদের বিচার, দেশে আইনের শাসন কায়েম, জনগণের ভোটাধিকার নিশ্চিতকরণসহ সকল হত্যা কান্ডের বিচারের মাধ্যমে জাতীকে কলঙ্কমুক্ত করার দৃড় প্রত্যেয় নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন তখন দেশকে ওরাজকথার দিকে ঠেলে দিয়ে যুদ্ধাপরাধীদের রা করার জন্য বিএনপি’ জামায়াত জোট নৈরাজ্যের পথ বেঁচে নিয়েছে। আ’লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা অশুভ শক্তির সকল তৎপরতা রাজপথে প্রতিহতের মাধ্যমে শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংরাদেশ নির্মাণে সকল বেধাবেধ ভুলে গিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি। মাসুক উদ্দিন আহমদ গত শনিবার বিকেল ৫টায় কানাইঘাট সীমার বাজারে জেলা আ’লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক এমাদ উদ্দিন মানিকের সম্মানে গাছবাড়ী সীমার বাজার আঞ্চলিক শাখা আ’লীগ অঙ্গসংগঠনের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। সীমার বাজার আঞ্চলিক শাখা আ’লীগের সভাপতি নিয়াজ উদ্দিনের সভাপতিত্বে এবং ছাত্রলীগ নেতা কামাল উদ্দিন ও জামিল আহমদের যৌথ পরিচালনায় উক্ত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সংবর্ধিত অতিথি জেলা আ’লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক এমাদ উদ্দিন মানিক, সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগনেতা এডভোকেট আব্দুল খালিক, আ’লীগ নেতা এডভোকেট আব্দুস সাত্তার, মাষ্টার আব্দুল খালিক। বক্তব্য রাখেন, থানা যুবলীগ নেতা সালেহ আহমদ, তাজুল ইসলাম, শরীফ উদ্দিন, নাজিম উদ্দিন, সামসুর রহমান, কামাল আহমদ, শাহেদ আহমদ, আব্দুল মৌলা, থানা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক গিয়াস উদ্দিন, জেলা ছাত্রলীগের উপ সম্পাদক হামজা হেলাল, হারুন রশিদ, সুমন আহমেদ, শিব্বির আহমেদ ওসমানী, শিব্বির আহমদ, আক্তার হোসেন, সারওয়ার হোসেন, আব্দুল্লাহ আল মামুন, রব্বানী, সুলেমান, আবুল কালাম, ইয়াহিয়া, কিবরীয়া, কয়েস, সুহেল, দেলোওয়ার হোসেন প্রমুখ। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের শুরুতে কানাইঘাটের গাছবাড়ি এলাকার কৃতি সন্তান আ’লীগের পরীতি সৈনিক সংবর্ধিত জেলা আ’লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক এমাদ উদ্দিন মানিককে দলের বিভিন্ন স্থরের নেতাকর্মীরা বিপুলভাবে মাল্য ভূষিত করেন।

কানাইঘাটে চেক জালিয়াতির মামলায় মহিলা গ্রেফতার

গতকাল কানাইঘাট থানা পুলিশ এলাকার বহুল আলোচিত প্রতরণা মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত পলাতক আসামী জাহানারা বেগমকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে। সে উপজেলার উজানীপাড়া গ্রামের প্রবাসী মখলিছুর রহমানের স্ত্রী। জানা যায়, জাহানারা বেগমের স্বামী দীর্ঘদিন ধরে সৌদি প্রবাসে। এই সুবাদে সে এলাকার বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে মূল্যবাণ জিনিসপত্র বাকি কিনে নিত। এছাড়াও বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে টাকা পয়সা ধার নিতো। পরবর্তীতে প্রাপ্য টাকা চাইতে গেলে সে তা অস্বীকার করতো এবং পাওনাদারদের উল্টো নানাভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে মানুষের টাকা পয়সা আত্মসাৎ করে আসছিল। এমতাবস্থায় আত্মীয়তার সূত্র ধরে গত ১৯ মে জাহানারা বেগম কানাইঘাট বাজারের ব্যবসায়ী জসিম উদ্দিনের নিকট থেকে বিশেষ প্রয়োজন দেখিয়ে নগদ ২লক্ষ টাকা ১মাস সময়ের কথা বলে ঋণ গ্রহন করে এবং সিলেট সিটি ব্যাংক বন্দর বাজার শাখার একটি চেক জসিমকে প্রদান করে। কিন্তু নির্ধারিত তারিখে উক্ত চেক নিয়ে সিটি ব্যাংক বন্দর বাজার শাখায় টাকা উত্তোলন করতে গেলে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ বলেন, জাহানারা বেগম স্বাক্ষরিত এ চেকটি তার একাউন্টের নয়। পরে জসিম উদ্দিন জাহানারা বেগমের সাথে যোগাযোগ করে তার প্রাপ্য টাকা ফিরত চাইলে জাহানারা থাকে নানা ভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। জসিম নিরুপায় হয়ে বিষয়টি এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের অবহিত করেও কোন সুরাহা করতে পারেন নাই। অবশেষে তিনি গত ৪ অক্টোবর সিলেটের সিনিয়র চীফ্ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ৩য় আদালতে প্রতিকার চেয়ে জাহানারা বেগমের বিরুদ্ধে একটি দরখাস্ত মামলা করেন। যার নং- (১৯৯)। বিজ্ঞ আদালত তদন্তক্রমে মামলাটি প্রতিবেদন দাখিলের জন্য কানাইঘাট থানায় প্রেরণ করেন। মামলাটি থানার এসআই শফিকুল ইসলাম খান সরেজমিন তদন্ত করেন। দীর্ঘ তদন্ত শেষে অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হওয়ায় প্রতারক জাহানারা বেগমের বিরুদ্ধে ৪০৬, ৪২০, ৪২২ ধারায় অভিযোগ এনে আদালতে একটি প্রতিবেদন প্রেরণ করেন। এরই প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালত, জাহানারার বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট ইস্যু করেন, গত শুক্রবার গভীর রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানার এ.এস.আই. অনুপম দেবনাথ ও হুমায়ূন কবির একদল পুলিশ নিয়ে অভিযান চালিয়ে জাহানারা বেগমকে তার পিত্রালয় ছত্রপুর গ্রাম থেকে গ্রেফতার করেন। এদিকে প্রতারক জাহানারা গ্রেফতারের খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে গতকাল সকালে থানা প্রাঙ্গনে কানাইঘাট বাজারের আরো ১০/১২ জন ব্যবসায়ীর তার কাছে টাকা পান বলে, থানার অফিসার ইনচার্জ রফিকুল হোসাইনকে অবহিত করেন।

কানাইঘাটে ডাকাত গ্রেফতার

Kanaighat News on Saturday, January 14, 2012 | 8:47 PM

কানাইঘাটের জুলাই গ্রামের ফ্রান্স প্রবাসী ফারুক আহমদের বাড়ীতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি ঘটনার সাথে জড়িত এক কুখ্যাত ডাকাতকে জকিগঞ্জ উপজেলার চৌধুরী বাজার গোটারগ্রাম থেকে স্থানীয় জনাত আটক করে গত বৃহস্পতিবার রাত ৮টায় কানাইঘাট থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে। জানা যায় ফ্রান্সপ্রবাসী ফারুক আহমদের বাড়ীতে ডাকাতির সাথে জড়িত জকিগঞ্জ বারহাল ইউনিয়নের শরীফাবাদ গ্রামের কুখ্যাত হেলাল ডাকাতের পুত্র জাকির আহমদ (২২) কে গত বৃহস্পতিবার বেলা ১টায় জকিগঞ্জের কালিগঞ্জ বাজারের জনৈক একজন স্বর্ণ ব্যবসায়ীর কাছে ডাকাতির লুন্ঠিত স্বর্ণালংকার বিক্রি করতে গেলে তার গতিবিধি সন্দেহজনক হলে স্থানীয় জনতা তাকে ধরার চেষ্টা করলে সে পালিয়ে গিয়ে গোটারগ্রামে আশ্রয় নেয়। পরে সেখানে স্থানীয় লোকজন হানা দিয়ে ইউপি সদস্যের উপস্থিতিতে জাকির ডাকাতকে ধরে মানিক ইউপি কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয় ইউপি চেয়ারম্যান রায়হান উদ্দিনের উপস্থিতিতে জাকির ডাকাত ফ্রান্সপ্রবাসী ফারুক আহমদের বাড়ীতে ডাকাতির ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করলে কানাইঘাট থানার এসআই শফিক খান মানিকপুর ইউপি কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে ঐ ডাকাতকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসেন। তার বিরুদ্ধে ফ্রান্স প্রবাসীর বাড়ীতে ডাকাতির ঘটনার সাথে জড়িত থাকার দায়ে মামলা রয়েছে। অপর দিকে থানার এসআই হাবিব গত বৃহস্পতিবার রাতে এক অভিযান চালিয়ে একটি ডাকাতি মামলার ওয়ারেন্টভূক্ত আসামী কানাইঘাট সদর ইউপির সোনাপুর গ্রামের ইব্রাহিম আলীর পুত্র আম্বিয়া (২৮) গ্রেফতার করে। এরমধ্যে বিভিন্নসূত্রে জানা গেছে গ্রেফতারকৃত ডাকাত জাকির আহমদকে গতকাল কানাইঘাট থানা পুলিশ আদালতে সোপর্দ করার পর তার জামিন না মঞ্জুর করে বিজ্ঞ আদালত জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দিলে পুলিশ ভ্যান থেকে সে হাতকড়া নিয়ে পালিয়ে যায়।

ঝিঙ্গাবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটি গঠিত

কানাইঘাট উপজেলার ঐতিহ্যবাহী ঝিঙ্গাবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি গঠন উপলক্ষে এক সভা বিদ্যালয় সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। বিদায়ী সভাপতি শহিদ চৌধুরীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বিদ্যালয়ের মান উন্নয়নে বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন ঝিঙ্গাবাড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাষ্টার রফিক আহমদ চৌধুরী, পূর্বগ্রাম রেজি: প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাংবাদিক আম্বিয়া চৌধুরী, যুবলীগ তো সালাহ উদ্দিন, সোহেল আহমদ ও মুজম্মিল আলী প্রমুখ। সভায় আব্দুল মুকিতকে সভাপতি, আলাউদ্দিন মেম্বার, মাষ্টার আবুল কালাম, মাষ্টার ফারুক আমদ চৌধুরী, শফিকুর রহমান কে সদস্য করে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়। -বিজ্ঞপ্তি

চতুল বাজারে অগ্নিকান্ডে ৪ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি

Kanaighat News on Friday, January 13, 2012 | 9:44 PM

আব্দুল্লাহ আল নোমানঃ
কানাইঘাট চতুল বাজারে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ১টি দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এতে প্রায় ৪ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। বাজারের পাহারাদার সূত্রে জানা যায় গতকাল রাত আড়াইটার সময় মধ্যবাজারের মতিন ভেরাইটিজ স্টোরে এ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। তবে অগ্নিকাণ্ডের কোন সূত্রপাত পাওয়া যায়নি। দোকানের মালিক চতুল সরুফৌদ গ্রামের আব্দুল মতিন জানান, এতে দোকান ঘর সহ প্রায় ৪ ল টাকার মালামাল পুড়ে গেছে, এর ফলে তিনি সবকিছু হারিয়ে নিঃস হয়ে গেছেন। ঘটনার খবর পেয়ে কানাইঘাট থানা নির্বাহী কর্মকর্তা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

রাস্তা সংস্কারের দাবীতে জৈন্তাপুর ও কানাইঘাটে ১৮ জানুয়ারী সকাল-সন্ধ্যা হরতাল

Kanaighat News on Thursday, January 12, 2012 | 10:40 PM

দরবস্ত-চতুল-কানাইঘাট রাস্তা দ্রুত সংস্কারের দাবীতে রাস্তা উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদের ডাকে আগামী ১৮ জানুয়ারী বুধবার জৈন্তাপুর ও কানাইঘাট উপজেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। জৈন্তাপুর ও কানাইঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান ও সর্বদলীয় নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত মহাসমাবেশ থেকে এ কর্মসূচী ঘোষণা করা হয়। এ লক্ষ্যে ব্যাপক গণসংযোগ ও মত বিনিময় অব্যাহত রয়েছে। জৈন্তাপুর, কানাইঘাট, দরবস্ত, চতুল বাজারসহ বিভিন্নস্থানে গণসংযোগ ও মতবিনিময় কালে নেতৃবৃন্দ বলেন, দীর্ঘ তিন মাস থেকে রাস্তা সংস্কারের জন্য সংগ্রাম পরিষদের মাধ্যমে প্রশাসনের প্রতি জোর দাবী জানানো হলে কর্তৃপক্ষের টনক নড়েনি। লোক দেখানোর জন্য যে কাজ শুরু করা হয়েছে তা দিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত বা আন্দোলন থেকে পিছপা করা যাবে না। গণসংযোগ ও মতবিনিময় কালে উপস্থিত ছিলেন সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক, সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হামিদুল হক, সদস্য সচিব মাওলানা আবুল হোসাইন চতুলী, সংগ্রাম পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুর রশীদ, যুগ্ম সদস্য সচিব মুফতি এহছান উল্লাহ, মাওলানা নুরুল ইসলাম নোমানী, মাওলানা রেজাউল করিম রেজা, মাওলানা আলিম উদ্দিন, মাওলানা খলিলুর রহমান, হাফিজ মাসুদ আজহার প্রমুখ। এদিকে, হরতালের প্রতি একাত্মতা পোষণ করে হরতাল সফল করার জন্য আহবান জানিয়েছেন দরবস্ত সমাজকল্যাণ পরিষদ, প্রজন্ম প্রত্যাশা-চতুল, চতুলবাজার ব্যবসায়ী সমিতি, দরবস্ত বাজার ব্যবসায়ী সমিতি, চতুল সমাজকল্যাণ ট্রাস্ট ও আল খয়ের ফাউন্ডেশন, চতুল এর নেতৃবৃন্দ। বিজ্ঞপ্তি

কানাইঘাট থানায় ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠিত

নিজাম উদ্দিন:

কানাইঘাট থানা পুলিশের উদ্যোগে আজ বিকেল ৩টায় কানাইঘাট থানা প্রাঙ্গনে ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠিত হয়। থানার নবাগত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রফিকুল হোসেনের সভাপতিত্বে এবং এস.আই হাবিবের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সিলেটের পুলিশ সুপার সাখাওয়াত হোসেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন, কানাইঘাট উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র লুৎফুর রহমান, ৬নং ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম, কানাইঘাট প্রেসকাবের সভাপতি এম.এ.হান্নান, চেয়ারম্যান ফারুক আহমদ চৌধুরী, চেয়ারম্যান আব্দুল মুমিন চৌধুরী ও চেয়ারম্যান রফিক আহমদ। এছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ তাদের নিজ নিজ সমস্যার কথা পুলিশ সুপার বরাবরে তুলে ধরেন। প্রধান অতিথি পুলিশ সুপার সাখাওয়াত হোসেন তাঁর বক্তব্যে বলেন, মিথ্যা মামলা প্রতিরোধে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। পুলিশকে সঠিক তথ্য ও প্রকৃত অপরাধীদের চিহ্নিত করতে জনগণকে এগিয়ে আসতে হবে। এ লক্ষে পুলিশ-জনতার সম্মিলিত প্রয়াসই একটি জনপদকে অপরাধ মুক্ত করতে পারে। তিনি পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, সরকার আপনাদের পদ মর্যাদা বৃদ্ধি করেছেন। আপনাদের কর্মদক্ষতা এবং বলিষ্ঠ নেতৃত্ব দিয়ে এ পদমর্যাদাকে ধরে রাখতে হবে। তিনি আরো বলেন, আইন শৃঙ্খলা উন্নতির লক্ষে আগামী দুই মাসের মধ্যে কানাইঘাটে নতুন পুলিশিং কমিটি গঠন করা হবে। এদিকে নবাগত ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা জানান, তিনি কানাইঘাট থানায় যোগদানের ১৪দিনের মধ্যে ১২জন দুর্ধর্ষ ডাকাতসহ বিভিন্ন মামলার ৭৫জন আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ উপলক্ষে কানাইঘাটে র‌্যালী আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

Kanaighat News on Wednesday, January 11, 2012 | 11:11 PM

জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ উপল্ক্ষে গত বুধবার কানাইঘাট উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের উদ্যোগে সকাল ১০টায় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষকদের অংশগ্রহনে উপজেলা সদরে এক বর্নাঢ্য র‌্যালী বের হয়। র‌্যালীটি উপজেলা প্রশাসন চত্ত্বর থেকে শুরু হয়ে প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পূণরায় উপজেলা চত্ত্বরে এসে মিলিত হয়। র‌্যালী পরবর্তী উপজেলা মিলানায়তন হলে শিক্ষা সপ্তাহ উপলক্ষে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস.এম. সোহরাব হোসেনের সভাপতি্ত্বে এবং সহকারী শিক্ষা অফিসার আব্দুল বাছিতের সঞ্চালনায় উক্ত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) হারুনুর রশিদ, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সাজ্জাদ হোসেন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শীর্ষেন্দু পুরকায়স্ত, উপজেলা প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি আব্দুল লতিফ, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল আহমদ প্রমুখ।

কানাইঘাটে ৭ জোয়াড়ী গ্রেফতার

কানাইঘাট থানা পুলিশ গত মঙ্গলবার গভীর রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কানাইঘাট পৌরসভা বাইয়মপুর গ্রামে এক অভিযান চালিয়ে ৭ জোয়াড়ীকে নগদ ২হাজার টাকা, তাশ খেলার সরঞ্জামসহ গ্রেফতার করেছে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানার এস.আই.এনাম আহমেদ ও এস.আই.শফিক খান এক অভিযান চালিয়ে বায়মপুর গ্রামের আলী আহমদের বাড়িতে নগদ টাকা দিয়ে জোয়া খেলার সময় ৭জোয়াড়ীকে হাতে নাতে গ্রেফতার করেন। গ্রেফতারকৃতরা জোয়াড়ীরা হলো- বাইয়মপুর গ্রামের মৃত আব্দুর রকিবের পুত্র কামাল উদ্দিন (২৫) ফারুক আহমদের পুত্র বাবুল আহমদ (২২), মঈন উদ্দিনের পুত্র কালাম (২১) মৃত নুরুল হকের পুত্র আলী আহমদ (৩৬), মৃত বশির আহমদের পুত্র হানিফ আলী (২৫), মৃত মতছির আলীর পুত্র নুর আহমদ (৩৮) মৃত হাজী এবাদুর রহমানের পুত্র সামসুর রহমান (৩৫)। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে এস.আই শফিক খান সংঘবদ্ধ হয়ে জোয়া খেলার অপরাধে বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন। গতকাল বুধবার গ্রেফতারকৃতদের আদালতে সোপর্দ করেছে পুলিশ।

শিক্ষা সপ্তাহ উপলক্ষ্যে উজান বীরদল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের রেলী ও আলোচনা সভা

Kanaighat News on Tuesday, January 10, 2012 | 9:09 PM

নিজাম উদ্দিনঃ

‘জাতীর জন্য অহংকার, শতভাগ ভর্তির হার” প্রতিপাদ্যকে সামনে নিয়ে কানাইঘাট উপজেলার উজান বীরদল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উদ্যোগে গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহের র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। স্কুলের প্রধান শিক লুৎফুর রহমানের নেতৃত্বে বিদ্যালয়ের ব্যানারে ফেস্টুন ও বিভিন্ন শিক্ষামূলক ¯স্লোগানের মাধ্যমে এক বিশাল র‌্যালী বের করে ক্ষুধে শিক্ষার্থীরা। র‌্যালীটি স্থানীয় গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলো প্রদক্ষিণ শেষে পূণরায় স্কুল প্রাঙ্গনে এসে মিলিত হয়। পরে প্রধান শিক্ষক লুৎফুর রহমানের সভাপতিত্বে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহের আলোচনা সভায় শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে উপদেশমূলক বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও কানাইঘাট রামিজা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মামুনুর রশিদ, সহকারী শিক আমিনুর রহমান, নছির উদ্দিন, জামাল উদ্দিন, ফজলু আহমদ, জহিরুল আলম, ইয়াহিয়া, শিক্ষিকা স্বপ্না রানী দাস ও নুর জাহান।

সোনালী ব্যাংক কানাইঘাট শাখার উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ

বাংলাদেশ সোনালী ব্যাংক কানাইঘাট শাখার উদ্যোগে গত সোমবার ব্যাংক কার্যালয়ে ৯০জন হতদরিদ্র শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। এ উপলক্ষে ব্যাংকের শাখা কার্যালয়ে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। কানাইঘাট শাখার ব্যবস্থাপক সুজিত কুমরা রায় এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সোনালী ব্যাংক সিলেটের জেনারেল ম্যানেজার মোঃ নুরুল ইসলাম চৌধুরী, বিশেষ অতিথি ছিলেন, সিলেটের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মোহাম্মদ ওবায়দুর রহমান, সিবিএ নেতা আখতারুল ইসলাম খান, সাতবাঁক ইউপি চেয়ারম্যান ফয়জুল ইসলাম ও পৌর কাউন্সিলার হাফিজ নুর উদ্দিন প্রমুখ।

কানাইঘাটে পুলিশী অভিযানে ৯ জন গ্রেফতার

Kanaighat News on Monday, January 9, 2012 | 6:18 PM

গত ১লা জানুয়ারী রাতে কানাইঘাট সদর ইউনিয়নের নিজ চাউরা উত্তর গ্রামের জালাল উদ্দিনের পুত্র ব্যবসায়ী আব্দুল মুমিনের মোটর সাইকেল পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনার সাথে জড়িত থাকার দায়ে কানাইঘাট থানা পুলিশ গত শুক্র ও শনিবার পৃথক অভিযান চালিয়ে ৩ আসামী এবং বিভিন্ন মামলার এফআইয়ার ও ওয়ারেন্টভুক্ত আরো ৬ আসামীকে গ্রেফতার করেছে। মোটর সাইকেল পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনার সাথে জড়িত আসামীরা হলো কানাইঘাট ৬নং সদর ইউনিয়নের নিজ চাউরা উত্তর গ্রামের মৃত মন্তাজ আলী’র পুত্র এলাকার চিহ্নিত অপরাধী ও মাদক ব্যবসায়ী তজরুল (২৮), একই গ্রামের মনোহর আলী’র পুত্র তাজ উদ্দিন (৩০) ও মৃত আইয়ুব আলী’র পুত্র বশির আহমদ (২৯)। অন্যান্য গ্রেফতারকৃত মামলার আসামীরা হলো উপজেলার গর্দনাকান্দি গ্রামের মৃত আব্দুল হান্নানের পুত্র আতাউর রহমান (৩৫), লুৎফুর রহমান (৪০), কায়স্ত গ্রামের মৃত আব্দুস সামাদের পুত্র আব্দুল লতিফ (৪৫), ডোনা গ্রামের মৃত তৈয়ব আলী’র পুত্র আব্দুল করিম (৫৫), তার পুত্র লায়েক আহমদ (৩০) ও পবড়চাতল গ্রামের জালাল উদ্দিনের পুত্র মিছাই উদ্দিন (৩৫)। এরমধ্যে ব্যবসায়ী আব্দুল মুমিনের মোটর সাইকেল পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনার সাথে জড়িত ৩আসামী প্রাথমিক পুলিশী জিজ্ঞাসাবাদে মোটর সাইকেল পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস.আই এনাম আহমেদ জানিয়েছেন আসামীদের কাছ থেকে আরো গুরুত্বপূর্ণ তথ্য উদ্ঘাটনের জন্য বিজ্ঞ-আদালতে ৭দিনের পুলিশী রিমান্ডের আবেদন জানানো হবে।

জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ সাধারণ সম্পাদকের পিতার দাফন সম্পন্ন

Kanaighat News on Sunday, January 8, 2012 | 11:34 PM

সিলেট জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক সিলেট বারের এপিপি এডভোকেট ফখরুল ইসলামের পিতা হাজী আব্দুল মজিদের জানাজা গত শনিবার বাদ জোহর দুর্লভপুর জামে মসজিদ সংলগ্ন মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। এরপর তার লাশ পারিবারিক কবরস্থানে সমাহিত করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, সিলেট জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সদস্য জমির উদ্দিন প্রধান, উপজেলা চেয়ারম্যান আশিক উদ্দিন চৌধুরী, উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র লুৎফুর রহমান, আ’লীগ নেতা ইউপি চেয়ারম্যান অধ্য সিরাজুল ইসলাম, কানাইঘাট-জকিগঞ্জ বিএনপি’র সমন্বয়কারী মামুনুর রশিদ, কানাইঘাট প্রেসকাবের সভাপতি এমএ হান্নান, সমাজসেবী ডাঃ মুফাজ্জিল হোসেইন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক মামুন রশিদ,জেলা যুবলীগের সদস্য আব্দুল হেকিম শামীম,কানাইঘাট উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মোঃ গিয়াস উদ্দিন প্রমূখ।

জকিগঞ্জে ১ম ফাহিম আল ইসহাক চৌধুরী বৃত্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

Kanaighat News on Saturday, January 7, 2012 | 11:38 PM

জকিগঞ্জে ১ম ফাহিম আল ইসহাক চৌধুরী বৃত্তি পরীক্ষা অনুষ্টিত হয়েছে। শুক্রবার সকাল নয়টা থেকে দুপুর বারটা পর্যন্ত মোট আটটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১৬৯ জন শিক্ষার্থীকে নিয়ে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনা নিয়ে শিশুরা এ পরিক্ষায় অংশগ্রহন করে। পরীক্ষাচলাকালীন সময় কেন্দ্র পরিদর্শন করেন বৃত্তী পরিক্ষার উদ্যোক্তা ব্রিটিশ পাইলট সমাজসেবী ক্যাপ্টেন ফাহিম আল ইসহাক। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি শিশুদের উদ্দ্যেসে বলেন, সময়টা এখন নিজেকে গড়ে তোলার । উচ্চ শিক্ষার লক্ষ্য সবাই কে অনেক দূর যেত হবে। কোন অবস্থাতেই তোমাদের এ শিক্ষা যেন আর বন্ধ না হয়। তোমাদের সামনে সপ্নময় পৃথিবী। সবাইকে শিক্ষার আলো নিয়ে সপ্ন বাস্তাবায়ন করতে হবে। অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ঘুনে ধরা সমাজব্যাবস্থা, যার অষ্টেপৃষ্টে জরিয়ে আছে দূর্নীতি। এখন থেকে শিশুদের সুশিক্ষায় গড়ে তুলতে হবে। তাহলে একদিন এ সমাজ দূর্নীতি ও সন্ত্রাসের রাহু মুক্ত হবে। ভবিষ্যতে এ পরিক্ষা পুরো জকিগঞ্জ উপজেলায় যাতে অনুষ্ঠিত হয় সে জন্য সবার সহযোগিতা চাচ্ছি। পরীক্ষা পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন জকিগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো: মাহমুদুল হক, ১ নং বারহাল ইউপির চেয়ারম্যান তালুকদার মিসবাউজ্জামান, বৃত্তি কমিটির সচিব বালিটেকা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক রওসন আরা, উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার আব্দুর ওয়াহেদ, মো: ইউসুফ, অশীষ কুমার তরফদার, নিউ জেনারেসন আউডিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: মাজহারুল হক ও ইউপি সদস্য ছালিকুর রহমান সহ এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ।

ফাহিম আল ইসহাক ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্টের ১ম বৃত্তি পরীক্ষা আজ

Kanaighat News on Friday, January 6, 2012 | 2:53 PM

নিঃস্বার্থ সমাজসেবী জকিগঞ্জের কৃতি সন্তান ক্যাপ্টেন ফাহিম আল ইসহাক চৌধুরীর নামে প্রতিষ্ঠিত “ফাহিম আল ইসহাক ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্ট (শিক্ষা শাখার) উদ্যোগে বারহাল ইউনিয়নের ১৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র/ছাত্রীদের নিয়ে আজ শুক্রবার প্রথম বারের মতো তৃতীয় শ্রেণী থেকে পঞ্চম শ্রেণীর বৃত্তি পরীক্ষার আয়োজন করা হয়েছে। ট্রাষ্ট সচিব ও বালিটেকা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা রওশন আরা বেগম জানান, পরীক্ষা সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত বালিটেকা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে। পরীক্ষায় প্রায় ২০০জন ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহন করবে।কেন্দ্র পরিদর্শন করবেন ট্রাষ্টের চেয়ারম্যান ক্যাপ্টেন ফাহিম আল ইসহাক চৌধুরী।

কানাইঘাটে যুবদলের শো-ডাউন

Kanaighat News on Wednesday, January 4, 2012 | 8:53 PM

নিজাম উদ্দিনঃ

কেন্দ্রীয় যুবদলের নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত একাধিক মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে এবং বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এম.ইলিয়াস আলী’র বিরুদ্ধে অব্যাহত ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে কানাইঘাট উপজেলা ও পৌর যুবদলের উদ্যোগে গতকাল বুধবার বাদ মাগরিব কানাইঘাট বাজারে বিােভ মিছিল পরবর্তী দণি বাজারে প্রতিবাদ সমাবেশের মাধ্যমে শো-ডাউন করেছে যুবদলের শত শত নেতাকর্মীরা। পৌর যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক ইসলাম উদ্দিনের সভাপতিত্বে এবং থানা ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক জালাল আহমদ জনীর পরিচালনায় প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, থানা যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক মামুন রশিদ, শায়িক আহমদ, ওলিউর রহমান, কাওছার আহমদ বাঙ্গালী, নিজাম উদ্দিন, পৌর যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক সামসুল ইসলাম, বিলাল, আজির, ডালিম আহমদ। থানা ও পৌর যুবদল নেতাকর্মীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- কাওছার, ওয়াসিম, আফতাব, ছয়ফুল আলম, মিনহাজ, সেলিম, জাফর, কুদরত, বশির, রুবেল, রহমত আলী, রফিক, নুরুল আমিন, এখলাছ, রুবেল, জামাল, জহির, মারুফ, জুবেল, রহিম, দেলোওয়ার, ফয়সল, আনোয়ার, শামীম, মানিক, জয়নাল, ফয়েজ, রইছ, জাহাঙ্গীর, আজির, শরীফ, আবুল, রুবেল, নুর, আব্দুন নুর, জাহাঙ্গীর, হেলাল, জামিল, কামিল, বদরুল, নজরুল, সুলতান, মিনহাজ, বুরহান, নুরুল ইসলাম, আসাক, আলা উদ্দিন, শামীম, আবুল, হাসনাত, শহীদ, সাব্বির, কিবরীয়া, মিনহাজ, এনাম, ফরিদ, রাসেল, বুলবুল, বাবুল, মারুফ, মন্নান, আশিক, কামরুল, আবুল, লতিফ, আব্দুল হামিদ, মানিক, মতাই, ইসলাম, আজির, গিয়াস, জাকারিয়া, রিয়াজ, রায়হান, দুদু মিয়া, মোহাম্মদ, সালাম, গফুর, সেবুল দাস, বিজয় দাস, রঞ্জু দাস, রহিম, দলাই, আমিন প্রমুখ।

কানাইঘাটে ব্যবসায়ীর মোটর সাইকেল পুড়িয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা

কানাইঘাটে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এক ব্যবসায়ীর মোটর সাইকেল পুড়িয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় কানাইঘাট থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। জানা যায়, উপজেলার সদর ইউনিয়নের নিজ চাউরা উত্তর গ্রামের জালাল উদ্দিনের পুত্র ব্যবসায়ী মুমিন রশিদ গত রোববার(১ জানুয়ারী) রাত অনুমান ১১টায় তার নিজস্ব দামী হিরো মোটর সাইকেলটি বাড়ির নিকটস্থ নিজ চাউরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে রাস্তার পাশে রেখে কানাইঘাট বাজারে পেট্রোল কিনতে যান। প্রায় ঘন্টাখানেক পরে ফিরে এসে মোটর সাইকেলটি না পেয়ে অনেক খোঁজাখুজি করেন মুমিন রশিদ। পরে পার্শ্ববর্তী ক্ষেতের মাঠে সম্পূর্ণ ভষ্মিভূত অবস্থায় মোটর সাইকেলটি দেখতে পান তিনি। এ ঘটনায় মোটর সাইকেলের মালিক মুমিন রশিদ থানায় অভিযোগ দায়ের করলে গতকাল মঙ্গলবার এসআই এনাম আহমেদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। মুমিন রশিদ জানান, প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য নুর হোসেন পরিকল্পিতভাবে এলাকার দু®কৃতিকারীদের নিয়ে তার মোটর সাইকেলটি পুড়িয়ে দিয়েছেন।

কানাইঘাটে পুলিশি অভিযানে ১৪ জন গ্রেফতার

কানাইঘাটে পর পর ৩টি দুর্ধর্ষ ডাকাতি সংঘটিত হওয়ায় জনমনে আতংক বিরাজ করলে জনসাধারণের জানমালের নিরাপত্তা বিধানে কানাইঘাট থানা পুলিশ উপজেলা জুড়ে চোর, ডাকাত এফআইআর ওয়ারেন্টভুক্ত আসামীসহ অপরাধীদের চিহ্নিত করে গ্রেফতার অভিযান শুরু করেছে। গত ২ দিনে থানার নবাগত ওসি রফিকুল হোসাইন ও ওসি (তদন্ত) রুহুল আমিনের নেতৃত্বে পুলিশের একাধিক টিম রাতভর অভিযান চালিয়ে ৩দিনে ডাকাতি ঘটনার সাথে জড়িত সহ বিভিন্ন মামলার ১৪ জন আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত আসামীরা হলো- উপজেলার ফতেগঞ্জ গ্রামের মৃত মুজম্মিল আলীর পুত্র নুর আহমদ (২৪) নারাইণপুর গ্রামের মুর্শেদ আলীর পুত্র আশিক উদ্দিন, ময়না গ্রামের সিরাজ উদ্দিনের পুত্র সালিক (২২), গাজীপুর গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের পুত্র বদরুজ্জামান, সিহাবুজ্জামান, নুরুজ্জামান, মাঝতালুক গ্রামের আনোয়ার হোসেনের পুত্র নুরুল ইসলাম, সর্দারীপাড়া গ্রামের ফজলু হকের পুত্র আলম (২৪), শাহজাহান (২৬), মহিষপুর গ্রামের ইয়াসিন আলী’র পুত্র আফতাব আলী (৪২) ডালাইচর গ্রামের বাবুল আহমদ (৪৫), ৬নং সদর ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর গ্রামের ইদ্রিস আলীর পুত্র দেলোওয়ার হোসেন (৪০) ও লখাইগ্রামের আনিসুল হকের পুত্র হারিস উদ্দিন (২৩) ও রাজপুর গ্রামের আব্দুস সামাদের পুত্র আলিম উদ্দিন (৪০)।

স্কুল ছাত্র নিখোঁজ

Kanaighat News on Monday, January 2, 2012 | 6:45 PM

জৈন্তাপুর সেন্ট্রেল উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র আবদুর রউফ তারেক(১৫) গত বুধবার নিখোঁজ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। দরবস্ত বারইকান্দিস্থ নানার বাড়ী হতে নিজ বাড়ী কানাইঘাটের হারাতৈল(মাঝবড়াই) গ্রামের উদ্দেশ্য বের হওয়ার পর তার আর কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছেনা। সম্ভাব্য সকল স্থানে খোঁজাখোঁজি করেও তার কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে জৈন্তাপুর থানায় সাধারণ ডায়েরী করা হয়েছে। জিডি নং ১২১২/৩০/১২/২০১১ইং। কোন সহৃদয় ব্যক্তি তার সন্ধান পেলে পিতা মো: আবদুল হামিদের সাথে যোগযোগ করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে। মোবাইল নং-০১৭১৫৩৯৫৮১৫

নিঃস্বার্থ সমাজসেবী ক্যাপ্টেন ফাহিম আল্ ইসহাক চৌধুরী

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

আজ বিশ্বের মানুষ যেখানে আত্নকেন্দ্রিক ও স্বার্থপর হয়ে ঊঠেছে ঠিক সেই সময়ে কেউ না কেউ আর্থ মানবতার সেবায় নিজেকে বিলীন করে দিয়েছেন। এখনো পৃথিবীতে এমন কিছু মানুষ আছে যারা সত্যিকার অর্থে দেশ,সমাজ ও মানুষের কথা ভাবেন। সমাজ সেবা এই শব্দটি এখন বড় রহস্যময়। আজ কাল সেবা দেখলেই প্রায় সবার মনে একটা প্রশ্ন জাগে? নিশ্চই এখানে তার স্বার্থ জড়িত আছে-হয়তো নির্বাচন করবে কিংবা নিজের যে টাকা পয়সা আছে তা জানানোর জন্য,অথবা বাপ-দাদার নাম প্রচার করার জন্য মাঠে নেমেছেন। আবার অনেক দানবীর ক্যামেরার সামনে ছাড়া দান করেন না। কেউ আবার ১০ টাকা দিয়ে ১০০০ টাকার গল্প করেন। তাদের ছাড়াও আরো কিছু নিঃস্বার্থ নিবেদিত প্রান সমাজসেবী দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছেন তদের ক’জনের খবরই বা আমরা জানি। যারা প্রচার বিমূখ। তাদেরই একজন ক্যাপ্টেন ফাহিম আল্ ইসহাক চৌধুরী। তিনি সিলেট জেলার জকিগঞ্জ উপজেলার বারহাল ইউনিয়নের মুহিতপুর গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। তার পিতা মরহুম মাওলানা আব্দুল মুছাব্বির চৌধুরী ও মাতা জাহানারা বেগম। পিতা ছিলেন একজন ধর্মপ্রাণ মানুষ ও সমাজসেবী ব্যাক্তিত্ব। মা - বাবা ও ভাই-বোনদের মধ্যে তিনি ছিলেন বেশ আদরের। মাত্র ৭ বছর বয়সে পিতা - মাতার সাথে লন্ডনে স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য পাড়ী জমান। শিশুকাল থেকে ক্যাপ্টেন ফাহিম আল্ ইসহাক ছিলেন মেধাবী ও সরলমনা। তাই শিক্ষাক্ষেত্রে ও তিনি ছিলেন কীর্তিমান। বাল্যকাল শিক্ষা শেষে তিনি লন্ডনস্থ কেম্ব্রিজ ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হয়ে ব্যাচলর অব সাইন্স সমাপন করেন। তার উদারতার ফলক হিসাবে তিনি ২০০৫ সালের কেম্ব্রিজ ইউনিভার্সিটির ফার্স্ট বয় নির্বাচিত হন। দেশ ও জাতীর গর্ব হিসেবে নিজেকে আত্মনিয়োগের স্বপ্ন নিয়ে তিনি ২০০৬ সালে ভর্তি হন ডিসকভারী ট্রেনিং সেন্টারে (Toront Canada)। সেখানে ও দাতার পরিচয় দেয় ২০০৭ সালে ট্রেনিং শেষ করে প্রথমে চাকরী নেন ইজি জেড এয়ারওয়েজে প্রথম বাংলাদেশী ক্যাপ্টেন হিসাবে। দীর্ঘদিন চাকুরী করার পর এয়ার পরিবহনে সবচেয়ে পরিচিত ব্রিটিশ এয়ারওয়েজেও প্রথম বাংলাদেশী ক্যাপ্টেন হিসাবে চাকুরী করেন। বর্তমানে তার সিলভার জেট-এ বি এম আই এয়ার লাইন্সে চাকরিরত। কিন্তু লন্ডনের বিলাস বহুল জীবন ছেড়ে একমাত্র নাড়ীর টানে সূদুর প্রবাস থেকে ছুটে আসেন গ্রামাঞ্চলের দরিদ্র মানুষের দুঃখ-কষ্ট লাঘবের জন্য। তাদের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের মুখে হাসি ফুটানোর জন্য। আজ মানুষ যেখানে প্রায় সবাই প্রতিযোগিতায় ব্যাস্ত; কিভাবে লাখপতি থেকে ট্রিলিয়নপতি হওয়া যায়। কিন্তু গরিব-দুঃখী মানুষের বন্ধু ক্যাপ্টেন ফাহিম আল্ ইসহাক চৌধুরী তাদের ব্যাতিক্রম। তিনি তার নিজের বেতনের একটি অংশ বিলিয়ে দিয়ে যাচ্ছেন মানব কল্যানে। ক্যাপ্টেন ফাহিম আল্ ইসহাক চৌধুরী একজন নীরহংকার ব্যাক্তি; এ বাংলা মাঠির সন্তান। যিনি দেশে এসে গ্রামের সুবিধা বঞ্চিত এবং দরিদ্র শিার্থীসহ গরীব- দুঃখী ও নির্যাতিত - নিপিড়িতদের সব ধরনের সহযোগিতা-সহমর্মিতার পাশাপাশি এলাকার মসজিদ, মাদ্রাসায় দান - খয়রাত এবং রাস্তাঘাটের উন্নয়নের জন্য নিজের অনুদান অব্যাহত রেখেছেন। বণ্যার্থদের ত্রান সামগ্রী দিয়ে, স্কুল - কলেজে, শিক্ষা ও সংস্কৃতি উন্নয়নে আর্থিক ও মানসিক অবদান রেখেছেন। তাই সৃষ্টি কর্তার কাছে তাঁর সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করি। আসুন আমরাও ফাহিম আল্ ইসহাক চৌধুরী মতো গরীব,দুঃখী মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের মুখে হাসি ফুটাতে ক্ষুধার্তদের অন্য যোগাতে সহযোগিতা করি। আল্লাহ আমাদের সকলকে তারই মতো নিঃস্বার্থ সমাজ সেবা করার যেন তৌফিক দান করুন।

অংক শেখানোর নতুন কৌশল উদ্ভাবনে ব্রিটেনে সিলেটি শিক্ষকের কৃতিত্ব

Kanaighat News on Sunday, January 1, 2012 | 6:37 PM

মাহবুবুর রশিদ:

ব্রিটেনে ডিজিটাল পদ্ধতিতে অংক শেখানোর সহজ ও নতুন কৌশল আবিষ্কার করে আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন সিলেটি শিক্ষক শোয়েবুর রহমান। বাংলাদেশের মতো ব্রিটেনের স্কুলে অধ্যয়নরত ছাত্র-ছাত্রীরা সব বিষয়ে ভাল রেজাল্ট করলেও অংকে বেশ দুর্বল।
বিলিয়ন পাউন্ড খরচ করেও অংকে কাঙ্কিত ফল না পাওয়ায় সেখানকার শিক্ষা মন্ত্রণালয় বেশ চিন্তিত। অংকে ছাত্র-ছাত্রীরা যাতে ভাল রেজাল্ট করতে পারে সে লক্ষ্যে আইটি নির্ভর করে সহজ পদ্ধতিতে অংক শেখার নতুন পদ্ধতি উদ্ভাবনের জন্য মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করেছে ব্রিটেনের শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ পরিকল্পনা বাস্তবায়নে এগিয়ে আসে চীনের লিকাসিং ফাউন্ডেশন । পরিকল্পনাটি কিভাবে বাস্তবায়ন করা যায় এজন্য ব্রিটেনের নয়টি স্কুলকে বেছে নিয়ে এসব স্কুলের অংক বিভাগের শিক্ষকদেরকে সহজ ও সুন্দর আইটি নির্ভর পদ্ধতি উদ্ভাবনের দায়িত্ব দেওয়া হয়। গণিত শিক্ষকরা টেকনোলজি নির্ভর নানা ফর্মুলা ও কলাকৌশল উদ্ভাবন করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে উপস্থাপন করেন। অংশগ্রহনকারী নয়টি বিদ্যালয়ের গণিত শিক্ষকদের মধ্যে পূর্ব লন্ডনের কিংসফোর্ড সেকেন্ডারি স্কুলের শিক্ষক শোয়েবুর রহমান অন্যতম একজন । তিনি বাংলাদেশী বংশদ্ভূত বৃটিশ নাগরিক সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার কৃতিসন্তান। তার উদ্ভাবিত গণিত শেখানোর টেকনোলজি নির্ভর সহজ পদ্ধতিটি বৃটেনের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে সমাদৃত হয়েছে। বৃটিশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এ মহাপরিকল্পনাটি বাস্তবায়নে বাংলাদেশী গণিত শিক্ষকের কৃতিত্ব সারা বিশ্বে বাংলাদেশের গৌরভ ও সুনাম বৃদ্ধি করেছে। গত ৯ ডিসেম্বর ২০১১ খোদ ব্রিটিশ শিক্ষামন্ত্রী মাইকেল গর্ভ এমপি ছুটে আসেন পূর্ব লন্ডনের কিংস ফোর্ড সেকেন্ডারি স্কুলে। মন্ত্রী ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিয়ে বৈঠক করেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জোয়ান ডেসল্যান্ডেস ও গণিত বিভাগের প্রধান সুয়েবুর রহমানকে নিয়ে। তারা শোয়েবের আবিষ্কৃত পদ্ধতি নিয়ে আরও বিস্তারিত আলোচনা করেন। শিক্ষামন্ত্রী নিজে শোয়েবুর রহমানের প্রতিটি কথা মনোযোগ দিয়ে শুনেন ও নোট লিখেন এবং বারবার তাকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। তিনি বলেন, অংক শিক্ষায় অনাগ্রহী শিক্ষার্থীরা এ সহজ এবং চিত্তাকর্ষক পদ্ধতিতে ক্লাসে আরও আগ্রহী হয়ে অংক শিক্ষা গ্রহণ করবে। ডিজিটাল মেথর্ডস প্রকল্পটি সব ছাত্র-ছাত্রীকে আরও উৎসাহিত করবে এ শিক্ষায় ভালো ফল করতে। শোয়েবুর রহমান সিলেট জেলার কানাইঘাট উপজেলার বায়মপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মরহুম ড:সাজ্জাদুর রহমান ও মাতা জাহানার বেগম রেবা। ছোট বেলায় বায়মপুর মক্তব ও বায়মপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করেন। তারপর কানাইঘাট উচ্চ বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করেন। ১৯৮৭ সালে লন্ডন এসে জিসিএসই এ-লেভেল করেন। তিনি লন্ডন ইউনিভার্সিটি থেকে অংকে অনার্স এবং মাস্টার্স করেন। শিক্ষকতা পেশায় যোগ দেয়ার আগে তিনি পিজিসি ডিগ্রি সম্পন্ন করেন। ১৯৯৭ সালে গণিত শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন বামটন মেনার সেকেন্ডারি স্কুলে । টানা ১০ বছর ছাত্র-ছাত্রীদেরকে সেখানে গণিত শিক্ষা দেন । পরে গণিতের বিভাগীয় প্রধান হয়ে ২০০৫ সালে যোগদান করেন পূর্ব লন্ডনের কিংসফোর্ড সেকেন্ডারি স্কুলে । আর এ স্কুল থেকেই তার সাফল্যের শতকলা পুর্ণ হল। শিক্ষকতা ছাড়াও অংক নিয়ে তার অনেক গবেষণা মূলক কাজ রয়েছে। আমরা আশাবাদী শোয়েবুর রহমান ভবিষতে তার পেশায় আরো সাফল্য অর্জন করে বাংলা ভাষাভাষী মানুষের সুনাম বৃদ্ধি করবেন।
 
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো:মহিউদ্দিন,সম্পাদক : মাহবুবুর রশিদ,নির্বাহী সম্পাদক : নিজাম উদ্দিন। সম্পাদকীয় যোগাযোগ : শাপলা পয়েন্ট,কানাইঘাট পশ্চিম বাজার,কানাইঘাট,সিলেট।+৮৮ ০১৭২৭৬৬৭৭২০,+৮৮ ০১৯১২৭৬৪৭১৬ ই-মেইল :mahbuburrashid68@yahoo.com: সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত কানাইঘাট নিউজ ২০১৩